রাজ�য


  • মালদা জেলা জুড়ে পালিত অরণ্য সপ্তাহ উদযাপনে আদমি প্রকল্প

    news bazar24:পশ্চিমবঙ্গ সরকারের জলসম্পদ অনুসন্ধান ও উন্নয়ন দপ্তরের অধিনস্ত আদমি (WBADMIP)প্রকল্পের ব্যবস্থাপনায় গত ১৪ ই জুলাই ২০১৮ থেকে ২০ শে জুলাই ২০১৮ পর্যন্ত বৃক্ষরোপন, গাছের চারা বিতরন, নানান সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান, কৃষকদের নিয়ে পদযাত্রা অনুষ্ঠিত হল গোটা মালদা জেলা জুড়ে। বিশ্ব ব্যাঙ্কের আর্থিক সহায়তায় এই আদমি প্রকল্প মালদা জেলায় সেচের জন্য যে পরিকাঠামোর ব্যবস্থা করেছে সেই সকল সেচ পরিকাঠামোর জলব্যবহারকারী সমিতির সদস্য ও কৃষকদের নিয়ে এই কর্মসুচি পালিত হল মালদা জেলার আনাচে কানাচে। ১৪ই জুলাই থেকে প্রত্যেক দিনই জেলার বিভিন্ন ব্লকে কৃষি দপ্তর ও ব্লক প্রশাসনের আধিকারিকদের উপস্থিতিতে ও আদমি প্রকল্পের ডি. পি. এম. ইউ অফিসের বিভিন্ন আধিকারিকদের উপস্থিতিতে জ্ঞজ্ঞ গাছ লাগান প্রাণ বাঁচান স্লোগান কে অরণ্য সপ্তাহ পালনের মধ্য দিয়ে সফল ভাবে সাফল্যমন্ডিত করে তোলেন। সাপ্তাহিক ব্যাপি এই কর্মসূচীতে গোটা জেলায় প্রায়  ছয় হাজারের ও বেশি গাছের চারা লাগানো হয়। ফলের মধ্যে আম, কাঁঠাল, সুপারি, পেয়েরা, কালোজাম, সফেদা, লেবু, ডালিম, আমলকি, চালতা ও কাষ্টল জাতীয় মেহগিনি, সেগুন, কৃষ্ণচূড়া, জারুল,কদম, শিশু, আকাশমনি, বকুল, অর্জূন, শিরিষ এইসকল গাছের চারাগুলি বিভিন্ন জলব্যবহারকারি সমিতির  মাধ্যমে পতিত জমিতে লাগানো হয়। মালদা জেলার বন বিভাগ এই সকল গাছের চারা সম্পূর্ন বিনা মূল্যে ডি. পি. এম. ইউ অফিসের মাধ্যমে জলব্যবহারকারি সমিতির হাতে তুলে দেন। এছাড়া ফলজাতীয় কিছু গাছের চারা আগ্রহি কৃষকেরা ডি. পি. এম. ইউ অফিসের সহযোগিতায় নার্শারি থেকে সহায়ক মূল্যে কিনে নিয়ে লাগান। জেলার বিভিন্ন প্রান্তে বিভিন্ন অনুষ্ঠানে অরণ্য সপ্তাহের গুরুত্ব আলোচনা করা হয় এবং বিশ্ব উষ্ণায়ন ও পরিবেশ কে সুস্থ রাখতে কৃষকদের নিয়ে বিভিন্ন কর্মসূচির বিষয়ের উপর  আলোকপাত করেন জেলার আধিকারিক গন। উপস্থিত থাকেন বামনগোলা ব্লকের বি. ডি. ও শ্রী শুভঙ্কর মজুমদার, চাঁচল-১ ব্লকের সহকৃষি অধিকর্তা শ্রী দিপঙ্কর দেব, ডি. পি. এম. ইউ অফিসের নির্ব্বাহি বাস্তুকার শ্রী সন্দিপ লায়েক, সহকারি বাস্তুকার শ্রী সঞ্জয় রায়, আই. ডি. এস শ্রী মনোজিত বেরা এবং মালদা বন দপ্তরের আধিকারিক ও কর্মী, সহযোগি সংস্থার শ্রী সৌগত রায়, শ্রী সুনিল রায় চৌধুরী ও শ্রী তরুন দেবনাথ, বিশিষ্ঠ সমাজসেবি শ্রী প্রভাস চৌধুরী ও প্রমূখ। ডি. পি. এম. ইউ অফিসের আদিকারিকের কথায় জ্ঞমালদা জেলাকে সবুজ ও সুস্থ করে তুলতে এই পদক্ষেপ নেওয়া, যাতে গোটা বাংলা সবুজায়ন ও নির্মল বাতাসে ভরে ওঠে।

  • ২১শে জুলাই শহীদ দিবসের সমাবেশ হয়ে উঠল রাজনৈতিক দলবদলের মঞ্চ।

    Newsbazar24,ডেস্ক,২১ জুলাইঃ তৃনমূলের শহীদ দিবস উপলক্ষে ২১শে জুলাই  কলকাতায় সমাবেশের মঞ্চ হয়ে উঠল রাজনৈতিক দলবদলের মঞ্চ। আজকের এই সমাবেশের মঞ্চে তৃনমূলে যোগ দিলেন বিজেপির প্রাক্তন সাংসদ থেকে শুরু করে সিপিএমের দুই প্রাক্তন সাংসদ, কংগ্রেসের চার বিধায়ক ও সিপিএম-বিজেপি-কংগ্রেসের ৫৬ জন জনপ্রতিনিধি এদিন যোগ দিলেন তৃণমূল কংগ্রেসে।  প্রতিবারই কেউ না কেউ এই ২১শে জুলাইর মঞ্চে তৃনমূলে যোগ দেন। এবারও তৃণমূলের   শহিদ দিবস পালনের প্রাক্কালে একুশের জুলাইয়ের মঞ্চে  কারা হাজির হন দলবদলের জন্য সেদিকে সবার চোখ ছিল।  কংগ্রেস ছেড়ে কে কে আসছেন সেই জল্পনা ছাড়িয়ে বড় হয়ে দেখা দিয়েছিল বিজেপির প্রাক্তন সাংসদ  চন্দন মিত্রকে  নিয়ে। তিনি কি   তৃণমূলে যোগ দিচ্ছেন? । এছাড়াও সিপিএমের দুই প্রাক্তন সাংসদ ঋতব্রত বন্দ্যোপাধ্যায় ও মইনুল হাসানও সেই দলে ছিলেন। সেই অনুমান আজ  সত্যি  হয়ে দাড়াল। আগামী লোকসভা নির্বাচনের প্রাক্কালে এবার একুশে জুলাইয়ের মঞ্চে উপস্থিত হয়ে তৃণমূলে যোগ দিলেন  বিজেপির চন্দন মিত্র, সিপিএমের মইনুল হাসান, ঋতব্রত বন্দ্যোপাধ্যায়, কংগ্রেসের বিধায়ক আবু তাহের, আখরুজ্জামান, সমর মুখোপাধ্যায়, সাবিনা ইয়াসমিন, কাউন্সিলর নরেন্দ্র তিওয়ারি প্রমুখ। এছাড়া আরও  ৫৬ জন জনপ্রতিনিধিও এদিন একুশের মঞ্চে তৃণমূল কংগ্রেসে যোগ দিলেন। তবে এই একুশের জুলাইয়ের আগে সবথেকে আলোচিত  বিষয় ছিল  চন্দন মিত্রের বিজেপি ছেড়ে  তৃণমূলে যোগদান। সম্প্রতি তিনি বিজেপি ছাড়েন। তারপরই শোনা যায় ২১ জুলাই তাকে  তৃণমূলের  মঞ্চে দেখা যাবে। এর আগে কংগ্রেসের বিধায়কদের নিয়ে জল্পনা চলছিল।  তারপর  যুক্ত হয়েছিল সিপিএমের দুই প্রাক্তন সাংসদ ঋতব্রত বন্দ্যোপাধ্যায় ও মইনুল হাসানের নাম । তারা সবাই একে একে যোগ দিলেন তৃণমূল কংগ্রেসে।  

