রাজ্য

মালদা

১৮ ই আগস্ট মালদা জুড়ে পালিত হলো স্বাধীনতা দিবস

কলকাতা

রাজ্যের পঞ্চায়েত গঠন নিয়ে অনিশ্চয়তা কাটল না,ফের শুনানি সোমবার।

মালদা

মোথাবাড়ি এলাকায় পথ দুর্ঘটনার রেশ টানতে বৈঠক

কলকাতা

গ্রিন করিডর করে অঙ্গ প্রতিস্থাপনের নজির গড়ল কলকাতা।

কলকাতা

বাড়িভাড়া সংক্রান্ত গন্ডগোলের জেরে পুড়ে মৃত্যু ২ বছরের শিশুর

মুরশিদাবাদ -নদীয়া

স্বাধীনতা দিবস পালন করলো লালবাগ মহুকুমা প্রশাসন

মালদা

আইহো বিজেপির , প্রয়াত প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রীর শ্রদ্ধা জ্ঞাপন অনুষ্ঠান পালন

বীরভূম -বর্ধমান

তৃণমূল নেতার ছবি দেওয়া ব্যাজ পড়ে মঞ্চে উপস্থিত পুলিশ কর্তা সহ প্রশাসনিক কর্তারা।

মালদা

মালদা জেলা পুলিশের মহৎ কাজ, চুরি যাওয়া জিনিস ফেরত পেলো মালিকেরা

মালদা

৫০ ফুট উঁচু মহানন্দা ব্রিজ থেকে পড়ে আত্মহত্যার চেষ্টা কিশোরীর

মালদা

মালদায় প্রৌঢ়কে মারধরের অভিযোগ, ৪ প্রতিবেশীর বিরুদ্ধে

মুরশিদাবাদ -নদীয়া

চরকাবিলপুরে স্বাধীনতা দিবস উদযাপন দেশের ৭২তম স্বাধীনতা দিবস মহাসমারোহে পালন

খেলা

  • খেলা

    সাইক্লিং বিশ্ব চ্যাম্পিয়নশিপে স্বর্ণ পদক জয়ী ভারতের তরুণ সাইক্লিস্ট ইসো আলবিন।

    Newsbazar24, ডেস্ক, ১৮ আগস্টঃ জুনিয়র ট্র্যাক সাইক্লিং বিশ্ব চ্যাম্পিয়নশিপে  নতুন রেকর্ড গড়লেন আন্দামান এবং নিকোবর তরুণ সাইক্লিস্ট ইসো আলবিন। ১৭ বছরের এই তরুণ ইউনিয়ান সাইক্লিস্ট ইন্টারন্যাশনাল (ইউসিআই) জুনিয়র ট্র্যাক সাইক্লিং বিশ্ব চ্যাম্পিয়নশিপে পদক এনে দিলেন ভারতকে। এই ইভেন্টে এটাই ভারতের প্রথম পদক। সুইৎজারল্যান্ডে আয়োজিত এই প্রতিযোগীতায় রুপো জিতে ইতিহাস তৈরি করলেন আলবিন। শেষ ল্যাপের লড়াইয়ে চেক প্রজাতন্ত্রের প্রতিযোগী জাকুব স্তাস্তনির উপর প্রবল চাপ সৃষ্টি করেন আন্দামান এবং নিকোবরের আলবিন। তবে, শেষ পর্যন্ত চেক প্রতিযোগীর কাছে পিছিয়ে পড়তে হয় এই ভারতীয় তরুণকে। এই প্রতিযোগীতায় ব্রোঞ্জ জেতেন কাজাখস্তানের প্রতিযোগী আন্দ্রে চুগায়। চেক প্রজাতন্ত্রের প্রতিযোগী জাকুব স্তাস্তনি ইসোরর থেকে ০.০১৭ সেকেন্ড আগে রেস শেষ করে সোনা জেতেন। রেস শেষে ইউসিআই-এর ওয়েবসাইটে আলবিন বলেন, 'আমি সব সময় চেয়েছিলাম আগে থাকতে এবং সংঘর্ষ এড়াতে। আমার বিশ্বাস ছিল আমি এই রেস জিততে পারি কিন্তু আমি তবুও খুশি... কিছুটা খুশি তো বটেই।' ইসোর নয়া এই কৃতিত্বে তাঁকে শুভেচ্ছা জানিয়েছেন ক্রীড়ামন্ত্রী রাজ্যবর্ধন সিং রাঠৌর। টুইট করে তিনি শুভেচ্ছা জানান ইসোরকে। নিজের টুইটে তিনি লেখেন, 'অসাধারণ ইসো! আরও অনেক পদক যেন তুমি জিততে পার।' read more...

  • খেলা

    লাল হলুদের দায়িত্ব নিতে চলেছেন নূতন স্প্যানিশ কোচ আলেজান্দ্রো মেন্ডেজ গার্সিয়া

    Newsbazar24, ডেস্ক, ১৮ আগস্টঃ  চলতি কলকাতা ফুটবল লীগে  ডার্বির আগেই ইস্টবেঙ্গলের কোচ হয়ে আসছেন স্প্যানিশ কোচ আলেজান্দ্রো মেন্ডেজ গার্সিয়া।  তার সঙ্গে  আসছেন ভিডিও অ্যানালিস্ট ম্যারিও রিবেরা ও ফিজিও কার্লোস নাদারকে। বিগত ৩ বছর ধরে (২০০২ থেকে ২০০৫)  তিনি স্পোর্টিং গিজন  ইউথ টিমে এবং ২বছর (২০০৫ থেকে ২০০৭)  রিয়াল মাদ্রিদের ইউথ টিমের কোচ ছিলেন।  তারপর  ২০০৭-এ সেল্টা বি টিমের ম্যানেজার হন। ২০০৮ এ  সেল্টা মূল দলের কোচিং করে ২০০৯-এ চলে আসেন  রিয়াল মাদ্রিদ কাস্টিলায়। ২০১৩-এ রেসিং সান্টাদোর হয়ে চলতি মরশুমে বুর্গোসের দল সামলান এই স্প্যানিশ কোচ। অবশেষে  ভারতে আসতে চলেছেন কলকাতার  লাল-হলুদ ক্লাবে। ক্লাব সূত্রে খবর  কথাবার্তা চূড়ান্ত হয়ে গিয়েছে । স্প্যানিশ কোচ আলেজান্দ্রো চলে এলেই ছুটি হয়ে যাচ্ছে সুভাষ ভৌমিকের। দীর্ঘমেয়াদি পরিকল্পনার জন্যই এই সিদ্ধান্ত নিলেন ইস্টবেঙ্গল কর্তারা। তারা যেমন সিনিয়র দল নিয়ে ভাবছেন তেমনই সাপ্লাই লাইন হিসাবে জুনিয়র দল নিয়েও তাদের রয়েছে নানারকমের পরিকল্পনা। পরের বছর ইস্টবেঙ্গল আইএসএল খেললে, তাদের বি দলকে আই লিগ খেলানো যায় কিনা তার জন্য বিনিয়োগকারী সংস্থা ও ফেডারেশনের সঙ্গে কথা বলবেন তারা।এই ব্যাপারে সুভাষ ভৌমিক জানান যে, ক্লাবের তরফ থেকে আগেই সব কিছুই আমাকে জানানো হয়েছে । এই  নিয়ে আর কিছু বলতে চাই না।”   read more...

