You are here: Homeদেশসারা দেশItems filtered by date: Tuesday, 10 October 2017

ডেস্ক, ১০ অক্টোবর : আবার মালদা মেডিক্যাল কলেজ ও হাসপাতালের বিরুদ্ধে চিকিৎসায় গাফিলতির অভিযোগ উঠল সাপের কামড়ে এক রোগীর  মৃত্যুকে ঘিরে । রোগীর  মৃত্যুকে কেন্দ্র করে  মেডিক্যাল কর্তৃপক্ষের বিরুদ্ধে অভিযোগে সরব হন তার পরিবারের। যদিও মালদা মেডিক্যাল কলেজ ও হাসপাতালের সহকারী অধ্যক্ষ তথা হাসপাতাল সুপার জানিয়েছেন, এনিয়ে এখনও পর্যন্ত তাঁদের কাছে কোনও অভিযোগ দায়ের হয়নি।
মৃতের  নাম জগত মণ্ডল। বয়স ১৪ বছর। মামার বাড়ি কালিয়াচক ২ নম্বর ব্লকের যুগলটোলা গ্রামে। স্থানীয় যুগলটোলা হাইস্কুলে ক্লাস নাইনে পড়ত সে। পড়াশোনার জন্য সে মামার বাড়িতে থাকত।  গতকাল মাঝরাতে বিছানায় জগতকে বিষাক্ত সাপ ছোবল মারে। 

 অন্যদিনের মতো গত রাতেও খাবার খেয়ে ঘুমোতে যায় জগত। বিছানাতে মশারির নীচে ঘুমিয়েছিল সে। কিন্তু সেখানেই যে বিষাক্ত সাপ লুকিয়ে ছিল তা তাঁরা কেউ জানতে পারেননি। রাত ২টো নাগাদ সেই বিষাক্ত সাপ পরপর দু’বার জগতকে ছোবল দেয়। সে বুঝতে পারে তাকে সাপ কামড়েছে তাই  বাড়ির সবাইকে ঘুম থেকে তুলে জানায়, তাকে সাপে কামড়েছে। তাঁরাও জগতের পায়ে সাপ কামড়ানোর চিহ্ন দেখতে পান। সঙ্গে সঙ্গে গাড়ি করে তাকে নিয়ে যাওয়া হয় স্থানীয় বাঙ্গীটোলা গ্রামীণ হাসপাতালে। ৩০ মিনিট সেখানে রাখার পর সেখানকার চিকিৎসক জগতকে মালদা মেডিক্যালে রেফার করে দান। ভোর রাতে তাকে মালদা মেডিক্যালে ভর্তি করা হয়। তখনই তাকে একটি ইনজেকশন দেওয়া হয়। কিন্তু কাজের কাজ কিছু হয়নি। আজ সকালে মারা যায় জগত।
ছাত্রের পরিবারের অভিযোগ , মালদা মেডিক্যালে জগতের কোনও চিকিৎসাই করা হয়নি। কোনও চিকিৎসকও তাকে দেখতে আসেননি। মারা যাওয়ার পর এক চিকিৎসক তাকে দেখতে আসেন।
এপ্রসঙ্গে মালদা মেডিক্যালের সহকারী অধ্যক্ষ তথা হাসপাতাল সুপার অমিত দাঁ বলেন, “এব্যাপারে এখনও পর্যন্ত আমার কাছে কেউ লিখিত বা মৌখিকভাবে অভিযোগ জানাননি।  সম্ভবত ওই কিশোরকে অনেক দেরি করে হাসপাতালে নিয়ে আসার জন্যই তাকে বাঁচানো যায়নি। মালদা জেলার ক্ষেত্রে এটা বড়ো সমস্যা হয়ে দাঁড়িয়েছে। গ্রামীণ হাসপাতাল ও স্বাস্থ্যকেন্দ্রগুলিতে পর্যাপ্ত পরিমাণে অ্যান্টি ভেনাম মজুত রয়েছে। মালদা মেডিক্যালেও তার কোনও অভাব নেই। রোগীকে প্রথমেই সেই ইনজেকশন দেওয়া হলে সেই রোগীকে সহজেই সুস্থ করে তোলা যায়। কিন্তু রেফার করা হলে সময় অনেকটা পেরিয়ে যায়। সেক্ষেত্রে রোগীকে বাঁচানো সমস্যা হয়ে দাঁড়ায়। তবে এক্ষেত্রে ঠিক কী হয়েছে, আমার জানা নেই। বিষয়টি তিনি খোঁজখবর নিয়ে দেখছি।”

