ক্রিকেট

লর্ডসে বিশ্বজয় ইংল্যান্ডের, সুপার ওভারে নিউজিল্যান্ডকে হারিয়ে প্রথম বিশ্বকাপ জয় ব্রিটিশদের।

লর্ডসে বিশ্বজয় ইংল্যান্ডের, সুপার ওভারে নিউজিল্যান্ডকে হারিয়ে প্রথম বিশ্বকাপ জয় ব্রিটিশদের।

ক্রীড়া ডেস্ক, ১৪ জুলাইঃ চাপে পড়ে খেলা যে কতদূর গড়াতে পারে তা একবার প্রত্যক্ষ করল বিশ্বের তামাম ক্রিকেট প্রেমী । যেখানে হার জিতের রাস্তাটা অনেক সহজ ছিল কিন্তু সেখানে হয়ত বিশ্বকাপ ২০১৯  ফাইনালের চাপ বলেই খেলাটা সুপার ওভার পর্যন্ত গড়াল রবিবার বিশ্বের মহান ক্রিকেট ক্ষেত্র  লর্ডসে  সকালের বৃষ্টির জন্য টস হতে ১৫ মিনিট দেরী  হলেও ম্যাচকে বৃষ্টিবিঘ্নিত করতে  পারেনি শেষ বেলায় ম্যাচটা বেশ টানটান হল নিউজিল্যান্ডের টাইট ফিল্ডিংয়ে ইংল্যান্ডের রানের গতি কমল কিন্তু শেষ হাসি হাসল হোম টিমই 

শেষ ওভারে ইংল্যান্ডের দরকার  ছিল ১৫ রান। সেটা একটা সময় এসে দাঁড়ায় দুই বলে তিন রানে। শেষ বলে জেতার জন্য দরকার ছিল  দু'রান  কিন্তু দ্বিতীয় রান নিতে গিয়ে রান আউট হয়ে যান মার্ক উড। ম্যাচ ড্র হয়ে যায় ৫০ ওভারে।  সুপার ওভারে গড়াল ম্যাচ। প্রথমে ব্যাট করতে নামল ইংল্যান্ডই।  বাটলার স্টোকস সুপার ওভারে ১৬ রানের টার্গেট দিয়েছিল নিউজিল্যান্ডকে। আর সেখানেই বাজিমাত ইংল্যান্ডের। নিউজিল্যান্ড ম্যাচ ১৫ রান করে ড্র করে দিয়েছিল। কিন্তু বাউন্ডারির হিসেবে জিতে গেল ইংল্যান্ড

রবিবার টস জিতে প্রথমে ব্যাট করার সিদ্ধান্ত নিয়েছিল নিউজিল্যান্ড। ওপেন করতে নেমে মার্টিন গাপ্তিল ১৯ রান করেই আউট হয়ে যান। সেখান থেকে অধিনায়ক কেন উইলিয়ামসনকে সঙ্গে করে আর এক ওপেনার হেনরি নিকোলস লড়াই শুরু করেন। অধিনায়ক উইলিয়ামসন ৩০ রানে আউট হওয়ার পর ৫৫ রানের ইনিংস খেলে ফিরে যান হেনরিও

এর পর রস টেলর ১৫, জেমস নিশাম ১৯, কলিন ডে গ্র্যান্ডহোম ১৬, ম্যাট হেনরি রান করে আউট হয়ে যান। তার মধ্যেই টম লাথাম ৪৭ রানের ইনিংস খেলেন। যদিও বড় রানে পৌঁছতে পারেনি নিউজিল্যান্ড। কিন্তু পুরো বিশ্বকাপে খুববড় রান করেনি নিউজিল্যান্ড। তাতেই বাজিমাত হয়েছে। ৫০ ওভারে আট উইকেট হারিয়ে ২৪১ রানই তুলতে পারে কিউইরা

ইংল্যান্ডের হয়ে তিনটি করে উইকেট নেন ক্রিস ওকস লিয়াম প্লাঙ্কেট। একটি করে উইকেট জোফরা আর্চার মার্ক উডের।জবাবে ব্যাট করতে নামা ইংল্যান্ডের শুরুটাও ভাল হয়নি। সেমিফাইনালে সর্বোচ্চ রান করা জেসন রয় ১৭ রান করেই আউট হয়ে যান। আর এক ওপেনার জনি বেয়ারস্টো ৩৬ রান করে কিছুটা লড়াই করার চেষ্টা করেন। এর পর জো রুট ইয়ম মর্গ্যান রান করে আউট হয়ে যান। ফার্গুসনের যে দুরন্ত ক্যাচে মর্গ্যান আউট হন এই ম্যাচে সেটা একটা বড় প্রাপ্তি

সেখান থেকেই লড়াই শুরু করেন বেন স্টোকস জোস বাটলার। ৬০ বলে ৫৯ রান করে আউট হন জোস বাটলার। তাঁর জায়গায় নেমে ওকস আউট হন মাত্র রান করেই। লিয়াম প্লাঙ্কেট ১০ বলে ১০ রান করে আউট হন। এর পরই নিশামকে ছক্কা হাঁকিয়ে ব্যবধান কমিয়ে ফেলেন স্টোকস। কিন্তু রানের খাতা না খুলেই ফিরে যান জোফরা আর্চার। আদিল রশিদ কোনও রান না করেই রান আউট হয়ে যান। একইভাবে রান আউট হন মার্ক উডও। ৫০ ওভারে ইংল্যান্ড ২৪১-১০। ম্যাচ গড়াল সুপার ওভারে। 

 নিউজিল্যান্ডের হয়ে তিনটি উইকেট নেন লকি ফার্গুসন জেমস নিশাম। একটি করে উইকেট ম্যাট হেনরি, কলিন ডে গ্র্যান্ডহোম

নিউজিল্যান্ডমার্টিন গাপ্তিল, হেনরি নিকোলাস, কেন উইলিয়ামসন (অধিনায়ক), রস টেলর, জেমস নিশাম, টম লাথাম, কলিন ডে গ্র্যান্ডহোম, মিচেল সাঁতনার, ম্যাট হেনরি, ট্রেন্ট বোল্ট, লকি ফার্গুসন

ইংল্যান্ড: জেসন রয়, জনি বেয়াস্টো, জো রুট, ইয়ন মর্গ্যান (অধিনায়ক), বেন স্টোকস, জোস বাটলার, ক্রিস ওকস, লিয়াম প্লাঙ্কেট, জোফরা আর্চার, আদিল রশিদ, মার্ক উড

 

 

Kartik Pal

aappublication@gmail.com

english bazar Reporter



Post your comments about this news