সাপ�লিমেন�ট


  • জানেন কি টমেটোর চাষ পদ্ধতি ও বাজারে এর চাহিদা ? জেনে নিন

    newsbazar24: টমেটো একটি ফল হলেও সব্জি হিসেবেই সারাবিশ্বে এটি বেশি পরিচিত।এর ইংরেজি নাম Tomato ও বৈজ্ঞানিক নাম Solanum lycopersicum. সব্জি এবং সালাদ হিসেবে ব্যাবহার করা টমেটোকে।চাষীরা দেশের বাজারে টমেটোর চাহিদা মিটিয়ে বাহিরে রপ্তানি করেও অনেক অর্থ উপার্জন করছে। টমেটোর পুষ্টিগুণ টমেটোতে আমিষ, ক্যালসিয়াম, ভিটামিন ‘এ’ ও ভিটামিন ‘সি’ আছে। তাছাড়া, লাইকোপেন নামে টমেটোতে বিশেষ এক ধরণের উপাদান রয়েছে যা পাকস্থলী, ফুসফুস, অগ্ন্যাশয়, কোলন, স্তন, প্রোস্টেট, মূত্রাশয় ইত্যাদি অঙ্গের ক্যান্সার প্রতিরোধে সাহায্য করে থাকে। টমেটোর চাষ পদ্ধতি শীতকালীন সবজি এবং ফসল হলেও এর কয়েকটি জাত গ্রীষ্ম ও বর্ষাকালে চাষ করা যায়। তবে আমাদের দেশের প্রায় সব অঞ্চলেই শীতকালীন টমেটো চাষ করা হয়ে থাকে। আমাদের দেশের অনেক স্থানে এখন ব্যবসায়িক ভিত্তিতে টমেটো চাষ ও বাজারজাত করা হয়। টমেটোর বীজ সংগ্রহ টমেটোর বীজ সংগ্রহের জন্য প্রথমত পাকা ও পুষ্ট টমেটো সংগ্রহ করতে হবে। তারপর বালতি বা গামলাতে ২-৩ দিন রেখে দিতে হবে। বীজ মাঝে মাঝে নাড়াচাড়া করতে হবে যাতে বীজগুলো ফলের আঠালো অংশ থেকে আলাদা হয়ে যায়। তারপর চালনির সাহায্যে বীজ আলাদা করে ধুয়ে শুকিয়ে নিতে হবে। জমি তৈরি ১. টমেটো গ্রীষ্মকালে চাষের জন্য ২০-২৫ সে.মি. উঁচু ও ২৩০ সে.মি. চওড়া বেড তৈরি করে নিতে হবে। ২. টমেটো চাষের জন্য জমি ৪-৫ বার চাষ দিয়ে মাটি ঝরঝরে করে নিতে হবে। ৩. সেচের সুবিধার জন্য দু’টি বেডের মাঝে ৩০ সে.মি. নালা রাখলে ভাল। টমেটোর বীজ বপন ও চারা রোপণ পদ্ধতি ১. প্রত্যেকটি বেডে দুই সারি করে চারা রোপণ করতে হবে। এক সারি থেকে অন্য সারির দূরত্ব ৬০ সে.মি. রাখতে হবে। ২. টমেটোর বীজ বপনের ৩০-৩৫ দিন পর চারা রোপণের উপযোগী হয়। ৩. প্রতি সারিতে চারার দূরত্ব ৪০ সে.মি. রেখে ৩০-৩৫ দিন বয়সের চারা রোপণ করতে হবে। সার প্রয়োগ পদ্ধতি টমেটোর মাটি পরীক্ষা করে মাটির ধরণ অনুযায়ী সার প্রয়োগ করতে হবে। তবে জৈব সার ব্যবহার করলে মাটির গুণাগুণ ভালো থাকে। গবাদি পশুর থেকে প্রাপ্ত গোবর ও বিভিন্ন পঁচা আবর্জনা সার হিসেবে ব্যবহার করা যেতে পারে। টমেটোর চাহিদা ও বাজার সম্ভাবনা  আমাদের দেশে টমেটোর ব্যাপক চাহিদা রয়েছে।টমেটো চাষ করে পরিবারের পুষ্টির চাহিদা পূরণের পাশাপাশি বাড়তি আয় করা সম্ভব। এছাড়া দেশের চাহিদা মেটানোর পর অতিরিক্ত উৎপাদন বিদেশে রপ্তানি করা সম্ভব। এক্ষেত্রে বিভিন্ন রপ্তানিকারক প্রতিষ্ঠান সহায়তা দিয়ে থাকে।

