করোনা : 'দৈবদূর্বিপাকে' দেশের অর্থনীতি ! - Newsbazar24
বিশেষ প্রতিবেদন

করোনা : 'দৈবদূর্বিপাকে' দেশের অর্থনীতি !

করোনা : 'দৈবদূর্বিপাকে' দেশের অর্থনীতি !

 

করোনা : 'দৈবদূর্বিপাকে' দেশের অর্থনীতি !

সুনীলকুমার সরকার

রিকশাওয়ালা , কৃষি মজুর , ট্রেনের হকার থেকে  ফুটপাত ব্যবসায়ী সবাই জেনে গেছেন , দেশের আর্থিক অবস্থা খারাপ কাজকর্ম না হলে , উৎপাদন না হলে , টাকার লেনদেন কমলে , আয় কমলে সাধারণ গরিব মানুষের পেটে টান যে পড়বে সেটা এঁরা জানেন ইঁট ভাটা , পরিবহন , বিল্ডিং কনস্ট্রাকশন থেকে ছোট ব্যবসাপত্রসহ ছোট বড় উৎপাদন ক্ষেত্র প্রায় সবই বন্ধ ছিল লকডাউন পর্বে অসংগঠিত ক্ষেত্র এই সময়ে চুরমার হয়ে গেছে পয়লা সেপ্টেম্বর থেকে আনলক-4 পর্ব শুরু হওয়ার পরেও অর্থনীতি ঘুরে দাঁড়ানোর কোন লক্ষণই দেখা যাচ্ছে না সোনার দোকানের ঠোকাই মজুর , বিভিন্ন ক্ষেত্রের মিস্ত্রী-ফিটার থেকে লোকশিল্পী-নাট্যাশিল্পী , গান বাজনার মাচাশিল্পী সহযোগীদের বড় অংশ কেউ ফল ফেরি করছে , কেউ সবজির ভ্যান টানছে তো কেউ রাস্তায় মাস্ক ফেরি করছে জীবন জীবিকার এক করুণ দৃশ্য !

    মাস দুয়েক আগেই রিজার্ভ ব্যাঙ্ক ঘোষণা করেছিল , দেশের যা আর্থিক অবস্থা , 2020-21 অর্থবর্ষের শেষে জিডিপি নেগেটিভ হতে পারে অর্থাৎ উৎপাদনে সংকোচন বা অধোগতি কিন্তু অর্থবর্ষের প্রথম দিকেই , অর্থাৎ প্রথম ত্রৈমাসিক(এপ্রিল-মে-জুন )-এর রিপোর্টে দেখা যাচ্ছে জিডিপি' সংকোচন হয়েছে  23.9 শতাংশ অর্থাৎ প্রায় 24 শতাংশ অধোগতি ! প্রসঙ্গতঃ , চলতি অর্থবর্ষের প্রথম ত্রৈমাসিকে (এপ্রিল-জুন ) উন্নত দেশগুলিতে অধোগতি দেখা দিলেও তাদের বিপর্যয় অনেক কম চীন অনেকটাই সামাল দিয়েছে , অধোগতি দেখা দেয়নি , বৃদ্ধির হার কমলেও পজিটিভই আছে

         প্রথম ত্রৈমাসিকে(এপ্রিল-জুন'20)

         দেশ                 জিডিপি (%) 

     আমেরিকা             (-) 09

       জার্মানি                (-) 10

        ব্রিটেন                 (-) 21

          চীন                   (+) 03 

আমাদের দেশের অধোগতি একদিকে যেমন নজিরবিহীন অপরদিকে সর্বব্যাপ্ত শিল্প , ম্যানুফ্যাকচারিং , পরিষেবা , খনি , বাণিজ্য থেকে নির্মাণ ক্ষেত্র পর্যন্ত সর্বব্যাপ্ত প্রসঙ্গত , এই হিসেব সংগঠিত ক্ষেত্রের , ষাট কোটি মানুষের অসংগঠিত ক্ষেত্রের হিসেব এখানে নেই গত চারদশকে কোন ত্রৈমাসিক রিপোর্টেই অধোগতি দেখা যায়নি স্বাধীনতার পর মাত্র একটি ত্রৈমাসিকেই পাঁচ শতাংশ অধোগতি দেখা দিয়েছিল বছর মার্চ মাসের 25 তারিখ থেকে লকডাউন শুরু হয় আগের অর্থবর্ষের চারটি ত্রৈমাসিকেই ক্রমান্বয়ে বৃদ্ধির হার  কমেছে(5.2 , 4.4 , 4.1 , 3.1 শতাংশ ) , তখন করোনা লকডাউনের কোন ব্যাপার ছিলনা গত চার বছরে দেশে বৃদ্ধির হার(জিডিপি) ক্রমহ্রাসমান---

       অর্থবর্ষ                জিডিপি(% )

