পাপুয়া নিউগিনিতে ভূমিধ্বস, ২০০০ এর বেশি জীবন্ত সমাধির আশঙ্কা

Newsbazar24:পাপুয়া নিউগিনিতে আবারও ভূমিধ্বস হতে পারে বলে সতর্ক করেছে দেশটির কর্তৃপক্ষ। এমন অবস্থায় দুর্গম ভূমিধস এলাকার নিকটবর্তী গ্রামগুলোয় বসবাসকারী মানুষগুলোকে নিরাপদ জায়গায় সরিয়ে নেওয়া হচ্ছে। মঙ্গলবার পাপুয়া নিউগিনি সরকার এই উদ্যোগ নিয়েছে।২৪ মে ভোরে পাপুয়া নিউগিনির এনগা প্রদেশের ইয়ামবালি গ্রামের কাছে এই ভূমিধসের ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় মাটি চাপা পড়ে দুই হাজারের মতো মানুষ প্রাণ হারিয়েছেন বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে। রাষ্ট্রসংঘকে এমনটাই জানিয়েছে পাপুয়া নিউ গিনি কতৃপক্ষ। শুক্রবার ভোরে মাউন্ট মুঙ্গালোর একটি খণ্ড ধসে পড়ে, অসংখ্য বাড়িঘর এবং তাদের ভিতরে ঘুমন্ত লোকজনকে চাপা দেয়। রাজধানী পোর্ট মোরেসবির জাতীয় দুর্যোগ কেন্দ্রের তরফে রাষ্ট্রসংঘকে জানানো হয়েছে, ভূমিধসে দুই হাজারের বেশি মানুষ চাপা পড়েছেন। সেখানে বড় ধ্বংসযজ্ঞ হয়েছে বলেও জানিয়েছে পাপুয়া নিউ গিনি।
রাজধানী পোর্ট মোরেসবির জাতীয় দুর্যোগ কেন্দ্র জানিয়েছে, সেখানে যেমন বাড়ি-ঘরে ক্ষতি হয়েছে, ঠিক তেমনই ফলের বাগানেরও ক্ষতি হয়েছে। এই ঘটনা পাপুয়া নিউ গিনির অর্থনীতিতে বড় প্রভাব ফেলেছে বলেও জানিয়েছে মোরেসবির জাতীয় দুর্যোগ কেন্দ্র।
রাষ্ট্রসংঘে পাঠানো চিঠিতে বলা হয়েছে. পোরগেরা মাইনের প্রধান মহাসড়ক সম্পূর্ণ রূপে অবরুদ্ধ হয়ে পড়েছে। সেখানে আরও বলা হয়েছে, পরিস্থিতি এমনটাই ভয়াবহ যে, ভূমিধস ধীরে ধীরে হয়েছে, যার ফলে উদ্ধারকারী দল এবং সেখানে চাপা পড়া মানুষজন উভয়ের ক্ষেত্রেই বিপদ তৈরি করেছে। বেঁচে থাকা মানুষদের কাছে পৌঁছনো চ্যালেঞ্জের হয়ে দাঁড়িয়েছে।
সেখানে অবিলম্বে সেনাবাহিনী, জাতীয় ও অঞ্চলিক সহযোগিতা প্রয়োজন বলেও জানানো হয়েছে। রাষ্ট্রসংঘের কাছে পাঠানো চিঠিতে পাপুয়া নিউ গিনি আন্তর্জাতিক বন্ধুদের কাছেও সহযোগিতার আবেদন জানিয়েছে।

এরকম আরো খবর পেতে সাবস্ক্রাইব করুন