You are here: Homeঅনেক কিছুপুস্তকItems filtered by date: Tuesday, 13 February 2018

নিঊজ ডেস্ক, ১৩ই ফেব্রুয়ারীঃ সল্টলেকের এক ব্যবসায়ী  বিধাননগরের মেয়র সব্যসাচী দত্তের  বিরুদ্ধে  টাকা দাবী করার গুরুতর  অভিযোগ আনলেন। 

আজ কলকাতা প্রেস ক্লাবে এক সাংবাদিক সন্মেলনে  সল্টলেকের  ব্যবসায়ী  মধুসূদন চক্রবর্তী বিধাননগরের মেয়র সব্যসাচী দত্তের বিরুদ্বে অভিযোগ করে বলেন  যে তার  কাছে থেকে ত্রিপুরা বিধানসভা নির্বাচনের জন্য এক কোটি টাকা দাবি করেছেন সব্যসাচী দত্ত। ব্যবসায়ীর অভিযোগ, ফোন করে সব্যসাচী দত্ত তাঁকে হুমকি দেন, ওই টাকা তাঁকে দিতেই হবে। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের কাছে গিয়েও কোনও লাভ নেই বলে হুমকি দেওয়া হয় ওই ব্যবসায়ীকে।  সংবাদ মাধ্যমের সামনে তিনি বলেন, 'আমি মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের কাছে আবেদন করব। আমি বলব, আমাকে বাঁচান। প্রয়োজনে আমি মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সঙ্গে দেখা করে ব্যবস্থা নেওয়ার আবেদন জানাব।''
ওই ব্যবসায়ীর দাবি, ২০ দিন আগে একটা রবিবার তাঁকে ফোন করে ২ লক্ষ ৩০ হাজার টাকা দাবি করেন মেয়র সব্যসাচী দত্ত। তিনি দাবি করেছেন, ‘ওনার কথামতো ২ লক্ষ ৩০ হাজার টাকা দিয়েছিলাম।সব্যসাচীর অনুগামীর হাতে ২ লক্ষ ৩০ হাজার টাকা দিই। এরপর সব্যসাচী দত্ত তাঁকে ফোন করে প্রথমে ৩০ লক্ষ টাকা চান এবং পরে ত্রিপুরা নির্বাচনের কথা বলে এক কোটি টাকা চাওয়া হয়। ১২ ফেব্রুয়ারি রাত ১০.৪১-এ আবার ফোন আসে।আজ সকাল ১০টা নাগাদ আবার ফোন আসে।আমি বিষয়টি তৃণমূলের কয়েকজন নেতাকে জানাই।তৃণমূল নেতারা বলেন, মিটিয়ে নাও, নইলে ফল ভাল হবে না।সব্যসাচী বলেছেন, আমাকে টাকা দিতে হবে।।টাকা দিতে না পারলে, আমার চেয়ে খারাপ কেউ হবে না।’

এই অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতেই সব্যসাচী দত্ত এর প্রতিক্রিয়া জানতে চাইলে তিনি  জানান, একেবারেই ভিত্তিহীন অভিযোগ। আমি কেন টাকা চাইতে যাব। আবার ত্রিপুরা নির্বাচনের জন্য সল্টলেকে টাকার দাবি কে করব । এসবই পরিকল্পিত চক্রান্ত।  ত্রিপুরা নির্বাচনের প্রাক্কালে ওই ব্যবসায়ীকে দিয়ে অভিযোগ করানো হয়েছে, এসব বিজেপির চক্রান্ত।

Published in State

নিঊজ ডেস্ক, ১৩ই ফেব্রুয়ারীঃ সল্টলেকের এক ব্যবসায়ী  বিধাননগরের মেয়র সব্যসাচী দত্তের  বিরুদ্ধে  টাকা দাবী করার গুরুতর  অভিযোগ আনলেন। 

