খেলা


  • আসন্ন বিশ্বকাপ ক্রিকেটের জন্য ঘোষিত হল ভারতীয় ক্রিকেট দল।

    Newsbazar 24 ডেস্ক, ১৫ই এপ্রিলঃ আসন্ন ক্রিকেট বিশ্বকাপের জন্য ঘোষিত হল ভারতীয় ক্রিকেট দল। ১৫ জন ক্রিকেটারের নাম এদিন ঘোষণা করেছে বিসিসিআই। ভারতের বিশ্বকাপ দলে রয়েছে, পাঁচজন বিশেষজ্ঞ ব্যাটসম্যান, দু’জন উইকেট কিপার, তিনজন ফাস্ট বোলার, তিনজন অল-রাউন্ডার এবং দু’জন স্পেশালিস্ট স্পিনার। ৩০ মে থেকে ইংল্যান্ড এবং ওয়েলশে বসবে বিশ্বকাপের আসর। মুম্বইয়ে নির্বাচক কমিটির সঙ্গে মিটিংয়ে উপস্থিত ছিলেন অধিনায়ক বিরাট কোহলি । ছিলেন বি সি সি আই -এর ভারপ্রাপ্ত সচিব অমিতাভ চৌধুরী। এই দল ঘোষণা করেন বিসিসিআই কর্তা অমিতাভ চৌধুরী ও সঙ্গে ছিলেন প্রধান নির্বাচক এমএসকে প্রসাদ। প্রত্যাশামতোই অধিনায়ক বাছা হয়েছে বিরাট কোহলিকে। দল ঘোষণার পর এমএসকে প্রসাদ বলেন, ‘‘দ্বিতীয় উইকেট কিপার হিসাবে আমরা  অভিজ্ঞতার নিরিখে দীনেশ কার্তিককে বেছে নিয়েছি। না হলে ঋষভ পন্থও ছিল।'' তিনি আরও বলেন, ‘‘মহেন্দ্র  সিং ধোনি যদি চোট পান তবেই  দ্বিতীয় উইকেট কিপার হিসাবে দীনেশ কার্তিক তখনই খেলার সুযোগ পাবেন ।''  এছাড়া কারা সুযোগ পেলেন ভারতীয় দলে, দেখে নেওয়া যাক একনজরে। বিশ্বকাপের ভারতীয় দল একনজরে :                           বিরাট কোহলি (অধিনায়ক), রোহিত শর্ম্‌  শিখর ধাওয়ান, কেএল রাহু, বিজয় শঙ্কর, মহেন্দ্র সিং ধোনি (উইকেটকিপার,   কেদার যাদব, দীনেশ কার্তি, যুজবেন্দ্র চাহাল, কুলদীপ যাদব, ভুবনেশ্বর কুমার,     জসপ্রীত বুমরাহ, হার্দিক পাণ্ডিয়া,  রবীন্দ্র জাদেজা ও মহম্মদ শামি।   (প্রথম ছবিতে ভারতীয় দলের নাম ও দ্বিতীয় ছবিতে নির্বাচক কমিটির বৈঠকের ছবি)  