  • জেনে নিন মাছ চাষের আধুনিক কৌশল

    newsbazar24: মাছ হচ্ছে প্রাণিজ আমিষের অন্যতম উৎস। কর্মসংস্থান, বৈদেশিক মুদ্রা উপার্জন এবং পুষ্টি সরবরাহে মৎস্য সম্পদের বিশেষ ভূমিকা রয়েছে। মাছ চাষের বিভিন্ন পদ্ধতি আছে, যেমন- একই পুকুরে নানা জাতের মাছ চাষ করা যায়, খাল ও ডোবায় মাছ চাষ করা যায়, আবার চৌবাচ্চায়ও মাছের চাষ করা যায়। সাধারণত মাছের জন্য পুকুরে খাবার উৎপাদনই হচ্ছে মাছ চাষ। এটি কৃষির মতোই একটি চাষাবাদ পদ্ধতি। আবার কোনো নির্দিষ্ট জলাশয়ে/জলসীমায় পরিকল্পিত উপায়ে স্বল্প পুঁজি, অল্প সময় ও লাগসই প্রযুক্তির মাধ্যমে মাছের উৎপাদনকে মাছ চাষ বলে। মূলত বিভিন্ন নিয়ম মেনে প্রাকৃতিক উৎপাদনের চেয়ে অধিক মাছ উৎপাদনই মাছ চাষ।এসব মাছ খুব দ্রুত বাড়ে; খাদ্য ও জায়গার জন্য একে অন্যের সঙ্গে প্রতিযোগিতা করে না; পুকুরে বেশি সংখ্যায় চাষ করা যায়; জলের সব স্তর থেকে খাবার গ্রহণ করে, তাই পুকুরের পরিবেশ ভালো থাকে; এসব মাছ খেতে খুব সুস্বাদু; বাজারে এসব মাছের প্রচুর চাহিদা আছে; সহজে রোগাক্রান্ত হয় না। বাণিজ্যিকভাবে মাছ চাষের জন্য পুকুরকে প্রস্তুত করে নেওয়া ভালো। কারণ একটি পুকুর মাছ চাষের উপযুক্ত না হলে এবং পুকুর প্রস্তুত না করে চাষ শুরু করে দিলে বিনিয়োগ ব্যাপক ঝুঁকির মধ্যে পড়বে। ঝুঁকি এড়াতে এবং লভ্যাংশ নিশ্চিত করতেই বৈজ্ঞানিক কৌশল অনুসরণ করে পুকুর প্রস্তুত করতে হবে।   মাছ চাষের জন্য পুকুর প্রস্তুতি ১. পুকুরের পাড় ও তলা মেরামত করা; ২. পাড়ের ঝোপ জঙ্গল পরিষ্কার করা; ৩. জলজ আগাছা পরিষ্কার করা; ৪. রাক্ষুসে ও অবাঞ্ছিত মাছ দূর করা; ১. পুকুর শুকানো; ২. বার বার জাল টানা; ৩. ওষুধ প্রয়োগ- রোটেনন। পরিমাণ ২৫-৩০ গ্রাম/শতাংশ/ফুট। এর বিষক্রিয়ার মেয়াদ ৭-১০ দিন। প্রয়োগের সময় রোদ্রজ্জ্বল দিনে। ২. ফসটক্সিন/কুইফস/সেলফস ৩ গ্রাম/শতাংশ/ ফুট। মেয়াদ এবং সময় পূর্বের মতো; ৫. চুন প্রয়োগ: কারণ/কাজ/উপকারিতা সাধারণত ১ কেজি চুন/শতাংশ প্রয়োগ করতে যদি ঢ়ঐ এর মান ৭ এর আশেপাশে থাকে। বছরে সাধারণত ২ বার চুন প্রয়োগ করতে হয়। একবার পুকুর তৈরির সময়, দ্বিতীয় বার শীতের শুরুতে কার্র্তিক অগ্রহায়ণ মাসে।   চুন প্রয়োগের উপকারিতা ও সাবধানতা ১. জল পরিষ্কার করা/ঘোলাটে ভাব দূর করা; pH নিয়ন্ত্রণ করে; রোগ জীবাণু ধ্বংস করে; মাছের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায়; বিষাক্ত গ্যাস দূর করে; শ্যাওলা নিয়ন্ত্রণ করে। চুন কখনও প্লাস্টিকের কিছুতে গোলানো যাবে না; পুকুরে মাছ থাকা অবস্থায় চুন গোলানোর ২ দিন পর পুকুরে দিতে হয়; গোলানোর সময় এবং দেয়ার সময় খেয়াল রাখতে হবে যেন নাকে মুখে ঢুকে না যায়; পানি নাড়া চাড়া করে দিতে হবে; সার প্রয়োগ : সার প্রয়োগ প্রাকৃতিক খাদ্য উৎপাদন বৃদ্ধিতে সহায়ক; জৈব সার/প্রাকৃতিক যা কিনা প্রাণীকণা তৈরি করে। গোবর, হাঁস-মুরগির বিষ্ঠা, কম্পোস্ট; অজৈব বা রাসায়নিক বা কৃত্রিম সার ইউরিয়া, টিএসপি, এমওপি যা উদ্ভিদ কণা তৈরি করে।   নতুন পুকুরের ক্ষেত্রে সার প্রয়োগ মাত্রা ১. প্রতি শতাংশে গোবর ৫-৭ কেজি অথবা ২. হাঁস মুরগির বিষ্ঠা ৫-৬ কেজি অথবা ৩. কম্পোস্ট ১০-১২ কেজি এবং ইউরিয়া ১০০-১৫০ গ্রাম টিএসপি ৫০-৭৫ গ্রাম।   পুকুর প্রস্তুতির আনুমানিক মোট সময় * পাড় ও তলা+ঝোপ জঙ্গল পরিষ্কার = ২ দিন; ক্স রাক্ষুসে মাছ পরিষ্কার = ৩ দিন (৭-১০ দিন পর্যন্ত বিষক্রিয়া থাকে)। * চুন প্রয়োগ = ৩-৫ দিন; * সার প্রয়োগ = ৭ দিন; এরপর পোনা ছাড়া হবে। গড়ে মোট ১৭ দিন (২+৩+৫+৭)। পুকুরে চাষযোগ্য মাছের বৈশিষ্ট্য- দ্রুতবর্ধনশীল; রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বেশি; বাজার চাহিদা বেশি।   পুকুর নির্বাচন  ১. পুকুরটি খোলামেলা জায়গায় এবং বাড়ির আশপাশে হতে হবে। ২. মাটির গুণাগুণ পুকুরের জন্য খুব গুরুত্বপূর্ণ। সাধারণত দো-আঁশ, এঁটেল দো-আঁশ ও এঁটেল মাটি পুকুরের জন্য ভালো। ৩. পুকুরের আয়তন কমপক্ষে ১০ শতাংশ হতে হবে। ৩০ শতাংশ থেকে ১ একর আকারের পুকুর মাছ চাষের জন্য বেশি উপযোগী। ৪. পুকুরের গভীরতা ২-৩ মিটার রাখতে হবে। ৫. পুকুর পাড়ে বড় গাছ বা ঝোপ-ঝাড় থাকা যাবে না।   পুকুর প্রস্তুত পোনা মাছ ছাড়ার আগে পুকুর তৈরি করে নিতে হবে। সাধারণত পুরনো পুকুরই তৈরি করে নেয়া হয়। পুকুর প্রস্তুতির কাজটি পর্যায়ক্রমে করতে হবে: ১ম ধাপ : জলজ আগাছা-কচুরিপানা, কলমিলতা, হেলেঞ্চা শেকড়সহ তুলে ফেলতে হবে; ২য় ধাপ : শোল, গজার, বোয়াল, টাকি রাক্ষুসে মাছ এবং অবাঞ্ছিত মাছ মলা, ঢেলা, চান্দা, পুঁটি সম্পূর্ণভাবে সরিয়ে ফেলতে হবে; ৩য় ধাপ : এরপর প্রতি শতকে ১ কেজি হারে চুন পুকুরে ছিটিয়ে দিতে হবে। পুকুরে জল থাকলে ড্রামে বা বালতিতে গুলে ঠান্ডা করে পুরো পুকুরে ছিটিয়ে দিতে হবে; ৪র্থ ধাপ : মাটি ও জলের গুণাগুণ বিবেচনায় রেখে চুন দেয়ার এক সপ্তাহ পর জৈবসার দিতে হবে; ৫ম ধাপ : পুকুর শুকনা হলে পুকুরে সার, চুন, গোবর সব ছিটিয়ে দিয়ে লাঙল দিয়ে চাষ করে জল ঢুকাতে হবে; ৬ষ্ঠ ধাপ : পোনা মজুদের আগে পুকুরে ক্ষতিকর পোকামাকড় থাকলে তা মেরে ফেলতে হবে; ৭ম ধাপ : পুকুরে পর্যাপ্ত প্রাকৃতিক খাদ্য জন্মালে পোনা মজুদ করতে হবে। মৃত্যুর হার যেন কম থাকে সেজন্য পোনার আকার ৮-১২ সেন্টিমিটার হতে হবে।  ৮ম ধাপ : এর পর নিয়মমতো পুকুরে পোনা ছাড়তে হবে। এক্ষেত্রে লক্ষ্য রাখতে হবে, যেমন  ১. পোনা হাড়িতে বা পলিথিন ব্যাগে আনা হলে, পলিথিন ব্যাগটির মুখ খোলার আগে পুকুরের জলে ২০-৩০ মিনিট ভিজিয়ে রাখতে হবে; ২. তারপর ব্যাগের মুখ খুলে অল্প করে ব্যাগের জল পুকুরে এবং পুকুরের জল ব্যাগে ভরতে হবে। ৩. ব্যাগের জল ও পুকুরের জলএর তাপমাত্রা যখন সমান হবে তখন পাত্র বা ব্যাগের মুখ আধা জলে ডুবিয়ে কাত করে সব পোনা পুকুরে ছেড়ে দিতে হবে। সকাল ও বিকালই পোনা ছাড়ার ভালো সময়।  ৯ম ধাপ : দিনে দুইবার অর্থাৎ সকাল ১০টায় এবং বিকাল ৩টায় খৈল, কুঁড়া, ভুসি ইত্যাদি সম্পূরক খাদ্য সরবরাহ করতে হবে।   সতর্কতা : ১. রোগ প্রতিরোধী মাছের চাষ করতে হবে। ২. সঠিক সংখ্যায় পোনা মজুদ করতে হবে। ৩. পোনা ছাড়ার আগে পোনা রোগে আক্রান্ত কিনা তা নিশ্চিত করতে হবে। ৪. পুকুরে পর্যাপ্ত সূর্যের আলোর ব্যবস্থা করতে হবে এবং পুকুরে যাতে আগাছা না থাকে সেদিকে খেয়াল রাখতে হবে। ৫. প্রতি ৩-৪ বছর পরপর পুকুর শুকিয়ে ফেলতে হবে।   বাণিজ্যিকভাবে চাষযোগ্য মাছ দেশি কার্প- রুই, কাতলা, মৃগেল, কালি বাউশ; বিদেশি কার্প- গ্রাস কার্প, সিল্ভার কার্প, কার্পিও, মিরর কার্প, বিগহেড কার্প ছাড়াও পাঙ্গাশ, তেলাপিয়া, সরপুঁটি/রাজপুঁটি, কৈ, চিংড়ি এসব। বিভিন্ন স্তরের মাছ একসাথে চাষের আনুপাতিক হার উপরের স্তর ৪০%; মধ্য স্তর ২৫%; নিম্ন স্তর ২৫%; সর্বস্তর ১০% মোট ১০০%। সাধারণত শতাংশ প্রতি ১৫০টি পোনা ছাড়া যায়। এ হিসাবে ৩০ শতাংশের একটি পুকুরে মোট ৪৫০০টি পোনা ছাড়া যাবে। এবং উপরের স্তরের মাছ থাকবে {(৪০x৪৫০০)/১০০}=১৮০০টি পোনা   পুকুরে মাছ চাষ ১. সনাতন পদ্ধতির মাছ চাষ : এ পদ্ধতিতে পুকুরের কোনো ব্যবস্থাপনা ছাড়াই মাটি ও পানির উর্বরতায় পানিতে যে প্রাকৃতিক খাদ্য তৈরি হয় মাছ তাই খেয়ে জীবন ধারণ করে। এক্ষেত্রে আলাদা কোনো পরিচর্যা নিতে হয় না।  ২. আধা-নিবিড় পদ্ধতির মাছ চাষ : এ পদ্ধতিতে নিয়মমতো পুকুর প্রস্তুত করে আংশিক সার ও খাদ্য সরবরাহ করে মাছের খাদ্য উৎপন্ন করতে হয়। পুকুরের বিভিন্ন স্তরে উৎপাদিত খাদ্যের সঠিক ব্যবহারের দিকে লক্ষ্য রেখে মাছের পোনা ছাড়তে হয়।  ৩. নিবিড় পদ্ধতির মাছ চাষ : অল্প জায়গায়, অল্প সময়ে বেশি উৎপাদনের জন্য সার ব্যবহার করে পুকুরে প্রাকৃতিক খাদ্যের উৎপাদন বাড়াতে হয়।  ৪. কার্প জাতীয় মাছের মিশ্র চাষ : পুকুরের বিভিন্ন স্তরে উৎপন্ন খাবার সম্পূর্ণ ব্যবহার করার জন্য রুই, কাতলা, মৃগেল, কালিবাউস, বিগহেড, সিলভারকার্প, কমনকার্পসহ প্রজাতির মাছ একত্রে চাষ করা যায়।   মাছের প্রক্রিয়াজাতকরণ ১. মাছ প্রক্রিয়াজাতের সময় হাত দিয়ে বেশি ঘাঁটাঘাঁটি করা যাবে না; মাছ ধরার পর মাছের আকৃতি অনুযায়ী আলাদা করে ফেলতে হবে; বাক্সে বা পাত্রে বরফ দিয়ে স্তরে স্তরে মাছ সাজাতে হবে।   পরিচর্যা ১. বর্ষার শেষে পুকুরের জলে লাল বা সবুজ সর পরলে তা তুলে ফেলতে হবে; জলের সবুজভাব কমে গেলে অবশ্যই পরিমাণমতো সার দিতে হবে; মাঝে মাঝে জাল টেনে মাছের অবস্থা দেখতে হবে; পুকুরে জাল টেনে মাছের ব্যায়াম করাতে হবে।

