������������������

  • সারদা মামলায় দীর্ঘ বিলম্বের জন্য ক্ষুব্ধ সুপ্রিম কোর্টের ডিভিশান বেঞ্চ মামলাকে হাইকোর্টে সরিয়ে দিল

    Newsbazar, ডেস্ক, ১৬ই জুলাইঃ সারদা মামলায় সিবিআই-এর  তদন্তের অগ্রগতি নিয়ে ক্ষুব্ধ সর্বোচ্চ আদালত মামলাকে হাইকোর্টে নিয়ে যাওয়ার আদেশ দিল  সুপ্রিম কোর্টের প্রশ্ন প্রায় ৪ বৎসর অতিক্রান্ত তবুও কেন তদন্তে এত বিলম্ব। প্রসঙ্গত  ২০১৪ সালে সারদা নিয়ে তদন্তের নির্দেশ দেওয়া হয়েছিল ।এই মামলা নিয়ে  সিবিআই এবং কলকাতা পুলিশের মধ্যে বিরোধ কেন সেই  প্রশ্নও   আদালত তুলেছে । রাজ্যের সিপিএম এবং কংগ্রেসের তরফে বারবার আদালতে অভিযোগ করা হচ্ছে সারদা মামলা নিয়ে। বিষয়টি নিয়ে মমতা-মোদীর সমঝোতারও অভিযোগ করেছে তারা। কেননা এই মামলায় শাসকদলের প্রায় একডজন নেতানেত্রীর নাম এই মামলায় জড়িয়ে গিয়েছে। তবে তদন্তের অগ্রগতি নিয়ে যে সর্বোচ্চ আদালতও সন্তুষ্ট নয়, তা ফের একবার বুঝিয়ে দেওয়া হয়েছে সোমবার। আদালত খোলার পর সোমবার বিচারপতি অরুণ মিশ্র এবং বিচারপতি আব্দুল নাজিরের ডিভিশন বেঞ্চে শুনানি শুরু হয়। সূত্রের খবর অনুযায়ী, সিবিআই-এর তরফে কলকাতা পুলিশের বিরুদ্ধে তদন্তে অসহযোগিতার অভিযোগ আনা হয়। যদিও এই ঘটনায় ক্ষুদ্ধ সর্বোচ্চ আদালত। সিবিআই-এর তরফে তদন্তের জন্য বারবার সময় চাওয়াতেও ক্ষুব্ধ সর্বোচ্চ আদালত। বিগত ২০১৪ সালে সুপ্রিম কোর্টের বিচারপতি টিএস ঠাকুর সারদা মামলায় সিবিআই তদন্তের নির্দেশ দেন। প্রায় চার বছর পেরিয়ে গেলেও তদন্তের কাজ এগোয়নি বলে অভিযোগ করে মামলা করেছিলেন সুব্রত চট্টরাজ।  

  • মহিলা চিকিত্সকের মৃত্যুতে নয়া মোড়

    news bazar24: গত মে মাসে চান্দ্রেয়ী দাস চৌধুরী নামে মহিলা চিকিত্সকের মৃত্যুতে দানা বাঁধছে রহস্য। কলকাতা সাদার্ন অ্যাভিনিউতে মহিলা চিকিত্সকের মৃত্যু হয়, ময়না তদন্তের রিপোর্ট এসেছে ২ মাস পর। তাতে দেখা যাচ্ছে শ্বাস রোধ করে মাথায় ভারী কিছু দিয়ে আঘাত করে খুন করা হয়েছে চান্দ্রেয়ীকে। ঘটনায় শনিবার খুনের মামলা রুজু করেছে পুলিস।গত মে মাসে সাদার্ন অ্যাভিনিউর বাড়ি থেকে অচেতন অবস্থায় উদ্ধার করা হয় পেশায় চিকিত্সক ৪৮ বছর বয়সী চান্দ্রেয়ী দাস চৌধুরীকে। তাঁকে এসএসকেএম হাসপাতালে নিয়ে গেলে মৃত বলে দাবি করেন চিকিত্সকরা। প্রাথমিকভাবে একে স্বাভাবিক মৃত্যু বলেই মনে করেছিলেন সবাই।ঘটনার প্রায় ২ মাস পর গত ১০ জুলাই পুলিসের হাতে পৌঁছয় ময়নাতদন্তের রিপোর্ট। তাতে স্পষ্ট করে উল্লেখ করা হয়েছে মৃত্যুর কারণ। পুলিসের তরফে জানানো হয়েছে, ময়নাতদন্তের রিপোর্ট অনুসারে মাথায় ভারী কিছুর আঘাত করে অচেতন করার পর শ্বাসরোধ করে খুন করা হয়েছে চান্দ্রেয়ী দেবীকে। সাদার্ন অ্যাভিনিউর বাড়িতেই থাকতেন চান্দ্রেয়ী দেবী। বাড়িটিতে রয়েছে চারটি দরজা। তার মধ্যে একটি দরজা চান্দ্রেয়ীদেবীর মৃত্যুর কয়েকমাস আগে থেকেই বন্ধ ছিল। চান্দ্রেয়ী দেবীর দেহ উদ্ধারের সময় বাকি তিনটি দরজার একটি খোলা ছিল। এতেই সন্দেহ দানা বেঁধেছে তদন্তকারীদের মনে। পরিচিত কেউ অত্যন্ত সুপরিকল্পিতভাবে খুন করেছে চান্দ্রেয়ী দাস চৌধুরীকে , তদন্তকারীরা মনে করছেন। সেক্ষেত্রে সন্দেহের তালিকায় সবার ওপরে রয়েছে তাঁর ভাইয়ের নাম। পরিবার সূত্রে জানা গিয়েছে, ভাইয়ের সঙ্গে সম্পর্ক মোটেও ভাল ছিল না চান্দ্রেয়ীদেবীর। বাড়ি বিক্রি নিয়ে দু'জনের মধ্যে দীর্ঘদিন ধরে মতানৈক্য় চলছিল।

  • “আগামী দিনে মমতাই দেশের ভবিষ্যত্” : তৃণমূলের কর্মীসভায় ফের স্বমহিমায় মদন মিত্র

    news bazar24: তৃণমূলের কর্মীসভায় ফের স্বমহিমায় মদন মিত্র। কামারহাটিতে একেবারে পুরনো ফর্মেই দেখা গেল হেভিওয়েট এই তৃণমূল নেতাকে। একাধারে যেমন মোদীকে ‘গোধরা হত্যাকান্ডের নায়ক’ বলে কটাক্ষ করলেন তেমনই অন্যদিকে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের নেতৃত্বে দিল্লি জয়ের আশ্বাসও দিয়ে গেলেন প্রাক্তন মন্ত্রী। তবে, মদনের এদিনের বক্তব্যে মিশেছিল তীব্র যন্ত্রণাও। ২০১৬ সালের ফলের পুনরাবৃত্তি যেন আর না হয়, সেজন্য সকল কর্মীকে তত্পর হওয়ার অনুরোধ করলেন তিনি। মদন মিত্রকে এও বলতে শোনা গেল, “আমার যা রেজাল্ট হয়েছে (কামারহাটি বিধানসভায় হার) এবার যদি তার পুনরাবৃত্তি হয়, বা তার ধারের কাছেও যায়, তাহলে কলসি বেঁধে ডুবে মরতে হবে। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় কলসি আর দড়ি দেবে। তিনি বলবেন বাঁচার কোনও দরকার নেই। ডুবে মরা ছাড়া আর কোনও উপায় থাকবে না”। কামারহাটি বিধানসভায় যেভাবে তৃণমূল ছাড়ার হিড়িক উঠেছে, তা সামাল দিতে ভোকাল টনিকও দিয়েছেন এই নেতা। ‘তৃণমূলের একনিষ্ঠ কর্মী’ মদন মিত্র বলেন, শেষ রক্ত বিন্দু পর্যন্ত মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সঙ্গেই থাকবেন তিনি। বহু লড়াইয়ে পোড় খাওয়া মদন বলেন, ২টি আসন জিতে বিজেপি যদি আজ দিল্লি দখল করতে পারে, তাহলে তৃণমূলের স্বপ্ন দেখাতে আপত্তি কোথায়? এরপরই ভরসা যোগাতে তিনি বলেন, “মনে রাখবেন এই মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় মাত্র ১টি লোকসভা আসন জিতে ৩৪ বছরের সিপিএমের বিরুদ্ধে লড়াই করেছেন এবং ক্ষমতায় এসেছেন”। প্রত্যয়ী মদন মিত্র আরও বলেন, “আগামী দিনে মমতাই দেশের ভবিষ্যত্”।

