Laxmi Puja: মালদার ভারত বাংলাদেশ সীমান্তবর্তী গ্রামে লক্ষীনারায়ণ পুজো

Newsbazar24:- প্রায় ৪০ বছর ধরে মাটির ঘরে নিয়ম নিষ্ঠা মেনে সীমান্তবর্তী পারুলিয়া গ্রামে পূজিত হচ্ছেন মা লক্ষ্মী সাথে থাকছেন নারায়ন। দুর্গাপুজো শেষ। এবার ঘরে ঘরে এসেছেন মা লক্ষ্মী। মা লক্ষ্মীর আরাধনায় মজেছিল আপামোর বাঙালি। ধন-সম্পত্তির দেবী মা লক্ষ্মী। তাই ধন, খ্যাতি ও যশ পেতেই প্রতিটা লক্ষ্মীপুজোর আয়োজন করা হয়।শনিবার,হবিবপুর ব্লকের বৈদ্যপুর অঞ্চলের ভারত বাংলাদেশের সীমান্তবর্তী পারুলিয়া গ্রামে পুজিত হয়েছেন,কোজাগরী মা লক্ষ্মী।শনিবার কোজাগরী পূর্ণিমার পুণ্যতিথিতে বাঙালির ঘরে ঘরে ভক্তি নিষ্ঠা ভরে পূজিতা হচ্ছেন ধনদাত্রী দেবী লক্ষ্মী।সীমান্তবর্তী এলাকা পারুলিয়া গ্রামে,প্রায় ৪০ বছর ধরে হয়ে আছে লক্ষীনারায়ণ পূজো পারুলিয়া গ্রামের মা লক্ষ্মী। এই গ্রামের বেশিরভাগ মানুষ কৃষি কাজের উপরে নির্ভরশীল। সেই পরিপ্রেক্ষিতে গ্রামের মানুষ মা লক্ষ্মী ও নারায়ণ ঠাকুরকে পুজিত করে আসছেন গ্রামবাসী। মাটির ঘরে নিয়মনিষ্ঠা মেনে এই পুজো করে আসেন গ্রামবাসীরা। গ্রামবাসীরা বলেন এই লক্ষ্মী নারায়ণ পূজো দিয়ে গ্রামের ফসল লাগানো থেকে শুরু করে জমি থেকে ফসল তোলা পর্যন্ত নিয়ম মেনেই পুজো দিয়ে কাজ শুরু করে থাকেন গ্রামবাসীরা। মায়ের আশীর্বাদ ও অবদান রয়েছে পারুলীয়া গ্রামে। এই পুজোকে ঘিরে আজ রোববার গ্রামে বসেছে মেলা ও কীর্তনের আসর। গ্রামের সকল মানুষ সামিল হন এই কীর্তনে। এই লক্ষ্মীনারায়ণ ঠাকুরকে সারা বছর ধরে এই মাটির ঘরে পুজো করা হয়।