বা�ক�ড়া

  • ‘বাঁকুড়ায় ত্রিপুরার মুখ্যমন্ত্রী বিপ্লব দেবের নির্বাচনী জনসভার অনুমতি বাতিল করল প্রশাসন .নির্বাচন কমিশনে বিজেপি

    Newsbazar, ডেস্ক, 26 এপ্রিল : ত্রিপুরার মুখ্যমন্ত্রী বিপ্লব দেবের নির্বাচনী জনসভার জন্য  প্রশাসনিক অনুমতি না দেওয়ায় বাঁকুড়ার বিষ্ণুপুর সভা বন্ধ ক্রতে বাধ্য হল  বিজেপির বিষ্ণুপুর সাংগঠনিক জেলা সূত্রে এই খবর জানানো হয়েছে৷ বলা হয়েছে, শুক্রবার বেলা দশটায় বিষ্ণুপুর লোকসভা কেন্দ্রের প্রার্থী সৌমিত্র খাঁ-এর সমর্থনে স্থানীয় কাঁকিল্যা কোল্ড স্টোরেজ মাঠে ত্রিপুরার মুখ্যমন্ত্রীর জনসভা করার কথা ছিল। সেই মতো প্রয়োজনীয় প্রশাসনিক অনুমতি নেওয়ার পর সভার প্রস্তুতির কাজ শেষের মুখে। এই অবস্থায় বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় প্রশাসন সভা করার বিষয়ে আপত্তি জানিয়েছে বলে বিজেপি সূত্রে দাবি করা হয়েছে। বিজেপির বিষ্ণুপুরের সাংগঠনিক জেলা সভাপতি স্বপন ঘোষের দাবি রাজনৈতিক কারণেই শেষ মুহূর্তে এই সভা করার অনুমতি দিল না প্রশাসন। তিনি বলেন, শাসক দল বিজেপিকে ভয় পাচ্ছে। সেকারণেই বার বার দলের ‘হেভিওয়েট’ নেতাদের সভার অনুমতি দেওয়া হচ্ছে না। বিষয়টি তিনি দলের সর্বোচ্চ নেতৃত্বকে জানিয়েছেন, একই সঙ্গে নির্বাচন কমিশনের নজরেও বিষয়টি আনবেন বলে তিনি জানান।

  • বাঁকুড়ায় বিজেপি রাজ্য সভাপতি শাসক দল আশ্রিত দুষ্কৃতীদের হতে আক্রান্ত।

    ডেস্ক, ৬ই এপ্রিলঃ এর আগে বাঁকুড়ায়  মনোনয়ন প্ত্র তুলতে এসে বিজেপির  কর্মী-সমর্থকরা আক্রান্ত হয়েছিলেন শাসক দল আশ্রিত দুষ্কৃতীদের হাতে। এবার নেতারও আক্রান্ত হলেন।  বিজেপি রাজ্য সভাপতি শ্যামাপদ মন্ডলকে সহ অন্য নেতারাও আক্রান্ত হলেন। শ্যামাপদ মন্ডলকে গাড়ি থেকে বের করে বেদম পেটানো হল। কিল-চড়-লাথি-ঘুষি কোনওকিছুই বাদ গেল না। নৃশংসভাবে মারধর করাও হল। অন্য বিজেপি নেতা রাজু বন্দ্যোপাধ্যায় এবং সঞ্জয় সিংকেও তৃণমূল কংগ্রেস মারধর করেছে বলে অভিযোগ উঠেছে। এদিন শ্যামাপদ মন্ডলের নেতৃত্বে বিজেপির একটি প্রতিনিধি দল বাঁকুড়া সদর মহকুমাশাসকের দফতরে যান অবাধ ও শান্তিপূর্ণ নির্বাচনের দাবি জানাতে।  মহকুমাশাসকের  অফিস থেকে বাহরে বেরিয়ে আসতেই  হামলা চালায় দুষ্কৃতীরা। দফতরের বাইরেই গাড়ি থামিয়ে বেধড়ক মারধর করা হয়। এমনকী গাড়িও ভাঙচুর করে দেওয়া হয়েছে। বিজেপি কর্মীদের অভিযোগ, পুলিশের সামনেই গোটা ঘটনা ঘটলেও কেউ এগিয়ে আসেননি। যার ফলে দিকে দিকে বিজেপি তথা বিরোধীদের মার খেতে হচ্ছে বলে দাবি করা হচ্ছে।  

  • পঞ্চায়েত নির্বাচন কে কেন্দ্র করে হিংসার প্রথম বলি এক বিজেপি কর্মী বাঁকুড়ায়।

    ডেস্ক, ৪ই এপ্রিলঃ রাজ্যের উত্তর থেকে দক্ষিনের বিভিন্ন জায়গায়  পঞ্চায়েত নির্বাচনের মনোনয়ন ঘিরে হিংসা ও অশান্তির আগুন ইতিমধ্যেই ছড়িয়ে পড়েছে।  এদিন এই হিংসার  আগুনে  বাঁকুড়ার রানিবাঁধ অঞ্চলে মৃত্যু হল এক বিজেপি কর্মীর। এই বিজেপি কর্মীর নাম অজিত মুরমু ।  বিজেপি-র অভিযোগ,  তৃণমূলের ছোঁড়া বোমার আঘাতে মৃত্যু হয়েছে তাদের  কর্মী অজিত মুর্মুর। যদিও একই রাস্তায় হেটে তৃণমূল সেই অভিযোগ অস্বীকার করেছে।  সুত্র থেকে জানা যায় এর আগে , দক্ষিণ বাঁকুড়ার বিভিন্ন অঞ্চলে পঞ্চায়েত নির্বাচনের মনোনয়ন জমা দেওয়াকে কেন্দ্র করে উত্তেজনা ছড়ায় দিনভর। খাতরা, তালড্যাংরার মতো ব্লকে পরিস্থিতি বেশ উদ্বেগজনক ছিল।। সেখানে দফায় দফায় তৃণমূল ও বিজেপি সমর্থকদের মধ্যে চলে সংঘর্ষ। বিরোধীদের মনোনয়ন জমা না দিতে দেওয়ার অভিযোগ ওঠে তৃণমূলের বিরুদ্ধে। যদিও সংঘর্ষের তত্ত্ব মেনে নেননি জেলাশাসক মৌমিতা গোদরা বসু। তিনি এ সংক্রান্ত কোনও অভিযোগ পাননি বলে জানিয়েছেন। পুলিশ সুপার সুখেন্দু হীরা জানান সমস্ত অভিযোগ অনুযায়ী ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে সমস্ত ঘটনার। এদিকে, রাজ্যে পঞ্চায়েত নির্বাচন যতই কাছে আসছে ক্রমেই বাড়তে থাকছে রাজনৈতিক সংঘর্ষ । এদিন সকাল থেকে পঞ্চায়েতের মনোনয়ন জমা দেওয়া ঘিরে উত্তপ্ত হয়ে ওঠে হুগলি, রায়গঞ্জ , ২৪ পরগনার বিভিন্ন এলাকায়। এদিকে, জায়গায় জায়গায় হিংসরা ঘটনার বিরুদ্ধে সুপ্রিমকোর্টের দ্বারস্থ হতে চলেছে রাজ্য বিজেপি।