রাজ্য


  • নারদ তদন্তকারী অফিসারকে ভর্ৎসনা সিবিআই-এর স্পেশাল ডিরেক্টরের

    Newsbazar, 20 jun: নারদ তদন্তকারী অফিসারকে ভর্ৎসনা সিবিআই-এর স্পেশাল ডিরেক্টর রাকেশ আস্থানার । সূত্রের খবর, রাকেশ আস্থানা বলেছেন, তদন্তের অগ্রগতি ঠিকঠাক হয়নি। তদন্তের অগ্রগতির রিপোর্ট  কেন  উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের কাছে  পাঠানো হয়নি, তা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন সিবিআই-এর স্পেশাল ডিরেক্টর। সূত্রে জানা গেছে নারদ তদন্ত নিয়ে প্রচন্ড অসন্তোষ ব্যাক্ত করেছেন সিবিআই-এর স্পেশাল ডিরেক্টর।  বুধবার সকালে নিজাম প্যালেসে রাজ্যের বিভিন্ন চিটফান্ড প্রতারণা মামলার অগ্রগতি নিয়ে বৈঠক করেন  তিনি। সবকটি চিটফান্ড মামলার সঙ্গে যুক্ত আধিকারিকদের ডাকা  হয় বৈঠকে। নিজাম প্যালেসের ১৫ তলার কনফারেন্স হলে শুরু হয়েছে এই বৈঠক। সূত্রের খবর অনুযায়ী, বন্ধ ঘরে একএক করে অফিসারদের ডাকা হয়।  নারদ তদন্তের দায়িত্বপ্রাপ্ত আধিকারিক রঞ্জিত কুমারের কাছ থেকে কেস ডায়েরি দেখার পর প্রচন্ড ক্ষেপে যান তিনি । সূত্রের খবর অনুযায়ী, নারদ তদন্ত-র রিপোর্ট  সময় মতো দিল্লিতে উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের কাছে  পাঠানো হয়নি  কেন তা জানতে চান রাকেশ আস্থানা। এর পিছনে কোনও কারণ আছে কিনা তাও খতিয়ে দেখা হচ্ছে বলে জানা গিয়েছে। তদন্তের গতি প্রকৃতি অন্য ভাবে  করার  নির্দেশ দিয়েছেন বলে জানা গেছে। ।    

  • সারদা-রোজভ্যালির তদন্ত কি শেষের পথে ?

    Newsbazar, ডেস্ক, ২০শে জুনঃ সিবিআই-এর স্পেশাল ডিরেক্টর রাকেশ আস্থানা সারদা-রোজভ্যালির  তদন্তকারী আধিকারিকদের  নির্দেশ দিয়েছেন এবছরেই শেষ করতে হবে সারদা-রোজভ্যালির তদন্ত।এ ব্যাপারে কোন ঢিলেমি আর বরদাস্ত করা হবে না বলে তিনি জানিয়েছেন  বলে সূত্রে জানা গেছে।  বুধবার সকাল থেকে নিজাম প্যালেসে  তদন্তকারী আধিকারিকদের সঙ্গে দুদফায় প্রায় চারঘণ্টা বৈঠক করেন তিনি। কাজ শেষ করে এদিন দিল্লি ফিরে গিয়েছেন রাকেশ আস্থানা।   সূত্রের খবর অনুযায়ী, আরও জানা গেছে যে  প্রয়োজনে তদন্তকারী দলে আরও অফিসার নিয়োগ করা হবে বলেও  তিনি জানিয়েছেন।  বুধবারের  বৈঠকে রাকেশ আস্থানা সারদা-রোজভ্যালির তদন্তের  সব কেস ডায়েরি দীর্ঘক্ষন ধরে  খুঁটিয়ে দেখেন এবং  তাড়াতাড়ি ট্রায়াল শুরু করার জন্য আধিকারিকদের  নির্দেশ দিয়েছেন তিনি। তদন্তের প্রয়োজনে অভিযুক্তদের আবারও জিজ্ঞাসাবাদেরও নির্দেশ দিয়েছেন রাকেশ আস্থানা। তবে দিল্লি ফিরে যাওয়ার সময় সংবাদ মাধ্যমের কাছে কোনও কথাই তিনি বলেননি। বুধবার সকালে কলকাতার নিজাম প্যালেসের ১৫ তলার কনফারেন্স হলে বৈঠক শুরু হয়। দুদফায় এই বৈঠক চলে প্রায় ৪ ঘণ্টা ধরে। সব মিলিয়ে ২৮ থেকে ৩০ জন আধিকারিক বুধবারের বৈঠকে যোগ দিয়েছিলেন বলে জানা গিয়েছে। Newsbazar, ডেস্ক, ২০শে জুনঃ সিবিআই-এর স্পেশাল ডিরেক্টর রাকেশ আস্থানা সারদা-রোজভ্যালির  তদন্তকারী আধিকারিকদের  নির্দেশ দিয়েছেন এবছরেই শেষ করতে হবে সারদা-রোজভ্যালির তদন্ত।এ ব্যাপারে কোন ঢিলেমি আর বরদাস্ত করা হবে না বলে তিনি জানিয়েছেন  বলে সূত্রে জানা গেছে।  বুধবার সকাল থেকে নিজাম প্যালেসে  তদন্তকারী আধিকারিকদের সঙ্গে দুদফায় প্রায় চারঘণ্টা বৈঠক করেন তিনি। কাজ শেষ করে এদিন দিল্লি ফিরে গিয়েছেন রাকেশ আস্থানা।   সূত্রের খবর অনুযায়ী, আরও জানা গেছে যে  প্রয়োজনে তদন্তকারী দলে আরও অফিসার নিয়োগ করা হবে বলেও  তিনি জানিয়েছেন।  বুধবারের  বৈঠকে রাকেশ আস্থানা সারদা-রোজভ্যালির তদন্তের  সব কেস ডায়েরি দীর্ঘক্ষন ধরে  খুঁটিয়ে দেখেন এবং  তাড়াতাড়ি ট্রায়াল শুরু করার জন্য আধিকারিকদের  নির্দেশ দিয়েছেন তিনি। তদন্তের প্রয়োজনে অভিযুক্তদের আবারও জিজ্ঞাসাবাদেরও নির্দেশ দিয়েছেন রাকেশ আস্থানা। তবে দিল্লি ফিরে যাওয়ার সময় সংবাদ মাধ্যমের কাছে কোনও কথাই তিনি বলেননি। বুধবার সকালে কলকাতার নিজাম প্যালেসের ১৫ তলার কনফারেন্স হলে বৈঠক শুরু হয়। দুদফায় এই বৈঠক চলে প্রায় ৪ ঘণ্টা ধরে। সব মিলিয়ে ২৮ থেকে ৩০ জন আধিকারিক বুধবারের বৈঠকে যোগ দিয়েছিলেন বলে জানা গিয়েছে। এদিন বিএসএফ-এর এসকর্ট করা গাড়িতে করে নিজাম প্যালেসে যান সিবিআই-এর স্পেশাল ডিরেক্টর।

  • কাশ্নীর ইস্যুু নিয়ে সরব

    news bazar24:দলীয় কর্মসূচিতে যোগ দিতে বুধবার মালদায় এলেন বিজেপির প্রাক্তন রাজ্য সভাপতি রাহুল সিনহা। সাংবাদিকদের মুখোমুখি হয়ে কাশ্নীর ইস্যুু নিয়ে মুখ খুললেন তিনি। জানা যায়, ত্রদিন সকালে মালদা রেল স্টেশনে পৌঁছে সাংবাদিকদের মুখোমুখি হয়ে তিনি জানান, দীর্ঘদিন ধরে জম্বু-কাশ্নীরের পরিস্থিতি উত্তপ্ত হয়েছে। মাঝে পাথর ছোঁড়ার ঘটনা কিছুটা কমে ছিল। এখন পরিস্থিতি রাজ্য সরকার বা রাজনৈতিক কারণে বাড়ছে। সেই দায় ভারতীয় জনতা পার্টির ওপর চেপে আসছে। সেই কারণে সমর্থন প্রত্যাহার করা ছাড়া আর দ্বিতীয় কোন রাস্তা ছিল না। সেই কারণে ওখানে সরকার থেকে সমর্থন তোলা হয়েছে। যাতে উগ্রপন্থী ও পাকিস্তানের বিরুদ্ধে জোরদার লড়াই করা যায়। তাদের বিরুদ্ধে লড়াইয়ের আবহাওয়া তৈরী করার জন্য এই পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে। এবার আমরা আতঙ্গবাদিদের নির্মূল করবো এই বিশ্বাস নিয়েই আমরা সমর্থন প্রত্যাহার করেছি। কেন্দ্রীয় সরকার করা ব্যবস্থা গ্রহণ করবে উগ্রপন্থী ও পাকিস্তানের বিরুদ্ধে. ।  

