আজ ২৫ মে থেকে শুরু হচ্ছে ‘নওতাপ’ এর প্রভাব ! তীব্র দাবাদহে অস্বস্তিতে থাকবে জীবকুল

news bazar24:  জ্যোতিষ শাস্ত্র মতে আজ অর্থাৎ   ২৫ মে থেকে শুরু হচ্ছে নওতাপ।আজ  সকাল ৩টে ১৬ মিনিটে সূর্য রোহিণী নক্ষত্রে প্রবেশ করেছে । ১৫ দিন রোহিণী নক্ষত্রে অবস্থান করে মৃগশিরা নক্ষত্রে গোচর করবে সূর্য। রোহিণী নক্ষত্রে সূর্যের অবস্থানের এই ১৫ দিন সারা বছরের মধ্যে সবচেয়ে উষ্ণ হয়। সূর্য রোহিণী নক্ষত্রে ১৫ দিন থাকলেও তার মধ্যে প্রথম ৯ দিন গরম সবচেয়ে মারাত্মক আকার ধারণ করে।  এই সময় সূর্য যেন আগুন ছড়াতে শুরু করবে পৃথিবীর বুকে। সূর্য দেব তাঁদের বেশি ক্ষতি করেন যাদের পাপের ঘড়া ভরে থাকে।

সূর্যের এই ৯ দিনের রুদ্ররূপকেই শাস্ত্রমতে ‘নওতাপ’ বলা হয়ে থাকে । ২০২৪ সালে  নওতাপের প্রভাব পড়বে আজ ২৫ মে থেকে আগামী ২ জুন পর্যন্ত।

জ্যোতিষ ও মহাকাশ গবেষকসরা জানিয়েছেন, সূর্য প্রতি বছর যে সময় রোহিণী নক্ষত্রে অবস্থান করে, সেই সময়টায় সবেচেয়ে বেশি গরম পড়তে শুরু করে।

এই সময়ে সূর্যের প্রচন্ড তাপে মানুষসহ প্রানি জগতের উপর ক্ষতিকর প্রভাব পড়তে পারে। এবিষয়ে তাই সাবধানতা অবলম্বনের পরামর্শ ও দিয়েছেন বিজ্ঞানী সংস্থা।

নওতাপের বৈজ্ঞানিক ও বৈদিক  ব্যাখ্যা

বৈদিক পঞ্জিকা অনুসারে প্রতি বছর জ্যৈষ্ঠ্য মাসের গোড়াতেই শুরু হয় নওতাপ। প্রতি বছর এই সময় তাপমাত্রা থাকে সবচেয়ে বেশি। সূর্যের আগুনে হলকায় যে জ্বলে পুড়ে যায় চারদিক।মাটি ফেটে যায় । পুকুরের জল শুকীয়ে জলজ প্রাণীদের জীবন বাঁচানো দ্বায় হয়ে যায়।প্রচুর মানুষের হিট স্ট্রোকে মৃত্যু হয়ে যায়। আর এই নওতাপ শুধু জ্যোতিষ গণনা অনুসারে নয়, নওতাপের বৈজ্ঞানিক ভিত্তিও রয়েছে।

এই সময়  রোহিণী নক্ষত্রে সূর্যের অবস্থান হয়।

প্রথম নয় দিন সূর্য ও পৃথিবীর মধ্যে দূরত্ব সবচেয়ে কমে আসে।

নিজের কক্ষপথে ঘুরতে ঘুরতে এই সময় পৃথিবীর উত্তর গোলার্ধ সূর্যের সবচেয়ে নিকটে চলে আসায় এই নয় দিন তীব্র গরম অনুভূত হয়।

এই সময় সূর্য কিরণ সরাসরি পৃথিবীর উত্তর গোলার্ধে এসে পড়ে।

নওতাপে সূর্যের আরাধনা

শাস্ত্র মতে নওতাপ চলাকালীন সূর্যদেবের আরাধনা করার রীতি প্রচলিত আছে। সূর্যের প্রবল রোষ শান্ত করতে এই সময় সবার সূর্যদেবের উপাসনা করা উচিত। নিয়মিত সূর্য মন্ত্র পাঠ করতে হবে। সূর্যদেবকে জল অর্ঘ্য দিতে হবে ।

আপনি এই সময় পশু পাখী থেকে যে কোন মানুষকে জল খাওয়ান । এই সময় জল ও ছাতা দান করলে সূর্যদেব প্রসন্ন হন ।

এর ফলে প্রবল গরমে আপনি ও আপনার পরিবারের সদস্যরা সুস্থ থাকতে পারবেন।

বাড়িতে বা বাইরে যখন থাকবেন-

এই সময় বেশি করে জল, দই, ডাবের জল ও ঠান্ডা খাবার খেতে হবে। এছাড়া গরমে আমাদের ক্লান্তি কাটাতে তরমুজের বিকল্প নেই। তরমুজের রসে ভিটামিন এ, সি, বি২, বি৬, ই এবং ভিটামিন সি, ছাড়াও পটাশিোম, ম্যাগনেশিয়াম, বিটা ক্যারোটিন, ইত্যাদি থাকলেও, ক্যালোরির মাত্রা কম।তাই তরমুজ খান , শসাও পুষ্টিগুণে ভরপুর একটি সবজি। শশার মধ্যে রয়েছে ভিটামিন কে, ভিটামিন বি, কপার, পটাশিয়াম, ভিটামিন সি, ম্যাঙ্গানিজ। এছাড়াও খেতে পারেন তেঁতুল জল ও কাঁচা পেঁয়াজ ।

 

 

এরকম আরো খবর পেতে সাবস্ক্রাইব করুন