কলকাতা

বেলুড় মঠ কোনও তীর্থস্থানের থেকে কম নয়। সাত সকালে প্রার্থনা করে জানালেন প্রধানমন্ত্রী।

বেলুড় মঠ কোনও তীর্থস্থানের থেকে কম নয়। সাত সকালে প্রার্থনা করে জানালেন প্রধানমন্ত্রী।

বেলুড় মঠ কোনও তীর্থস্থানের থেকে কম নয়। সাত সকালে প্রার্থনা করে জানালেন প্রধানমন্ত্রী।

 

প্রলয় চক্রবর্তী : তাঁর পশ্চিমবঙ্গ সফরের দ্বিতীয় দিন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি রবিবার সকাল ১১টায় কলকাতা পোর্ট ট্রাস্টের সার্ধশতবর্ষ উদযাপন অনুষ্ঠানের উদ্বোধন করবেন। শনিবার রাতে তিনি ছিলেন বেলুড় মঠে। রবিবার সকালে সেখানেই প্রার্থনা করেন প্রধানমন্ত্রী। পড়ুয়াদের উদ্দেশে তিনি বলেন, ‘‘স্বামী বিবেকানন্দের জন্মতিথিতে আমার শুভেচ্ছা জানাই সকলকে। আমি মঠের সভাপতি ও অন্যান্যদের কাছে কৃতজ্ঞ আমাকে কাল রাতে এখানে থাকতে দেওয়ার জন্য। বেলুড় মঠ কোনও তীর্থস্থানের থেকে কম নয়। কিন্তু এটা আমার কাছে সব সময় বাড়ি ফেরার অনুভূতি।'' এদিকে কলকাতায় শয়ে শয়ে মানুষ শনিবার রাতে প্রধানমন্ত্রীর কলকাতা সফরের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ করেন। শনিবার দুপুরে কলকাতার বিভিন্ন স্থানে সংশোধিত নাগরিকত্ব আইনের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ-মিছিল দেখা যায়। যার মধ্যে অন্যতম ছিল শহরের হৃদয়' ধর্মতলা।

সেখানে কংগ্রেস ও বাম দলগুলির সঙ্গে বিক্ষোভে যোগ দেন বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ের পড়ুয়া। তারই কিছু দূরে রানি রাসমণি রোডে তৃণমূল কংগ্রেসের ছাত্র শাখা সংশোধিত নাগরিকত্ব আইন ও এনপিআরের প্রতিবাদে সভা করে।

প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে সৌজন্যমূলক সাক্ষাৎ সেরেই শনিবার বিকেল পাঁচটায় সেই প্রতিবাদসভায় যোগ দেন মুখ্যমন্ত্রী। এরপরই নাটকীয় পরিস্থিতি তৈরি হয় কিছু পড়ুয়া ব্যারিকেড ভেঙে দেওয়ার পর।

মুখ্যমন্ত্রী সকলকে সতর্ক করে বলেন, কোনও রকম সমস্যা সৃষ্টি না করতে। পরে প্রতিবাদীরা পিছু হটে।প্রতিবাদী পড়ুয়ারা জানিয়েছে, তারা প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে মুখ্যমন্ত্রীর বৈঠক করা নিয়ে ক্ষুব্ধ। বাম দল ও কংগ্রেস দাবি করে, মুখ্যমন্ত্রী চিট ফান্ড কেলেঙ্কারি নিয়ে ইডি ও সিবিআইয়ের চাপে রয়েছেন। 

 

NewsDesk - 2

aappublication@gmail.com

Newsbazar24 Reporter

Post your comments about this news