রাজ�য


  • খড়গপুর আইআইটির কাছে দুষ্কৃতীদের গুলিতে এক যুবকের মৃত্যু

    newsbazar24: খড়গপুর আইআইটির কাছে দুষ্কৃতীদের গুলিতে এক যুবকের মৃত্য, মঙ্গলবার দুপুরে খড়গপুর আইআইটির কাছে ‌গুলিবিদ্ধ হয়ে মৃত্যু হয়েছে এক যুবকের। পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে, ‌মৃতের নাম সুদীপ্ত কর। বছর কুড়ির সুদীপ্তর বাড়ি পশ্চিম মেদিনীপুরের ‌দাঁতন থানার সাবরায়। কে , কেন‌ তাঁকে ‌গুলি‌ করল‌ তার তদন্ত করে দেখা হচ্ছে বলে জানিয়েছেন খড়গপুরের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার ওয়াই ‌রঘুবংশী। জানা গিয়েছে, এদিন দুপুরে স্কুটি চালিয়ে আই‌আইটির কাছে প্রেম বাজার এলাকা‌ অতিক্রম করার ‌সময়‌ তাকে লক্ষ্য করে গুলি চালিয়ে পালিয়ে যায় ‌দুষ্কৃতীরা। সুদীপ্তকে‌ খড়গপুর হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হলে ‌তাকে মৃত ঘোষণা করা হয়। এই হামলা ও মৃত্যুর সঙ্গে রাজনীতির ‌কোন‌ও যোগ রয়েছে কিনা বা অন্য কোনও কারণে তাঁর ওপর গুলি চালানো হয়েছে কিনা , তা খতিয়ে দেখছে পুলিশ।এই ঘটনায় এখনো পর্যন্ত কাউকে গ্রেফতার করা হয়নি। 

  • রাজ্যের একাংশে সেনাবাহিনী নিয়োগের দাবী নিয়ে রাজ্যপালের সাথে সাক্ষাৎ বিজেপি প্রতিনিধি দলের

    Newsbazar ডেস্ক , ২১ মেঃ মঙ্গলবার রাজ্যপাল কেএন ত্রিপাঠীর সঙ্গে দেখা করে রাজ্যের লোকসভা নির্বাচনের পর হিংসা নিয়ে অভিযোগ দায়ের করল বিজেপির একটি প্রতিনিধি দল। পাশাপাশি তাঁরা  ভাটপাড়ার পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে ভাটপাড়ায় সেনা নিয়োগের দাবিও তুলল। রাজ্য বিজেপি সভাপতি দিলীপ ঘোষের নেতৃত্বে ওই দলটি রাজভবনে এসে দেখা করে রাজ্যপাল কেশরীনাথ ত্রিপাঠীর সঙ্গে। প্রতিনিধি দলের পক্ষ থেকে ভোট পর্ব মিটতেই রাজ্য জুড়ে যে হিংসা শুরু হয়েছে সে ব্যাপারে অবিলম্বে পদক্ষেপ করতে বলা হয়, রাজ্যপালকে।  দিলীপ ঘোষ বলেন, ‘‘যেভাবে তৃণমূ‌ল তাদের গুন্ডাদের দিয়ে  বাংলায় নৈরাজ্য তৈরি করতে চায়। এভাবে চললে কেন্দ্র দ্রুত পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করতে হস্তক্ষেপ করবে। প্রয়োজন পড়লে ভাটপাড়ার পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করতে সেনা  ডাকা হোক। পুলিশ তৃণমূ‌লের ক্যাডারের মতো আচরণ করছে।''  রাজভবন থেকে বেরিয়ে তিনি বলেন,  রাজ্যপাল ধৈর্য সহকারে পুরো বিষয়টি শুনেছেন ও কথা দিয়েছেন তিনি বিষয়টি দেখবেন।   কেবল ভাটপাড়াই নয়, তৃণমূ‌ল উত্তরবঙ্গেরও কিছু অংশে হিংসা ছড়িয়েছে আমাদের বিরুদ্ধে।  ব্যারাকপুর লোকসভা কেন্দ্র থেকে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন বিজেপি নেতা অর্জুন সিংহ। তিনিও পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে আর্মি নিয়োগ করার দাবি তুলেছেন। তৃণমূ‌লের  উত্তর ২৪ পরগনার জেলা সভাপতি এবং মন্ত্রী জ্যোতিপ্রিয় মল্লিক অবশ্য ওই অভিযোগকে  উড়িয়ে হিংসা ছড়ানো ও তৃণমূল‌ কর্মীদের মারধরের অভিযোগ তুলেছেন গেরুয়া দলের বিরুদ্ধেই।  পুলিশ সূত্রে জানা যায় , উত্তর ২৪ পরগনার ভাটপাড়ায় উপ নির্বাচনকে ঘিরে তৈরি অশান্তির পরিবেশ তৈরি হওয়ার পরে নির্বাচন কমিশনের তরফ থেকে সোমবার সেখানে নিষেধাজ্ঞামূলক নির্দেশ জারি করা হয়।  মঙ্গলবারও ভাটপাড়ায় তৃণমূ‌ল ও বিজেপির মধ্যে সংঘর্ষ বজায় ছিল। নিষেধাজ্ঞাকে অমান্য করে এদিনও সেখানে অশান্তি হয়।  এক অজ্ঞাতপরিচয় ব্যক্তি একটি বোমা ছুড়ে মারেন কাঁকিনাড়া স্টেশনের গায়ে। যদিও কেউ জখম হননি বলে জানিয়েছেন এক পুলিশ আধিকারিক।  জানা যায়, প্রাক্তন তৃণমূল বিধায়ক অর্জুন সিংহ, যাঁর ভাটপাড়ায় একাধিপত্য রয়েছে তিনি বর্তমানে বিজেপিতে যোগদান করেছেন। তারই ফলস্বরূপ রবিবার উপ নির্বাচন শেষ হওয়ার আগেই ভাটপাড়া কার্যত রণক্ষেত্রের চেহারা নেয়। কাঁকিনাড়ায় সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়েন বিজেপি ও তৃণমূ‌ল কর্মীরা।  কাঁকিনাড়ায় শাসক দল তৃণমূ‌লের অফিসেও বোমা নিক্ষেপের কথাও জানা গিয়েছে। এর ফলে সেখানে আগুনও লেগে যায়। পরে কেন্দ্রীয় বাহিনী লাঠিচার্জ করে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। পুলিশ সূত্রে জানা যাচ্ছে, ওই হিংসাত্মক ঘটনায় ১৪ জন আহত হয়েছেন, বহু দোকান ও বাড়ি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে ও তৃণমূলের ভাটপাড়া উপ নির্বাচনের প্রার্থী মদন মিত্রের গাড়িও ভাঙচুর করা হয়েছে।  