  • জানলে অবাক হবেন, কম খরচায় ঘোরা যাই এই পাঁচটি দেশ

    newsbazar24:  ইন্দোনেশিয়া ইন্দোনেশিয়া বললেই চোখের সামনে বালি দ্বীপের জাঁকজমক নাইট ক্লাবের কথা মনে আসে। সমুদ্রসৈকতে সময় কাটানোর জন্য অস্ট্রেলিয়া বা ইউরোপের দেশগুলো থেকে আসা পর্যটকদের পছন্দের স্থান হচ্ছে বালি। তবে এর বাইরেও ঘোরার অনেক জায়গা রয়েছে ইন্দোনেশিয়ায়। যেমন উবুদ। দ্বীপরাষ্ট্র ইন্দোনেশিয়ার এটিও একটি দ্বীপ। উবুদে থাকার জন্য মন্দিরের মতো ছোট ঘর ভাড়া পাওয়া যায় ১০ ডলারে। ইন্দোনেশিয়ার খাবারও বেশ সুস্বাদু। এক ডলারে খুব আরাম করে খাওয়া যাবে উবুদে। এ ছাড়া গিলি দ্বীপের লোম্বোকে রাত্রিকালীন বাজারে এক প্লেট সানি গোরেং (সবজি-ভাত, ডিম এবং মুরগি দিয়ে তৈরি খাবার) খেতে পারবেন মাত্র দুই ডলারে। আর যদি ইন্দোনেশিয়ান খাবার ভালো না লাগে তাহলে পশ্চিমা খাবারও পেয়ে যাবেন ছয় থেকে ১০ ডলারের মধ্যে। থাইল্যান্ড থাইল্যান্ড শুনেই আঁতকে উঠছেন! যতই জাঁকজমক বা দামি সৈকত থাকুক, সস্তায় থাইল্যান্ড ঘোরার ব্যবস্থাও রয়েছে। তবে এর জন্য আপনাকে যেতে হবে থাইল্যান্ডের উত্তরাঞ্চলে। রাজধানী ব্যাংকক থেকে রাতের ট্রেন ধরে চলে যান উত্তরের চিয়া মাইতে। সেখানে পা রাখলেই বুঝবেন এখনো কম পয়সায় থাইল্যান্ডে আরাম করে থাকা এবং ঘোরা যায়। উত্তরের বেশকিছু শহরে তিন ডলারে রাতে থাকার জন্য হোটেলে বিছানা পাবেন আর রুম পেতে হলে গুনতে হবে ছয় ডলার। তবে সস্তা দেখে ভাববেন না যে কোনোমতে থাকার ব্যবস্থা, বেশ গোছানো এবং পরিপাটি এসব হোটেল। বিলাসিতা নেই কিন্তু প্রয়োজনীয় সবকিছুই পাবেন। থাইল্যান্ডের মুদ্রায় ৩০ বাথে (এক ডলার) রেস্টুরেন্টে বসে থাই খাবার খেতে পারবেন পেট পুরে। নিকারাগুয়া একসময় রাজনৈতিক অস্থিরতা এবং গৃহযুদ্ধের কারণে নিকারাগুয়া ছিল অশান্ত এক দেশ। কিন্তু ধীরে ধীরে পরিস্থিতির উন্নতি ঘটেছে। এখন পর্যটকদের জন্য অন্যতম আকর্ষণীয় এক জায়গা নিকারাগুয়া। মধ্য আমেরিকার অন্যতম সুন্দর দেশ নিকারাগুয়া যেটি খুব অল্প পয়সায় ঘুরে দেখা যায়। তবে নিকারাগুয়ার পাশের দেশ কোস্টারিকায় ঘুরতে গেলেই বাড়তি পয়সা গুনতে হবে। দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার মতোই সস্তায় থাকা-খাওয়ার ব্যবস্থা রয়েছে কোস্টারিকায়। স্যান হুয়ান দেল সুর শহরে পাঁচ ডলারে হোটেলে থাকার জন্য বিছানা পেয়ে যাবেন আর ১০ ডলারে বাথসহ রুম পেয়ে যাবেন। তবে খেয়াল রাখবেন যদি পশ্চিমা কোনো প্রতিষ্ঠানের মালিকানাধীন হোটেলে ওঠেন, তাহলে এর চেয়ে দ্বিগুণ দাম শোধ করতে হবে। চেষ্টা করবেন নিকারাগুয়ার স্থানীয়দের দ্বারা পরিচালিত হোটেলগুলোতে ওঠার। নিকারাগুয়ার স্থানীয় খাবারের মধ্যে প্রচলিত হচ্ছে মটরশুটি ও চাল। এই খাবারটির মধ্যে তেমন কোনো বৈচিত্র্য নেই। সকালের নাশতার জন্য এক ডলার আর রাতের খাবারে চার থেকে পাঁচ ডলার খরচ হয়ে যাবে। তবে সি ফুডের বেশকিছু আইটেম রয়েছে। বলিভিয়া লাতিন আমেরিকার দেশ বলিভিয়া। সময়ের সাথে তাল রেখে ধীরে ধীরে উন্নতি করছে দেশটি। কিন্তু এখনো বেশ সস্তায় সেখানে ঘোরার ব্যবস্থা রয়েছে। পাঁচ-ছয় ডলারের মধ্যে এখানে থাকার জন্য বিছানা পাওয়া যাবে। ১০ ডলারে থাকার রুম পাওয়া যাবে। বলিভিয়ার পাশে পেরুও ঘোরার জন্য ভালো জায়গা। তবে এখনো লাতিন আমেরিকার অন্য দেশগুলোর তুলনায় বলিভিয়া অনেক সস্তা। কম্বোডিয়া দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়া সস্তায় ঘোরাঘুরির জন্য ভালো জায়গা। কম্বোডিয়ায় ঘুরতে গেলে সেটা ভালোমতোই বুঝতে পারবেন। এখনো কম্বোডিয়ার রাস্তা পুরোনো সস্তা বাস এবং মিনিভ্যান চলে অভ্যন্তরীণ রুটগুলোতে। দেশটির রাজধানী নম পেন অথবা সিয়াম রিয়েপ শহরে তিন থেকে পাঁচ ডলারের মধ্যে ভালো হোটেলে থাকার জন্য বিছানার ব্যবস্থা হয়ে যাবে। তবে রুম পেতে চাইলে ১০ ডলার খরচ করতে হবে। থাইল্যান্ড বা ভিয়েতনামের মতো তেমন সুস্বাদু নয় কম্বোডিয়ার খাবার। রাজধানী ফুনম পেনের স্ট্রিট ফুড খেয়ে আরাম পাবেন, বিশেষ করে রাত্রিকালীন বাজারগুলোতে। থাকা-খাওয়ার ব্যবস্থা তো হলো, ঘোরার জন্য যেতে পারেন আংকর ওয়াতে, সেখানে প্রচুর মন্দির পাবেন দেখার মতো। বেশ আগেকার তৈরি এসব মন্দির। আর যদি সমুদ্রের কাছাকাছি থাকতে চান, তাহলে সিহানুক্সভিল বা কো রং দ্বীপে যেতে পারেন।

  • আপনার আজকের দিন কেমন কাটবে ? জানুন আজকের রাশিফল (শুক্রবার ২৪ মে ২০১৯)