  • মঙ্গলবার থেকে সার্কাস অ্যাভেনিউয়ের কড়েয়া রোড ও বেকবাগান রো ক্রসিং অঞ্চলের বেশ কিছু রাস্তা বন্ধ থাকবে।

    news bazar24: ইস্ট-ওয়েস্ট মেট্রোর কাজ শুরু হচ্ছে। সেই কারণে ওই অঞ্চলে একটা বড় সময়ের জন্য যানচলাচল নিয়ন্ত্রণ করতে চলেছে কলকাতা পুলিস। কলকাতা পুলিস সূত্রে জানা গেছে, মঙ্গলবার থেকে সার্কাস অ্যাভেনিউয়ের কড়েয়া রোড ও বেকবাগান রো ক্রসিং থেকে দক্ষিণ দিকের একটি অংশ তিন মাসের জন্য বন্ধ রাখা হবে। এরজেরে আগামী সপ্তাহে থেকে ওই এলাকা ও সংলগ্ন রাস্তাগুলিতে যানজট হওয়ার আশঙ্কা থাকছে।  তবে, পরিস্থিতি স্বাভাবিক রাখতে বিকল্প ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে বলে জানিয়েছে পুলিস। প্রাথমিক পরিকল্পনা অনুযায়ী ব্রোবোর্ন রোড ধরে আসা দক্ষিণ কলকাতামুখী বাস-মিনিবাস একেবারে পূর্ব দিক ঘেঁসে দক্ষিণ কলকাতার দিকে যেতে পারবে।  অন্যদিকে বিবি গাঙ্গুলি স্ট্রিট হয়ে বাবুঘাটমুখী বাস-মিনিবাস দক্ষিণ দিক দিয়ে ওল্ড কোর্ট হাউস স্ট্রিট ,নেতাজি মূর্তির দিক দিয়ে কিংসওয়ে, ওকল্যান্ড ও স্ট্র্যান্ড রোডের দিকের যেতে পারবে। উল্লখ্য, শহরে যানজট মুক্ত করতে আরও বেশি সংখ্যক ট্রাফিক পুলিশ নিয়োগ করবে প্রশাসন ।

  • বিজেপিতেও শুরু বিদ্রোহ, খোদ জেলা সভাপতির বিরুদ্ধেই বিদ্রোহ দলের নেতা-কর্মীদের

    Newsbazar24, ডেস্ক, ৮ জুলাইঃ বিজেপিতেও শুরু হয়েছে বিদ্রোহ। খোদ জেলা সভাপতির বিরুদ্ধেই বিদ্রোহ ঘোষণা করলেন দলের নেতা-কর্মীরা।  বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষের কাছে বিজেপির হুগলি জেলা সভাপতি সুবীর নাগের বিরুদ্ধে অভিযোগ জানান নেতা-কর্মীরা। তাঁদের অভিযোগ, তৃণমূলের সঙ্গে যোগযোগ রেখে চলেন সভাপতি। নেতা-কর্মীদের কথা শোনেন না। হুগলি জেলা বিজেপি নেতাদের আরও অভিযোগ, তৃণমূলের বিরুদ্ধে কোনও অভিযোগ গ্রাহ্য-র মধ্যে আনেন না সুবীরবাবু। বিগত  পঞ্চায়েত নির্বাচনের সময়ে নিচুতলার নেতা-কর্মীরা মার খেযেছে। আবার  তাদের  বিরুদ্ধেই মিথ্যে মামলা হয়েছে। কিন্তু ডেকেও জেলা সভাপতিকে পাশে পাওয়া যায়নি বলে অভিযোগ নেতা কর্মীদের । বিজেপির জেলা নেতৃত্বের একটা অংশের অভিযোগ, বিজেপি জেলা সভাপতি সুবীর নাগের গোপন আঁতাত রয়েছে তৃণমূল কংগ্রেসের সঙ্গে। তিনি দু-নৌকায় পা দিয়ে চলছেন। তা শুনে দিলীপ ঘোষ বলেন, আপনাদের অভিযোগ  খতিয়ে দেখা হবে। যদি ঘটনা সত্যি হয় তবে দলের তরফে তাঁর বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেওয়া হবে।  আমাদের দলে সভাপতির বিরুদ্ধে অভিযোগ জানানো  যায় ।  কারণ আমাদের  দলে সবার কথা বলার অধিকার রয়েছে। তিনি আরও বলেন, বিজেপি গণতন্ত্রে বিশ্বাসী। বিজেপি একাই লড়ে বাংলায়  পরিবর্তন আনবে। আমাদেরকে কংগ্রেস, সিপিএম, তৃণমূল সকলের বিরুদ্বে লড়াই করতে হচ্ছে। আমরা তৈরি ওদের বিরুদ্ধে লড়াই করার জন্য। পাশাপাশি তিনি  বলেন, আমরা কাউকে শত্রু মনে করি না, যাঁরা ইচ্ছা করবে বাংলায় পরিবর্তন আনার লড়াইয়ে সকলেই  আমাদের মিত্র হতে পারেন। আমরা সেইসব মিত্রদের আহ্বান জানাচ্ছি।      

  • রাজ্যের পঞ্চায়েত নির্বাচন নিয়ে আগামীকাল সুপ্রিম কোর্টের রায়দান।

    Newsbazar24,ডেস্ক,৩ জুলাইঃ রাজ্যের  পঞ্চায়েত নির্বাচন নিয়ে বিরোধী দলগুলির করা মামলায় পাশাপশি  বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় জয়ী আসন নিয়ে মামলায় সুপ্রিম কোর্ট জানিয়ে দিল আগামীকাল রায় দেওয়া হবে। আজ এই মামলার রায়দান করার কথা ছিল। এদিন সুপ্রিম কোর্টে পঞ্চায়েত মামলার শুনানি ছিল। সেই শুনানিতে নির্বাচন কমিশনকে রীতিমত  ভর্ৎসনা করে সুপ্রিম কোর্ট জানায়, নির্বাচন কমিশনের দাখিল করা রিট   পিটিশানে জানানো হয়েছে , বেশ কিছু জেলায় মনোননয়ন নিয়ে সমস্যা তৈরি হয়েছিল,  এবং মনোনয়ন দিতে বাধা দেওয়া হচ্ছে। তবু সেইসব জায়গায় মনোনয়ন পেশের ব্যাপারে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করতে পারেনি কমিশন। বিস্ময় প্রকাশ করে বিচারপতি জানান, ঠিকমত ব্যবস্থা নিলে পঞ্চায়েতে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় জয়ের সংখ্যাটা ৩৪ শতাংশে পৌঁছত না।  বিগত কয়েকটি মামলা থেকে শিক্ষা নিয়েই নির্বাচন কমিশন এবার মুখোমুখি শীর্ষ আদালতে। এর আগে সিপিএমের দায়ের করা মামলায় ই-মেলে মনোনয়ন জমা দেওয়াকে বৈধ বলে রায় দিয়েছিল কলকাতা হাইকোর্টের ডিভিশন বেঞ্চ। এই রায়ের পরিপ্রেক্ষিতে সুপ্রিম কোর্টে আবেদন করেছিল রাজ্য নির্বাচন কমিশন। ১০ মে হাইকোর্টের রায়ের ওপর স্থগিতাদেশ জারি করেছিল সুপ্রিম কোর্টে। এবার লড়াই বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় জয়ী ৩৪ শতাংশ আসন নিয়ে। এই ৩৪ শতাংশ আসনে ফল ঘোষণার ওপর স্থগিতাদেশ জারি করে বাকি নির্বাচন প্রক্রিয়া সম্পন্ন করতে বলেছিল সুপ্রিম কোর্ট। এদিন সেই মামলার শুনানিতে সুপ্রিম কোর্ট নির্বাচন কমিশনের নিন্দা করে জানিয়ে দেয় রায়দান করা হবে বুধবার। এখন বুধবারের সুপ্রিম-রায়ের দিকেই তাকিয়ে রাজ্য। তবে সুত্রের খবর দেশের শীর্ষ আদালতে পঞ্চায়েত মামলায় ধাক্কা খেতে পারে  নির্বাচন কমিশন ও রাজ্য সরকার তথা শাসক দল তৃণমূল কংগ্রেসও। এখন আগামীকাল রায়ের দিকে তাকিয়ে আছে রাজ্যের রাজনৈতিক মহল ।  