      2016-17                 8.2

      2017-18                 7.2

      2018-19                 6.1

      2019-20                 4.2

      20-21(1st Qtr)     (-)24

 করোনা কাণ্ডের অনেক আগে থেকেই বিশ্বব্যাপী মন্দা শুরু হয়েছে , ভারতবর্ষও এর বাইরে নয় এমন নয় যে , বিগত 'মাস ধরে করোনা লকডাউনের জেরে দেশের আর্থিক অবস্থা খারাপ হয়েছে  অতিমারির অনেক আগে থেকেই দেশের আর্থিক বৃদ্ধির হার কমছে ধারাবাহিকভাবেই যে অর্থনীতি দাঁড়িয়েছিল খাদের কিনারায় তা করোনা প্রভাবে এখন গভীর খাদে আশঙ্কা করা হচ্ছে , গত শতাব্দীর তিরিশের দশকের মহা মন্দা(Great Depression) পর ঘটমান মন্দাটি সম্ভবত সবচেয়ে বড় মন্দা হতে চলেছে ছাপিয়ে যাবে কি ?

 কী প্রভাব পড়তে চলেছে জনমানসে , জীবন জীবিকায় ? স্বভাবিকভাবেই সরকারের আয় কমেছে , কমবে কমেছে ছোট ব্যবসায়ী থেকে বড় ব্যবসায়ীর , সঙ্গে তাদের কর্মচারী সংযুক্ত নির্ভরশীলদের সরকারের হাতে টাকা না থাকলে মানুষের ওপর যা যা আঘাত নেমে আসার , তা আসছে , আসবে সরকারি কর্মচারীদের মাইনে পেনশন কমতে পারে মিডডে মিল , 100 দিনের কাজসহ জনকল্যাণমূলক কাজ কমতে পারে রাস্ত-ঘাট , সেচ ব্যবস্থা অপুষ্টিতে ভুগবে রাজ্যগুলির নিজেদের আয় হ্রাস পাবে বিপুল , কেন্দ্রীয় বরাদ্ধ ছাঁটাই হবে রাজ্যগুলি টাকা ছাপাতে পারেনা পর্যাপ্ত প্রয়োজনীয় টাকা কেন্দ্রীয় সরকার ছাপালে মুদ্রাস্ফীতি বাড়বে চূড়ান্ত আয়হীন গরিবগুর্বরা এই মুদ্রাস্ফীতির কালো ধোঁয়ায় হাঁসফাঁস , ছটফটই করবে আর এগিয়ে যাবে মৃত্যুর দিকে দেশের টাকাগুলো যে গেল কোথায় ! এদিকে করোনা কালেই প্যান ইন্ডিয়া' সম্প্রতি সমীক্ষায় দেখা যাচ্ছে , ভারতে 90 শতাংশ সাধারণ গরীব মানুষ করোনার চেয়ে অনেক বেশী চিন্তিত তাঁদের আর্থিক অবস্থা আর তার দুরবস্থার গতি নিয়ে

 'দৈবদূর্বিপাকে' নাকি অর্থনীতির এই অবস্থা ! কোন দৈববানী বা দেবতার হাত এই দুরাবস্থা থেকে অদূর ভবিষ্যতে উদ্ধার করতে পারবে কি ? অর্থনীতি নামক সমাজ বিজ্ঞানের সাবজেক্টটি বাস্তব ঘটনা , পদক্ষেপ কার্যকারণের মধ্যদিয়ে সত্যের পথে এগোয় আজকের আর্থিক বিপর্যয় দৈবদূর্বিপাকে(!) হলে আগের বছরগুলিতে কার রোষে ক্রমান্বয়ে বৃদ্ধির হার কমেছে , তখন কোন দেবতারই-বা অভিশাপ ছিল ? নাকি , দেবতারা মর্ত্যের সম্পদ নিয়ে স্বর্গে পাড়ি দিয়েছেন !

লেখক পরিচিতি : অর্থনীতি নিয়ে পড়াশুনা সেন্টার ফর স্টাডিজ ইন সোশ্যাল সায়েন্সেস ক্যালক্যাটা এবং জয়প্রকাশ ইনস্টিটিউট অফ সোশ্যাল চেঞ্জ- গবেষক হিসেবে কাজ বিজ্ঞানমনস্কতা-যুক্তিবাদ , পরিবেশ এবং  সামাজিক ইস্যু নিয়ে লেখালেখি করেন। পশ্চিমবঙ্গ বিজ্ঞান মঞ্চ' একজন সায়েন্স এক্টিভিস্ট। বর্তমানে মালদা জেলার শতাব্দী প্রাচীন 'নঘরিয়া হাই স্কুল'এর প্রধান শিক্ষক।

                            -----------------------

 

NewsDesk - 3

aappublication@gmail.com

Newsbazar24 Reporter

Post your comments about this news