Share on whatsapp
Share on twitter
Share on facebook
Share on email
Share on telegram
Share on linkedin

আপনার ব্যঙ্কের টাকা চুরি করে ম্যালওয়্যার ! জেনে নিন ম্যালওয়্যার থেকে সুরক্ষা পদ্ধতি

Share on whatsapp
Share on facebook
Share on twitter
Share on email
Share on telegram
Share on linkedin
Comuter laptop with key in red of ring and gears on binary code background.Vector illustration security technology concept.

 শঙ্কর চক্রবর্তী ( ইলেক্ট্রনিক্স এক্সপার্ট ও সাংবাদিক )ঃ  আজকাল শখে বা বাধ্য হয়েই বিভিন্ন গেজেটের উপর আমরা নির্ভরশীল হয়ে পড়েছি। আর এর ফলে আমরা প্রতিনিয়ত এর ভালো ও খারাপ দুটি প্রভাব অনুভব করছি। তালা ভেঙ্গে চুরির ভয় না পেলেও প্রতিনিয়ত ডাটা ও টাকা পয়সা  সফ্টওয়্যার মারফৎ চুরির ভয় করছি। আমরা ম্যালওয়্যার নামের একটি শব্দ শুনে থাকি, এই ম্যালওয়্যার কে হাতিয়ার করেই হ্যাকাররা আপনার ডিজিটাল তথ্য চুরি করে থাকে। আসুন জেনে নিন বিস্তারিত-

ম্যালওয়্যার (Malware) এক প্রকারের সফ্টওয়্যার প্রোগ্রাম যা আপনার কম্পিউটারের জন্য বিপজ্জনক হতে পারে। এই সফ্টওয়্যারটি  হ্যাকার্সরা  কম্পিউটার থেকে পার্সনাল ডেটা চুরি করার জন্য ডিজাইন করে।

হ্যাকারস এর ভাষাতে ম্যালওয়্যার (Malware) টার্ম কা ইউজ ভাইরাস, স্পাই ওয়্যার এবং ওয়ার্ম ইত্যাদি ব্যবহার করা হয়।

ম্যালওয়্যার আপনার ব্যক্তিগত ফাইল পৌঁছে দিতে তাদের অন্য কোনো ডিভাইসে ট্রান্সফার করতে পারে। এটি অবশ্যই আপনার পরামর্শ, ছবি, ভিডিও, ব্যাংক বা আপনার অ্যাকাউন্ট থেকে তথ্য চুরা করতে পারেন।

(Malware) ম্যালওয়্যার অ্যাটাক কি কারণে হয়ে থাকে– ?

কম্পিউটারে ম্যালওয়্যার অ্যাট্যাক অনেক ভাবে করানো হয় । এটি সবচেয়ে বেশি করা হয় ইন্টারনেট থেকে ডাউনলোডিং করার সময় . আপনি যতি বেশি ডাউনলোড করবেন তত বেশি ম্যালওয়্যার ব্যবহার করতে পারবেন।

আমরা যখন ইন্টারনেট থেকে বিভিন্ন  কন্টেন্ট, পিকচার, ভিডিও বা গান ইত্যাদি ডাউন লোড দিয়ে থাকি  তখন  জরিয়্যাল ম্যাল ভাইরাস সহজে আমাদের সিস্টেমে চলে আসে।

অনেক বার কম্পিউটারে লাগিয়ে রাখা  রিমুবেল ডিভাইসটিও ম্যালওয়্যারের কারণ হয়ে দাঁড়ায়।

ম্যালওয়্যার থেকে সুরক্ষা পদ্ধতি

যে কোন  গান,সিনেমা বা পিকচার ইত্যাদি ডাউনলোড করুন শুধুমাত্র বিশ্বস্ত ওয়েবসাইট থেকে। এটার জন্য আপনাকে কিছু অর্থ দিতে হবে কিন্তু এটি আপনার সিস্টেমের জন্য ভালো হবে।

-যদি সিস্টেমে অ্যান্টি ম্যালওয়্যার বা অ্যান্টিভাইরাস না থাকে তবে  তা করে ফেলুন।

-নিজের সিস্টেমের অ্যান্টিভাইরাসকে সময়-সমায় আপডেট রাখুন।  এর ফলে জানতে পারবেন যে  যে অ্যান্টিভাইরাস ঠিক মত কাজ করছে কিনা ?

-নিজের গুরুত্বপূর্ণ ডেটার পাসওয়ার্ড  নিরাপদ রাখুন, এর ফলে হ্যাক করা সহজ হবে না। আপনি যে পাসওয়ার্ড আপনি সেট করেছেন, তার মধ্যে অঙ্ক এবং অক্ষর উভইয়ের  ব্যবহার রাখুন।

– নিজের পিসিতে ফায়ারওল স্থাপন করুন। ফায়ারওয়াল কম্পিউটার এবং ইন্টারনেটের মধ্যবর্তী নিরাপত্তা দেওয়ালের মত কাজ করে। এটা সবসময় অন রাখুন।

Share on whatsapp
Share on facebook
Share on twitter
Share on email
Share on telegram
Share on linkedin

Latest News