  • খেলা

    আগামীকাল শুরু হচ্ছে ১৮তম এশিয়ান গেমস ইন্দোনেশিয়ার জাকার্তা ও পালেম্বাং শহরে।

    আগামীকাল ১৮ আগস্ট শনিবার শুরু হচ্ছে ১৮তম এশিয়ান গেমস চলবে ২ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত। ইন্দোনেশিয়ার জাকার্তা ও পালেম্বাং শহর যৌথভাবে আয়োজন করছে এবারের এশিয়ান গেমস। তবে গেমসের উদ্বোধনী ও সমাপ্তি দুই অনুষ্ঠানই হবে জাকার্তার জিবিকে স্টেডিয়ামে। ইতিমধ্যেই মশাল পৌঁছে গিয়েছে জাকার্তায়।  শনিবার ভারতীয় সময় বিকেল সাড়ে ৫টায় শুরু হবে জমজমাট উদ্বোধনী অনুষ্ঠান। এবারে গেমস ভারতে সম্প্রচার করছে সোনি সংস্থা। উদ্বোধনী অনুষ্ঠানটিও দেখা যাবে সোনি চ্যানেলেই। যে কোনও মাল্টি ইভেন্ট গেমসের আসরের উদ্বোধনের অন্যতম আকর্ষণ হল অ্যাথলিটদের প্যারেড। সেই প্যারেড শুরু হবে ভারতীয় সময় সন্ধ্যা ৬টায়। উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে ভারতের পতাকা বহন করার সম্মান পেয়েছেন নবীন জাভেলিন থ্রোয়ার নীরজ চোপরা। ভারতীয় দলকে তিনিই প্যারেডে নেতৃত্ব দেবেন। ভারতীয় দল৫৪১ জন খেলোয়াড় নিয়ে ৩৪টি ক্রীড়ায় অংশ নেবেন।ভারতীয় ক্রীড়া বিশেষজ্ঞরা মনে করছেন ২০১৮ এশিয়ান গেমসে ফের একবার নিজেদের ক্রীড়াশৈলি প্রদর্শনের মধ্য দিয়ে এশিয়ান গেমসকে আলোকিত করবেন ভারতীয় ক্রীড়াবিদেরা। তাঁদের বিশ্বাস বিভিন্ন ইভেন্টে ভারতের সোনা পাওয়ার সম্ভবনাও রয়েছে অনেকটাই। এমনিতে বহু বার এশিয়াডে সাফল্য পেয়েছে ভারত। বিভিন্ন ইভেন্টে জিতেছে সোনা। তবে, এ বার সোনা জেতার বিষয়ে ভারত মূলত নির্ভর করছে শুটিং, রেসলিং এবং বক্সিংয়ের উপর। সোনা জিততে ভারতের প্রধান ভরসা রেসলার, বক্সার এবং শুটাররা। চার বছর আগে গত এশিয়াডে ভারতের পদক সংখ্যা ছিল ১১টি সোনা সহ মোট ৫৭ টি পদক । অলিম্পিকে ভারত সেই ভাবে সফল না হলেও এশিয়াডে নিজেদের দাপট শুরুর বছর থেকেই রেখেছে ভারত। এশিয়ান গেমসের দীর্ঘ দিনের ইতিহাসে মাত্র দু'বার প্রথম আটে শেষ করতে ব্যর্থ হয়েছিল ভারত। ১৯৫১ সালে ভারতের মাটিতেই প্রথম এশিয়ান গেমস আয়োজিত হয়। শেষ চারবার কম করে ভারতের ঝুলিতে এসেছিল ১০টি সোনা। মনে করা হচ্ছে জাকার্তায় অনুষ্ঠিত হতে চলা এই বারের এশিয়ান গেমসে আরও ভাল পারফর্ম করবেন ভারতীয় অ্যাথলিটরা। ২০২০ টোকিও অলিম্পিকের আগে এখানে নিজেদের ঝালিয়ে নেওয়ারও সুযোগ পেয়ে যাবেন ভারতীয় তারকারা। ভারতীয় অলিম্পিক অ্যাসোসিয়েশনের প্রধান নীরেন্দ্র বার্তা বলেন, 'শেষ বার অষ্টমস্থানে শেষ করেছিল ভারত। এই বার আশা করি আমরা গতবারের থেকেও পদক সংখ্যা বাড়াব এবং ক্রমতালিকায় ভালস্থানে থাকব।' শুটিংয়ে ভারত যাদের দিকে চেয়ে রয়েছে তাঁদের মধ্যে উল্লেখযোগ্য অনিশ ভানওয়াল, ইলাভেনিল ভালারিভান এবং মনু ভাকর। ১৫ বছর বয়সে কমনওয়েলথ গেমসে ২৫ মিটার র্যাপিড ফায়ার পিস্তল ইভেন্টে সোনা জেতেন অনিশ। ১৬ বছর বয়সী মহিলাদের ১০ মিটার এয়ার রাইফেল ইভেন্টের ফাইনালে জয় পেয়েছেন। এছাড়া রেসলিংয়ে ৫০ কেজি বিভাগে ভিনেশ পোঘাতের দিকে নজর থাকবে ভারতের। নজর থাকবে বিকাশ কৃষ্ণের দিকেও। সোনার জন্য নজর থাকবে জ্যাভলিন থ্রোয়ার নীরজ চোপড়ার দিকেও। এছাড়াও সকলের নজর রয়েছে  ভারতীয় ব্যাডমিন্টন দলের দিকে, যে দলে আছেন পিভি সিন্ধু, কিদাম্বি শ্রীকান্ত, সাইনা নেহওয়ালের মতো তারকারা। তার উপর রয়েছে ভারতীয়  পুরুষ ও মহিলা হকি দল যারা গতবার পদক জিতেছিল।      read more...

  • খেলা

    ভারতীয় ফুটবল ফেডারেশানের সহ সভাপতি সুব্রত দত্ত প্রশাসক হিসাবে আন্তর্জাতিক স্তরে ফুটবল প্রশাসনে

    Newsbazar, 24 ডেস্ক, ১৩ই আগস্টঃ অল ইন্ডিয়া ফুটবল ফেডারেশন (এআইএফএফ)-এর সহ সভাপতি ও আইএফএ-এর বর্তমান চেয়ারম্যান  সুব্রত দত্ত সাউথ ওয়েস্ট এশিয়ান ফুটবল ফেডারেশন (সোয়াফ)-এর সহ সভাপতি হিসেবে নির্বাচিত হলেন ।  গতকাল রবিবার সৌদি আরবের জেডডায়  সাউথ ওয়েস্ট এশিয়ান ফুটবল ফেডারেশনের প্রথম বার্ষিক সাধারণ সভা  অনুষ্ঠিত হয়। উক্ত সভায় সোয়াফের সভাপতি হয়েছেন সৌদি আরব ফুটবল ফেডারেশনের সভাপতি আদিল ইজ্জাত এবং সহকারী সভাপতি হয়েছেন সুব্রত দত্ত। এর পাশাপাশি কার্যকরী কমিটিতে রয়েছে শ্রীলঙ্কা, বাংলাদেশ এবং নেপালের প্রতিনিধিরা। চলতি অগস্টের শেষেই ভারতে আসার কথা সাউথ ওয়েস্ট এশিয়ান ফুটবল ফেডারেশনের সভাপতি আদিল ইজ্জাতের। এ আইএফএফ সভাপতি প্রফুল পটেলের সঙ্গে দেখা করার কথা তাঁর। জানা গিয়েছে, প্রতি বছর সাড়ে তিন কোটি টাকার করে এআইএফএফ-কে দেবে সোয়াফ। এর পাশাপাশি এএফসি এশিয়ান কাপের আগে আগামী ১৬ নভেম্বর ভারত এবং সৌদি আরবের মধ্যে একটি প্রস্তুতি ম্যাচেরও আয়োজন করেছেন।   read more...

