রাজ্যে নতুন করে আক্রান্তের সংখ্যা ২৩, রাজ্যে মৃতের সংখ্যা বেড়ে হল ১২ - Newsbazar24
কলকাতা

রাজ্যে নতুন করে আক্রান্তের সংখ্যা ২৩, রাজ্যে মৃতের সংখ্যা বেড়ে হল ১২

রাজ্যে নতুন করে আক্রান্তের সংখ্যা ২৩, রাজ্যে মৃতের সংখ্যা বেড়ে হল ১২

রাজ্যে নতুন করে আক্রান্তের সংখ্যা ২৩, রাজ্যে মৃতের সংখ্যা বেড়ে হল ১২

news bazar24 :  রাজ্যে নতুন করে আক্রান্তের সংখ্যা ২৩। এখনও পর্যন্ত মোট আক্রান্তের সংখ্যা ১৭৮। স্বাস্থ্য দপ্তরের দেওয়া অডিট কমিটির রিপোর্টে নতুন ‌দু’‌জনের করোনায় মৃত্যু উল্লেখ করা হয়েছে। রাজ্যে মৃতের সংখ্যা বেড়ে হল ১২। নমুনা পরীক্ষার সংখ্যা ৪,৬৩০। ৫৮২টি সরকারি কোয়ারেন্টিনে রয়েছেন ৩,৮৫৮ জন। গৃহ পর্যবেক্ষণে রয়েছেন ৩৫,২০৯ জন।  এখনও পর্যন্ত পিপিই দেওয়া হয়েছে ৩ লক্ষ ৭৫ হাজার, এন৯৫ মাস্ক ২ লক্ষ ৩৫ হাজার, সাধারণ মাস্ক প্রায় ১৭ লক্ষ, হ্যান্ড স্যানিটাইজার ৭৯ হাজার লিটার, গ্লাভস ৭ লক্ষ ৪ হাজার। শনিবার নবান্নে সাংবাদিক বৈঠকে মুখ্য সচিব রাজীব সিনহা এই তথ্য জানিয়েছেন। 
করোনা সংক্রমণ মুক্ত হয়ে সুস্থ হয়েছেন হাওড়া জেলা হাসপাতালের সুপার ও ইমার্জেন্সি মেডিক্যাল অফিসার। সল্টলেক আমরি থেকে   এদিন সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরলেন নারকেলডাঙা এবং বরানগরে দুই ব্যক্তি। শনিবার এম আর বাঙুর হাসপাতালের বিভিন্ন ওয়ার্ডসহ গোটা হাসপাতাল জীবাণুমুক্ত করেন দমকল কর্মীরা। বেলেঘাটা আইডি হাসপাতাল থেকে এদিন রাতে বছর পঁয়ষট্টির এক ব্যক্তিকে সল্টলেকের বেসরকারি হাসপাতালে স্থানান্তর করা হয়।  এদিকে তিন জন নার্স করোনায় আক্রান্ত হওয়ার খবর পাওয়া গেছে। সকলেই স্থিতিশীল আছেন। প্রথমজন হাওড়া জেলা হাসপাতালের নার্স। তিনি এসএনসিইউতে কর্মরত। দ্বিতীয়জন এম আর বাঙুর হাসপাতালের নার্স। তিনি সেখানেই ভর্তি। তৃতীয় আক্রান্ত নার্স দক্ষিণ কলকাতার এক বেসরকারি হাসপাতালে কর্মরত। তিনিও এম আর বাঙুরে চিকিৎসাধীন।
গার্ডেনরিচের ওসি, স্বাস্থ্যকর্তা আক্রান্ত
গার্ডেনরিচ থানার ওসি করোনায় আক্রান্ত হয়ে সল্টলেকের এক বেসরকারি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন। শুক্রবার তাঁকে ভর্তি করা হয়েছে। প্রথমে তাঁর রিপোর্ট নেগেটিভ এসেছিল। পরে ফের পরীক্ষা করা হলে রিপোর্ট পজিটিভ আসে। তাঁর অবস্থা আপাতত স্থিতিশীল বলে জানা গেছে হাসপাতাল সূত্রে। পরিবারের সদস্যদের ও আক্রান্তের সংস্পর্শে আসা থানার কয়েকজন কর্মীকে কোয়ারেন্টিনে রাখা হয়েছে। 
চিকিৎসক, নার্সের পর এবার এক স্বাস্থ্যকর্তা আক্রান্ত হলেন। শিয়ালদায় সেন্ট্রাল মেডিক্যাল স্টোরের (সিএমএস) এক আধিকারিকের করোনা পজিটিভ পাওয়া গেছে। তিনি বেলেঘাটা আইডি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন। তিনি আপাতত স্থিতিশীল বলে জানা গেছে আইডি সূত্রে। ৯ এপ্রিল থেকে তিনি অসুস্থ বোধ করেন। সোমবার থেকে তিনি অফিসে আসা বন্ধ করেন। এরপর তিনি বেহালায় তাঁর নিজের বাড়িতেই আলাদা করে হোম কোয়ারেন্টিনে থাকতে শুরু করেন। শুকনো কাশি, মাথা ব্যথা, জ্বর দেখা দেওয়ায় তাঁর লালারসের নমুনা পরীক্ষার জন্য এসএসকেএমে পাঠানো হয়। আক্রান্ত আধিকারিকের সংস্পর্শে আসা ৪৬ জনকে চিহ্নিত করা হয়েছে। তাঁর মধ্যে ১৭ জনের নমুনা সংগ্রহ করা হয়েছে। কয়েকজনকে কোয়ারেন্টিনে পাঠানো হয়েছে। অপরদিকে পার্ক সার্কাসের কলকাতা ন্যাশনাল মেডিক্যাল কলেজের যে চিকিৎসক করোনায় আক্রান্ত তাঁর শারীরিক অবস্থা স্থিতিশীল বলে জানা গেছে হাসপাতাল সূত্রে। চিকিৎসক, নার্স, স্বাস্থ্যকর্মী মিলিয়ে ৫০ জনকে চিহ্নিত করা হয়েছে। তাঁদের মধ্যে ৩৩ জন নার্স ও ১৫ জন চিকিৎসক। এছাড়া ২ জন স্বাস্থ্যকর্মী হোম কোয়ারেন্টিনে রয়েছেন। সকলের নমুনা মঙ্গলবার পরীক্ষার জন্য পাঠানো হবে। হাওড়া পুরসভার ১৫ নম্বর ওয়ার্ডে এক প্রোমোটারের এদিন মৃত্যু হয়েছে বলে জানা গেছে। বছর পঁয়তাল্লিশের ওই ব্যক্তি উলুবেড়িয়ার এক বেসরকারি হাসপাতালে শুক্রবার করোনার উপসর্গ নিয়ে ভর্তি হন। শনিবার সকালে তিনি মারা যান। মৃত্যুর পরে রিপোর্ট আসে। তবে তাঁর মৃত্যু করোনার জন্য ? তা খতিয়ে দেখছে স্বাস্থ্য দপ্তর। তাঁর স্ত্রী, ছেলে, মেয়ে, গাড়ির চালকসহ ৮ জনকে এদিন কোয়ারেন্টিনে পাঠানো হয়েছে।

NewsDesk - 2

aappublication@gmail.com

Newsbazar24 Reporter

Post your comments about this news