দেশ


  • শেষ দফার ভোটে বিজেপির প্রার্থী সানি দেওল

    newsbazar24 : শেষ দফায় গুরুদাসপুরে বিজেপির প্রার্থী সানি দেওল, বেশকিছু দিন ধরে বিজেপিতে যোগদানের জল্পনা ছড়িয়েছিল অমিত শাহর সঙ্গে তাঁর সাক্ষাতের পর । সেই জল্পনা মঙ্গলবার সকালেই সত্যি হয়েছে। আর তার পর জল্পনা ছড়ায় যে চলতি লোকসভা নির্বাচনে পদ্ম-প্রতীকে লড়াইয়ে নামতে চলেছেন বলিউডের সানি। মঙ্গলবার সন্ধ্যার পর বিজেপির তরফে পঞ্জাবের তিনটি আসনের প্রার্থীর নাম ঘোষণা করা হয়েছে। সেই তালিকায় নাম রয়েছে সানি দেওলের।পঞ্জাবের গুরুদাসপুর লোকসভা আসন থেকে প্রার্থী করল বিজেপি।মঙ্গলবার সকালে বিজেপিতে যোগ দিয়ে সানি দেওল জানিয়েছিলেন, প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর সঙ্গে কাজ করার জন্য রাজনীতিতে এলেন। আর তার পর তাঁকে এমন একটি আসনে প্রার্থী করা হল, যে আসনে দীর্ঘদিন বিজেপির সাংসদ ছিলেন অভিনেতা বিনোদ খান্না।বিনোদ খান্নার প্রয়াণের পর ২০১৭ সালে ওই কেন্দ্রে উপনির্বাচন হয়। তখন সেখানে জিতে যায় কংগ্রেস। ফলে ওই আসন পুনরুদ্ধারে এখন গেরুয়া শিবিরের বাজি সানি দেওল।প্রসঙ্গত, সানি দেওল পরিবারের তৃতীয় সদস্য, যিনি বিজেপির হয়ে ভোটের লড়াইয়ে নামলেন। এর আগে তাঁর বাবা ধর্মেন্দ্র বিকানের থেকে জিতে বিজেপির সাংসদ হয়েছিলেন। ২০১৪ সালে তাঁর সত্ মা হেমা মালিনী উত্তরপ্রদেশের মথুরা থেকে জিতে সাংসদ হন। এবারও ওই আসনে বলিউডের ড্রিম গার্লকেই প্রার্থী করেছে বিজেপি।পঞ্চাবে মোট ১৩টি লোকসভার আসন রয়েছে। শেষ দফায় ১৯ মে ওই আসনগুলিতে নির্বাচন হবে।

  • 'চৌকিদার নরেন্দ্র মোদী চোর হ্যায়' বলায় সুপ্রিম কোর্টে ক্ষমা চাইলেন রাহুল

    newsbazar24: 'চৌকিদার নরেন্দ্র মোদী চোর হ্যায়' বলায় সুপ্রিম কোর্টে ক্ষমা চাইলেন রাহুল। কংগ্রেস সভাপতির এই মন্তব্যের পরই তাঁর বিরুদ্ধে আদালত অবমাননার অভিযোগ এনে সুপ্রিম কোর্টে মামলা করেন বিজেপি নেত্রী মিনাক্ষী লেখি। এই মামলার শুনানিতে সুপ্রিম কোর্ট স্পষ্ট করে দেয় যে তারা কোথাও এমন কথা বলেনি যে 'চৌকিদার নরেন্দ্র মোদী চোর হ্যায়'।সোমবার সুপ্রিম কোর্টে হলফনামা দিয়ে ক্ষমা চাইতে হল রাহুলকে।তিনি নির্বাচনী প্রচারে উত্তেজনার বশে এই কথা বলে ফেলেন বলে জানিয়েছেন। 'প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীকে এবার চোর বলছে সুপ্রিম কোর্টও।' নির্বাচনী প্রচারে এমন মন্তব্য করায় হলফনামা দিয়ে শীর্ষ আদালতে ক্ষমা চাইতে হল কংগ্রেস সভাপতি রাহুল গান্ধীকে। বিরোধীরা তাঁর বক্তব্যের ভুল ব্যাখ্যা করেছে বলে এদিন দাবি করেন রাহুল। গত বছর ডিসেম্বরে রাফাল চুক্তিতে নিয়ম বহির্ভূত কাজকর্মের অভিযোগ উড়িয়ে দিয়ে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীকে ক্লিনচিট দেয় সুপ্রিম কোর্ট। চলতি বছরের ১০ এপ্রিল রাফাল মামলার রিভিউ পিটিশন মঞ্জ‍ুর করে শীর্ষ আদালত। ফাঁস হয়ে যাওয়া তথ্যের ভিত্তিতেও ফের শুনানি শুরু করা যায় বলে জানিয়ে দেয় সুপ্রিম কোর্ট। এর প্রেক্ষিতেই রাহুল বলেন, 'আমি প্রথম থেকেই বলছি, এবার সুপ্রিম কোর্টও মেনে নিল যে চৌকিদার নরেন্দ্র মোদী চোর হ্যায়।' কংগ্রেস সভাপতির এই মন্তব্যের পরই তাঁর বিরুদ্ধে আদালত অবমাননার অভিযোগ এনে সুপ্রিম কোর্টে মামলা করেন বিজেপি নেত্রী মিনাক্ষী লেখি। এই মামলার শুনানিতে সুপ্রিম কোর্ট স্পষ্ট করে দেয় যে তারা কোথাও এমন কথা বলেনি যে 'চৌকিদার নরেন্দ্র মোদী চোর হ্যায়'।তিনি নির্বাচনী প্রচারে উত্তেজনার বশে এই কথা বলে ফেলেন বলে জানিয়েছেন। সোমবার সুপ্রিম কোর্টে হলফনামা দিয়ে ক্ষমা চাইতে হল রাহুলকে। 