  • খেলা

    প্রয়াত প্রাক্তন দিকপাল ব্যাডমিন্টন খেলোয়াড় মনোজ গুহ।

    Newsbazar24, ৬ অগাস্ট :  প্রয়াত প্রখ্যাত প্রাক্তন ব্যাডমিন্টন খেলোয়াড় মনোজ গুহ। বয়স হয়েছিল ৯৮ বছর। বার্ধক্যজনিত রোগে ভুগছিলেন মনোজ গুহ।  জন্ম ১৯২০ সালের ১৩ সেপ্টেম্বর। ২০১৫ সালে বাংলার গৌরব সম্মানে ভূষিত হয়েছিলেন এই শাটলার। ফুটবলার হিসাবে তার খেলোয়াড় জীবন শুরু হয়। পরবর্তীকালে  ১৯৪৬ সালে রেফারির পরীক্ষায় পাশ করে খেলা পরিচালনা করেছিলেন। পাশাপশি  ব্যাডমিন্টন খেলা শুরু করেন। ব্যাডমিন্টনে সিঙ্গলসে ৮ বারের রাজ্য চ্যাম্পিয়ন   ডবলসে ৬ বার ও মিক্সড ডবলসে ৫ বার চ্যাম্পিয়ন হয়েছিলেন। ৫ বার ত্রিমুকুট জয়ের কৃতিত্ব ছিল তার।   শুধু রাজ্য পর্যায়ে নয়, জাতীয় পর্যায়েও সাফল্য পেয়েছিলেন। সিঙ্গলসে ১৯৪৯ থেকে ১৯৫১ সাল পর্যন্ত তিন নম্বর তারকা ছিলেন। জি এস হিমাদির সঙ্গে জুটি বেঁধে ডাবলসে তিনবার জাতীয় চ্যাম্পিয়ন।   ১৯৪৭ সালে ভারতীয় ব্যাডমিন্টন দলের সদস্য হিসাবে প্রথমবার দেশের বাইরে গিয়েছিল ।  ১৯৫১-৫২ ও ১৯৫৪-৫৫ সালে টমাস কাপে দেশের হয়ে প্রতিনিধিত্বও করেন তিনি। ভারতীয় ব্যাডমিন্টন দলকে বিশ্ব ক্রমপর্যায়ে তিন নম্বরে তুলে আনতে অন্যতম ভূমিকা ছিল মনোজ গুহর। ১৯৫৪ সালে টমাস কাপে ভারতীয় দলের সহ অধিনায়ক ছিলেন। সেই সময়, ডাবলসে চার নম্বর জুটি হয়েছিলেন গজানন হিমাদিকে সঙ্গী করে। এরপর ১৯৬৫ সালে ভারতীয় ব্যাডমিন্টন দলের চিফ কোচ করা হয়েছিল মনোজ গুহকে। ওই বছরই এশিয়ান ব্যাডমিন্টন চ্যাম্পিয়নশিপে ভারতীয় দল অংশগ্রহণ করেছিল। একাধিকবার টমাস ও উবের কাপে দেশের কোচের দায়িত্ব পালন করা মনোজ গুহ ১৯৭৮ সালে কেনিয়ার কোচ হয়েছিলেন। ক্রীড়াবিদ হিসাবে মনোজ গুহর সবচেয়ে বড় কীর্তি ভারতীয় ব্যাডমিন্টনে নয়া প্রজন্মকে প্রতিষ্ঠা করা। আশির দশকে ভারতীয় ব্যাডমিন্টনে এক নবীন প্রজন্মের জোয়ার দেখা গিয়েছিল তার জনক ছিলেন মনোজ গুহ। তার হাত ধরে সে সময় কলকাতার বুক থেকে উঠে এসেছিলেন একাধিক শাটলার। যার মধ্যে উল্লেখযোগ্য নাম অমৃতা মুখোপাধ্যায়, সৌমেন ভট্টাচার্য। এমনকী খোদ মনোজ গুহর ছেলে শশাঙ্ক শেখর গুহ যিনি লাল্টু গুহ নামেই ব্যাডমিন্টন মহলে পরিচিত ছিলেন, তিনি এই নবীন প্রজন্মের তালিকায় ছিলেন। এমন বহু শাটলার সে সময় জাতীয় স্তরে বাংলা থেকে প্রতিনিধিত্ব করেছিলেন। বলতে গেলে বাংলার ব্যাডমিন্টনে বৈপ্লবিক পরিবর্তনের কারিগর ছিলেন তিনি। । তাঁর মৃত্যুতে শোকস্তব্ধ ক্রীড়াজগৎ।   read more...

