রাজ্য


  • ভোট-পরবর্তীতে বিজেপি নেতার বাড়ীতে হামলা ঘটনাস্থলে পুলিশ কিন্তু নীরব দর্শকের ভূমিকায়

    মালদা, ২৪ এপ্রিলঃ ভোট পরবর্তী হিংসা অব্যাহত। তৃণমূল-বিজেপি সংঘর্ষে উত্তেজনা ছাড়ালো মালদায়। ঘটনার সময় পুলিশ উপস্থিত থাকলেও তাদের ভূমিকা ছিল নীরব দর্শক বলে অভিযোগ। ঘটনায় বিজেপি এবং তৃণমূল দুই দলের পক্ষ থেকেই মালদা থানায় একটি করে লিখিত অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে। ঘটনাটি ঘটে মঙ্গলবার রাত ১১টা নাগাদ পুরাতন মালদা পুরসভার ১৬ নম্বর ওয়ার্ডে। জানা যায়  পুরাতন মালদা পৌরসভার ১৬ নম্বর ওয়ার্ডের সিপিএম নেতা অতুল সরকার বিজেপিতে যোগ দেন৷ অতুলবাবুর স্ত্রী আরতিদেবীর অভিযোগ, বাড়ির সামনে দাঁড়িয়েছিলাম৷ হঠাৎ দেখি ওরা ছুটতে ছুটতে আসছে৷ কিছু বুঝে ওঠার আগেই একটা ইট আমার কানের পাশ দিয়ে বেরিয়ে যায়৷ ভয়ে আমি ঘরে ঢুকে পড়ি৷ জানালা দিয়ে দেখতে পাই, পাশের বাড়ির শোভন গাঙ্গুলির সঙ্গে আরও দু'জন ছেলে বাড়ির সামনে দাঁড়িয়ে আছে৷ তারা আমাদের বাড়ির দিকে ইট-পাথর ছুড়ছে৷ বাবু কর্মকার নামে একটি ছেলেও তাদের সঙ্গে ছিল৷ তারা সবাই তৃণমূল করে৷ তারা বাড়ির সামনে রাখা একটি মোটরবাইক ফেলে দেয়৷ আমার স্বামী বিজেপি করেন৷ সেই সময় তিনি বাড়ি ছিলেন না৷ গতকাল রাতে আমি গোটা ঘটনা জানিয়ে মালদা থানায় অভিযোগ দায়ের করেছি৷ এলাকার বিজেপি নেতা, পুরাতন মালদা পঞ্চায়েত সমিতির সদস্য নিতাই মণ্ডল বলেন, গতকাল রাত সাড়ে ১০টা নাগাদ খবর পাই, অতুলদার বাড়িতে তৃণমূলের হামলা চলছে৷ সেই খবর পেয়ে আমরা ছুটে আসি৷ থানায় খবর দিলে অফিসার রোহিতবাবুর নেতৃত্বে পুলিশও চলে আসে৷ এদিকে ১৬ নম্বর ওয়ার্ডের তৃণমূল কাউন্সিলর শিবাঙ্কর ভট্টাচার্য বলেন, গতকাল পুরাতন মালদা পৌরসভার ১৬ নম্বর ওয়ার্ডের ৪টি বুথে ভোট হয়েছে৷ সকাল ৬টা থেকে সন্ধে সাড়ে ৬টা পর্যন্ত ভোট চলেছে৷ বুথে কোনোরকম গণ্ডগোল হয়নি৷ মানুষ শান্তিতে ভোট দিয়েছেন৷ সকাল থেকে বিজেপির দুষ্কৃতীরা চেষ্টা করেছিল, কীভাবে ওখানে ভোটটা নষ্ট করা যায়৷ যাই হোক, ভোট শেষের পর কর্মীরা বাড়ি চলে যায়৷ আমিও আমার স্ত্রীকে নিয়ে বাড়ি যাচ্ছিলাম৷ বাড়ি যাওয়ার পথে বাইরের দুষ্কৃতীরা আমাদের উপর হামলা চালায়৷ ওই দুষ্কৃতীদের মধ্যে সাহাপুর গ্রাম পঞ্চায়েত প্রধান, সাহাপুর নগর কমিটির সদস্য নিতাই মণ্ডল, ইংরেজবাজারের তন্তু ঘোষ সহ আরও কয়েকজন দুষ্কৃতী ছিল৷