  • পরপর ছয়টি ম্যাচ হারের পর জয়ের খাতা খুলল আরসিবি

    newsbazar24: পরপর ছয়টি ম্যাচ হারের পর জয়ের খাতা খুলল আরসিবি ।দলকে জয়ের সরণীতে ফেরালেন সেই দুজন যাঁরা আরসিবি-র হয়ে সবচেয়ে বেশি রান করেছেন ও ম্যাচ জিতিয়েছেন। ১৭৩ রান তাড়া করতে নেমে বিরাটরা ম্যাচ জিতলেন ৬ উইকেটে। একইসঙ্গে এই আইপিএলের প্রথম জয় এল সপ্তম ম্যাচ খেলে।ইনিংসের শুরু থেকেই মারমুখী মেজাজে শুরু করেন ক্রিস গেইল। প্রথম ৬ ওভারে ষাট রান ওঠার পরে ৭ থেকে ১৫ ওভার পর্যন্ত থমকে যায় পাঞ্জাবের ব্যাটিং। গেইলকে কিছুটা আটকে দেন মইন আলি। তিনি বল হাতে আটোসাঁটো বল করে পাঞ্জাবের রান তোলার গতি আটকে দেন। শেষদিকে গেইল চেষ্টা করলেও কিছুটা কম রানেই ইনিংস শেষ করে পাঞ্জাব। রান তাড়া করতে নেমে কোহলিরাও দারুণ শুরু করেন। পার্থিব প্যাটেল ৯ বলে ১৯ রান করে ফিরে গেলেও বিরাট কোহলি ও এবিডি জুটি খেলা ধরে নেয়। কোহলি ৫৩ বলে ৬৭ রান করে ফিরে গেলেও এবি ডিভিলিয়ার্স ৩৮ বলে ৫৯ রানে অপরাজিত থেকে ম্যাচ জিতিয়ে ফেরেন। শেষদিকে ১৬ বলে ২৮ রানে অপরাজিত থেকে তাঁকে সঙ্গ দেন মার্কাস স্টইনিস।  

  • KXIP vs RCB: পাঞ্জাবকে আট উইকেটে হারিয়ে দিল বেঙ্গালুরু

    News Bazar24: মোহালিতে টস জিতে হোম টিম Kings XI Punjab-কে ব্যাট করতে পাঠিয়েছিলেন Virat kohli। প্রথমে ব্যাট করে পাঞ্জাব থামে ১৭৩-৪-এ। ৬৪ বলে ৯৯ রান করে অপরাজিত থাকেন ক্রিস গেইল। পাঞ্জাবের আরও কোনও ব্যাটসম্যানি বড় রানের মুখ দেখতে পারেননি। গেইলের ব্যাটেই পাঞ্জাবের রান ১৭৩-এ পৌঁছয়। জবাবে ব্যাট করতে নেমে Royal Challengers Bengaluru-র ইনিংসকে এগিয়ে নিয়ে যান বিরাট কোহলি ও এবি ডিভিলিয়ার্স। ৫৩ বলে ৬৭ রান করে আউট হন বিরাট কোহলি। এর পর বেঙ্গালুরুর ইনিংসকে এগিয়ে নিয়ে যান এবি ডিভিলিয়ার্স। হাফ সেঞ্চুরি করেন তিনিও। বেঙ্গালুরুকে শেষ দুই ওভারে ২০ রানে নিয়ে যান তিনি। সেখান থেকে চার বল বাকি থাকতেই ম্যাচ জিতে নেয় বেঙ্গালুরু। ৫৯ রান করে অপরাজিত থাকেন ডিভিলির্সা। আট উইকেটে পাঞ্জাবকে হারিয়ে দিল বেঙ্গালুরু। ছয় ম্যাচে শূন্য পয়েন্ট নিয়ে লিগ তালিকার সবার শেষে ছিলেন বিরাট কোহলিরা। পাঞ্জাবকে হারিয়ে প্রথম জয় তুলে নিল বেঙ্গালুরু। অন্য দিকে আট ম্যাচে চারটি জয় ও চারটি হারের মুখ দেখল পাঞ্জাব। টস হেরে প্রথমে ব্যাট করতে নেমেছে কিংস একাদশ পাঞ্জাব। পাঞ্জাবের হয়ে ওপেন করতে নেমেছেন লোকেশ রাহুল ও ক্রিস গেইল। খুব দ্রুত রান না উঠলেও হাল ধরার চেষ্টায় দুই ওপেনার। আগের ম্যাচে সেঞ্চুরি করেছিলেন লোকেশ রাহুল। পাঁচ ওভারের শেষে পাঞ্জাব পাঞ্জাব ৩৬-০। ১৮ রান করে আউট হলেন লোকেশ রাহুল। কিন্তু হাল ধরলেন ক্রিস গেইল। ২৮ বলে ৫০ রান করলেন তিনি।সঙ্গে রয়েছেন মায়াঙ্ক আগরওয়াল। ন'বলে ১৫ রান করে আউট হলেন মায়াঙ্ক আগরওয়াল। ১০ ওভারে পাঞ্জাব ৯০-২। ১৩ বলে ১৫ রান করে আউট সরফরাজ খান। তিন বলে এক রান করে আউট স্যাম কুরান। ১৫ ওভারে পাঞ্জাব ১২২-৪। শেষ পর্যন্ত একাই লড়লেন ক্রিস গেইল। অল্পের জন্য সেঞ্চুরিটা হল না। ৬৪ বলে ৯৯ রান করে অপরাজিত থাকলেন ক্রিস গেইল। শেষ বলে সেঞ্চুরি করতে গেইলের দরকার ছিল ছয় পাঁচ রান। কিন্তু ছক্কা এল না। বাউন্ডারি হাঁকালেন তিনি। ১৬ বলে ১৮ রান করলেন মনদীপ সিং। ২০ ওভারে পাঞ্জাব থামল ১৭৩-৪-এ। বেঙ্গালুরুকে জিততে হলে করতে হবে ১৭৪ রান। নয় বলে ১৯ রান করে আউট হন পার্থিব প্যাটেল। পাঁচ ওভারে বেঙ্গালুরু ৫৪-১। ব্যাট করছেন এবি ডিভিলিয়ার্স ও বিরাট কোহলি। ১০ ওভারে আরসিবি ৮৮-১। আর উইকেট না পড়লেও রানের গতি খুব বেশি তুলতে পারেননি বিরাটরা। ধরে খেলার চেষ্টা করছেন দুই ব্যাটসম্যান। হাফসেঞ্চুরি করে ফেললেন বিরাট কোহলি। ৩৭ বেল ৫০ রান করেন বিরাট। ১৫ ওভারে আরসিবি ১২৬-১। ৫৩ বলে ৬৭ রান করে আউট হন বিরাট কোহলি। তাঁকে ফেরান মহম্মদ শামি। ব্যাট করছেনএবি ডিভিলির্সা ও মার্কাস স্তইনিস। শেষ পর্যন্ত লড়াই করে বেঙ্গালুরুকে প্রথম জয় এনে দিলেন তাঁরা।  