  • অশান্তির জেরে ধারালো অস্ত্র দিয়ে স্বামীকে কুপিয়ে খুন করল স্ত্রী

    newsbazar24: অশান্তির জেরে স্বামীকে কুপিয়ে খুন করল স্ত্রী, একেরপর এক পরকীয়ায় মজে স্ত্রী, সেই নিয়ে নিত্য নিয়ে অশান্তি হত বাড়িতে। শেষে অশান্তির জেরে রেগে গিয়ে স্বামীকে কুপিয়ে খুন করল স্ত্রীর। অমৃতখন্ড গ্রাম পঞ্চায়েতের চৌরাপাড়া এলাকার ঘটনা। বছর ৪৫-এর  মৃত দশরথ মার্ডি পেশায় কৃষক। স্থানীয় সূত্রে খবর, বছর কুড়ি আগে দশরথ মার্ডি চৌরাপাড়া এলাকার মানসী টুডুর বিয়ে হয়। শুরু থেকেই মানসীর বাড়িতেই ঘর জামাই থাকতেন দশরথ। জানা গিয়েছে, মনানসীর একাধিক বিবাহবহির্ভূত সম্পর্কের কারণে প্রায়ই পারিবারিক অশান্তি চলত তাঁদের। সোমবার অশান্তি চরমে পৌঁছলে কুড়ুল ও ধারালো অস্ত্র দিয়ে দশরথ মার্ডির মাথায় একেক পর এক আঘাত করতে থাকে তার স্ত্রী। আর্তনাদ শুনে ঘটনাস্থলে ছুটে আসে প্রতিবেশীরা। গুরুতর জখম অবস্থায় বালুরঘাট হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয় দশরথকে। সেখানেই তাকে মৃত বলে ঘোষণা করেন চিকিৎসকরা। মৃতদেহটি ময়না তদন্তের জন্য পাঠিয়েছে পুলিস। পাশাপাশি ঘটনাটি খতিয়ে দেখছে পুলিস।  মানসীকে আটক করে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে। 

  • মাধ্যমিক পরীক্ষায় রাজ্যের যুগ্মভাবে দশম স্থানে সায়নিকা ! কে এই ছাত্রী ?