  • আক্রান্ত এক কলেজ পড়ুয়া সহ ৩

    news bazar24: বাড়ি ফেরার পথে দুস্কুতীদের হাতে আক্রান্ত এক কলেজ পড়ুয়া সহ ৩ জন। ঘটনাটি ঘটেছে রতুয়া থানার হরগোবিন্দপুর এলাকায়। জানা গেছে, আক্রান্ত কলেজ পড়ুয়ার নাম সেখ সিকতার। তার চিকিৎসা চলছে মালদা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে। সে সামসি কলেজের দ্বিতীয় বর্ষের ছাত্র। অন্যদিকে আক্রান্ত আরো দুইজনের নাম সাদিউল সেখ এবং ফুরকি বিবি। তারা চিকিৎসাধীন রতুয়া গ্রামীন হাসপাতালে। সিসা শেখ, এসাবুদ্দিন সেখ সহ সাত জনের বিরুদ্ধে অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে রতুয়া থানায়। ঘটনা প্রসঙ্গে জানা যায়, মঙ্গলবার রাতে হরগোবিন্দপুর এলাকায় মোড়ের মাথায় আড্ডা দিচ্ছিলেন কলেজ পড়ুয়া সহ কয়েকজন। সেই সময় আচমকা সাতজন ধারালো অস্ত্র নিয়ে কলেজ পড়ুয়ার উপর হামলা চালায় বলে অভিযোগ। কলেজ পড়ুয়াকে বাঁচাতে গিয়ে পরিবারের দুই সদস্য আহত হয় দুস্কুতীদের হামলায়। আহত অবস্থায় তিনজনকে ভর্তি করা হয় রতুয়া গ্রামীণ হাসপাতালে। কিন্ত সেখানে কলেজ পড়ুয়ার শারীরিক অবস্থা আশঙ্কাজনক দেখে তাকে স্থানান্তর করা হয় মালদা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে। অভিযুক্তরা পলাতক। ঘটনার তদন্ত শুরু হয়েছে।       

  • তড়িদাহত হয়ে মৃত্যু এক শ্রমিকের

    news bazar24:তড়িদাহত হয়ে মৃত্যু হল এক শ্রমিকের। ঘটনাটি ঘটেছে মালদার বৈষ্ণব নগর থানার ১৮ মাইলের ব্যারেজ কলোনী এলাকায়। জানা গেছে, মৃত শ্রমিকের নাম মনিরুল সেখ। বাড়ি ওই এলাকাতেই। পেশায় তিনি শ্রমিক। ত্রদিন দুপুরে তিনি বাড়ির পাশেই একটি আম গাছে লকড়ি ভাঙতে ওঠে। জানা যায় ওই গাছের উপর দিয়ে ৩৩ হাজার ভল্টের তার বয়ে গেছে। লকড়ি ভাঙার সময় তিনি তড়িদাহত হয়ে মাঠিতে লুঠিয়ে পড়েন। ঘটনাস্থলেই মৃত্যু হয় ওই শ্রমিকের। পরে বৈষ্ণব নগর থানার পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে মৃতদেহ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য পাঠায়। ত্রদিকে এই ঘটনায় মৃতের পরিবারে শোকের ছায়া নেমে এসেছে।

  • পাওনা টাকা চাইতে গিয়ে আক্রান্ত

    news bazar24: পাওনা টাকা চাইতে গিয়ে আক্রান্ত হলেন জামাই, শ্যালক। ধারালো অস্ত্র দিয়ে তাদের মারধোর করার অভিযোগ উঠেছে। ঘটনাটি ঘটেছে, বৈষ্ণব নগর থানার ক্যাম্প পারা এলাকায়। ঘটনায় সাতজনের বিরুদ্ধে অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে। জানা গেছে, আক্রান্তদের নাম নাজিম সেখ এবং তার শ্যালক আজিজুল জামাল। তারা বর্তমানে বেদরাবাদ গ্রামীণ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন। ঘটনায় মিস্টার সেখ সহ সাত জনের বিরুদ্ধে অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে। জানা যায়, কয়েক মাস আগে নাজিম সেখ মিস্টার সেখকে কিছু টাকা ধার হিসেবে দেয়। গত সোমবার সেই টাকা চাইতে গেলে নাজিম সেখকে মারধোর করে মিস্টার সেখ বলে অভিযোগ। মঙ্গলবার রাতে এই মর্মে মিস্টার সেখের বিরুদ্ধে বৈষ্ণব নগর থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করে বাড়ি ফিরছিলেন, নাজিম সেখ এবং তার শ্যালক আজিজুল জামাল। অভিযোগ ঠিক সেই সময় মিস্টার সেখ এবং তার দলবল তাদের দুইজনের পথ আটকে বেধড়ক মারধোর করে। গুরুতর আহত হয় তারা দুইজনই। নাজিম সেখের ডান হাতের ৩টি আঙ্গুল কেটে নেওয়ার অভিযোগ উঠে। অন্যদিকে তার শ্যালকে মুখে, এবং পিঠে ধারালো অস্ত্র দিয়ে মারধোর করার অভিযোগ উঠে। এই ঘটনায় মিস্টার সেখ সহ ৭ জনের বিরুদ্ধে অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে। অভিযুক্তরা পলাতক। ঘটনার তদন্ত শুরু হয়েছে।

  • অ্যাম্বুল্যান্স- এর সুবিধা পেলো দক্ষিণ দিনাজপুর

    news bazar24:দক্ষিন দিনাজপুরঃ জেলায় জেলায় চিকিৎসাব্যবস্থার মানোন্নয়নের জন্য এবার মুখ্যমন্ত্রীর পক্ষ থেকে অত্যাধুনিক মানের CCU অ্যাম্বুলেন্স দেওয়া হচ্ছে।হাসপাতালে CCU বিভাগে ভরতি এমন দুস্থ রোগীকে উন্নত পরিষেবা দেওয়ার জন্য বিনামূল্যে পাওয়া যাবে গ্লান যান পরিষেবা। অ্যাম্বুলেন্স পরিচালনার জন্য ১০ জন সিভিক ভলান্টিয়ারকে প্রশিক্ষণ দেওয়া হবে। যার মধ্যে চারজন মহিলা ও ছ’জন পুরুষ থাকবেন। প্রত্যেক জেলার পুলিশ সুপারের হাতে একটি করে এই বিশেষ অ্যাম্বুলেন্স তুলে দিচ্ছেন মুখ্যমন্ত্রী।এবারে ছিল দক্ষিণ দিনাজপুরের পালা। অনুষ্ঠানে ছিলেন জেলার মুখ্য স্বাস্থ্য আধিকারিক সুকুমার দে, হাসপাতাল সুপার তপন কুমার বিশ্বাসসহ জেলা পুলিশের পদস্থ কর্তা ও কর্মীরা। আগামী এক সপ্তাহ ধরে চলবে এই প্রশিক্ষণ। জেলা পুলিশ সুপারের তত্ত্বাবধানে থাকবে অ্যাম্বুলেন্সটি। অনেক ক্ষেত্রেই CCU-তে ভরতি রোগী বা আশঙ্কাজনক কোনও রোগীকে CCU পরিষেবার সাহায্য নিয়ে অন্যত্র স্থানান্তরিত করার প্রয়োজন হয়। তবে, আর্থিক অবস্থার কারণে কখনও কখনও তা সম্ভব হয় না। এমন দুস্থ রোগীদের জন্যই এবার বিনামূল্যে অত্যাধুনিক মানের CCU অ্যাম্বুলেন্স পরিষেবা চালু হল দক্ষিণ দিনাজপুরে।    এবিষয়ে বালুরঘাট হাসপাতালের সুপার তপনকুমার বিশ্বাস বলেন, “অত্যাধুনিক মানের সুসজ্জিত একটি CCU অ্যাম্বুলেন্স মুখ্যমন্ত্রী জেলার পুলিশ সুপারের হাতে তুলে দিয়েছেন। পুলিশের তত্ত্বাবধানে থাকবে অ্যাম্বুলেন্সটি। চিকিৎসা ব্যবস্থায় আরও উন্নতির জন্যই এই অ্যাম্বুলেন্স প্রদান করা হয়েছে। জেলায় সরকারিভাবে এতদিন কোনও CCU অ্যাম্বুলেন্স ছিল না। তবে, এবার তা হাতে আসায় কয়েকদিনের মধ্যেই পরিষেবা চালু করা হবে।” 