  • মন্দিরের অনুষ্ঠানে গিয়ে হুড়োহুড়ি ,পদপিষ্ট হয়ে মৃত ৭

    News Bazar24:      তামিলনাড়ুতে পদপিষ্ট       হয়ে মৃত্যু হল ৭ জনের। এদের মধ্যে ৪ জন মহিলা। আশঙ্কাজনক আরও ১০ জন। রবিবার ওই মর্মান্তিক দুর্ঘটনা ঘটে তামিলনাড়ুর তিরুচিরাপল্লির কাছে মুথাইয়াপালায়াম গ্রামে। এদিন গ্রামের কারুপ্পাস্বামী মন্দিরে বাত্সরিক চিথিয়া পৌরনামি অনুষ্ঠানে জড়ো হয়েছিলেন কয়েকশো মানুষ। মন্দিরের পদিকাসু অনুষ্ঠান শুরু হতেই তুমুল হুড়োহুড়ি পড়ে যায়। এই অনুষ্ঠানে কয়েন বিতরণ করা হয় ভক্তদের মধ্যে। কয়েক মিনিটের মধ্যে মন্দির চত্বর আহত মানুষদের ভিড়ে ভরে যায়। মন্দিরে কয়েন বিতরণ একটি মূল অনুষ্ঠান। ওইসব কয়েন ভক্তরা বাড়িতে রেখে দেন। তাঁদের বিশ্বাস এতে তাদের সংসারে সমৃদ্ধি আসবে।এদিন গ্রামের কারুপ্পাস্বামী মন্দিরে বাত্সরিক চিথিয়া পৌরনামি অনুষ্ঠানে জড়ো হয়েছিলেন কয়েকশো মানুষ। মন্দিরের পদিকাসু অনুষ্ঠান শুরু হতেই তুমুল হুড়োহুড়ি পড়ে যায়। এই অনুষ্ঠানে কয়েন বিতরণ করা হয় ভক্তদের মধ্যে। কয়েক মিনিটের মধ্যে মন্দির চত্বর আহত মানুষদের ভিড়ে ভরে যায়। মন্দিরে কয়েন বিতরণ একটি মূল অনুষ্ঠান। ওইসব কয়েন ভক্তরা বাড়িতে রেখে দেন। তাঁদের বিশ্বাস এতে তাদের সংসারে সমৃদ্ধি আসবে। এখন গোটা ঘটনার জন্য পুলিসকেই দায়ি করছেন মন্দির কর্তৃপক্ষ। তাঁদের দাবি ভিড় নিয়ন্ত্রণ করার জন্য পর্যাপ্ত পুলিসি ব্যবস্থা ছিল না। তবে জেলা প্রশাসনের তরফে জানানো হয়েছে, ঘটনার পেছনে যারা দায়ি তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