আজ কলকাতা প্রেস ক্লাবে এক সাংবাদিক সন্মেলনে  সল্টলেকের  ব্যবসায়ী  মধুসূদন চক্রবর্তী বিধাননগরের মেয়র সব্যসাচী দত্তের বিরুদ্বে অভিযোগ করে বলেন  যে তার  কাছে থেকে ত্রিপুরা বিধানসভা নির্বাচনের জন্য এক কোটি টাকা দাবি করেছেন সব্যসাচী দত্ত। ব্যবসায়ীর অভিযোগ, ফোন করে সব্যসাচী দত্ত তাঁকে হুমকি দেন, ওই টাকা তাঁকে দিতেই হবে। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের কাছে গিয়েও কোনও লাভ নেই বলে হুমকি দেওয়া হয় ওই ব্যবসায়ীকে।  সংবাদ মাধ্যমের সামনে তিনি বলেন, 'আমি মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের কাছে আবেদন করব। আমি বলব, আমাকে বাঁচান। প্রয়োজনে আমি মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সঙ্গে দেখা করে ব্যবস্থা নেওয়ার আবেদন জানাব।''
ওই ব্যবসায়ীর দাবি, ২০ দিন আগে একটা রবিবার তাঁকে ফোন করে ২ লক্ষ ৩০ হাজার টাকা দাবি করেন মেয়র সব্যসাচী দত্ত। তিনি দাবি করেছেন, ‘ওনার কথামতো ২ লক্ষ ৩০ হাজার টাকা দিয়েছিলাম।সব্যসাচীর অনুগামীর হাতে ২ লক্ষ ৩০ হাজার টাকা দিই। এরপর সব্যসাচী দত্ত তাঁকে ফোন করে প্রথমে ৩০ লক্ষ টাকা চান এবং পরে ত্রিপুরা নির্বাচনের কথা বলে এক কোটি টাকা চাওয়া হয়। ১২ ফেব্রুয়ারি রাত ১০.৪১-এ আবার ফোন আসে।আজ সকাল ১০টা নাগাদ আবার ফোন আসে।আমি বিষয়টি তৃণমূলের কয়েকজন নেতাকে জানাই।তৃণমূল নেতারা বলেন, মিটিয়ে নাও, নইলে ফল ভাল হবে না।সব্যসাচী বলেছেন, আমাকে টাকা দিতে হবে।।টাকা দিতে না পারলে, আমার চেয়ে খারাপ কেউ হবে না।’

এই অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতেই সব্যসাচী দত্ত এর প্রতিক্রিয়া জানতে চাইলে তিনি  জানান, একেবারেই ভিত্তিহীন অভিযোগ। আমি কেন টাকা চাইতে যাব। আবার ত্রিপুরা নির্বাচনের জন্য সল্টলেকে টাকার দাবি কে করব । এসবই পরিকল্পিত চক্রান্ত।  ত্রিপুরা নির্বাচনের প্রাক্কালে ওই ব্যবসায়ীকে দিয়ে অভিযোগ করানো হয়েছে, এসব বিজেপির চক্রান্ত।

Published in State

নিঊজ ডেস্ক, ১৩ই ফেব্রুয়ারীঃ পাঞ্জাবের পঞ্চকুলা স্টেডিয়ামে  ইস্টবেঙ্গল ও মিনার্ভা পাঞ্জাব ম্যাচ শুরুর আগে পর্যন্ত বিতর্ক লাল হলুদ কে তাড়া করে বেড়ালো, রেফারিং বিতর্ক, মাঠ বিতর্ক ও ম্যাচ ফিক্সিং  এই বিতর্কের জল অনেকদূর অবধি গড়িয়েছিল। আর  লড়াই করার মানসিকতা  দিয়ে এই সব বিতর্ককে দূরে সরিয়ে পাঞ্জাবে গিয়ে মিনার্ভা বধ করল লাল হলুদ। লক্ষ লক্ষ সমর্থক ও  ফ্যানদের মুখে হাসি ফুটিয়ে  ১-০ গোলে ম্যাচ জিতে আই লিগের খেতাবি লড়াই জমিয়ে দিয়ে  টিকে থাকল ইস্টবেঙ্গল।

আজকের অ্যাওয়ে ম্যাচে শুরু থেকেই একতরফা আক্রমনে  ইস্টবেঙ্গল। অন্যদিকে লালহলুদকে  আটকানোর জন্য মিনার্ভা পাঞ্জাব কিছুটা রক্ষণাত্মক হয়ে  মাঠে নেমেছিল। এদিকে ইস্টবেঙ্গলের কাটসুমিকে কড়া ম্যান মার্কিংয়ে  রেখে আক্রমণ ভাগকে ভোতা করে দেওয়ার পরিকল্পনা করেন। খেলার প্রথম কয়েক মিনিটের মধ্যেই রালতের গোলের শট অফসাইডের জন্য বাতিল হয়।  ৩২ মিনিটে ইয়ামি  গোলের সামনে ওয়ান টু ওয়ান খেলে  গোলকিপারের হাতে বল তুলে দেন ।খালিদ জামিল ৩৬ মিনিটে ইয়ামি কে তুলে নিয়ে ক্রোমাকে নামান আক্রমণ বাড়ানোর জন্য। এর কিছুক্ষনের মধ্যেই এডু প্রায়  আত্মঘাতী গোল করে ফেলেছিলেন, কিন্তু হয়নি । প্রথমার্ধেই ক্রোমাকে বক্সের মধ্যে ফাউল করার পরেও রেফারি নিশ্চত পেনাল্টি অগ্রাহ্য করেন। প্রথমার্ধের খেলা শেষ হয় গোলশুন্য ভাবে।