  • বালিগঞ্জে ভারত সেবাশ্রমের উদ্যোগে যোগ দিবসের পরিচর্চা

    কলকাতা,রাজকুমার দাস:------আর মাত্র দুদিনের পর আন্তর্জাতিক যোগ দিবস পালিত হবে সারা বিশ্বে,তার প্রাক্কালে দক্ষিণ কলকাতার বালিগঞ্জে ভারত সেবাশ্রমের উদ্যোগে যোগ দিবসের পরিচর্চা আগাম শুরু করলেন সংঘের মহারাজ।স্বামী বিস্বাত্মা নন্দ জানান সারা বাংলাতে সংঘের কাজ কর্ম সারা বছর আমরা করি।এবার ও যোগ দিবস কে সামনে রেখে বিভিন্য অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়েছে।যোগ প্রদর্শনীর পাশাপাশি আলোচনা ও যোগের গুরুত্ব মানুষের কাছে আমরা তুলে ধরার চেষ্টা করছি।আসা করি সকলে মিলে যোগদিবস কে সাফল্য মণ্ডিত ভাবে পরিচালিত করবে।

  • বৃদ্ধ পিতাকে মারধর করে বাড়ি থেকে বের করে দেওয়ার অভিযোগ

    newsbazar24: ডেস্ক, ১৯শে জুনঃ দক্ষিন ২৪ পরগণার সোনারপুরে বৃদ্ধ পিতাকে মারধর করে বাড়ি থেকে বের করে দেওয়ার অভিযোগ  পাওয়া গেল। অভিযোগ তার দুই ছেলে ও তাদের স্ত্রীদের বিরুদ্ধে।বৃদ্ধ পিতা বর্তমানে রাস্তায় ঘুরে বেড়াচ্ছেন। স্থানীয় সূত্রে জানা যায় সোনারপুর থানা এলাকার খুড়িগাছি গ্রামে বাস করেন বঙ্কিম নস্কর নামে এক ব্যাক্তি তার বয়স প্রায় ৮২ বছর। বাড়ীটি তার নামে আছে। তার দুই ছেলে তারা বিবাহিত একই  বাড়ীতে থাকেন। তিনি একসময় দিনমজুরের কাজ করতেন।   বছর তিনেক আগে তার  স্ত্রী মারা যাওয়ার পর থেকেই তার দুই ছেলে অমর-রমেশ এবং তাঁদের স্ত্রীরা যথাক্রমে ভগবতী- চন্দনা বৃদ্ধকে মাঝে মাঝেইন ব্যাপক মারধর করে ও ঠিকমত খেতে দেয়না। তার আরও অভিযোগ এর আগে একাধিকবার সোনারপুর থানায়  এ ব্যাপারে লিখিত অভিযোগ জানালেও , পুলিশের তরফ থেকে আজ পর্যন্ত কোনও ব্যবস্থা নেওয়া হয়নি গতকাল আবার তার ছেলে ও বৌমারা মিলে বৃদ্বকে ব্যপক মারধর করে, বৃদ্ধ অসুস্থ হয়ে পড়েন। প্রতিবেশীরা  আহতকে বৃদ্ধকে সুভাষগ্রামের প্রাথমিক স্বাস্থ্য কেন্দ্রে নিয়ে যান। এরপর বৃদ্ধ বঙ্কিম বাবুর পক্ষ থেকে থানায় আবার অভিযোগ করা হয় তার   অভিযোগ, ভয়ে তিনি বাড়ি ফেরতে পারছেন না। পুলিশ কোন ব্যাবস্থা নিচ্ছে না।   যদিও পুলিশের তরফে অভিযোগ অস্বীকার করা হয়েছে।      

  • হুগলির বৈদ্যবাটি স্টেশনে প্রকাশ্য দিবালোকে যুবক খুন আইনশৃঙ্খলা প্রশ্নের মুখে।

    Newsbazar, ডেস্ক, ১৯ জুনঃ হুগলির বৈদ্যবাটি স্টেশনে প্রকাশ্য দিবালোকে বহু মানুষজনের সামনে এক অজ্ঞাত পরিচয় যুবকে খুনকরে পালালো দুই যুবক । ঘটনাটি ঘটেছে আজ মঙ্গলবার বিকেল সাড়ে তিনটে নাগাদ  খবর পেয়েই ঘটনাস্থলে যায় পুলিশ। যুবকের পরিচয় জানার চেষ্টা করছে পুলিশ। খুন হওয়া যুবকের পরিচয়  এখনও জানা যায়নি  বলে খবর পাওয়া গেছে। পরিচয় জানতে পারলেই, খুনের উদ্দেশ্য সম্পর্কে জানা যাবে বলে মনে করছেন তদন্তকারীরা। হুগলির বৈদ্যবাটি স্টেশনে অন্যান্যদের  মতোই ট্রেন থেকে নামেন অজ্ঞাত পরিচয় এক যুবক। স্টেশনে নামার সঙ্গে সঙ্গে তাঁর ওপর ঝাঁপিয়ে পড়ে অপর দুই যুবক। কুপিয়ে স্টেশনেই ফেলে রেখে তারা ভদ্রেশ্বরের দিকে চলে যায় বলে জানিয়েছেন প্রত্যক্ষদর্শীরা। দুই যুবকের হাতে ধারালো অস্ত্র থাকায় কেউই এগোবার সাহস পান নি । দিনের আলোয় প্রকাশ্যে খুন নিয়ে আইনশৃঙ্খলা নিয়ে প্রশ্ন তুলতে শুরু করেছেন স্থানীয় বাসিন্দারা। পুলিশের অনুমান, দুষ্কৃতীরা খুনের নির্দিষ্ট লক্ষ্যেই নিয়েই এসেছিল। আর মৃত যুবকের প্রতি তাদের রাগ এতটাই বেশি ছিল যে যুবককে ছিন্ন ভিন্ন করে দেওয়া হয়। মৃত যুবকের পরিচয় জানার চেষ্টা করছেন তদন্তকারীরা।  

