Share on whatsapp
Share on twitter
Share on facebook
Share on email
Share on telegram
Share on linkedin

সত্যি কি সাপ শীতনিদ্রায় যায় ? কি বলছেন জীববিজ্ঞানীরা ?

Share on whatsapp
Share on facebook
Share on twitter
Share on email
Share on telegram
Share on linkedin

news bazar24 : শীত পড়লেই আমাদের চারপাশ থেকে সাপ আর ব্যাঙ অদৃশ্য হয়ে যায়। কোথায় যেন চলে যায় এই দুই প্রানি । অনেকে বলে থাকেন শীতনিদ্রায় যায়! তবে বহুল প্রচলিত ‘শীতনিদ্রা’ বা ‘হাইবারনেশন’ শব্দটা আজকাল জীববিজ্ঞানীরা ব্যবহার করেন না। কারণ, এতে কিছু বিভ্রান্তি কর মতান্ততর সৃষ্টি হয়। সূক্ষ্ম বিচারে কৌশলগত ভুলও বটে। জীববিজ্ঞানীরা এখন শীতনিদ্রার পরিবর্তে বলে থাকেন ‘ব্রুমেশন’। শীতকালে সাপ-ব্যাঙ, সরীসৃপ ও উভচর প্রাণীরা ‘হাইবারনেশন’ নয় ‘ব্রুমেশন’-এ যায়। অর্থ প্রায় শীতনিদ্রার কাছাকাছি। ঠান্ডা রক্তের প্রাণীরা খুব শীতে এই ব্যবস্থা নেয়।
এরা কম সক্রিয় হয়ে দেহের শক্তি বাঁচায়। কোনো গর্তে বা খুপরিতে যেখানে ঠাণ্ডা পৌঁছতে পারেনা সেখানে গুটিশুটি হয়ে পড়ে থাকে। এটাই ব্রুমেশন।
আবার শীতের মধ্যে একটু গরম ভাব লাগলেই বাইরে ঘোরাফেরাও করে। খাবার খেয়ে আবার সেই গরম জায়গায় ঢুকে পরে।

শীতে সাপ কেন কাবু হয়ে পড়ে?

সাপকে সাধারণভাবে বলা হয় ‘ঠান্ডা রক্তের’ প্রাণী। এরা খাদ্য বিপাক প্রক্রিয়ায় উৎপন্ন তাপ ব্যবহার করে নিজ দেহের তাপমাত্রা স্থির রাখে না। বাইরের আবহাওয়ার তাপমাত্রার সঙ্গে ওদের দেহের তাপমাত্রা ভীষণ ভাবে ওঠা-নামা করে।
তবে জীববিজ্ঞানীরা এখন আর ‘ঠান্ডা রক্তের প্রাণী’ কথাটি ব্যবহার করেনা। বলা হয়, এরা পয়ক্যাল্যাথার্ম (Poikilotherm) বা একটোথার্ম (Ectotherm)। অর্থাৎ, এদের দেহের তাপমাত্রা স্থির থাকে না, ওঠানামা করে। অন্যদিকে মানুষ, পাখি প্রভৃতি চলতি কথায় উষ্ণ রক্তের প্রাণী। এখন উষ্ণ রক্ত না বলে বলা হয় হোমিওথার্ম (Homeotherm) প্রাণী।
বাইরের আবহাওয়া যে রকমই হোক না কেন, আমাদের দেহের তাপমাত্রা সব সময় প্রায় ৩৭ ডিগ্রি সেলসিয়াস বা ৯৮.৬ ডিগ্রি ফারেনহাইট থাকে। খাদ্য বিপাক প্রক্রিয়ায় সৃষ্ট তাপ ব্যবহার করে মানুষ সহ বিভিন্ন প্রজাতির প্রাণী দেহের তাপমাত্রা স্থির রাখি। বেশি শীতে লেপ মুড়ি দিয়ে আরামে ঘুমাই।

Share on whatsapp
Share on facebook
Share on twitter
Share on email
Share on telegram
Share on linkedin