খেলা


  • পুরাতন মালদা এ টি সির উদ্যোগে ১০ কিমি রোড রেসএ প্রথম ফালাকাটার হাসিবুল,দ্বিতীয় ও তৃতীয় মালদার তিলক মণ্ডল ও অনুপ ঘোষ।

    মালদা, ১৩ই জানুয়ারীঃ পুরাতন মালদা অ্যাথলেটিক্স ট্রেনিং সেন্টার ও এম আই সি সি উদ্যোগে দুই দিনব্যাপী যে শীতকালীন ক্রীড়া উৎসব এর আয়োজন করা হয়েছিল আজ দ্বিতীয় দিনে ১০ কিলোমিটার রোড  রেস এর আয়োজন করা হয়। এই দৌড় প্রতিযোগিতা শুরু হয় সাহাপুরের ডিস্কো মোড় থেকে শেষ হয় পুরাত্ন মালদার নবাবগঞ্জ পর্যন্ত। এই প্রতিযোগিতর শুভ উদ্বোধ্ন করেন মালদা কেন্দ্রের বিধায়ক শ্রী ভুপেন্দ্র নাথ হালদার উপস্থিত ছিলেন বিশিস্ট সমাজসেবী বিভুতু ভুষন ঘোষ । মোট ৩২ জন প্রতিযোগী এই প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণ  করেন।  প্রথম হন জলপাইগুড়ির ফালাকাটার  হাসিবুল রহমান , দ্বিতীয় স্থান লাভ করেন মালদা প্রতিভার সন্ধানে স্পোর্টস একাডেমীর তিলক মণ্ডল, তৃতীয়  নঘরিয়ার অনুপ ঘোষ।  