  • পঞ্চায়েত ভোটে হারানো জনসমর্থন পুনুরুধ্বার-এর জন্য প্রশাসনের পরে সাংগঠনিক স্তরে ব্যপক রদবদল শাসক দলের।

    Newsbazar24, ডেস্ক,২ জুলাইঃ এক সময় মুখ্যমন্ত্রীর সাধের জঙ্গল মহল হাসছিল কিন্তু সেই সাধের জঙ্গল মহলে পঞ্চায়েত ভোটে খারাপ ফলাফলের জঙ্গল মহলে প্রলেপ দেওয়া শুরু হল শাসকদলে । এর আগে তৃনমূল নেত্রীর রোষের মুখে পড়ে ঝাড়গ্রামের আটটি ব্লকের বিডিওকে বদলি করে দেওয়া হয়েছিল । এবার তৃণমূল কংগ্রেসের  আটটি ব্লকের মধ্যে ছ-টি ব্লকেরই তৃণমূল সভাপতি পরিবর্তন করা  হল। সোমবার মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের কালীঘাটের বাড়িতে দলীয় তরফে একটি বৈঠকের পরই এই কঠিন সিদ্ধান্ত নিয়ে নেয় তৃণমূল নেতৃত্ব। রাজনৈতিক মহলের অনুমান  পঞ্চায়েত ভোটে  জনসমর্থন পুনুরুধ্বার-এর জন্য এই   রদবদল ।  প্রথম প্রশাসনিক স্তরে রদবদল করেছে তৃণমূল সরকার। এবার রদবদল হল শাসক দলের অন্দরে। সরিয়ে দেওয়া হল দলের ব্লক সভাপতিদেরই। সভাপতি বদল করা হয়েছে নয়াগ্রাম, বিনপুর-১, বিনপুর-২, জামবনি, সাঁকরাইল ও ঝাড়গ্রাম ব্লকে। এই ছয় ব্লকের সভাপতি হয়েছেন যথাক্রমে মুলুকচাঁদ হেমব্রম, শ্যামল মাহাতো, বুবাই মাহাতো, নিশীথ মাহাতো, সোমনাথ মহাপাত্র ও রবীন্দ্রনাথ মাহাতো। এদিন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের ডাকে বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন পার্থ চট্টোপাধ্যায়, সুব্রত বক্সি, মানস ভুঁইয়া, সৌমেন মহাপাত্র ও জেলা তৃণমূল সভাপতি অজিত মাইতি প্রমুখ। এই বৈঠকেই সিদ্ধান্ত হয় ছটি ব্লকের সভাপতি বদল করার। সেইসঙ্গে অজিত মাইতিকে জেলার সাংগঠনিক কাজে সহায়তা করবেন সাংসদ মানস ভুঁইয়া ও মন্ত্রী সৌমেন মহাপাত্র। এই তিনজন আবার পশ্চিম মেদিনীপুরের সংগঠনও দেখবেন বলে নির্দেশ দিয়েছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। মোট কথা পঞ্চায়েত ভোটে ধাক্কা খাওয়ার পর জঙ্গলমহলে বিশেষ দৃষ্টি দিয়েছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তিনি জঙ্গলমহলের সংগঠন নতুন করে সাজাতে চাইছেন। এর আগে নবান্নে বিজ্ঞপ্তি জারি করে ঝাড়গ্রাম জেলার গোপীবল্লভপুর ১ ও ২, বিনপুর ১ ও ২, জামবনি, নয়াগ্রাম, সাঁকরাইল ও ঝাড়গ্রাম ব্লকের বিডিওদের বদলির সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। এর মধ্যে দুটি পঞ্চায়েত সমিতির দখল নিয়েছে বিজেপি। এই দুটি সমিতি হল গোপীবল্লভপুর ১ ও সাঁকরাইল। এই বদলির কারণ হিসেবে বলা হয়েছে, সরকারে বিভিন্ন উন্নয়নমূলক কাজ ও পরিষেবা প্রদানের ব্যাপারে বিডিও-র তরফে গাফিলতি। এবার দলের সাংগঠনিক কাজে গাফিলতির জন্য বদলি করা হল ব্লক সভাপতিদের। এর আগে বাঁকুড়াতেও রদবদল করা হয় ব্লক সভাপতিদের। সুষ্ঠু গনতান্ত্রিক পক্রিয়া চলতে থাকলে এই পরিবর্তন কতখানি জন  সমর্থন ফিরিয়ে দেবে তা আগামীদিন বলবে।    

  • অভিনেতা দেব এর হাত ধরে "ক্লাস রুম"ছবির মিউজিক লঞ্চ:

    news bazar24: -কলকাতা,রাজকুমার দাস:---- শনিবার কলকাতার এক পাঁচ তারা হোটেলে অভিনেতা দেব এর হাত দিয়ে উন্মুক্ত হলো বাংলা ছবি "ক্লাসরুম"- এর সঙ্গীত।  এই ছবির পরিচালক রাজীব কুমার, গীতিকার- প্রিয় চট্টোপাধ্যায়, সংগীত পরিচালনা করেছেন দেব সেন, ছবির অসাধারন কয়েকটি গান আছে গান গেয়েছেন প্রিতম কুমার, ভিকি এ. খান, সামিউন সরকার, গোপিকা গোস্বামী।  ছবিতে নায়কের ভূমিকায় অভিনয় করেছেন সোহেল, নায়িকার ভূমিকায় অভিনয় করেছে কুয়াশা বিশ্বাস। এছাড়াও ছবিতে দেখা যাবে কৌশিক সেন, আর্য দাসগুপ্ত, দেবরাজ মুখার্জী, রুদ্রনীল ঘোষ, খরাজ মুখার্জী আরো অনেকে। ছবিটি মুক্তি পাচ্ছে আগামী ১৩ই জুলাই।

  • ছাত্রছাত্রী ভর্তি নিয়ে কলেজে কলেজে লাগামছাড়া 'তোলাবাজির বিরুদ্বে অবশেষে সরব মুখ্যমন্ত্রী

