রান্না ঘর

কচুর পাতা থেকে মূল সব দিয়েই তৈরি হয় মুখরোচক কচুর ছয় পদ ..Recipe

কচুর পাতা থেকে মূল সব দিয়েই তৈরি হয় মুখরোচক কচুর ছয় পদ ..Recipe

      কচুর কয়েক পদের রেসিপি

-জিন্নাত রায়হান সুমী ( বাংলাদেশ)

 

                                      কচুপাতার ভর্তা

 

উপকরণ

ডাঁটাসহ কচুপাতা ৪ আঁটি, রসুন কুচি ২ টেবিল চামচ, পেঁয়াজ কুচি ২ টেবিল চামচ, কাঁচা মরিচ ৮টি, লবণ স্বাদমতো, লেবুর রস ২ চা চামচ, সরষের তেল ১ টেবিল চামচ।

যেভাবে তৈরি করবেন

১. ডাঁটাসহ পাতা ধুয়ে কুচি করে কেটে সামান্য পানি দিয়ে ঢেকে চুলায় দিন।

২. কচু থেকে পানি বের হলে ঢাকনা সরিয়ে চুলার আচ বাড়িয়েদ্রুত হাতে নাড়তে থাকুন।

৩. কচুপাতা সিদ্ধ হয়েপানি টেনে এলে পেঁয়াজ, রসুন কুচি, লবণ ও কাঁচা মরিচ ভেঙে দিয়ে দিন। মাখো মাখো হলে সরষের তেল ও লেবুর রস দিয়ে একটা হাতা দিয়ে থেঁতলে ম্যাশ করুন।

৪. আঠালো হয়ে হাঁড়ির তলায়লেগে আসলে নামিয়ে গরম ভাতের সঙ্গে পরিবেশন করুন।

 

                         চিংড়ি কচুর ডাঁটা ভুনা


উপকরণ

কচুর ডাটা বড় ১ আঁটি, চিংড়ি মাছ ২৫০ গ্রাম, আদা বাটা ১ চা চামচ, রসুন বাটা ২ চা চামচ, পেঁয়াজ কুচি আধা কাপ, হলুদ গুঁড়া আধা চা চামচ, কাঁচা মরিচ ফালি ৭-৮টি, জিরার গুঁড়া আধা চা চামচ, লবণ স্বাদমতো, তেল ৩ টেবিল চামচ।

যেভাবে তৈরি করবেন

১. কচুর ডাটা কেটে ধুয়ে সিদ্ধ করে নিন। আলাদা পানি দেবেন না।

২. কড়াইয়ে তেল দিয়ে পেঁয়াজ ভেজে বাটা ও গুঁড়া মসলা দিয়ে কষিয়ে নিন। অল্প পানি দিয়েআবার কষান। এবার চিংড়ি দিন ও লবণ দিন।

৩. চিংড়ি কষানো হলে সিদ্ধ ডাঁটা ও কাঁচা মরিচ দিয়ে দিন। ভুনা ভুনা করে নামান।

                                     

                              ডিম-কচুর কোরমা

 

উপকরণ

সিদ্ধ ডিম ৬টা, কচুর গোল স্লাইস ১৬টা (আধা ইঞ্চি পুরু), টক দই ১ কাপ, মাওয়া সিকি কাপ, পেঁয়াজ বেরেস্তা ৩ টেবিল চামচ, গরম মসলা গুঁড়া আধা চা চামচ, পেঁয়াজ বাটা ২ টেবিল চামচ, রসুন বাটা ১ টেবিল চামচ, মরিচ গুঁড়া আধা চা চামচ, গোলমরিচ গুঁড়া আধা চা চামচ, কাঁচা মরিচ ৪/৫টা, পোস্তদানা বাটা আধা টেবিল চামচ, বাদাম বাটা আধা টেবিল চামচ, ধনে বাটা ১ চা চামচ। কিশমিশ ১ টেবিল চামচ, এলাচ, দারচিনি ও তেজপাতা ২টি করে, চিনি ১ চা চামচ, ঘি-তেল আধা কাপ, লবণ স্বাদমতো।