 দ্বিতীয়ার্ধের ৮ মিনিটে মিনার্ভা পাঞ্জাবের বক্সে হ্যান্ড বল হওয়া সত্তেও রেফারি  অগ্রাহ্য করে পেনাল্টির  আবেদন নাকচ করে দেন । এরপর একের পর এক  আক্রমণ  চালিয়েই যেতে থাকে লালহলুদ। ৬০ মিনিটে বক্সের  বাইরে থেকে কেভিন লোবোর  বিশ্বমানের জোরালো শট মিনার্ভার জালে জড়িয়ে যায়। ম্যাচের শুরু থেকেই কেভিন দূরপাল্লার শট নেওয়ার চেষ্টা করেন । ফল পান ৬০ মিনিটে। প্রায় ৪০ গজ দূর থেকে নেওয়া শট ডান দিকের টপ কর্নার দিয়ে ঢুকে যায় জালে।

ম্যাচের  ৭৭ মিনিটে লোবোকে তুলে রফিককে নামান  খালিদ জামিল। ৮০ মিনিটে মিনার্ভা  পাঞ্জাবের  জোরালো শট আটকে দেন লালহলুদের গোলরক্ষক উবেইদ। শেষদিকে মিনাভা কিছুটা চেপে ছিল  কিন্তু সফল হয়নি ।  মাঝমাঠে দুর্দান্ত খেলে  আল আমনা ম্যান অফ দ্য ম্যাচ হয়েছেন। আজকের  ম্যাচে পাঞ্জাবের বিরুদ্ধে জিতে ১৪ ম্যাচে ২৬ পয়েন্ট নিয়ে লিগ টেবলের তিন নম্বরে। একটা বেশি খেলে ন্যেরোকা এফসি ২৮পয়েন্ট নিয়ে দ্বিতীয় স্থানে। এই মুহূর্তে লিগ টেবলের এক নম্বরে রয়েছে মিনার্ভা পাঞ্জাব ১৪ ম্যাচে ২৯ পয়েন্ট তাদের। ইস্টবেঙ্গলের সাথে পয়েন্টের পার্থক্য থাকল ৩।

Published in Football

ডেস্ক, ১৩ই ফেব্রুয়ারীঃ মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের অনুপ্রেরনায় মালদার মৎস্য প্রজনন কেন্দ্র বড় সাগরদিঘি ঘিরে বড়সড় একটি ইকো টুরিজ়ম পার্ক তৈরির সিদ্ধান্ত নিয়েছে রাজ্য সরকার। গতকাল মালদায় এসে চুনো-পুঁটি খাল-বিল মেলার উদ্বোধন করার পর সাগরদিঘি পরিদর্শন করে একথা জানালেন রাজ্যের মৎস্যমন্ত্রী চন্দ্রনাথ সিনহা।
তিনি জানান, এই পার্ক গড়ার দায়িত্বে থাকছেন জেলাশাসক। খুব তাড়াতাড়ি কাজ শুরু হয়ে যাবে। প্রথমে বড়  সাগরদিঘি সংযোগকারী রাস্তা নির্মাণ করা হবে। তারপর হাত দেওয়া হবে বিদ্যুতায়নের কাজে। দিঘির চারপাশে বসার জায়গার পাশাপাশি পর্যটকরা যাতে সেখানে রাতে থাকতে পারেন, সেজন্য তৈরি করা হবে অতিথি নিবাস।