  • অজস্র গোলের সুযোগ নষ্ট করে ভারত ২-০ তে পরাজিত সংযুক্ত আরব আমিরশাহীর কাছে।

    ডেস্ক ১০ জানুয়ারীঃ আজ এশিয়ান কাপে আরব আমিরশাহির জায়েদ স্পোর্টস সিটি স্টেডিয়ামে   সংযুক্ত আরব আমিরশাহির বিরুদ্ধে সমানে সমানে লড়লেন সুনীলরা। কিন্তু অসংখ্য গোলের সুযোগ তৈরি করেও নিশ্চিত গোলের সুযোগও নষ্ট করল শেষ পর্যন্ত ২-০ গোলে পরাজিত হতে হল ভারতকে। শুরু থেকে  ভারত  সংযুক্ত আরব আমিরশাহীকে চাপেই রেখেছিল ভারত। গোলের কাছে গিয়ে বার কয়েক নিশ্চিত গোলের সুযোগও নষ্ট করল।  প্রথমার্ধে  ভারতীয় দল বেশী  সুযোগ পেল । সংযুক্ত আরব আমিরশাহী একটাই সুযোগ তৈরি করল আর তা থেকেই গোল তুলে নিল। ম্যাচের ৪১ মিনিটে   মাঝ মাঠে  থেকেই আল আহমেদ  বল নিয়ে  ভারতের বক্সে ঢুকে পড়েছিলেন। সন্দেশ আর আনাসের মধ্যে  ভুল বোঝাবুঝির সুযোগ নিলেন আল আহমেদ।  সেই সুযোগেই ফাকায় দাড়িয়ে থাকা খালফানকে বল বাড়িয়ে দেন আল আহমেদ। দুই ডিফেন্ডারকে টপকে ভারতের গোলে বল ঠেলেন খালফান। গোলকিপার গুরপ্রিত অসহায় ভাবে দাঁড়িয়ে থাকেন। ভারত প্রথমার্ধ শেষ করে ১-০ গোলে পিছিয়ে থেকে। গোল খাওয়ার পরই সুনীল ছেত্রী গোলের  সুযোগ নষ্ট করলেন । ৪৩ মিনিটে প্রথম পোস্ট থেকে সুনীলের শট দ্বিতীয় পোস্টের কয়েক ইঞ্চি দূর দিয়ে বেরিয়ে গেল বাইরে। পুরো ম্যাচে প্রচুর গোলের সুযোগ  নষ্ট করল ভারত।   ৮৮ মিনিটে আলি আহমেদ  গোল করে ২-০ করলেন। রক্ষণের সঙ্গে সঙ্গে গুরপ্রিতকেও এ দিন বেশ দিশাহীন দেখাল। ম্যাচ শুরুর আট মিনিটের মধ্যেই অনিরুদ্ধ থাপার কর্নার থেকে সন্দেশ ঝিঙ্গানের হেড অল্পের জন্য বাইরে গেল। ১৩ মিনিটে আবার সেই থাপা-ঝিঙ্গান জুটির গোল মিস। ২৩ মিনিটে থাপার ক্রস থেকে সুনীল ছেত্রীর হেড দারুণভাবে বাঁচিয়ে দিলেন এইসা। ২৮ মিনিটে আবার নিশ্চিত মিস। আশিকের জন্য বক্সের বাইরে থেকে মাপা পাস বাড়িয়েছিলেন সুনীল ছেত্রী। গোলকিপারকে একা পেয়েও গোলে বল রাখতে পারলেন না আশিক। এ ভাবেই প্রথমার্ধে এত আক্রমণ করেও  গোলের মুখ খুলতে পারল না  উল্টে খেলার গতির বিরুদ্বে ভারত শেষ বেলায় গোল খেয়ে গেল । দ্বিতীয়ার্ধের শুরুতে হোলিচরন নার্জারিকে তুলে জেজেকে নামিয়েছিলেন কনস্টানটাইন। কিন্তু তাতেও লাভ হল না। নিজেদের ভুল আর ক্রসপিসের জন্যই পিছিয়ে থাকতে হল ভারতকে । ৫৩ মিনিটে জেজের মিসের পর ৫৫ মিনিটে তাঁর শট ক্রসপিসে লেগে ফিরল। যত সুযোগ নষ্ট করল ভারত তাতে আরব আমিরশাহীকে  গোলের মালা পরাতে পারতেন সুনীল ছেত্রীরা। শেষ মিনিটে যেভাবে আবার ক্রসপিসে লেগে ফিরল সন্দেশ ঝিঙ্গানের হেড তাতে বলাই যায় দিনটা ভারতের ছিল না।  এখন  শেষ ম্যাচের দিকে তাকিয়ে থাকতে হবে  ভারতকে।  

  • এএফসি এশিয়ান কাপের প্রথম ম্যাচে থাইল্যান্ডের বিরুদ্ধে দুরন্ত জয় ভারতের,মেসিকে টপকে গেলেন সুনীল।