  •  ভাড়া বাড়ানোর প্রতিবাদে রাস্তা অবরোধ

    news bazar24:আচমকা ভাড়া বাড়ানোর প্রতিবাদে মালদা নালাগোলা রাজ্য সড়ক অবরোধ করে বিক্ষোভ দেখালো প্রায় শতাধিক শ্রমিক। ঘটনাটি ঘটেছে মঙ্গলবার সকাল ৯টা নাগাদ আইহো মোর এলাকায়। জানা যায়, প্রায় দুই ঘন্টা পথ আটকে অবরোধ দেখাউ উত্তেজিত জনতা। পুলিস ঘটনাস্থলে গেলে তাদেরকে ঘিরেও বিক্ষোভ দেখায় শ্রমিকরা। পরে হবিবপুর থানার বিশাল পুলিসবাহিনী পৌঁছে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। অবরোধকারিদের অভিযোগ, হঠাৎ করে বাস ভাড়া বাড়ানো হয়। এতে প্রত্যেকে অসুুবিধায় পরতে হয়। কয়েকজন শ্রমিক কাজে যাওয়ার জন্য বেসরকারি বাসে চাপেন সেই বাসে উঠার সময় তাদের কাছে বরাদ্দ যে টিকিটের দাম তার থেকে বেশি নেওয়া হয় বলে অভিযোগ। এরপরে ক্ষোভে ফেটে পড়ে শ্রমিকরা। তারা মালদা নালাগোলা রাজ্য সড়কের আইহো মোড় এলাকায় রাস্তা অবরোধ করে বিক্ষোভ প্রদর্শন করেন তারা। বাস ভাড়া বৃদ্ধির প্রতিবাদে অবরোধ করে বিক্ষোভ প্রদর্শন করেন তারা। প্রায় দুঞ্চঘন্টা ধরে অবরোধ চলে তাদের। এর ফলে ব্যাপক যানজটের সৃষ্টি হয়। খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে পৌঁছায় হবিবপুর থানার বিশাল পুলিশবাহিনী। তাদেরকে ঘিরেও বিক্ষোভ দেখায় অবরোধকারীরা। পরে পুলিশের আশ্বাসে অবরোধ তুলে নেয় অবরোধকারীরা।

  •  আম চুরিতে বাধা, আক্রান্ত ৩ যোগানদার

    news bazar24: আম চুরিতে বাধা, তিন যোগানদারকে কোপানোর অভিযোগ দুস্কৃতীদের বিরুদ্ধে। সোমবার রাতে কালিয়াচক থানার আলিপুর গ্রামে ঘটনাটি ঘটে। অভিযোগ দায়ের কালিয়াচক থানায়। জানা গিয়েছে, সোমবার রাতে বাগানে পাহারা দিচ্ছিলেন তিনজন যোগানদার। সেই সময় তিন থেকে চার জন দুস্কুতী বাগানেরট আম চুরি করতে যায়। ঘটনায় বাধা দিতে যায় যোগানদারেরা। অভিযোগ সেই সময় ধারালো অস্ত্র নিয়ে ১০ থেকে ১২ জন দুস্কুতী হামলা চালায় তাদের উপর। দুস্কুতীদের হামলায় গুরুতর জখম হয় তিনজন যোগানদার। পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে আহতদের নাম দাবিরুদ্দিন মৌমিন, এনামূল মৌমিন এবং আনোয়ার মৌমিন। বর্তমানে তারা চিকিৎসাধীন মালদা মেডিক্যাল কলেজ ও হাসপাতালে। তাদের বাড়ি কালিয়াচক থানার আলিপুর এলাকায়। আক্রান্তরা জানিয়েছেন, অভিযুক্তদের চিনতে পারেননি তারা। রাতের বেলা হঠাৎ করে দুস্কুতীরা আম চুরি করতে যায় বাগানে। সেই ঘটনায় বাধা দিতে গেলে ধারালো অস্ত্র ওপ লোহার রড় নিয়ে তারা তাদের উপর হামলা চালায়।

  • সম্পত্তি নিয়ে পারিবারিক বিবাদ       

    news bazar24: সম্পত্তি নিয়ে পারিবারিক বিবাদের জেরে একই পরিবারের তিন জনকে বঁটি দিয়ে কোপানোর অভিযোগ, দাদার পরিবারের বিরুদ্ধে। সোমবার রাতে মালদা শহরের বিবেকানন্দ পল্লীতে ঘটেছে ঘটনাটি। ইংরেজবাজার থানায় এই মর্মে অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে।  জানা গিয়েছে, পেশায় স্বর্ণ ব্যবসায়ী অরুণ কর্মকারের সাথে সম্পত্তি নিয়ে গত কয়েক বছর ধরে বিবাদ চলছিল তারই দাদা অসিত কর্মকারের সাথে। অভিযোগ সোমবার রাতে এই নিয়ে আবার বচসা শুরু হয় তাদের মধ্যে। বচসার জেরে ধারালো বঁটি এবং লোহার রড় নিয়ে আসিত কর্মকারের পরিবারের লোকেরা চড়াও হয় অরুণ কর্মকারের পরিবারের উপর। ধারালো অস্ত্রের কোপে জখম হয় অরুণ কর্মকার, অভিজিৎ কর্মকার এবং মালা কর্মকার। তারা চিকিৎসাধীন মালদা মেডিক্যাল কলেজ ও হাসপাতালে। অভিযুক্ত আসিত কর্মকার, সুুদীপ্ত কর্মকার, কৃষ্ণ কর্মকার এবং যমুনা কর্মকারের বিরুদ্ধে অভিযোগ দায়ের ইংরেজবাজার থানায়। আক্রান্তরা জানাইয়েছেন, গত কয়েক বছর ধরেই তাদেরকে উচ্ছেদ করার পরিকল্পনা করেন আসিত কর্মকার। বার বার এই নিয়ে বচসা হয়। সোমবার রাতে অযথা একটি কারণ নিয়ে বচসা শুরু করেন অসিত কর্মকার। বচসার জেরে রাত্রি নঞ্চটা নাগাদ ধারালো বটি ও লোহার রড় নিয়ে পরিবারের চার সদস্য তাদের উপর হামলা চালায়। ঘটনায় জখম হন তারা তিনজন। ঘটনায় ইংরেজবাজার থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে।

  • জামাই রাজারা কি আম লিচু থেকে আতঙ্কিত। শাশুড়ি রা দেখে নিন CMOH এর কথা

    News Bazar24 :এই বছর নিপা ভাইরাস আতঙ্কে মালদার অধিকাংশ মানুষ আম ও লিচু থেকে দূরে সরে রয়েছে। বাজারে বিগত বছর গুলোর তুলনায় আম সস্তা হলেও খদ্দেররা মুখ ঘুরিয়ে। এদিকে আজ জামাই সষ্ঠী । জামাই দের মন ভরে আম খেতে না দিলে শাশুড়ি রা আবার শান্তি পায় না। জামাই রাও আজ আমের লোভে ছুটে আসে শশুর বাড়ি। এখন সব কিছুতেই বাঁধা হয়েছে নিপা ভাইরাস আতঙ্ক। তবে কি জামাই রা আম খাবেনা। দুপুরে ভাত খাবার পর হাতে নেবে না লিচু। এই বিষয়ে আমাদের কাছে জানালেন মালদার মুখ্য স্বাস্থ্য আধিকারিক সৈয়দ শাহজাহান সিরাজ। ভিডিও তে দেখেনিন উনি কি বললেন । ।  

  • ডবলু বি এস পরীক্ষায় দুর্নীতির অভিযোগে সিবিআই তদন্তের দাবিতে পরীক্ষার্থীদের বিক্ষোভ।

    Newsbazar, ডেস্ক,১৮ই জুনঃ রাজ্যের ডবলু বি এস পরীক্ষায় দুর্নীতির অভিযোগে সিবিআই তদন্তের দাবিতে  সোমবার পরীক্ষার্থীরা পিএসসি অফিসের সামনে বিক্ষোভে ফেটে পড়েন । পরীক্ষার্থীদের অভিযোগ বিগত ২০১২ সালের পর ২০১৭-তেও পরীক্ষায় দুর্নীতি হয়েছে । এই বিষয়টি নিয়ে মুখ্যমন্ত্রী ও রাজ্যপালের সাথে দেখা করে তারা অভিযোগ জানাবেন বলে জানান । বিক্ষোভে অংশ নেওয়া পরীক্ষার্থীদের অভিযোগ, ২০১৭-র ডব্লুবিসিএস-এর প্রিলিমিনারির দুটি লিস্ট বের করা হয়েছিল। প্রথম তালিকায় যাঁরা সুযোগ পায়নি, দ্বিতীয় তালিকায় তাঁদের সুযোগ করে দেওয়া হয়েছিল বলে অভিযোগ। মেইন পরীক্ষায়  এক পরীক্ষার্থীর ইংরেজির নম্বর শূন্য থেকে ১৬২ করে দেওয়ার অভিযোগও উঠেছে পিএসসি কর্তৃপক্ষের বিরুদ্ধে। এমন কী বাংলায় তাঁর নম্বর ১৮ থেকে ১৬৮ করে দেওয়া হয়েছে বলেও অভিযোগ করেছেন পরীক্ষার্থীরা। তারা আরও জানান যে বিষয়টি নিয়ে পিএসসি কর্তৃপক্ষের কাছে এর আগে অভিযোগ জমা দেওয়া হয়েছিল   পিএসসি-র চেয়ারম্যান বিষয়টি নিয়ে তদন্তের আশ্বাস দিয়েছিলেন বলে দাবি পরীক্ষার্থীদের। যদিও কাজের কাজ কিছুই হয়নি বলে জানিয়েছেন পরীক্ষার্থীরা। পরীক্ষায় অকৃতকার্য হওয়া পরীক্ষার্থীরা জানিয়েছেন, আরটিআই করলেও তার কোনও উত্তরই দিচ্ছে না পিএসসি কর্তৃপক্ষ।                                                                                                                                                                                                                                                                                                                           