  • আগামীকাল শনিবার থেকে শুরু হতে চলেছে -দ্বাদশ আইপিএল ২০১৯।

    Newsbazar 24, 22 মার্চঃ আগামীকাল শনিবার (২৩ মার্চ) শুরু হতে চলেছে -দ্বাদশ আইপিএল ২০১৯। গতবারের  আইপিএল চ্যাম্পিয়ন চেন্নাই সুপার কিংস-এর বিরুদ্ধে বিরাট কোহলির রয়্যাল চ্যালেঞ্জার্স বেঙ্গালুরুর জমজমাট খেলা  দিয়ে শুরু হতে চলেছে আইপিএল ২০১৯। চেন্নাই সুপার কিংস ও রয়্যাল চ্যালেঞ্জার্সের মধ্যে আইপিএল-এর ম্যাচটি হবে চেন্নাইয়ের এমএ চিদাম্বরম স্টেডিয়ামে। ম্যাচটি হবে রাত ৮টা থেকে। ইতিমাধ্যে পৌঁছে গিয়েছে বিরাট কোহলির রয়্যাল চ্যালেঞ্জার্স । অবশ্যই দুই দলই জিতেই শুরু করতে চাইছে। রেকর্ড কিন্তু চেন্নাইয়ের পক্ষে। প্রথম ম্যাচে সিএসকে দলে নেই দুই দক্ষিণ আফ্রিকান দুপ্লেসিস ও ইমরান তাহির। গত বছর সিএসকের হয়ে ওপেনিং জুটি হিসেবে দারুণ সফল হয়েছিলেন রায়ডু ও ওয়াটসন। এবারও তাদেরকেই ওপেন করার দায়িত্ব দেওয়া হতে পারে। ধোনি-রায়না-কেদার যাদবের মিডল অর্ডারেও হাত দেওয়া হবে বলে খবর নেই। দুই অলরাউন্ডার হিসেবে সম্ভবত খেলবেন ডোয়েন ব্রাভো ও মিচেল স্যান্টনার। বাকি এক বিদেশীর কোটায় খেলার কথা স্য়াম বিলিংস ও ডেভিড উইলির মধ্যে একজনের। আরসিবি দলের হয়ে ওপেন করতে পারেন কোহলি-পার্থিব জুটি। এরপর অবশ্যই এবিডি।  এবারই দলে নেওয়া হয়েছে  ক্যারিবিয়ান প্রতিভা শিমরন হেটমায়ারকে। ফিটনেস নিয়ে ন্য  সমস্যা থাকলেও প্রথম ম্য়াচে খেলানো হতে পারে নিলামে প্রচুর অর্থ ব্যয় করে দলে নেওয়া শিবম দুবে-কেও। ভারতের হয়ে সম্প্রতি প্রত্।যাশিত সাফল্য না পেলেও আরসিবি জার্সিতে গত আইপিএল-এ ২০ উইকেট নেওয়া উমেশ যাদবও সুযোগ পেতে চলেছেন। চাহাল ও মইন আলির পাশে তৃতীয় স্পিনার হিসেবে পবন নেগি বা ওয়াশিংটন সুন্দরকে নেওয়া হতে পারে। দুই দলের সম্ভাব্য প্রথম একাদশ সিএসকে - শেন ওয়াটসন, আম্বাতি রায়ডু, সুরেশ রায়না, এমএস ধোনি (অধিনায়ক ও উইকেটরক্ষক), কেদার যাদব, ডেভিড উইলি / স্যাম বিলিংস, ডোয়েন ব্রাভো, রবীন্দ্র জাদেজা, দীপক চাহার, মিচেল স্যান্টনার ও শর্দুল ঠাকুর। আরসিবি - পার্থিব প্যাটেল (উইকেটরক্ষক), বিরাট কোহলি (অধিনায়ক), এবি ডি'ভিলিয়ার্স, শিম হেটমায়ার, মইন আলি, শিবম দুবে, ওয়াশিংটন সুন্দর / পবন নেগি, টিম সাউদি / হেনরিখ ক্লাসেন, উমেশ যাদব, মহম্মদ সিরাজ ও যুজবেন্দ্র চাহাল।  

  • ভারতে আবার বিশ্বকাপ ফুটবল হতে চলেছে আগামী ২০২০ সালে।

    ডেস্ক, ১৬ই মার্চঃ আবার ভারতে অনূর্ধ্ব-১৭ ফিফা বিশ্বকাপ ফুটবল হতে চলেছে তবে এবার অনূর্ধ্ব-১৭ ফিফা  বিশ্বকাপ  ছেলেদের নয়। আগামী ২০২০ সালে অনূর্ধ্ব-১৭ ফিফা  মহিলা বিশ্বকাপ ফুটবল আয়োজন করতে চলেছে ভারত। শুক্রবারই ভারতকে এই বিশ্বকাপ আয়োজনের দায়িত্ব দেওয়ার কথা ঘোষণা করেছে ফিফা। মিয়ামিতে FIFA Council Meeting-এ  এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। প্রসঙ্গত ২০১৭ সালে  ছেলেদের অনূর্ধ্ব-১৭ ফিফা বিশ্বকাপ সাফল্যের সঙ্গেই আয়োজন করেছিল ভারত। সাফল্যের সঙ্গেই আয়োজনের পাশাপাশি গোটা দেশ মেতে উঠেছিল ফুটবলে। ২০১৭-র বিশ্বকাপ আয়োজনের পর খুশি হয়েছিল ফিফা। জেভিয়ার সেপ্পি যিনি পুরুষদের টুর্নামেন্টের ডিরেক্টর ছিল তিনিও ভারতকে শুভেচ্ছা জানিয়েছেন।  তিনি টুইটে লেখেন, ‘‘ভারত ও মহিলা ফুটবলের জন্য দারুন খবর।''  পুরুষদের অনূর্ধ্ব-১৭ ফিফা বিশ্বকাপ আয়োজনের মধ্য দিয়ে ভারতীয় ফুটবলের ব্যাপক উন্নতি ঘটেছিল তেমনি আবারও  ভারতের দায়িত্বে মহিলা অনূর্ধ্ব-১৭ বিশ্বকাপ আসায় ভারতীয় মহিলা ফুটবলের জন্য একটা নতুন  দিক নির্দেশ উন্মোচিত হবে বলে আশা করা যায়।

