গত ২৪ ঘন্টায় মালদহে নতুন করে করোনা সংক্রামিত ৪৯ জন,লালা রস পরীক্ষার সংখ্যা নগণ্য । - Newsbazar24
মালদা

গত ২৪ ঘন্টায় মালদহে নতুন করে করোনা সংক্রামিত ৪৯ জন,লালা রস পরীক্ষার সংখ্যা নগণ্য ।

গত ২৪ ঘন্টায় মালদহে নতুন করে করোনা সংক্রামিত   ৪৯  জন,লালা রস  পরীক্ষার সংখ্যা নগণ্য  ।

কার্ত্তিক পাল, Newsbazar 24: গত ২৪ ঘন্টায় মালদহে নতুন করে করোনা সংক্রামিত হয়েছেন  ৪৯  জন। সংক্রমিতের  সংখ্যা বাড়তেও পারে কারণ আমাদের কাছে এখনো পর্যন্ত রাপিড  অ্যান্টিজেন টেস্টের কোন তথ্য  দেওয়া হয়নি।  গতকাল রাতে আমাদের  মালদহ  ভিআর ডিএলএ আরটিপিসিআর মেশিনে ৭৪৬ জন লালা রস পরীক্ষা হয়েছিল।  তার মধ্যে   মালদহের ছিল ২৯৩  জন দক্ষিণ দিনাজপুরের ৪৫৩ জন। ১২১ জন এর রিপোর্ট  পজিটিভ পাওয়া গেছে। মালদহের ৬৬  জন এবং দক্ষিণ দিনাজপুরের ৫৫ জন। মালদহের ৬৬  জনর মধ্যে  মধ্যে ১৭টি রিপিট টেস্ট৷ অর্থাৎ নতুন সংক্রমণের সংখ্যা ৪৯ ৷  এ ব্যাপারে  এখনো পর্যন্ত জেলা স্বাস্থ্য দপ্তর থেকে আমাদেরকে বিস্তারিত কোনো তথ্য দেওয়া হয়নি। আমরা বিশেষ সূত্রে  জানতে পারলাম ইংরেজবাজার পৌরসভা এলাকায় আক্রান্ত হয়েছেন ১০  জন এবং পুরাতন  মালদহ  পৌরসভা এলাকায়  আক্রান্ত হয়েছেন ১৮ জন। জেলা স্বাস্থ্য দপ্তর থেকে সঠিক রিপোর্ট না পাওয়ায় এদিনের আক্রান্তদের ব্লকগত  হিসাব দেওয়া গেল না । পাশাপাশি গতকাল  ২২২ জন সংক্রামিতের তথ্য জেলা স্বাস্থ্য দপ্তর সূত্রে দেওয়া হয়েছে সেখানে ইংরেজবাজার পৌরসভার ৩৮ জন ইংলিশ ইংলিশবাজার  গ্রামাঞ্চলের ৩ জন, পুরাতন  মালদহ  পৌরসভা ১০ জন পুরাতন  মালদহ  গ্রামাঞ্চলের ৫ জন গাজলের  ২০ জন বামনগলার ১৮ জন চাচোল -১ এর ২১ জন  চাচোল -২ এর ২২ জন রতুয়া-১ ১৪ জন রতুয়া-২ ৩৩ জন, হরিশচন্দ্রপুর-১ এর ৬ জন হরিশচন্দ্রপুর-২ এর ১২ জন।আর বাকীরা ছিলেন অন্যন্য ব্লকের।জেলা প্রশাসন   সংক্রমণে রাশ টানতে সিদ্ধান্ত নিয়েছিল  জেলা জুড়ে টেস্ট বাড়ানো হবে। লালারস পরীক্ষার সঙ্গে বাড়ানো হয়েছে অ্যান্টিজেন টেস্টও৷ কিন্তু গ্রামাঞ্চলগুলিতে সেভাবে মানুষের কাছ থেকে সাড়া পাওয়া যাচ্ছে না৷ এই চিত্র  গোটা জেলা জুড়ে৷  করোনার রাশ টানতে  জেলাশাসকের নির্দেশে পুর এলাকার সঙ্গে প্রতিটি ব্লকে শুরু হয়েছে রাপিড অ্যান্টিজেন টেস্ট৷ কিন্তু সচেতনতার অভাবে মানুষ পরীক্ষাকেন্দ্রগুলিতে হাজির হচ্ছে না৷ এর  আগে মানিকচকের এনায়েতপুর গ্রামপঞ্চায়েতে অ্যান্টিজেন টেস্টের ব্যবস্থা করা হয়েছিল৷ কিন্তু সেখানে একজনও পরীক্ষার জন্য আসেননি৷  পঞ্চায়েত প্রধানের অনুনয় বিনয় ষত্বেও কেউ করোনা পরীক্ষা করাতে আসেনি৷ ফলে শূন্য হাতেই ফিরে আসে স্বাস্থ্যকর্মীদের৷  আজ পুরাতন মালদার সাহাপুর গ্রাম পঞ্চায়েতেও প্রায় একই চিত্র মূলত সামাজিক বয়কটের ভয়েই  মানুষ পরীক্ষা থেকে দূরে থাকছে বলে মনে করা হচ্ছে৷ পরিস্থিতি মোকাবিলায় জেলা প্রশাসন গ্রামপঞ্চায়েতগুলিকে সচেতনতা প্রচারে জোর দেওয়ার নির্দেশ  দেওয়া হয়েছে