  • অবশেষে সারদা-নারদা-রোজভ্যালি মামলা নিয়ে সিবিআই-এর ঘুম ভাঙ্গতে চলেছে।

    Newsbazar, ডেস্ক,১৮ই জুনঃ অবশেষে  সারদা-নারদা-রোজভ্যালি মামলা নিয়ে সিবিআই-এর ঘুম ভাঙ্গতে চলেছে। ঐ সব মামলার অগ্রগতি নিয়ে আলোচনা করার জন্য  মঙ্গলবার সন্ধেয় কলকাতায় আসছেন সিবিআই-এর স্পেশাল ডিরেক্টর রাকেশ আস্থানা।  এই সব প্রতারণা মামলার সঙ্গে যুক্ত তদন্তকারী আধিকারিকদের মামলাগুলির স্টেটাস রিপোর্ট সহ   হাজির থাকতে বলা  হয়েছে  বলে জানা গেছে।  সামনে লোকসভা নির্বাচন। রাজ্যে শাসকদলের বিরুদ্ধে যেসব মামলা নিয়ে বিরোধীরা শোরগোল করা মামলাগুলির মধ্যে  সারদা-নারদা-রোজভ্যালি উল্লেখযোগ্য। সেই মামলাগুলি নিয়ে মমতা-মোদীর সমঝোতার অভিযোগ তুলেছিল রাজ্যের বাম ও কংগ্রেস। বিজেপির তরফেও মামলাগুলি নিয়ে দিল্লিতে দরবার করা হয়েছিল। এবার সেই সব পরিস্থিতি জানতে কলকাতায় আসছেন সিবিআই-এর স্পেশাল ডিরেক্টর রাকেশ আস্থানা। বুধবার সকাল নটায় নিজাম প্যালেসে সারদা-নারদা-রোজভ্যালি-র তদন্তকারী আধিকারিকদের কেস ডায়েরি ও স্ট্যাটাস রিপোর্ট নিয়ে আসতে বলা হয়েছে। এর মধ্যে রয়েছেন , জয়েন্ট ডিরেক্টর ও ডিআইজি  পদমর্যাদার অফিসাররা। একজন স্পেশাল ডিরেক্টর পর্যায়ের অফিসার এই ধরনের বৈঠক এর আগে  করেননি। ফলে এই বৈঠকের গুরুত্ব অপররিসীম। আগামি দিনে এই মামলাগুলিতে কী ভাবে এগনো হবে, তা সম্পর্কে পরিষ্কার জানা যাবে বলেই মনে করেছেন তদন্তকারীদের একাংশ। তবে বাম ও কংগ্রেস এ ব্যাপারে যথেষ্ট সন্দিহান কারন তারা মনে করে মমতা ও মোদির গোপন সমঝোতা হয়ে গেছে।      

  • রাস্তা সংস্কারে হাতে হাত লাগালেন ৮ থেকে ৮০ সকলেই

    news bazar24; পল মৈত্র,বুনিয়াদপুর, দক্ষিন দিনাজপুরঃ বেহাল রাস্তা সংস্কারের জন্য পঞ্চায়েত থেকে প্রশাসনের দরজায় দরজায় ঘুরে কাজ হয়নি । চলাফেরা সমস্যায় পড়া বাসিন্দারা বাধ্য হয়ে নিজেরাই হাত লাগালেন রাস্তার কাজে । রবিবার হাতে হাত মিলিয়ে দীর্ঘ প্রায় এক কিলোমিটার রাস্তা সরাই করেন গ্রামের পুরুষ ও মহিলারা । দক্ষিণ দিনাজপুর জেলার বংশীহারী ব্লকের গাঙ্গুরিয়া গ্রাম পঞ্চায়েতের শায়েস্তা বাদ এলাকার কয়েক শ' মানুষ এই কাজে এগিয়ে আসেন । সমস্যা সমাধানের আশ্বাস দিয়েছেন প্রধান ও প্রশাসন । বংশীহারী  ব্লকের শায়েস্তা বাদ মোরগা বাড়ির এই গ্রামটি বুনিয়াদপুর পুরসভা গড়ে ওঠার আগে শিবপুর গ্রাম পঞ্চায়েতের অন্তর্ভুক্ত ছিল । পরবর্তী সময়ে শিবপুর গ্রাম পঞ্চায়েতের আর কোন অস্তিত্ব না থাকায় শায়েস্তাবাদ মোরগাবাড়ির এই গ্রামটি মহাবাড়ি গ্রাম পঞ্চায়েতের সঙ্গে জুড়ে দেওয়া হয়। শায়েস্তাবাদ মোগরাবাড়ির বাসিন্দা আলাউদ্দিন আহমেদ অভিযোগ করে বলেন আমাদের গ্রামের এই রাস্তাটি বহুদিন আগে নিজেরাই তৈরি করেছিলাম তাই রাস্তাটি সংস্কার করার জন্য পঞ্চায়েত বা প্রশাসন উদ্যোগী হয় নি । বর্ষার আগে সমস্যার আজ করে গ্রামবাসীরা বাধ্য হয়ে সংস্কারে হাত লাগান । এদিন নিজেরাই টাকা জোগাড় করে বিভিন্ন সামগ্রী কিনে রাস্তার কাজ করেন । গাঙ্গুরিয়া গ্রাম পঞ্চায়েতের প্রধান পাঞ্জাব চৌধুরী ও গঙ্গারামপুরের মহকুমাশাসক দেবাঞ্জন রায় জানিয়েছেন , বিষয়টি খোঁজ নিয়ে দেখা হবে ।