    ডেস্ক, ৭ জানুয়ারীঃ এএফসি এশিয়ান কাপে  দুর্দান্ত জয় দিয়ে  শুরু করল ভারত। আবুধাবির আল নাহান স্টেডিয়ামে থাইল্যান্ডকে ভারত  ৪-১ গোলে হারাল । এএফসি এশিয়ান কাপের প্রথম ম্যাচে থাইল্যান্ডের বিরুদ্ধে শুরু থেকেই ম্যাচকে সামনে থেকে নেতৃত্ব দিলেন সুনীল। ভারতের হয়ে জোড়া গোল  তার । তারমধ্যে একটি পেনাল্টিতে। সেই পেনাল্টিটা আদায় করে নিয়েছিলেন আশিক কুরুনিয়ান।  থ্রো থেকে বল নিয়ে গোলের মধ্যে ঢুকে পড়েছিলেন তিনি। সেখান থেকেই চলতি বলে শট নেন গোল লক্ষ্য করে। কিন্তু সেই শট গোলকিপারের গায়ে লেগে থাইল্যান্ড ডিফেন্ডার বানমাথানের হাতে গিয়ে লাগে। পেনাল্টি পায় ভারত।  পেনাল্টি থেকে ঠান্ডা মাথায় ডান পায়ের শটে গোল করে ভারতকে ১-০তে এগিয়ে দিয়েছিলেন সুনীল ছেত্রী। এর সঙ্গেই আন্তর্জাতিক ম্যাচে ৬৬ গোল করে লিওনেল মেসিকে টপকে যান তিনি বর্তমানে খেলা ফুটবলার হিসেবে । তাঁর আগে রয়েছেন ক্রিস্টিয়ানো রোনাল্ডো। যদিও  ১-০তে এগিয়ে থাকা  বেশিক্ষণ স্থায়ী হয়নি । ৩৩ মিনিটে ফ্রি কিক থেকে গোল শোধ করে দেন থাইল্যান্ডের অধিনায়ক তিরাসিল ডাংডা। গোল ছেড়ে কিছুটা সেই সময় বেরিয়ে এসেছিলেন গুরপ্রিত সান্ধু। পিছিয়ে থেকে গোল শোধ করে প্রথমার্ধে ম্যাচের প্রাধান্য রেখে দ্রুত গতিতে খেলতে  থাকে থাইল্যান্ড।এএফসি এশিয়ান কাপের প্রথম ম্যাচের প্রথমার্ধ শেষ হয়েছিল ১-১ গোলে। কিন্তু, বিরতির পর   ভারতকে অন্য রুপে পাওয়া গেল।ঝলসে উঠল ভারত।  ৪৬ মিনিটে বক্সের মাথার উপর থেকে অসাধারণ গোল সুনীলের। উদান্তার সেন্টার থেকে। এই গোল করে আন্তর্জাতিক ম্যাচে নিজের ৬৭ তম গোল করে ফেলেন তিনি। এদিন যেমন মেসিকে টপকালেন তেমনই ইতিহাস তৈরি করে ফেলতেন পারতেন সুনীল। এশিয়ান কাপের প্রথম খেলায় তার  হ্যাটট্রিক হত  দুটি সহজ সুযোগ নষ্ট না  করলে। ৬৭ মিনিটে ভারতের হয়ে ব্যবধান বাড়ান অনিরুদ্ধ থাপা। বুদ্ধিদীপ্ত গোল। বক্সের মধ্যে উদান্তার থেকে বল পেয়ে ছোট্ট একটা চিপ। বল জালে জড়িয়ে যায়। আশিক কুরিয়ানের পরিবর্ত হিসাবে মাঠে নেমে গোল করেন জেজে। বক্সের মাথা থেকে।

  • ভারতের ক্রিকেটে ইতিহাস ,অস্ট্রেলিয়ায় সর্ব প্রথম টেস্ট সিরিজ জয়, বৃষ্টি ভেস্তে দিল সিডনি টেস্ট,