  প্রসঙ্গত গতকাল মালদা কলেজ ময়দানে মৎস্য দপ্তর আয়োজিত চুনো-পুঁটি খাল-বিল মেলার উদ্বোধনে আসেন মৎস্যমন্ত্রী। সকালে তিনি সাদুল্লাপুরে মরা ভাগীরথী পরিদর্শনে যান। মন্ত্রী থাকাকালীন কৃষ্ণেন্দুনারায়ণ চৌধুরির উদ্যোগে গঙ্গা ও মরা ভাগীরথীর সংযোগকারী স্লুইস গেট চালু করা হয়েছিল। ফলে, বর্তমানে মরা ভাগীরথীতে বেশ ভালো জল রয়েছে। সেই জলে বিভিন্ন প্রজাতির মাছের পোনা ছাড়েন মৎস্যমন্ত্রী। সেখান থেকে জেলাশাসককে নিয়ে তিনি চলে যান বল্লাল সেনের আমলে তৈরি বড় সাগরদিঘিতে। সেখানে ইকো টুরিজ়মের সম্ভাবনা খতিয়ে দেখেন। সেখানকার দুটি পুকুরে মাছের পোনা ছাড়েন। একটি অত্যাধুনিক ল্যাবরেটরিরও উদ্বোধন করেন মন্ত্রী।
বিকেলে চন্দ্রনাথবাবু মালদা কলেজ ময়দানে মৎস্য দপ্তর আয়োজিত চুনো-পুঁটি খাল-বিল মেলার উদ্বোধন করেন। জেলাশাসক কৌশিক ভট্টাচার্য ছাড়াও সেখানে মৎস্য দপ্তরের আধিকারিকরা সহ জেলা প্রশাসনের কর্তারা উপস্থিত ছিলেন। মেলা উপলক্ষ্যে ময়দানে ২৮টি স্টল হয়েছে। তার মধ্যে ৩টি থেকে সরকারি মূল্যে মাছ কিনেছেন মেলায় আসা সাধারণ মানুষ। জেলার ৬১টি মৎস্য সমবায়

Published in Malda-Dinajpur-2

ডেস্ক, ১৩ই ফেব্রুয়ারীঃ জমি মাফিয়ারা এক বৃদ্ধ দম্পতিকে তাদের নিজস্ব  আম বাগান থেকে উচ্ছেদ করলো ।বৃদ্ধ দম্পতি  তাদের এই শেষ সম্বল বাঁচাতে ইংরেজবাজার থানার দ্বারস্থ হল । কিন্তু এখনও পর্যন্ত পুলিশ কোন ব্যবস্থা না নেওয়ায় দম্পতি পুলিশের বিরুদ্বে ক্ষোভ উগরে দিলেন। উল্টে ঐ জমি মাফিয়ারা বাগানের আম গাছ গুলি ইতিমধ্যে কাটতে শুরু করেছে।  গাছ কাটার ছবি তুলতে গেলে জমি মাফিয়াদের চোখ রাঙানির মুখে আমাদেরকে পড়তে হয় ।

  ইংরেজবাজার থানার লক্ষীপুর গ্রামে গত ১৯৬৮ সালে এক বিঘা আম  বাগান ক্রয় করেছিলেন মালদা  বিবিগ্রামের বাসিন্দা আব্দুল গাফ্ফর।   সন্তানহীন এই দম্পতির বৃদ্ধ বয়সে ঐ বাগানই তাদের  একমাত্র সম্বল থাকার কথা। কিন্তু এলাকার জমি মাফিয়া মাইনুল ও তার দলবলের নজর পড়ে এই  বৃদ্ধ দম্পতির জমির উপর। মালদা মানিকচক রাজ্য সড়কের ধারে এই জমির বাজার মূল্য প্রায় ৫০লক্ষেরও বেশী। দীর্ঘ কয়েক বছর ধরে বাগানটি দখল করে প্রোমটিং করার চেষ্টা করে চলেছেন এলাকার জমি মাফিয়ারা। কিন্তু বৃদ্ধ দম্পতি বাগান বাচাতে আদালতে মামলা করেন।আদালত আম বাগানটির স্থিতাবস্থা বজায় রাখার নির্দেশেও দিয়েছেন। কিন্তু জমি মাফিয়ারা এই নির্দেশ অমান্য করে আম বাগানের অস্থিত্ব ধ্বংস করেছেন বলে অভিযোগ। শুধু তাই নয় বাগানের দখল না ছাড়লে বৃদ্ধ দম্পতিকে প্রাণে মেরে ফেলারও হুমকী দিচ্ছেন এই জমি মাফিয়ারা। ফলে নিজেদের নিরাপত্তা ও আম বাগান বাঁচানোর জন্য প্রশাসনিক কর্তাদের দ্বারে দ্বারে ঘুরছেন তারা। যদি জেলা প্রশাসনের কোন কর্তাই এই বৃদ্ধ দম্পতিকে সাহার্য্যের জন্য হাত বাড়ায় নি। ফলে তাদের আম বাগানের কিছু আম গাছ  ইতিমধ্যে কেটে ফেলেছেন জমি মাফিয়া। প্রশাসনের উদাসীনতায় তারা আজ হতাশায় আক্রান্ত।  এদিকে জমি মাফিয়ারা আদালতের নির্দেশকে বুড়ো আঙুল দেখিয়ে  বন দপ্তরে জাল নথি জমা দিয়ে এই বাগানের আম গাছ কাটার অনুমতি পত্র জোগাড় করে বাগানের সব গাছ কেটে ফেলেছেন। এই  অবস্থায় বৃদ্ধ দম্পতি অসহায় হয়ে প্রশাসনের দুয়ারে দুয়ারে ঘুরে বেড়াচ্ছেন। আর জমি মাফিয়া  ক্ষমতার বলে আদালতের নির্দেশ অমান্য করে দিব্যি ঘুরে বেড়াছেন। 