  • হোয়াইট ইলেভেনের টি-২০ ক্রিকেট টুর্নামেন্ট-র ফাইনালে হোয়াইট ইলেভেন ও সাত সকালে, মালদা।

    কার্ত্তিক পাল, মালদা, ১৫ই মার্চঃ হোয়াইট ইলেভেন ক্লাবের পরিচালনায় টি-২০  ক্রিকেট টুর্নামেন্টের  আজ ছিল সেমিফাইনাল খেলা। প্রথম সেমিফাইনালে মুখোমুখি হয়েছিল সাত সকালে, মালদা বনাম সব্যসাচী সংঘ মালদা সাত সকালে টসে জিতে ব্যাটিং করে নির্ধারিত ২০ ওভারে করে ৮ঊইকেটে ১৯৩ রান। জবাবে ব্যাট করতে নেমে সব্যসাচী সংঘ মালদা ১৬৩ রানে সকলে আঊট হয়ে যান। সাত সকালে ৩০ রানে জয়লাভ করে ফাইনালে পৌছে যায়। দ্বিতীয় সেমিফাইনালে অংশগ্রহণ করে হোয়াইট ইলেভেন ও বহরমপুর সবুজ সংঘ। সবুজ সংঘ টসে জিতে হোয়াইট ইলেভেনকে ব্যাট করতে পাঠায়। তারা ২০ ওভারে ১৩০ রান করে। বহরমপুর সবুজ সংঘ ব্যাট করতে নেমে বিপর্যয়ের সন্মুখীন হয়  এবং ৬৩ রানে সকলে আউট হয়ে যায়। হোয়াইট ইলেভেন ৬৭ রানে জয়লাভ করে। অর্থাৎ এই  টুর্নামেন্টের ফাইনাল খেলায় মুখোমুখি হবে আয়োজক হোয়াইট ইলেভেন ও সাত সকালে, মালদা। ফাইনাল খেলা হবে আগামী রবিবার ১৭ তারিখ।     

  • এআইএফএফ-র সুপার কাপ থেকে নাম প্রত্যাহার মোহনবাগান, ইস্টবেঙ্গল সহ আই লীগের সাতটি দল