ব্যবসা

detail

গ্রাম বাংলায় ছাগল পালন লাভজনক ব্যবসা,

জিৎ বর্মন:আর কতদিন বেকারত্ব জীবন কাটাবেন ছাগল চাষ করুন এবং নিজে স্বনির্ভর হন ছাগল পালন পরিকল্পনা ও আনুমানিক আয়-ব্যয় হিসাব ছাগল পালনের পূর্বে কিছু গুরুত্বপূর্ণ বিষয় ভালভাবে জানা প্রয়োজনঃ ক) ছাগল পালনের ও খামার স্থাপনের গুরুত্ব। খ) ছাগলের জাত সম্পর্কে ধারণা। গ) খামারের জায়গা নির্বাচন এবং ছাগলের বাসস্থান। ঘ) স্বাস্থ্য ব্যবস্থাপনা। ঙ) ছাগলের খাদ্য ও পুষ্টি ব্যবস্থাপনা। চ) ছাগলের রোগ সমূহের, প্রতিকার ও নিয়ন্ত্রণ। ছ) ৫ টি ছাগলের খামারের বিভিন্ন খরচ ও নীট মুনাফার হিসাব। ছাগল পালনের গুরুত্বঃ ১. দেশের আর্থসামাজিক উন্নয়নের ছাগলের গুরুত্ব অপরিসীম। জাতীয় অর্থনীতিতে ছাগলের গুরুত্ব উত্তোরোত্তর বৃদ্ধি পাচ্ছে। ২. দেশের দরিদ্র জনগোষ্ঠীর স্বল্প পূঁজি বিনিয়োগ করে ছাগল পালনের মাধ্যমে স্বাবলম্বী হতে পারে। ৩. ছাগল পালন ভূমিহীন কৃষক, দুস্থ মহিলাদের আত্মকর্মসংস্থানের একটি উল্লেখযোগ্য উপায়। ৪. ছাগলের মাংস উন্নতমানের প্রাণীজ আমিষের উৎস। ছাগলের দুধ সহজে হজম হয়। ৫. আদিকাল থেকে গ্রাম বাংলার মহিলারা বাড়তি আয়ের উৎস হিসাবে ছাগল পালন করে আসছে। ৬. ছাগলের চামড়া উন্নতমানের যা রপ্তানি করে প্রচুর বৈদেশিক মুদ্রা অর্জন করা সম্ভব। ৭. অন্যান্য শিল্পের উপকরণ হিসাবে উপজাতের ব্যবহার- শিং দাঁত, খুর ও হাড় থেকে জিলাটিন আঠা, গহনা, চিরুনি, বোতাম, ছাতা ও ছুরির বাট, প্রভৃতি তৈরি করা যায়। ৮. রক্ত সংগ্রহ করে শুকিয়ে হাঁস- মুরগী ও প্রাণীর খাদ্য তৈরি করা যায়। ৯. ক্ষুদ্দ্রান্ত্র থেকে সারজিক্যাল সুতো ,টেনিস, রেকেট স্ট্রিং, মিউজিক্যাল স্ট্রিং প্রভৃতি তৈরি করা যায়। ছাগলের খামার ব্যবস্থাপনা ও কার্যক্রম সূচিঃ ছাগলের খামার ব্যবস্থাপনা হলো খামারের প্রাণ। সুষ্ঠু ব্যবস্থাপনা খামারের লক্ষ্য ও উদ্দেশ্য অর্জনের পথ সুগম ও ত্বরান্বিত করে এবং খামারের সম্পদ, সুযোগ ও সময়ের সঠিকভাবে সমন্বয় ঘটানো যায়। আর সুষ্ঠু ব্যবস্থাপনা বলতে বুঝায়ঃ- ১ সম্পদের যথাযথ ব্যবহার (২) শক্তির সর্বোচ্চ ব্যবহার (৩) শ্রমের সর্বনিম্ন অপচয় (৪) অল্প সময়ে অধিক ফল লাভ (৫) কম খরচ ও সময়ে অধিক উৎপাদন (৬) গুনগতমানের উৎপাদন (৭) সঠিক পরিকল্পনা। দৈনিক কার্যক্রম সূচিঃ ক) সকাল ৭-৯ টা • ছাগলের সার্বিক অবস্থা ও আচরণ পরীক্ষা করতে হবে। • পানির পাত্র/ খাবার পাত্র পরিষ্কার করা এবং পাত্রে খাবার ও পানি সরবরাহ করতে হবে। • খাবার দেবার পর কিছুক্ষণ দাঁড়িয়ে আচরণ পরীক্ষা করতে হবে। • ছাগল সকালে বের করার পর ছগলের ঘর নিয়মিত পরিষ্কার করতে হবে। খ) সকাল ১১-১২ টা • খাবার ও পানি সরবরাহ করতে হবে। গ) বিকাল ৪-৫ টা • খাদ্য ও পানি সরবরাহ করতে হবে। • দরজা বন্ধ করতে হবে। • আচরণ পরীক্ষা করতে হবে। সাপ্তাহিক কাজ • খাদ্য তৈরি করতে হবে। • ঘর জীবাণুনাশক পানি দ্বারা পরিষ্কার করতে হবে। • প্রয়োজনে টিকা প্রদান বা কৃমিনাশক ওষুধ খাওয়াতে হবে। ছাগল ক্রয়ের ক্ষেত্রে বিবেচ্য গুণাবলীঃ ছাগীর ক্ষেত্রেঃ • নির্বাচিত ছাগী হবে অধিক উৎপাদনশীল বংশের ও আকারে বড়। • নয় বা বার মাস বয়সের ছাগী (গর্ভবতী হলেও কোনো সমস্যা নেই) কিনতে হবে। • ছাগীর পেট তুলনামূলকভাবে বড়, পাজরের হাড়, চওড়া, প্রসারিত ও দুই হাড়ের মাঝখানে কমপক্ষে এক আঙ্গুল ফাঁকা জায়গা থাকতে হবে। • নির্বাচিত ছাগীর ওলান সুগঠিত ও বাঁট সামঞ্জস্যপূর্ণ হতে হবে। পাঠাঁর ক্ষেত্রেঃ • পাঠাঁর বয়স ১২ মাসের মধ্যে হতে হবে, অন্ডকোষের আকার বড় এবং সুগঠিত হতে হবে। • পিছনের পা সুঠাম ও শক্তিশালী হতে হবে। • পাঠাঁর মা, দাদী বা নানীর বিস্তারিত তথ্যাদি (অর্থাৎ তারা বছরে ২ বার বাচ্চা দিত কীনা, প্রতিবারে একটির বেশি বাচ্চা হতো কীনা, দুধ উৎপাদনের পরিমাণ ইত্যাদি গুণাবলী) সন্তোষজনক বিবেচিত হলেই ক্রয়ের ব্যবস্থা নেয়া যেতে পারে। বয়স নির্ণয়ঃ ছাগলের দাঁত দেখে বয়স নির্ধারণ করতে হয়। বয়স ১২ মাসের নিচে হলে দুধের সবগুলোর দাঁত থাকবে, ১২-১৫ মাসের নিচে বয়স হলে স্থায়ী দাঁত এবং ৩৭ মাসের ঊর্ধ্বে বয়স হলে ৪ জোড়া স্থায়ী দাঁত থাকবে। ছাগলের জাত সম্পর্কে ধারণাঃ (১) যমুনা পাড়ী জাতের ছাগলের বৈশিষ্ট্যঃ ভারতের এটোয়া জেলায় যমুনা পাড়ী ছাগলের উৎপত্তি। বাংলাদেশের সীমান্তবর্তী এলাকায় এ জাতের ছাগল পাওয়া যায়। এদের শরীরের রং সাদা, কালো, হলুদ বাদামী বা বিভিন্ন রঙয়ের সংমিশ্রণে হতে পারে। কান লম্বা ঝুলানো ও বাঁকা। পা খুব লম্বা এবং পিছনের পায়ের পেছন দিকে লম্বা লোম আছে। এরা অত্যন্তও কষ্ট সহিষ্ণু ও চঞ্চল। একটি পূর্ণ বয়স্ক পাঁঠার ওজন ৬০-৯০ কেজি এবং ছাগীর ওজন ৪০-৬০ কেজি পর্যন্ত হতে পারে। দৈনিক দুধ উৎপাদন ৩-৪ লিটার। (২) ব্ল্যাক বেঙ্গল জাতের ছাগলের বৈশিষ্ট্যঃ এটিই বাংলাদেশের একমাত্র জাত। বাংলাদেশ ছাড়াও ভারতের পশ্চিম বঙ্গ ও আসামে এ জাতের ছাগলের দেখা যায়। সাধারণত বৈশিষ্ট্যঃ গায়ের রং কালো তবে সাদা, সাদা কালো, খয়েরি কালো, খয়েরি ইত্যাদি হতে পারে। শরীরের আকার ছোট। গায়ের লোম মসৃণ ও ছোট। এদের কান ও শিং ছোট এবং ছাগীর তুলনায় পাঁঠার শিং তুলনামূলক বড়। দুধ উৎপাদনঃ সাধারণত এ জাতের ছাগী দৈনিক ২০০-৩০০ মি. লি. দুধ দেয়, তবে উপযুক্ত খাদ্য ও উন্নত ব্যবস্থাপনায় ছাগী দৈনিক ১.