    newsbazar24:  মেষ  মাতৃকুলের সম্পত্তি পাওয়ার একটা ভাল সুযোগ আসতে পারে। প্রিয় জনের চিকিৎসার কাজে অর্থ ব্যয়। আজ পরিবারে আর্থিক অনটন দেখা দিতে পারে। উচ্চ বিদ্যার্থীদের সামনে বিশেষ সুযোগ আসতে চলেছে। আজ অকারণে মনে ভয় সৃষ্টি হতে পারে। রাস্তায় চলার সময় বাড়তি সতর্কতা প্রয়োজন। মনোরম জায়গায় বেড়াতে যাওয়ার পরিকল্পনা হতে পারে। স্ত্রীর সঙ্গে মনোমালিন্য কেটে যাবে। আজ সারা দিন কোনও খরচ বার বার হতে পারে। বাড়িতে সকলে মিলে সুখী সময় কাটাবেন। বৃষ  আজ অপরকে সুখি করতে গিয়ে নিজেকে একটু কষ্ট করতে হবে। অভিজ্ঞ ব্যক্তির পরামর্শে আইনি সুরক্ষা পেতে পারেন। যে কোনও প্রতিযোগিতামূলক কাজে জেতার আশা রাখতে পারেন। কর্মস্থানে কিছু ভুল হওয়ার জন্য মন খারাপ। স্বামী-স্ত্রীর সম্পর্কে রুক্ষতা বাড়বে। বিশেষ কোনও আলোচনা থাকলে তাড়াতাড়ি সেরে ফেলুন। শারীরিক দুর্বলতায় ভোগান্তি। বিদ্যার্থীদের সামনে ভাল কিছু করে দেখানোর সুযোগ আসতে চলেছে। মিথুন আজ অতিরিক্ত লোভ আপনার জীবনে বিপদ বাড়াতে পারে। বুদ্ধি স্থির রেখে বিশেষ কোনও কাজের দিকে পা বাড়ানোই শ্রেয়। চাকরিজীবীদের পদোন্নতির যোগ। স্বাস্থ্য ভাল থাকবে। নতুন কোনও কাজের সুযোগ বা বাড়তি উপার্জন হতে পারে। আজ কিছু দান করে মানসিক শান্তি। তৃতীয় কারও জন্য সংসারে অশান্তি হতে পারে। শিক্ষক-শিক্ষিকাদের জন্য সময়টা শুভ। উঁচু স্থান থেকে পড়ে গিয়ে কেটে যাওয়ার আশঙ্কা। কর্কট  আজ কারও বিরুদ্ধে কোনও কথা বলতে যাবেন না। সহকর্মীদের মিষ্টি কথায় ভুলবেন না। পুরনো দিনের কোনও ঝামেলা মিটে যেতে পারে। আজ সারা দিন কাজে একটু আলস্য থাকবে। দীর্ঘমেয়াদি কোনও কাজ তাড়াতাড়ি সেরে ফেলুন। দর্শন শাস্ত্রে স্বীকৃতি বা উন্নতির যোগ দেখা যাচ্ছে। সেবামূলক কাজে মানসিক শান্তি। আজ আপনি কারও অপবাদের শিকার হতে পারেন। সিংহ  আজ ব্যবসায় শ্রীবৃদ্ধির যোগ আছে। কাউকে উপকারের বিনিময়ে নিজেকে অপমানিত হতে হবে। নতুন বাড়ি তৈরির শুভ সময় আসছে। দাম্পত্য সুখ বজায় থাকবে। আজ সন্তানের ভাগ্যের ওপর নির্ভর করে কিছু অর্থ উপার্জন হতে পারে। বাড়িতে বয়স্ক মানুষদের জন্য বিবাদ হতে পারে। দামি কিছু হারিয়ে যেতে পারে। স্ত্রীর সঙ্গে মনোমালিন্য হওয়ার যোগ। প্রতিবাদী মানসিকতা মন থেকে ঝেরে ফেলুন, না হলে বিপদ। কন্যা  আজ সঞ্চয় ও ব্যয় দুটোই সমান থাকবে। বিশেষ কোনও ব্যক্তির দ্বারা সংসারে উন্নতির যোগ দেখা যাচ্ছে। সন্তানদের পরীক্ষার ফল ভাল হবে। শরীরে একটু দুর্বলতা আসতে পারে। আজ সামাজিক কোনও কারণে নিজের বীরত্ব দেখানোর সুযোগ পাবেন। দূরের কোনও আত্মীয়ের অসুস্থতার খবর পেতে পারেন। কর্মস্থানে উদাসিন ভাব আপনার ক্ষতি করবে। ব্যথা বেদনা বাড়বে। দীর্ঘ মেয়াদি কোনও রোগের তাড়াতাড়ি চিকিৎসা করুন। তুলা কর্মক্ষেত্রে দায়িত্ব পালন নিয়ে ঝামেলা বাধতে পারে। শরীরে কোনও সমস্যায় বহু ব্যয় হতে পারে। অনেক দিনের পুরনো ভ্রমণের পরিকল্পনায় বাধা আসতে পারে। প্রেমের জট ছেড়ে যাবে। ব্যয়ের দিকে আজ একটু বেশি নজর দিতে হবে। শরীরে নানা রূপ রোগের জন্য কষ্ট বৃদ্ধি। স্ত্রীর সঙ্গে মতবিরোধ কেটে যাবে। সন্তানের সুবুদ্ধি ঘটতে পারে। ভাই-বোনদের সঙ্গে হঠাৎ ঝামেলা সৃষ্টি হতে পারে। বৃশ্চিক  আজ কর্মক্ষেত্রে বিরোধী মনোভাব ত্যাগ করাই ভাল। মামলায় জড়িয়ে পড়ার আশঙ্কা আছে। প্রেমে নতুন কোনও অশান্তি আসতে পারে। ব্যবসায় জটিলতা কাটিয়ে ওঠার ভাল সময় এসেছে। বাড়িতে অতিথি আগমনের যোগ দেখা যাচ্ছে। গঠনমূলক কোনও কাজের চিন্তা ভাবনা হতে পারে। ঋণ পরিশোধ করার জন্য সঞ্চয়ে ব্যাঘাত। বাড়িতে পোষ্য কেনার জন্য আলোচনা হতে পারে। ধনু  আজ সারা দিন ব্যবসা ভাল চলবে। কারও কাজের দায়িত্ব আজ নেবেন না। সম্পত্তি কেনাবেচার শুভ সময়। যানবাহন চড়ার সময় অতিরিক্ত সতর্ক থাকুন। আজ অর্থ উপার্জনের ভাগ্য ভাল। সারা দিন সাংসারিক শান্তি বজায় থাকলেও সন্তান নিয়ে একটু অশান্তি থাকবে। অযথা কোনও ঝামেলায় জড়িয়ে পড়তে পারেন। কর্মচারীদেরদের নিয়ে চিন্তা থাকবে। নতুন কোনও ব্যবসা করার কথা ভাবতে পারেন। মকর  আজ ধর্ম আলোচনায় আপনার সুনাম বাড়বে। কর্মজগতে জনপ্রিয়তা পেতে পারেন। শরীরের কোনও অংশে খুব ব্যথা হওয়ার জন্য কাজের ক্ষতি। কিছু কেনার জন্য খরচ। আজ সারা দিন প্রচুর মানসিক চাপ থাকবে। আর্থিক টানাপড়েনের জন্য সংসারে অশান্তি হতে পারে। মা-বাবার সঙ্গে সুসম্পর্ক থাকবে। প্রশাসনিক কাজের সঙ্গে যুক্ত হতে পারেন। জলপথে বিপদের আশঙ্কা। কুম্ভ আজ নতুন কোনও কাজের সন্ধান আসতে পারে। অল্প সঞ্চয় নিয়ে ব্যবসায় চিন্তা। প্রতিবাদী মনোভাবের জন্য সমাজে সম্মান বাড়তে পারে। সন্তানদের সঙ্গে সম্পর্ক ভাল থাকবে।আজ কাজের জন্য আপনাকে বাইরে যেতে হতে পারে। মাতৃস্থানীয় কারও সঙ্গে মতবিরোধ হতে পারে। সঙ্গীতচর্চায় নতুন রাস্তা খুলতে পারে। পরিশ্রমের ফল ভাল হবে। কিন্তু অতিরিক্ত পরিশ্রমের ফলে শারীরিক কষ্ট বাড়তে পারে। মীন  প্রতিবেশীর দ্বারা ব্যবসায় কোনও ক্ষতি হওয়ার আশঙ্কা। কারও প্ররোচনায় পা দিলে বিপদ। পরিবারের অশান্তি মিটে যাওয়ার সঙ্কেত। অতিরিক্ত কথায় ঝামেলার সৃষ্টি হতে পারে। প্রেমের দিকে খুব সতর্ক থাকতে হবে, প্রতারিত হওয়ার যোগ আছে। আপনার মনের কথা বলার জন্য সঠিক মানুষ আজ পাবেন না। গুরুজনদের পরামর্শ মেনে চলুন। বাড়িতে চুরি হওয়ার সঙ্কেত। বিজ্ঞান চর্চায় অগ্রগতির যোগ দেখা যাচ্ছে।

  • আপনার আজকের দিন কেমন কাটবে ? জানুন আজকের রাশিফল (বুধবার ২২ মে ২০১৯)

