টবে গোলাপ গাছের যত্ন করবেন কি ভাবে ? - Newsbazar24
চাষ বাস

টবে গোলাপ গাছের যত্ন করবেন কি ভাবে ?

টবে গোলাপ গাছের যত্ন করবেন কি ভাবে ?
গোলাপের চারা যেকোনো সময় লাগানো যায়। তবে নভেম্বর থেকে মার্চ পর্যন্ত গোলাপের ভালো চারা পাওয়া যায়।
টবে মাটি তৈরির সময় গোবর, সরিষার পচা খৈল, টিএসপি, পটাশ, হাড়ের গুঁড়া এসব সার যোগ করতে হবে।
সাধারণত এক মাস পর পর সার দেয়া ভালো। শীতের ঠিক পরেই অর্থাৎ মার্চের শেষে বা এপ্রিলের প্রথম দিকে টবের উপরের ৮ সেঃমিঃ – ১০ সেঃমিঃ মাটি তুলে দিয়ে খালি জায়গায় পচা গোবর সার দিয়ে দিলে ভালো ফুল হয়। এছাড়া গোবর ও সরিষার খৈল ৪-৫ দিন পানিতে পচিয়ে তরল করে মাসে ১ বার ব্যবহার করা যায়। ছোট মাছপঁচা পানি গাছের গোড়ায় দেয়া যায়। দুর্বল গাছে প্রতি লিটার পানিতে ২ গ্রাম হিসাবে ইউরিয়া মিশিয়ে সকাল বিকাল কয়েকদিন পাতায় স্প্রে করলে গাছ দ্রুত তাজা হয়। কিন্তু তাজা/সুস্থ গাছে অযথা ইউরিয়া স্প্রে করা উচিৎ নয়, এতে দ্রুত ফুল দেবার ক্ষমতা কমতে থাকে।
গোলাপের টব খোলামেলা আলো বাতাসপূর্ণ স্থানে রাখতে হবে যাতে সকালের সূর্য কিরণ পায় এবং প্রায় ৬-৮ ঘণ্টা সূর্যের আলো পায়। গোলাপ গাছটিতে যাতে চারিদিক হতেই আলো পড়ে সেদিকে দৃষ্টি রাখতে হবে। না হলে গাছটি কেবল আলোর দিক দিয়েই বাড়বে। এজন্য টবসহ গাছটি মাঝে মাঝে ঘুরিয়ে দেয়া ভালো।
টবের আকার নির্ভর করে যে গোলাপের চাষ করা হবে তার জাতের উপর। ছোট জতের জন্য ৮ ইঞ্চি টবই যথেষ্ট, হাইব্রিড-টি ও ফ্লোরিবান্ডার জন্য ১০-১২ ইঞ্চি বা আরো বড় টব ব্যবহার করতে হয়। তবে প্রথম বছর যে আকারের টবে গাছ বসানো হবে ২/৩ বছর পর বড় আকারের টবে গাছ স্থানান্তর করলে বড় আকারের বেশী ফুল পাওয়া যায়। লক্ষ্য রাখতে হবে যাতে গাছের গোড়ায় পানি দাঁড়িয়ে না যায়। পাশাপাশি টবের গাছ কখনই শুকিয়ে যেতে দেয়া যাবে না। বেশি গরমে প্রয়োজনে সকালে ও বিকালে ২ বার পানি দিতে হবে অথবা মালচিং করে নিতে হবে।
মৃত ও রোগাক্রান্ত ডাল অপসারনের জন্য, গাছের উপযুক্ত আকৃতি প্রদানের জন্য, প্রতিটি ডালে ফুল আসবার জন্য এবং প্রয়োজনীয় রোদ পাবার জন্য গোলাপ গাছ নিয়মিত ছাটাইয়ের প্রয়োজন হয়। গাছের ফুল দেয়া শেষ হলেই গাছ ছেঁটে দিতে হবে। নিয়মিত গাছ ছাঁটাই করলে বেশী ও বড় আকারের ফুল পাওয়া যায়। গাছের মরা ডাল দেখা মাত্র তা ধারালো সিকেচার দিয়ে কেটে ফেলতে হবে। সিকেচার জীবাণুমুক্ত রাখা সবচেয়ে বেশি জরুরী।
বছরে ১ বার অক্টোবর/নভেম্বর মাসে গোলাপের ডালপালা ছেঁটে দিতে হবে। ডালপালা ছাঁটাই-এর মাধ্যমে গাছের মৃত, দুর্বল, রোগাক্রান্ত, ও নষ্ট অংশ দূর করা হয়। যার ফলে নতুন ডালপালা জন্মে ও নতুনভাবে আরও ভালো ফুল উৎপন্ন সম্ভব হয়।

 

NewsDesk - 2

aappublication@gmail.com

Newsbazar24 Reporter

Post your comments about this news