যেভাবে তৈরি করবেন

১.    কচু কেটে ধুয়ে কেঁচে নিন। এবার আধা চামচ করে আদা, রসুন বাটা ও লবণ দিয়ে মেখে ভেজে নিন। খেয়াল রাখুন কচু যেন সাদাই থাকে।

২.    ডিম সিদ্ধ করে খোসা ফেলে সামান্য চিড়ে নিয়ে হালকা করে ভেজে নিন।

৩.    কড়াইয়ে তেল-ঘি দিয়ে গরম হলে গোটা গরম মসলা দিন। মসলার সুগন্ধ বের হলে বাদাম, পোস্ত বাটা, গোলমরিচ ও গরম মসলা গুঁড়া ছাড়া সব বাটা ও গুঁড়া মসলা দিয়ে কষিয়ে টক দই ফেটিয়ে দিন। ফুটে উঠলে ভাজা কচু ও সিদ্ধ ডিম দিন। নেড়ে ঢেকে মাঝারি আঁচে ৫ মিনিট রাঁধুন।

৪.    এবার পোস্তদানা ও বাদাম বাটা একটু পানিতে গুলে দিয়ে নেড়ে দিন।

৫.    পেঁয়াজ বেরেস্তা, মাওয়া, কিশমিশ, হালকা চিড়ে নেওয়া কাঁচা মরিচ, গোলমরিচ গুঁড়া, গরম মসলা গুঁড়া, চিনিসব একসঙ্গে মেখে কড়াইয়ে দিয়ে নেড়ে ঢেকে ১০ মিনিট দমে রেখে নামিয়ে ফেলুন।

                             

                            কচুরমুখী ঝিঙা ডালের তরকারি

 


উপকরণ

কচুরমুখী টুকরা ১ কাপ, ঝিঙা টুকরা ২ কাপ, মুগডাল আধা কাপ, হলুদ গুঁড়া আধা চা চামচ, মরিচ গুঁড়া ১ চা চামচ (রুচি অনুযায়ী), ধনে গুঁড়া ১ চা চামচ, জিরা গুঁড়া আধা চা চামচ, আদা বাটা ১ টেবিল চামচ, রসুন বাটা ১ চা চামচ, লবণ স্বাদমতো, তেল ২ টেবিল চামচ, পেঁয়াজ কুচি ২ টেবিল চামচ, কাঁচা মরিচ ৫টি।

ফোড়নের জন্য

পেঁয়াজ কুচি ২ টেবিল চামচ, আস্ত জিরা আধা চামচ, রসুন কুচি ১ চা চামচ, শুকনা মরিচ ২টি, তেজপাতা ২টি, তেল ৩ টেবিল চামচ।

যেভাবে তৈরি করবেন

১.    ডাল ভেজে ধুয়ে ২ ঘণ্টা ভিজিয়ে রাখুন। মুখী কেটে ধুয়ে সামান্য তেলে হালকাভাবে ভেজে নিন। বেশি ভাজতে হবে না।

২.    কাড়াইয়ে ২ টেবিল চামচ তেল দিয়ে পেঁয়াজ কুচি দিন। পেঁয়াজ নরম হলে সব বাটা ও গুঁড়া মসলা আধা কাপ পানিতে গুলে দিয়ে দিন। লবণ দিন।

৩.    এবার ডাল, ঝিঙা ও ভাজা মুখী আধা কাপ পানি দিয়ে কষিয়ে নিন। ভালোমতো কষানো হলে ২ কাপ গরম পানি দিন।

৪.    সব সিদ্ধ হয়ে গেলে কাঁচা মরিচ দিয়ে নেড়ে নামিয়ে নিন।

৫.    অন্য একটি কড়াইয়ে ৩ টেবিল চামচ তেল দিয়ে তেজপাতা, জিরা ও শুকনা মরিচ দিন। জিরা ফুটতে শুরু করলে পেঁয়াজ ও রসুন কুচি দিন। ব্রাউন করে ভাজা হলে রান্না করা মুখী এতে ঢেলে দিন। নেড়ে নামিয়ে নিন।