    কার্ত্তিক পাল, ১৩ই মার্চঃ এআইএফএফ(ALL INDIA FOOTBALL FEDERATION)  গত মরসুম থেকে আই লিগ ও আইএসএল-এর দলগুলোকে নিয়ে সুপার কাপ চালু করেছে । কিন্তু এই  বছর সুপার কাপ মুখ থুবড়ে পড়তে চলেছে । ইতিমধ্যে  আই লিগে অংশ গ্রহন কারী  দল মোহনবাগান ও মিনার্ভা পাঞ্জাব এফসি সুপার কাপ থেকে নাম তুলে নিল। তাদের অভিযোগ আই লীগের দলগুলোর সঙ্গে অবিচার করা হয়েছে । আরও জানা গেছে যে  একই পথে হাঁটতে চলেছে ইস্টবেঙ্গল সহ আই লিগের আরও ৫ ক্লাব। সূত্রের খবরে জানা যায়  আই লিগের দলগুলোর সঙ্গে অবিচার করা হয়, এই মর্মে মেল করেছিল ইস্টবেঙ্গল, মোহনবাগান, চেন্নাই সিটি এফসি, মিনার্ভা পাঞ্জাব, আইজল এফসি, গোকুলম কেরালা ও নেরোকা এফসি। কিন্তু ফেডারেশনের তরফে এই মেলের কোনও জবাব দেওয়া হয়নি। তারপরেই এই দলগুলি ফেডারেশনকে চিঠি লিখে জানায়, তারা সুপার কাপ খেলতে ইচ্ছুক নয়। ফেডারেশন সচিব কুশল দাস এই চিঠির প্রাপ্তি স্বীকারও করেছেন বলে জানা যায়।    

  • মালদায় হোয়াইট ইলেভেনের পরিচালনায় শুরু হল টি-২০ ক্রিকেট টুর্নামেন্ট।

    কার্ত্তিক পাল, মালদা, ১৩ই মার্চঃ মালদা শহরে সারা বছর ধরে যে সমস্ত ক্লাব ক্রিকেটের প্রতিভাকে তুলে ধরার জন্য প্রচেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে তার মধ্যে অন্যতম ঝলঝলিয়ার হোয়াইট ইলেভেন ক্লাব। বিগত কয়েক  বৎসরের ন্যায় এবারও হোয়াইট ইলেভেন ক্লাব “প্রদীপ কর  মেমোরিয়াল চ্যাম্পিয়ান ও রাম চন্দ্র ঘোষ মেমোরিয়াল রানার্স আপ” নক আউট   টি-২০ ক্রিকেট টুর্নামেন্টের আয়োজন করেছে। যার শুভ উদ্বোধন হল আজ মালদা রেল কলোনির  মাঠে।উপস্থিত ছিলেন ইংরেজবাজার পৌরসভার ২২নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলার শ্রী নরেন্দ্র নাথ তেওয়ারী ও পূর্ব রেলওয়ের মালদা ডিভিশানের আধিকারিকগন। ক্লাব সুত্রে  জানা যায়  মোট ৮ টি দল নিয়ে এই খেলা  অনুষ্ঠিত হচ্ছে। দল গুলি হল মালদা ক্লাব,হোয়াইট ইলেভেন ক্লাব, জেনিথ এফ সি মালদা, সবুজ সংঘ বহরমপুর ,সুজয় স্মৃতি সংঘ ,মালদা সাত সকালে, সব্যসাচী সংঘ মালদা,  ও জে এস একাদশ মালদা । আজকের উদ্বোধনী  প্রথম খেলায় সব্যসাচী সংঘ সুজয় স্মৃতি সংঘকে পরাজিত করে সেমিফাইনালে উঠে। টসে জিতে সুজয় স্মৃতি সংঘ প্রথমে ব্যাট করে নির্ধারিত ২০ ওভারে ৫ উইকেটে ১৬৩ রান করে। জবাবে ব্যাট করতে নেমে সব্যসাচী সংঘ ৬ উইকেটে ১৬৪ রান করে। সব্যসাচী সংঘ ৪ উইকেটে জয়লাভ করে। ম্যান অফ দি ম্যাচ হন সব্যসাচী সংঘের মনোজ বড়ুয়া।  দ্বিতীয় খেলায় অংশগ্রহণ করছে মালদা ক্লাব ও সবুজ সংঘ বহরমপুর। মালদা ক্লাব প্রথমে ব্যাট করে ৮উইকেটে ১৫২রান করে। তারপর সবুজ সংঘ বহরমপুর ২উইকেটে ১৫৩ রান করে ৮ উইকেটে জয়লাভ  করে।