    ডেস্ক, ৭ জানুয়ারীঃ অবশেষে বৃষ্টি ও স্বল্প আলোর কৃপায় অমীমাংসিত থেকেই গেল সিডনি টেস্ট। ঈশ্বরের কৃপা বর্ষিত হল অস্ট্রেলিয়া দলের ঊপর। চতুর্থ দিনে চা-পানের বিরতি-র আগে যেখানে খেলা বন্ধ হয়েছিল, পষ্ণম দিনে সেখান থেকে  খেলার গতিপ্রকৃতি একটুও বদলায়নি । পঞ্চম দিনেও মধ্যাহ্নভোজ পর্যন্ত কোন খেলা করানো যায়নি। মধ্যাহ্নভোজের পর আলোর অবস্থা ও আবার  মাঠ পরিদর্শন করে আম্পায়রা।  আলোর অবস্থা পর্যালোচনা করেন ।  আবহাওয়ার উন্নতির আশায় কিছুক্ষণ অপেক্ষাও করেন আম্পায়রা। কিন্তু পর্যাপ্ত আলো না থাকায় দুই দলের অধিনায়কের সঙ্গেও কথা বলে র সিডনি টেস্ট ড্র বলে ঘোষণা করেন। চতুর্থ টেস্ট ড্র হলেও  ভারতের দখলেই থেকে যায় সিরিজ। ২-১ ফলে টেস্ট সিরিজ জয় করে বিরাট কোহলির নেতৃত্বে  ভারতীয় দল অস্ট্রেলিয়ার  নতুন ইতিহাস রচনা করেন। কারণ, এই সফরের আগে অস্ট্রেলিয়ায় কোনও টেস্ট সিরিজ জয়ের রেকর্ড ভারতের দখলে ছিল না। ম্যান অফ দি ম্যাচ এবং ম্যান অফ দি সিরিজ নির্বাচিত হয়েছেন চেতেশ্বর পূজারা। এই সফরে তিনটি  শতরান  করেছেন এই ব্যাটসম্যান। সিডনি টেস্টে  প্রথম ইনিংসে ভারতীয় ব্যাটসম্যা‌নদের ৬২২ রানের লক্ষ্যের সামনে দাড়াতেই পারেননি অস্ট্রেলিয়ার ব্যাটসম্যানরা। ৩০০ রানেই শেষ যায় তাদের প্রথম ইনিংস। ফলো-অন  করার পর চার ওভারই ব্যাট করতে পেরেছিল অস্ট্রেলিয়া। বিনা উইকেটে ৪ ওভারে তাদের সংগ্রহ ছিল ৬ রান। এরমধ্য হ্যারিস  বুমরাহের বলে আউট হতে হতে বেঁচেছিলেন। স্যাঁতস্যাঁতে আবহাওয়ায় স্পিনাররা এই পিচে কার্যকরি হয়ে উঠতে পারতেন এবং ভারতের জয় নিশ্চিত ছিল বলেই মনে করা হচ্ছে।  তারপর বৃষ্টি এসে শেষটা ভেস্তে দিল যেভাবে তৃতীয় দিনের শেষটাও দিয়েছিল।   সিডনি টেস্টে ভারত যদি জিতত তা হলে সিরিজ  ৩-১ ফলে ভারতের দখলেই যেত।  তাই সিডনি টেস্ট ড্র হওয়ায় ভারতের একটা নিশ্চিত জয় হাতছাড়া হয়েছে একথা সত্য। অবশেষে ভারত জিতল ইন্ডিয়া- গাভাসকার ট্রফি।

  • এস আর এম বি কাপ ক্রিকেট প্রতিযোগিতায় চ্যাম্পিয়ান মালদা অনীক সংঘ

    কার্ত্তিক চন্দ্র পাল,মালদা, ৬  জানুয়ারীঃ,আজ ছিল এস আর এম  বি কাপ    ক্রিকেট টুর্নামেন্টের  ফাইনাল খেলা। গত ৩০শে ডিসেম্বর থেকে মোট আটটি দল নিয়ে    এই প্রতিযীগিতা শুরু হয়েছিল মালদহের প্রানকেন্দ্র বৃন্দাবনি ময়দানে। আজ চূড়ান্ত পর্যায়ের এই খেলায় অংশগ্রহণ করেছিল মালদা অনীক সংঘ ও সবুজ সংঘ  বহরমপুর। এই খেলাকে কেন্দ্র করে ব্যাপক দর্শক সমাগম হয়েছিল।  অনীক সংঘ,মালদা টসে জিতে ফিল্ডিং  করার সিদ্বান্ত নেয়। সবুজ সংঘ নির্ধারিত   ৩০ ওভারে ২৯১রান করে সকলে আউট হয়ে যান।সবুজ সংঘ-র সব্বোচ্চ রান করেন তন্ময় প্রামানিক ৪৫ বলে ৮২ রান ও পঙ্কজ সাঊ ২৮ বলে ৫২ রান  করেন। ন।  জবাবে ব্যাট করতে নেমে অনীক সংঘ রাহুল দালাল ও অরুন চাপরানার ব্যাটিংএ ভর করে ২ উইকেট বাকী থাকতেই জয়ের লক্ষ মাত্রায় পৌছে যান।   অনীক সংঘ-র রাহুল দালাল ৫১ বলে ১১১ রান এবং অরুন চাপরানা ৬৩ বলে ৯১  রান করেন। ।  মালদা অনীক সংঘ ২ উইকেটে  জয়লাভ করে। ম্যান  অফ দি ম্যাচ হন মালদা অনীক সংঘের রাহুল দালাল। ম্যান  অফ দি সিরিজ হন মালদা অনীক সংঘের অরুন চাপরানা। চ্যাম্পিয়ান দল মালদা অনীক সংঘ পান নগদ ১ লক্ষ টাকা ও ট্রফি এবং বিজিত দল পায় নগদ ৫০,০০০=০০টাকা  ও রানার্স ট্রফি।       

