সারা রাজ্যের সাথে মালদহ জেলাতেও উৎসাহ উদ্দীপনার মধ্য দিয়ে পালিত হল পবিত্র ঈদ-আল-আধা বা বকরি ঈদ। - Newsbazar24
মালদা

সারা রাজ্যের সাথে মালদহ জেলাতেও উৎসাহ উদ্দীপনার মধ্য দিয়ে পালিত হল পবিত্র ঈদ-আল-আধা বা বকরি ঈদ।

সারা রাজ্যের সাথে মালদহ জেলাতেও উৎসাহ উদ্দীপনার  মধ্য দিয়ে পালিত হল পবিত্র ঈদ-আল-আধা বা বকরি ঈদ।

 

Newsbazar 24: আজ শনিবার সারা বিশ্বের সাথে আমাদের রাজ্যেও  পালিত ঈদ-আল-আধা বা বকরি ঈদ মুসলিম সম্প্রদায়ের দুটি সর্ববৃহৎ জাতীয় উৎসবের  মধ্যেই অন্যতম একটি হল ঈদুল আযহা বা ঈদ-আল-আধা এই উৎসবের আরেক নাম কোরবানির ঈদ বা বকরি ঈদ এই ঈদের নাম বকরি ঈদ হওয়ার জন্য দুটি কারন আছে প্রথমটি হল এই ঈদ কোরবানির ঈদ বলে এই উৎসবে কিছু না কিছু.আল্লাকে উৎসর্গ করে কোরবান করতে হয় আর এক সময় অবিভক্ত বাংলায় বকরি অর্থাৎ ছাগল ছাড়া অন্য কোনও কোরবানির পশু পাওয়া যেত না।  আর সেই থেকে ছাগল দিয়ে কোরবানি দেওয়ার কারণেই ঈদুল আযহা বা ঈদ-আল-আধার নাম হয় বকরি ঈদ ইসলাম মতে, সর্বশ্রেষ্ঠ ত্যাগের প্রতীক এই কোরবানির উৎসব দিনটি সারাবিশ্ব জুড়ে খুবই জাঁকজমকের সঙ্গে.পালিত হয় সবাই দিন নতুন পোশাক পরে সাধ্য মতন খাওয়ারের আয়োজন করেন আত্মীয়স্বজন, বন্ধুবান্ধব পরিজনেরা এই আনন্দের অংশীদার হয় দরিদ্র দুঃস্থদের ঈদের আনন্দে সামিল করা জরুরি বলে মনে করা হয় ইসলামে.মুসলমানেরা দিন ঈদের দুই রাকাত নামাজ পড়েন আত্মীয়স্বজনের সঙ্গে কুশল বিনিময় করেন এইদিনে দুঃস্থদের সাধ্যমত দান এবং অনুদান বিতরণ করা ধর্মীয় দিক থেকে বাধ্যতামূলক তাই এটি মুসলিম সম্প্রদায়ের .একটি জাতীয় উৎসব এই উৎসবে ধনী-দরিদ্র নির্বিশেষে সবাই এক হয়ে যান এই উৎসবে কোনও ভেদাভেদ থাকে না

করোনা ভাইরাসের সংক্রমনের কারনে এবার  ঈদের  আনন্দে ভাটা পড়েছে। তাই এবার ইদ্গাহের পরিবর্তে  বাড়িতেই হল ঈদের নামাজ পাঠ রাজ্যের অন্যান্য অংশের ন্যায় মালদহ জেলাতেও পালিত হল পবিত্র ঈদ। মালদহ শহরের মুসলিম সম্প্রদায়ের মানুষজন নতুন বস্ত্র ,সুরমা আতর এবং টুপি পরিধান করে নিজ নিজ বাড়িতে নামাজ পাঠ করেনতারপর আলিঙ্গনের মধ্যে দিয়ে ঈদের শুভেচ্ছা বিনিময় করেন। এ ব্যাপারে  মহিলারাও পিছিয়ে  ছিল না।  এবছর করোনার  জন্য হায়দারপুর ঈদের জাম্মাত  অনুষ্ঠিত না হলেও মহিলারা বিবি গ্রাম এলাকার এক  মহিলার  বাড়িতেই নামাজ পড়েন

এদিন  পবিত্র বকরি ঈদ উপলক্ষে মালদা শহরের বক্ষাটুলি এলাকা সহ বিভিন্ন এলাকায় গিয়ে মুসলিম  ধর্মাবলম্বী মানুষদের সঙ্গে শুভেচ্ছা বিনিময় করলেন নবনিযুক্তমালদা জেলা যুব তৃনমূলের সভাপতি প্রসেনজিৎ দাস

করোনা ভাইরাস মোকাবেলায় এবার পবিত্র ঈদে কোন মসজিদে নয় ইংরেজবাজার ব্লকের কোতুয়ালি নিজস্ব বাসভবনে পরিবারের সদস্যদের নিয়ে নামাজ পড়ে বিশ্ববাসীর উদ্দেশ্যে শান্তি কামনা করলেন দক্ষিণ মালদা কেন্দ্রের সাংসদ আবু হাসেম খান চৌধুরী  এবং তার বিধায়ক ঈসা খান চৌধুরী ।    শনিবার সকালে নিজ গৃহের মধ্যেই পরিবারের সদস্যদের নিয়ে নামাজ পড়েন। তবে মুখে মাস্ক পড়ে এবং সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে নামাজ পড়ার কর্মসূচি চলে।করোনা সংক্রমণের জেরে ইদগাহের পরিবর্তে মসজিদেই শনিবার পবিত্র ইদ উল আযহার নমাজ সারলেন মুসলিম ভাইবোনেরা সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে ছোট ছোট জামাত করে নমাজ আদায় করেন তারা

এদিন উত্তর মালদার সামসী, চাঁচল, রতুয়া, পুখুরিয়া, মালতীপুর, চাঁচল সর্বত্রই সকাল সকাল ইদের নমাজ হয়। সামসীর ভগবানপুর জামে মসজিদেও সকাল সাতটায় ইদের নমাজ অনুষ্ঠিত হয়। নমাজ পড়ান মাওলানা মহম্মদ আসাদুল্লাহ। নমাজের পর স্বল্প পরিসরে খুতবা পাঠ করেন। খুতবা শেষে বিশ্বে শান্তি প্রতিষ্ঠা করোনা মহামারী থেকে মুক্তির জন্য দুয়াও করেন তিনি

এদিন ভগবানপুর জামে মসজিদে সামসী পুলিশ ফাঁড়ির এএসআই গৌড়চন্দ্র পাল এসে মজিদের ইমাম সাহেবকে মিষ্টির প্যাকেট দিয়ে ইদের শুভেচ্ছা জানান। চাঁচলের এসডিপিও সজলকান্তি বিশ্বাস বলেন, উত্তর মালদার সর্বত্রই শান্তিপূর্ণভাবে ইদ-উল-আযহা উদযাপন হয়েছে। পাশাপাশি পুলিশের তরফে তিনি সকলকে ইদের শুভেচ্ছা জানিয়েছেন

NewsDesk - 3

aappublication@gmail.com

Newsbazar24 Reporter

Post your comments about this news