    সুমিত ঘোষ: ২১ মে।  মালদা বার্লো গার্লস হাই স্কুলের সায়নিকা দাস এবারের মাধ্যমিক পরীক্ষায় রাজ্যের যুগ্মভাবে দশম স্থান দখল করেছে। মালদা জেলায় মাধ্যমিকে  তার স্থান প্রথম।  মধ্যবিত্ত ঘরের মেয়ে সায়নিকার এই ফলাফলে খুশি পরিবার থেকে পাড়া-প্রতিবেশীরা।  তার ভালো ফলে স্বাভাবিকভাবে খুশি ওই স্কুল কর্তৃপক্ষ। এবারে মাধ্যমিকে তার প্রাপ্ত নম্বর ৬৮১। তার বিভিন্ন বিষয়ের প্রাপ্ত নম্বর যথা - বাংলায় ৯০, ইংরেজিতে ৯০, অংকে ৯০, ভৌত বিজ্ঞানে ৯০, জীবন বিজ্ঞানে ৯০, ইতিহাসে ৯০ এবং ভূগোলে ৯০। মালদা শহরের গৌড়রোড তালতলা এলাকার বাসিন্দা অভিসিত দাসের একমাত্র মেয়ে সায়নিকার মাধ্যমিকে যুগ্মভাবে রাজ্যে দশম স্থান দখলের খবর জানাজানি হতেই পাড়া-প্রতিবেশীদের ভিড় তাদের বাড়িতে উপচে পরে। শুরু হয়ে যায় মিষ্টিমুখ করার পালা। কৃতি ওই ছাত্রীর বাবা অভিসিত দাস পেশায় পুলিশ কর্মী। মা সোনালী দাস পেশায় স্কুল শিক্ষিকা। মধ্যবিত্ত ঘরের মেয়ের এমন সাফল্যে আনন্দ ধরে রাখতে পারেননি বাবা ও মা । রীতিমতো মেয়ের এই সাফল্যে তাদের চোখ থেকে আনন্দের অশ্রুধারা বইতে দেখা গিয়েছে।  বার্লো গার্লস হাইস্কুল কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে,  গতবারের মতোন এবছর তাদের স্কুলের ফলাফল ভালো হয়েছে। এদিকে কৃতি ওই ছাত্রী সায়নিকা দাস বলেন,  মাধ্যমিক পরীক্ষার প্রস্তুতির আগে আমার পড়ার নির্দিষ্ট কোন সময়সীমা ছিল না । যখন যেভাবে পেরেছি পড়েছি।  স্কুলের শিক্ষিকা থেকে গৃহশিক্ষকদের সহযোগিতা খুব ভালোভাবে পেয়েছি । বাবা -  মা সব সময় আমাকে শিক্ষা ক্ষেত্রে গাইড করতেন।  তবে আমি ভাবতে পারি নি এতটা ভালো ফল করতে পারব । ভবিষ্যতে জয়েন্ট এন্ট্রান্সের মাধ্যমে ডাক্তারি পড়ার ইচ্ছে রয়েছে সায়নিকার। 

  • ভাট পাড়ায় নৈহাটি লোকাল লক্ষ্য করে বোমাবাজি , আহত অনেক, পুলিশ এখন জগন্নাথ

    News Bazar24: মঙ্গলবার সকালেও কাঁকিনাড়া স্টেশনে রেল অবরোধ করে চলে বিক্ষোভ। দুষ্কৃতীরা আটকে থানা নৈহাটি লোকাল লক্ষ্য করে বোমাবাজি, ইট ছোড়ে বলে অভিযোগ। আতঙ্কিত হয়ে পড়েন যাত্রীরা। কোনওরকমে ট্রেন থেকে নেমে তাঁরা পিছনের রাস্তা দিয়ে পালিয়ে যান। প্ল্যাটফর্মে আতঙ্কিত যাত্রীদের মধ্যে হুড়োহুড়ি পড়ে যায়। যদিও ট্রেন লক্ষ্য করে বোমাবাজির কথা অস্বীকার করেছে রেল। ঘটনার সময়ে এলাকায় র্যাফ বা আধাসেনার দেখা নেই বলে ক্ষোভ বাসিন্দদের। এমনকি রেলপুলিসও কোনও পদক্ষেপ করেনি এখনও। শিয়ালদা থেকে পাঠানো হচ্ছে RAF। ঘটনায় ইতিমধ্যেই সিইও-র কাছে রিপোর্ট তলব করেছে নির্বাচন কমিশন। রিপোর্ট চেয়ে পাঠিয়েছেন বিবেক দুবে। ভাটপাড়ায় রাজ্যপালের পরিদর্শনের আবেদন জানালেন অর্জুন সিং। দাবি উঠেছে কেন্দ্রীয় বাহিনী মোতায়েনেরও। বিভিন্ন স্টেশনে আটকে রয়েছে লোকাল ও দূরপাল্লার ট্রেন। এদিন মূলত ২৯ নম্বর রেলগেট থেকে বোমাবাজি হয় বলে অভিযোগ। ঘটনায় এখনও পর্যন্ত ১৫ জন আহত হয়েছেন। ভাটপাড়ার উপনির্বাচন ঘিরে রবিবার থেকে অশান্ত হয়ে ওঠে ভাটপাড়া, কাঁকিনাড়া। রাতভোর চলে বোমাবাজি। তৃণমূল-বিজেপি সংঘর্ষে উত্তপ্ত হয়ে ওঠে এলাকা। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে পুলিসবাহিনী, RAF মোতায়েন করা হয়। সোমবার জারি করা হয় ১৪৪ জারি। পরিস্থিতি আরও উত্তপ্ত হয়ে উঠছে।