  • এস আর এম বি কাপ ক্রিকেট টুর্নামেন্টের ফাইনালে মুখোমুখি মালদা অনীক সংঘ ও সবুজ সংঘ বহরমপুর

    কার্ত্তিক চন্দ্র পাল,মালদা, ৪ জানুয়ারীঃ,মালদহে অনুষ্ঠিত এস আর এম  বি কাপের   সীমিতওভারের ক্রিকেট টুর্নামেন্টের  ফাইনালে  দ্বিতীয় দল হিসাবে উঠল মালদা অনীক সংঘ ।  আজ ছিল এই  টুর্নামেন্টের দ্বিতীয় সেমিফাইনাল। মুখোমুখি হয়েছিল মালদা অনীক সংঘ ও  অগ্রগামী  সংঘ শিলিগুড়ি। অনীক সংঘ,মালদা টসে জিতে ব্যাটিং করার সিদ্বান্ত নেয়। অনীক সংঘ, ২৯।৫ ওভারে ২৮৬ রান করে সকলে আউট হয়ে যান। ব্যাটিংএ  অনীক সংঘ-র জয়জীৎ বসু ৬৩বলে ৮৩ রান এবং অরুন চাপরানা ৪৫ বলে ৭৫ রান করেন। বোলিংএ অনীক সংঘ-র অরুন চাপরানা আদিত্য শর্মা ৬ ওভারে ৩৯ রান দিয়ে ৫ উইকেট এবং শ্চীন শর্মা  ৪ ওভারে ২২ রান দিয়ে ২  উইকেট সংগ্রহ করেন। জবাবে ব্যাট করতে নেমে  অগ্রগামী  সংঘ শিলিগুড়ি  ২৮ ওভারে ২১৩ রান করে সকলে আউট হয়ে যান। অগ্রগামী  সংঘের নবাঙ্কুর ঘোষ ৩৭ বলে ৫৬ রান করেন এবং আদিত্য শর্মা ৪৩ বলে ৬০ রান করেন। বোলিংএ অগ্রগামী  সংঘ-র আদিত্য শর্মা ৫।৫ ওভারে ৩৩ রান দিয়ে  ৪ উইকেট এবং নবাঙ্কুর ঘোষ ৩ ওভারে ৪১ রান দিয়ে ৩ উইকেট সংগ্রহ করেন।  মালদা অনীক সংঘ ৭৩ রানে  জয়লাভ করে। ম্যান অফ দি ম্যাচ হন মালদা অনীক সংঘের অরুন চাপরানা। (উপরের ছবিতেমালদা অনীক সংঘের অরুন চাপরানার হাতে ম্যান অফ দি ম্যাচের পুরুস্কার তুলে দিচ্ছেন ইংরেজবাজার পৌরসভার প্রাক্তন চেয়ারম্যান ও কাউন্সিলার নরেন্দ্র নাথ তেওয়ারী)

  • কালিতলা ক্লাবের পরিচালনায় এস আর এম বি কাপের ফাইনালে সবুজ সংঘ বহরমপুর

    কার্ত্তিক চন্দ্র পাল,মালদা  ৩ জানুয়ারীঃ মালদহের  কালিতলা ক্লাবের পরিচালনায় এস আর এম  বি কাপের  সীমিতওভারের ক্রিকেট টুর্নামেন্টের  ফাইনালে সবুজ সংঘ বহরমপুর। আজ ছিল টুর্নামেন্টের প্রথম সেমিফাইনাল। মুখোমুখি হয়েছিল এ এন্ড এস ক্রিকেট একাডেমী,কলকাতা  ও সবুজ সংঘ বহরমপুর । সবুজ সংঘ টসে জিতে ফিল্ডিং করার সিদ্বান্ত নেয়। এ এন্ড এস ক্রিকেট একাডেমী,কলকাতা শুরুতেই ব্যাটিং বিপর্যয়ের মুখে পড়ে। মাত্র ৮৯ রানে এ এন্ড এস ক্রিকেট একাডেমীর সকলে আউট হয়ে যান। জবাবে ব্যাট করতে নেমে  সবুজ সংঘ  ৬।২ ওভারে ২উইকেটে ৮৪ রান সংগ্রহ করে। ৮ঊইকেটে জয়লাভ করে। ম্যান অফ দি ম্যাচ হন যুগ্মভাবে বিবেক সিংহ ও শ্যাম শেখর মণ্ডল,সবুজ সংঘ বহরমপুর       আগামীকাল ফাইনালের অপর খেলায় মুখোমুখি হবে মালদা অনীক সংঘ ও  অগ্রগামী  সংঘ

