মালদার ক্যন্সার আক্রান্ত্র মেয়েকে নিজের ১ লক্ষ টাকা দিয়ে দিলেন জেলার এক স্বাস্থ্য আধিকারিক - Newsbazar24
মালদা

মালদার ক্যন্সার আক্রান্ত্র মেয়েকে নিজের ১ লক্ষ টাকা দিয়ে দিলেন জেলার এক স্বাস্থ্য আধিকারিক

মালদার ক্যন্সার আক্রান্ত্র মেয়েকে নিজের ১ লক্ষ টাকা দিয়ে দিলেন জেলার এক স্বাস্থ্য আধিকারিক

শঙ্কর চক্রবর্তী, news bazar24:  নিজের প্রাপ্য গিফট এর ১ লক্ষ টাকার পুরোটাই এক গরীব ৯ বছরের ক্যন্সার আক্রান্ত্র মেয়েকে দান করলেন জেলার এক স্বাস্থ্য আধিকারিক । যে জেলার অধিকাংশ মানুষ স্বাস্থ্য কর্মীদের পেটাতে অভ্যস্ত সেই মালদা জেলার অজানা পরিবারকে নিজের প্রাপ্য সম্পূর্ণ টাকা দিয়ে দিলেন অন্য জেলার এক মানুষ।

এক্সপোর্টর ব্যবসার সাথে যুক্ত কাঁচাপয়সায় সমৃদ্ধ মহদিপুর অঞ্চলের সাগরদীঘি গ্রামের ঘটনা । এই গ্রামের ৯ বছরের সুমি মণ্ডল ২ বছর ধরে ব্লাড ক্যন্সারে আক্রান্ত্র ।গত মে মাসে সে করোনায় আক্রান্ত্র হয়। স্বাস্থ্য দপ্তরের উদ্যোগে তাকে শিলিগুড়ি পাঠানো হয় চিকিৎসার জন্য । শিলিগুড়ি থেকে করোনা মুক্ত হয়ে আসার পর তাকে দেখতে হাজির হন জেলা স্বাস্থ্য দপ্তরের কর্তারা । সেদিন সুমির বারিতে গেছিলেন ইংরেজ বাজার বল্ক স্বস্থ্য আধিকারিক ডাঃ শাহানাজ হোসেন, উপ স্বাস্থ্য আধিকারিক মৃগাঙ্ক মল্লিক কর সহ অন্যান্য চিকিৎসকরা । সেদিন ই প্রথম জানা যায় গত ২ বছর ধরে অভাব আর ক্যনাসারের মত রোগের সাথে লড়াই করে চলেছে সুমি ও তার পরিবার ।

এরপর বিরতি .....................ঘুরতে থাকে ভাগ্যর চাকা ।

 যে চাকার ব্রেক , এক্সিলেটর ঈশ্বরের হাতে। দিলেন চাকা উল্টো দিকে ঘুড়িয়ে । উপ স্বাস্থ্য আধিকারিক মৃগাঙ্ক বাবু হয়ে গেলেন  টাইপ- ১ করোনায় আক্রান্ত্র । বিভিন্ন উপসর্গ থাকায় তাকে ভর্তি করা হল নারায়নপুরের করোনা হাসপাতালে । এই স্বস্থ্য আধিকারিক সুস্থও হলেন কাজেও যোগ দিলেন । ইতি মধ্যে মুখ্য মন্ত্রী ঘোষণাও করে দিলেন। । স্বাস্থ্য ও পুলিশ কর্মীদের কেও করোনায় আক্রান্ত্র হলে তাকে সান্মানিক ১ লক্ষ টাকা পুরুস্কার দেওয়া হবে। আর সেই টাকা গতকাল মৃগাঙ্ক বাবু পাওয়া মাত্রই আজ সেই পুরো এক লক্ষ টাকা সুমির ব্যাঙ্ক একাউন্ত এ ট্রান্সফার করে দেন। এই বিষয়ে  মৃগাঙ্ক বাবুর অভিমত, ক্যান্সার  চিকিৎসায় অনেক খরচ । আমি সামান্য মাত্র দিতে পারলাম। এছাড়া আমার নার্সিং হোম বা কনভেন্ট স্কুল গড়ার কোন স্বপ্ন নেই। তবে অতিরিক্ত টাকার কি প্রয়োজন ?

বলাবাহুল্য, মৃগাঙ্ক বাবুর এই উদ্যোগ নিয়ে রীতিমত গর্বিত জেলার স্বাস্থ্য কর্মীরা । গতকাল যেখানে মিথ্য অভিযোগ নিয়ে ,সাধারণ মানুষকে উস্কে মিল্কি হাসপাতালে দাদাগিরি দেখানো হয় সেখানে  এই ধরনের এক চিকিৎসকের মানসিকতা এটাই প্রমাণ করে যে আমরা কোথাই  আছি ? কোন মাতব্বরদের কথায় কিছু না বুঝেই আমরা স্বস্থ্যকরমিদের উপর চড়াও হয়ে পরি ?

আমরা newsbazar24 এর পক্ষ থেকে ডাঃ মৃগাঙ্ক করকে কুর্নিশ জানাই । ঈশ্বরের কাছে তার মঙ্গল কামনা করি। এটা আরও একবার প্রমাণ হল যে, জোর করে কিছু আদায় করার থেকে নিজের থেকে বিলিয়ে দেওয়া, বা উপকার করার মত শান্তি আর তৃপ্তি অন্য কিছুতেই নেই। যা মৃগাঙ্ক বাবু জানতেন আর তাই তিনি এখন ঈশ্বরের খাতায় অনেক কিছু সঞ্ছয় করলেন । যার সুদ তিনি আগামিতে ভোগ করবেন ।  

আরও পড়ুন-

এক সদ্যজাত শিশুর মৃত্যুকে ঘিরে ব্যাপক উত্তেজনা ব্লক প্রাথমিক স্বাস্থ্য কেন্দ্রে।

NewsDesk - 3

aappublication@gmail.com

Newsbazar24 Reporter

Post your comments about this news