  • পাথর রপ্তানিতে টোকেন নিয়ে আর্থিক কেলেঙ্কারিতে অভিযুক্ত চেম্বারের সম্পাদক জয়ন্ত কুন্ডু সহ ৪ কর্মকর্তা

    newsbazar24: মালদা,২০মেঃ ভারত বাংলাদেশ সীমান্তে টোকেন পদ্ধতির মাধ্যমে পাথর রপ্তানি নিয়ে বড়সড় আর্থিক কেলেঙ্কারি প্রকাশ্যে এলো। আর্থিক কেলেঙ্কারির অভিযোগ উঠল  মালদা মার্চেন্ট চেম্বার অব কমার্সের সম্পাদক সহ ৪ কর্মকর্তার বিরুদ্ধে। আর এই অভিযোগ ঘিরে তোলপাড় ব্যবসায়ী মহল। ১৩লক্ষ ৪৪ হাজার টাকা আত্মসাৎ করেছেন মালদা বণিকসভার ৪ শীর্ষ নেতা বলে অভিযোগ উঠছে। সপ্তাহখানেক ধরেই সোশ্যাল মিডিয়ায়  ভাইরাল হয়ে রয়েছে এই খবর। বণিক সভার সম্পাদক জয়ন্ত কুন্ডুর নামে খোলা চিঠি প্রকাশ করা হয়েছে। সেখানে বলা হয়েছে, জয়ন্ত কুন্ডু, তার অনুগামী ,সভাপতি দেবব্রত বসু ,সহ-সভাপতি কমলেশ বিহানি ও যুগ্ন সম্পাদক উত্তম বসাক কে নিয়ে বণিকসভার নামে পাথর রপ্তানির টোকেন বিক্রি করেছে সাত মাস ধরে। যার বাজার মূল্য প্রায় ১৩ লক্ষ ৪৪ হাজার টাকা। এই টাকা মার্চেন্ট ফান্ডে জমা না করে তারা সকলে মিলে আত্মসাৎ করেছেন বলে অভিযোগ। অবিলম্বে এই অর্থ চেম্বারের ফান্ডে জমা না দিলে যথাযথ ব্যবস্থার হুমকিও দিয়েছেন সাধারণ ব্যবসায়ীরা। এই খোলা চিঠি এখন ফেসবুক আর হোয়াটসঅ্যাপে মোবাইলে মোবাইলে ছড়িয়ে পড়েছে সর্বত্র।  সোশ্যাল মিডিয়ায় জয়ন্ত কুন্ডু উদ্দেশ্যে খোলা চিঠিতে বলা হয়েছে, মালদামার্চেন্ট চেম্বার অফ কমার্স এর নামে জয়ন্ত কুন্ডু সপ্তাহে বি গ্রুপে ৬ করে পাথর রপ্তানি টোকেন পেত। যা বাজারে তারা ন্যূনতম ৮ হাজার টাকা করে বিক্রি করেছে। মাসে ১ লক্ষ ৯২ হাজার টাকা করে সাত মাসের ১৩ লক্ষ ৪৪ হাজার টাকা আয় করেছে। এই টাকা চেম্বারে ফান্ডে জমা করা হয়নি।তাহলে সমস্ত টাকায় ৪ জন মিলে আত্মসাৎ করেছেন বলে অভিযোগ তোলা হয়েছে। এই খবর ভাইরাল হতেই ব্যবসায়ীদের ক্ষোভ আছরে পড়তে শুরু করেছে চেম্বারে ৪ শীর্ষ নেতার বিরুদ্ধে। নেতাজি কমার্শিয়াল মার্কেটের সম্পাদক রতন সাহা জানান, চেম্বার সম্পাদকের কোন কাজ করার ক্ষমতা নেই। তিনি শুধুই ভাষণ দিতে পারেন। এই ধরনের দুর্নীতি ইতিপূর্বে চেম্বার অফ কমার্সে হয়নি। টোকেন বিক্রি টাকা অবশ্যই চেম্বারে ফান্ডে জমা করতে হবে। মালদা হোটেল ওনার্স এসোসিয়েশনের সম্পাদক কৃষ্ণেন্দু চৌধুরী বলেন,১৯৫৫ সাল থেকে চেম্বার অফ কমার্স চলছে। এইরকম দুর্নীতি এর আগে কখনো হয়নি বা এরকম অভিযোগ কখনও উঠে আসেনি। আমরা সবাই মিলে যাকে আমাদের প্রতিনিধি তৈরি করেছি, সেই যদি দুর্নীতির সাথে যুক্ত হয় তাহলে আমাদের মাথা নিচু হয়ে যাবে। আমি এই ঘটনার তদন্তের দাবি তুলছি এবং দোষীদের শাস্তির দাবিও জানাচ্ছি। মালদা মার্চেন্ট চেম্বার অফ কমার্সের সম্পাদক জয়ন্ত কুন্ডু কে এই প্রসঙ্গে প্রশ্ন করা হলে তিনি প্রথমে হকচকিয়ে যান। পরে তিনি বলেন আজকেই অভিযোগপত্রটি পেয়েছি। সেখানে কিছু অভিযোগ তোলা হয়েছে। যে টোকেন পদ্ধতির কথা বলা হয়েছে, এই টোকেন পদ্ধতি পূর্বতম আইসি বদলি হয়ে যাওয়ার পর বন্ধ হয়ে যায়।টোকেন বন্ধ হয়ে যাওয়ার পর আজ পর্যন্ত আর কোন পাথর রপ্তানিকারককে টাকা দিয়ে মাল এক্সপোর্ট করতে হচ্ছে না। যদি ব্যবসায়ী সংগঠনের কোনো প্রতিনিধি বা কোন নেতৃস্থানীয় দুর্নীতি করে থাকে তাহলে মালদা মার্চেন্ট চেম্বার অফ কমার্স তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিবে। তবে চেম্বার সম্পাদক যাই বলুন না কেন তার বক্তব্যে আরো একাধিক প্রশ্নের জন্ম দিয়েছে। কারণ তিনি একধারে স্বীকার করে নিয়েছেন যে পূর্বতন আইসির আমলে টোকেন কেনাবেচা হত। এবং সেই টোকেন কেনাবেচায় মার্চেন্টের ভাগ ছিল কি ছিল না তা নিয়ে পরিষ্কার কোন বক্তব্য নেই তার। টোকেন দুর্নীতি হয়ে থাকলে তিনি কেন বিরোধিতা করেননি। এমনই একাধিক প্রশ্ন ঘুরপাক খাচ্ছে সাধারণ ব্যবসায়ীদের মধ্যে।