    newsbazar24:   মেষ  আজ আপনি নতুন কোনও গঠনমূলক কাজের সঙ্গে যুক্ত হতে পারেন। আজ সব কাজ খুব বুদ্ধিমত্তার সঙ্গে করতে হবে। পারিবারিক দিকে সুখ শান্তি বজায় থাকবে। কারও প্ররোচনায় পা দেবেন না। আজ আপনার কোনও উদ্দেশ্য সিদ্ধ হতে পারে। সকালের দিকটা ভাল চললেও বিকেলটা খুব একটা ভাল নয়। সন্তানদের দিকে বিশেষ নজর প্রয়োজন। ছোটখাটো বিষয়ে মায়ের সঙ্গে মনোমালিন্য হতে পারে। ক্স লিমিটেড ইভিএম তৈরি করে এবং এগুলি সর্বোচ্চ সরকারি নিরাপত্তা প্রোটোকল মেনে তৈরি হয়। ফলে গোলমাল করার সুযোগ প্রায় নেই। অত্যন্ত নিরাপদ একটি মাধ্যম। বৃষ  সম্পত্তির ব্যপারে কোনও চাপ আসতে পারে। কর্মে অন্য দিনের তুলনায় আজ পরিশ্রম একটু বেশি হতে পারে। ভুল বোঝাবুঝির জন্য পারিবারিক বিবাদ। বাড়িতে নতুন কোনও অতিথি আসায় আনন্দ।  মাত্রাছাড়া জেদ আপনার ক্ষতি ডেকে আনতে পারে। অতিরিক্ত অর্থলাভের আশায় ঝামেলার সৃষ্টি হতে পারে। বিজ্ঞান চর্চায় অগ্রগতির সম্ভাবনা। আজ শত্রুর সঙ্গে কোনও চুক্তিতে আপনি জিততে পারেন। ছোটখাটো শারীরিক ভোগান্তি।   মিথুন  উচ্চাশার কারণে মানসিক যন্ত্রণা বৃদ্ধি। ব্যবসায় জটিলতা কাটিয়ে সঞ্চয়ের ভাবনা করাই শ্রেয়। ভ্রমণের পরিকল্পনায় বাধা  আসতে পারে। সম্পত্তির অধিকার চেয়ে ঝামেলার সন্মুখীন হতে পারেন। জলপথে বিপদ। অতিরিক্ত আবেগের জন্য কাজের ক্ষতি হতে পারে। উচ্চশিক্ষার সুযোগ  আসতে পারে। শরীরে পুরনো রোগের উৎপাত। বাড়তি কোনও খরচ চিন্তা বৃদ্ধি করবে। ব্যবসার দিকে মন্দা। কর্কট  ভ্রমণের কোনও পরিকল্পনা সফল হওয়ার জন্য মনে আনন্দ। বাড়িতে কোনও বাজে খবর আসতে পারে। দাম্পত্য কলহ অনেক দূর যাবে।  আইনি কোনও পদক্ষেপ  থেকে সাবধান থাকুন। ব্যবসার কোনও কাজের জন্য দূরে যেতে হতে পারে।  নিজের আত্মীয় শত্রুতা করতে পারে। কর্মস্থানে অনেক দিন বাদে নিজের প্রতিভার প্রকাশ করতে পারবেন। ব্যবসার দিকে কোনও বিষয় নিয়ে ঝামেলা। পেটের কোনও রোগ। সিংহ  কোনও উঁচু স্থান থেকে পড়ে যাবার সম্ভাবনা। প্রিয়জনের কাছ থেকে কোনও আঘাত। বাড়িতে   আনন্দের কোনও ঘটনা ঘটতে পারে। ব্যবসার জন্য  লাভ বৃদ্ধি। আজ পরিশ্রমের উপযুক্ত ফল পাবেন না। শিল্পীদের জন্য খুব ভাল সময়। আজ সারা দিন খুব বুঝে চলুন মামলা মোকদ্দমার যোগ আছে । গান বাজনার সঙ্গে যুক্তদের দিনটি ভাল । কোনও আত্মীয়ের সঙ্গে বিশ্বাসঘাতকতা । মিথ্যে অপবাদে ফাঁসতে পারেন।  কন্যা  সকাল থেকে মানসিক দিকটা খুব একটা ভাল থাকবে না।  গুরুদেবের প্রতি ভক্তি বৃদ্ধি। অযথা কোনও ঝামেলায় জড়িয়ে পড়তে পারেন। ব্যবসার উন্নতির জন্য কোনও চেষ্টা। আর্থিক  ভাগ্য মধ্যম। প্রেমের ব্যপারে অবসাদ আসতে পারে, সতর্ক থাকুন। আজ মনে একটু বিষণ্ণ ভাব বাড়তে পারে। নিজের মতে চলার জন্য অশান্তি বৃদ্ধি। শুভ কাজে বাধা বাড়তে পারে। বাঁকা পথে আয়। কাজে বাধা, চাকুরির স্থানে কাজের চাপে শারীরিক অসুস্থতা।  তুলা  নিজের নম্র স্বভাবের জন্য কর্মস্থলে পদন্নোতি। বাসস্থান পরিবর্তন মনের মত না হওয়াতে স্ত্রীর সঙ্গে  মতবিরোধ। পুরনো ঋণ শোধ হতে পারে। বাবার শরীর নিয়ে একটু চিন্তা থাকবে।  নিজের ভুলের জন্য নানা দিক থেকে অপব্যয় হতে পারে। বাড়তি কোনও ব্যবসার কথা না ভাবাই শ্রেয়। রাস্তার লোকের সঙ্গে হঠাৎ বিবাদ বাধতে পারে। জ্বর জ্বালায় কষ্ট। ভাই ভাই বিবাদ বৃদ্ধি।   বৃশ্চিক  ভ্রমণে কোনও কিছু হারানো নিয়ে সমস্যায় পড়তে পারেন। ভাই বোনদের সঙ্গে বিবাদ বা বিচ্ছেদও হতে পারে। শত্রুর সঙ্গে চুক্তিতে কাজ সমাধান। প্রেমে নতুন মোড় আসতে পারে। আজ যে কোনও নতুন ব্যবসার জন্য প্রচেষ্টা করতে পারেন। আজ সারা দিন বেশ উৎফুল্লতায় কাটবে। বাড়ির লোক আপনাকে বুঝবে না ও মানসিক চাপ বৃদ্ধি । কাছে কোনও ভ্রমণ হতে পারে।   ধনু  আজ সকাল থেকে খরচ বৃদ্ধি পাবে। গুরুজনদের সু উপদেশে উন্নতির সুযোগ । কর্মক্ষেত্রে নিজের দোষে প্রতিকূল পরিস্থিতির শিকার হবেন । পরোপকারে সংসারে শান্তি ভঙ্গ । সজ্জন ব্যক্তির সান্নিধ্যে সুখ। সন্তানের কাজের ফলে আনন্দ ও গর্ববোধ। বিষয় সম্পত্তি নিয়ে দুশ্চিন্তা বাড়তে পারে। উচ্চপদে চাকুরির যোগ দেখা যাচ্ছে। বাড়িতে শুভ কাজের জন্য অর্থ খরচ। সম্পত্তির ব্যপারে আইনের সাহায্য নিতে হতে পারে। মকর  বাইরে কোনও ব্যবসায় দারুণ অর্থপ্রাপ্তির যোগ আছে। নিজের ভুল সংশোধন করার ফলে সংসারে শান্তি। গুরুজনের শরীর নিয়ে চিন্তা থাকবে। জলপথে ভ্রমণ না করাই ভাল। বিশেষ উচ্চ কোনও  কাজ করায় সমাজে মর্যাদা লাভ হতে পারে। লটারিতে হঠাৎ প্রাপ্তিযোগ। চিকিৎসার কাজে সারাদিন অস্থিরতা থাকবে। ব্যবসার দিকে কোনও নতুন চিন্তাভাবনা আসতে পারে। পিতার সঙ্গে কোনও ছোট বিবাদ বাড়তে পারে । স্ত্রীর সঙ্গে  দূরে ভ্রমণের আলোচনা।   কুম্ভ  স্ত্রীর দ্বারা ব্যবসায় শুভ কিছু হতে পারে । তৃতীয় ব্যক্তির জন্য সংসারের থেকে দূরত্ব বাড়তে পারে। প্রতিবেশীর সঙ্গে  শত্রুতার সম্ভবনা । ভাল কাজের পরিপ্রেক্ষিতে হতাশা। নতুন ব্যবসায় লগ্নি করতে পারেন উন্নতির যোগ। পরিশ্রম বৃদ্ধিতে শারীরিক আসুস্থতা আসবে। কোনও  ব্যাপারে মামলায় জড়িয়ে পরতে পারেন। বুদ্ধিবলে জয়। পিতার শরীরের কোনও চিন্তা ও খরচ বাড়তে পারে।  মীন সকালের দিকে মাথার যন্ত্রণা বাড়তে পারে।  আজ সহকর্মীরা নিজের ক্ষোভ প্রকাশ করায় মানসিক চাপ। প্রেমে আপনার সঙ্গে  বিশ্বাসঘাতকতা হতে পারে। স্ত্রীর স্বাধীনচেতা স্বভাবের জন্য সংসারে অশান্তি। হঠাৎ কোনও পুরনো বন্ধুর সঙ্গে  দেখা হতে পারে।  সন্তানদের কর্মের জন্য সাহায্য করতে হতে পারে। ব্যবসায় নতুন কর্মী নিযুক্ত করা ঠিক হবে না। বন্ধু সমাগমে মনে উৎফুল্লতা বৃদ্ধি। আপনার সহ্য ক্ষমতা আপনাকে বাঁচাবে। অযথা কথা খুব কম বলবেন। 

  • গীষ্মের ছুটিতে ঘুরে আসুন বক্সাদুয়ারের লেপচাখা গ্রামে

    newsbazar24: গরমের দাবদাহ থেকে কয়েক দিনের জন্য পালিয়ে যেতে চলে যাওয়া যায় বক্সাদুয়ারের লেপচাখা গ্রামে। প্রায় সাড়ে তিন হাজার ফুট উচ্চতায় অবস্থিত পাহাড়ি এই গ্রামটি। কখনও রোদ ঝলমলে দুপুরের আকাশে হঠাতই উড়ে আসা মেঘের চাদর, ক্ষণিকের জন্য ঢেকে দিয়ে যায় লেপচাখাকে।নিউ আলিপুরদুয়ার স্টেশন থেকে মাত্র ২৬ কিলোমিটার দূরত্বে রয়েছে সান্তালাবাড়ি। স্টেশন থেকেই গাড়ি পাওয়া যায়। সেখান থেকে বক্সা দুর্গ যাওয়া যায়। তবে গাড়ি ভিউ পয়েন্ট পর্যন্ত যায়। তার পরে, ৩ কিলোমিটার পাহাড়ি পথ ট্রেক করে পৌঁছে যাওয়া যায় ইতিহাসের পাতায়।দুর্গ যাওয়ার পথেই পড়ে সদর বাজার। এখানে একটু জিরিয়ে নিতে পারেন। চা-মোমো বা ঠান্ডা পানীয় দিয়ে একটু চাঙ্গা হয়ে আবারও হাঁটুন বক্সা দুর্গের উদ্দেশ্যে, যেখানে স্বাধীনতা সংগ্রামীদের বন্দি করে রাখত ব্রিটিশ সরকার। বক্সা দুর্গের সামনেই রয়েছে বক্সা ডাকঘর ও বক্সা মিউজিয়াম।দুর্গের পরে এবার লেপচাখা গ্রাম। এখান থেকে মাত্র এক ঘণ্টায় পৌঁছে যাওয়া যায় লেপচাখা। ছোট্ট গ্রামটিতে রয়েছে একটি বৌদ্ধ গুম্ফা। সঙ্গে নৈসর্গিক দৃশ্য, যা মুগ্ধ করবে সকলকে।৮০০ থেকে ১২০০ টাকার মধ্যে থাকার রুম পাওয়া যায় লেপচাখা ইকো হাটে। বিদ্যুৎ থাকলেও তা বেশ অনিয়মিত। তবে, সৌরবিদ্যুৎ রয়েছে। মোবাইল পরিষেবা বলতে বিএসএনএল পাওয়া যায়। মাঝে মাঝে পাওয়া যায় আইডিয়াও।লেপচাখা থেকে ট্রেক করে যাওয়া যায় রোভার্স পয়েন্ট ও রুপম ভ্যালি।লেপচাখার ইকো হাটে স্বাগত জানাতে প্রস্তুত থাকেন চামা ডুকপা, তেনজিং ডুকপাদের মতো অনেকেই।

  • জেনে নিন আপনার আজকের রাশিফল (সোমবার ২০ মে ২০১৯)