  • মোবাইল চুরির অপবাদ দিয়ে বাড়ি থেকে ডেকে নিয়ে গিয়ে যুবককে গণপ্রহার

    News Bazar24:মালদা,২১ জুলাই : মোবাইল চুরির অপবাদ দিয়ে বাড়ি থেকে ডেকে নিয়ে গিয়ে যুবককে গণপ্রহার। বেধরক মারধর দিয়ে চোখ উপরে নেওয়ার চেষ্টার অভিযোগ উঠল তারই বন্ধুদের বিরুদ্ধে। শনিবার ভোরে যুবককে রাস্তার পাশে পরে থাকতে দেখে স্থানীয়রা মালদা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করেন।ঘটনাটি গগ, মালদার ইংরেজবাজার থানার যদুপুর এলাকায়।বর্তমানে ওই যুবক গুরুতর অবস্থায় হাসপাতালে চিকিৎসাধীন। জানা গিয়েছে,আক্রান্ত যুবকের নাম রিজু মন্ডল(২২)।পেশায় শ্রমিক। সে যদুপুরের বিধাননগর এলাকার বাসিন্দা।শনিবার ভোরে যদুপুর এলাকার বাইপাসের ধার থেকে আক্রান্ত যুবককে উদ্ধার করে হাসপাতালে ভর্তি করেন স্থানীয়রা।অভিযোগ উঠেছে বন্ধুদের বিরুদ্ধে।ঘটনায় সুবল মন্ডল নামে এক বন্ধুর নাম জানিয়েছে আক্রান্তের পরিবার।আক্রান্তের চোখে গুরুতর আঘাত রয়েছে। আক্রান্তের পরিবারের অভিযোগ, চোরের অপবাদ দিয়ে রিজুকে মারধর করেছে।শুক্রবার রাতেই বন্ধুরা বাড়ি থেকে ডেকে নিয়ে যায় তাকে।তারপর মারধর করে রাস্তায় ফেলে দেয় বলে অভিযোগ।এই ঘটনায় ইংরেজবাজার থানায় অভিযোগ দায়ের করেছে পরিবারের লোকেরা।পুলিশ ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে।

  • লোকসভা ভোটের আগে সংগঠনকে আরও মজবুত করতে জেলা সংগঠনে ব্যাপক রদবদল রাজ্য বিজেপির

    Newsbazar24, ডেস্ক ২০ জুলাই : আগামী লোকসভা নির্বাচনে পশ্চিমবঙ্গে  বিজেপি-র পায়ের তলার মাটিকে আরও শক্ত করার লক্ষে প্রথম দফায় রাজ্যের ৮টি  সাংগঠনিক জেলায় সভাপতি বদল করল । শিলিগুড়ি, কোচবিহার, উত্তর দিনাজপুর, মালদা, শ্রীরামপুর, আরামবাগ, বসিরহাট ও কাঁথিতে নতুন জেলা সভাপতির নাম ঘোষণা করা হল।   উনিশের ভোটের দিকে তাকিয়ে দলের রাজ্য সংগঠনে রদবদল শুরু করে দিল বিজেপি। প্রথম কিস্তিতে আটটি জেলা সভাপতি বদল করা হল শুক্রবার। ওই জেলাগুলি হল, কোচবিহার, শিলিগুড়ি, উত্তর দিনাজপুর, মালদহ, শ্রীরামপুর, আরামবাগ, বসিরহাট ও পূর্ব মেদিনীপুর। বিজেপি-র রাজ্য সংগঠনে রদবদলের প্রক্রিয়া বেশ কিছুদিন ধরে চলছিল। সভাপতি পদের জন্য  মাস খানেক আগেই জেলা স্তরে নেতাদের চিহ্নিত করে সাক্ষাৎকার নেন রাজ্যের শীর্ষ নেতারা  স্বয়ংসেবক সঙ্ঘের প্রথম সারির নেতাদের উপস্থিতেতে । প্রাথমিক ভাবে প্রস্তাবিত জেলা সভাপতিদের বেছে নেওয়ার পর নামগুলি পাঠানো হয়  দলের কেন্দ্রীয় নেতৃত্বের তরফে বাংলার পর্যবেক্ষক কৈলাস বিজয়বর্গীয়র কাছে। তার অনুমোদন পাওয়ার পর তা জানানো হয় বিজেপি সভাপতি অমিত শাহকেও। তারপর আজ রদবদলের তালিকা প্রকাশ করে  নেতাদের জানিয়ে দেন রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ। দলীয় সূত্রে বলা হচ্ছে, লোকসভা ভোটের আগে সংগঠনকে আরও শক্তিশালী  করে তুলতেই এই পদক্ষেপ করেছে দল। শিলিগুড়িতে  সভাপতি হলেন অভিজিৎ রায়চৌধুরী। প্রবীণ আগরওয়াল এর আগে জেলা সভাপতির দায়িত্বে থাকলেও তিনি অনেকদিন ধরেই অব্যহতি চাইছিলেন। তাই নতুন সভাপতি  করা হল। উত্তর দিনাজপুরে নতুন জেলা সভাপতি হলেন শংকর চক্রবর্তী। এর আগে ছিলেন নির্মল দাম।  কোচবিহারে নিখিল রঞ্জন দের জায়গায় এলেন মালতি রাভা। মালদায় দায়িত্ব পেলেন সঞ্জিত মিশ্র। তাঁর আগে সভাপতি পদে ছিলেন সুব্রত কুণ্ডু। এর পাশাপাশি শ্রীরামপুরে ভাস্কর ভট্টাচার্যের জায়গায়  এলেন নতুন জেলা সভাপতি সুমন ঘোষ। বসিরহাটে প্রদীপ ব্যানার্জির জায়গায় গণেশ ঘোষ, আরামবাগে বিমান ঘোষ ও কাঁথিতে সোমনাথ রায়ের জায়গায় নতুন সভাপতির দায়িত্ব পেলেন তপন মাইতি।

  • ওসির ঘুষ খাওয়ার প্রতিবাদ করায় থানার মধ্যে আক্রান্ত পুলিশ আধিকারিক

    Newsbazar24, ডেস্ক ১৯ জুলাই : থানার মধ্যে আক্রান্ত হলেন পুলিশ আধিকারিক থানার  ওসির হাতে । অভিযোগ, ওসির ঘুষ খাওয়ার প্রতিবাদ করায় তিনি আক্রান্ত হয়েছেন ওসি ও তার অনুগত কিছু পুলিশকর্মীর হাতে । বেধড়ক মারের চোটে আহত হয়ে তিনি বর্তমানে বর্তমানে  মালদা  মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালে চিকিৎসাধীন।কিছুটা সুস্থ হয়ে তিনি  গোটা ঘটনা নিয়ে পুলিশ সুপারকে অভিযোগ জানাবেন বলে জানান ঘটনাটি ঘটেছে  ভূতনি থানায়।আক্রান্ত পুলিশকর্মী ঐ থানার এএসআই নাম মহম্মদ নুরুল ইসলাম।  অভিযোগ উঠেছে ওই থানার  ওসি তরুণ সাহার বিরুদ্ধে। নুরুল ইসলামের অভিযোগ, ওসি-র সঙ্গে তোলাবাজিতে জড়িত আছেন ওই থানার এএসআই জাকির হোসেন, এসআই মণিরুল ইসলাম, এএসআই  মনসুর আলি, এএসআই বিশ্বজিৎ মাহাত। তাঁরা সবাই মিলে তাকে থানার  ভিতরে  বেধড়ক মারধর করেন। খুনের চেষ্টাও করা হয়।  গতকাল দুপুরে ঘটনা ঘটে। রাতে তিনি কোনওরকমে থানা থেকে পালিয়ে মালদা মেডিকেলে ভরতি হন। নুরুল ইসলামের  বিস্ফোরক অভিযোগ,  ওসি তরুণ সাহা গত মাসের ১৩ তারিখ গদাইচরের বাসিন্দা মালা সিংকে গ্রেপ্তার করেন। তার কাছে আসল ২৩ হাজার টাকা ছিল। তাকে ছাড়ার জন্য ৫ লাখ টাকা চান ওসি। কিন্তু মালা সিং সেই টাকা দিতে না পারায় তাকে ২৩ হাজার টাকার জালনোটের মিথ্যা মামলায় ফাঁসিয়ে দেন তরুণবাবু। শুধু তাই নয়, এলাকায় রাস্তার কাজের জন্য ঠিকাদারের কাছেও ওসি ৭ লাখ টাকা নিয়েছেন। রাজকুমারটোলার নদী বাঁধ মেরামতিতে নিযুক্ত ঠিকাদারের কাছে ওসি ঘুষ নিয়েছেন ১৪ লাখ টাকা। এ ছাড়াও  উত্তর চণ্ডীপুর গ্রাম পঞ্চায়েত প্রধানের সঙ্গে মিলে তরুণবাবু ২২ টি বড় বড় গাছ কেটে ফেলে সব টাকাই আত্মসাৎ করেছেন ওসি। থানায় থেকে তিনি তৃণমূলের হয়ে কাজ করছেন বলে অভিযোগ।  প্রতি মাসে ঘুষ ও তোলাবাজি করে কমপক্ষে ৬ লাখ টাকা তোলেন ওসি। এই সমস্ত তোলাবাজি ও ঘুষের প্রতিবাদ করায়  প্রথমে পুলিশ আবাসনের মেসে আমার খাবার বন্ধ করে দেওয়া হয়। তাতেও আমার মুখ বন্ধ করতে না পেরে গতকাল বিকেলে বেল্ট ও লাঠি দিয়ে আমাকে মারধর করে খুনের চেষ্টা করা হয়। কোনওরকমে পালিয়ে রাতে হাসপাতালে ভরতি হয়েছি। এখনও কোথাও অভিযোগ জানাতে পারিনি। তবে ভুতনি থানার ওসি  তরুণবাবু তাঁর বিরুদ্ধে ওঠা অভিযোগ পুরোপুরি অস্বীকার করেছেন । তাঁর দাবি  ওই এএসআইয়ের বিরুদ্ধেই নানা রকম দুর্নীতির অভিযোগ রয়েছে । একবার ডাকাতির মামলাতেও ধরা পড়েছিলেন। এএসআই  মহম্মদ নুরুল ইসলাম নিজের বিরুদ্বে অভিযোগ ধামা চাপা দেওয়ার জন্য আমার বিরুদ্বে ষড়যন্ত্র করেছেন। ” তবে কী করে ডাকাতির  মামলায় গ্রেফতার হওয়া একজন, থানায় আধিকারিকের দায়িত্ব সামাল দিচ্ছেন সে প্রশ্নের  জবাব মেলেনি। তবে ওসি’র বিরুদ্ধে থানার এক পুলিশ আধিকারিকের আনা এমন অভিযোগে চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে জেলার পুলিশ মহলে।জেলার পুলিশ সুপার অর্ণব ঘোষ জানান ব্যাপারটা আমি শুনেছি। অভিযোগ প্রমানিত হলে অভিযুক্তের বিরুদ্ধে বিভাগীয় তদন্ত হবে।  