৬.    গরম গরম পরিবেশন করুন ভাতের সঙ্গে। রুটি দিয়ে খেতেও ভালো লাগে।

                       

                          চিংড়ি দিয়ে কচুর লতি

 


উপকরণ

কচুর লতি ৫০০ গ্রাম, চিংড়ি মাছ ২৫০ গ্রাম, হলুদ গুঁড়া ১ চা চামচ, মরিচ গুঁড়া ১ চা চামচ, ধনে গুঁড়া ১ চা চামচ, পেঁয়াজ কুচি আধা কাপ, কাঁচা মরিচ ফালি ৪টি, লবণ স্বাদমতো, তেল ২ টেবিল চামচ, আদা বাটা ১ চা চামচ, রসুন বাটা ১ চা চামচ, ধনেপাতা কুচি ৩ টেবিল চামচ, নারিকেল দুধ আধা কাপ।

যেভাবে তৈরি করবেন

১. কচুর লতি কেটে ধুয়ে পানি ঝরিয়ে রাখুন। চিংড়ি মাছ ধুয়ে খোসা ফেলে পরিষ্কার করে নিন।

২. সব বাটা ও গুঁড়া মসলা আধা কাপ পানিতে গুলে রেখে দিন।

৩. ফ্রাইপ্যানে তেল দিয়ে গরম হলে পেঁয়াজ কুচি দিন। পেঁয়াজ নরম হলে লবণ এবং গোলানো মসলা দিয়ে ভালো করে কষিয়ে চিংড়ি দিয়ে আবার কষান।

৪. মাছ কষানো হলে কচুর লতি দিয়ে নেড়ে ঢেকে রাখুন ৫ মিনিট। নারিকেল দুধ দিয়ে মাঝারি আঁচে রান্না করুন। মাঝেমধ্যেনেড়ে দিন।

৬. লতি সিদ্ধ হয়ে ঝোল টেনে এলে ধনেপাতা ও কাঁচা মরিচ ফালি দিয়ে নেড়ে নামিয়ে গরম গরম পরিবেশন করুন।

                                     

                                      কচু রিং ফ্রাই

উপকরণ

১ ইঞ্চি পুরু করে কাটা কচুর স্লাইস ১০টি, আদা বাটা ২ চা চামচ, রসুন বাটা ২ চা চামচ, মরিচ গুঁড়া ১ চা চামচ, হলুদ গুঁড়া আধা চা চামচ, জিরা গুঁড়া ১ চা চামচ, লবণ স্বাদমতো, শুকনো চালের গুঁড়া ১ টেবিল চামচ, তেল আধা কাপ, পানি ২ টেবিল চামচ, টুথপিক ২০টি।

যেভাবে তৈরি করবেন

১. নারিকেলি কচু খোসা ফেলে ১ ইঞ্চি পুরো স্লাইস করে ধুয়ে নিন।

২. এবার গোল স্লাইসের এক পাশ থেকে ফিতার মতো পাতলা করে ভেতরের শেষ অংশ পর্যন্ত সাবধানে কাটুন।

৩.  কাটা শেষে কচু পেঁচিয়ে আবার গোল করে চারদিকে টুথপিক গেঁথে আটকে দিন।

৪.  চালের গুঁড়ার সঙ্গে ২ টেবিল চামচ পানি, লবণ ও বাকি সব মসলা মিশিয়ে নিন। কচুর স্লাইসে মাখানো মসলা মেখে  ১৫-২০ মিনিট মেরিনেট করুন।

৫.    ফ্রাইপ্যানে তেল গরম করে কচুর স্লাইস অল্প আঁচে ঢেকে দিন। স্লাইসের দুই পাশ বাদামি রং হলে নামিয়ে    ভাত বা রুটির সঙ্গে গরম গরম পরিবেশন করুন।

 

Shankar Chakraborty

aappublication@gmail.com

Editor of AAP publicaltions



Post your comments about this news