কলকাতা

  • নারদ তদন্তকারী অফিসারকে ভর্ৎসনা সিবিআই-এর স্পেশাল ডিরেক্টরের

    Newsbazar, 20 jun: নারদ তদন্তকারী অফিসারকে ভর্ৎসনা সিবিআই-এর স্পেশাল ডিরেক্টর রাকেশ আস্থানার । সূত্রের খবর, রাকেশ আস্থানা বলেছেন, তদন্তের অগ্রগতি ঠিকঠাক হয়নি। তদন্তের অগ্রগতির রিপোর্ট  কেন  উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের কাছে  পাঠানো হয়নি, তা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন সিবিআই-এর স্পেশাল ডিরেক্টর। সূত্রে জানা গেছে নারদ তদন্ত নিয়ে প্রচন্ড অসন্তোষ ব্যাক্ত করেছেন সিবিআই-এর স্পেশাল ডিরেক্টর।  বুধবার সকালে নিজাম প্যালেসে রাজ্যের বিভিন্ন চিটফান্ড প্রতারণা মামলার অগ্রগতি নিয়ে বৈঠক করেন  তিনি। সবকটি চিটফান্ড মামলার সঙ্গে যুক্ত আধিকারিকদের ডাকা  হয় বৈঠকে। নিজাম প্যালেসের ১৫ তলার কনফারেন্স হলে শুরু হয়েছে এই বৈঠক। সূত্রের খবর অনুযায়ী, বন্ধ ঘরে একএক করে অফিসারদের ডাকা হয়।  নারদ তদন্তের দায়িত্বপ্রাপ্ত আধিকারিক রঞ্জিত কুমারের কাছ থেকে কেস ডায়েরি দেখার পর প্রচন্ড ক্ষেপে যান তিনি । সূত্রের খবর অনুযায়ী, নারদ তদন্ত-র রিপোর্ট  সময় মতো দিল্লিতে উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের কাছে  পাঠানো হয়নি  কেন তা জানতে চান রাকেশ আস্থানা। এর পিছনে কোনও কারণ আছে কিনা তাও খতিয়ে দেখা হচ্ছে বলে জানা গিয়েছে। তদন্তের গতি প্রকৃতি অন্য ভাবে  করার  নির্দেশ দিয়েছেন বলে জানা গেছে। ।    

  • সারদা-রোজভ্যালির তদন্ত কি শেষের পথে ?

