ফুটবল

অভাব অনটনকে সাথী করে ফুটবল খেলায় মেতে উঠেছে,প্রত্যন্ত গ্রামের মেয়েরা

অভাব অনটনকে সাথী করে ফুটবল খেলায় মেতে উঠেছে,প্রত্যন্ত গ্রামের মেয়েরা

কার্ত্তিক পাল, মালদা, ১৬ই অক্টোবরঃ অভাব অনটনকে সাথী করে ফুটবল খেলায় মেতে উঠেছে মেয়েরা। মালদা শহর দেখল এই সব মেয়েদের যাদের মধ্যে কেউ কেউ গোড়া মুসলিম পরিবার থেকে আবার কেঊ কেউ আদিবাসী পরিবারের  যাদের বাড়ীতে দুমুঠো অন্ন ঠিকমত জোটে না তবুও এদের উৎসাহের খামতি নেই।  মালদা ওমেন্স স্পোর্টস এসোসিয়েশান মালদা শহরে সর্বপ্রথম এক দিবসীয় দিবা-রাত্রি মহিলা ফুটবল প্রতিযোগিতার আয়োজন করেছিল এই সব হতদরিদ্র পরিবারের মেয়েদের নিয়ে । আজ দুপুরে এই খেলার শুভ উদ্বোধন হয় মালদা কলেজ ময়দানে। জেলার প্রত্যন্ত গ্রামের মোট ৬টি স্কুলের মেয়েরা এই প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণ করেছিল।তারা হল  গাজোলের আলাল হাই স্কুল,হাতিমারী হাই স্কুল, চাঁচলের আর ডি গার্লস হাই স্কুল, হরিশচন্দ্রপুরের কুশিদা হাই স্কু্‌ল,পিপলা হাই স্কুল ও পাকুয়া যদুনাথ গার্লস হাই স্কুল। মালদা শহর দেখল এই সব গ্রামের মেয়েদের বল দখলের লড়াই।

এ ব্যাপারে মালদা ওমেন্স স্পোর্টস এসোসিয়েশানের সম্পাদিকা নির্ঝরিনী সরকার বলেন যে ১৯৭৭ সালে মহিলাদের খেলাধুলার উন্নতিকল্পে এই ওমেন্স স্পোর্টস এসোসিয়েশান গঠন করা হয়েছিল। বিগত বেশ কয়েক বছর ধরে আমরা বেসরকারি সাহায্যের উপর ভরসা করে বিভিন্ন প্রতিযোগিতা সংগঠিত করতাম। কিন্তু বর্তমানে আমরা সরকারী সাহায্য পাওয়ায় আবার জেলায় বিভিন্ন খেলাধুলায় মেয়েদেরকে উৎসাহিত করার জন্য আবার কিছু প্রতিযোগিতা আমরা সংগঠিত করছি। বর্তমানে শহরের মেয়েদের খেলাধুলার প্রতি উৎসাহ নেই। কিন্তু গ্রামের মেয়েদের মধ্যে বিভিন্ন খেলাধুলায় প্রচন্ড উৎসাহ। তাই তো আমরা এদের প্রতিভাকে তুলে ধরার প্রচেষ্টা  নিয়েছি। এর আগে আমরা কাবাডি প্রতিযোগিতা করেছি এবং বর্তমানে মহিলা ফুটবল প্রতিযোগিতার আয়োজন করেছি। এ ছাড়াও সাম্প্রতিক সময়ে মহিলা ফুটবলে গাজোলের হাতিমারী হাই স্কুলের মেয়েরা রাজ্য স্তরে চ্যাম্পিয়ান হয়েছিল। সেই দিকেই লক্ষ রেখে আমরা এই প্রতিযোগিতার আয়োজন করেছি। ফাইনালে গাজোলের হাতিমারি হাই স্কুল 1-0 গোলে হরিশচন্দ্রপুরের কুশিদা হাই স্কুল কে হারিয়ে চ্যাম্পিয়ন হয়েছে ।গোলদাতা রেনুকা হাঁসদা।

NewsDesk - 3

aappublication@gmail.com

Newsbazar24 Reporter

Post your comments about this news