Published in Malda-Dinajpur-2

ডেস্ক, ১০ অক্টোবর : ইংরেজবাজার থানার খাসিমারি গ্রামের দিঘিপাড়া এলাকায় নিজের পাওনা টাকা চাইতে গিয়ে আক্রান্ত হলেন এক মহিলা। ওই মহিলা বাড়ির সামনে মুদির দোকান চালান। আক্রান্ত  মহিলার নাম মেটানি রায় (৫০)। বর্তমানে তিনি মালদা মেডিক্যাল কলেজ ও হাসপাতালে চিকিৎসাধীন। অভিযুক্ত ব্যাক্তি  মোহন রায় পলাতক। অভিযুক্তের খোঁজে তল্লাশি শুরু করেছে পুলিশ।
পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, দুর্গাপুজোর দশমীর দিন মোহন রায়ের জামাই উমেশ্বর রায় মেটানিদেবীর দোকান থেকে ধারে ১০০ টাকার জিনিসপত্র কেনেন। অভিযোগ, সেই পাওনা টাকা চাইতে গেলে আজ সকালে মোহন রায় বাঁশ নিয়ে মেটানি রায়ের উপর চড়াও হয়। জখম হন মেটানিদেবী। খবর পেয়ে বাড়ির লোকজন রক্তাক্ত অবস্থায় তাঁকে উদ্ধার করে মালদা মেডিক্যাল কলেজে ভর্তি করেন। বর্তমানে তিনি সেখানেই চিকিৎসাধীন। ঘটনার পর থেকে এলাকা ছেড়ে পালিয়েছে মোহন। তার খোঁজে তল্লাশি শুরু করেছে পুলিশ।

 

Published in Malda-Dinajpur-2

ডেস্ক, ১০ অক্টোবর : পঞ্চায়েতের এক কর্মীর সাহায্যে উপভোক্তাদের কাছ  থেকে প্রধানমন্ত্রী আবাস  যোজনার টাকা  কেড়ে নেওয়ার অভিযোগ উঠল তৃণমূল পরিচালিত পঞ্চায়েত উপপ্রধানের বিরুদ্ধে।  ঘটনাটি  বামনগোলা ব্লকের গোবিন্দপুর মহেশপুর গ্রাম পঞ্চায়েতের। এই ঘটনার প্রতিকার  চেয়ে মালদা  জেলাশাসকের দ্বারস্থ হলেন অভিযোগকারীরা। যদিও অভিযুক্ত উপপ্রধান বিষয়টিকে ভিত্তিহীন বলে জানিয়েছেন।  

গোবিন্দপুর মহেশপুর গ্রাম পঞ্চায়েতের  জামডাঙা ও কাটাবাড়ি গ্রামের কয়েকজন উপভোক্তা লিখিত ভাবে জেলাশাসক কৌশিক ভট্টাচার্যকে জানান, তাঁদের নাম প্রধানমন্ত্রী আবাস যোজনায় তালিকাভুক্ত আছে   । প্রথম কিস্তির টাকা তাঁদের ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্টে চলেও এসেছে। সেই টাকা তোলার পর পঞ্চায়েত কর্মী পরিমল সরকার তাঁদের সকলকে উপপ্রধান ওসিউদ্দিন মণ্ডলের সঙ্গে দেখা করার নির্দেশ দেন।   অভিযোগ,উপ প্রধান  তাঁদের প্রত্যেকের কাছ থেকে ১০ হাজার টাকা করে দাবী করেন । টাকা দিতে রাজি না হওয়ায় তিনি বলেন, ওই টাকা না দিলে তাঁরা দ্বিতীয় কিস্তির টাকা পাবেন না। ভয়ে উপস্থিত উপভোক্তারা সেই টাকা দিতে বাধ্য হন। এই পরিস্থিতি থেকে নিস্তার পেতে তাঁরা শেষ পর্যন্ত জেলাশাসকের দ্বারস্থ হয়েছেন।
ওসিউদ্দিন মণ্ডল অবশ্য সব অভিযোগ উড়িয়ে দিয়েছেন। গত পঞ্চায়েত ভোটে কংগ্রেসের টিকিটে জয়লাভ করেন তিনি। পরে পঞ্চায়েতে অনাস্থার প্রেক্ষিতে তিনি নির্দল হয়ে যান। বর্তমানে তিনি তৃণমূলে যোগ দিয়েছেন।