  • মাঝ রাতে লাইনচ্যুত হাওড়া-নয়া দিল্লি পূর্বা এক্সপ্রেস ,আহত অনেক

    News Bazar24: কানপুরের কাছে লাইনচ্যুত হাওড়া-নয়া দিল্লি পূর্বা এক্সপ্রেস। শুক্রবার রাত একটা নাগাদ ওই দুর্ঘটনা ঘটে কানপুরের কাছে রুমা গ্রামে।s 6 ট্রেনের ১২টি বগি লাইন থেকে বেরিয়ে যায়। এর মধ্যে উল্টে যায় ৪টি বগি। এখনও পর্যন্ত ১৩ জনের আহত হওয়ার খবর পাওয়া যাচ্ছে। এদের মধ্যে ৬ জন রেল কর্মী।কানপুরের জেলাশাসক বিজয় পন্থ সংবাদমাধ্যমে জানিয়েছে, উদ্ধারকাজ চলছে। যাত্রীদের কানপুর সেন্ট্রাল স্টেশনে নিয়ে যাওয়ার জন্য বাসের ব্যবস্থা করা হয়েছে। রেল কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে যাত্রীদের দিল্লি নিয়ে যাওয়ার জন্য বিশেষ ট্রেনের ব্যবস্থা করা হয়েছে।

  • এবার থেকে গুগল প্লে-স্টোরে আর পাওয়া যাবে না টিকটক অ্যাপটি

    newsbazar24: মাদ্রাজ হাই কোর্টের নির্দেশে টিকটক অ্যাপ ডাউনলোড করা পুরোপুরি নিষিদ্ধ করল গুগল।গত ৩ এপ্রিল কেন্দ্রকে টিকটিক অ্যাপ নিষিদ্ধ করতে বলেছিল হাই কোর্টে। কেন্দ্রীয় তথ্য ও প্রযুক্তি মন্ত্রকের তরফে জানানো হয়, আলাদতের নির্দেশ অনুযায়ী অ্যাপেল ও গুগলকে এই বিষয়ে নোটিস পাঠানো হয়েছিল। নির্দেশ মেনেই ভারতে গুগল প্লে-স্টোর থেকে সরিয়ে ফেলা হয়েছে অ্যাপটি অর্থাৎ এখন গুগল প্লে-স্টোরে গিয়ে জনপ্রিয় এই অ্যাপটি খুঁজলে আর পাওয়া যাবে না। তবে মঙ্গলবার সন্ধেতেও অ্যাপেল স্টোরে টিকটক অ্যাপের অস্তিত্ব ছিল।মজার মজার ভিডিও তৈরি করা যায় এখানে।গান থেকে অভিনয়, এই ভিডিও অ্যাপে বিনোদনের অন্ত নেই। ফলে যতদিন গড়িয়েছে, জনপ্রিয় হয়েছে এই অ্যাপ। চলতি বছর জানুয়ারিতে এদেশে তিন কোটিরও বেশি মানুষ এটি ইনস্টল করেছে। ফেব্রুয়ারিতে ২৪০ মিলিয়ন বার ডাউনলোড হয়েছে অ্যাপটি। পরিসংখ্যানেই স্পষ্ট, অল্প সময়ে ঠিক কতখানি জনপ্রিয় হয়ে ওঠে টিকটক। কিন্তু অনেকেই অভিযোগ তোলেন, টিকটক অ্যাপটি যুবপ্রজন্মকে পর্নের প্রতি আকৃষ্ট করছে। অল্প বয়সিদের উপর এর খারাপ প্রভাব পড়ছে। ফলে যতদ্রুত সম্ভব, অ্যাপটি বন্ধ করে দেওয়ার দাবি ওঠে। কিন্তু চিনা সংস্থা বাইটডান্স টেকনোলজি পালটা অনুরোধ জানায় আদালতকে।তাদের আরজি ছিল, এই অ্যাপটি যেন ভারতে নিষিদ্ধ না করা হয়। তাহলে বড়সড় আর্থিক ক্ষতির মুখে পড়তে হবে তাদের। কারণ ভারতেই তাদের কোম্পানিতে ২৫০ জন কাজ করেন। টিকটক জনপ্রিয় হয়ে ওঠায় ব্যবসা আরও বাড়ানোর পরিকল্পনাই ছিল তাদের। কিন্তু সমাজে এই অ্যাপের খারাপ প্রভাবের কথা বিচার করে চিনা সংস্থার এমন আরজি খারিজ করে দেয় হাই কোর্ট। তারপরই নির্দেশ দেওয়া হয়, সমস্ত প্লে-স্টোর থেকে যেন এই অ্যাপকে ব্লক করে দেওয়া হয়। যাতে ইচ্ছা করলেও আর এটি কেউ ডাউনলোড করতে না পারে।