    Newsbazar24, ডেস্ক, ৩০শে জুন; অবশেষে মুখ্যমন্ত্রী স্বীকার করে নিলেন কলেজে কলেজে ভর্তিতে তোলাবাজি চলছে। বেশ কিছুদিন ধরে সংবাদমাধ্যমে বারবার  প্রকাশিত হচ্ছে কলকাতা এবং শহরতলী সংলগ্ন এলাকার কলেজগুলিতে ভর্তির ব্যপারে শাসকদলের ছাত্রনেতাদের দাপাদাপি,ভর্তি তালিকাকে নাম  থাকা সত্ত্বেও কলেজে প্রবেশ করতে না দেওয়া, কলেজের বাহিরে ভর্তির জন্য ছাত্রনেতাদের সাথে রফা এই ধরনের গুরুতর অভিযোগ বারেবারে আসছিল। শিক্ষামন্ত্রী এতদিন ধরে অভিযোগের কোন আমল দেননি। মুখ্যমন্ত্রী আজ জানিয়েছেন কলেজের ভর্তিতে ছাত্রনেতাদের তোলাবাজি আর  বরদাস্ত করা হবে না। অভিভাবক ও ছাত্রছাত্রীদের কাছে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়  আবেদন করে বলেছেন ভর্তিতে বাধা পেলেই পুলিশকে জানান। কলকাতার পুলিশ  কমিশনারকেও বিষয়টি নিয়ে ব্যবস্থার নির্দেশ দিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী। এ ব্যপারে কলেজে কলেজে অনলাইনে ফর্মফিলাপের সময় থেকেই অভিযোগ আসছিল। এমন কি মুখ্যমন্ত্রী নেতাজি ইন্ডোরে বিষয়টি নিয়ে হুশিয়ারী  দেওয়ার পরও যে কাজ হয়নি তা প্রমাণিত হয়ে যায় গড়িয়ার দীনবন্ধু এন্ড্রুজ কলেজে ভর্তি নিয়ে তৃণমূলের দুপক্ষের লড়াইয়ে। গত কয়েকদিন  ধরে  একের পর এক কলেজে ঘটনা ঘটে চলেছে । কলেজগুলির মধ্যে রয়েছে, আশুতোষ কলেজ, সুরেন্দ্রনাথ কলেজ, উত্তর কলকাতার শ্রীশচন্দ্র কলেজ, কিংবা বারাসত গর্ভমেন্ট কলেজ। কলেজগুলিতে তালিকায় নাম থাকা সত্ত্বেও, নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে গেলেও বলা হচ্ছে ভর্তি হয়ে গিয়েছে। কীভাবে সম্ভব হচ্ছে, তা নিয়ে উঠছে প্রশ্ন। ছাত্রছাত্রী এবং অভিভাবকরা জানাচ্ছেন, বিষয়ের ভিত্তিতে, কলেজের নাম অনুযায়ী টাকাও বেড়ে যাচ্ছে। অভিযোগ, শহরে বিভিন্ন কলেজে ভর্তি হতে গেলে ২০ হাজার থেকে শুরু করে একলক্ষ কুড়ি হাজার টাকা পর্যন্ত ঘুষ চাওয়া হচ্ছে কলেজের ছাত্র সংসদগুলির সদস্যদের তরফে। ছাত্র ছাত্রীরা যখন কাকুতিমিনতি করছে, ভর্তির জন্য টাকা কম করতে, তখন সেইসব ছাত্রনেতারা জানাচ্ছে, টাকা দিতে হবে অনেককে। তাই টাকার অঙ্ক কম করা যাবে না।সংবাদমাধ্যমে বারেবারে  ভর্তিতে ছাত্র সংসদ কিংবা ছাত্র নেতাদের তরফে ঘুষ চাওয়ার কথা প্রকাশ্যে আসতেই শাসকদল মুখরক্ষার তাগিদে  নড়েচড়ে বসেছে প্রশাসন। টাকা চাওয়ার অভিযোগে, শুক্রবার উত্তর কলকাতার শ্রীশচন্দ্র কলেজের দুই ছাত্র লালসাগর গুপ্ত এবং রীতেশ জয়সওয়ালকে গ্রেফতার করে পুলিশ। এর আগে বারাসত গর্ভমেন্ট কলেজ থেকেও একজন ছাত্রনেতাকে গ্রেফতার করা হয়েছিল। সরকারের তরফে মুখ্যমন্ত্রী কিংবা শিক্ষামন্ত্রী বারবার বলছেন অভিযোগ এলেই কড়া ব্যবস্থা নেওয়া হবে। কিন্তু সেই বার্তা যে কাজ করছে না এইসব ঘটনা থেকেই পরিষ্কার। শ্রীশচন্দ্র কলেজের সামনে থাকা ছাত্র নেতারা দোষ চাপাচ্ছে এবিভিপির ওপর। আদৌ যেখানে এবিভিপির কোনও অস্তিত্বই নেই। ইউনিয়নের ব্যাজ পরে কলেজের সামনে ভিড় নিয়ন্ত্রণ করছেন ছাত্র নেতারা। অভিযোগ উঠছে, খবর নেওয়ার জন্য কলেজের অফিস ঘর পর্যন্ত ঢুকতে দেওয়া হচ্ছে না ছাত্রছাত্রী কিংবা অভিভাবকদের। কিছু জিজ্ঞাসা করলেই, রফার প্রস্তাব দিচ্ছে ছাত্র নেতারা। অভিযুক্ত ছাত্রনেতাদের আবার তৃণমূল ছাত্র পরিষদের সভানেত্রী জয়া দত্ত কিংবা তৃণমূল নেতা শান্তনু সেনের সঙ্গেও দেখা যাচ্ছে। যদিও এবিষয়ে তৃণমূল ছাত্র পরিষদের সভানেত্রী জয়া দত্ত জানিয়েছেন, ছাত্র সংগঠনের প্রধান হিসেবে কারও সঙ্গে তার ছবি থাকতেই পারে। তবে দোষীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে । অভিযুক্তদের দল থেকে বহিষ্কার করা হবে বলে জানিয়েছেন তিনি। বিরোধীরা বলছেন, দলগত ভাবে এই  ঘটনায় রাশ টানতে  না পেরে পুলিশ কমিশনার কে ব্যবস্থার নির্দেশ দিচ্ছেন মুখ্যমন্ত্রী।মুখ্যমন্ত্রীর এই উদ্যোগ কতটা সফল হবে তা প্রশ্ন থেকেই গেল কারন  সর্বক্ষেত্রে তৃনমূল ছাত্র পরিষদ ঘটনার সাথে প্রত্যক্ষ ভাবে জড়িত।        

  • দক্ষিণ কলকাতার বিস্তীর্ণ এলাকায় প্রায় ২৪ ঘণ্টা জল সরবরাহ বন্ধ থাকবে

    news bazar24: কলকাতা পুরসভার পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, কালীঘাট, রানিকুঠি, গড়ফা, বেহালা, বাঁশদ্রোণী, গান্ধী ময়দান, গলফগ্রিন, সেনপল্লি, প্রফুল্ল পার্ক, চেতলা এবং পর্ণশ্রী বুস্টার পাম্পিং স্টেশন থেকে পানীয় জল সরবরাহ বন্ধ রাখা হবে। এরফলে বেহালা, গার্ডেনরিচ, যাদবপুর, টালিগঞ্জ, ৮, ৯, ১০, ১১, ১২, ১২, ১৩, ১৪, ১৫ এবং ১৬ নম্বর বরোর কিছু অংশে জল সরবরাহ বন্ধ থাকবে ২৪ ঘণ্টা।গার্ডেনরিচ পাম্পিং স্টেশনে বিভিন্ন কাজের জন্য দক্ষিণ কলকাতার বিস্তীর্ণ এলাকায় শনিবার সকাল থেকে রবিবার সকাল পর্যন্ত, প্রায় ২৪ ঘণ্টা, জল সরবরাহ বন্ধ থাকবে। এই সময়কালের মধ্যে পাইপে ফাটল মেরামতি, ভালভ প্রতিস্থাপন এবং রক্ষণাবেক্ষণ সহ একাধিক কাজ করা হবে। আর এই জন্যই শনিবার সকাল দশটা থেকে রবিবার সকাল পর্যন্ত কোনও পানীয় জল সরবরাহ হবে না।

  • মায়েরও ব্রেন ডেথের খবর পেতেই আত্মহত্যা করল কলেজছাত্রী মেয়ে

    news bazar24: মায়েরও ব্রেন ডেথের খবর পেতেই গলায় ওড়নার ফাঁস লাগিয়ে আত্মহত্যা করল কলেজছাত্রী মেয়ে।চাঞ্চল্যকর এই ঘটনাটি ঘটেছে শনিবার রাতে কলকাতার তিলজলা এলাকায়। ১৯ বছরের উত্তরা চৌধুরী হেরম্বচন্দ্র কলেজের বাণিজ্য বিভাগে প্রথম বর্ষের ছাত্রী ছিল।বাবা নেই, কিডনিজনিত সমস্যার কারণে ২০১৪ সালে মৃত্যু হয় উত্তরার বাবার।উত্তরার মা জুলি চৌধুরী স্বামীকে বাঁচাতে কিডনি দান করেছিলেন । চেষ্টা বিফল হয়, মৃত্যু হয় উত্তরার বাবার। কিডনি দান করার পর থেকেই অসুস্থ হয়ে পড়েন জুলি চৌধুরী। বিগত ৪ বছর ধরে বিভিন্ন শারীরিক সমস্যায় ভুগছিলেন তিনি। বৃহস্পতিবার লিভারের সমস্যা নিয়ে বেলভিউতে ভর্তি হন উত্তরার মা।শুক্রবার রাত পৌনে ১০টা নাগাদ চিকিত্সকরা জানান, ব্রেন ডেথ হয়েছে জুলি চৌধুরীর।এই খবর পাওয়ার পরই ১০টা নাগাদ নিজের ঘরে ঢুকে দরজা বন্ধ করে গলায় গোলাপি রঙের ওড়নার ফাঁস লাগিয়ে আত্মহত্যা করে উত্তরা।তারপর দরজা ভেঙে ঝুলন্ত দেহ উদ্ধার করেন আত্মীয়-পরিজনরা। এরপর ক্যালকাটা ন্যাশনাল মেডিক্যাল কলেজে নিয়ে যাওয়া হলে, চিকিত্সকরা উত্তরাকে মৃত বলে ঘোষণা করেন।মায়ের মৃত্যুর খবর পেতেই অবসাদগ্রস্ত হয়ে পড়ে উত্তরা। কোনও ভাইবোন না থাকায় একদম নিঃসঙ্গ হয়ে যায় সে।সেকারণেই এই আত্মহত্যা বলে প্রাথমিক তদন্তের পর মনে করছে পুলিশ। 