  • চতুর্থ টেস্টের জন্য ভারতীয় দলের ১৩ জনের নাম ঘোষনা করল বিসিসিআই

    ডেস্ক,২ জানুয়ারি : আগামীকাল ভারত ও অস্ট্রেলিয়ার টেস্ট সিরিজের শেষ  টেস্ট  শুরু হতে যাচ্ছে।  এই টেস্টের ফলাফলের ঊপর নির্ভর করছে ভারত কি আর একবার অস্ট্রেলিয়ার মাটিতে সিরিজ জিততে পারবে না কি সিরিজ অমীমাংসিত থাকবে। আজকের দিনে দাঁড়িয়ে এই সিরিজের সব থেকে কঠিন ম্যাচ খেলতে নামছে ভারত। আজ শেষ  টেস্ট-র জন্য ১৩ জনের দল ঘোষণা করে দিল ভারতীয় ক্রিকেট কন্ট্রোল বোর্ড।   অভিজ্ঞ স্পিনার রবিচন্দ্রন অশ্বিনকে নিয়ে এখনও সংশয় রয়েছে। অশ্বিন আদৌ খেলতে পারবেন কিনা তা নিয়ে ম্যাচের দিন সকালেই সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে বলে দলের তরফে জানানো হয়েছে। অ্যাডিলেড টেস্টের চতুর্থ দিন পেটে চোট পেয়েছিলেন অশ্বিন। তার পর পার্থ ও মেলবোর্নে খেলতে পারেননি তিনি। মঙ্গলবার অনুশীলন করলেও তিনি এখনও পুরোপুরি সুস্থ নন। হয়তো শেষ টেস্টেও তিনি খেলতে পারবেন না। বুধবার সাংবাদিক সম্মেলনে এসে বিরাট কোহলি বলেন, চোট নিয়ে রীতিমতো হতাশ অশ্বিন। কিন্তু তার পরই অশ্বিনের নাম ১৩ জনের দলে দেখা যায়। টুইট করে টিম ঘোষণা করেছে বিসিসিআই। সেখানেই তারা জানিয়েছে, ‘‘রবিচন্দ্রন অশ্বিন খেলতে পারবে কিনা সেটা ম্যাচের দিন সকালেই সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।'' তবে শেষ টেস্টে ইশান্ত শর্মার নাম নেই। ১৩ জনের দলেও রাখা হয়নি তাঁকে। তাঁর জায়গায়  উমেশ যাদবকে নেওয়া হয়েছে ।রিস্ট-স্পিনার কুলদীপ যাদবকে দেখা টেতে পারে রবীন্দ্র জাডেজার সঙ্গে জুটি বেঁধে স্পিন অ্যাটাককে শক্তিশালী করতে। অবশ্যই যদি অশ্বিন খেলতে না পারে। চতুর্থ টেস্টে নেই রোহিত শর্মা। কারন তিনি দেশে ফিরে গেছেন তার স্ত্রী কন্যা সন্তানের জন্ম দিয়েছেন সম্প্রতি। এই মুহূর্তে ভারত চার ম্যাচের সিরিজে ২-১এ এগিয়ে রয়েছে। ঘোষিত ভারতীয় দল -বিরাট কোহলি(অধিনায়ক), এ রাহানে,কে এল রাহুল। ময়াঙ্ক আগরওযাল। সি পূজারা। হনুমান বিহারী, আর পন্থ, আর জাডেজা,কে যাদব, আর আশ্বিন, মহঃ সামী, জস্প্রীত বুমরা ও ঊমেশ যাদব। ‘‘রবিচন্দ্রন অশ্বিন খেলতে পারবে কিনা সেটা ম্যাচের দিন সকালেই সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।'' (ছবিটি বিসিসি আই সূত্রে প্রাপ্ত)   