  • ভোট-পরবর্তী হিংসায় দুষ্কৃতীদের হাতে জখম ৭ জন

    মালদা, ২৪ এপ্রিলঃ ভোট-পরবর্তী হিংসায় জখম 7 ।মালদা রতুয়া থানার সামসির  ভগবানপুরে ব্যাপক বোমাবাজি ।বোমার আঘাতে আহত ৭ জন।  তৃণমূলের দাবী আহতরা তাদের সমর্থক। অভিযোগের তীর কংগ্রেসের দিকে। অভিযোগ  আজ সকাল দশটা নাগাদ কয়েকজন তৃণমূল কর্মীর উপর চড়াও হয় দুষ্কৃতী বাহিনী। চলে ব্যাপক বোমাবাজি । তৃনমূলের অভিযোগ দুষ্কৃতীদের ছোড়া বোমায় আহত হয় এই এলাকার তৃণমূলের ৭ কর্মী এবং  দুষ্কৃতীরা কংগ্রেস আশ্রিত বলে অভিযোগ।  আহতরা সামসি গ্রামীণ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন। যদিও আহতদের পরিবারের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে যে তার কোন দল করেন  না । এ প্রসঙ্গে রুতুয়া ১নং ব্লকের তৃনমূলের চেয়ারম্যান মহঃ ইসামুদ্দিন জানিয়েছেন যে যারা হামলা চালিয়েছেন তারা এক কথায় সমাজবিরোধী।  এদের পিছনে রয়েছে তৃনমূলের কিছু নেতা এবং কংগ্রেস। এরা তোলাবাজি করে।   

  • এসএসকেএমে ভর্তি চিটফান্ড কাণ্ডে জেলবন্দি সারদা কর্তা

    newsbazar24: এসএসকেএমে ভর্তি চিটফান্ড কাণ্ডে জেলবন্দি সারদা কর্তা সুদীপ্ত সেন। সোমবার সন্ধ্যায় এসএসকেএম হাসপাতালে ভর্তি করা হল সারদা কর্তা সুদীপ্ত সেনকে। জেলবন্দি সুদীপ্ত সেনের মলদ্বারে ফোঁড়া হয়েছে বলে জানা গিয়েছে। জেল হাসপাতালে রেখে তাঁর চিকিৎসা করা যাবে না তাই এসএসকেএমে ভর্তি করা হয়েছে। হাসপাতালের সার্জারি বিভাগে ভর্তি হয়েছেন। চিকিৎসকরা অ্যকুউট ইনফেকশন থেকে সেপটিকের আশঙ্কা করছেন। হাসপাতাল সূত্রে খবর,শারীরিক অবস্থা বুঝেই আগামিকাল কিংবা বুধবার অস্ত্রোপচার করা হতে পারে সুদীপ্ত সেনের। গত মাসে বারাসতে সিবিআইয়ের বিশেষ আদালতে হাজিরা দিতে এসে কান্নায় ভেঙে পড়েন তিনি। 