  • মেলার শেষ দিনে ৬৪ মহন্তের ভোগ

    news bazar24; রামকেলি উৎসবের শেষ দিনে ৬৪ মহন্ত ভোগ উৎসবের আয়োজন করল রুপ সনাতন মিলন মন্দির ত্রবং বৈষ্ণব শাস্ত্র চর্চা কেন্দ্র। মহাপ্রভু চৈতন্য দেবের মাতৃ বর্গ,পিতৃ বর্গের শিষ্যদের আহ্বান জানিয়ে আয়োজন করা হয়ে থাকে এই উৎসবের বলে জানা যায়। প্রসঙ্গ,তখন সালটা ছিল ১৫১৪। সারা বাংলা জুড়ে তখন চলছে ভক্তি আন্দোলন। তার অন্যতম পুরোধা  ছিলেন চৈতন্যদেব। নবদ্ধীপ থেকে তাঁর বাণী  ছড়িয়ে পড়েছিল গোটা দেশ। সেই বছরই নবদ্ধীপ থেকে পদব্রজে বৃন্দাবনের উদ্দেশ্যে বেরিয়েছিলেন,নিমাই। জৈষ্ঠ সংক্রান্তির আগের দিন এসে পৌঁছেছিলেন তৎকালীন বাংলার রাজধানী গৌড়ে। সে সময় বাংলার সুুলতান ছিলেন, নবাব হুসেন শাহ। তাঁর ছিল মন্ত্রী গোষ্ঠী। সেই গোষ্ঠীরই অন্যতম সদস্য ছিলেন সাকর মল্লিক। চৈতন্যদেবের বাণী শুনে উদবুদ্ধ হন তিনি। নবাবের রাজ্যসভার কাজ বন্ধ রেখে দিনের পর দিন তিনি চলে যেতেন নিমাই-র কাছে। ত্রক সময় তারা দুই ভাই চৈতন্য দেবের কাছে দীক্ষা নিতে চান। স্থানীয় ত্রকটি তমাল গাছের নীচে দুই জনকে দীক্ষা দেন চৈতন্যদেব। তিনি দুই ভাইয়ের নতুন নামকরণ করেন। সেদিন থেকে সাকর মল্লিক পরিচিত হন সনাতন গোস্বামী নামে ত্রবং দাবিরের নাম হয় রুপ গোস্বামী। শ্রী চৈতন্য দেবের এই দুই শিষ্যের মন্দির তৈরি করা হচ্ছে রানমকেলিতে। রামকেলি উৎসবের শেষ দিনে সনাতন মিলন মন্দির ত্রবং বৈষ্ণব শাস্ত্র চর্চা কেন্দ্রের উদ্যোগে আয়োজন করা হয়েছিল,৬৪ মহন্ত ভোগ উৎসবের। সনাতন মিলন মন্দির ত্রবং বৈষ্ণব শাস্ত্র চর্চা কেন্দ্রের আচার্য্য কৃষ্ণচন্দ্র গোস্বামী জানান, মহাপ্রভু চৈতন্য দেবের মাতৃ বর্গ,পিতৃ বর্গের শিষ্যদের আহ্বান জানিয়ে আয়োজন করা হয়ে থাকে এই উৎসবের। এই উৎসব ঘিরে ত্রদিন ভক্তদের ভীড় আছড়ে পড়ে। উৎসবে সামিল হন মালদা মার্চেন্ট চেম্বার অব কমার্সের সম্পাদক উজ্জ্বল সাহা অন্যান্যরা।  

  • বৈষ্ণব-বৈষ্ণবীদের ভিড় রাধানাথ ধর্মশালায়

    news bazar24: রামকেলি মেলার তৃতীয় দিন শেষ হতেই পুরাতন মালদার রাধানাথ ধর্মশালায় নেমে এলো বৈষ্ণব বৈষ্ণবীদের ভিড়। রামকেলি মেলা শেষ করে ভক্তরা এই ধর্মশালায় একদিনের জন্য আসেন। এখানে এক রাত্রি নিবাস করে আবার ভক্তরা কেউ কামাক্ষা, কেউ বা নিজের কন্তব্যস্থলের উদ্দেশ্যে রওনা দেন। ভক্তরদের জন্য সকাল থেকে রাত পর্যন্ত সেবার আয়োজন করে থাকেন ধর্মশালা কর্তৃপক্ষ। ধর্মশালার আয়োজক অভিজিৎ রাহুত জানান, এই ধর্মশালায় বৈষ্ণব সেবা তাদের জন্মের আগে থেকে হয়ে আসছে।

  • ঝান্ডা উৎসব পালিত পুরাতন মালদায়

    news bazar24; প্রতিবছরের মতো এবছরও ঝান্ডা উৎসব পালিত হল পুরাতন মালদায়। পুরাতন মালদা পুরসভার ৫ নম্বর ওয়ার্ডের শাকমোহন ত্রলাকায় আয়োজন করা হয়েছিল এই ঝান্ডা উৎসবের। প্রতিবছরের ন্যায় এবছরও ঝান্ডা উৎসবে মাতল পুরাতন মালদা পুরসভার মুসলিম সম্প্রদায়ের অগণিত মানুষ। নিধারিত সময় অনুযায়ী রাত ৯ টা নাগাদ এই উৎসব শুরু হয় পুরাতন মালদা পুরসভার ৫ নম্বর ওয়ার্ডের শাকমোহন ত্রলাকায়। গাজোলের পান্ডুয়া সরিফ থেকে দুই শতাধিক ফকির বাবা এই পবিত্র ঝান্ড হাতে নিয়ে পায়ে হেটে ত্রদিন পৌছে যান শাকমোহন ত্রলাকায়। এরপর-ই শুরু হয় ঝান্ডা উৎসব। পবিত্র ঝান্ডা স্পর্শ করতে নেমে আসে মুসলিম সম্প্রদায়ের মানুষদের ঢল। জানা গেছে, এই পরম্পরা প্রায় ৭০০ বছরের প্রাচীন। বর্তমানে এই প্রাচীন পরম্পরায় যত সামান্যও ভাটা পরেনি। প্রাচীন নিয়ম মেনেই চলে আসছে এই নীতি পরম্পরা।

  • আক্রান্ত একই পরিবারের তিন

    news bazar24;স্বামী-স্ত্রীর গন্ডগোল নিয়ে সালিশি সভা ডাকাকে কেন্দ্র করে দুই পরিবারের মধ্যে সংঘর্ষে আহত তিন। ঘটনাটি ঘটেছে রবিবার রাতে ইংরেজবাজার থানার যদুপুর ১ নম্বর অঞ্চলের কাটাগর এলাকায়। স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, ওই এলাকার বাসিন্দা রঘু সেখ তার স্ত্রীকে মারধোর করছিল। প্রতিবাদ করে এলাকারই যুবক ইব্রটআহিম শেখ। এই ঘটনায় গ্রামে রবিবার রাতেই নরেন্দ্রপুর এলাকায় সালিশি সভার ডাক দিয়েছিল এলাকার মাতব্বরেরা। সেই সালিশি সভায় আসার জন্য অভিযুক্ত রুঘু শেখকে তার বাড়িতে ডাকতে যায় ইব্রাটহিম শেখ, তার মা আঙ্গুরি বিবি ও হাসিনা খাতুন। সালিশি সভায় আসার জন্য ডাকতে গেলে অভিযুক্ত রুঘু শেখ ও তার পরিবারের লোকেরা সালিশি সভায় যাবেনা বলে জানিয়ে দেন। এই ঘটনাতে দুই পরিবারের মধ্যে বচসা বাধে। অভিযোগ রুঘু শেখ, শেফালী খাতুন, সোনালী খাতুন সহ ৪ জন ইব্রাহিম শেখ, আঙ্গুরি বিবি ও হাসিনা খাতুনকে মারধোর করে। লাঠি ও লোহার রড় দিয়ে দুজনের মাথা ফাটিয়ে দেয় বলে অভিযোগ। একজনের কোমরে আঘাত লাগে। পরিবারের লোকেরা গুরুতর অবস্থায় রবিবার রাতেই মালদা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে তাদের চিকিৎসার জন্য নিয়ে যায়। এই ঘটনায় সোমবার সকাল থেকেই এলাকায় তীব্র চাঞ্জল্য ছড়িয়ে পরে। পুলিশ প্রশাসন থাকতে এরকম সালিশি সভা কেন হলো এটাই প্রশ্ন এলাকাবাসীদের। অভিযুক্তরা পলাতক।  আক্রান্ত ইব্রাহিম শেখ জানিয়েছে, রবিবার সকালে বচসার জেরে রুঘু তার স্ত্রীকে মারধোর করছিল। এই ঘটনায় বাধা দিতে যায় তারা। এই নিয়ে রবিবার রাতে একটি সালিশির আয়োজন করা হয় গ্রামে। সালিশি সভায় উপস্থিত হওয়ার জন্য রুঘুকে ডাকতে যান তারা। সেই সময় ধারালো অস্ত্র, রড় এবং লাঠি নিয়ে তাদের মাধোর করা হয়।