  • কালিতলা ক্লাবের পরিচালনায় ১৮তম এস.আর.এম.বি.কাপ ক্রিকেট টুর্নামেন্ট শুরু হল।

    কার্ত্তিক চন্দ্র পাল,মালদা  ৩০ শে ডিসেম্বরঃ কালিতলা ক্লাবের পরিচালনায় ১৮তম এস আর এম  বি কাপ সীমিতওভারের ক্রিকেট টুর্নামেন্টের শুভ উদ্বোধন হল আজ বৃন্দাবনী ময়দানে। উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন কালীতলা ক্লাবের প্রধান উপদেষ্টা প্রাক্তন মন্ত্রী ও কাউন্সিলার কৃষনেন্দু নারায়ন চৌধুরী,কালীতলা ক্লাবের সভাপতি প্রবীন ভাটিয়া, মালদা জেলা ক্রীড়া সংস্থার সম্পাদক গোপাল চৌধুরী, সহ সভাপতি সোমেশ দাস, উত্তরবঙ্গ স্পোর্টস কাউন্সিলের সদস্য ও কাউন্সিলার প্রসেনজিত দাস এ ছাড়াও মালদা জেলার প্রাক্তন ক্রিকেট খেলোয়াড়েরা।         কালিতলা ক্লাবের সম্পাদক আমাদের জানান  মোট  ৮টি দল নিয়ে নক আউট পর্যায়ে এই খেলা অনুষ্ঠিত  হবে। এই খেলায় অংশগ্রহনকারী দলগুলি হল ১) মালদা অনীক সংঘ,,২)শান্তি ভারতী পরিষদ, মালদা ৩) অগ্রগামী  সংঘ ,শিলিগুড়ি,৪) কলকাতা একাদশ ৫) এ টু জেড বীরভূম ,৬)  এ এন্ড এস ক্রিকেট একাডেমী,কলকাতা ৭) রয়্যাল একাডেমী,বাংলাদেশ, ৮) সবুজ সংঘ বহরমপুর.          আজকের খেলায় অংশগ্রহণ করেছিল , কলকাতা একাদশ ও অগ্রগামী  সংঘ,শিলিগুড়ি। টসে জিতে ব্যাট করার সিদ্বান্ত নেয় কলকাতা একাদশ। তারা নির্ধারিত ৩৫ ওভারে করে ২২২ রান। কলকাতার লোকেশ শর্মা অসাধারন ব্যাটিং করে ৬৭ বলে ১০৪ রান করে নট আউট থাকেন। মুকেশ যাদব করেন ৩৭ বলে ৪২ রান। জবাবে ব্যাট করতে নেমে অগ্রগামী  সংঘ,শিলিগুড়ি ২৫.১ ওভারে ৩ উইকেট হারিয়ে ২২৪ রান করে ম্যাচ জিতে নেন।  কলকাতা একাদশের  লোকেশ শর্মা  ৬৭ বলে ১০৪ রান করে অপরাজিত থেকে  এবং বোলিং এ ৬ ওভার ব্ল করে ৪৪ রান দিয়ে ২ উইকেট সংগ্রহ করে ম্যান অফ দি ম্যাচ নির্বাচিত হন।

  • তৃতীয় দিনের শেষে যশপ্রীত বুমরার আসাধারন বোলিংএ অস্ট্রেলিয়া ১৫১ রানে শেষ। ব্যাটিং বিপর্যয়ের মুখে ভারত।