  • বুনিয়াদপুরে ভোটকর্মীর রহস্যমৃত্যু ঃ রিপোর্ট তলব কমিশনের

    news bazar : ভোট কর্মীর রহস্য মৃত্যু হয়েছে দক্ষিণ দিনাজপুরের বুনিয়াদপুরে।কীভাবে ওই কর্মীর মৃত্যু হল, তা জানতে চেয়ে রিপোর্ট তলব করেছে কমিশন।জানা গিয়েছে, মৃতের নাম বাবুলাল মুর্মু। তিনি কুশমন্ডির শিক্ষক। বুনিয়াদপুরের বাসিন্দা। রিসার্ভে থাকা ভোট কর্মী ছিলেন তিনি। এদিন সকালে ঝুলন্ত অবস্থায় উদ্ধার হয় বাবুললাল মুর্মুর দেহ। এই ঘটনায় চাঞ্চল্য ছড়ায় এলাকায়। বাবুলাল মুর্মুর স্ত্রী জানিয়েছেন, কাল রাতে ভোটের ডিউটির কথা জানিয়েছিলেন তিনি। ভয়ের কথাও জানিয়েছিলেন। বলেছিলেন, সেন্ট্রাল ফোর্স না থাকলে তিনি ডিউটি করবেন না।পরিবারের দাবি, বাবুলাল মুর্মুর শরীর থেকে রক্তক্ষরণ হয়েছে। ঘরের মাটিতে রক্ত পড়ে আছে। তবে, মৃত্যুর কারণ এখনও সুস্পষ্ট নয়। ইতিমধ্যেই পুলিস ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে। দেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য পাঠানো হয়েছে। খবর পাওয়া মাত্র নড়েচড়ে বসে কমিশনও। রিপোর্ট তলব করেছে কমিশন।এর পাশাপাশি, তৃতীয় দফার ভোটে এড়ানো গেল না রক্ত। রাজ্যে প্রথম মৃত্যুর ঘটনা ঘটল মুর্শিদাবাদে। ভোটের হিংসায় মুর্শিদাবাদের ভগবামগোলায় প্রাণ গেল এক ভোটারের। তৃণমূল কংগ্রেস ও কংগ্রেসের সংঘর্ষের মাঝে পড়ে মৃত্যু হয় ওই ভোটারের। নিহতের নাম টিয়ারুল আবুল কালাম। 

  • ছাপ্পা ভোট দিতে এসে পুলিশের হাতে ধরা পড়ল দুই বিজেপি কর্মী

    newsbazar24: ছাপ্পা ভোট দিতে এসে পুলিশের হাতে ধরা পড়ল দুই বিজেপি কর্মী। উত্তর মালা লোকসভা কেন্দ্রের হবিপুর বিধানসভা কেন্দ্রের ৩১ নম্বর বুথের ঘটনা। জানা যায় এদিন দুইজন মুখে গামছা বেঁধে বাইকে করে এসে ৩১ নম্বর বুথে ছাপ্পা ভোট দেওয়ার চেষ্টা করে বলে অভিযোগ। ঠিক সে সময় পুলিশ তাদের আটক করে। এই বিষয়ে স্থানীয় তৃণমূল নেতা হরিহর মাহাতো জানান, উত্তর মালদা কেন্দ্রের বিজেপি প্রার্থী খগেন মুর্মুর নেতৃত্বে তারা ছাপ্পা ভোট দিতে এসেছিল। কিন্তু পুলিশের প্রচেষ্টায় তারা ব্যর্থ হয়।

  • বুথের ভেতরে কংগ্রেস তৃণমূল হাতাহাতি,বিস্তারিত জানুন

    newsbazar24:  ভোট দেওয়াকে কেন্দ্র করে বুথের ভেতরে কংগ্রেস তৃণমূল কংগ্রেস হাতাহাতি।কংগ্রেসের এজেন্টকে মেরে বার করে দেওয়ার অভিযোগ তৃণমূলের বিরুদ্ধে।  প্রকাশ্যে গ্রামবাসীদের হুমকি দেওয়ার অভিযোগ তৃণমূলের বিরুদ্ধে। পুলিশের সামনেই ঘটে ঘটনা।এরপর রতুয়া থানা থেকে অতিরিক্ত পুলিশ বাহিনী ও কেন্দ্রীয় বাহিনী গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে।  উত্তর মালদা লোকসভা কেন্দ্রের অন্তর্গত বিধানসভা কেন্দ্রের লক্ষীতলা মাটিয়ারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ঘটনা। এলাকায় ব্যাপক উত্তেজনা। আতঙ্কে রয়েছে এলাকার মানুষজন । 