  • নতুন ভাবে তৈরি হচ্ছে গঙ্গারামপুর স্টেডিয়াম

    news bazar24; পল মৈত্র, দক্ষিন দিনাজপুরঃ এগিয়ে চলেছে বাংলা সঙ্গে পশ্চিমবঙ্গ সরকার। সত্যি এই স্লোগানটি বাস্তবে সার্থকরুপ নিয়েছে। নতুনরূপে সাজতে চলেছে গঙ্গারামপুর স্টেডিয়াম। যার পরিকাঠামোগত উন্নয়নে বারাদ্দ ২ কোটি ৬৫ লক্ষ টাকা। জেলার বৃহত্তম স্টেডিয়াম হিসেবে গড়ে তোলার লক্ষ্যে গঙ্গারামপুর স্টেডিয়াম নতুন রূপে সাজবে। যার ইঙ্গিত কিছুদিন আগেই বাংলার মুখ্যমন্ত্রী দিয়েছিলেন গঙ্গারামপুরের জনসভা থেকে। গত বৃহস্পতিবার দুপুরে গঙ্গারামপুর স্টেডিয়াম সম্প্রসারণ কর্মসূচির শিল্যানাস করলেন প্রাক্তন বিধায়ক তথা উত্তরবঙ্গ উন্নয়ন পর্ষদের অন্যতম সদস্য বিপ্লব মিত্র। অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন অতিরিক্ত জেলাশাসক কৃত্তিবাস নায়েক মহকুমাশাসক দেবাঞ্জন রায় গঙ্গারামপুর পুরসভার পৌর পুরপিতা প্রশান্ত মিত্র বিশিষ্ট সমাজসেবী চিরঞ্জীব মিত্র সহ পুরভার কাউন্সিলরগণ সহ মহকুমা ক্রীড়া সম্পাদক বিভূতিভূষণ চক্রবর্তী। এবিষয়ে মহকুমা ক্রীড়া সম্পাদক  বিভূতিভূষণ চক্রবর্তী বলেন, এটা খুব আনন্দের বিষয় এবং শুধু মহকুমা নয় জেলার সমস্ত ক্রীড়াবিদ ও ক্রীড়াপ্রেমীদের জন্য একটি নতুন সংযোজন মুখ্যমন্ত্রীর এই অভিনব উদ্যোগ কে সাড়া জেলার মানুষ সাধুবাদ জানিয়েছেন। এলাকার মানুষ খুব খুশী ।

  • ভ্রুণের লিঙ্গ নির্ধারণ রুখতে কড়া হাতে তৎপর জেলা প্রশাসন

    news bazar24;পল মৈত্র,দক্ষিণ দিনাজপুরঃ রাজ্যের অন্য জেলার পাশাপাশি  দক্ষিণ দিনাজপুরেও কন্যা সন্তানের জন্মের হার কমছে ব্যাপকভাবে পরিসংখ্যান অনুযায়ী। জেলায় পুরুষ ও মহিলা জনংসখ্যার ভারসাম্য বজায় রাখতে তাই সক্রিয় হল দক্ষিণ দিনাজপুর জেলা স্বাস্থ্য বিভাগ। গর্ভস্থ ভ্রুণের লিঙ্গ নির্ধারণ বন্ধ করতে শুরু হল সচেতনতামূলক কর্মসূচি। স্বাস্থ্য পরিষেবার সঙ্গে জড়িত সরকারি, বেসরকারি প্রতিষ্ঠান ও এনজিওদের নিয়ে নিয়মিত কর্মসূচি চালানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছে জেলা স্বাস্থ্য বিভাগ। জেলা স্বাস্থ্য বিভাগ সূত্রে জানা যাচ্ছে, ২০১১ সালের জনগণনা অনুযায়ী দেশে প্রতি একহাজার পুরুষে মহিলার সংখ্যা ৯৪০। এরাজ্যে সেই সংখ্যা ৯৫০। দক্ষিণ দিনাজপুরে প্রতি হাজার পুরুষে মহিলার সংখ্যা ৯৫৬। বালুরঘাট সদর এবং গঙ্গারামপুর মহকুমা হাসপাতাল ছাড়াও জেলায় রয়েছে ৮টি গ্রামীণ বা ব্লক হাসপাতাল। দেখা যাচ্ছে, প্রতিবছরই জেলার বিভিন্ন হাসপাতালগুলিতে ধারাবাহিকভাবে কন্যা সন্তানের জন্মের হার কমছে। আর কন্যা সন্তানের জন্মের হার কমার পিছনে গর্ভস্থ ভ্রুণের লিঙ্গ নির্ধারণকেই দায়ি করা হয় অনেকক্ষেত্রে। জেলার বিভিন্ন নার্সিংহোম, প্যাথলজিক্যাল ল্যাবে গর্ভস্থ ভ্রূণের লিঙ্গ নির্ধারণ পরীক্ষা করা হয় বলে আগেও অভিযোগ উঠেছে। তাতে শিশুর পরিবার জেনে যাচ্ছে গর্ভস্থ ভ্রুণ কন্যা না পুত্র। গর্ভস্থ ভ্রুণ যদি কন্যা হয় তাহলে অনেক সময় গর্ভপাত করানোর মতোও ঘটনা সামনে আসছে। এই কারণে কমছে কন্যা সন্তানের জন্মের হার। সেদিকে নজর রেখে এবার জেলা স্বাস্থ্য বিভাগ সচেতনতা প্রচারে নামছে। জেলা মুখ্য স্বাস্থ্য আধিকারিকের উদ্যোগে স্বাস্থ্য পরিষেবার সঙ্গে জড়িত সমস্ত সরকারি, বেসরকারি প্রতিষ্ঠান ও ক্লিনিকের কর্মকর্তাদের নিয়ে কর্মশালা ও নিয়মিত সচেতনতামূলক প্রচার চালানো শুরু হয়েছে। জেলা মুখ্য স্বাস্থ্য আধিকারিক সুকুমার দে বলেন, “সমাজে মহিলাদের গুরুত্ব ও প্রয়োজনীয়তা বিজ্ঞানসম্মত বিষয়। কিন্তু, আগেই ভ্রূণ নির্ধারণের ফলে বাধা পাচ্ছে কন্যা জন্মদান। জন্মের আগে লিঙ্গ নির্ধারণ যে একটি বড় অপরাধ, এনিয়ে বিশেষ কর্মসূচি শুরু করা হল। স্বাস্থ্য পরিষেবার সঙ্গে জড়িত ক্লিনিক, নার্সিংহোম, স্বেছাসেবী সংস্থা ও সরকারি-বেসরকারি প্রতিষ্ঠানগুলিকে নিয়ে সচেতনতামূলক কর্মশালা শুরু হয়েছে।” 

