ভোটে প্রতীক ছাপ দেওয়া পোশাকের চাহিদা তুঙ্গে ! ভিড় উপচে পড়ছে কলকাতার বিভিন্ন বাজারে

news bazar24 : প্রতীক ছাপ দেওয়া পোশাকের চাহিদা তুঙ্গে। বড় বড় নেতানেত্রী থেকে শুরু করে কর্মী, সমর্থক এমনকি সাধারণ মানুষের মধ্যেও রাজনৈতিক দলের প্রতীক দেওয়া শাড়ি, দোপা্টা, টিশার্ট, কুর্তির রমরমা।

বড়বাজার, নিউ মার্কেট থেকে শুরু করে এলাকার ছোট-বড় বুটিকগুলিতেও এখন ভোটের অর্ভারি পোশাকের চাহিদা।

ভোটের এই ভরা বাজারে কোন্‌ দলের কী চাহিদা জানতে বড়বাজারের দোকানগুলোয় খোঁজ নেওয়া হয়েছিলো । সকাল থেকেই দোকানে বেশ ভিড়। চারদিকে ছড়িয়ে-ছিটিয়ে জড়ো করে রাখা আছে বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের প্রতীক দেওয়া পেন, টুপি থেকে শুরু করে শাড়ি,টি-শার্ট।

সকলেই ব্যস্ত। কেউ অর্ডার দিতে এসেছেন ঘাসফুলের জনপ্রিয় দুই স্লোগান লেখা শাড়ি, দোপাট্টার। কেউ এসেছেন টি-শার্টে পদ্মফুল, শাড়িতেও পদ্ম চেয়ে। কারও আবার চাহিদা সাদা টি-শার্টে লাল রঙের কাস্তে-হাতুড়ি কিংবা লাল টি-শার্টে সাদা কাস্তে_হাতুড়ি। সপ্তাহখানেকের মধ্যেই অর্ডারের জিনিস দেওয়ারদাবি রাজনৈতিক দলের প্রতিনিধিদের ।

চীনাবাজার এলাকায় পরপর কয়েকটি দোকানে প্রায় একই রকমের সম্ভার চোখে পড়ল। এবারের ভোটের চাহিদা নিয়ে এ কে পাল আ্যান্ড কোম্পানির কুণাল আগরওয়ালের সঙ্গে কথা হচ্ছিল। কুণাল জানালেন, ২৫ বছরের পুরনো দোকান। অনেক ভোট দেখেছি। এখন ভোটে পোশাকের নানারকম ফ্যাশন এসেছে।

সবাই মোটামুটি নতুনত্ব আনার চেষ্টা করছেন। এখানে পোশাকের ক্ষেত্রে দু’ধরনের জিনিস রয়েছে। টি-শার্ট দু’ধরনের। শাড়িও দু’ধরনের রাখা হয়েছে  সুতি এবং পলিয়েস্টার। সুতির শাড়ি ১৩০ টাকা থেকে শুরু। ১৬০, ১৮০, ১৯০ টাকা পর্যন্ত রয়েছে।

সেটা মেটিরিয়াল এবং কাজের ওপর নির্ভর করে। টি-শার্টের ক্ষেত্রে ২৯ টাকা থেকে শুরু। সুতির টি-শার্ট ৬০ টাকা থেকে শুরু। তার ওপর যেরকম কাজ চাইবেন সেই অনুযায়ী দাম। একটা-দুটো নয়, মোটামুটি বেশি পরিমাণ অর্ডার দেওয়া হয়। আবার এখানকার ডিজাইনের বাইরে নিজেদের স্লোগান লেখা শাড়িও অর্ডার দেন ক্রেতারা। সাধারণত রাজনৈতিক দলের প্রতীক দিয়েই জামাকাপড় বেশি তৈরি করা হয়। স্লোগান বা অন্যরকম কিছু করার ক্ষেত্রে অর্ডারের ভিত্তিতে করা হয়।

বড়বাজারের হোলসেল বিক্রেতা শুধু নয়, হাতিবাগান এবং শ্যামবাজার এলাকায় দু-একটি দোকানে দেদার বিক্রি হচ্ছে সস্তায় পছন্দের দলের প্রতীক দেওয়া শাড়ি।

অনেকে আবার প্রচণ্ড গরমে সুতির কুর্তিতে পছন্দের দলের প্রতীক প্রিন্ট কিংবা স্টিচ  করিয়ে নিচ্ছেন। কিংবা বুটিকে অর্ডার দিয়ে মনের মতো করে ভোটের পোশাক তৈরি করে নিচ্ছেন। হাতিবাগানের এক বিক্রেতার বক্তব্য, দলের প্রতীক দেওয়া শাড়ি, ওড়না যা-ই হোক না কেন, সাদার ওপর চাহিদাটা বেশি। থিম শাড়িতে নিউ মার্কেট  পুরনো বাজারে মনসা শাড়ির দোকান ইতিমধ্যেই নজর কেড়েছে ।  প্রতি ভোটেই মনসা শাড়িতে থাকে চমক। এবারেও দলীয় প্রতীক দিয়ে তৈরি করেছে ভোট-শাড়ি। সুতি ও শিফনের ওপর তৈরি করা হয়েছে শাড়িগুলি।