  • সপ্তম দফার ভোট মিটে গেলেও, মিটছে না রাজনৈতিক হিংসার ঘটনা

    newsbazar24: সপ্তম দফার ভোট মিটে গেলেও, মিটছে না রাজনৈতিক হিংসার ঘটনা ,সোমবার সকালে উত্তর ২৪ পরগনার ভাটপাড়ায় নতুন করে উত্তেজনা ছড়িয়েছে। বোমাবাজিরও অভিযোগ উঠেছে। রবিবার রাত থেকে দফায় দফায় বিজেপি-তৃণমূলের কর্মীরা সংঘর্ষে রক্তাক্ত হয়েছেন দমদম, কলকাতা, হাবড়া, মথুরাপুর, জয়নগরেও। ভাটপাড়ায় হিংসার ঘটনায় প্রতিবাদে এ দিন কাঁকিনাড়া স্টেশনের কাছে প্রায় দু’ঘণ্টা রেল অবরোধের জেরে নাকাল হন নিত্যযাত্রীরা।বাংলায় হিংসার ঘটনা নিয়ে সরব হয়েছেন বিজেপির কেন্দ্রীয় নেতারা। পীযূস গোয়েল ইতিমধ্যেই নির্বাচন কমিশনের দ্বারস্থ হয়ে হিংসার বিষয়ে অভিযোগ জানিয়েছেন। পরে তিনি সাংবাদিকদের বলেন, ‘‘ভোট পরবর্তী হিংসায় রক্তাক্ত হচ্ছে বাংলা। হিংসার ঘটনা বাড়ছে। পশ্চিমবঙ্গে ইভিএমের স্ট্রং রুম নিরাপত্তা আরও জোরদার করতে অনুরোধ করেছি। নির্বাচন কমিশনের আদর্শ আচরণবিধি যতদিন থাকছে কেন্দ্রীয় বাহিনীর নজরদারিও যেন থাকে।’’রবিবার ভোটের দিন উত্তর ২৪ পরগনার মছলন্দপুর ২ পঞ্চায়েতের সালকিয়া বুথে যাওয়ার সময় তৃণমূল সমর্থক দুই মহিলার উদ্দেশে কটূক্তি করার অভিযোগ ওঠে বিজেপির বিরুদ্ধে। এই ঘটনার প্রতিবাদ করায় তৃণমূলের সঙ্গে বচসা শুরু হয় বিজেপি কর্মীদের। ঘটনার সূত্রপাত সেখান থেকেই। সেই ঘটনার রেশ ছিল সোমবারও। এ দিন সালকিয়ায় তৃণমূলের স্থানীয় নেতা রঞ্জিত পাল বৈঠক ডেকেছিলেন। সেখানে হাজির হন তৃণমূল সমর্থকেরা। ওই বৈঠক থেকে ফেরার পথে বিজেপি নেতা দিলীপ বালার নেতৃত্বে তৃণমূল কর্মীদের উপর হমলা চালানো হয় বলে অভিযোগ। ভাঙচুর করা হয় বেশ কয়েকটি বাইক। খবর পেয়ে হাবড়া ১ পঞ্চায়েত সমিতির সভাপতি অজিত সাহা ঘটনাস্থলের দিকে রওনা হন। ফুলতলা মোড়ে তাঁর গাড়ি আটকে তাণ্ডব চালায় বিজেপি সমর্থকেরা। গাড়ি ভাঙচুর করে হেনস্থা করা হয় সভাপতিকে। এই ঘটনায় এলাকায় উত্তেজনা রয়েছে।