প্রকাশ্যে অভিনেতা বিধায়ক সোহমের দাদাগিরি,রেস্তোরাঁর মালিককে মারধরের অভিযোগ

Newsbazar24:প্রকাশ্যে বিধায়কের দাদাগিরি। রেস্তোরাঁর মালিককে মার ধরের অভিযোগ অভিনেতা তথা চণ্ডীপুরের তৃণমূল বিধায়ক সোহম চক্রবর্তীর বিরুদ্ধে। ঘটনাকে ঘিরে ব্যাপক সোরগোল। প্রশ্নের মুখে বিধায়কের ভূমিকা। যদিও সংবাদ মাধ্যমের সামনে বিধায়ক তার সাফাই গেয়েছেন। সংবাদ মাধ্যমে তিনি বলেন, ‘ছাদে আমাদের ফেলু-বক্সী’র দ্বিতীয় শেডিউলের শ্যুটিং চলছিল। সেই সময় চিৎকার চেঁচামেচি ঝামেলার আওয়াজ পাই। এরপর উপর থেকে দেখি আমার নিরাপত্তারক্ষী ও পুলিশের সঙ্গে হোটেল স্টাফদের ধাক্কাধাক্কি, বচসা হচ্ছে। আমি অবাক হয়ে যাই যে পুলিশের গায়ে হাত দিচ্ছে এ কী কাণ্ড।’তারপর নিচে গিয়ে কথা বলি। একটা গাড়ি সরানো নিয়ে এত ঝামেলা কেন আমি বুঝে উঠতে পারছিলাম না। তারপর শুনলাম উনি বলছেন আমরা কোনও অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়কে চিনি না। কোনও বিধায়ক বুঝি না। অভিনেতা তথা তৃণমূল বিধায়কের দাবি, ‘আমিও তখনই রেগে গিয়ে দু-একটা কথা বলি। ধাক্কাধাক্কি হয়। হিট অফ দ্য মোমেন্ট আমি চড়-থাপ্পড় মারি। স্বীকার করছি। হয়ত হওয়া উচিৎ ছিল না। হয়ত এটতা মাথা গরম করা উচিৎ হয়নি।’
তবে আহত রেস্তোরাঁ মালিক আলম অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়কে নিয়ে কোনও মন্তব্যের কথা অস্বীকার করেছেন। তিনি জানান, পার্কিংকে নিয়ে সব ঝামেলার সূত্রপাত। বলেন, ‘রেস্তোরাঁ আমার। দু-তিন দিন আগে সোহম এখানে শ্যুট করবে বলে এসেছিল। ম্যানেজার আমাকে বললে, আমি রেস্তোরাঁর মালিক অনুমতি
দিয়েছিলাম। কোনও পয়সা নেব না বলেও জানাই। সেদিন সকালে এসে দেখলাম রেস্তোরাঁর সামনে ওদের গাড়ি ভর্তি। আমি বললাম, আমার একজন গেস্ট আসবে, তাঁর পার্কিংয়ের অন্তত ব্যবস্থা করে দেওয়া হোক। সোহমের যিনি নিরাপত্তারক্ষী তিনি বলেছেন, আমরা পুলিশ। কোনও গাড়ি সরবে না। আমি তাতে বলি, আমার ব্যবসা বন্ধ হয়ে যাবে। একটা গাড়িকে অন্য জায়গায় জায়গা করে দিচ্ছি। কথা বলতে বলতেই ওনার সাথে থাকা লোকজনেরা, আমার স্টাফদের সঙ্গে বচসায় জড়িয়ে পড়েন। আমার স্টাফদের গায়ে হাত তোলে। আমি সঙ্গে সঙ্গে গিয়ে হাত জোড় করে বলি, ঝামেলা কোরো না। মিটিয়ে নাও। লোকাল থানায় ফোন করো। ওদের একজন এসে আমার জামার কলার ধরে বলছে, জানিস সোহম হচ্ছে অভিষেকের বন্ধু। আমি তাতে বলি, অভিষেক না মোদী কার বন্ধু আমার জানার দরকার নেই। সেই সময় সোহম উপর থেকে উঠে এসে আমার কলার ধরে আমায় ঘুষি মারল। তারপর একটা লাথি মারল। এই সমস্ত কিছুর ভিডিয়ো ফুটেজ আছে আমার কাছে।থানায় অভিযোগ জানাতে গেলে শুরুতে সহযোগিতা পাননি বলে অভিযোগ রেস্তোরাঁ মালিক আলমের। তবে, পরে শনিবার দুপুরে অভিযোগ দায়ের করা হয়।
অবশ্য এই ঘটনায় শেষপর্যন্ত ভুল স্বীকার করলেন অভিনেতা তথা চণ্ডীপুরের তৃণমূল বিধায়ক সোহম চক্রবর্তী। ক্ষমা চেয়ে বিধায়কের দাবি, ‘হিট অফ দ্য মোমেন্ট’-এ ঘটনা ঘটিয়ে ফেলেছেন তিনি, যা বাঞ্ছনীয় ছিল না।

এরকম আরো খবর পেতে সাবস্ক্রাইব করুন