  • কেন্দ্রীয় তদন্তকারী সংস্থা ইডি রোজভ্যালির সমস্ত সম্পত্তি বাজেয়াপ্ত করার পথে

    Newsbazar24 ডেস্ক,২৯শে জুনঃ সিবিআইয়ের পর আর এক কেন্দ্রীয় তদন্তকারী সংস্থা ইডি সারদা-নারদের পর রোজভ্যালি-কাণ্ডের তদন্তেও এবার গতি আনার জন্য সক্রিয়  উদ্যোগ নিয়েছে। সুত্রের খবর লোকসভা ভোট যত এগিয়ে আসছে, রাজ্যের আর্থিক দুর্নীতি মামলায়  সক্রিয় হয়ে উঠছে সিবিআই ও ইডি। ইডি তরফে জানা গিয়েছে, রোজভ্যালির সমস্ত সম্পত্তি বাজেয়াপ্ত করার জন্য ব্যবস্থা  নিচ্ছেন গোয়েন্দারা। ইতিমধ্যেই এক বিশেষ পরিকল্পনা নেওয়া হয়েছে ইডির পক্ষ থেকে।  ইডি-র গোয়েন্দারা পৃথক পৃথক  দলে ভাগ হয়ে রাজ্যের বিভিন্ন জায়গায় অভিযান চালিয়ে  রোজভ্যালির সম্পত্তি বাজেয়াপ্ত  প্রক্রিয়া শুরু করবে ইডি। দক্ষিণ কলকাতা ও কলকাতা শহরতলির সোনারপুর, বাগুইআটি, পূর্ব মেদিনীপুরের মন্দারমণি-সহ রাজ্যের বিভিন্ন্ জায়গায়  রোজভ্যালির হোটেল, রিসর্ট, জমি, বাড়ি. এমনকী সোনার গয়নার  দোকানও রয়েছে। সেই সমস্ত সম্পত্তি বাজেয়াপ্ত করতে তৎপর হচ্ছে ইডি। প্রসঙ্গত  সম্প্রতি সারদা ও নারদ মামলায় সিবিআইও সক্রিয় হয়ে উঠেছে। ইতিমধ্যে তদন্তে বিলম্বের জন্য তদন্তকারী আধিকারিকদের সরিয়ে দেওয়া হয়েছে।

  • রাজ্য বিজেপির পাশে আমরা আছি। এমনটাই জানিয়ে দিল্লি উড়ে গেলেন অমিত

    News bazar 24 : পশ্চিম বঙ্গে যা হচ্ছে রাজ্য তার সব খবর কেন্দ্রের কাছে আছে। আপনাদের লড়াই ঠিক পথে এগোচ্ছে। আপনারা এগিয়ে চলুন, আমরা আপনাদের সাথে আছি। বিজেপি নেতৃত্বকে এমনটাই জানিয়ে দিল্লি উড়ে গেলেন বিজেপির সর্বভারতীয় সভাপতি অমিত শাহ। পুরুলিয়ার সভা শেষে অন্ডাল বিমানবন্দর থেকে বিমানে ওঠেন অমিত শাহ। তাঁকে বিদায় জানানোর পর বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ বলেন, "পঞ্চায়েত, লোকসভা ও বিধানসভা ভোটে ধাপে ধাপে লড়াই করে তৃণমূলকে রাজ্য থেকে হঠাতে হবে। পুরুলিয়ায় যা ভিড় হয়েছে, এমনটা এ রাজ্যে ইদানীংকালে কোনও রাজনৈতিক দলের সভায় দেখা যায়নি। তৃণমূল সারা জীবনেও এতবড় সভা করতে পারবে না। রাজ্যে বিজেপি এত চাঙ্গা রয়েছে বলেই পার্থবাবু, দিদিমণি এত চিন্তিত।"

  • রাজ্যের বড় সুপার স্পেশালিটি হাসপাতালের জরুরী বিভাগে মাঝরাতে ট্রলি পেতে টাকা চাওয়ার অভিযোগ

    news bazar24:কলকাতা,রাজকুমার দাস:-বাংলার বুকে বড় জন চিকিৎসা পরিষেবা কেন্দ্র হিসাবে জনপ্রিয় সুপার স্পেশালিটি তকমা প্রাপ্ত হাসপাতাল এস.এস.কে.এম হাসপাতাল কিংবা পি জি। এখানে রাজ্যের কোনা কোনা থেকে বহু রোগী চিকিৎসা করাতে আসেন।কিন্তু মাঝরাতে জরুরী বিভাগে কোনো রোগী আসলে পাওয়া যায়না ট্রলি গাড়ী।বহু ডাকাডাকি করে যদিও রাতের ডিউটি করা স্ট্রেচার, ট্রলি পাওয়া যায়,তারা এতটাই অপব্যাবহার করে রোগীর আত্মীয়দের সাথে যা কল্পনাতীত।ইন ডাইরেক্ট ভাবে টাকা চাওয়ার ও ইঙ্গিত পাওয়া যায়।মাঝরাতে অসুস্থ রোগী,কিংবা কোনো গাড়ি দুর্ঘটনাগ্রস্ত রোগী পৌঁছালে ট্রলি গাড়ী থাকলেও তা জরুরী ভিত্তিতে পাওয়াটা খুবই দুস্তর হয়ে দাঁড়িয়েছে এস.এস.কে.এমএর মত হাসপাতালে।ডক্টর বাবুদের এবিষয়ে মৌখিক অভিযোগ করলে বলেন এম্বুলেন্সের স্ট্রেচার ট্রলিতে নিয়ে রোগীকে দেখিয়ে নিয়ে যান।তবু মিড নাইটে কর্তব্যরত ট্রলি মানদের সাহায্য করতে দেখতে পাওয়া যায়না।একজন গ্রুপ ডি কর্মী জানান শুধুমাত্র ভর্তী র সময় ট্রলি দেওয়া হয়,বাকি এমার্জেন্সি রোগী থাকলে রোগীর পরিবার কে টেনে টেনে বিভিন্ন বিভাগে পরীক্ষার জন্য রোগীকে নিয়ে যেতে হয়।সাধারণ মানুষের জন্য যে সুপার স্পেশালিটি হাসপাতাল মাননীয়া মুখ্য মন্ত্রী মমতা ব্যানার্জী গড়ে তুলতে কোনো ত্রুটি রাখেন নি সেখানে পরিষেবার প্রদান কারী মানুষরা কিভাবে অমানবিকতার পরিচয় বহন করছে তা তদন্ত করে দেখলেই বোঝা যাবে।মানুষের সেবায় যারা নিজেদের নিয়োজিত করার শপথ নিয়ে কাজ করতে এগিয়ে আসতে চিয়ে হাসপাতালে চাকরী করছেন,তাঁদের কিছুজন যে অনিয়মের সাথে অমানবিকতার পরিচয় দিচ্ছে তার দেখভাল কে করবে?প্রশ্নটি সকল আম জনতার।

