Share on whatsapp
Share on twitter
Share on facebook
Share on email
Share on telegram
Share on linkedin

জাঁকিয়ে শীতের আমেজ নেই ! তাহলে বাংলায় কি মান্দাসের প্রভাব আসতে পারে ?

Share on whatsapp
Share on facebook
Share on twitter
Share on email
Share on telegram
Share on linkedin

news bazar24: কলকাতায় ডিসেম্বরও পারদ সামান্য ঊর্দ্ধমুখী। জাঁকিয়ে শীতের আমেজ নেই বললেই চলে। আলিপুর আবহাওয়া দফতর জানিয়েছে, ভোর এবং সন্ধ্যের দিকে শীতের আমেজ থাকবে রাজ্যে বৃহস্পতিবার পর্যন্ত। তাই কোথাও কোথাও তাপমাত্রা নামতে পারে। শুক্রবার থেকে পারদ ঊর্দ্ধমুখী হয়ে শীতের আমেজ কমার সম্ভাবনা আছে। আপাতত বৃষ্টির কোন সম্ভাবনা নেই, হাওয়া দফতর জানিয়েছে। আরও জানিয়েছে, আজ কলকাতায় শীতের আমেজের সঙ্গে আকাশ থাকবে পরিস্কার আর আবহাওয়াও শুষ্ক। আজকে সকালের সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ১৬.৭ ডিগ্রি সেলসিয়াস। সোমবার সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ছিল ২৭.৬ ডিগ্রি। জলীয় বাষ্পের পরিমাণ বাতাসে ছিল ন্যূনতম ৩৮ শতাংশ এবং সর্বাধিক ৯১ শতাংশ। আবার এই শীতের মধ্যেই তৈরি হচ্ছে ঘূর্ণিঝড় মান্দাস। আন্দামান সাগরের ঘূর্ণাবর্ত বঙ্গোপসাগরে নিম্নচাপে পরিণত হয়েছে, মৌসম ভবন জানিয়েছে। এই নিম্নচাপ আগামী ২৪ থে

কে ৪৮ ঘন্টায় দক্ষিণ-পূর্ব বঙ্গোপসাগরে গভীর নিম্নচাপে পরিণত হবে। উত্তর-পশ্চিম ও পশ্চিম দিকে তারপর এই নিম্নচাপ গিয়ে ঘূর্ণিঝড়ে পরিণত হবে দক্ষিণ-পশ্চিম বঙ্গোপসাগরে। তামিলনাডু পন্ডিচেরি উপকূলে তার অভিমুখ হবে।

তাহলে বাংলায় কি মান্দাসের প্রভাব আসতে পারে ?

আবহাওয়াবিদদের ধারণা, তামিলনাড়ু ও পন্ডিচেরি উপকূলে শুক্রবার এটি সকালে পৌঁছালেও স্থলভাগের কাছে শক্তি হারাতে পারে। আবহাওয়াবিদদের অনুমাণ এর গতিবেগ প্রতি ঘন্টায় সর্বোচ্চ ৯০ থেকে ১০০ কিলোমিটার হতে পারে স্থলভাগের কাছে। যদিও এর পরোক্ষ প্রভাব বাংলায় কিছু পড়বে কি না এখনও তা অজানা৷ তামিলনাডু, পন্ডিচেরি, করাইকাল এবং অন্ধ্রপ্রদেশ উপকূলে ভারী বৃষ্টি, ঝোড়ো হাওয়ার সাথে বুধবার রাত থেকে
এর প্রভাব পড়তে শুরু হবে। আবার, ভারী বৃষ্টির সঙ্গে ৬০ থেকে ৭০ কিলোমিটার গতিবেগে দমকা ঝড়ো হাওয়া বইতে পারে। যা বৃহস্পতিবার আরো বাড়বে। মান্দাস সকালের দিকে স্থলভাগে যদি প্রবেশ করে তাহলে গতিবেগ ৭০ থেকে ৯০ সর্বোচ্চ ১০০ কিলোমিটার পর্যন্ত হতে পারে। এই ঘূর্ণিঝড়ের প্রভাব শনি- রবিবার পর্যন্ত থাকবে।

Share on whatsapp
Share on facebook
Share on twitter
Share on email
Share on telegram
Share on linkedin