Share on whatsapp
Share on twitter
Share on facebook
Share on email
Share on telegram
Share on linkedin

নির্বাচন কমিশনের কড়া নির্দেশ প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষভাবে সিভিক ভলেন্টিয়ারদের ভোটের কাজে ব্যবহার নয়

Share on whatsapp
Share on facebook
Share on twitter
Share on email
Share on telegram
Share on linkedin

Newsbazar24:২০২৪এর লোকসভা নির্বাচনের দিনক্ষণ এখনো ঘোষণা হয়নি। তার আগে রাজ্যে এল জাতীয় নির্বাচন কমিশনের ফুল বেঞ্চ। সোমবার ছিল রাজ্যের পুলিশ কর্তা ও জেলা
নির্বাচনী আধিকারিক তথা জেলা পুলিশ সুপারদের সঙ্গে বৈঠক। বৈঠক চলাকালীন কমিশনের নেক নজরে পড়তে হলো কলকাতার পুলিশ কমিশনার বিনীত গোয়েলকে। জানা গেছে এদিনের বৈঠকে জাতীয় নির্বাচন কমিশন কলকাতার নগরপালের কাছে জানতে চান, সিভিক ভলান্টিয়ার ও গ্রিন পুলিশের মধ্যে পার্থক্য কি? উত্তরে কলকাতার পুলিশ কমিশনার বিনীত কোয়েল বলেন একই টাইপের। এ কথা শুনে প্রচন্ড বিরক্ত হয়ে নির্বাচন কমিশনার বলেন, ‘আপনারা এটা মনে করবেন না যে আমরা না জেনে বসে আছি। ভেবে ও জেনে কথা বলবেন ও উত্তর দেবেন।’
সূত্রে জানা যায় এদিন কমিশনের ফুল বেঞ্চের বৈঠকে স্পষ্ট জানিয়ে দেওয়া হয়, প্রত্যক্ষ বা পরোক্ষ ভাবে কোনও ভাবেই সিভিক ভলান্টিয়ার ও গ্রীন পুলিশকে ব্যবহার করা যাবে না। অতীতে বাংলায় ভোটে যে হিংসা ও অশান্তির অভিযোগ উঠে এসেছে, সে প্রসঙ্গও এদিন স্মরণ করিয়ে দিয়েছে জাতীয় নির্বাচন কমিশন। কড়াভাবে বলে দেওয়া হয়েছে, একটাও বোমাবাজির ঘটনা যেন না শুনতে হয়। কমিশন আরও জানিয়ে দিয়েছে, জামিন অযোগ্য ধারা প্রথম দফার আগে কার্যকর করতে হবে। তার আগেই কমিশনের কাছে এই সংক্রান্ত রিপোর্ট জমা দিতে হবে।
জেলা শাসক, পুলিশ সুপার ও পুলিশ কমিশনারের উদ্দেশে এদিন কমিশনের হুঁশিয়ারি এখনের রিপোর্ট আর পরবর্তী রিপোর্ট যেন একই থাকে, আলাদা হলে মুশকিল। আমরা কিন্তু বেশি সময় দেব না।ভোটের আগে বাংলায় যেন বোমাবাজির কথা না শোনা যায়। এ ব্যাপারে পুলিশকে আগাম যা যা ব্যবস্থা নেওয়ার তা নিতে হবে।
এদিকে সোমবারের বৈঠকে বিরোধীরা গত পঞ্চায়েত নির্বাচনে ব্যাপক ভোট লুট এবং হিংসার কথা তুলে ধরেছে। রাজ্য নির্বাচন কমিশনের ভূমিকা নিয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করেন। বিরোধীদের দাবি , রাজ্য নির্বাচন কমিশন পুরোপুরি ব্যর্থ হিংসা আটকাতে। তাই আসন্ন ভোটে যাতে কোনও অপ্রীতিকর ঘটনা না ঘটে তার সবরকম প্রয়াস চালানো দরকার। ভোট ঘোষণার আগে কেন্দ্রীয় বাহিনী রাজ্যে চলে এসে বিভিন্ন জায়গায় টহল শুরু করেছে, যা নজিরবিহীন বটে। এই অবস্থায় সিভিক ভলেন্টিয়ারদের নিয়ে জাতীয় নির্বাচন কমিশনের নির্দেশ যথেষ্ট তাত্‍পর্যপূর্ণ বলেই মনে করছে বিশেষজ্ঞ মহল।

Share on whatsapp
Share on facebook
Share on twitter
Share on email
Share on telegram
Share on linkedin

সম্পর্কিত খবর