আর এই  ঘটনার পর জেলা পুলিশ প্রশাসনের কোন প্রতিক্রিয়া পাওয়া যায়নি। যদিও ইংরেজবাজার  বিধানসভার বিধায়ক নীহার রঞ্জন ঘোষ বিষয়টি জানতে পেরে অবিলম্বে ব্যবস্থা নেওয়ার নির্দেশ দিয়েছেন ইংরেজবাজার থানার পুলিশ কর্তাদের। 

 

Published in Malda-Dinajpur-2

   ডেস্ক, ১৩ই ফেব্রুয়ারীঃ শিবরাত্রির প্রাক মুহুর্তে মঙ্গলবার সকালে মালদা জেলার ইংরেজবাজারের কোতুয়ালি অঞ্চলের গণিপুরে প্রায় ১৭০ বছরের পুরানো একটি শিব মন্দিরের পুর্ন-প্রতিষ্ঠা করা হল। অনুষ্ঠানের আনুষ্ঠানিক উদ্ধোধন করলেন মালদা জেলা পরিষদের প্রাক্তণ সভাধিপিত উজ্জ্বল চৌধুরী।
জানা যায়, আজ থেকে প্রায় ১৭০ বছর আগে এই শিব মন্দিরের প্রতিষ্ঠা করা হয়। বর্তমানে গণিপুরের স্থানীয় বাসিন্দারা এই মন্দিরের দেখভাল করেন। মন্দিরের সেবায়ত রয়েছেন, চন্তকান্ত দাস। বুধবার শিবরাত্রি, তার আগে মঙ্গলবার সকালে শিবরাত্রির ঠিক প্রাক মুহুর্তে এই শিব মন্দিরের  পুর্ন-প্রতিষ্ঠা করা হয়। এই মর্মে এক অনুষ্ঠানেরও আয়োজন করা হয়েছিলো। উপস্থিত ছিলেন, মালদা জেলা পরিষদের প্রাক্তণ সভাধিপিত উজ্জ্বল চৌধুরী সহ অন্যান্যরা।


Published in Malda-Dinajpur-2

ডেস্ক,১৩ই ফেব্রুয়ারীঃ পণের দাবিতে এক গৃহবধূকে শ্বাসরোধ করে খুন করে আগুন ধরিয়ে দেওয়ার অভিযোগ উঠলো স্বামী সহ শ্বশুর বাড়ির সদস্যদের বিরুদ্ধে। ঘটনাটি ঘটেছে, মালদার গাজোল থানার বাবুপুর এলাকায়।