    newsbazar24:  মেষ : কর্মস্থানে আঘাত লাগতে পারে, সাবধান থাকুন। আজ সংসারে খুব শান্ত থাকতে হবে। সন্তানদের নিয়ে একটু চিন্তা থকবে। কর্মস্থানে সহকর্মীর সাহায্য পেতে পারেন। কারও থেকে হঠাৎ কোনও দামি কিছু পেতে পারেন। নতুন কোনও ব্যবসা শুরু করতে পারেন, উন্নতির যোগ আছে। প্রেমে নতুন মোড় ঘোরার আশা রাখতে পারেন। বুদ্ধিমান ব্যক্তির পরামর্শ কাজে লাগান। উপার্জন ভাল থাকলেও ব্যয়ও আছে। বৃষ  বাড়তি কোনও ব্যবসা থাকলে তার থেকে খুব ভাল লাভ পেতে পারেন। আজ কোথাও আপনি নিজের প্রতিভা দেখাতে যাবেন না। দায়িত্ব পালন নিয়ে মায়ের সঙ্গে অশান্তি। শারীরিক দুর্বলতার জন্য কাজে সমস্যা। হারানো জিনিস ফিরে পাওয়ার আশা। প্রতিবেশীরা আজ আপনাকে সাহায্য করতে পারে। কাজের জায়গায় আজ কোনও রকম চালাকি না করাই ভাল। ভ্রমণের পরিকল্পনা হাতছাড়া হতে পারে। মিথুন  উচ্চপদস্থ ব্যক্তির অনুগত থাকলে লাভ বাড়তে পারে। কোনও অভিজ্ঞ ব্যক্তির সঙ্গে ধর্ম নিয়ে আলোচনা করার সুযোগ পাবেন। প্রতিবেশীর সঙ্গে ঝামেলা আজ একটু এড়িয়ে চলুন। এই সময়ে প্রেমের দিকে না এগোনোই ভাল হবে। ত্বকে একটু সমস্যা দেখা দেবে। আপনার প্রচেষ্টা আজ সফল নাও হতে পারে। মিথ্যের সাহায্য নিলে ফাঁসতে পারেন। সম্পত্তি নিয়ে ভাই-বোনদের সঙ্গে ঝগড়া হলে সেটা আপসে মিটিয়ে নিন। কর্কট  প্রতিযোগিতামূলক কাজে বিশেষ স্থান পাওয়ার যোগ আছে। কারও চক্রান্তে ক্ষতি। বায়ুপথে ভ্রমণ হতে পারে। অজান্তে আপনি কাউকে কষ্ট দিতে পারেন। অন্যকে বাঁচাতে গিয়ে নিজের বড় ক্ষতি হওয়ার আশঙ্কা। আত্মীয়দের নিয়ে দুশ্চিন্তা থাকবে। পুরনো কোনও সমস্যার সমাধান হতে পারে। নিজের প্রতিভা দেখানোর বড় কোনও সুযোগ আসতে পারে। বাবা-মায়ের জন্য বাড়তি খরচ হতে পারে। সিংহ  কোনও যন্ত্র খারাপ হওয়ায় প্রচুর খরচ হতে পারে। কাজে আজ অন্যের সাহায্যের প্রয়োজন হতে পারে। কোনও দুঃস্থ ব্যক্তিকে সাহায্য করতে হতে পারে। রাস্তাঘাটে সাবধানতা অবলম্বন করতে হবে। উচ্চবিদ্যার ভাল যোগ। সঞ্চয়ের তুলনায় ব্যয় বেশি হতে পারে। পরিচিত কেউ বাড়িতে আসতে পারে। দরকারি কাজ মেটানোর জন্য শুভ দিন। অতিরিক্ত লোভনীয় কোনও সুযোগের দিকে পা না বাড়ানোই শ্রেয়। কন্যা  ভাল কোনও সুযোগ হাতছাড়া হওয়ার জন্য ক্ষোভ বাড়তে পারে। আজ সারা দিন কোনও কারণে চিত্ত চাঞ্চল্য থাকবে। হতাশার জন্য শরীর খারাপ হওয়ার আশঙ্কা। মানুষের সেবায় শান্তি। নতুন কিছু কেনার পরিকল্পনা হতে পারে। স্ত্রীর জন্য ভাল কোথাও ভ্রমণ হতে পারে। আত্মীয়দের সঙ্গে কোনও বিষয়ে ঝামেলা হতে পারে। বন্ধুর সাহায্যে ভাল কিছু হতে পারে। তুলা  পুজোর জায়গায় অর্থ দান করে মানসিক শান্তি। আজ কাজের জন্য বাড়ির কেউ বাইরে যাওয়ায় কষ্ট। গুরুজনদের সঙ্গে মতবিরোধ হতে পারে। সঙ্গীত চর্চায় নতুন দিক দেখতে পাবেন। পরিশ্রমের ফল ভাল হবে। প্রতিবেশীর দ্বারা ব্যবসায় কোনও রকম উপকার পেতে পারেন। কারও প্ররোচনায় পা দেবেন না। পরিবারে অশান্তি মিটে যাওয়ার সঙ্কেত। অতিরিক্ত কথায় ঝামেলার সৃষ্টি হতে পারে। বৃশ্চিক  ভাল কথা বলবার জন্য সুনাম বাড়তে পারে। প্রেমের ক্ষেত্রে খুব সতর্ক থাকতে হবে, প্রতারিত হওয়ার যোগ আছে। গুরুজনদের পরামর্শ মেনে চলুন। বাড়িতে ক্ষতি হওয়ার সঙ্কেত। আজ ধর্ম আলোচনায় আপনি এগিয়ে থাকবেন। আজ কাজের জায়গায় জনপ্রিয়তা পেতে পারেন। দেহের কোনও অংশে ক্ষতের সৃষ্টি হতে পারে। কিছু কেনা বেচার জন্য খরচ। আজ সারা দিন প্রচুর পরিশ্রম হতে পারে। ধনু  পড়াশোনার জন্য খুব ভাল সুযোগ আসতে পারে। আজ বাড়িতে বা কর্মস্থানে মাথা প্রচুর ঠান্ডা রেখে চলতে হবে। আর্থিক টানাপড়েনের জন্য সংসারে অশান্তি হতে পারে। মা-বাবার সঙ্গে সুসম্পর্ক থাকবে। আজ নতুন কোনও কাজের সন্ধান করতে হতে পারে। অল্প সঞ্চয় নিয়ে স্ত্রীর সঙ্গে অশান্তি হতে পারে। প্রতিবাদী মনোভাবে সমাজে সম্মান বৃদ্ধি পেতে পারে। সন্তানদের সঙ্গে সম্পর্ক ভাল থাকবে। মকর  কোনও ভুল করার জন্য মানসিক শান্তি পাবেন না। আজ সারাদিন ব্যবসা ভাল চলবে। কারও জিনিসের দায়িত্ব আজ নেবেন না। সম্পত্তি কেনার শুভ সময়। যানবাহন চড়ার সময় অতিরিক্ত সতর্ক থাকুন। সারা দিন সাংসারিক শান্তি বজায় থাকলেও রাতের দিকে অশুভ। অযথা কোনও ঝামেলায় জড়িয়ে পড়তে পারেন। সন্তানদের নিয়ে চিন্তা। কুম্ভ  কর্মক্ষেত্রে দায়িত্ব পালন নিয়ে ঝামেলা বাধতে পারে। শরীরে কোনও সমস্যায় বহু অর্থ ব্যয় হতে পারে। অনেক দিনের পুরনো ভ্রমণের পরিকল্পনায় বাধা আসতে পারে। প্রেমের জট ছেড়ে যাবে। ব্যয়ের দিকে আজ একটু বেশি নজর দিতে হবে বা সংযত থাকতে হবে। শরীরে নানা রোগের উপদ্রব বাড়তে পারে। স্ত্রীর সঙ্গে মতবিরোধ কেটে যাবে। সন্তানের সুবুদ্ধি ঘটতে পারে। মীন  কাজের জন্য বিদেশে যাওয়ার সুযোগ আসতে পারে। আজ কর্মক্ষেত্রে বিরোধী মনোভাব ত্যাগ করাই ভাল। মামলায় জড়িয়ে পড়ার আশঙ্কা আছে। স্নেহভাজন কারও সঙ্গে ঝামেলা বাধতে পারে। প্রেমে নতুন মোড় ঘুরতে পারে। ব্যবসায় জটিলতা কাটিয়ে ওঠার ভাল সময় এসেছে। বাড়িতে অতিথি আগমনের যোগ দেখা যাচ্ছে। গঠনমূলক কোনও কাজের চিন্তা ভাবনা হতে পারে। ঋণ পরিশোধ করার জন্য সঞ্চয়ে ব্যাঘাত।

  • আজকের রাশিফলঃ (শুক্রবার ১৭ মে ২০১৯)