  • রাজ্যে কংগ্রেস দল আবার ভাঙনের মুখে,তৃনমূলে যোগ দিতে চলেছেন ৫ বিধায়ক

    newsbazar24:ডেস্ক, ২৮শে জুনঃ রাজ্যে কংগ্রেস দল আবার ভাঙনের মুখে। জানা গেছে দল ছাড়তে চলেছেন কংগ্রেসের মুর্শিদাবাদের তিন জন এবং মালদার দুজন বিধায়ক ।আরও জানা গেছে  ইতিমধ্যেই তাঁরা তৃনমূলে  যোগ দিতে চেয়ে তৃণমূল মহাসচিব পার্থ চট্টোপাধ্যায়ের সঙ্গে দেখা করে চিঠি দিয়েছেন।  এর পর প্রশ্ন উঠছে  কংগ্রেসের এই ভাঙনে আব্দুল মান্নানকে দেওয়া মুখ্যমন্ত্রীর প্রতিশ্রুতি কোথায় গেল? সূত্রের খবর , এই  পাঁচ বিধায়কের মধ্যে  প্রথমেই রয়েছেন ফরাক্কার কংগ্রেস বিধায়ক মইনুল হক। এছাড়াও জঙ্গিপুর এবং ভরতপুরের বিধায়কদের নাম শোনা যাচ্ছে। অন্যদিকে, মালদহ থেকে  যাঁদের নাম শোনা যাচ্ছে, তাঁদের মধ্যে রয়েছেন, মোথাবাড়ির বিধায়িকা সাবিনা ইয়াসমিন  ও রতুয়ার বিধায়ক সমর মুখার্জির নাম। দলত্যাগ করতে চাওয়া  সব বিধায়কেরই  কম বেশি অভিযোগ তারা কংগ্রেসে থেকে  এলাকার কোনও উন্নতি করতে পারছেন না। তৃণমূল যোগ দিয়ে তারা সেই কাজ  সম্পূর্ণ করতে চান । প্রসঙ্গত  দিন কয়েক আগেই তৃণমূলে যোগ দিয়েছেন মুর্শিদাবাদের জেলা কংগ্রেস প্রাক্তন সভাপতি নওদার বিধায়ক আবু তাহের।মুখ্যমন্ত্রীর স্নেহধন্য শুভেন্দু  অধিকারী চ্যালে়ঞ্জ করেছিলেন  মুর্শিদাবাদে কংগ্রেসকে একেবারে নিশ্চিহ্ন করে দেবেন। অধীর চৌধুরীকে চ্যালেঞ্জ করে  তিনি বলেছিলেন, অধীর চৌধুরীর পাশে কেউ থাকবে না। কংগ্রেস বলেই কেউ থাকবে না মুর্শিদাবাদ জেলায়। মালদায় গিয়েও কংগ্রেসকে নিশ্চিহ্ন করে দেওয়ার কথা বলেছিলেন শুভেন্দু অধিকারী। স্বাভাবিকভাবেই প্রশ্ন উঠেছে কংগ্রেস নেতা আব্দুল মান্নানকে মুখ্যমন্ত্রীর দেওয়া প্রতিশ্রুতির পরেও এভাবে একের পর এক কংগ্রেস বিধায়ককে কেন দল ভাঙিয়ে শাসক দলে নেওয়া হচ্ছে।

  • লোকসভার প্রাক্তন স্পীকার সোমনাথ চট্টোপাধ্যায় গুরুতর অসুস্থ

    news bazar24: ডেস্ক, ২৮শে জুনঃ লোকসভার প্রাক্তন স্পীকার ও সিপিএমের প্রাক্তন বিশিষ্ট নেতা  সোমনাথ চট্টোপাধ্যায় গুরুতর অসুস্থ । তাঁকে দক্ষিণ কলকাতার একটি বেসরকারি হাসপাতালে ভর্তি করানো হয়েছে। বর্তমানে তিনি  ভেন্টিলেশনে রয়েছেন। তাঁর চিকিৎসার জন্য চিকিৎসক সুকুমার মুখোপাধ্যায়ের নেতৃত্বে একটি  মেডিক্যাল  বোর্ডও গঠন করা হয়েছে। পরিবার সূত্রে খবর, গত সোমবার  সোমবার তাঁর হেমারেজিক স্ট্রোকে আক্রান্ত হন । এছাড়াও কিডনি ও শ্বাসকষ্টের সমস্যাও রয়েছে। বেসরকারি হাসপাতাল সূত্রে জানা গিয়েছে, সোমবার তাঁর হেমারেজিক স্ট্রোক হয়েছিল। তারপর থেকেই তিনি অর্ধচেতন অবস্থায় রয়েছেন।তার  শারীরিক অবস্থা স্থিতিশীল নয় বলে জানানো হয়েছে।  

  • যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়ে অ্যাডমিশন টেস্টের দাবিতে বিক্ষোভ

    newsbazar24: যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়ে  অ্যাডমিশন টেস্টের দাবিতে বিক্ষোভ। স্নাতক স্তরে অ্যাডমিশন টেস্ট স্থগিত হওয়ার জেরে অবস্থান বিক্ষোভ পড়ুয়ারাদের। সোমবার রাত থেকে চলছে অবস্থান বিক্ষোভ। গত ৯ জুন নোটিশ হয়েছিল, আগামী ৫ জুলাই স্নাতক স্তরে অ্যডমিশন টেস্ট হবে। কিন্তু সোমবার জানিয়ে দেওয়া হয় অ্যডমিশন টেস্ট স্থগিত করা হয়েছে।রাতভর ঘেরাও করে রাখা হয় বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য, রেজিস্ট্রারকে।

  • দেশের প্রাক্তন ফুটবল খেলোয়াড় ও নামী কোচ সুভাষ ভৌমিক ঘুষকাণ্ডে দোষী সাব্যস্ত ।

    ডেস্ক, ২৫শে জুনঃ প্রাক্তন ফুটবল খেলোয়াড় ও নামী কোচ সুভাষ ভৌমিক ঘুষকাণ্ডে দোষী সাব্যস্ত হলেন। আলিপুর জজকোর্টে বিশেষ সিবিআই আদালত সোমবার এই রায় ঘোষনা করেছে । ২০০৫ সালের ডিসেম্বরে সুভাষ ভৌমিকের বিরুদ্ধে ঘুষ নেওয়ার অভিযোগ উঠেছিল। প্রায় ১২ বছর ধরে মামলা চলার পর সোমবার  এই মামলার রায়ে আদালত সুভাষ ভৌমিককে  ৩ বছরের হাজতবাসের নির্দেশ দেয়। যদিও পরে জামিন পেয়ে যান তিনি। এক সময়ের ময়দানের নামকরা  খেলোয়াড়। পরবর্তীকালে ভারতের নাম করা কোচ।  একসময়ে তিনি কাজ করতেন সেন্ট্রাল এক্সসাইজের  আধিকারিক পদে।  বর্তমানে অবসরপ্রাপ্ত। চাকুরীরত অবস্থায়  ২০০৫-এর ডিসেম্বর তার বিরুদ্ধে ঘুষ নেওয়ার অভিযোগ উঠেছিল। কাজ করে দেওয়ার নাম করে এক বেসরকারি সংস্থার কাছ থেকে তিনি ৪ লক্ষ টাকা ঘুষ চেয়েছিলেন বলে অভিযোগ। এর মধ্যে দেড়লক্ষ টাকা তাকে দেওয়ার সময়ই তাঁকে হাতে-নাতে ধরে সিবিআই। ২০০৫ সালের ওই ঘটনায় গ্রেফতারের সময় সুভাষ ভৌমিক সিবিআই-এর আধিকারিককে ঘুষি মারেন বলেও অভিযোগ। সেই মামলাও চলছিল সুভাষ ভৌমিকের বিরুদ্ধে। সেই সময় থেকে মামলা চলছিল। সোমবার সেই মামলার রায় ঘোষণা করে আলিপুর জজকোর্টের বিশেষ সিবিআই আদালত। ৩ বছরের কারাদণ্ডের নির্দেশ দেওয়া হয়। সোমবারই সুভাষ ভৌমিকের আইনজীবীরা তাঁর জামিনের আবেদন  করলেতিনি জামিন পান।    