  • মালদায় ভারত-বাংলাদেশ সীমান্তে উদ্ধার ২০৬ টি তাজা বোমা গ্রেপ্তার ৪

    News bazar24 :মালদার কালিয়াচক থানার সাইলাপুর থেকে প্রচুর বোমা উদ্ধার।মঙ্গলবার এখানেই বোমা ফেটে মৃত্যু হয় দুজনের,জখম হয় পাঁচজন।ঘটনাস্থলে আসছে বোম স্কোয়াড টিম।ঘটনাস্থলে কালিয়াচক থানার পুলিশ।গোটা ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে পুলিশ।জানা গিয়েছে,মঙ্গলবার কালিয়াচক থানার সাইলাপুর এলাকা বোমা বিস্ফরনে আহত হয় সাতজন,মৃত্যু হয় দুই জনের।ঘটনার পর ঘটনার তদন্ত শুরু করে পুলিশ।মুলত মরা ভাগীরথির ওপরে ভারত বাংলাদেশ সীমান্তবর্তী মহুদিপুর সীমান্ত এলাকায় লরি পার্কিং নিয়ে দুই দল গোষ্ঠীর মধ্যে বিবাদ শুরু হয়।এর জেরে এলাকা উত্তাল হয়ে ওঠে।এলাকার বেশ কয়েকজন দুস্কৃতিরা মঙ্গলবার ফের অঘটন ঘটনার জন্য বোমা মজুত করছিলো।সেই সময় বোমা ফেটে সাতজন আহত হয়।বাপি ঘোষ ও বিশ্বজিৎ ঘোষের মৃত্যু হয়।এই ঘটনার তদন্ত শুরু করে পুলিশ।তদন্তে নেমে চারজনকে গ্রেফতার করে।এদিন সকালে ওই এলাকায় তল্লাশী চালিয়ে প্রচুর বোমা উদ্ধার করে।ঘটনায় এলাকায় চাঞ্চল্য ছড়িয়ে পরে।ঘটনার খবর দেওয়া হয় বোমস্কোয়াডকে।সেখান থেকে উদ্ধার হয় প্রায় দুশোটি বল ও সকেট বোমা।ইতিমধ্যে বোমা গুলিকে নিস্ক্রিয় করা হয়েছে।প্রচুর বোমা উদ্ধারের ঘটনায় চাঞ্চল্য ছড়িয়ে পরে।তবে কারা কিভাবে এই বোমা নিয়ে এসেছিল তার তদন্ত শুরু করেছে পুলিশ।

  • বন্ধুর জীবন রক্ষা করতে গিয়ে গুরুতর আহত এক কলেজছাত্র, চাচল থানার কাটা মিল এলাকার ঘটনায় তদন্তে পুলিশ।

    জিৎ বর্মন : মদ্যপ লরি চালকের হামলা থেকে বাবার বন্ধুকে বাঁচাতে গিয়ে চাকুর আঘাতে গুরুতর জখম এক কলেজ পড়ুয়া। আহতর চিকিৎসা চলছে মালদা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে। ঘটনাটি ঘটেছে, মঙ্গলবার সন্ধ্যায় মালদা জেলার চাঁচোল থানার কাটা মিল এলাকায়। এক জনের বিরুদ্ধে অভিযোগ দায়ের। পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে, আক্রান্ত কলেজ পড়ুয়ার নাম,বিশাল রাম(২১)। বাড়ি চাঁচোল থানার সাহেবগঞ্জ এলাকায়। অভিযুক্ত লরি চালক নওশাদ আলির বিরুদ্ধে চাঁচোল থানায় অভিযোগ দায়ের। পুলিশ ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে। জানা গিয়েছে, অভিযুক্ত নওশাদ আলী বিশাল রামের বাবার বন্ধু রেজাউল হকের লরি চালাতেন। দুর্ব্যবহারের কারণে নওশাদ আলী কে গাড়ি থেকে নামিয়ে দেন রেজাউল হক। এই নিয়ে গণ্ডগোল বাধে তাদের মধ্যে। মঙ্গলবার সন্ধ্যায় গাড়ি পার্কিংয়ের সময় রেজাউল হককে অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ শুরু করে নওশাদ আলী বলে অভিযোগ। এই ঘটনার প্রতিবাদ করতে গিয়ে পকেট থেকে ধারালো চাকু বের করে বিশাল এর উপরে চড়াও হয় অভিযুক্ত নওশাদ আলী। চাকুর আঘাত লাগে কলেজ পড়ুয়ার বুকে। এরপর অভিযুক্ত ঘটনাস্থল থেকে পালিয়ে যায়। রক্তাক্ত অবস্থায় কলেজ পড়ুয়াকে উদ্ধার করে প্রথমে চাঁচোল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সেখানে তার শারীরিক অবস্থা আশঙ্কাজনক দেখে স্থানান্তর করা হয় মালদা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে। বর্তমানে সেখানে চলছে তার চিকিৎসা। জানা গিয়েছে আক্রান্ত কলেজ পড়ুয়া রায়গঞ্জ কলেজে দ্বিতীয় বর্ষে পড়াশোনা করে। বিশাল রামের বাবা গোপাল রাম এবং রেজাউল হক দুই বন্ধু। তাদের লরির ব্যবসা রয়েছে। তবে কি কারণে হামলার ঘটনা তা তদন্ত শুরু করেছে চাঁচল থানার পুলিশ।

  • নারদ মামলার অগ্রগতি নিয়ে সিবিআই ২০শে জুলাই হাইকোর্টে স্ট্যাটাস রিপোর্ট জমা দিচ্ছে।

    Newsbazar24, ডেস্ক, ১৭ই জুলাইঃ সিবিআই সূত্রের খবর  নারদকাণ্ড নিয়ে ২০ জুলাই হাইকোর্টে স্ট্যাটাস রিপোর্ট জমা দেওয়া হবে।  আরও জানা গেছে যে সেই রিপোর্টেও চার্জশিটের কথা থাকতে পারে । প্রসঙ্গত ২০১৬ সালে ভোটের আগে নারদ সাংবাদিক ম্যাথু স্যামুয়েল যে স্টিং অপারেশনের ভিডিও টি প্রকাশ্যে এনেছিলেন তাতে  বেশ কয়েকজন তৃণমূল নেতানেত্রীকে টাকা নিতে দেখা গিয়েছিল। গতমাসের শেষের দিকে কলকাতায় নারদ মামলায় তদন্তকারী অফিসার ও আধিকারিকদের সঙ্গে বৈঠক করেছিলেন সিবিআই-এর স্পেশাল ডিরেক্টর রাকেশ আস্থানা। ছিলেন তদন্তকারী অফিসার রঞ্জিত সিংও। দ্রুত তদন্ত শেষ করার ব্যাপারে নির্দেশ দিয়েছিলেন রাকেশ আস্থানা। তদন্তের  অগ্রগতি এবং  কোথায় কোথায় বাধা তৈরি হচ্ছে, তাও জানাতে বলেছিলেন।  স্টিং অপারেশনের ভিডিওটি  প্রকাশিত হবার পর থেকে একাধিকবার কলকাতায় সিবিআই ও ইডির ডাকে ম্যাথু হাজিরা দিলেও অভিযুক্তরা রয়েছেন বহাল তবিয়তেই। ম্যাথু স্যামুয়েল জানিয়েছিলেন ২০ বার সিবিআই তাঁকে তলব করেছে এবং পাশাপাশি রাজ্য পুলিশও তাকে কম টানা হেঁচড়া করেনি।  দু-মাসে আগেও রাজ্য পুলিশের ডাকে মুচিপাড়া  থানায় হাজিরা দেওয়ার সময়েও সিবিআই-এর ডাকে তিনি হাজিরা দিয়েছেন। সিবিআই যখন যা প্রমাণ চেয়েছে, তখন তিনি তদন্তকারীদের কাছে তা জমা দিয়েছিলেন বলে জানিয়েছিলেন ম্যাথু। এছাড়াও ফরেনসিক পরীক্ষায় প্রমাণিত হয়েছে যে সত্যি সত্যি টাকা নেওয়া হয়েছে। তা সত্ত্বেও  এই  ধরনের মামলায় চার্জশিট দিতে এত  দেরি কেন হচ্ছে  সে প্রশ্ন তিনি তুলেছেন। সিবিআই-কে এ ব্যাপারে জবাবদিহি করতে হবে তিনি  দাবি করেছিলেন ।  