তিনি বলেন, সিমেন্ট, বালি, ইট, লোহা প্রভৃতি বাড়ি তৈরির সামগ্রীর দোকান রয়েছে তাঁর। সম্প্রতি তাঁদের পঞ্চায়েত এলাকায় ৩৪০ জনের নাম প্রধানমন্ত্রী আবাস যোজনায় নথিভুক্ত হয়। তার মধ্যে ৭০টি বাড়ি তৈরির যাবতীয় সরঞ্জাম তিনিই সরবরাহ করেন। সেকারণে মাঝেমধ্যে উপভোক্তাদের তিনি পঞ্চায়েত দপ্তরে ডেকে পাঠান। ঘর তৈরির উপকরণের দাম বাবদ টাকা নিয়ে স্লিপ দেন। সেই টাকাই তিনি নিয়েছেন। উপভোক্তাদের কাছ থেকে জুলুম করে টাকা নেওয়া হয়নি বলে সাফ জানান তিনি। তবে পরিমল সরকার টাকা দাবি করেছে  কি না তা তাঁর জানা নেই। তিনি বিষয়টি খোঁজ নিয়ে দেখবেন বলে জানিয়েছেন।

জেলাশাসক কৌশিক ভট্টাচার্য অবশ্য এই অভিযোগ পেয়ে উদ্বিগ্ন। তিনি জানিয়েছেন, অভিযোগ তদন্ত করে যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। সাধারণ মানুষের টাকা কিছুতেই এভাবে নয়ছয় হতে দেওয়া যাবে না। তদন্তে যে দোষী প্রমাণিত হবে, আইন অনুযায়ী তাঁর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

Published in Malda-Dinajpur-2

ফটো গ্যালারী

Market Data

সম্পাদকের কথা

ফ্যান ছবিতে দেখা যাবে ১৭ বছরের শাহরুখকে

ফ্যান ছবিতে দেখ...

ডেস্ক: ছবির নাম যখন ফ্যান, আর অভিনয়ে যখন...

ধর্মীয় মৌলবাদীদের হামলায় খুন লেখক অভিজিৎ রায়

ধর্মীয় মৌলবাদীদ...

ঢাকা: একুশের বইমেলা থেকে ফেরার পথে ঢাকা ...

উদাসী হাওয়ায় গা ভাসিয়ে বলতেই পারেন, ""হোলি হ্যায়''!!!

উদাসী হাওয়ায় গা...

শান্তিনিকেতনে বসন্ত উত্সবের সূচনা হয় প্র...

বিবাহ বন্ধনে আবব্ধ হতে চলেছেন খ্যাতনামা অফ-স্পিনার হরভজন সিংহ

বিবাহ বন্ধনে আব...

কার্ত্তিক চন্দ্র পাল : ভারতের খ্যাতনামা ...

আপগ্রেড করুন

« October 2017 »
Mon Tue Wed Thu Fri Sat Sun
            1
2 3 4 5 6 7 8
9 10 11 12 13 14 15
16 17 18 19 20 21 22
23 24 25 26 27 28 29
30 31          

MC News

Contact Us

Email: This email address is being protected from spambots. You need JavaScript enabled to view it.

Face Book: /newsbazar24 

Helpline No- 09434219594/9126173604