  • লেক গার্ডেন্স স্টেশনের কাছে রেললাইনের থেকে উদ্ধার প্রাক্তন ফুটবলারের মৃতদেহ

    Newsbazar,ডেস্ক ২৩ জুনঃ চারু মার্কেট থানা এলাকায় সুলতান আলম রোডের বাসিন্দা ফুটবলারের অস্বাভাবিক মৃত্যু। শুক্রবার রাতে লেক গার্ডেন্সে লাইনের ধার থেকে তাঁর ক্ষতবিক্ষত দেহ উদ্ধার হয় বলে জানা গিয়েছে। রহস্যজনকভাবে মৃতের হাতে সেই সময়ও মোবাইল ফোনটি ধরা অবস্থায় ছিল। পরিবার ও বন্ধুদের অভিযোগ রঞ্জিত চট্টোপাধ্যায় নামে ওই যুবককে খুন করা হয়েছে। ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে বালিগঞ্জ জিআরপি। সুলতান আলম রোডের বাসিন্দা রঞ্জিৎ চট্টোপাধ্যায় নামে ওই ফুটবলার একসময়  বিভিন্ন বড় ক্লাব খেলেছেন। লিগামেন্টে চোট পাওয়ায় খেলা বন্ধ হয়ে যায়।  পরিবার সূত্রে জানা যায় স্বভাবে হাসিখুশি হলেও,  কয়েকদিন ধরে তিনি ছিলেন  কিছুটা গম্ভীর। স্ত্রী জানিয়েছেন,  শুক্রবার রাতে হঠাৎই বাড়ি থেকে  বেরিয়ে যান রঞ্জিত। এরপরেই ৪-৫ জন রঞ্জিতের খোঁজ করতে আসে। তারা রঞ্জিতের খোঁজ করার সময় গালাগালি দিচ্ছিল বলেও অভিযোগ। রাত দশটা নাগাদ বাড়িতে মৃত্যুর খবর আসে। পরিবারের সদস্যরা জানিয়েছেন, লাইনের ধারে পড়ে থাকা রঞ্জিতের দেহ ছিল ক্ষতবিক্ষত। তবে হাতে মোবাইল ধরা ছিল। দেহ উদ্ধারের সময় দেখা গিয়েছে মোবাইলে বেশ কিছু মিসকল রয়েছে। যদি ট্রেনের ধাক্কায় মৃত্যু হবে, তাহলে হাতে মোবাইল কী করে ধরা থাকবে প্রশ্ন তুলেছেন পরিবারের সদস্যরা। রাতেই পরিবারের তরফে বালিগঞ্জ জিআরপিতে অভিযোগ দায়ের করা হয়। খুন নাকি, দুর্ঘটনা খতিয়ে দেখছে বালিগঞ্জ জিআরপি।

  • নারদ তদন্তকারী অফিসারকে ভর্ৎসনা সিবিআই-এর স্পেশাল ডিরেক্টরের

    Newsbazar, 20 jun: নারদ তদন্তকারী অফিসারকে ভর্ৎসনা সিবিআই-এর স্পেশাল ডিরেক্টর রাকেশ আস্থানার । সূত্রের খবর, রাকেশ আস্থানা বলেছেন, তদন্তের অগ্রগতি ঠিকঠাক হয়নি। তদন্তের অগ্রগতির রিপোর্ট  কেন  উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের কাছে  পাঠানো হয়নি, তা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন সিবিআই-এর স্পেশাল ডিরেক্টর। সূত্রে জানা গেছে নারদ তদন্ত নিয়ে প্রচন্ড অসন্তোষ ব্যাক্ত করেছেন সিবিআই-এর স্পেশাল ডিরেক্টর।  বুধবার সকালে নিজাম প্যালেসে রাজ্যের বিভিন্ন চিটফান্ড প্রতারণা মামলার অগ্রগতি নিয়ে বৈঠক করেন  তিনি। সবকটি চিটফান্ড মামলার সঙ্গে যুক্ত আধিকারিকদের ডাকা  হয় বৈঠকে। নিজাম প্যালেসের ১৫ তলার কনফারেন্স হলে শুরু হয়েছে এই বৈঠক। সূত্রের খবর অনুযায়ী, বন্ধ ঘরে একএক করে অফিসারদের ডাকা হয়।  নারদ তদন্তের দায়িত্বপ্রাপ্ত আধিকারিক রঞ্জিত কুমারের কাছ থেকে কেস ডায়েরি দেখার পর প্রচন্ড ক্ষেপে যান তিনি । সূত্রের খবর অনুযায়ী, নারদ তদন্ত-র রিপোর্ট  সময় মতো দিল্লিতে উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের কাছে  পাঠানো হয়নি  কেন তা জানতে চান রাকেশ আস্থানা। এর পিছনে কোনও কারণ আছে কিনা তাও খতিয়ে দেখা হচ্ছে বলে জানা গিয়েছে। তদন্তের গতি প্রকৃতি অন্য ভাবে  করার  নির্দেশ দিয়েছেন বলে জানা গেছে। ।    

  • সারদা-রোজভ্যালির তদন্ত কি শেষের পথে ?

    Newsbazar, ডেস্ক, ২০শে জুনঃ সিবিআই-এর স্পেশাল ডিরেক্টর রাকেশ আস্থানা সারদা-রোজভ্যালির  তদন্তকারী আধিকারিকদের  নির্দেশ দিয়েছেন এবছরেই শেষ করতে হবে সারদা-রোজভ্যালির তদন্ত।এ ব্যাপারে কোন ঢিলেমি আর বরদাস্ত করা হবে না বলে তিনি জানিয়েছেন  বলে সূত্রে জানা গেছে।  বুধবার সকাল থেকে নিজাম প্যালেসে  তদন্তকারী আধিকারিকদের সঙ্গে দুদফায় প্রায় চারঘণ্টা বৈঠক করেন তিনি। কাজ শেষ করে এদিন দিল্লি ফিরে গিয়েছেন রাকেশ আস্থানা।   সূত্রের খবর অনুযায়ী, আরও জানা গেছে যে  প্রয়োজনে তদন্তকারী দলে আরও অফিসার নিয়োগ করা হবে বলেও  তিনি জানিয়েছেন।  বুধবারের  বৈঠকে রাকেশ আস্থানা সারদা-রোজভ্যালির তদন্তের  সব কেস ডায়েরি দীর্ঘক্ষন ধরে  খুঁটিয়ে দেখেন এবং  তাড়াতাড়ি ট্রায়াল শুরু করার জন্য আধিকারিকদের  নির্দেশ দিয়েছেন তিনি। তদন্তের প্রয়োজনে অভিযুক্তদের আবারও জিজ্ঞাসাবাদেরও নির্দেশ দিয়েছেন রাকেশ আস্থানা। তবে দিল্লি ফিরে যাওয়ার সময় সংবাদ মাধ্যমের কাছে কোনও কথাই তিনি বলেননি। বুধবার সকালে কলকাতার নিজাম প্যালেসের ১৫ তলার কনফারেন্স হলে বৈঠক শুরু হয়। দুদফায় এই বৈঠক চলে প্রায় ৪ ঘণ্টা ধরে। সব মিলিয়ে ২৮ থেকে ৩০ জন আধিকারিক বুধবারের বৈঠকে যোগ দিয়েছিলেন বলে জানা গিয়েছে। Newsbazar, ডেস্ক, ২০শে জুনঃ সিবিআই-এর স্পেশাল ডিরেক্টর রাকেশ আস্থানা সারদা-রোজভ্যালির  তদন্তকারী আধিকারিকদের  নির্দেশ দিয়েছেন এবছরেই শেষ করতে হবে সারদা-রোজভ্যালির তদন্ত।এ ব্যাপারে কোন ঢিলেমি আর বরদাস্ত করা হবে না বলে তিনি জানিয়েছেন  বলে সূত্রে জানা গেছে।  বুধবার সকাল থেকে নিজাম প্যালেসে  তদন্তকারী আধিকারিকদের সঙ্গে দুদফায় প্রায় চারঘণ্টা বৈঠক করেন তিনি। কাজ শেষ করে এদিন দিল্লি ফিরে গিয়েছেন রাকেশ আস্থানা।   সূত্রের খবর অনুযায়ী, আরও জানা গেছে যে  প্রয়োজনে তদন্তকারী দলে আরও অফিসার নিয়োগ করা হবে বলেও  তিনি জানিয়েছেন।  বুধবারের  বৈঠকে রাকেশ আস্থানা সারদা-রোজভ্যালির তদন্তের  সব কেস ডায়েরি দীর্ঘক্ষন ধরে  খুঁটিয়ে দেখেন এবং  তাড়াতাড়ি ট্রায়াল শুরু করার জন্য আধিকারিকদের  নির্দেশ দিয়েছেন তিনি। তদন্তের প্রয়োজনে অভিযুক্তদের আবারও জিজ্ঞাসাবাদেরও নির্দেশ দিয়েছেন রাকেশ আস্থানা। তবে দিল্লি ফিরে যাওয়ার সময় সংবাদ মাধ্যমের কাছে কোনও কথাই তিনি বলেননি। বুধবার সকালে কলকাতার নিজাম প্যালেসের ১৫ তলার কনফারেন্স হলে বৈঠক শুরু হয়। দুদফায় এই বৈঠক চলে প্রায় ৪ ঘণ্টা ধরে। সব মিলিয়ে ২৮ থেকে ৩০ জন আধিকারিক বুধবারের বৈঠকে যোগ দিয়েছিলেন বলে জানা গিয়েছে। এদিন বিএসএফ-এর এসকর্ট করা গাড়িতে করে নিজাম প্যালেসে যান সিবিআই-এর স্পেশাল ডিরেক্টর।