  • পৌর এলাকাকে সচ্ছ ও পরিস্কার করার লক্ষ্যে কর্মী নিয়োগ

    news bazar24; পল মৈত্র,বুনিয়াদপুর,দক্ষিন দিনাজপুরঃ গত আগষ্ট মাসে গঠিত হয়েছে বুনিয়াদপুর পৌরসভা। প্রথমবার ক্ষমতায় আসে তৃণমূল। পৌরসভা হলেও বুনিয়াদপুর শহরের বিভিন্ন ওয়ার্ডে এখনও রয়ে গেছে নোংরা আবর্জনায় ভরতি। পৌরবাসীদের পক্ষ থেকে বারংবার অভিযোগ তোলা হয়েছে এই নিয়ে। এদিকে বিভিন্ন ওয়ার্ড পরিষ্কার করার লক্ষে অভিযানে নামল বুনিয়াদপুর পৌরসভার। এর জন্য নতুন করে ৭৫ কর্মী নিয়োগ করা হয়েছে পৌরসভার পক্ষ থেকে। তবে নোংরা ফেলার জায়গা না থাকায় বর্তমানে কিছুটা সমস্যা হচ্ছে। যদিও এই সমস্যা খুব তাড়াতাড়ি মিটবে বলে জানিয়েছেন বুনিয়াদপুর পৌরসভার চেয়ারম্যান অখিল বর্মণ। ২০১৪ সালে মুখ্যমন্ত্রী ঘোষণা করেন বুনিয়াদপুরকে পুরসভা হিসেবে। বংশীহারীর শিবপুর গ্রাম পঞ্চায়েতের কয়েকটি এলাকাকে নিয়ে ১৪টি ওয়ার্ড তৈরি গঠন করা হয়। নির্বাচন না হওয়াতে পুরসভার কাজকর্ম হত মহকুমা শাসকের ত্বত্তাবধানে। অবশেষে ২০১৭ আগস্ট মাসে রাজ্যের অন্যান্য পুরসভার সঙ্গে নির্বাচন হয় এই পুরসভার। সেখানে ১৩টি তৃণমূল এবং ১ টি বিজেপি দখল করে। একক সংখ্যা গরিষ্ঠতা পেয়ে গত ১৩ সেপ্টেম্বর মাসে বোর্ড গঠন করে। এরপর ধীরে ধীরে তৈরি হয় পৌর ভবন। লাগানো হয় রোড লাইট। সংস্কার করা হয় রাস্তা। তবে এর পরেও এলাকায় নোংরা আবর্জনা সে ভাবে পরিষ্কার হয় না বলে ক্ষোভ ছিল এলাকাবাসীর। এদিকে পৌরসভার আবর্জনা ফেলার জায়গা না থাকায় সমস্যা পরে পৌর কর্মীরা। যত্রতত্র নোংরা ফেলতে গিয়ে কয়েকজন পৌরসভার সাফাই কর্মীকে মারধর করে এলাকাবাসীরা বলে অভিযোগ ওঠে। অবশেষে এবার নড়েচড়ে বসল বুনিয়াদপুর পৌরসভা। এলাকার নোংরা আবর্জনা ফেলার জন্য ৭৫ জন কর্মীকে নিয়োগ করল পৌরসভা। এছাড়াও ডোর টু ডোর সার্ভে করা হবে বলে পৌরসভার পক্ষ থেকে জাননো হয়েছে। এবিষয়ে বুনিয়াদপুর পৌরসভার চেয়ারম্যান অখিল বর্মণ, জানান পৌরসভার নোংরা ফেলার জন্য ও ডোর টু ডোর সার্ভে করার জন্য ৭৫ জন কর্মীকে নিয়োগ করা হয়েছে। যাদের পৌরসভা সরাসরি বেতন দেবে। অন্য দিকে পৌর সাফাই কর্মীকে মারধরের ঘটনার কথা সরাসরি স্বীকার করেন নি বুনিয়াদপুর পৌরসভার চেয়ারম্যান অখিল বর্মণ। তবে এমন ঘটনা কেউ ঘটিয়ে থাকলে তারা ঠিক করছেন না বলে জানিয়েছেন তিনি। মিশন নির্মল বাংলা প্রকল্পে শহর পরিষ্কার করতে সব রকম ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে পৌরসভার পক্ষ থেকে বলে তিনি জানিয়েছেন। 

  • বুনিয়াদপুর ক্রীয়েটিভ ডান্স অ্যাকাডেমির দুদিন ব্যাপী এক বর্ণাঢ্য নৃত্যানুষ্ঠান

    news bazar24:পল মৈত্র, বুনিয়াদপুর, দক্ষিন দিনাজপুরঃ বুনিয়াদপুর ক্রীয়েটিভ ডান্স অ্যাকাডেমি যা এলাকা সহ সারা জেলায় সুপরিচিত। প্রতি বছরের মতন এবারেরও দুদিন ব্যাপী সান্ধ্য নৃত্যানুষ্ঠানের আয়োজন করে বুনিয়াদপুর ক্রীয়েটিভ ডান্স অ্যাকাডেমির কর্নধার দেবস্মীতা সিংহ নন্দী ও কৌশিক নন্দী। এই দুজনের ও অ্যাকাডেমির শতাধিক ছাত্র ছাত্রীদের কঠোর পরিশ্রম ও অদম্য মনোবল আজ তাদের মানুষের কাছে পাশাপাশি জেলায় পরিচিতির উচ্চ শিখরে পৌছে দিয়েছে। বৃহস্পতিবার সন্ধ্যা ৬ টায় বুনিয়াদপুর ৫১২ নং জাতীয় সড়কের পাশে ফুটবল ময়দানে এই অনুষ্ঠানের শুভ সূচনা হয়। উপস্থিত ছিলেন জেলা পুলিশ সুপার প্রসূন ব্যানার্জী, গঙ্গারামপুর মহকুমা শাসক দেবাঞ্জন রায়, বংশীহারী থানার আইসি বিশ্বজিত ঘোষ, গঙ্গারামপুর মহকুমা আদালতের সরকারি আইনজীবী প্রতুল মৈত্র, বুনিয়াদপুর পুরসভার চেয়ারম্যান অখিল বর্মন, সাহিত্যিক গোবিন্দ তালুকদার, প্রবীন শিক্ষক তথা সমাজসেবী মনোরঞ্জন সরকার, লোকশিল্পী অরিন্দম সিংহ রানা, বুনিয়াদপুর কালকন্ঠ সাহিত্য পত্রিকার সম্পাদক বাপ্পাদিত্য দে সহ অন্যান্য বিশিষ্টরা। বৃহস্পতিবার ও শুক্রবার সন্ধ্যায় কচিকাঁচাদের নাচের মাধ্যমে সন্ধ্যা বেলা অনন্য হয়ে ওঠে। অন্যদিকে, অনুষ্ঠানের মূল আকর্ষন ছিল বিশেষ কিছু নাচ- রাধারমান ভঞ্জন, সাত ভাই চম্পা, যোদা আকবর, মহিষাসুরমর্দিনী, চিত্রাঙ্গদা, ঝাঁসির রানি লক্ষী বাঈ, এই নাচের থিমগুলোর মাধ্যমে ছাত্রীরা দুর্ধর্ষ নাচ পরিবেশন করে উপস্থিত দর্শক ও বিশিষ্টদের মন জয় করে। প্রতিটি নাচের শেষে হাজার হাততালিতে উপবিষ্ট দর্শকস্থান সহ মঞ্চ কেঁপে ওঠে। এদিন বিভিন্ন নাচের থিম ছাত্রীদের দুধর্ষ নাচ তাদের নাচের ব্যবহৃত পোশাক প্রপস তাদের মেকাপ সহ অসাধারন বহুমূল্যের তৈরি মঞ্চ ও নানান আলোর রোশনাই এর কদর ও বাহবা দর্কদের মুখে মুখে ঘুরতে থাকে যার শ্রেয় যায় ডান্স অ্যাকাডেমির কর্নধার দেবস্মীতা সিংহ নন্দী ও কৌশিক নন্দীকে। এবিষয়ে সিংহ নন্দী বলেন, প্রতিবছর আমরা বাৎসরিক অনুষ্ঠান করি যার মধ্যে আকর্ষনীয় নানান থিমের থাকে আমার ছাত্রীরা দিন রাত অক্লান্ত পরিশ্রম করে এই সাফল্য এনে দিয়েছে পাশাপাশি রো বড়ো করে অনুষ্ঠান করতে চাইলেও কিছু ক্ষেত্রে বাধ সাধে অর্থ কিন্তু আমার অদম্য ইচ্ছা আর কিছু করার লক্ষ্যে মনোবল শক্ত করার দরুন আমি থেমে থাকিনি আগামীতেও আরো ভালো বড়ো নৃত্যানুষ্ঠান করতে চাই। এদিন অনুষ্ঠানে উপস্থিত দর্শকদের ভীড় ছিল লক্ষনীয় যাকে ঘীরে মেলার আসর বসে। পাশাপাশি জাতীয় পাশে অনুষ্ঠানটি চলায় যানজট ও কোনো প্রকারের অপ্রীতিকর ঘটনা এড়াতে প্রচুর পুলিশ ও সিভিক মোতায়েন ছিল। শুক্রবার রাতে দুদিন ব্যাপী নৃত্যানুষ্ঠানের পরিসমাপ্তি ঘটে। দুদিন ধরে দুধর্ষ চলতে থাকা অনুষ্ঠান শেষে বাড়িমুখো দর্শকরা মনে সুন্দর একরাশ ঝলমলে অভিজ্ঞতা বহন করে নিয়ে গেলেন  যা নিয়ে এই স্মৃতির রোমন্থন করবেন পাশাপাশি আগামী বছরের এদিনটার জন্য অপেক্ষা করবেন হাজারো মানুষ যার জন্য সেই বিষয়কে মাথায় রেখে তৈরি হচ্ছে বুনিয়াদপুর ক্রীয়েটিভ ডান্স অ্যাকাডেমির ছাত্রীরা তাদের নাচ শেখাতে ব্যাস্ত দেবস্মীতা সিংহ নন্দী।