০০ লিটার পর্যন্ত দুধ দিয়ে থাকে। এদের দুগ্ধ প্রদানকালে সাধারণত ২-৩ মাস। মাংস উৎপাদনঃ ব্ল্যাক বেঙ্গল জাতের ছাগলের ড্রেসিং হার শতকরা ৪৫-৪৭ ভাগ। কিন্তু খাদ্য হিসাবে গ্রহণযোগ্য মাংসের পরিমাণ মোট ওজনের প্রায় ৫৫ ভাগ। এই জাতের ছগলের মাংস অত্যন্তও সুস্বাদু। বাচ্চা উৎপাদনঃ সাধারণত ১২-১৫ মাস বয়সেই ছাগী প্রথম বাচ্চা দেয় প্রথমবার শতকরা ৮০ ভাগ ছাগী ১ টি করে বাচ্চা দেয়। তবে দ্বিতীয়বার থেকে অধিকাংশ ছাগী ২ টি করে বাচ্চা দিয়ে থাকে। কোন কোন ক্ষেত্রে ৩/৪ টি করে বাচ্চা পাওয়া যায়। এ জাতের চামড়া বেশ উন্নত ও বিশ্বখ্যাত। খামারের জায়গা নির্বাচন / অবস্থান ও বাসস্থানঃ • জায়গা উঁচু হতে হবে, যেন বৃষ্টির পানি না জমে। আরোও পড়ুন  উন্নত গুনাগুনসম্পন্ন ছাগল নির্বাচন কৌশল • প্রধান সড়ক হতে দূরে তবে যোগাযোগ ব্যবসস্থা ভাল হতে হবে। • খোলামেলা পরিবেশ হতে হবে। • কাকাড় ও বালি মিশ্রিত স্থান যেখানে পানি সহজে শুকিয়ে যায়। • পানি নিষ্কাশনের পর্যাপ্ত ব্যবস্থা থাকতে হবে। • ঘনবসতি এলাকা এবং শহর হতে দূরে হতে হবে। • পানি ও বিদ্যুৎ সরবরাহও ব্যবস্থা ভাল হতে হবে। • শ্রমিক মজুরী কম ও জায়গার সহজলভ্য এলাকা নির্বাচন করা উত্তম। • পর্যাপ্ত ফলের গাছ ও চারণ ভূমি আশেপাশে থাকতে হতে। ছাগলের বাসস্থানঃ ছাগলের রাত্রিযাপন, নিরাপত্তা, ঝড়বৃষ্টি, রোদ, বন্যপ্রাণী ইত্যাদির কবল থেকে বাঁচার জন্য বাসস্থান প্রয়োজন রয়েছে। পারিবারিক পর্যায়ে ছাগল পালনের ক্ষেত্রে আলাদা বাসস্থান ব্যবস্থা তেমন দেখা যায় না। তবে এক সঙ্গে অনেক ছাগল পালনের ক্ষেত্রে বিজ্ঞানসন্মত বাসস্থান করা প্রয়োজন হয়। পূর্ব- পশ্চিম লম্বা-লম্বি করে দক্ষিন দিকে খোলা উন্মুক্ত স্থানে ছাগলের ঘর নির্মাণ করতে হবে। অপেক্ষাকৃত উঁচু স্থানে ঘর নির্মাণ করা উচিৎ, যাতে পানি নিষ্কাশনে কোন জটিলতা দেখা না দেয়। বসবাসের ঘর সংলগ্ন বা অন্য কোন উচুস্থানে ও খড়/ ছন/ চাটাই/ টিন প্রভৃতি দিয়ে প্রতি ছাগলের জন্য ৫-৬ বর্গফুট করে স্থান দিয়ে ছাগলের বাসস্থান তৈরি করা যায়। ছাগল উঁচু জায়গায় থাকতে পছন্দ করে। ঘরের ভিতর মাচা করে দিতে হবে। মাচার উচ্চতা মেঝে থেকে ২.৫-৩ ফুট। মাচা থেকে ছাদের উচ্চতা ৫-৬ ফুট। মাটির মেঝে হতে পর্যাপ্ত বালি দিতে হবে যাতে ঘর শুষ্ক থাকে। মাচা থেকে উপরের অংশ জি.আই/ বাঁশের নেট প্রস্তুত করে আবৃত করতে হবে। বৃষ্টির ছাট যেন ঘরে ঢুকতে না পারে সে জন্য ঘরের চাল ১-২ ফুট বাড়িয়ে ঝুলিয়ে দিতে হবে। শীতকালে মাচার উপর ৪-৫ ইঞ্চি পুরু করে খড় বিছিয়ে দিতে হবে এবং মাচার উপরের খোলা অংশ চট দিয়ে ঢেকে দিতে হবে। ঘরের পরিচর্যা ও জীবাণুমুক্ত করণ পদ্ধতিঃ • ছাগল সকালে বের করার পর ছাগলের ঘর নিয়মিত পরিষ্কার করেত হবে। • ছাগলের ঘর স্যাঁতস্যাঁতে মুক্ত রাখতে হবে । আলো, বাতাস ও বায়ু চলাচল সুব্যবস্থা রাখতে হবে। • বৃষ্টির পানি ও ঠাণ্ডা দুটোই ছাগলের জন্য ক্ষতিকর, তাই এ দিকে সজাগ দৃষ্টি রাখতে হবে। • সপ্তাহে একদিন ছাগলের ঘর জীবাণুনাশক মিশ্রিত পানি দিয়ে ভালমতো পরিষ্কার করতে হবে। ছাগল ঘরের প্রকৃতি এবং লালন পালন পদ্ধতিঃ ছগল ঘরের প্রকৃতিঃ ছাগল পালনের জন্য বিভিন্ন ধরণের ঘর রয়েছে। তবে সাধারণত দুই ধরণের ঘর দেখা যায়- ভূমীর উপর স্থাপিত ঘরঃ এ ধরণের ঘরের মেঝে কাঁচা অথবা পাকা হতে পারে। সাধারণত কৃষকেরা এ ধরণের ঘরে ছাগল পালন করে থাকে। এ ধরণের ঘরের মেঝেতে শুকনো খড় বিছিয়ে ঘর সব সময় পরিষ্কার ও শুষ্ক রাখতে হবে। মাচার উপর স্থাপিত ঘরঃ এ ধরণের ঘর মাটি থেকে ৩-৪ ফুট উচ্চতায় খুঁটির উপর স্থাপিত হয়। ঘরের মেঝে বাঁশ বা কাঠ দিয়ে মাচার মত তৈরি করা হয়। এ ধরণের ঘর স্বাস্থ্যসন্মত এবং পরিষ্কার করা সহজ। দু’ধরণের ঘরই একচালা, দো- চালা বা চৌচালা হতে পারে এবং ছাগলের সংখ্যার উপর ছোট ও বড় হতে পারে। লালন-পালন পদ্ধতিঃ • প্রতিদিন সকালে ঘর থেকে ছাগল বের করে ঘরের আশেপাশে চরতে দিতে হবে। • এদেরকে ব্যায়াম ও গায়ে সূর্য কিরণ লাগানোর পর্যাপ্ত সুযোগ দিতে হবে। • ঘর থেকে ছাগল বের করার পর ভাল করে ধুতে হবে। • ঘর