  • বালিগঞ্জে ভারত সেবাশ্রমের উদ্যোগে যোগ দিবসের পরিচর্চা

    কলকাতা,রাজকুমার দাস:------আর মাত্র দুদিনের পর আন্তর্জাতিক যোগ দিবস পালিত হবে সারা বিশ্বে,তার প্রাক্কালে দক্ষিণ কলকাতার বালিগঞ্জে ভারত সেবাশ্রমের উদ্যোগে যোগ দিবসের পরিচর্চা আগাম শুরু করলেন সংঘের মহারাজ।স্বামী বিস্বাত্মা নন্দ জানান সারা বাংলাতে সংঘের কাজ কর্ম সারা বছর আমরা করি।এবার ও যোগ দিবস কে সামনে রেখে বিভিন্য অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়েছে।যোগ প্রদর্শনীর পাশাপাশি আলোচনা ও যোগের গুরুত্ব মানুষের কাছে আমরা তুলে ধরার চেষ্টা করছি।আসা করি সকলে মিলে যোগদিবস কে সাফল্য মণ্ডিত ভাবে পরিচালিত করবে।

  • ডবলু বি এস পরীক্ষায় দুর্নীতির অভিযোগে সিবিআই তদন্তের দাবিতে পরীক্ষার্থীদের বিক্ষোভ।

    Newsbazar, ডেস্ক,১৮ই জুনঃ রাজ্যের ডবলু বি এস পরীক্ষায় দুর্নীতির অভিযোগে সিবিআই তদন্তের দাবিতে  সোমবার পরীক্ষার্থীরা পিএসসি অফিসের সামনে বিক্ষোভে ফেটে পড়েন । পরীক্ষার্থীদের অভিযোগ বিগত ২০১২ সালের পর ২০১৭-তেও পরীক্ষায় দুর্নীতি হয়েছে । এই বিষয়টি নিয়ে মুখ্যমন্ত্রী ও রাজ্যপালের সাথে দেখা করে তারা অভিযোগ জানাবেন বলে জানান । বিক্ষোভে অংশ নেওয়া পরীক্ষার্থীদের অভিযোগ, ২০১৭-র ডব্লুবিসিএস-এর প্রিলিমিনারির দুটি লিস্ট বের করা হয়েছিল। প্রথম তালিকায় যাঁরা সুযোগ পায়নি, দ্বিতীয় তালিকায় তাঁদের সুযোগ করে দেওয়া হয়েছিল বলে অভিযোগ। মেইন পরীক্ষায়  এক পরীক্ষার্থীর ইংরেজির নম্বর শূন্য থেকে ১৬২ করে দেওয়ার অভিযোগও উঠেছে পিএসসি কর্তৃপক্ষের বিরুদ্ধে। এমন কী বাংলায় তাঁর নম্বর ১৮ থেকে ১৬৮ করে দেওয়া হয়েছে বলেও অভিযোগ করেছেন পরীক্ষার্থীরা। তারা আরও জানান যে বিষয়টি নিয়ে পিএসসি কর্তৃপক্ষের কাছে এর আগে অভিযোগ জমা দেওয়া হয়েছিল   পিএসসি-র চেয়ারম্যান বিষয়টি নিয়ে তদন্তের আশ্বাস দিয়েছিলেন বলে দাবি পরীক্ষার্থীদের। যদিও কাজের কাজ কিছুই হয়নি বলে জানিয়েছেন পরীক্ষার্থীরা। পরীক্ষায় অকৃতকার্য হওয়া পরীক্ষার্থীরা জানিয়েছেন, আরটিআই করলেও তার কোনও উত্তরই দিচ্ছে না পিএসসি কর্তৃপক্ষ।                                                                                                                                                                                                                                                                                                                           

  • অবশেষে সারদা-নারদা-রোজভ্যালি মামলা নিয়ে সিবিআই-এর ঘুম ভাঙ্গতে চলেছে।

    Newsbazar, ডেস্ক,১৮ই জুনঃ অবশেষে  সারদা-নারদা-রোজভ্যালি মামলা নিয়ে সিবিআই-এর ঘুম ভাঙ্গতে চলেছে। ঐ সব মামলার অগ্রগতি নিয়ে আলোচনা করার জন্য  মঙ্গলবার সন্ধেয় কলকাতায় আসছেন সিবিআই-এর স্পেশাল ডিরেক্টর রাকেশ আস্থানা।  এই সব প্রতারণা মামলার সঙ্গে যুক্ত তদন্তকারী আধিকারিকদের মামলাগুলির স্টেটাস রিপোর্ট সহ   হাজির থাকতে বলা  হয়েছে  বলে জানা গেছে।  সামনে লোকসভা নির্বাচন। রাজ্যে শাসকদলের বিরুদ্ধে যেসব মামলা নিয়ে বিরোধীরা শোরগোল করা মামলাগুলির মধ্যে  সারদা-নারদা-রোজভ্যালি উল্লেখযোগ্য। সেই মামলাগুলি নিয়ে মমতা-মোদীর সমঝোতার অভিযোগ তুলেছিল রাজ্যের বাম ও কংগ্রেস। বিজেপির তরফেও মামলাগুলি নিয়ে দিল্লিতে দরবার করা হয়েছিল। এবার সেই সব পরিস্থিতি জানতে কলকাতায় আসছেন সিবিআই-এর স্পেশাল ডিরেক্টর রাকেশ আস্থানা। বুধবার সকাল নটায় নিজাম প্যালেসে সারদা-নারদা-রোজভ্যালি-র তদন্তকারী আধিকারিকদের কেস ডায়েরি ও স্ট্যাটাস রিপোর্ট নিয়ে আসতে বলা হয়েছে। এর মধ্যে রয়েছেন , জয়েন্ট ডিরেক্টর ও ডিআইজি  পদমর্যাদার অফিসাররা। একজন স্পেশাল ডিরেক্টর পর্যায়ের অফিসার এই ধরনের বৈঠক এর আগে  করেননি। ফলে এই বৈঠকের গুরুত্ব অপররিসীম। আগামি দিনে এই মামলাগুলিতে কী ভাবে এগনো হবে, তা সম্পর্কে পরিষ্কার জানা যাবে বলেই মনে করেছেন তদন্তকারীদের একাংশ। তবে বাম ও কংগ্রেস এ ব্যাপারে যথেষ্ট সন্দিহান কারন তারা মনে করে মমতা ও মোদির গোপন সমঝোতা হয়ে গেছে।      

  • খোদ কলকাতা শহরের বুকে তৃণমূলের দুই গোষ্ঠীর মধ্যে সংঘর্ষ।

    Newsbazar, ডেস্ক, ১৩ জুনঃ খোদ কলকাতা শহরের  বুকে তৃণমূলের দুই গোষ্ঠীর মধ্যে সংঘর্ষ। কাঁকুড়গাছির ঘোষবাগান এলাকায় দলীয় অফিস দখল করা নিয়ে বিধায়ক পরেশ পালের অনুগামীদের সঙ্গে মন্ত্রী সাধন পাণ্ডের অনুগামীদের সংঘর্ষ হয়।  পরেশ পালের অনুগামীদের বিরুদ্বে এই হামলার অভিযোগ উঠেছে। স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, সোমবার রাতে কাঁকুরগাছির ঘোষবাগানের একটি দলীয় অফিসে বসেছিলেন মন্ত্রী তথা মানিকতলার বিধায়ক সাধন পাণ্ডের অনুগামী বলে পরিচিত সৌরভ মিত্র-সহ আরও অনেকে । এই সময় এলাকায় বেলেঘাটার বিধায়ক পরেশ পালের অনুগামী  সুদীপ সাহা ও তার দলবল হামলা চালায় বলে অভিযোগ। সাধন পাণ্ডের অনুগামীদের অভিযোগ, তাদের পিস্তলের বাঁট দিয়ে মারধর করা হয়। দলীয় অফিসেও ভাঙচুর চালানো হয়। ঘটনার জেরে ফুলবাগান থানায় অভিযোগ দায়ের করেছেন সৌরভ মিত্র। স্থানীয় বাসিন্দাদের অভিযোগ, উল্টোডাঙা থেকে কাঁকুড়গাছি এলাকায় তৃণমূলের দুই গোষ্ঠীর মধ্যে হামেশাই  গণ্ডগোল হয়ে থাকে ।