    newsbazar24:  মেষঃ নিজের ক্ষমতায় ব্যবসায় অগ্রগতির আভাস। আজ কোনও কাজেই মন বসাতে পারবেন না। পুরনো পাওনা পেতে বেগ পেতে হবে। কাজের জায়গায় হিসাব নিয়ে গণ্ডগোল। আজ সারা দিন ব্যবসায়িক উদ্বেগ খুব বেশি থাকবে এবং তাতে সফল হবেন। নিজের অভিজ্ঞতার বিকাশ আজ বেশি না দেখানোই ভাল। পড়াশোনার দিক থেকে দিনটি উপযুক্ত। স্ত্রীর খারাপ ব্যবহারের জন্য মানসিক কষ্ট। বৃষঃ সকালের দিকে স্ত্রীর কারণে মানসিক চাপ বাড়তে পারে। ব্যবসার জন্য খরচ বৃদ্ধি। নিজের চালাকির দ্বারা বিপদ থেকে উদ্ধার। প্রেমের জন্য আনন্দ বাড়তে পারে। মহিলাদের থেকে সাবধান থাকুন। চিকিৎসার খরচ বাড়তে পারে। শরীরের কোনও ক্ষত থেকে রোগ বাড়তে পারে। যাঁরা বিদেশে থাকেন, তাঁদের জন্য ভাল সুযোগ আসতে পারে। পাওনা আদায়ে অশান্তি হতে পারে। আর্থিক  ভাগ্য একটু ভাল থাকবে। মিথুনঃ সকাল থেকে আইনি কোনও কাজে খরচ বাড়তে পারে। পরিবারে কারও কাছ থেকে কিছু উপহার পেতে পারেন। আপনার থেকে বয়সে ছোট কারও সঙ্গে তর্ক বাঁধতে পারে। মনের মতো মানুষের দেখা পাবেন। আজ বাড়ি বা কর্মস্থানে মাথা ঠান্ডা রেখে চলতে হবে, পরিস্থিতি বিরুদ্ধে যাওয়ার আশঙ্কা রয়েছে। অতিরিক্ত কথার  জন্য সংসারে অশান্তি হতে পারে। মা-বাবার সঙ্গে  সুসম্পর্ক থাকবে। কর্কটঃ আর্থিক ব্যাপারে কারও কাছে অপমানিত হতে পারেন। আপনার কোনও প্রতিভার জন্য জনপ্রিয়তা লাভ করতে পারেন। বন্ধুকে অতি বিশ্বাস করার খেসারত দিতে হতে পারে। কোনও ছোট্ট অশান্তি আদালত পর্যন্ত গড়াতে পারে। চলাফেরায় বাড়তি সতর্কতার প্রয়োজন। আজ সারা দিন পড়াশোনায় উদ্বেগ খুব বেশি থাকবে এবং তাতে সফল হবেন। বাড়তি কোনও ব্যবসার দিক থেকে দিনটি উপযুক্ত। সিংহঃ আজ কোনও খারাপ পরিস্থিতির জন্য চাপে পড়তে পারেন। আজ পরিবারে কারও ব্যবহারে আপনার ক্ষোভ সৃষ্টি হতে পারে। সারা দিন ব্যয়ের পরিমাণ বেশি থাকবে। শত্রুরা চক্রান্তে জিততে পারবে না। সন্তানের ভবিষ্যৎ নিয়ে গভীর আলোচনা। আজ কর্মচারীর জন্য ব্যবসা বাড়ানোর সুযোগ আসতে পারে। অতিরিক্ত হঠকারিতার জন্য শরীরে কোথাও আঘাত লাগতে পারে। পারিবারিক সম্পত্তি নিয়ে অশান্তি হতে পারে। কন্যাঃ বাইরের কোনও অশান্তি আজ বাড়িতে আসার আশঙ্কা। ব্যবসায় লাভের আশা রাখলে মহাজনের কথা মেনে চলতে হবে। আজ সারা দিন অন্য দিনের তুলনায় পরিশ্রম বেশি হতে পারে। যুক্তিপূর্ণ আলোচনায় সম্মান প্রাপ্তি। কর্মস্থানে আজ আপনাকে কারও কথামতো চলতে হতে পারে। আজ কোনও আত্মীয়ের কাছ থেকে আপনি ভাল সাহায্য পাবেন। বেশি অর্থ অপচয়ের জন্য সংসারে বিবাদ। সন্তানদের সঙ্গে বিশেষ আলোচনা। তুলাঃ গাড়ি চালকদের আজ একটু বিপদ হতে পারে। নীতির দিক দিয়ে কোনও ভুল হওয়ার জন্য অশান্তি। ব্যবসায় একটু চাপ বাড়তে পারে। প্রিয় জনের থেকে ভালবাসা পেতে পারেন। চিকিৎসার জন্য ব্যয় বৃদ্ধি। আগুন থেকে সাবধান থাকুন। কোনও আঘাতের জন্য নিরানন্দ হতে পারে। কর্মস্থানে কোনও বাধা নিয়ে চিন্তা। উন্নতির জন্য চেষ্টা থাকবে আজ। চাকরির জায়গায় কাজের চাপ বাড়তে পারে। মায়ের শরীর নিয়ে চিন্তা। বৃশ্চিকঃ চাকরির জায়গায় দলগত বিবাদ হতে পারে। দাঁতের যন্ত্রণা বাড়তে পারে। ঠাকুরের কাজের জন্য দান করে আনন্দ। প্রিয় ব্যক্তির সঙ্গে তর্ক বাধার জন্য মানসিক কষ্ট। ব্যবসায় মহাজনের সঙ্গে বিবাদ হলেও বাড়তি লাভ হতে পারে। বন্ধুর জন্য কোনও কারণে রাগ হতে পারে। স্ত্রীর সঙ্গে বিবাদে ক্ষতি হতে পারে। কোনও আশা পূরণের জন্য আনন্দ। বাবার শরীরের ব্যাপারে খরচ বাড়তে পারে। ধনুঃ পরিবারের সকলের সঙ্গে কোনও কারণে কলহ বাধতে পারে। সকালের দিকে বাইরের কারও সঙ্গে বিবাদ নিয়ে দুশ্চিন্তা। ব্যবসায় অতিরিক্ত লোভের কারণে বিপদ। দুপুরের পরে কাজের জন্য অতিরিক্ত ব্যস্ত হতে হবে। বিবাহের বিষয়ে আলোচনা। ছোট রক্তপাতের আশঙ্কা। ব্যবসায় বাড়তি কোনও বিষয় আলোচনা। বাবার জন্য চিন্তা বাড়তে পারে। চাকরির জায়গায় কারও সঙ্গে তর্ক। আর্থিক চাপ বাড়তে পারে। মকরঃ আজ একটু সাবধানে থাকুন, কোনও ভাবে বদনাম হতে পারে। আর্থিক ব্যাপারে একটু সুবিধা আসতে পারে। পাওনা আদায়ের জন্য মাথা গরম হওয়ার যোগ। ভাল সঙ্গে থাকার জন্য উন্নতিলাভ। ভাই-বোন কোনও বিবাদ বাড়তে পারে। ব্যবসা নিয়ে চিন্তা থাকবে। ব্যবসায় চুরি থেকে সাবধান থাকুন। প্রেমের জন্য কোনও যোগাযোগ আসতে পারে। সম্পত্তির ব্যাপারে আইনি ব্যবস্থা। বাইরের অশান্তি ঘরে আসতে পারে। কুম্ভঃ আজ মাথায় কোনও খারাপ বুদ্ধি আসতে পারে। মন একটু চঞ্চল থাকবে আজ। সামাজিক কারণে সুনাম বাড়তে পারে। পড়াশোনার জন্য কোনও ভাল যোগাযোগ আসবে আজ। গবেষণায় আজ সাফল্য মিলতে পারে। ব্যবসায় ভাল সুযোগ আসতে পারে। চাকরির জায়গায় আজ তর্ক বেশি না করাই ভাল হবে। ভুল কাজের জন্য অনুশোচনা হতে পারে। মীনঃ শরীরের কোনও ক্ষত বিপদ ডেকে আনতে পারে। উচ্চপদস্থ ব্যক্তির সঙ্গে বচসা হতে পারে। ভাল কাজের পুরস্কার পেতে পারেন। প্রেমের জন্য গুরুজনের সঙ্গে অশান্তি। জলপথে বিপদ আসতে পারে। ব্যবসায় সাফল্য আসতে পারে। প্রিয় ব্যক্তির সঙ্গে থাকায় আনন্দ বৃদ্ধি। আজ কিছু চুরি হতে পারে। ব্যয় বৃদ্ধি হওয়ার জন্য সঞ্চয় ঠিক থাকবে না।