  • ময়নাগুড়ির একটি পানা পুকুর থেকে উদ্ধার গলায় ফাঁস লাগা সদ্যোজাত শিশুকন্যার দেহ

    news bazar24:  ময়নাগুড়ির একটি পানা পুকুর থেকে উদ্ধার গলায় ফাঁস লাগা সদ্যোজাত শিশুকন্যার দেহ। লোকলজ্জার  ভয়ে ষষ্ঠ কন্যা সন্তানকে খুনের অভিযোগ সদ্যোজাতর মা-বাবার বিরুদ্ধে।বেশি বয়সে সন্তান জন্মেছে তাই সন্তানকে খুন।এই নৃশংসতায় চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে ময়নাগুড়িতে। গ্রেফতার করা হয়েছে অভিযুক্ত মা-বাবাকে।সোমবার সকালে উদ্ধার হয় সদ্যোজাত শিশুকন্যার দেহ।  দেহ উদ্ধারের পর তদন্তে নেমে পুলিস বাচ্চাটির বাবা দীলিপ চক্রবর্তী (৫৭) ও মা সুনীতি চক্রবর্তী( ৪৯)-কে গ্রেফতার করে।দিলীপ চক্রবর্তী নিউ কোচবিহার এলাকার বাসিন্দা। কয়েক বছর ধরে জলপাইগুড়ি ফুলবাড়ি এলাকায় ট্রাকের লেবারের কাজ করত সে। পাশাপাশি পৌরহিত্যও করত সে। এভাবেই খুব কষ্টে ৫ ছেলে মেয়ে নিয়ে কষ্টে সংসার চলত এই দম্পতির।ময়নাগুড়ি থানার আই সি নন্দ কুমার দত্ত জানান,প্রাথমিক জেরায় জানা গেছে দিলীপ চক্রবর্তী নিউ কোচবিহার এলাকার বাসিন্দা।  ৫ ছেলে মেয়ের বেশির ভাগেরই বিয়ে হয়ে গিয়েছে। এরমধ্যে 'বেশি বয়সে' ফের সন্তান সম্ভবা হয় সুনীতি। তাই আত্মীয়ের বাড়িতে এসে ষষ্ঠ সন্তানকে শ্বাসরোধে করে খুন করে পানা পুকুরে ফেলে দেয় চক্রবর্তী দম্পতি।পুলিশ সুপার অমিতাভ মাইতি জানিয়েছেন, ঘটনাটি অত্যন্ত বেদনাদায়ক। 

  •  কালিয়াচকে উদ্ধার লক্ষাধিক টাকার কচ্ছপের হার,পলাতক পাচারকারিরা

    news bazar24: বাংলাদেশে পাচারের আগেই লক্ষাধিক টাকার কচ্ছপের হার উদ্ধার করলো বি,এস,এফ জওয়ান। সোমবার সেইগুলি কালিয়াচক কাস্টমের হাতে তুলে দেওয়া হয়। পাচারকারিরা পলাতক। জানা যায়, প্রতিদিনের মতো সোমবার ভোর রাত্রেও, কালিয়াচক থানার ভারত-বাংলাদেশ সীমান্তে পাহারারত অবস্থায় ছিল শ্নশানি বিওপির ২৪ নম্বর ব্যাটেলিয়ানের জওয়ানরা। ঠিক সেই সময় ভোর রাত্রে বি.এস.এফ জওয়ানদের চোখে ধুলো দিয়ে বাংলাদেশে পাচার করা হচ্ছিল কচ্ছপের হার। কিন্ত বি.এস.এফ জওয়ানদের দেখতে পেয়েই পালিয়ে যায় পাচারকারিরা। পরে তাদের ফেলা যাওয়া একটি প্যাকেট উদ্ধার করা হয়। জানা গেছে, উদ্ধার হওয়া কচ্ছপের হারের পরিমাণ ছিলো প্রায় ৩ কেজি। যার বর্তমান বাজার মূল্য লক্ষাধিক টাকা। সোমবার সকালে কালিয়াচক কাস্টমের হাতে উদ্ধার হওয়া কচ্ছপের হার তুলে দেওয়া হয়।

  •  আবারও মালদায় জালনোট সহ ধৃত কুখ্যাত দুই দূস্কৃতী

    news bazar24: জালনোট সহ কুখ্যাত দুই দূস্কৃতীকে গ্রেফতার করলো মালদার কালিয়াচক থানার পুলিশ। ধৃতদের নামে এলাকায় বোমাবাজি, খুন সহ একাধিক মামলা রয়েছে। সোমবার ধৃতদের সাতদিনের হেফাজত চেয়ে মালদা জেলা আদালতে তোলা হয়।জানা যায়, রবিবার গভীর রাতে কালিয়াচক থানার পুলিশ গোপন সূত্রে খবর পেয়ে কালিয়াচক এক নম্বর বিডিও অফিসের সামনে হানা দেয়। সেখানে হানা দিয়ে পুলিশ একটি মোটর বাইকে দুইজনকে আটক করে। তাদের কাছ থেকে উদ্ধার হয় ৪৮ হাজার টাকার জালনোট। সবগুলো ছিলো ২০০০ টাকার। পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, ধৃতদের নাম জেইম সেখ(২৫) এবং বাবর সেখ(২৭)। বাড়ি কালিয়াচক থানার কাশিম নগর এলাকায়। ধৃত দুইজনেরই নামেই এলাকায় বোমাবাজি, ছিনতাই, খুন সহ একাধিক মামলা রয়েছে। দীর্ঘদিন ধরেই তারা পুলিশের খাতায় পলাতক ছিলো। অবশেষে রবিবার রাতে গোপন সূত্রে খবর পেয়ে তাদের গ্রেফতার করা হয়। ঘটনার তদন্ত শুরু হয়েছে।

  • পর পর দুই কন্যা সন্তান জন্ম দেওয়ার অপরাধে বধূ খুন

    Newsbazar24: ,ডেস্কঃ মালদা, ১৭ জুলাই : পর পর দুই কন্যা সন্তান জন্ম দেওয়ার অপরাধে বধূ খুনের অভিযোগ মালদার হরিশ্চন্দ্রপুরে। অভিযোগ, মৃতার বড় মেয়ের সামনে তার মাকে মেরে ঝুলিয়ে দেওয়া হয়েছে। স্বামী সহ শ্বশুর বাড়ির লোকজন ওই বধূকে শ্বাসরোধ করে মেরে ঝুলিয়ে দিয়েছে বলে অভিযোগ করেছে ঐ মৃত বধূর দাদা ।  ঘটনায় হরিশ্চন্দ্রপুর থানায় অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে। আজ ওই মহিলার মৃতদেহ ময়নাতদন্তের জন্য মালদা মেডিকেলে পাঠায় হরিশ্চন্দ্রপুর থানার পুলিশ। অভিযুক্ত স্বামী-সহ ৩ সদস্যের সন্ধানে খোঁজ চালাচ্ছে পুলিশ। মৃত বধূর নাম তাঞ্জিমা বিবি তার বাবার  বাড়ি হরিশ্চন্দ্রপুর থানার বালুভরট গ্রামে। বছর আটেক  আগে হরিশ্চন্দ্রপুর সালালপুরের নিহারুল হকের সঙ্গে বিয়ে হয়েছিল তাঞ্জিমা বিবির। তাদের দুটি সন্তানের দুটিই কন্যা। বড় মেয়ের নাম বছর ছয়েকের রুকসানা বয়স ৬  এবং ছোট মেয়ের নাম  মুস্কান বয়স ৪। অভিযোগ, প্রথম সন্তান কন্যা হওয়ার পরেই অত্যাচার শুরু। এরপর দ্বিতীয়টিও  যখন কন্যা হয় তারপর থেকে অত্যাচারের মাত্রা বাড়তে থাকে। সেই সময় বিষ খাইয়ে মারা চেষ্টা করা হয়,কিন্তু সময়মত চিকিৎসা হওয়ার জন্য বেঁচে যান তঞ্জিমা। মৃতার  দাদা জানিয়েছেন, রবিবার এক প্রতিবেশীর কাছ থেকে মৃত্যু সংবাদ পেয়ে তিনি বোনের শ্বশুর বাড়িতে যান। শ্বশুরবাড়ির লোকজন তাঁকে দেখেই পালিয়ে যান বলে তিনি জানান। ঘরে ঢোকার পর বোনের ঝুলন্ত দেহ দেখতে পান। বোনের বড় মেয়ে জানায় যে , তার বাবা আর দাদি মিলে তার মা'কে শ্বাসরোধ করে খুন  করেছে। তারপর মায়ের দেহ ঝুলিয়ে দিয়েছে। আর খুনের সময় তার দাদু বাড়ির দরজায় দাঁড়িয়ে পাহারা দিচ্ছিল।      