  • আই লিগ ২০১৮-১৯, ইস্টবেঙ্গল ও রিয়েল কাশ্মীর ম্যাচ কাশ্মীর থেকে দিল্লী নিয়ে যাওয়া হল! ঝুলেই থাকল মিনার্ভার ভবিষ্যৎ

    ডেস্ক,  ২৫ ফেব্রুয়ারীঃ সর্ব ভারতীয় ফুটবল ফেডারেশনের আই লিগ কমিটির মিটিংয়ে সর্ব সম্মতিক্রমে সিদ্ধান্ত  হল ২৮ ফেব্রুয়ারি ইস্টবেঙ্গল ও রিয়েল কাশ্মীর ম্যাচটি শ্রীনগর থেকে  সরিয়ে কোনও তৃতীয় জায়গায় নিয়ে যাওয়া হবে। সোমবার দিল্লির ফুটবল হাউসের সভায়  সিদ্বান্ত নেওয়া হল  ২৮ ফেব্রুয়ারি ইস্টবেঙ্গল ও রিয়েল কাশ্মীর ম্যাচটি খেলা হবে দিল্লিতে। এই  সভায় সভাপতিত্ব  করেন সর্ব ভারতীয় ফুটবল ফেডারেশনের  সিনিয়র ভাইস প্রেসিডেন্ট সুব্রত দত্ত। এ ছাড়া ছিলেন বিকে রোকা, লালঘিনলোভা ও রোচক ল্যাঙ্গার।ছিলেন এআইএফএফ-এর সচিব কুশল দাস ও আই লিগ সিইও সুনন্দ ধর। সাম্প্রতিক কাশ্মীরের পরিস্থিতিতে  রিয়েল কাশ্মীরই চাইছে ২৮ ফেব্রুয়ারি ইস্টবেঙ্গল ম্যাচটি কোনও তৃতীয় জায়গায় করা হোক।  যার পরই কমিটি সিদ্ধান্ত নেয় ম্যাচটি দিল্লিতে স্থানান্তরিত করার। ১৮ ফেব্রুয়ারি শ্রীনগরে মিনার্ভা পাঞ্জাব খেলতে না যাওয়া নিয়ে দুই পক্ষের মত শোনে ফেডারেশন। সেই ম্যাচে নিরাপত্তার কারণ দেখিয়ে খেলতে যায়নি মিনার্ভা। দুই দলের প্রতিনিধিদের সঙ্গে কথা বলার পর বিষয়টিকে ফেডারেশনের এক্সিকিউটিভ কমিটিতে পাঠানো হয়েছে পরবর্তী সিদ্ধান্তের জন্য।

  • জেলা বার্ষিক ক্রীড়া প্রতিযোগিতায় চ্যাম্পিয়ান সেবাশ্রম কোচিং সেন্টার

    মালদা, ২৫ ফেব্রুয়ারীঃ মালদা জেলা ক্রীড়া সংস্থার পরিচালনায় ৬৯ তম জেলা  বার্ষিক ক্রীড়া প্রতিযোগিতা গতকাল শেষ হল। ২৩ এবং ২৪ ফেব্রুয়ারী দুই দিন ধরে মালদা জেলা ক্রীড়া সংস্থার মাঠে এই প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হয়। জেলার বিভিন্ন প্রান্ত থেকে ৮৩৩ জন প্রতিযোগী এই প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণ করে।  এর মধ্যে ৫৮১ জন পুরুষ ও ২৫২ জন মহিলা। দুই দিনে প্রায় অর্ধ শতাধিক ইভেন্টে প্রতিযোগিরা অংশগ্রহণ করে। এই প্রতিযোগিতার পুরুষ ও মহিলা বিভাগে চ্যাম্পিয়ান হয় সেবাশ্রম কোচিং সেন্টার এবং রানার্স হয় প্রতিভার সন্ধানে কোচিং সেন্টার।