থেকে ছাগল বের করার আগে কোন ছাগল অসুস্থ আছে কিনা লক্ষ্য রাখতে হবে। কোন ছাগলের মধ্যে অসুস্ততার লক্ষন দেখা দিলে তা সাথে সাথে আলাদা করে চিকিৎসার ব্যবস্থা নিতে হবে। • খামারে বেশি ছাগল হলে তাঁদের চিহ্নিত করার জন্য ট্যাগ নম্বর লাগাতে হবে। • ছাগলকে নিয়মিত সুষম খাদ্য সরবরাহ করতে হবে। • ছাগল পানি পছন্দ করে না তাই নিয়মিত গোসলের পরিবর্তে ব্রাশ দিয়ে দেহ পরিষ্কার রাখতে হবে। এতে লোমের ময়লা বের হয়ে আসে, রক্ত সঞ্চলন বৃদ্ধি পায়। নিয়মিত ব্রাশ করালে লোম উজ্জ্বল দেখায় এবং চামড়ার মান বৃদ্ধি পায়। • সকল বয়সের ছাগলকে নিয়মিত কৃমিনাশক ওষুধ খাওয়াতে হবে এবং নিয়মিত টিকা প্রদান করতে হবে। ঘরে ছাগলের জায়গার পরিমাণঃ ছাগলের প্রকৃতি —————– প্রয়োজনীয় জায়গার পরিমাণ বাচ্চা ছাগল ——————— ০.৩ বর্গমিটার। পূর্ণ বয়স্ক ছাগল —————– ১.৫ বর্গমিটার। গর্ভবর্তী ছাগল ——————- ১.৯ বর্গমিটার। পাঁঠা —————————- ২.৮ বর্গমিটার। ছাগলের বাচ্চার যত্ন ও বাচ্চা পালন পদ্ধতিঃ ছাগলের বাচ্চার যত্ন ও পালনঃ নবজাত বাচ্চা ছাগলের সঠিক যত্নর উপরই এদের বেড়ে ওঠা ও ভবিষ্যৎ নির্ভর করে। নবজাতক বাচ্চার রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা থাকে না বলে এরা অত্যন্ত রোগ সংবেদনশীল হয় এমতাবস্থায় সমান যত্নের অভাবে বাচ্চার মৃত্যু হয়। নবজাত বাচ্চা ছাগলের যত্নঃ • বাচ্চার শ্বাস প্রশ্বাস চালু করা এবং বাচ্চার শরীর পরিষ্কার করা ও শুকানো। • বাচ্চার নাভি রজ্জু পরিষ্কার জীবাণুমুক্ত কাঁচি দিয়ে কেটে দিতে হবে। • নাভি কাটার পর উক্ত স্থানে টিংচার আয়োডিন বা টিংচার বেনজীন জীবাণুনাশক ওষুধ লাগাতে হবে। • বাচ্চাকে শাল দুধ বা কলস্ট্রাম পান করাতে হবে। বাচ্চা পালন পদ্ধতিঃ দুটো পদ্ধতিতে ছাগলের বাচ্চা পালন করা হয়। যথা- (১) প্রাকৃতিক পদ্ধতিতে মায়ের সঙ্গে ও (২) কৃতিম পদ্ধতিতে মা বিহীন অবস্থায় পালন। প্রতিটি পদ্ধতির সুবিধা ও অসুবিধা রয়েছে তবে এদের প্রাকৃতিক পদ্ধতিটি প্রচলিত। সাধারণত দু’ সপ্তাহ বয়স থেকেই বাচ্চারা কাঁচা ঘাস বা লতাপাতা খেতে শুরু করে। তাই এদের নাগালের মধ্যে কচি ঘাস, লতা পাতা এবং দানাদার খাদ্য রাখতে হয়। সময় বাচ্চাদের জন্য প্রচুর উন্মুক্ত আলো বাতাসের ব্যবস্থা করা প্রয়োজন। গ্রীষ্মকালে দিনের বেলা গাছের নিচে বেড়া দিয়ে বাচ্চা পালন করা যায়। এতে এরা একদিকে পর্যাপ্ত ছায়া পেতে পারে। অন্যদিকে দৌড়াদৌড়ি এবং ব্যায়াম করার প্রচুর সুযোগ পায়, যা তাঁদের স্বাস্থ্য রক্ষার জন্য প্রয়োজন । আরোও পড়ুন  আধুনিকভাবে টার্কি পালন পদ্ধতি প্রতিটি বাচ্চা ছাগলকে জন্মের প্রথম সপ্তাহে দৈনিক ৩০০-৩২৫ মি. লি. দুধ ৩-৪ বারে পান করাতে হবে ধীরে ধীরে দুধের পরিমাণ বৃদ্ধি করে ৬-৭ সপ্তাহে তা ৭৫০-৮৫০ মি. লি. দুধ কিভাবে পাবে? এ উন্নীত করতে হবে। দুধের বিকল্প খাদ্য ৩ সপ্তাহ বয়সের পর খেতে দেয়া যেতে পারে। ১০-১১ সপ্তাহে দৈনিক দুধ সবরাহের পরিমাণ ২০০-১০০ মি.লি. নামিয়ে আনতে হবে। এ সময় দৈনিক ১০০-১৫০ গ্রাম দানাদার খাদ্য ও প্রচুর কচি ঘাস, লতাপাতা সরবরাহ করতে হবে। ৩-৪ মাস বয়সে দুধ পান করানো পুরোপুরি বন্ধ করে দিতে হবে। কারণ এ সময় শক্ত খাদ্যদ্রব্য খাওয়ার জন্য বাচ্চার পাকস্থলী পুরোপুরিভাবে তৈরি হয়ে যায়। শরৎ ও হেমন্তকালে ছাগলের মৃত্যুরহার অত্তাধিক বেশি থাকে এ সময় কৃমির আক্রমণ দেখা দিতে পারে। তাছাড়া নিউমোনিয়া এবং এন্টারোটক্সিমিয়া ব্যাপক হারে দেখা দিতে পারে। তাই এ সময় সতর্কতা অবলম্বন করা উচিৎ। ছাগলের স্বাস্থ্য ব্যবস্থাপনাঃ • খামারের চারিদিকে বেড়া বা বেষ্টনী দিতে হবে। • খামারের প্রবেশ গেটে জীবাণুমুক্ত হওয়ার ব্যবস্থা বা ফুটবাথ থাকতে হবে। • বাইরের লোককে যখন তখন খামারে প্রবেশ করতে দেওয়া যাবে না। • ইঁদুর, বন্যপ্রাণী – পাখি ও পোকা -মাকড় নিয়ন্ত্রন করতে হবে। • ছাগলকে প্রতিদিন পরিমাণমত সুষম খাবার সরবরাহ করতে হবে। ময়লাযুক্ত পচা বা বাসি খাবার খাওয়ানো ও যাবে না। • খাদ্য গুদাম আলো বাতাস ও বায়ু চলাচলযুক্ত হতে হবে এবং শুষ্ক ও পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন রাখতে হবে। • গরমকালে মিশ্রিত সুষম খাদ্য ৭ দিনের বেশি সংরক্ষণ করা যাবে না। • খামারে নতুন ছাগল সংগ্রহের সময় অবশ্যই রোগমুক্ত ছাগল ক্রয় করতে হবে। • খামারে নিয়মিত টিকা প্রদানের ব্যবস্থা করতে হবে। • ডাক্তারের পরামর্শ নিয়ে কৃমিনাশক ওষুধ খাওয়াতে হবে। • ছাগলের ঘর নিয়মিত পরিষ্কার করতে হবে। প্রতিদিন খাদ্য ও পানির পাত্র পরিষ্কার করতে হবে। • সপ্তাহে একদিন ছাগলের ঘর, খাবার ও পানির পাত্র জীবাণুনাশক দিয়ে পরিষ্কার করতে হবে। • সকল ছাগলকে বছরে ৫-৬ বার ০.