চন্দন নগরের আলোক শিল্পীদের অভাব থাকলেও , মানুষের মুখে হাসি ফোটাতে পূজা মণ্ডপে নতুন চমক - Newsbazar24
দুর্গা পুজো

চন্দন নগরের আলোক শিল্পীদের অভাব থাকলেও , মানুষের মুখে হাসি ফোটাতে পূজা মণ্ডপে নতুন চমক

চন্দন নগরের আলোক শিল্পীদের অভাব থাকলেও , মানুষের মুখে হাসি ফোটাতে পূজা মণ্ডপে নতুন চমক

অদ্রিজা ঘোষ, news bazar24:  করোনার বিঁধি নিষেধ থাকলেও  হাল ছেড়ে দিতে রাজি নন চন্দন নগরের আলোক শিল্পীরা । সারা বছরের রুজি রোজগার উৎস বলতে দুর্গা ও কালী ও জগধাত্রী পূজো । আর সেই কারনেই এই মরশুমের জন্য সারা বছর অপেক্ষা করে থাকেন আলোকশিল্পীরা। গত বছর কাজ হয়নি বললেই চলে, আর সেই কারনেই  দুর্গাপুজোয়  মুখ্যমন্ত্রীর ঘোষণা শোনার পরই কাজে নেমে পড়েছেন শিল্পীরা। রাত দিন এক করে কাজ করে চলেছেন তারা। এই বছর পুজো আবার অনেক আগে। হাতে সময় খুব কম । তবে তাতে কি ?  চন্দননগরের আলোক শিল্পীরা এবার আনছে নতুন চমক। তাদের চিন্তা ভাবনায় আলোর কারুকাজে ফুটে উঠতে চলেছে  টোকিও অলিম্পিক্স। খালি এই নয় ভারতীয়দের সাফল্যকেও  এবার আলোর বর্ণমালায় তুলে ধরছেন এই শিল্পীরা। আলোক শিল্পী সন্তোষ প্রসাদের কথায়,  এবারের পুজোয় থিম টোকিও অলিম্পিক্স। আমরা চেষ্টা করছি অলিম্পিক কে পূজা মণ্ডপ গুলিতে নিয়ে আসার। সোনার ছেলে নীরজ, চানুদের চোখ ধাঁধানো সাফল্যকে আলোর বোর্ডে  ফুটিয়ে তোলা হবে। যদিও এটা বলার অপেক্ষা রাখে না প্রতিবছরই পুজোয় চন্দননগরের আলোয় উঠে আসে সাম্প্রতিক কোনও ঘটনা। আয়লার ভয়াবহ রূপ বা ভূমিকম্প  সেই দৃশ্য ফের দেখা যায় পূজা মণ্ডপের আশে পাসে । আরও এক আলোক শিল্পী তথা চন্দননগর লাইট ওনার্স অ্যাসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক বাবু পাল জানান,  শিল্পী বাবু পালের কথায়, শুধু ভারতের পদক জেতাই নয়, থাকবে হেলিকপ্টার ওড়ার দৃশ্য থেকে ডিজনিল্যান্ড সবই। ইতিমধ্যেই প্রস্তুত বাবু পাল সহ তাঁর টিম। তবে আক্ষেপ প্রকাশ করে আরেক শিল্পী বলেন, ‘বাজেটে ব্যাপক কাটছাঁট করেছে পুজো কমিটিগুলো। যে পুজোকমিটি ১০ লক্ষ টাকার আলোর বরাত দিত, এবার সে চার লক্ষ টাকাও দিতে চাইছে না। বাবু পালও আলোর বাজার সম্পর্কে  দুঃখ প্রকাশ করে জানান, এই পেশা মানুষকে আনন্দ দিলেও ভবিষ্যৎ নেই। ফলে মুখ ফিরিয়ে অন্য পেশায় চলে যাচ্ছেন অনেক শিল্পীরা।

NewsDesk - 2

aappublication@gmail.com

Newsbazar24 Reporter

Post your comments about this news