  • বোম বানাতে গিয়ে বিস্ফোরণে মৃত -২ আহত ৪ জন।

    Newsbazar24,ডেস্কঃ মালদা, ১৭ জুলাই : বোম বানাতে গিয়ে বিস্ফোরণে মৃত্যু হল দু'জনের। আহত  ৪ জন। ঘটনাটি ঘটেছে মঙ্গলবার দুপুরে কালিয়াচক থানার সাইলাপুর এলাকায়।  আহতদের সকলকে মালদা মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।     স্থানীয় সূত্রে জানা যায় , আজ দুপুরে মুহুমুহু  বোমার আওয়াজে কেঁপে ওঠে গোটা এলাকা। তারপর দেখা যায় স্থানীয় একটি আমবাগানের ভিতর দিয়ে আহতদের উদ্বার করে মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালে পাঠানো  হয়।  আহতদের নাম দীপক ঘোষ, প্রসেনজিৎ ঘোষ, চিরঞ্জিৎ ঘোষ, কমল ঘোষ, বিশ্বজিৎ ঘোষ ও বাপি ঘোষ। এর মধ্যে বিশ্বজিৎ ও বাপি ঘোষ মারা যান। বাকিদের মধ্যে দু'জনের আঘাত গুরুতর। নিহত ও  আহতরা সবাই মহদিপুর সংলগ্ন সায়লাপুর গ্রামের বাসিন্দা। স্থানীয় কিছু মানুষের  বক্তব্য, কিছুদিন ধরে মহদিপুরে পার্কিং এরিয়ার দখল নিয়ে দুই গোষ্ঠীর বিবাদ চলছে। সম্ভবত তারই জেরে এই ঘটনা।  যদিও আহতদের আঘাত দেখে পুলিশের প্রাথমিক অনুমান, বোমা বানাতে গিয়েই এই বিস্ফোরণ ঘটেছে। গোটা ঘটনার তদন্ত করছে ইংরেজবাজার থানার পুলিশ।

  • সারদা মামলায় দীর্ঘ বিলম্বের জন্য ক্ষুব্ধ সুপ্রিম কোর্টের ডিভিশান বেঞ্চ মামলাকে হাইকোর্টে সরিয়ে দিল

    Newsbazar, ডেস্ক, ১৬ই জুলাইঃ সারদা মামলায় সিবিআই-এর  তদন্তের অগ্রগতি নিয়ে ক্ষুব্ধ সর্বোচ্চ আদালত মামলাকে হাইকোর্টে নিয়ে যাওয়ার আদেশ দিল  সুপ্রিম কোর্টের প্রশ্ন প্রায় ৪ বৎসর অতিক্রান্ত তবুও কেন তদন্তে এত বিলম্ব। প্রসঙ্গত  ২০১৪ সালে সারদা নিয়ে তদন্তের নির্দেশ দেওয়া হয়েছিল ।এই মামলা নিয়ে  সিবিআই এবং কলকাতা পুলিশের মধ্যে বিরোধ কেন সেই  প্রশ্নও   আদালত তুলেছে । রাজ্যের সিপিএম এবং কংগ্রেসের তরফে বারবার আদালতে অভিযোগ করা হচ্ছে সারদা মামলা নিয়ে। বিষয়টি নিয়ে মমতা-মোদীর সমঝোতারও অভিযোগ করেছে তারা। কেননা এই মামলায় শাসকদলের প্রায় একডজন নেতানেত্রীর নাম এই মামলায় জড়িয়ে গিয়েছে। তবে তদন্তের অগ্রগতি নিয়ে যে সর্বোচ্চ আদালতও সন্তুষ্ট নয়, তা ফের একবার বুঝিয়ে দেওয়া হয়েছে সোমবার। আদালত খোলার পর সোমবার বিচারপতি অরুণ মিশ্র এবং বিচারপতি আব্দুল নাজিরের ডিভিশন বেঞ্চে শুনানি শুরু হয়। সূত্রের খবর অনুযায়ী, সিবিআই-এর তরফে কলকাতা পুলিশের বিরুদ্ধে তদন্তে অসহযোগিতার অভিযোগ আনা হয়। যদিও এই ঘটনায় ক্ষুদ্ধ সর্বোচ্চ আদালত। সিবিআই-এর তরফে তদন্তের জন্য বারবার সময় চাওয়াতেও ক্ষুব্ধ সর্বোচ্চ আদালত। বিগত ২০১৪ সালে সুপ্রিম কোর্টের বিচারপতি টিএস ঠাকুর সারদা মামলায় সিবিআই তদন্তের নির্দেশ দেন। প্রায় চার বছর পেরিয়ে গেলেও তদন্তের কাজ এগোয়নি বলে অভিযোগ করে মামলা করেছিলেন সুব্রত চট্টরাজ।  

  • মেদিনীপুরে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর সভা চলাকালীন মঞ্চের সামিয়ানা ভেঙে আহত ৯০ জন।

    Newsbazar, ডেস্ক, ১৬ই জুলাইঃ মেদিনীপুরে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর সভা চলাকালীন ভেঙে পড়ল মঞ্চের সামিয়ানা। সর্ব শেষ খবরে জানা যায়  এই ঘটনায় জখম হয়েছেন ৯০ জন সমর্থক। তাঁদের তড়িঘড়ি  হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। সভা শেষ করেই প্রধানমন্ত্রী যান আহতদের দেখতে। মেদিনীপুর হাসপাতালে উপস্থিত হয়ে তিনি সমর্থকদের আশ্বস্ত করেন। সোমবার মেদিনীপুর শহরে কলেজ গ্রাউন্ডে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর কৃষক কল্যাণ সমাবেশে  প্রধানমন্ত্রীর বক্তব্য রাখার সময় দুর্ঘটনা ঘটে। রবিবার থেকে প্রবল বৃষ্টি চলছিল মেদিনীপুরে।বৃষ্টির কারণেই এই ঘটনা বলে জানা গিয়েছে।  এমনকী মোদীর বক্তব্য রাখার সময়ও বৃষ্টির বিরাম ছিল না। তখনই ধীরে ধীরে ভেঙে পড়ে সামিয়ানা। আরও বড়সড় বিপর্যয় ঘটতে পারত। অনেকেই চাপা পড়ে গিয়েছিলেন। হুড়োহুড়িতে অনেকেই আহত হয়েছেন। তাঁদের বের করে হাসপাতালে পাঠানো হয়। বিজেপির স্বেচ্ছাসেবকদের অভিযোগ, লোহার বিমের উপরে লাগানো ছিল ত্রিপল ও কাপড়ের সামিয়ানা। মোদীকে দেখার জন্য অনেকে ওই লোহার বিমের উপর ওঠার চেষ্টা করেন। একে বৃষ্টি চলছিল, তারপর মানুষের চাপ ফলে ধীরে ধীরে সামিয়ানা চাপা পড়ে যান সমর্থকরা। প্রধানমন্ত্রী মোদী তা দেখতে পেয়ে মানুষের নজর ঘোরাতে স্লোগান দেন। তার কারণ স্লোগান দিয়ে মানুষের নজর অন্য ঘোরাতে আতঙ্কে হুড়োহুড়ির মধ্যে আরও আহতের সংখ্যা বাড়তে পারত। কিন্তু সেই বিপর্যয় ঘটেনি। এরপর ভাষণ শেষ করে নরেন্দ্র মোদী আহতদের দেখতে যান। মেদিনীপুর হাসপাতালে চিকিৎসকদের নির্দেশ দেন আহতদের চিকিৎসা ও যথাযথ শুশ্রুষার ব্যবস্থা করার। তিনি হাসপাতালে ভর্তি সমর্থকদের সঙ্গেও কথা বলেন। তিনি বলেন, একটা দুর্ঘটনা ঘটেছে। ভয় পেলে হবে না। মনে সাহস রাখতে হবে। সব কিছু ঠিক হয়ে যাবে। চিকিৎসকদের তিনি বলেন, আহতদের যথাসাধ্য চিকিৎসার ব্যবস্থা করতে। আর আহত সমর্থকদের বলেন, ভরসা রাখতে। তিনি পাশে থাকবেন তাঁদের। এদিন আহতদের মাথায় হাত বুলিয়ে তাঁর ভরসার বার্তা যান প্রধানমন্ত্রী।  ঐ সমাবেশে গিয়ে আহত হয়ে শুয়েছিলেন হাসপাতালের বেডে এক তরুণী । হঠাৎ দেখেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী এগিয়ে আসছেন তাঁর দিকে। প্রধানমন্ত্রী জিজ্ঞাসা করেন কেমন আছো, কোথায় লেগেছে? যন্ত্রণা ভুলে তরুণী তখন বলে উঠলেন- একটা অটোগ্রাফ দেবেন প্লিজ! হাসপাতালের বেডে থাকা রোগীর কাতর আবেদন ফেলতে পারেননি প্রধানমন্ত্রী।  প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর বক্তব্য শুনতে গিয়ে প্যান্ডেলের একাংশ ভেঙে চাপা পড়ে গিয়েছিলেন মেদিনীপুরের দুই বোন অনিতা আর নীতা। তাঁদের মা-ও গুরুতর জখম হয়েছিলেন। তারপরই হাসপাতালে ভর্তি। অনিতার পায়ে লেগেছে। নীতা তো জ্ঞানই হারিয়েছিলেন চাপা পড়ে। আর তাঁদের মায়ের কোমরে আর পায়ে ব্যাথা। হাসপাতালে বেডে অসম্ভব যন্ত্রণা নিয়ে যখন শুযেছিলেন, তখনই তাঁকে দেখতে এলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। সেই মুহূর্তে ভুলে গিয়েছিলেন সমস্ত যন্ত্রণা। মোদীকে দেখেই তিনি তাই অটোগ্রাফ চেয়ে বসলেন অনিতা। আসলে ওই তরুণীতে ভাবতেও পারেননি, যাঁকে একবার চোখের দেখা দেখতে আর তাঁর বক্তব্য শুনতে এসেছিলেন, তাঁকে একেবারে কাছ থেকে দেখতে পাবেন। তাই দেরি না করে শখ মিটিয়ে নিলেন প্রবল যন্ত্রণা উপেক্ষা করেও।  