  • চাচোল ২১৬ নম্বর বুথের বাইরে ব্যাপক হারে বোমাবাজি ও গুলি

    newsbazar24: উত্তর মালদহের চাচোল বিধানসভা কেন্দ্রের ২১৬ নম্বর বুথ প্রাথমিক বিদ্যালয় বুথের বাইরে ব্যাপক হারে বোমাবাজি ও গুলি চলে ,বহিরাগত দুষ্কৃতীদের দিক থেকে এ ঘটনা ঘটিয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে। শাসক দল ও বিজেপি একে অপরের বিরুদ্ধে অভিযোগ তুলছে । এলাকায় পৌঁছেছে বিশাল পুলিশ বাহিনী , মোতায়েন রয়েছে কেন্দ্র বাহিনী ও পরিস্থিতি কিছুটা স্বাভাবিক হলেও এলাকা থেকে একটি তাজা বোমা উদ্ধার করেছে পুলিশ। আতঙ্কে রয়েছে এলাকার মানুষ ।   

  • মালদা জেলা কংগ্রেস কমিটি ৭-মালদা লোকসভা কেন্দ্রের পর্যবেক্ষকদ্বয়ের কাছে অভিযোগ ।

    মালদা, ২৩ এপ্রিলঃ  মালদা জেলা কংগ্রেস কমিটির পক্ষ থেকে ৭-মালদা লোকসভা কেন্দ্রের পর্যবেক্ষক মিঃ অলোক কুমার সিংহ ও মিঃ এস অরুন কুমারের কাছে কিছু বুথের তালিকা তুলে দেওয়া হয়েছে  যেখানে সকাল থেকে বুথ জ্যাম, ছাপ্পা ভোট এমনকি বাড়ী বাড়ী গিয়ে ভোটারদের ভয় দেখানো হচ্ছে বলে অভিযোগ করা হয়েছে। বুথ গুলির তালিকা  নিম্নরুপ   ১) ৪৬- হরিশচন্দ্রপুর বিধানসভা কেন্দ্রের ৬,৪২,৭৯,১৫৫,২৩৭। ২) ৪৫- চাঁচল বিধানসভা কেন্দ্রের ১০২,১৯০,১৯১ ও ২১৬নং বুথ। ৩) ৪৭- মালতীপুর বিধানসভা কেন্দ্রের ১৭৯, ১৮০ ও ২১৬নং বুথ। ৪) ৫০-মালদা বিধানসভা কেন্দ্রের ১,২,৩ ও ৪ নং বুথ। এ ছাড়াও ৪৮ রতুয়া বিধানসভা কেন্দ্রের বুথ নং ৭৩ থেকে ৮২ মোট ১০টি বুথে রতুয়ার তৃনমূল নেতা  মহঃ ইয়াসিনের নেতৃত্বে বিরোধী এজেন্ট দের বের করে ব্যাপক ছাপ্পা ভোট দেয় বলে অভিযোগ।   

  • উত্তর মালদহ লোকসভা কেন্দ্রের বিভিন্ন বুথে তৃনমূলের সাথে বিজেপি ও কংগ্রেসের সংঘর্ষ