রবিবার রাতে দমদমে এক বিজেপি কর্মীর বৃদ্ধ বাবাকে মারধরের অভিযোগ উঠেছে তৃণমূলের বিরুদ্ধে। ভোট মিটতেই, তৃণমূল সমর্থকেরা চড়াও হন ওই কর্মীর বাড়িতে। এই ঘটনাকে কেন্দ্র করে দক্ষিণ দমদম পুরসভার ৬ নম্বর ওয়ার্ডের পালপাড়ায় উত্তেজনা ছড়ায়। স্থানীয় সূত্রে খবর, এলাকায় বিজেপি কর্মী হিসেবে পরিচিত বাপ্পা দাস। অভিযোগ, ভোট মিটটেই রাতে তাঁদের বাপ্পার বাড়িতে চড়াও হন কয়েক জন যুবক। বাপ্পাকে না পেয়ে তাঁর বাবা বিমল দাসকে বেধড়ক মারধর করা হয়। আর জি কর হাসপাতালে ভর্তি করা হয় বিমলবাবুকে।মানিকতলা থানা এলাকার বেঙ্গল কেমিক্যাল এলাকায় একটি ক্লাবে ভাঙচুরের ঘটনা ঘটেছে। অভিযোগ, রবিবার ভোটারদের আটকায় তৃণমূলের একটি গোষ্ঠী। অন্য গোষ্ঠী তাঁদের বুথে নিয়ে গিয়েছিল। এই ঘটনার জেরে এ দিন দু’পক্ষের মধ্যে বচসা বাধে। স্থানীয় একটি ক্লাব ভাঙচুর করেন তৃণমূল কর্মীরা। এই ঘটনায় মন্ত্রী সাধন পাণ্ডের হুঁশিয়ারি, ‘‘কড়া হাতে পরিস্থিতি মোকাবিলা করা হচ্ছে। আইন অনুযায়ী পুলিশ পদক্ষেপ করবে।’’রাজ্যের মুখ্য নির্বাচনী আধিকারিকের দফতরে হিংসার ঘটনায় বিজেপিকে দুষে চিঠি দেন ভাটপাড়া উপনির্বাচনের প্রার্থী মদন মিত্র। নির্বাচনের দিন গোলমালের ঘটনায় তাঁর অভিযোগের আঙুল বিজেপির দিকে।মথুরাপুর বিধানসভা এলাকায় দুই বিজেপি কর্মীর বাড়িতে হামলা চালানোর অভিযোগ উঠেছে তৃণমূলের বিরুদ্ধে। আক্রান্ত হয়েছেন চন্দন মণ্ডল, নান্টু বেরা। জয়নগরের গোসাবাতে আক্রান্ত হয়েছেন তিন বিজেপি কর্মী। এ ছাড়া বারুইপুর-সহ বেশ কিছু এলাকায় অশান্তি তৈরি হয়। দুই দলের বচসা গড়ায় হাতাহাতিতে, চলে মারধরও।রবিবার উপ নির্বাচনে রাজনৈতিক হিংসায় রক্তাক্ত হয়েছে ভাটপাড়া। তার রেশ এখনও রয়েছে এলাকায়। এ দিন সকালে রেল অবরোধের পর আর্য সমাজ রোডে দুষ্কৃতীরা বোমাবাজি করেছে বলে স্থানীয়দের অভিযোগ। এই ঘটনায় আতঙ্কিত স্থানীয় বাসিন্দারা।শুরুটা হয়েছিল কাঁকিনাড়া স্টেশনে রেল অবরোধ দিয়ে। সোমবার সকালেই অফিস টাইমে ভুগতে হয় শিয়ালদহ-কৃষ্ণনগর মেন লাইনের যাত্রীদের। অবরোধে বিক্ষোভকারীদের সঙ্গে ছিলেন বিজেপি কর্মীরাও। অবিলম্বে হামলাকারীদের গ্রেফতার করতে হবে বলে দাবি জানিয়েছেন বিজেপি সমর্থকেরা। জগদ্দলেও চলে বিক্ষোভ।