  • প্রাকৃতিক বিপর্যয়ে ভোট প্রস্তুতি ক্ষতিগ্রস্ত ৮ রাজ্যে : মৃতর সংখ্যা ৪৭

    News Bazar24 :ধুলো ও ঝড়বৃষ্টিতে বিপর্যন্ত ৮ রাজ্য। প্রাকৃতিক বিপর্যয়ে ইতিমধ্যেই ৮ রাজ্যে মৃত্যু হয়েছে ৪০ জনের। ধুলো ঝড় ও বৃষ্টিতে মধ্যপ্রদেশে মৃত্যু হয়েছে ১৬ জনের, গুজরাটে মৃত্যু হয়েছে ১৮ জনের। ঝাড়খণ্ড, মহারাষ্ট্রে মৃত্যু হয়েছে ১ জন করে। উত্তরপ্রদেশে মৃতের সংখ্যা ১ ও পঞ্জাবে ৩। অন্যদিকে হিমাচলপ্রদেশে প্রাকৃতিক বিপর্যয়ে মৃত্যু হয়েছে ১ জনের। প্রাকৃতিক বিপর্যয়ে ভোট প্রস্তুতি ক্ষতিগ্রস্ত ৮ রাজ্যে। প্রধানমন্ত্রী নিহতদের পরিবারকে ২ লক্ষ টাকা করে ক্ষতিপূরণ ও ক্ষতিগ্রস্তদের ৫০ হাজার টাকা করে দেওয়ার কথা ঘোষণা করেছেন !

  • নির্বাচন কমিশন জানিয়ে দিল, শান্তিপূর্ণভাবেই শেষ হয়েছে প্রথম দফা।

    ডেস্ক ঃ প্রথম দফার ভোটগ্রহণ শেষ হল বৃহস্পতিবার। সন্ধ্যায় নির্বাচন কমিশন জানিয়ে দিল, শান্তিপূর্ণভাবেই শেষ হয়েছে প্রথম দফা।এদিন দেশের ২০টি রাজ্যে ভোটগ্রহণ হয়। ২০টি রাজ্যের ৯১টি আসনে ভোটগ্রহণ হয়েছে। ভোটদাতা ছিলেন প্রায় ১৪ কোটি। প্রতিটি রাজ্যেই অধিকাংশ ভোটাররাই তাঁদের মতাধিকার প্রয়োগ করেছেন। ভোটদানে অংশ নেওয়ার জন্য ভোটারদের ধন্যবাদ দিয়েছেন সহকারী নির্বাচন কমিশনার উমেশ সিনহা। কমিশনের তরফে যেমন জানানো হয়েছে যে এদিনের ভোট প্রক্রিয়া শান্তিপূর্ণই ছিল, তেমনই জানানো হয়েছে বিক্ষিপ্ত কয়েকটি ঘটনাও ঘটেছে। কয়েকটি জায়গায় অশান্তিও ছড়িয়েছে বলে কমিশনের তরফে জানানো হয়েছে। অন্যদিকে সন্ধ্যা ৬টা পর্যন্ত ভোটদানের একটি হিসেবও মিলেছে। ওই হিসেব বলছে, অরুণাচল প্রদেশে ৬৬ শতাংশ, বিহারে ৫০ শতাংশ, লাক্ষাদ্বীপে ৬৬ শতাংশ, মহারাষ্ট্রে ৫৬ শতাংশ, মেঘালয়ে ৬৭.১৬ শতাংশ, ওড়িশায় ৬৮ শতাংশ এবং উত্তর প্রদেশে ৬৩.৬৯ শতাংশ ভোট পড়েছে। সবচেয়ে বেশি ভোট পড়েছে উত্তর-পূর্ব ভারতের রাজ্য ত্রিপুরায়। সেখানে ৮১.৮ শতাংশ ভোটাররা নির্বাচনী প্রক্রিয়ায় অংশগ্রহণ করেছেন। এর পরেই রয়েছে পশ্চিমবঙ্গ। এই রাজ্যে এদিন ভোট পড়েছে ৮১ শতাংশ। এদিন এখানে মাত্র দুটি লোকসভা কেন্দ্রে ভোট ছিল। তার মধ্যে একটি কোচবিহার। আর দ্বিতীয়টি হল আলিপুরদুয়ার। এদিন যেসমস্ত জায়গায় নির্বাচন হয়েছে, তার মধ্যে অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ ছিল ছত্তিসগড়ের বস্তার অঞ্চল। ওই এলাকা মাওবাদী অধ্যুষিত। সেখানে প্রতিবারই ভোটদান থেকে সাধারণ মানুষকে বিরত থাকার হুমকি দেওয়া হয়। এবারও তাই হয়েছিল। কয়েকদিন আগে আইইডি বিস্ফোরণে উড়িয়ে দেওয়া হয় ছত্তিসগড়ের বিজেপি বিধায়ক ভীমা মাণ্ডবীর কনভয়। ওই হামলা ভীমা নিহত হন। শহিদ হন তিন পুলিস কর্মী। এছাড়াও নিহত হন ওই বিজেপি বিধায়কের গাড়ির চালক। বৃহস্পতিবার ভোটপর্ব শুরুর কিছুক্ষণ পর আইইডি বিস্ফোরণের খবর মিলেছিল। কিন্তু শেষপর্যন্ত বস্তারে জয় হল গণতন্ত্রের। সেখানে ৭৭ শতাংশ ভোট পড়েছে বলে কমিশন সূত্রে জানা গিয়েছে।এদিকে এদিন বিভিন্ন রাজ্যের বেশ কয়েকটি জায়গায় গোলামাল হয় বলেও খবর মিলেছে। অন্ধ্রপ্রদেশের অনন্তপুরের তড়িপত্তি শহরে ভোট সংক্রান্ত সংঘর্ষের জেরে নিহত হন তেলগু দেশম পার্টির কর্মী এস ভাস্কর রেড্ডি। 

