Share on whatsapp
Share on twitter
Share on facebook
Share on email
Share on telegram
Share on linkedin

Malda News:অঙ্গনওয়ারী কর্মী ও সহায়িকাদের কর্মক্ষেত্রে উৎকর্ষতার স্বীকৃতি স্বরূপ সম্মাননা জ্ঞাপন অনুষ্ঠান

Share on whatsapp
Share on facebook
Share on twitter
Share on email
Share on telegram
Share on linkedin

Newsbazar 24:পশ্চিমবঙ্গ সরকারের নারী ও শিশু বিকাশ এবং সমাজকল্যাণ বিভাগের মালদা জেলা শাখার উদ্যোগে এবং মালদা জেলা প্রশাসনের সহযোগিতায় অঙ্গনওয়ারী কর্মী ও সহায়িকাদের কর্মক্ষেত্রে উৎকর্ষতার স্বীকৃতি স্বরূপ সম্মাননা জ্ঞাপন অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হল। মঙ্গলবার দুপুর দুটোয় স্থানীয় দুর্গা কিংকর সদনে প্রদীপ প্রজ্জ্বলনের মধ্য দিয়ে এই অনুষ্ঠানের সূচনা হয়। উপস্থিত ছিলেন সেচ প্রতিমন্ত্রী সাবিনা ইয়াসমিন, ক্ষুদ্র শিল্প দপ্তরের রাষ্ট্রমন্ত্রী তাজামুল হোসেন, জেলা পরিষদের সভাধিপতি এটিএম রফিকুল হোসেন, জেলাশাসক নীতিন সিংহানিয়া, বিধায়ক সমর মুখার্জি, আব্দুর রহিম বক্সি, চন্দনা সরকার এছাড়াও উপস্থিত ছিলেন ইংরেজবাজার ও পুরাতন মালদহ পৌরসভার চেয়ারম্যান কৃষ্ণেন্দু নারায়ন চৌধুরী ও কার্তিক ঘোষ সহ অন্যান্য আধিকারিকগণ। জেলাশাসক তার প্রারম্ভিক ভাষণে বলেন মালদা জেলায় প্রায় ৫০০০ আইসিডিএস সেন্টার রয়েছে সবাইকে আমরা ডাকতে পারিনি। যারা নিজ নিজ এলাকায় ভাল কাজ করেছেন তাদের কাজের স্বীকৃতি স্বরূপ তাদেরকে আমরা আমন্ত্রণ জানিয়েছিলাম। তাদের কাজের উৎকর্ষ বিচার করে এখানে এদিন তাদের পুরস্কৃত করা হবে। আপনাদের দেখে অন্যান্য অঙ্গনওয়ারী কর্মী সহায়িকা শিখবে। তিনি আরো বলেন বিগত ৮ মাস ধরে আমরা আইসিডিএস এর উপর জোর দিয়েছিলাম, বিশেষ করে শিশুদের পুষ্টিকর খাবার, ওজন এবং স্বাস্থ্যের ব্যাপারে। তার ফলস্বরূপ ইতিমধ্যে মালদা জেলা আইসিডিএস এর ক্ষেত্রে গোটা রাজ্যের মধ্যে একটা বিশিষ্ট স্থান অধিকার করেছে। এছাড়াও মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের নির্দেশ ছিল যে সমস্ত আইসিডিএস সেন্টার গুলো ঠিকমত চলছে না সেগুলোকে প্রাইমারি স্কুলে শিফট করে দেওয়ার জন্য। জেলা প্রশাসন থেকে এরকম প্রায় ৬৫০টি সেন্টারকে চিহ্নিত করা হয়েছিল। তার মধ্যে প্রথম পর্যায়ে সাড়ে ৩৫০ টি সেন্টারকে টার্গেট করা হয়েছিল শিফট করার ইতিমধ্যে ৩২৬ টি শিফট করা হয়েছে। এবং সেগুলো খুব ভালোভাবে চলছে। এই সমস্তটাই সম্ভব হয়েছে দপ্তরের সমস্ত আধিকারিক এবং অঙ্গনারী কর্মীদের সহযোগিতায়। সেই জন্য আপনাদের ধন্যবাদ প্রাপ্য।
এ বিষয়ে মন্ত্রী সাবিনা ইয়াসমিন বলেন প্রত্যেক টি অঞ্চলের আইসিডিএস সেন্টারের একজন হেলপার এবং ওয়ার্কারকে যারা ভালো কাজ করেছেন তাদেরকে পুরস্কৃত করার উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। যাতে তাদেরকে দেখে অন্যান্য আইসিডিএস কর্মী এবং হেলপাররা উৎসাহিত হয় এবং তারাও আরো ভালো কাজ করার জন্য যাতে উৎসাহ পায় সেই লক্ষ্যেই জেলা প্রশাসনের এই সিদ্ধান্ত। পাশাপাশি তিনি আইসিডিএস সেন্টারের কর্মী এবং হেলপারদের কাছে আবেদন করেন সেন্টারগুলোতে প্রাথমিক শিক্ষাটার উপর আরো জোর দেওয়ার জন্য। তিনি আরো বলেন নীতিগত শিক্ষা যদি আমরা আইসিডিএস সেন্টার গুলোর মধ্য থেকে দিতে পারি তাহলে সমাজের মঙ্গল। পারিবারিক ও সামাজিক শিক্ষার মধ্য দিয়ে একজন পূর্ণাঙ্গ মানুষ হয়ে উঠতে পারে। সামাজিক অবক্ষয় রুখতে আইসিডিএস সেন্টারগুলো ব্যবস্থা গ্রহণ করতে পারে।

Share on whatsapp
Share on facebook
Share on twitter
Share on email
Share on telegram
Share on linkedin