  • মালদায় অভাবের তাড়নায় এক দীনমুজুরের আত্মহত্যা।

    News Bazar24: অভাবের তাড়নায় এক দীনমুজুরের আত্মহত্যা। মালদহ জেলার হবিবপুর থানার অনন্তপুর ঘোষ পাড়ায় আজ সকালে আম বাগান থেকে প্রশান্ত ঘোষের ঝুলন্ত মৃত দেহ দেখতে পায় গ্রামবাসীরা। গ্রামের লোকেদের বক্তব্য বেশ কিছুদিন ধরে কোনো কাজ ছিলনা প্রশান্ত ঘোষের। মাঝের মধ্যে সে ভিরাজ্যে শ্রমিকের কাজে যেত। পাড়া প্রতিবেশী দের কাছ থেকে টাকা জি নিতে নিতে তা প্রায় লক্ষা ধিক টাকা হয়ে যায়। একে কাজ নেই তার ওপর ঋণ। এই চাপ নিতে পারছিলনা । ছয় জনের পরিবারে এক মাত্র উপারজন করত প্রশান্ত। জানালেন প্রশান্তর আত্মীয়রা। আজ সকালে ফাঁস লাগা অবস্থায় মৃত দেহ দেখতে পায় গ্রামের মানুষ। তাকে উদ্ধার করে স্থানীয় গ্রামীণ হাসপাতালে নিয়েগেলে চিকিত্সক তাকে মৃত বলে ঘোষনা করে। ময়নাতদন্তের জন্য মৃত দেহ মালদা মেডিকেল কলেজে নিয়েআসা হয়।

  • ছাত্র ছাত্রীদের নতুন দিশা দেখাচ্ছে উজ্বল কিডস্ ওয়ার্ল্ড স্কুল

    পল মৈত্র,গঙ্গারামপুর,দক্ষিন দিনাজপুরঃ উজ্বল কিডস্ ওয়ার্ল্ড একটি কম্বাইন স্কুল। কম্বাইন কথাটির অর্থ হলো এই স্কুলটি বাংলা মিডিয়াম এবং ইংলিশ্‌ মিডিয়ামের কম্বাইন। এখানে wb বোর্ড এবং cbsc বোর্ড একসাথে অনুসরন করা হয়। এটি একটি নতুন আধুনিক ভাবে ছাত্র ছাত্রীদের প্রতিভা প্রদর্শন ধারনাকৃত স্কুল। যেখানে প্রায় ৭০০ রো বেশি ছাত্র ছাত্রীরা পড়াশোনা করে এই স্কুলে। তাদের সাহিত্য, গান বাজনা, নাচ,আর্ট, আত্মরক্ষার জন্য ক্যারাটে ও বিজ্ঞানমনস্ক দিক দিয়ে নতুন কিছু তৈরী করা হয়। দক্ষিন দিনাজপুর জেলার গঙ্গারামপুর, বুনিয়াদপুর ও হরিরামপুরে স্কুলগুলি রয়েছে। যার মধ্যে প্রধান ও উল্লেখযোগ্য হলো গঙ্গারামপুর বেলবাড়িতে অবস্থিত উজ্বল কিডস্ ওয়ার্ল্ড স্কুলটি। যেখানে প্রত্যেক ছাত্র ছাত্রীরা সহ তাদের অভিভাবরা খুব উপকৃত হচ্ছেন বলে জানা গেছে। স্কুলের নানান বিজ্ঞানমূলক পঠন পাঠনের মাধ্যমে এবং তারা ছোট থেকে বাংলা ও ইংরাজী ভাষায় দক্ষ হয়ে উঠছে। এই স্কুলের মূল উদ্দেশ্য হলো প্রত্যেক ছাত্র ছাত্রীকে ইন্ডিপেনডেন্ট বা স্বাধীন চেতন করে গড়ে তোলা। এখানে ছাত্র ছাত্রীরা চাকরি পাওয়ার উদ্দেশ্যে নয় কিছু শিখে নিজের প্রতিভাকে তুলে ধরার জন্যই এই স্কুলে পড়ছে বলে জানান স্কুলের কর্নধার তথা প্রিন্সিপাল অসীম ঘোষ। তিনি নিজেই একজন গবেষক ও ইন্জিনিয়ার, তিনি স্কুলের ছাত্র ছাত্রীদের টেকনলোজির ক্লাস করান, এর ফলে ছাত্র ছাত্রীরা এয়ার কুলার, এয়ার কন্ডিশান, রেফ্রিজারেটর, ইলেকট্রিক সাইকেল, ইলেকট্রিক কার, ইলেকট্রিক ট্রেন সহ নানান টেকনলোজি তৈরি করতে চোস্ত ও ওয়াকিবহাল হয়ে পড়েছে। বর্তমানে একটি হেলিকপ্টার বাননোর কাজ চলছে যা প্রায় ৪০০ কিমি অবধি যেতে পারবে বলে দাবী করেন প্রিন্সিপাল অসীম ঘোষ। স্কুলটির জন্ম ২০১৭ সালের ৩ জানুয়ারি। স্কুলের কর্নধার অসীম ঘোষের দাদা শহীদ উজ্বল ঘোষের নামে করা হয়েছে যিনি একজন এই দেশের সৈনিক ছিলেন দেশের মানুষদের সুরক্ষা দিতে গিয়ে ১৯৯৯ সালের ১৯ এপ্রীল কারগীল যুদ্ধে শহীদ হয়ে ভারত মায়ের কোলে চিরনীদ্রায় শায়িত হন এই বীর সৈনিক। জানা গেছে খুব অল্প সময়ের মধ্যে স্কুলটি সাফল্য ও জনপ্রীয়তা লাভ করেছে। এবিষয়ে প্রিন্সিপাল অসীম ঘোষ বলেন, আগামী পাঁচ বছরে সারা ভারতবর্ষে ৫০০ টি উজ্বল কিডস্ ওয়ার্ল্ড স্কুল করাবো। বর্তমানে ৩ টি স্কুল রয়েছে। আরো ১০টি স্কুলের কাজ চলছে যা চলতি বছরের নভেম্বরের দিকে চালু হয়ে যাবে। আমাদের স্কুলে শিক্ষক শিক্ষিকা, ছাত্র ছাত্রীরা সকলেই শৃঙ্খলাবদ্ধ ও নিষ্ঠাপরায়ণ। স্কুলে ছাত্র ছাত্রীদের জন্য বোর্ডিং রয়েছে পাশাপাশি হোষ্টেল রয়েছে খেলা ধূলা করার জন্য মাঠ সাতার শেখার জন্য সুইমিং পুল রয়েছে। তিনি আরো জানান, স্কুলের পাশাপাশি তিনি উজ্বল টেক্সটাইল ইন্ডাসট্রি তৈরি করেছেন। আগামী দিনে হাসপাতাল, ইন্জিনিয়ারিং ও মেডিকেল কলেজ করবেন বলে জানিয়েছেন। যা সমগ্র ভারতবর্ষে এক অনন্য নজীর সৃষ্টি করবে। তবে স্কুলটি আমি স্কুল বলবোনা বরং বলবো মুক্ত বিহঙ্গদের স্বাধীনতার জায়গা যা আগামীদিনে এদের প্রতিভাবান্‌ গড়ে তুলবে সমগ্র দেশ জুড়ে আলোকিত ও পরিচিত হবে উজ্বল কিডস্ ওয়ার্ল্ড স্কুল বলে জানান কর্নধার তথা প্রিন্সিপাল অসীম ঘোষ। সর্বশেষে বলাই বাহুল্য এই স্কুলটি ছাত্র ছাত্রীদের নতুন আলোর দিশা দেখাচ্ছে।