  • ব্রাউন সুগার চায় ? চলে আসুন কলিয়াচকে, ঘাঁটি থেকে উদ্ধার প্রচুর ব্রাউন সুগার

    সুমিত ঘোষ : কলিয়াচক এর ক্রাইম নিয়ে গোটা দেশ চিন্তিত।এরই মধ্যে প্রায় পাঁচ লক্ষ টাকার ব্রাউন সুগার সহ দুই পাচারকারীকে গ্রেফতার করল কালিয়াচক থানা পুলিশ। রবিবার গভীর রাতে কালিয়াচক থানার দারিয়াপুর বাইশা হাই মাদ্রাসা সংলগ্ন ৩৪ নম্বর জাতীয় সড়কের উপর থেকে ধৃতদের গ্রেফতার করা হয়। উদ্ধার হয়েছে দুই প্যাকেট ব্রাউন সুগার। সোমবার ধৃত দুই জনকে মালদা জেলা আদালতে পেশ করে কালিয়চক থানার পুলিশ। গোপন সুত্রে খবর পেয়ে রবিবার গভীর রাতে কালিয়াচক থানার পুলিশ হানা দেয় দারিয়াপুর বাইশা হাই মাদ্রাসা সংলগ্ন ৩৪ নম্বর জাতীয় সড়কের উপর। সন্দেহ জনক ভাবে দুই যুবককে ঘোরাঘুরি করতে দেখে আটক করে পুলিশ। তল্লাশি চালিয়ে ধৃতদুই জনের কাছ থেকে উদ্ধার হয় দুই প্যাকেট ব্রাউন সুগার। দুই জনকে গ্রেফতার করে পুলিশ। পুলিশ সুত্রে জানা গিয়েছে ধৃতরা হল কাবতুল্লা শেখ ওরফে কাবা(২২) ও মতিবুল শেখ ওরফে বাবিয়া(৪১)। দুই জনের বাড়ি কালিয়াচক থানার জালুয়াবাথাল পঞ্চায়েতের শ্রীরামপুর এলাকায়। ধৃতদের কাছ থেকে উদ্ধার হয়েছে দুই প্যাকেটে মোট ১৪৩ গ্রাম ব্রাউন সুগার। যার আনুমানিক বাজার মূল্য প্রায় ৫লক্ষ টাকা।পুলিশের প্রাথমিক আনুমান কাউকে সেগুলি দেওয়ার জন্য অপেক্ষা করছিল ধৃতরা। সোমবার ধৃত দুই জনকে মালদা জেলা আদালতে পেশ করে সাত দিনের পুলিশি হেপাজতের আবেদন জানায় কালিয়াচক থানার পুলিশ।

  • সন্ধ্যায় ফের নতুন করে ভাটপাড়ায় উত্তেজনা, প্রচুর বোমাবাজি! পুলিশ পেটালো আধাসেনাকে

