Share on whatsapp
Share on twitter
Share on facebook
Share on email
Share on telegram
Share on linkedin

সকাল সকাল ওয়েটিং রুমে ঢুকে পড়লো ট্রেন ! শিশু সহ মৃত্যু ৩ , বগির নিচে কত ? জানা সম্ভব হয় নি

Share on whatsapp
Share on facebook
Share on twitter
Share on email
Share on telegram
Share on linkedin

 

যাত্রীরা প্ল্যাটফর্মে এবং ওয়েটিং হলে তাদের গন্তব্যে ট্রেন ধরার জন্য অপেক্ষা করছিলেন। কিছু বুঝে ওঠার আগেই পণ্যবাহী ট্রেনটি হঠাৎ ওয়েটিং হলের মধ্যে ঢুকে পড়ে। তখন প্রায় 6.44 টা। হল ছিঁড়ে যাওয়ার পর ফুট ওভার ব্রিজের সঙ্গে ধাক্কা লেগে তিন থেকে চারটি ওয়াগন থেমে যায়।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানিয়েছেন, প্রচণ্ড গতিতে চলমান ট্রেনটি স্টেশনের পাশ দিয়ে যাওয়ার সময় ভারসাম্য হারিয়ে মর্মান্তিক দুর্ঘটনাটি ঘটায়।

news bazar 24 : সোমবার সকাল সকাল প্লাটফর্মে উঠে ওয়েটিং রুমে ঢুকে  পড়লো ট্রেন । ঘটনায় এখন পর্যন্ত মৃত্যু ৩ । আহত অনেকে। তবে ট্রেনের নিচে এখনও কেও চাপা পড়ে আছে কিনা জানা সম্ভব হয় নি । ঘটনাটি ঘটেছে  ওড়িশার জাজপুরে ।  জানা গিয়েছে, আজ সকাল ৬টা ৪৪ মিনিটে জাজপুরের কোরেই স্টেশনে একটি মালগাড়ি লাইনচ্যুত হয়। সেই সময় ট্রেনটি ওয়েটিং রুমে ঢুকে পড়ে। প্রতিবেদন লেখা অবধি এই দুর্ঘটনায় তিনজন প্রাণ হারিয়েছেন বলে প্রাথমিক ভাবে জানিয়েছে রেল কর্তৃপক্ষ। এই ঘটনায় ভদ্রক-কপিলাস রোড রেলওয়ে সেকশনে অবস্থিত কোরেই স্টেশনের এই দুর্ঘটনার জেরে রেল চলাচল ব্যাহত হয়েছে।

আশংকা করা হচ্ছে আরো অনেক লোক আটকা পড়ে থাকা ওয়াগন ও ধ্বংসাবশেষের নিচে পড়ে থাকতে পারে। নিহত ও আহতদের পরিচয় এখনো নিশ্চিত হওয়া যায়নি। যদিও ইসিওআর  মৃত্যুর বিষয়টি নিশ্চিত করেছে, তবে হতাহতের সংখ্যা বাড়তে পারে।

খবর পেয়েই পুলিশ, আরপিএফ এবং দমকল কর্মীরা ঘটনাস্থলে পৌঁছে উদ্ধার অভিযান শুরু করে। আহতদের জাজপুর কমিউনিটি হেলথ সেন্টারে (সিএইচসি) ভর্তি করা হয়েছে। বেশ কয়েকটি 108 অ্যাম্বুলেন্স পরিষেবাতে চাপিয়ে দেওয়া হয়েছে।

ইসিওআর জানিয়েছে যে দুর্ঘটনার কারণে স্টেশন ভবনটিও ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে।

ডিআরএম খোর্ধা রোড সহ অন্যান্য শাখার কর্মকর্তারাও দুর্ঘটনাস্থলে ছুটে গেছেন উদ্ধার ও পুনরুদ্ধারের কাজ দেখতে।

ইতিমধ্যে, ইস্ট কোস্ট রেলওয়ে হেল্পলাইন নম্বর জারি করেছে এবং ট্রেন দুর্ঘটনার পরে একটি হেল্পডেস্ক স্থাপন করেছে। কোরেই এবং ভুবনেশ্বর স্টেশনগুলির হেল্পলাইন নম্বরগুলি হল যথাক্রমে 8455889905 এবং 06742534027৷

এক নজরে

যাত্রীরা প্ল্যাটফর্মে এবং ওয়েটিং হলে তাদের গন্তব্যে ট্রেন ধরার জন্য অপেক্ষা করছিলেন। কিছু বুঝে ওঠার আগেই পণ্যবাহী ট্রেনটি হঠাৎ ওয়েটিং হলের মধ্যে ঢুকে পড়ে। তখন প্রায় 6.44 টা। হল ছিঁড়ে যাওয়ার পর ফুট ওভার ব্রিজের সঙ্গে ধাক্কা লেগে তিন থেকে চারটি ওয়াগন থেমে যায়।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানিয়েছেন, প্রচণ্ড গতিতে চলমান ট্রেনটি স্টেশনের পাশ দিয়ে যাওয়ার সময় ভারসাম্য হারিয়ে মর্মান্তিক দুর্ঘটনাটি ঘটায়।

দুর্ঘটনা সম্পর্কে অবহিত, সিনিয়র পিআরও, ইসিওআর, নিরাকার দাস বলেন, দুর্ঘটনার কারণ সম্পর্কে কিছু বলা খুব তাড়াতাড়ি সম্ভব নয় । “একটি স্টেশন অতিক্রম করার সময় একটি পণ্য ট্রেনের গতি কমাতে হয়। এই ক্ষেত্রে, ট্রেনটি প্রচণ্ড গতিতে চলতে পারে। আমাদের তদন্ত দল জানতে পারবে ট্রেনটি প্রচণ্ড গতিতে চলছিল কিনা। মোট 54টি বগি ছিল এবং আটটি বগি প্ল্যাটফর্মে  উঠে পড়েছে।

এদিকে, রেলমন্ত্রী অশ্বিনী বৈষ্ণব ট্রেন দুর্ঘটনায় নিহতদের স্বজনদের জন্য 5 লক্ষ টাকা এক্স-গ্রেশিয়া ত্রাণ ঘোষণা করেছেন। মন্ত্রী গুরুতর আহতদের জন্য 1 লাখ টাকাএবং যারা সামান্য আহত হয়েছেন তাদের জন্য 25,000 টাকা  ঘোষণা করেছেন।

কোরেই স্টেশনে ট্রেন দুর্ঘটনায় শোক প্রকাশ করেছেন মুখ্যমন্ত্রী নবীন পট্টনায়েক। তিনি নিহতদের নিকটাত্মীয়দের প্রত্যেককে ২ লাখ টাকা এক্স-গ্রেশিয়া ঘোষণা করেছেন।

 

 

Share on whatsapp
Share on facebook
Share on twitter
Share on email
Share on telegram
Share on linkedin