  • মালদায় মমতা ব্যানার্জি ফ্যান ক্লাবের উদ্যোগে ফোয়ারা মোড়ে ফাইনাল ম্যাচ

    তমালি সিনহা,newsbazar24: বড়দিনের কার্নিভালের পর আবার সেজে উঠলো শ্যামাপ্রসাদ মোড় বা ফোয়াড়া মোড় । গতকাল সন্ধ্যায় মমতা ব্যানার্জি ফ্যান ক্লাবের উদ্যোগে মাtyলদা শহরের ফোয়ারা মোড়ে বড় পর্দায় বিশ্বকাপ ফুটবলের ফাইনাল ম্যাচ প্রদর্শিত হয়। প্রায় দুই তিনশো মানুষ এই ম্যাচ উপভোগ করেন। এদিন বিকেল থেকেই পোস্ট অফিস সংলগ্ন এলাকা ক্রশিয়া ও ফ্রান্সের জাতীয় পতাকার রং এর বেলুনে সাজিয়ে তোলা হয়। সাউন্ড সিস্টেম এর সাথে বড় পর্দায় খেলার সম্প্রচার হওয়ার শুরু থেকেই লোকেলোকারন্য হয়ে ওঠে পোস্ট মোড় এলাকা।খবর পেয়ে বহু মানুষ ঘরের টিভি বন্ধ করে বড় পর্দার উপভোগ নিতে এখানে ছুটে আসে। এক কথায় গতকাল সন্ধ্যা যে কার্নিভালের কথা আরও একবার মনে করিয়ে দিচ্ছিল তা আর বলার অপেক্ষা রাখে না।

  • রমকেলী গুপ্ত বৃন্দাবনে অনুষ্ঠিত হলো দ্বিতীয় বর্ষ রথ যাত্রা উৎসব

    News bazar24: খুব ধুম ধামের সাথে পালিত হল দ্বিতীয় বর্ষ রামকেলী রথ মেলা। শ্রী শ্রী রূপ সনাতন মন্দির থেকে মদন মোহন জগন্নাথ টি রথ চলা শুরু হয় যা শেষ হয়, মদন মোহন মন্দিরে গিয়ে। এখানেই জগন্নাথ সাত দিন কাটাবেন এবং উল্টো রথে আবার ফিরে যাবেন গুপ্ত বৃন্দাবন রূপ সনাতন মন্দিরে। এদিন এই রথযাত্রা কে ঘিরে বড় মাপের মেলা বসে। প্রচুর মানুষের জমায়েত হয়। লোহা কাঠের তৈরী রথের দড়িতে টান দেয় হাজার হাজার মানুষ। রথের স্টারিংগ ধরেন উজ্বল সাহা। প্রায় ৭০০ মিটার ঘুরে রথের চাকা। রূপ সনাতন মন্দির কমিটির সাধারণ সম্পাদক উজ্জ্বল সাহা জানান, এলাকার মানুষের দীর্ঘ দিনের দাবি ছিলো এই অঞ্চলে রথ চালানোর। তারপরেই গত বছর রথের শুভ সূচনা হয়। আগামীতে এই রথ যাত্রা উৎসব কে ঘিরে ধর্মীয় অনুষ্ঠান করার চিন্তা ভাবনাও করা হচ্ছে।

  • মহিলা চিকিত্সকের মৃত্যুতে নয়া মোড়

    news bazar24: গত মে মাসে চান্দ্রেয়ী দাস চৌধুরী নামে মহিলা চিকিত্সকের মৃত্যুতে দানা বাঁধছে রহস্য। কলকাতা সাদার্ন অ্যাভিনিউতে মহিলা চিকিত্সকের মৃত্যু হয়, ময়না তদন্তের রিপোর্ট এসেছে ২ মাস পর। তাতে দেখা যাচ্ছে শ্বাস রোধ করে মাথায় ভারী কিছু দিয়ে আঘাত করে খুন করা হয়েছে চান্দ্রেয়ীকে। ঘটনায় শনিবার খুনের মামলা রুজু করেছে পুলিস।গত মে মাসে সাদার্ন অ্যাভিনিউর বাড়ি থেকে অচেতন অবস্থায় উদ্ধার করা হয় পেশায় চিকিত্সক ৪৮ বছর বয়সী চান্দ্রেয়ী দাস চৌধুরীকে। তাঁকে এসএসকেএম হাসপাতালে নিয়ে গেলে মৃত বলে দাবি করেন চিকিত্সকরা। প্রাথমিকভাবে একে স্বাভাবিক মৃত্যু বলেই মনে করেছিলেন সবাই।ঘটনার প্রায় ২ মাস পর গত ১০ জুলাই পুলিসের হাতে পৌঁছয় ময়নাতদন্তের রিপোর্ট। তাতে স্পষ্ট করে উল্লেখ করা হয়েছে মৃত্যুর কারণ। পুলিসের তরফে জানানো হয়েছে, ময়নাতদন্তের রিপোর্ট অনুসারে মাথায় ভারী কিছুর আঘাত করে অচেতন করার পর শ্বাসরোধ করে খুন করা হয়েছে চান্দ্রেয়ী দেবীকে। সাদার্ন অ্যাভিনিউর বাড়িতেই থাকতেন চান্দ্রেয়ী দেবী। বাড়িটিতে রয়েছে চারটি দরজা। তার মধ্যে একটি দরজা চান্দ্রেয়ীদেবীর মৃত্যুর কয়েকমাস আগে থেকেই বন্ধ ছিল। চান্দ্রেয়ী দেবীর দেহ উদ্ধারের সময় বাকি তিনটি দরজার একটি খোলা ছিল। এতেই সন্দেহ দানা বেঁধেছে তদন্তকারীদের মনে। পরিচিত কেউ অত্যন্ত সুপরিকল্পিতভাবে খুন করেছে চান্দ্রেয়ী দাস চৌধুরীকে , তদন্তকারীরা মনে করছেন। সেক্ষেত্রে সন্দেহের তালিকায় সবার ওপরে রয়েছে তাঁর ভাইয়ের নাম। পরিবার সূত্রে জানা গিয়েছে, ভাইয়ের সঙ্গে সম্পর্ক মোটেও ভাল ছিল না চান্দ্রেয়ীদেবীর। বাড়ি বিক্রি নিয়ে দু'জনের মধ্যে দীর্ঘদিন ধরে মতানৈক্য় চলছিল।

  • এ টি এম থেকে টাকা নিয়ে বেরোনোর পথে ছিনতাইবাজ দের হাতে আক্রান্ত হলেন দুই ব্যবসায়ী

    News Bazar24:এ টি এম থেকে টাকা নিয়ে বেরোনোর পথে ছিনতাইবাজ দেরর হা আক্রান্ত হলেন দুই ব্যবসায়ী ঘটনাটি ঘটেছে মালদার ইংরেজবাজার থানার যদুপুর কমলাবাড়ি সুস্থানী মোড় এলাকার স্টেটব্যাঙ্কের সামনে। আহত আব্দুল রহিম মালদা মেডিক্যালে চিকিৎসাধীন। ঘটনার তদন্তে নেমেছে ইংরেজবাজার থানার পুলিশ। আব্দুল রহিম ও তার ভাই এদিন যদুপুর এলাকায় এস বি আই ব্যাঙ্কের এটি এম এ টাকা তুলতে যায়। সেখানে দেখতে পাই এটিমের ভেতরে বেশ কয়েকজন বসে রয়েছে। তাদেরকে টাকা তোলার সময় বের হয়ে যেতে বলে। সেই মত তারা বেড়িয়ে যায়। এরপর দশ হাজার টাকা তুলে সাইদুল ইসলাম বেড়িয়ে আসতেই ওই দুস্কৃতিরা তাকে ঘিরে ধরে টাকা ছিনতাইয়ের চেষ্টা করে। ঘটনা দেখতে পেয়ে দাদা আব্দুল ছুটে গিয়ে ভাইকে বাঁচাতে গেলে তাকেও বেধরক মারধর করে পালিয়ে যায়। এলাকাবাসী দুই ভাইকে উদ্ধার করে মালদা মেডিক্যালে নিয়ে আসে। ভাইকে প্রাথমিক চিকিৎসার পর ছেড়ে দেওয়া হলেও দাদা চিকিৎসাধীন। গোটা ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে পুলিশ।