    News Bazar24 :দিনভর উত্তপ্ত ভাটপাড়া। সন্ধ্যায় ফের নতুন করে ভাটপাড়ায় উত্তেজনা ছড়াল। চলল গুলি। সেইসঙ্গে ব্যাপক বোমাবাজির অভিযোগ। বিজেপি নেতা অর্জুন সিংয়ের বাড়ির সামনে গুলি চলে। ২৫ রাউন্ডের উপর গুলি চলে বলে অভিযোগ। এলোপাথাড়ি গুলি চালানো হয়। দরজা, জানলা সব বন্ধ করে ঘরের মধ্যে সিঁটিয়ে গিয়েছেন এলাকার বাসিন্দারা। ঝাঁপ বন্ধ করে দিয়েছেন স্থানীয় দোকানদারেরাও। এলাকা পুরো সুনসান চেহারা নিয়েছে।অলিতেগলিতে মুড়ি মুড়কির মতো বোমাবাজি চলে। এমনকি মদন মিত্রের গাড়ি লক্ষ্য করেও বোমা ছোঁড়ার অভিযোগ ওঠে। অলিতেগলিতে মুড়ি মুড়কির মতো বোমাবাজি চলে। এমনকি মদন মিত্রের গাড়ি লক্ষ্য করেও বোমা ছোঁড়ার অভিযোগ ওঠে। ভা অশান্তি নিয়ে ইতিমধ্যেই রিপোর্ট তলব করেছে কমিশন। অশান্তি নিয়ে ইতিমধ্যেই রিপোর্ট তলব করেছে কমিশন। এদিকে গুলি বোমাবাজির মধ্যেই অভিযোগ, পুলিসের মারে আহত হয়েছেন এক সিআইএসএফ কর্মীও। জখম সিআইএসএফ কর্মীর নাম অজয় সিং। অভিযোগ তিনি বোমাবাজির জন্য দুষ্কৃতীদের আটকানোর চেষ্টা করছিলেন। তাই পুলিশ নাকি অজয় সিংহ কে মারধোর করে। এদিকে গুলি বোমাবাজির মধ্যেই অভিযোগ, পুলিসের মারে আহত হয়েছেন এক সিআইএসএফ কর্মীও। জখম সিআইএসএফ কর্মীর নাম অজয় সিং।

  • মালদার হবিবপুর বিধানসভার উপনির্বাচনে ভোট দিতে সকাল থেকেই উপচে পরা ভিড়, এখন পর্যন্ত শান্তিপূর্ণ

    ১৯মে,মালদা : সকাল থেকেই ভোটারদের লম্বা লাইন মালদার হবিবপুর বিধানসভার উপনির্বাচনে।কোনো রকম অকৃতিকর ঘটনা ছাড়াই শান্তিপূর্ণ ভোট দান প্রক্রিয়া চলছে ভোট গ্রহণ কেন্দ্র গুলিতে। লোকসভা নির্বাচনের আগে হবিবপুরের সিপিআইএম বিধায়ক খগেন মুর্মু বিজেপিতে যোগদান করে উত্তর মালদা লোকসভা কেন্দ্রের প্রার্থী হন।এরপরই নির্বাচন কমিশন সিদ্ধান্ত নেন এই কেন্দ্রে উপনির্বাচনের।চতুর্মুখী লড়াই চলেছে এই বিধানসভা কেন্দ্রে। মালদার হবিবপুর ও বামনগোলা ব্লক নিয়ে গঠিত হবিবপুর বিধানসভা কেন্দ্রটি৷ এই কেন্দ্রের ২৪৭টি বুথের মধ্যে ১২১ টি ভোট গ্রহণ কেন্দ্র বামনগোলা ব্লকে।বাকি ১২৬ টি বুথ রয়েছে হবিবপুর ব্লকের অন্তর্গত। এই বিধানসভা কেন্দ্রে মোট ভোটার ২ লক্ষ ৪০ হাজার ৭১ জন৷ তাঁদের মধ্যে ১ লক্ষ ২১ হাজার ৪৫৯ জন পুরুষ এবং ১ লক্ষ ১৮ হাজার ৬০৫ জন মহিলা৷এছাড়াও তৃতীয় লিঙ্গের ভোটার রয়েছে ৭ জন।প্রায় প্রতিটি বুথেই কেন্দ্রীয় বাহিনী মোতায়েন রয়েছে এই বিধানসভার উপনির্বাচনে।কমিশনের তরফে তাজপুর প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ২০৮ নম্বর বুথকে আদর্শ ভোটদান কেন্দ্র হিসেবে গড়ে তোলা হয়েছে। রবিবার সকাল থেকেই প্রায় প্রতিটি বুথে লক্ষ করা যায় ভোটারদের লম্বা লাইন।বেলা বাড়ার সাথে সাথে তাপপ্রবাহ বাড়তে থাকার কারণে মহিলা-পুরুষ উভয়েই সকাল সকাল বুথ মুখী।উৎসবের মেজাজেই চলছে ভোট প্রক্রিয়া।যদিও এখনো পর্যন্ত কোনো রকম অকৃতিকর ঘটনা ঘটেনি। আগামী ২৩ মে লোকসভা নির্বাচনের গননার সাথে এই উপনির্বাচনের ফলাফলও ঘোষনা করা হবে। হবিবপুর উপনির্বাচনের গননা কেন্দ্র করা হয়েছে মালদা জেলা স্কুল প্রাঙ্গনে।