৫% ম্যালাথিনয়ন দ্রবণে ডুবিয়ে চর্মরোগ মুক্ত রাখতে হবে। • প্রজননশীল পাঁঠা ও ছাগিকে বছরে দু,বার ১-১.৫ মি. লি. ভিটামিন এ. ডি. ই. ইনজেকশন দিতে হবে। • ছাগল মারা গেলে খামার থেকে দূরে কোথাও মাটির নিচে পুঁতে ফেলতে হবে অথবা আগুন দিয়ে পুড়িয়ে ফেলতে হবে। ছাগলের খাদ্য ও পুষ্টি ব্যবস্থাপনাঃ বাচ্চা ছাগলের খাদ্যঃ ব্ল্যাক বেঙ্গল ছাগল সাধারণত একাধিক বাচ্চা প্রসব করে থাকে। তাই সব গুলো বাচ্চা যেন সমানভাবে প্রয়োজন মত দুধ খেতে পায় সেদিকে খেয়াল রাখতে হবে। ঠিকমত খেয়াল না করলে সবল বাচ্চাগুলো দুধ ইচ্ছামত খেয়ে ফেলে এজন্য দেখা যায় দুর্বল বাচ্চাগুলো দুধ খেতে না পেয়ে অপুষ্টিতে ভুগে অকালে মারা যায়। এজন্য বাচ্চাদেরকে মায়ের দুধ খাওয়ানোর ব্যাপারে খুব সজাগ থাকতে হবে। দুধ ছাড়ানোর আগে ও পরে বাচ্চার খাদ্যঃ দানাদার খাদ্য মিশ্রণের নমুনাঃ চালভাঙ্গা- ২৫%+ খেসারিভাংগা-২৫%+ গমের ভুষি -২৫%+ সয়াবিন খৈল- ১৬%+ প্রোটিন কনসেন্টেট – ২%+ সয়াবিন তেল-১%+ চিটাগুড়-৪%+ এবং লবন-১%+ ভিটামিন- মিনারেল প্রিমিক্স-০.৫%+ ডি. সি. পি- ০.৫%। বাড়ন্ত বয়সের ছাগলের খাদ্যঃ মায়ের দুধ ছাড়ার পর বাচ্চার খাদ্যর অবস্থা খুব জটিল পর্যায়ে থাকে। যেহেতু এ সময় মায়ের দুধ পায় না আবার সময়টি ও বাড়ন্ত; তাই খাদ্য ও অন্যান্য ব্যবস্থাপনার দিকে বিশেষ খেয়াল রাখতে হয়। ব্ল্যাক বেঙ্গল ছাগলের বেলায় ৪-১৪ মাস বয়সকে বাড়ন্ত সময় বলা হয়। যে সব ছাগলকে মাংস বা বাচ্চা উৎপাদনের জন্য ব্যবহার করা হবে তাঁদের পুষ্টি বা খাদ্যর দিকে বিশেষভাবে দৃষ্টি দিতে হবে। জন্মের ২য় সপ্তাহ থেকে ছাগলকে ধীরে ধীরে অল্প অল্প করে দানাদার খাদ্য অভ্যাস করতে হবে। গর্ভবর্তী ছাগীর গর্ভের শেষ দুই মাসের প্রয়োজনীয় পুষ্টি ও খাদ্য তালিকাঃ গর্ভবর্তী ছাগীর পর্যাপ্ত খাদ্য দিতে হয়। তা না দিলে বাচ্চা দুর্বল হয় এমনকি মৃত্যু বাচ্চা প্রসব করার আশংকা থাকে। ছাগলের স্বাস্থ্য খারাপ হয়ে যায়। মায়ের দুধ উৎপাদনের পরিমাণ কমে যায় এবং পূর্ণরায় গর্ভধারণ করতে দেরি হয়। তাই ছাগল গর্ভবর্তী অবস্থায় খাদ্যর দিকে বিশেষভাবে দৃষ্টি দিতে হবে। দানাদার খাদ্য মিশ্রণের নমুনাঃ ভুট্টা ভাঙ্গা- ৩৫% + গমের ভুষি- ২৫%+ খেসারীর ভুসি-১৬%+ সয়াবিন খৈল- ২০%+ ফিস মিল- ১.৫%+ ডি.সি.পি-১.৪%+ লবন-১%+ ভিটামিন মিনারেল-০.১%। দুগ্ধবতী ছাগীর খাদ্য ব্যবস্থাপনাঃ বাচ্চা মায়ের দুধের উপর নির্ভরশীল থাকে। তাই বাচ্চার দুধের চাহিদার দিকে খেয়াল রেখে দুগ্ধবতী ছাগলের খাদ্য ব্যবস্থার দিকে বিশেষ যত্নবান হতে হয়। আমাদের দেশের অধিকাংশ ছাগলের ছানাই ছোট বেলায় মায়ের দুধের অভাবে মারা যায়। ব্ল্যাক বেঙ্গল জাতের ছাগল দুধ কম দিলেও যদি খাদ্য ব্যবস্থা ঠিক থাকে তবে বাচ্চার দুধের চাহিদা মেটাতে সক্ষম হয়। ভাল ব্যবস্থাপনায় ছাগী ২-৩ টি বাচ্চাকে দুধ খাওয়ানোর পর ০.৫-১.০ লিটার পর্যন্ত দুধ দিয়ে থাকে। খাদ্য মিশ্রণের নমুনাঃ ভুট্টা ভাঙ্গা- ৩৫% + গমের ভুষি- ২৫%+ খেসারীর ভুসি-১৬%+ সয়াবিন খৈল- ২০%+ ফিস মিল- ১.৫%+ ডি.সি.পি-১.৪%+ লবন-১%+ ভিটামিন মিনারেল-০.১%। খাসীর খাদ্য ব্যবস্থাঃ ছাগল পালনকারীদের কাছে খাসীর গুরুত্ব অপরিসীম। খাসী প্রথম দিকে থেকেই যদি প্রয়োজনীয় পুষ্টি না পেলে বৃদ্ধি ও শরীর গঠন ব্যাহত হয়। ফলে ক্রেতা সাধারণের দৃষ্টি আকর্ষণ করতে ও ব্যর্থ হয়। এজন্য ছাগল পালনের মূল উদ্দেশ্যটিই ব্যর্থ হয়ে যায়। দুধ ছাড়ানোর পর খাসী ছাগলকে পরিমাণমত খাদ্য খাওয়ালে গড়ে দৈনিক ৫০-৬০ গ্রাম করে ওজন বাড়ে এবং এক বছরের মধ্যে খাসী ১৮-২০ কেজি ওজনের হতে পারে। প্রজনন পাঁঠার খাদ্য ব্যাবস্থাঃ পাঁঠাকে প্রজনন কাজে ব্যবহার করা না হলে শুধুমাত্র পর্যাপ্ত ঘাস খাওয়ালেই চলে; কিন্তু যদি পর্যাপ্ত কাঁচা ঘাস না পায় তবে ভাল মানের খড় দিতে হয় এবং ২৫০-৫০০ গ্রাম দানাদার খাদ্য সরবরাহ করতে হয়। এ সময় অতিরিক্ত দানাখাদ্য দেয়ার কোন প্রয়োজনই নাই। প্রজনন কাজে ব্যবহারের সময় অবশ্যই পর্যাপ্ত দানাদার খাদ্য দিতে হয়। পাঁঠাকে প্রজননক্ষম রাখার জন্য প্রতিদিন ১০ গ্রাম পরিমাণ অংকুরিত ছোলা দেয়া উচিৎ। পাঁঠাকে কখনই চর্বিযুক্ত খাবার দেয়া যাবে না। আরোও পড়ুন  ব্ল্যাক বেঙ্গল ছাগলের কৃত্রিম প্রজনন পদ্ধতি খাদ্য খাওয়ানোর পদ্ধতিঃ সকাল ৬-৭ টাঃ • দৈনিক প্রয়োজনের ১/২ অংশ দানাদার এবং ১/৩ অংশ আঁশ জাতীয় খাদ্য দিতে হবে। প্রথমে দানাদার খাদ্য আলাদা আলাদা পাত্রে এবং পরে আঁশ জাতীয় খাদ্য একত্রে দিতে হবে। সকাল ৬-৯ টাঃ • পাতা সমেত গাছের ডাল ঝুলিয়ে দিতে হবে। দুপুর – ১২ টাঃ • ভাতের মাড় ১/৩ অংশ আঁশ জাতীয় খাদ্য সরবরাহ করতে হবে। বিকাল- ৪-৫ টাঃ • অবশিষ্ট দানাদার খাদ্য পূর্বের ন্যায় সরবরাহ করতে হবে। সন্ধ্যাঃ • সন্ধার পূর্বে ছাগল ঘরে তুলে দিনের অবশিষ্ট ১/৩ অংশ আঁশ জাতীয় খাদ্য সরবরাহ করতে হবে। ছাগলের কয়েকটি রোগ ও প্রতিকার পদ্ধতিঃ (১) ছাগলের ওলান প্রদাহ বা ম্যাসটাইটিস রোগের লক্ষণ ও প্রতিরোধঃ ছাগলের ওলান প্রদাহ বা ম্যাসটাইটিস রোগের লক্ষণ সমুহঃ • গায়ে জ্বর থাকে, ওলান ভীষণ গরম ও শক্ত হয়, বাটসহ ফুলে ওঠে। • বাট দিয়ে কখনও পাতলা আবার জমাট বাঁধা রক্ত মিশ্রিত দুধ আসে। • এক পর্যায়ে বাঁটগুলো অত্যন্ত শক্ত হয়ে যায় এবং দুধ বের হয় না। • অত্যধিক মারাক্তক অবস্থায় আক্রান্ত বাটে পচন ধরে ও এক পর্যায়ে বাট পচে খসে পড়ে। ছাগলের ওলান প্রদাহ বা ম্যাসটাইটিস রোগের প্রতিরোধঃ পরিষ্কার পরিচ্চন্ন স্থানে রাখতে হবে। বাটে সময় যাতে ক্ষত সৃষ্টি না হয় সেদিকে খেয়াল রাখতে হবে। আক্রান্ত হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে ডাক্তারের পরামর্শ মোতাবেক চিকিৎসা ব্যবস্থা নিতে হবে। (২) ছাগলের ক্ষুরা রোগের লক্ষণ ও প্রতিকারঃ ছাগলের ক্ষুরা রোগের লক্ষণঃ • ছাগল আক্রান্ত হলে কাপুনি দিয়ে জ্বর আসে। • মুখ থেকে লালা পড়তে থাকে। • মুখ ও পায়ে ফোস্কা দেখা দেয় এবং পরে ফেটে গিয়ে ১৮-২৪ ঘণ্টার মধ্যে ঘায়ে পরিণত হয়। ছাগলের ক্ষুরা রোগের প্রতিকারঃ সময়মত টিকা দিতে হবে রোগাক্রান্ত ছাগলকে পৃথক করে রাখতে হবে। মৃত্যু ছাগলকে দূরে পুঁতে রাখতে হবে। রোগাক্রান্ত ব্যবহৃত সামগ্রী গর্তে পুঁতে রাখতে হবে বা পুড়িয়ে ফেলতে হবে। (৩) ছাগলের পি পি আর রোগের লক্ষণ ও প্রতিরোধঃ বর্তমানে বাংলাদেশে ছাগল পালনের ক্ষেত্রে সবচেয়ে বড় বাঁধা হল পি পি আর। ছাগলের পি পি আর রোগের লক্ষণঃ • রোগের শুরুতে ১০৫-১০৭ ডিগ্রি ফাঃ জ্বর হয়, এর সাথে পাতলা পায়খানা শুরু হয়। • ছাগলের নাক দিয়ে স্লেম্মা নির্গত হয় এবং নাকে ও মুখে ঘা হয়। • নাসারন্ধের চারধারে স্লেম্মা জমে যায়। • গর্ভবর্তী ছাগলের গর্ভপাত ঘটে। • ছাগলের দাঁড়ানোর ভঙ্গি অনেকটা কুঁজো হয়ে যায়। ছাগলের পি পি আর রোগের প্রতিরোধঃ রোগ হওয়ার পূর্বে সুস্থও ছাগলকে এ রোগের টিকা দিয়ে রোগ প্রতিরোধ করাই সবচেয়ে উত্তম ব্যবস্থা। ব্যবস্থাপনা সংক্রান্ত পদক্ষেপ সমূহ পুরোপুরি মেনে চলতে হবে। বাচ্চার বয়স ৪ মাস হলেই এ রোগের টিকা দিতে হবে। (৪) ছাগলের বসন্ত রোগের লক্ষণ ও প্রতিরোধঃ ছাগলের সংক্রামক রোগগুলোর মধ্যে বসন্ত অন্যতম। এই রোগে ছাগলের চামড়া নষ্ট হয়ে যায়। ছাগলের বসন্ত রোগের লক্ষণঃ • মুখের চারপাশ ও গহ্বরে, কানে, গলদেশে, বাটে এবং পায়ু পথের চারপাশে বসন্তের গুটি দেখা দেয়। • দেহের তাপ বৃদ্ধি পায়, কিছু খায় না ও জাবর কাটে না। • ছাগলের পাতলা পায়খানার সাথে মিউকাস ও রক্তের ছিটা দেখা দেয়। • রোগ দ্রুত আশে পাশের ছাগলের মধ্যে ছড়িয়ে পড়ে। ছাগলের বসন্ত রোগের প্রতিরোধঃ রোগ হওয়ার পূর্বে সুস্থ ছাগলকে এ রোগের টিকা প্রতিরোধ করাই সবচেয়ে উত্তম ব্যবস্থা। ব্যবস্থাপনা সংক্রান্ত পদক্ষেপ সমূহ পুরোপুরি মেনে চলতে হবে। এছাড়াও ছাগলের যে কোন রোগের বা সমস্যার সৃষ্টি হলে আপনার নিকটস্থ পশু চিকিৎসকের সহিত যোগাযোগ করুন। ৫ টি ছাগী সমন্বিত খামারের বিভিন্ন খরচ, আয় ও নীট মুনাফার হিসাব সম্বলিত একটি ধারণাঃ মূলধনঃ ১ টি ছাগলের মূল্য ২৫০০/- টাকা হিসাবে ৫ টি ছাগলের মূল্য হবে ২৫০০x৫=১২৫০০/- টাকা। খরচঃ প্রতি ছাগীর প্রতিবার গর্ভধারণের শেষ ১ মাস ও বাচ্চা প্রসবের প্রথম ১ মাস দানাদার খাদ্যর প্রয়োজন হবে। ছাগী প্রতি দৈনিক ৩০০ গ্রাম খাদ্য সরবরাহ করা হলে ১ টি ছাগীর জন্য বৎসরে দানাদার খাদ্য প্রয়োজন হবে (৩০+৩০)x৩০০গ্রামx২=৩৬কেজি। প্রতি কেজি খাদ্য ১৫/- টাকা হলে ১ টি ছাগীর জন্য খাদ্য খরচ হবে ৫৪০/- টাকা। ৫ টি ছাগীর জন্য খাদ্য খরচ হবে =৫৪০x৫= ২,৭০০.০০ টাকা । আয়ঃ যদি ১ মাসের মধ্যে গর্ভবর্তী হলে ৬ মাস পরে ২ টি করে মোট ১০ টি বাচ্চা এবং বছরে শেষে আর ও ১০ টি বাচ্চা পাওয়া যাবে। ছাগল কেনার ১৫ মাস পরে ১০ টি বাচ্চা দৈনিক পূর্ণতা লাভ করবে এবং বাজারজাত করার উপযোগী হবে। প্রথমে ১৫ মাস পরে পূর্ণতা প্রাপ্ত ১০ টি ছাগল বিক্রি করা হবে। ১ টি ছাগলের দাম ১,৫০০.০০ টাকা হলে ১০ টি ছাগলের দাম হবে ২,০০০x১০=২০,০০০.০০ টাকা। নীট মুনাফাঃ ২০.০০০.০০-২.৭৫০.০০=১৭.২৫০.০০ টাকা। এই নীট মুনাফা থেকে ৫ টি ছাগীর দাম পরিশোধ করলে ও ১৫ মাস পরে ১৭.২৫০.০০-১২.৫০০.০০-৪৭৫০ টাকা সহ ৫টি ছাগী ও ১০ টি বাচ্চার মালিক হওয়া যায়। এভাবে স্বল্প পূঁজি ও অল্প শ্রমের মাধ্যমে বাড়তি আয়ের সাথে ধীরে ধীরে গড়ে উঠতে পারে বড় আকারের লাভজনক ছাগলের খামার। ... read more

Video Gallery

image