  • তৃতীয় লিঙ্গের মানুষদের নিয়ে অনুষ্ঠিত হ যে গেল গ্ল্যামনেশন সিজন -৩ ফ্যাশন শো।

    শঙ্কর চকরবর্তী,news Bazar24: সমাজের তৃতীয় লিঙ্গের মানুষেরাও যে কিছু করতে পারে। তাদের ভিতরেও যে বিভিন্ন প্রতিভা আছে সেটা প্রমাণ করে দিলেন গ্ল্যামনেশন সিজন -৩ এর কর্নধার রিমেলী সাহা ও সুজয় প্রামাণিক। দিন কয়েক আগে বহরম পুরে র রবীন্দ্র সদনে তৃতীয় লিঙ্গের মানুষদের নিয়ে অনুষ্ঠিত হ যে গেল সিজন -3 ফ্যাশন শো। যা সম্ভব ত রাজ্যে প্রথম। এদিন রবীন্দ্র সদনের রেম্পে প্রলয় দত্ত, মন্টি অধিকারী, দেবাশীষ সাহা, শুভজিৎ ঘোষ,বাবন ইসলাম, বিজয় বিশ্বাস এর পারফরম্যান্স ছিলো চোখে পড়ার মত।গ্ল্যামনেশন সিজন -৩ কর্নধার রিমেলী সাহা জানান, সমাজের চোখে এরা পিছিয়ে পড়া মানুষ থাকলেও,এদের মধ্যেও বিভিন্ন বিষয়ে যথেষ্ট প্রতিভা আছে। আর ফ্যাশন সম্পর্কে এরা নিজের থেকেই যথেষ্ট সচেতন। আর এই প্রতিভাবান দের তুলে ধরায় গ্লাম নেষনের চেষ্টা। যা সারা রাজ্যের প্রতিটা জেলায় জেলায় এই শো হবে।

  • মালদা শহরে জলাতঙ্ক ভ্যাকসিন প্রদান অনুষ্ঠান

    News Bazar24:মালদা শহরে জলাতঙ্ক দূরীকরণ মুলুক চলমান প্রতিষেধক ভ্যাকসিন প্রদান অনুষ্ঠানের আয়োজন করে মালদার এক পশু প্রেমী সংগঠন। এই শিবিরে মালদার শহরের পশুপ্রেমিক মানুষদের অংশগ্রহণ ছিল চোখে পড়ার মত। সংগঠনের পক্ষে সুমন চৌধুরী জানান, আমরা নিস্বার্থ ভাবে রাস্তার সমস্ত অবলা পশুদের জন্য কাজ করি। এই প্রোগ্রামের উদ্দেশ্য,আমাদের কাজ সবার সামনে তুলে ধরে মানুষের মাঝে সচেতনতা বাড়িয়ে তোলা। যেন কোনো পথপশু অত্যাচারিত না হয়। সমাজের অবলাদের পশুদের রক্ষা আমাদের সকলের দায়িত্ব। এদিন এনিমেল কেয়ার ইউনিট নামে এই সংগঠন শহরের প্রায় 200কুকুর কে ভ্যাকসিন প্রদান করে।

  • সারা রাজ্যের সাথে সাথে রথযাত্রায় সামিল মালদা

    news bazar24: সারা রাজ্যের সাথে সাথে মালদা জেলাতেও শনিবার মহাসাড়ম্বরে পালিত হল রথযাত্রা। জগন্নাথদেব তার দাদা বলরাম ত্রবং বোন সুুভদ্রাদেবীকে নিয়ে তিনটি পৃথক রথে ত্রদিন রওনা দিলেন মাসির বাড়ি। আষাঢ় মাস। তারই মাঝে শুক্লা দ্ধিতীয়ায় শনিবার অনুষ্টিত হল রথযাত্রা। দেশের নানা জায়গায় এই অনুষ্টান হলেও পুরীর শ্রী শ্রী জগন্নাথদেবের রথযাত্রা বিশ্ববিখ্যাত। রথযাত্রা উপলক্ষে দেশ,বিদেশ থেকে বহু ভক্তের সমাগম হয় ত্রখানে। ত্রকই সাথে ত্রদিন মালদা জেলার বিভিন্ন জায়গায় মহাসাড়ম্বরে পালিত হল রথযাত্রা। তার মধ্যে উল্লেখ্যযোগ্য, জেলার বূহৎত্তম  ইস্কনের রথযাত্রা। মালদা শহরের নেতাজী মোড় থেকে ইস্কনের এই রথ বের হয় দুপুর তিনটায়। ত্রদিন ফিতে কেটে ইস্কনের এই রথযাত্রার সুুচনা করেন, রাজ্যের প্রাক্তণ মন্ত্রী কৃষ্ণেন্দু নারায়ণ চৌধুরী। পরে তিনি ভক্তদের সাথে সামিল হয়ে নিজেও রথের দৌড়ে হাত লাগান। জগন্নাথদেব তার দাদা বলরাম ত্রবং বোন সুুভদ্রাদেবীকে নিয়ে তিনটি পৃথক রথে ত্রদিন রওনা দেন মাসির বাড়ি। রথের দড়ি টেনে ভক্তরাই পৌঁছে দেন সেখানে। রথের দড়ি টানবার জন্য ভক্তদের ভিড় ছিল চোখে পরার মতো।  পাশাপাশি জগন্নাথের রথযাত্রা উৎসব পালিত হয় ইংরেজবাজারের রামকেলি ধামেও। রামকেলি ধামের রুপ সনাতন মিলন মন্দির এবং বৈষ্ণব শাস্ত্র চর্চা কেন্দ্রের উদ্যোগে এই প্রথম আয়োজন করা হয়েছিল রথযাত্রা উৎসবের। অগণিত ভক্ত সুুসজ্জিত জগন্নাথের দেবীর রথযাত্রা উৎসবে সামিল হয়েছিলেন।

  • টিফিনের সময় সহপাঠীকে ধর্ষণের চেষ্টা,পলাতক অভিযুক্ত ছাত্র

    news bazar24: স্কুলের টিফিনের সময় সহপাঠীকে ধর্ষণের চেষ্টা। অভিযোগের তীর একাদশ শ্রেণির এক ছাত্রের বিরুদ্ধে। ঘটনার পরই মানসিক ভাবে অসুস্থ হয়ে পড়ে ওই ছাত্রী। বর্তমানে সে মানিকচক প্রাথমিক স্বাস্থ্য কেন্দ্রে চিকিৎসাধীন। আজ ওই ছাত্রীর পরিবারের পক্ষ থেকে মানিকচক থানায় অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে। ঘটনার তদন্তে নেমেছে মানিকচক থানার পুলিশ।             ওই ছাত্রীর পরিবারের পক্ষ থেকে জানানো হয় সে মানিকচক নুরপুর হাই স্কুলের নবম শ্রেণীতে পড়ে। বৃহস্পতিবার টিফিনের সময় সে স্কুলে ছাদে টিফিন খাচ্ছিল। সেই সময় ওই স্কুলেরই একাদশ শ্রেণীর ছাত্র মহন্মদ শামীম তাকে ধর্ষণের চেষ্টা করে। সেই ছাত্রী কোনরকমে সেখান থেকে পালিয়ে নিচে নামার সময় পড়ে গিয়ে অসুস্থ হয়ে যায়। বাড়িতে ফিরে এসে কাউকে প্রথমে ঘটনাটি বলেনি। ধীরে ধীরে তার শরীর অবস্থা আরো খারাপ হতে থাকে। এই অবস্থায় ওই ছাত্রীর পরিবার তাকে স্থানীয় স্বাস্থ্য কেন্দ্রে ভর্তি করে। রাত্রিবেলা সে সমস্ত ঘটনা বাড়ির লোকেদের জানায়। এরপরই শনিবার ওই ছাত্রীর পরিবারের পক্ষ থেকে মানিকচক থানায় অভিযোগ দায়ের করা হয়। এই ঘটনায় স্কুল কর্তৃপক্ষ ও জেলা পুলিশের কোনো প্রতিক্রিয়া পাওয়া যায়নি। অভিযুক্ত ছাত্র গা-ঢাকা দিয়েছে তার খোঁজে তল্লাশী চালাচ্ছে মানিকচক থানার পুলিশ।