  • সারদা মামলায় সুপ্রিম কোর্টের নোটিশ রাজীব কুমারকে ।

    Newsbazar,ডেস্ক, ৮ এপ্রিল :সারদা মামলায়  কলকাতার প্রাক্তন পুলিশ কমিশনার রাজীব  কুমারকে নোটিশ পাঠাল সুপ্রিম কোর্ট। তাঁকে গ্রেপ্তারের আবেদন জানিয়ে সুপ্রিম কোর্টের দ্বারস্থ হয়েছে  সিবি আই । সেই আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে রাজীব কুমারের জবাব চেয়ে সুপ্রিম কোর্ট নোটিশ পাঠাল। সূত্রের খবর অনুযায়ী, প্রধান বিচারপতি জানিয়েছেন, প্রয়োজনে রাজীব কুমার গ্রেফতারের ওপর যে নিষেধাজ্ঞা রয়েছে তা প্রত্যাহার করে নেওয়া হবে। এই মামলার পরবর্তী শুনানি ১৫ এপ্রিল। সারদা কেলেঙ্কারিতে রাজীব কুমারকে হেপাজতে নেওয়া দরকার। সোমবার এই মর্মে সুপ্রিম কোর্টে আবেদন করে সিবি আই । এদিন ছিল সেই আবেদনের শুনানি।আবেদনে বলা হয়, রাজীব কুমার তদন্তে সহযোগিতা করেননি। এমন কী সুপ্রিম কোর্টের নির্দেশে জিজ্ঞাসাবাদের মুখোমুখি হওয়ার পরও রাজীব কুমার তদন্তকারীদের প্রাসঙ্গিক সব প্রশ্ন এড়িয়ে যান। তিনি চিটফান্ড কাণ্ডের গুরুত্বপূর্ণ নথি সংক্রান্ত বিষয়েও সিবি আই -কে সাহায্য করেননি। এই কারণে সিবি আই  শীর্ষ আদালতের কাছে রাজীবকে হেপাজতে নেওয়ার আবেদন জানিয়েছে। আজ সেই আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে রাজীব কুমারের জবাব চেয়ে সুপ্রিম কোর্ট নোটিশ পাঠাল। এই মামলার পরবর্তী শুনানি ১৫ এপ্রিল।    