এ ছাড়াও জেলা স্বাস্থ্য দপ্তরের বিরুদ্ধে  অভিযোগ উঠে আসছে করোনা আক্রান্ত রোগীদের পক্ষ থেকে ।এ ব্যাপারে একজন উপসর্গহীন করোনা রোগী অভিযোগ করেছেন করণা পজিটিভ হওয়ার পর তাকে  পৌরসভা  থেকে জানানো হয়েছিল।  তারপর তার বাড়ি স্যানিটাইজ করা হয়েছে এবং তার বাড়িতে কোভিড-১৯ স্টিকার লাগিয়ে দেওয়া  হয়েছে।  কিন্তু জেলা স্বাস্থ্য দপ্তর থেকে তাকে কি ওষুধ খেতে হবে এবং কি কি ব্যবস্থা গ্রহণ করতে  হবে এই ব্যাপারে কোনো পরামর্শ এখনও পর্যন্ত দেওয়া হয়নি । যদিও ইতিমধ্যে ৩ দিন অতিক্রান্ত হয়ে গেছে।জেলা স্বাস্থ্য দপ্তরের পক্ষ থেকে   করণা আক্রান্ত রোগীদের ফোনে ডাক্তারের পরামর্শ দাবী  করছেন আক্রান্ত রোগীরা।  

আপনার এলাকায় কেও নেই তো ?

1) গ্রাম- বটতলী , জিপি আমৃতি

পেশা- মলে কাজ করে

 2) গ্রাম- দেশ বন্ধু পাড়া, ওয়াড নঃ 22

পেশা- রেলওয়ে সিঙ্গল ডিপার্টমেন্ট কাজ করে

 3)গ্রাম- মহেশ পুর বাগান পাড়া, ওয়াড নঃ 1

পেশা-  বর্তমানে ছাত্র

 4) গ্রাম- মালঞ্চপল্লি, ওয়াড নঃ 03

পেশা- আই সি ডি এস  এ  চাকরি করে

 5) গ্রাম- নর্থ বালুচর, ওয়াড নঃ 12

পেশা- গভমেন্ট সার্ভিস করে

 6) গ্রাম- কৃষ্ণ পল্লী, ওয়াড নঃ 29

পেশা- পি এইচ ই ডিপার্টমেন্টে শ্রমিকের কাজ করে।

NewsDesk - 2

aappublication@gmail.com

Newsbazar24 Reporter

Post your comments about this news