  • এই গ্রীষ্মে ঘুরে আসুন ধার্মিক দেশ ভুটানে

    newsbazar24: ভুটান দেশটিতে প্রকৃতি উজাড় করে দিয়েছে সৌন্দর্য। ভারতের পড়শি দেশ ভুটান, পশ্চিমবাংলা থেকে ঢিল ছোঁড়া দূরত্বে৷ তাই এই গরমে ঘুরে আসুন ভুটান।ধার্মিক দেশ ভুটান, বৌদ্ধ মনাস্ট্রি ও গুম্ফার দেশ ভুটান ।  অনেক বৌদ্ধ গুম্ফা ও জং ছড়িয়ে ছিটিয়ে আছে সারা দেশ জুড়ে৷আছে ভুটানের প্রান চু নদী। যে যেন শাখাপ্রশাখা ছড়িয়ে সারা ভুটানকে পরম আবেগে  আলিঙ্গন করে রেখেছে। ভুটান পাহাড়ি দেশ তাই প্রাকৃতিক সৌন্দর্যের খনি।পৃথিবীর একমাত্র কার্বন নেগেটিভ দেশ ভুটান। যত পরিমাণ কার্বন উৎপন্ন করে তার চেয়ে বেশি শোষণ করে ভুটান। ফুন্টসোলিংঃ কাঞ্চনজঙ্ঘা এক্সপ্রেসে হাসিমারা স্টেশনে নেমে অটো বা ভাড়া গাড়িতে ১৮ কিমি দূরে জয়গাঁও পৌঁছন। জয়গাঁওতে ভুটানের প্রবেশদ্বার সুদৃশ্য ভুটান গেট পেরিয়ে ভুটানের  ফুন্টসোলিং আসুন। সম্ভব হলে দেখে নিন ১৯৬৭ সালে তৈরি আপার মনাস্ট্রি। শান্ত সমাহিত পরিবেশ আপনাকে মুগ্ধ করবে। ফুন্টসোলিং থেকে ভাড়া গাড়িতে বা বাসে করে চলুন ১৭২ কিমি দূরে ভুটানের রাজধানী থিম্পুতে৷ থিম্পু ভুটানের রাজধানী৷ থিম্পুতে এসে মতিজং এর সংস্কৃতি দপ্তরের অফিস থেকে ভুটানের জং বা দুর্গ গুলি ও সেরা সেরা মনাস্ট্রিগুলি দেখার অনুমতি পত্র নিয়ে নেবেন। থিম্পু ঃ পাহাড়ের ছিমছাম শহর থিম্পুতে দেখে নিন সিমতোখা জং,  চিড়িয়াখানা,  টিভি টাওয়ার ভিউ পয়েন্ট, নরজিন ল্যম,, থিম্পু গুম্ফা, হস্তশিল্পকেন্দ্র এবং সিমডেখাং-এর এক টিলার ওপরে  সিমতোখা  জং। জং-য়ের ফ্রেসকো চিত্রগুলি অসাধারণ।  এখানে লামাতন্ত্রের মহাবিদ্যালয় রয়েছে।  সিমতোখা  জংয়ে সূর্যাস্তের সময়    লামা ও দ্রাপাদের সুরেলা মন্ত্রোচ্চারণ ও গ্রন্থপাঠ এবং বিভিন্ন তিব্বতী বাদ্যযন্ত্রের গম্ভীর শব্দ  শিহরণ জাগাবে।  থিম্পু শহরের কেন্দ্রস্থলে রয়েছে মেমোরিয়াল চোর্তেন। এই চোর্তেনটি হলো আধুনিক ভুটানের জনক রাজা জিগমে দোরজি ওয়াংচুর স্মৃতিমন্দির ৷ ওয়াংচু নদীর ধারে রয়েছে দেশের প্রধান জং তাশি-চো জং উল্টোদিকেই রয়েছে সার্ক বিল্ডিং৷থিম্পু শহরে এরপর দেখুন  নতুন তৈরী হাওয়া  বৌদ্ধমন্দিরটি।  পৃথিবীর সর্ববৃহৎ বুদ্ধমূর্তিটি এখানে রয়েছে। নানা জায়গা থেকে ও অনেক দূর থেকে এই নয়নাভিরাম বুদ্ধমূর্তিটি দেখা যায়। পুনাখাঃ থিম্পু থেকে চলুন পুনাখা৷ পথেই পড়বে  দোচুলা পাস৷ দোচুলা পাসের ওপরে রয়েছে  শতাধিক চোর্তেন ও বৌদ্ধমন্দির৷ রোদ ঝলমলে দিনে এই দোচুলা পাসের ওপর থেকে হিমালয়ের তুষারাচ্ছাদিত শৃঙ্গগুলি চমৎকার দেখা যায়। ঝলমলে রোদ থাকলে পরিষ্কার দেখা যায় শৃঙ্গগুলি৷ এই পাসের বৌদ্ধমন্দিরটি থেকে ভুটানের পাহাড়ি প্রাকৃতিক সৌন্দর্য উপভোগ এক অপূর্ব অভিজ্ঞতা।  ফো-চু আর মো-চু অর্থাৎ পুরুষ ও প্রকৃতি এই দুই নদীর সঙ্গমে অবস্থিত পুনাখা । নদী দিয়ে ঘেরা কাঠ ও পাথরের তৈরী সাত তলা পুনাখা জং । থিম্পু থেকে পুনাখার দূরত্ব প্রায় ৮৬ কিমি, যেতে সময় লাগে প্রায় তিন ঘণ্টা। পুনাখা জং। ভুটানের অন্যতম পবিত্র জং৷  এখানে অবশ্যই  দেখুন  মধ্যে নামগিয়াল চোর্তেন৷ ওয়াংদি-ফোড্রনঃ পুনাখা থেকেই দেখে নিন ২৩ কিমি দূরের ওয়াংদি-ফোদ্রন। ভুটানের সুইজারল্যান্ড নামে খ্যাত এই জায়গাটি। দেখুন ওয়াংদি-ফোদ্রন জংটি। কথিত আছে ওযাংদি নামে এক কিশোর বালি, মাটি , পাথর দিয়ে একটি খেলনার জং  তৈরী করে। কিন্তু হঠাৎই সে মারা যায়। সেই মডেলেই  গড়ে ওঠে এই ওয়াংদি-ফোদ্রন জংটি। এটি কিন্তু বেশ প্রাচীন জং৷ এখানকার ফ্রেসকো গুলিও দেখার মতো। এই জংটির মধ্যে একটা গা ছমছম করা ব্যাপার আছে। কাছেই আছে রাডাক নাকসাং মন্দির। এর মধ্যে রয়েছে তারাদেবী, শাক্যমুনি ও গুরু রিম্পোচের মূর্তি। পারোঃ দ্বিতীয় পর্যায়ে থিম্পু থেকে চলুন সোনালীরঙা পারো উপত্যকায়৷ থিম্পু থেকে দূরত্ব ৫১ কিলোমিটার, সময় লাগে  ঘণ্টা দেড়েক। যাবার পথেই পড়বে  পারো বিমানবন্দর৷ পারো উপত্যকাটি যেন   জলরঙে আঁকা  শিল্পীর কোনও ক্যানভাস। পাহাড়ের গায়েই রয়েছে সিটি ভিউ পয়েন্ট, এখান থেকে পারোর সান্ধ্যকালীন অবিস্মরনীয় রূপ উপভোগ করুন।   পাহাড়ে ঘেরা পারো  উপত্যকার প্রধান জং হলো রিনপুং জং৷রিন পুং জং৷ জংয়ের গঠনশৈলী অনবদ্য।  জংয়ের দেওয়ালের  চিত্রকলা ও ভিতরের বৌদ্ধমন্দিরটির সৌন্দর্যে মোহিত হবেন৷ রিংপুং জংয়ের  পিছন দিক থেকে  পাহাড়ি উপত্যকা ও নদীর দৃশ্য আপনাকে পাগল করে দেবে। যদি ট্রেকিং করার ইচ্ছে ও শারীরিক ক্ষমতা থাকে। তাহলে  পারো থেকে সারাদিন ট্রেক করে দেখে নিন উঁচু এবং  খাড়া পাহাড়ের গায়ে আশ্চর্যজনক ভাবে অবস্থিত ও নির্মিত তাকসাং মনাস্ট্রি । যাকে বিশ্ব চেনে টাইগার নেস্ট নামে।    সাত কিলোমিটার তিন-চার ঘণ্টায় ট্রেক করে পারো থেকে টাইগার নেস্ট পৌঁছে যান। এই গুম্ফা থেকে উপত্যকার সৌন্দর্য আমৃত্যু মনে থাকবে। চেলে-লাঃ পারো থেকে পাহাড় পেঁচিয়ে পেঁচিয়ে ওঠা পথ ঘণ্টা দুয়েকে পেরিয়ে উঠে আসুন চেলে-লা (পাস)ভুটানের সবচেয়ে সুন্দর অথচ সবচেয়ে কম বিখ্যাত জায়গা। এটি প্রায় ৪৫০০ মিটার উচ্চতায় অবস্থিত এবং এটি ভুটানের সর্বোচ্চ রোড-পাস। এর অবস্থান পারো উপত্যকা ও হা উপত্যকার ঠিক মাঝখানে। প্রচণ্ড ঠান্ডা, প্রচণ্ড হাওয়া। খাবার কিছুই পাবেন না।পুরু জ্যাকেট নিয়ে যাবেন। তবে পৌঁছতে পারলে নবকুমার হয়ে যাবেন,’যা দেখিলাম, জন্মজন্মান্তরেও ভুলিবনা’ ভুটানে থাকবেন কোথায়? প্রচুর হোটেল ভুটানে। সব ট্যুরিস্ট স্পটেই। প্রথমেই বলে দিই,  ভুটান কিন্তু দার্জিলিং বা সিকিমের মতো সস্তা নয়। অত্যন্ত পরিস্কার পরিচ্ছন্ন দেশ ভুটানের বিভিন্ন হোটেল, রেস্তোরাঁ, দোকান, গাড়ি ঝাঁ চকচকে। কারণ বিদেশীরাই বেশি আসেন পর্যটক হিসেবে। তাই পরিচ্ছন্নতাও যেমন দামও তেমন। থিম্পু, পারো,  ফুন্টসোলিং-সহ সব জায়গার হোটেল ভাড়া ভারতীয় টাকায় ১৫০০ – ২০০০ টাকা থেকে শুরু। ভুটানের সর্বত্র ভারতীয় টাকা চলে। হোটেল আগে থেকে বুক করে নেবেন অনলাইনে। সব হোটেলে এখন ফ্রি ওয়াইফাই আছে। পরিষেবা ভালোই। খাওয়া থাকা গাড়ী ভাড়া বাবদ দিনপ্রতি কম বেশী ২০০০ টাকায় ভুটান ঘুরে আসা যায়। ভুটানের টাকা হলো ন্যুলট্রাম। বর্তমানে ভুটানের ৫০০ ন্যুলট্রাম সমান আমাদের ভারতীয় টাকায় ৪৯৯ টাকা ২০ পয়সা।

  • জানেন কি বাড়িতে অশান্তি ডেকে আনতে পারে মাকড়সার জাল

    newsbazar24: বাড়িতে অশান্তি ডেকে আনতে পারে মাকড়সার জাল,বাস্তুশাস্ত্র নিয়ে অনেক আলোচনা আমরা আগেও করেছি। বাস্তু নিয়মে বাড়িঘর তৈরি করার কথাও বলা হয়েছে। কিন্তু কখনও দেখা যায়, নিয়ম মেনে বাড়িঘর করার পরও বাড়িতে নানা সমস্যা থেকেই যায়। রোগভোগ, দাম্পত্য কলহ, কাজ নিয়ে সমস্যা, প্রভৃতি নানা সমস্যায় জর্জরিত হয়ে পড়তে হয়।এই রকম সময়ে মনে হতেই পারে, সব কিছু মেনে চলার পরেও কেন সমস্যা মিটছে না? অশান্তি কেন পিছু ছাড়ছে না। বাস্তুর সাহায্য নেওয়া সত্বেও কেন জীবন এত অসহায় হয়ে উঠছে।এর প্রধান কারণ– আমরা দৈনন্দিন জীবনে নিজেদের অজান্তেই এমন কিছু বাস্তুদোষ ঘটিয়ে ফেলি, যার ফলে জীবনে সমস্যা অনেক বেড়ে যায়। দেখে নেওয়া যাক বাস্তু মানা সত্ত্বেও কেন এত অশান্তি ভোগ করতে হয়। প্রথমত, বাড়িতে কখনও মাকড়সার জাল হতে দেওয়া যাবে না। মাকড়সার জাল যত বেশি হবে, তত বেশি বাড়িতে রাহুর প্রকোপ বাড়বে। রাহুর দৃষ্টি থেকে কিছুটা হলেও মুক্তি পেতে হলে বাড়িতে মাকড়সার জাল হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে পরিষ্কার করে ফেলতে হবে। এতে অনেক সমস্যা থেকে মুক্তি পাওয়া যাবে। দ্বিতীয়ত, বাড়িতে একই ঠাকুরের মূর্তি কখনও দুটো রাখা যাবে না। যেমন শিব ঠাকুরের মূর্তিও রয়েছে, আবার ফটোও রেখেছেন, এরকম করা যাবে না। বিশেষ করে মুখোমুখি তো একদমই নয়। এতে বাড়িতে প্রচুর পরিমাণে অশুভ শক্তি বাসা বাঁধে। তৃতীয়ত, ঘরের মাঝখানে যদি কোনও বিম থাকে, তা হলে তার নীচে কখনও শোওয়ার ব্যবস্থা করতে নেই। এতেও বাড়ির সদস্যদের মধ্যে অশান্তি সৃষ্টি হয়।