    ডেস্ক, ২৮শে ডিসেম্বরঃ ভারত ও অস্ট্রেলিয়ার তৃতীয় টেস্টের তৃতীয় দিনের খেলার শেষে পরিষ্কার হতে চলেছে এই টেস্টে ফয়সলা হবেই। পাল্লা ভারী ভারতের দিকে। কিন্তু ক্রিকেট অনিশ্চয়তার খেলা।  প্রথম ইনিংসে ভারতের একটি সেঞ্চুরি ও দুটো হাফসেঞ্চুরির  দৌলতে  যখন ভারত  ৪০০ রানে ডিক্লেয়ার করল  তখনও বোঝা যায়নি অস্ট্রেলিয়ার ব্যাটিং লাইন আপ এভাবে আত্মসমর্পণ করবে । দ্বিতীয় দিনের শেষে মাত্র ছয় ওভারই খেলার সুযোগ পেয়েছিল অস্ট্রেলিয়া। আট রান নিয়ে তৃতীয় দিনের খেলা  শুরু হয়ছিল অস্ট্রেলিয়ার। দুই ওপেনার মার্কাস হ্যারিস ও অ্যারন ফিঞ্চ ব্যাট  করতে নেমে অস্ট্রেলিয়াকে সাহস যোগাতে পারেননি। ফিঞ্চ আউট হন মাত্র আট রানে। হ্যারিস অউট হন ২২ রানে। উসমান খোয়াজা ও শন মার্শ করেন যথাক্রমে ২১ রান ও  ১৯  রান । ২০ রান করেন ত্রাভিস হেড। মিটেল মার্শ  মাত্র ৯ রান করে ফিরে যান। এর পর অধিনায়ক টিম পাইন ও প্যাট কামিন্স কিছুটা চেষ্টা করেন। কিন্তু সেই ২২ রানের উপর যেতে পারেননি কেউই। পাইন ২২ রানে আউট হন আর কামিন্সের রান ১৭। শেষের দুই উইকেট যায় কোনও রান না করেই। সাত রান করে অপরাজিত থাকেন মিচেল স্টার্ক। ৬৬.৫ ওভারে ১৫১ রানেই শেষ হয়ে যায় অস্ট্রেলিয়া। ভারতের সবচেয়ে সফল বোলার যশপ্রীত বুমরা। তিনি ১৫.৫ অভার বল করে ৬ উইকেট সংগ্রহ করেন। ২ উইকেট নেন রবীন্দ্র জাডেজা। একটি করে উইকেট  ইশান্ত শর্মা ও মহম্মদ শামির। দ্বিতীয় ইনিংসে ব্যাট করতে নেমে ভারত ও অস্ট্রেলিয়ার দেখানো পথে হাটতে শুরু করে। ওপেন করতে নেমে প্রথম ইনিংসের পর দ্বিতীয ইনিংসেও ব্যর্থ হনুমা বিহারী। মাত্র ১৩ রান করেই প্যাভেলিয়নে ফিরলেন তিনি। তিন ও চার নম্বরে নেমে চেতেশ্বর পূজারা ও অধিনায়ক বিরাট কোহলি রান না করেই অয়াউট হয়ে গেলেন।  একজন খেললেন দুই বলও একজন চার। এই দু'জনই প্রথম ইনিংসে ভারতকে সন্মানজনক জায়গায়  নিয়ে গিয়েছিলেন। যেখানে চেতেশ্বর পূজারার ব্যাট থেকে এসেছিল ১০৬ রান ও বিরাট কোহলির ৮২ রান। কিন্তু দ্বিতীয় ইনিংসে রীতিমতো ধাক্কা খেলেন এই সিরিজের দুই সেরা ব্যাটসম্যান। তৃতীয় টেস্ট শুরুর আগে  সহঅধিনায়ক অজিঙ্ক রাহানে বলেছিলেন  তিনি এই ম্যাচে সেঞ্চুরি বা ডবল সেঞ্চুরিও করতে পারেন। কিন্তু দুই ইনিংসে তিনি ব্যর্থ। এ দিন করলেন মাত্র এক রান। প্রথম ইনিংসে করেছিলেন ৩৪ রান। রোহিত শর্মা আউট হলেন পাঁচ রানে। তৃতীয় দিনের শেষে ২৮ রান করে অপরাজিত রয়েছেন মায়াঙ্ক আগরওয়াল ও ছয় রান করে ঋষব পন্থ। তৃতীয় দিনের শেষে ভারতের রান ৫উইকেটে  ৫৪।