  • ভোটের মুখে রাজীবের গ্রেফতারের আর্জি সিবিআইয়ের

    newsbazar24:  লোকসভা ভোটের মুখে সুপ্রিম কোর্টে সিবিআইয়ের আর্জি, রাজীবকে (বর্তমানে এডিজি-সিআইডি) হেফাজতে নিয়ে জেরা করতে দেওয়া হোক।শিলংয়ে রাজীব কুমারকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হলেও সিবিআইয়ের অভিযোগ, তিনি সত্যি কথা বলেননি। রাজীব কুমারের তত্ত্বাবধানে বিধাননগর পুলিশ কমিশনারেট এবং ‘সিট’ যে সব তথ্যপ্রমাণ ‘ধামাচাপা দিয়েছে বা লোপাট’ করেছে, তা উদ্ধার করতে এবং সারদা-রোজ ভ্যালি কাণ্ডের পিছনে ‘বৃহত্তর ষড়যন্ত্র’-র তদন্তের জন্যই এঁদের হেফাজতে নিয়ে তদন্ত করা প্রয়োজন। যেমন সিবিআইয়ের দাবি, সিট-অফিসারেরা জানিয়েছেন, তাঁরা বিধাননগরের প্রাক্তন ডিসি (ডিডি) অর্ণব ঘোষের থেকে নির্দেশ পেতেন আর অর্ণবকে নির্দেশ দিতেন রাজীব। কিন্তু অর্ণবকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য ডাকা হলেও তিনি আসেননি। কেন্দ্রীয় তদন্ত সংস্থার এ-ও আর্জি, রাজীবের বিরুদ্ধে কোনও ‘দমনমূলক পদক্ষেপ’ করা বা গ্রেফতার করা যাবে না বলে সুপ্রিম কোর্টের নির্দেশ প্রত্যাহার করা হোক। এ ছাড়া, পশ্চিমবঙ্গ সরকারকে নির্দেশ দেওয়া হোক, তারা যেন সিবিআই তদন্তে বাধা না দেয়, সিবিআই অফিসারদের হুমকি দেওয়া বা হেনস্থার চেষ্টা না করে। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় তথা তৃণমূল শীর্ষনেতৃত্ব বরাবরই অভিযোগ করেছেন, নরেন্দ্র মোদী সরকার সিবিআইকে রাজনৈতিক স্বার্থে কাজে লাগানোর চেষ্টা করছে। রাজীব কুমারের সরকারি বাসভবনে সিবিআই অফিসারেরা যাওয়ার পরে ধর্নাতেও বসেছিলেন মুখ্যমন্ত্রী। এর পরে সুপ্রিম কোর্ট রাজীবকে শিলংয়ে সিবিআইয়ের সামনে হাজির হওয়ার নির্দেশ দেয়। সেই জিজ্ঞাসাবাদের ‘স্টেটাস রিপোর্ট’ দেখে প্রধান বিচারপতি রঞ্জন গগৈ মন্তব্য করেছিলেন, এতে ‘খুব, খুব গুরুতর অভিযোগ’ রয়েছে। সিবিআইকে হলফনামা দিয়ে সেই অভিযোগ এবং দাবি জানাতে বলেছিল সুপ্রিম কোর্ট।  সিবিআই-অভিযোগ, রাজীব কাউকে বাঁচানোর চেষ্টা করছেন। ‘প্রভাবশালী’দের ক্লিনচিটও দিয়েছেন , অস্বস্তিকর প্রশ্ন এড়িয়ে গিয়েছেন, অন্য অফিসারদের ঘা়ড়ে দায় ঠেলেছেন,  বিধাননগরের পুলিশ কমিশনার হিসেবে রাজীবের জমানাতেই বিনা বাধায় সারদা ৮০৫.৭৭ কোটি টাকা ও রোজ ভ্যালি ৬,৮৬৫ কোটি টাকা তুলেছে, সুদীপ্ত সেনের অভিযোগ ছিল কুণাল ঘোষ, সৃঞ্জয় বসু, শান্তনু ঘোষ, নলিনী চিদম্বরম, মাতঙ্গ ও মনোরঞ্জনা সিংহের বিরুদ্ধে। রাজীব কুণালের বিরুদ্ধে পদক্ষেপ করেন • রাজীব অধীনস্থদের মৌখিক নির্দেশ বা সম্মতি দিয়েছেন। ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকেও মৌখিক রিপোর্ট দিয়েছেন। যা অবিশ্বাস্য রাজ্যের আইনজীবী বিশ্বজিৎ দেব  এ হল নির্বাচনের মুখে রাজনৈতিক প্রতিহিংসার বশে কালিমালিপ্ত করার চেষ্টা রাজীব কুমারের বিরুদ্ধে সারদা-তদন্তের প্রামাণ্য নথি লোপাটের অভিযোগ আগেই তুলেছিল সিবিআই। শুক্রবার সুপ্রিম কোর্টে নতুন হলফনামা দিয়ে সংস্থার অভিযোগ, বাছাই করা কয়েক জন ‘প্রভাবশালী’-কে বাঁচানোর চেষ্টা করেছেন রাজীব কুমার। এ ছাড়া, ‘প্রভাবশালী’দের কেউ তদন্ত প্রভাবিত করার চেষ্টা করেননি বলে দাবি করে সিবিআইয়ের সামনে সবাইকে ‘ক্লিনচিট’ও দিয়েছেন রাজীব।