    মালদা, ২৩ এপ্রিলঃ ১) উত্তর মালদহের চাচোল বিধানসভা কেন্দ্রের 216 নম্বর বুথ প্রাথমিক বিদ্যালয় বুথের বাইরে ব্যাপক হারে বোমাবাজি ও গুলি গলা চলে বহিরাগত দুষ্কৃতীদের দিক থেকে এ ঘটনা ঘটিয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে। শাসক দল ও বিজেপি একে অপরের বিরুদ্ধে অভিযোগ তুলছেন। এলাকায় পৌঁছেছেন বিশাল পুলিশ বাহিনী মোতায়েন রয়েছে কেন্দ্র বাহিনী ও পরিস্থিতি কিছুটা স্বাভাবিক হলেও এলাকা থেকে একটি তাজা বোমা উদ্ধার করেছে পুলিশ। ২) আবার উত্তর মালদা লোকসভা কেন্দ্রের অন্তর্গত বিধানসভা কেন্দ্রের লক্ষীতলা মাটিয়ারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ভোট দেওয়াকে কেন্দ্র করে বুথের ভেতরে কংগ্রেস তৃণমূল কংগ্রেস হাতাহাতি।কংগ্রেসের এজেন্টকে মেরে বার করে দেওয়ার অভিযোগ তৃণমূলের বিরুদ্ধে।  প্রকাশ্যে গ্রামবাসীদের হুমকি দেওয়ার অভিযোগ তৃণমূলের বিরুদ্ধে। পুলিশের সামনেই ঘটে ঘটনা।এরপর রতুয়া থানা থেকে অতিরিক্ত পুলিশ বাহিনী ও কেন্দ্রীয় বাহিনী গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে।   ঘটনা। এলাকায় ব্যাপক উত্তেজনা। ৩) উত্তর মালদা লোকসভা কেন্দ্রের অন্তর্গত রতুয়া বিধানসভা কেন্দ্রের অধীন শামসীর মতিগঞ্জ এ 155 ও 156 নম্বর বুথে বিজেপি তৃণমূল সংঘর্ষ। বিজেপি কার্যালয় ভাংচুরের অভিযোগ তৃণমূলের বিরুদ্ধে। খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে পৌঁছেছে রতুয়া থানা থেকে পুলিশ ও কেন্দ্রীয় বাহিনী। এলাকায় রয়েছে উত্তেজনা।

  • উত্তর মালদা এবং দক্ষিণ মালদায় দুই কেন্দ্রে ভোট শুরু : সংঘর্ষ। বাধলো কালিয়াচকে

    মালদা: উত্তর মালদা, দক্ষিণ মালদা কেন্দ্রে ভোটের শুরুতেই কালিয়াচকে সংঘর্ষ বাধল। কালিয়াচক ৩ ব্লকের ভারত-বাংলাদেশ সীমান্তের গোপালনগরে তৃণমূলের দুই গোষ্ঠীর সংঘর্ষে এক মহিলা সহ তিনজন জখম। আহতদের স্থানীয় স্বাস্থ্যকেন্দ্রে চিকিৎসাধীন। দুই লোকসভা আসনের একাধিক বুথে ইভিএম খারাপ হয়ে যাওয়ায় এদিন দেরিতে শুরু হয় ভোট। উত্তর মালদা কেন্দ্রের রতুয়ার বাহারল এলাকায় কোনো বুথেই তাদের পোলিং এজেন্টদের ঢুকতে দেওয়া হচ্ছে না বলে অভিযোগ বামেদের। এখানে বুথে বহিরাগতদের আনাগোনার অভিযোগ উঠছে সকাল থেকেই। এখানকার ৭৯ নম্বর বুথে একজনের ভোট অন্যজন দেওয়ায় প্রিসাইডিং অফিসারকে অপসারিত করা হয়েছে।সোমবার রাতে দক্ষিণ মালদা কেন্দ্রের কালিয়াচক এলাকায় বোমাবাজির অভিযোগ তুলেছে কংগ্রেস। তাদের দাবি, স্থানীয় একটি বুথের সামনে বানানো অস্থায়ী দলীয় শিবিরে বোমা ছুড়ে পালায় দুই দুষ্কৃতী। ঘটনায় তিন কংগ্রেস কর্মী আহত হন। আহতরা বর্তমানে স্বাস্থ্যকেন্দ্রে চিকিৎসাধীন। যদিও এদিন সকালে কালিয়াচকে নির্বিঘ্নেই শুরু হয় ভোট।কালিয়াচকে গোষ্ঠী সংঘর্ষে জখম তৃণমূল কর্মী