জানা গেছে, মৃতা গৃহবধূর নাম বন্দনা মণ্ডল। গত সাত বছর আগে পুরাতন মালদার জিৎকুল এলাকার বাসিন্দা বন্দনার বিয়ে হয় গাজোল থানার বাসিন্দা বিনয় মণ্ডলের সাথে। বিনয় পেশায় শ্রমিক। বর্তমানে তাদের তিন এবং আট বছরের দুই কন্যা সন্তান রয়েছে। মৃতা গৃহবধূর বাপের বাড়ির অভিযোগ, বিয়ের পর থেকে মাঝেমধ্যেই বাপের বাড়ি থেকে টাকা নিয়ে আসার জন্য চাপ দিতো বিনয়। এই নিয়ে মাঝেমধ্যে তাদের মধ্যে অশান্তি লেগে থাকত। মারধোর করা হত তাদের মেয়েকে। ঠিক সেই রকমই সোমবার এই নিয়ে আবার বচসা বাধে স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে। অভিযোগ এই সময় স্বামী বিনয় মণ্ডল এবং তারা বাবা মিলে তাদের মেয়েকে প্রথমে শ্বাসরোধ করে খুন করে। পরে গায়ে আগুন ধরিয়ে দেওয়া হয় যাতে সবাই বলে আত্নহত্যা করেছে বন্দনা। সকালে বিষয়টি জানতে পেরে মৃতা গৃহবধূর বাপের লোকেরা ঘটনাস্থলে আসে। গাজোল থানায় একটি খুনের অভিযোগ দায়ের করা হয়। জানা গেছে, পুলিশ অভিযোগের ভিত্তিতে স্বামী বিনয় মণ্ডল এবং তার বাবা ও মাকে গ্রেফতার করেছে।


Published in Malda-Dinajpur-2

ডেস্ক, ১৩ই ফেব্রুয়ারীঃ গতকাল রাত সাড়ে ১১টা নাগাদ  ভয়াবহ অগ্নিকান্ডে ভসমীভূত হয়ে গেলো মালদার বৈষ্ণব নগর থানার দেওনাপুরের সোয়েব আলি টোলা এলাকায় একটি গৃহস্থ বাড়ি।
জানা যায়, বৈষ্ণব নগর থানার দেওনাপুরের সোয়েব আলি টোলা এলাকার বাসিন্দা উজির সেখ। পেশায় তিনি শ্রমিক। কখনও ভিন রাজ্যে যান আবার কখনও ধান, গম কাটাই এর কাজ করেন সংসার চালান তিনি। পরিবারে এক মেয়ে, এক ছেলে এবং স্ত্রীকে নিয়ে চারজনের সংসার। জানা যায় উজির বাবু ভিন রাজ্যে কাজ করে সম্প্রতি নগদ ৫০ হাজার টাকা বাড়িতে নিয়ে এসেছিলেন। সেই টাকা বাড়িতেই ছিলো। সঙ্গে ধান, গম এবং কলাই বাড়িতে মজুত ছিলো। সোমবার রাতে এই ভয়াবহ অগ্নিকান্ড মুহুর্তে সব কেড়ে নিলো উজির বাবুর। নগদ ৫০ হাজার টাকা, ধান, গম, কলাই, ভসমীভূত হয়ে গেলো আগুনের শিখায়। আগুনে পুড়ে মৃত্যু হয়েছে তিনটি ছাগলেরও। তবে আগুন লাগার কারণ স্পষ্ট করে বলতে পারেন নি উজির বাবু। ঘটনার তদন্ত শুরু হয়েছে।


Published in Malda-Dinajpur-2

ফটো গ্যালারী

Market Data

সম্পাদকের কথা

ফ্যান ছবিতে দেখা যাবে ১৭ বছরের শাহরুখকে

ফ্যান ছবিতে দেখ...

ডেস্ক: ছবির নাম যখন ফ্যান, আর অভিনয়ে যখন...

ধর্মীয় মৌলবাদীদের হামলায় খুন লেখক অভিজিৎ রায়

ধর্মীয় মৌলবাদীদ...

ঢাকা: একুশের বইমেলা থেকে ফেরার পথে ঢাকা ...

উদাসী হাওয়ায় গা ভাসিয়ে বলতেই পারেন, ""হোলি হ্যায়''!!!

উদাসী হাওয়ায় গা...

শান্তিনিকেতনে বসন্ত উত্সবের সূচনা হয় প্র...

বিবাহ বন্ধনে আবব্ধ হতে চলেছেন খ্যাতনামা অফ-স্পিনার হরভজন সিংহ

বিবাহ বন্ধনে আব...

কার্ত্তিক চন্দ্র পাল : ভারতের খ্যাতনামা ...

আপগ্রেড করুন

« February 2018 »
Mon Tue Wed Thu Fri Sat Sun
      1 2 3 4
5 6 7 8 9 10 11
12 13 14 15 16 17 18
19 20 21 22 23 24 25
26 27 28        

MC News

Contact Us

Email: This email address is being protected from spambots. You need JavaScript enabled to view it.

Face Book: /newsbazar24 

Helpline No- 09434219594/9126173604