সারদা-রোজভ্যালির বেআইনি অর্থ সংগ্রহের সময় বিধাননগরের পুলিশ কমিশনার হিসেবে রাজীবের ভূমিকা নিয়েও সিবিআই প্রশ্ন তুলেছে। হলফনামায় বলা হয়েছে, সারদা গোষ্ঠী ও রোজ ভ্যালি, দু’টিরই কর্পোরেট দফতর ছিল বিধাননগর পুলিশ কমিশনারেটের এলাকায়। ২০১২-র জানুয়ারি থেকে ২০১৫-র ফেব্রুয়ারি— তিন বছরের বেশি বিধাননগরের পুলিশ কমিশনার ছিলেন রাজীব। সিবিআইয়ের দাবি, মুখ থুবড়ে পড়ার আগে ২০১২-১৩-তেই সারদা গোষ্ঠী লগ্নিকারীদের থেকে ৮০৫.৭৭ কোটি টাকা তুলেছিল। সারদা কেলেঙ্কারি নিয়ে হইচই শুরু হওয়ার পরেও, ২০১২-১৩ ও ২০১৩-১৪-তে রোজ ভ্যালি ৬,৮৬৫ কোটি টাকা সংগ্রহ করেছিল অনায়াসে।দিল্লি দখলের লড়াই, লোকসভা নির্বাচন ২০১৯ আগামী ৭ দিনের মধ্যে রাজ্য সরকারকে সিবিআইয়ের এই হলফনামার জবাব দিতে হবে। রাজ্যের অন্যতম আইনজীবী বিশ্বজিৎ দেব আজ বলেন, ‘‘লোকসভা নির্বাচনের মুখে এটা রাজনৈতিক প্রতিহিংসার বশে কালিমালিপ্ত করার চেষ্টা। রাজীব কুমার যদি সিবিআইয়ের পছন্দ মতো কথা বলেন, তাদের তৈরি করা বয়ানে সই করেন, তবেই কি সহযোগিতা করা হবে!’’ শিলংয়ে রাজীব অধিকাংশ প্রশ্নের উত্তর এড়িয়ে গিয়েছেন, সিবিআইয়ের এই অভিযোগ শুনে তাঁর বক্তব্য, ‘‘পুরোটারই ভিডিয়ো রেকর্ডিং রয়েছে।’’সিবিআইয়ের যুক্তি, সারদা-কাণ্ডের প্রধান অভিযুক্ত সুদীপ্ত সেন চিঠিতে তৃণমূলের প্রাক্তন সাংসদ কুণাল ঘোষ, সৃঞ্জয় বসু, ব্যবসায়ী শান্তনু ঘোষ, আইনজীবী নলিনী চিদম্বরম, প্রাক্তন কেন্দ্রীয় মন্ত্রী মাতঙ্গ সিংহ ও তাঁর প্রাক্তন স্ত্রী মনোরঞ্জনার নাম করেছিলেন। কিন্তু রাজীব শুধু কুণালের বিরুদ্ধেই পদক্ষেপ করেন।  শিলংয়ে রাজীবকে জিজ্ঞাসাবাদের ভিত্তিতে আরও একটি অভিযোগ তুলেছে সিবিআই। তা হল, রাজীবের (সিট-এর সদস্য হিসেবে প্রতিদিনের তদন্ত দেখার দায়িত্ব ছিল তাঁরই উপরে) বিবৃতি থেকেই স্পষ্ট, তিনি অধীনস্থ অফিসারদের সব সময়ই মৌখিক নির্দেশ বা মৌখিক সম্মতি দিয়েছেন। এমনকি, ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকেও তিনি মৌখিক রিপোর্ট দিয়েছেন। যা ‘অবিশ্বাস্য’। সুপ্রিম কোর্টের নির্দেশেই ২০১৪-য় সারদা-রোজ ভ্যালি কাণ্ডের তদন্তভার হাতে নিয়েছিল সিবিআই। কিন্তু ‘সিট’ তাদের হাতে সমস্ত নথি তুলে দেয়নি বলে সিবিআইয়ের অভিযোগ ছিল। বিশেষত, সারদার সুদীপ্ত সেন ও দেবযানী মুখোপাধ্যায়ের সম্পূর্ণ ‘কল ডিটেল রেকর্ডস’ না পেয়ে রাজীবের বিরুদ্ধে প্রমাণ লোপাটের অভিযোগ এনেছিল সিবিআই। এর পর ভোডাফোন-এয়ারটেলের বিরুদ্ধেও সিবিআই অভিযোগ তোলে যে তারাও ‘কল ডিটেল রেকর্ডস’ দিচ্ছে না। নতুন হলফনামায় সিবিআইয়ের অভিযোগ, তারা যাতে মোবাইল পরিষেবা সংস্থার থেকেও ‘কল ডিটেল রেকর্ডস’ না পায়, তার জন্য প্রভাব খাটানোর চেষ্টা করেছিলেন রাজীব।সিবিআইয়ের তদন্তকারী অফিসারদের হেনস্থার উদাহরণ হিসেবে কেন্দ্রীয় তদন্ত সংস্থার দাবি, ‘জাগো বাংলা’ সংবাদমাধ্যমের ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্টের বিষয়ে মানিক মজুমদারকে জিজ্ঞাসাবাদের পরেই কলকাতার ট্রাফিক পুলিশ সিবিআইয়ের অফিসারদের বিরুদ্ধে ট্রাফিক আইন ভাঙার মামলা করে। বিশ্বজিৎ দেবের প্রতিক্রিয়া, ‘‘সিবিআই এক এক হলফনামায় এক এক রকম কথা বলছে। রাজীবকে ৪০ ঘণ্টা ধরে জিজ্ঞাসাবাদ করা হল। এখন ভোট আসতেই তাঁকে হেফাজতে নিয়ে জেরার প্রয়োজন পড়ল! সিবিআই কি আইনি লড়াই করছে, না কি রাজনৈতিক লড়াই করছে!’’ 

  • কংগ্রেসে যোগ দিলেন বিহারিবাবু ঃ আবার তুলোধোনা করলেন নরেন্দ্র মোদী এবং অমিত শাহ-র

    News bazar24:   কংগ্রেসে যোগ দিলেন ‘বিক্ষুব্ধ’ বিজেপি নেতা শত্রুঘ্ন সিনহা। যোগ দিয়েই নরেন্দ্র মোদী এবং অমিত শাহ-কে আরও এক বার এক হাত নিলেন তিনি। বলেন, “গণতন্ত্রকে স্বৈরতন্ত্রে পরিণত করা হয়েছে।” আরও এক ধাপ এগিয়ে শত্রুঘ্নের তোপ, প্রধানমন্ত্রীর দফতর চলছে দু’জন আর্মি এবং এক জনের শক্তি প্রদশর্নে। অন্যান্য মন্ত্রীরা স্বাধীনভাবে কাজ করতে পারছেন না। মোদী এবং শাহকে কটাক্ষ করেই শত্রুঘ্ন এমন মন্তব্য করেছেন বলে মত রাজনৈতিক পর্যবেক্ষকদের।৭২ বছর বয়সী অভিনেতা তথা এই রাজনৈতিক ব্যক্তিত্ব বরাবরই বিজেপির সমালোচনায় মুখর হয়েছেন। দলে থেকে দলের সমালোচনা করে কার্যত কোণঠাসা হয়ে পড়েন তিনি। ২০১৪ সালে পটনা সাহিব লোকসভা কেন্দ্র থেকে দাঁড়িয়ে বিজেপির টিকিটে সাংসদ হন শত্রুঘ্ন। এর আগে রাজ্যসভা সাংসদ ছিলেন বিজেপির টিকিটেই। পরবর্তীকালে, নোটবন্দি, জিএসটি-সহ মোদী সরকারের একাধিক সিদ্ধান্তে কোঠর সমালনোচনা করতে দেখা যায় বিহারিবাবুকে। শেষ কথা এবার  কংগ্রেসের টিকিটে পটনা সাহিব থেকে লড়বেন শত্রুঘ্ন।