    Newsbazar, ডেস্ক, ২০শে জুনঃ সিবিআই-এর স্পেশাল ডিরেক্টর রাকেশ আস্থানা সারদা-রোজভ্যালির  তদন্তকারী আধিকারিকদের  নির্দেশ দিয়েছেন এবছরেই শেষ করতে হবে সারদা-রোজভ্যালির তদন্ত।এ ব্যাপারে কোন ঢিলেমি আর বরদাস্ত করা হবে না বলে তিনি জানিয়েছেন  বলে সূত্রে জানা গেছে।  বুধবার সকাল থেকে নিজাম প্যালেসে  তদন্তকারী আধিকারিকদের সঙ্গে দুদফায় প্রায় চারঘণ্টা বৈঠক করেন তিনি। কাজ শেষ করে এদিন দিল্লি ফিরে গিয়েছেন রাকেশ আস্থানা।   সূত্রের খবর অনুযায়ী, আরও জানা গেছে যে  প্রয়োজনে তদন্তকারী দলে আরও অফিসার নিয়োগ করা হবে বলেও  তিনি জানিয়েছেন।  বুধবারের  বৈঠকে রাকেশ আস্থানা সারদা-রোজভ্যালির তদন্তের  সব কেস ডায়েরি দীর্ঘক্ষন ধরে  খুঁটিয়ে দেখেন এবং  তাড়াতাড়ি ট্রায়াল শুরু করার জন্য আধিকারিকদের  নির্দেশ দিয়েছেন তিনি। তদন্তের প্রয়োজনে অভিযুক্তদের আবারও জিজ্ঞাসাবাদেরও নির্দেশ দিয়েছেন রাকেশ আস্থানা। তবে দিল্লি ফিরে যাওয়ার সময় সংবাদ মাধ্যমের কাছে কোনও কথাই তিনি বলেননি। বুধবার সকালে কলকাতার নিজাম প্যালেসের ১৫ তলার কনফারেন্স হলে বৈঠক শুরু হয়। দুদফায় এই বৈঠক চলে প্রায় ৪ ঘণ্টা ধরে। সব মিলিয়ে ২৮ থেকে ৩০ জন আধিকারিক বুধবারের বৈঠকে যোগ দিয়েছিলেন বলে জানা গিয়েছে। Newsbazar, ডেস্ক, ২০শে জুনঃ সিবিআই-এর স্পেশাল ডিরেক্টর রাকেশ আস্থানা সারদা-রোজভ্যালির  তদন্তকারী আধিকারিকদের  নির্দেশ দিয়েছেন এবছরেই শেষ করতে হবে সারদা-রোজভ্যালির তদন্ত।এ ব্যাপারে কোন ঢিলেমি আর বরদাস্ত করা হবে না বলে তিনি জানিয়েছেন  বলে সূত্রে জানা গেছে।  বুধবার সকাল থেকে নিজাম প্যালেসে  তদন্তকারী আধিকারিকদের সঙ্গে দুদফায় প্রায় চারঘণ্টা বৈঠক করেন তিনি। কাজ শেষ করে এদিন দিল্লি ফিরে গিয়েছেন রাকেশ আস্থানা।   সূত্রের খবর অনুযায়ী, আরও জানা গেছে যে  প্রয়োজনে তদন্তকারী দলে আরও অফিসার নিয়োগ করা হবে বলেও  তিনি জানিয়েছেন।  বুধবারের  বৈঠকে রাকেশ আস্থানা সারদা-রোজভ্যালির তদন্তের  সব কেস ডায়েরি দীর্ঘক্ষন ধরে  খুঁটিয়ে দেখেন এবং  তাড়াতাড়ি ট্রায়াল শুরু করার জন্য আধিকারিকদের  নির্দেশ দিয়েছেন তিনি। তদন্তের প্রয়োজনে অভিযুক্তদের আবারও জিজ্ঞাসাবাদেরও নির্দেশ দিয়েছেন রাকেশ আস্থানা। তবে দিল্লি ফিরে যাওয়ার সময় সংবাদ মাধ্যমের কাছে কোনও কথাই তিনি বলেননি। বুধবার সকালে কলকাতার নিজাম প্যালেসের ১৫ তলার কনফারেন্স হলে বৈঠক শুরু হয়। দুদফায় এই বৈঠক চলে প্রায় ৪ ঘণ্টা ধরে। সব মিলিয়ে ২৮ থেকে ৩০ জন আধিকারিক বুধবারের বৈঠকে যোগ দিয়েছিলেন বলে জানা গিয়েছে। এদিন বিএসএফ-এর এসকর্ট করা গাড়িতে করে নিজাম প্যালেসে যান সিবিআই-এর স্পেশাল ডিরেক্টর।

  • বালিগঞ্জে ভারত সেবাশ্রমের উদ্যোগে যোগ দিবসের পরিচর্চা

    কলকাতা,রাজকুমার দাস:------আর মাত্র দুদিনের পর আন্তর্জাতিক যোগ দিবস পালিত হবে সারা বিশ্বে,তার প্রাক্কালে দক্ষিণ কলকাতার বালিগঞ্জে ভারত সেবাশ্রমের উদ্যোগে যোগ দিবসের পরিচর্চা আগাম শুরু করলেন সংঘের মহারাজ।স্বামী বিস্বাত্মা নন্দ জানান সারা বাংলাতে সংঘের কাজ কর্ম সারা বছর আমরা করি।এবার ও যোগ দিবস কে সামনে রেখে বিভিন্য অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়েছে।যোগ প্রদর্শনীর পাশাপাশি আলোচনা ও যোগের গুরুত্ব মানুষের কাছে আমরা তুলে ধরার চেষ্টা করছি।আসা করি সকলে মিলে যোগদিবস কে সাফল্য মণ্ডিত ভাবে পরিচালিত করবে।

  • ডবলু বি এস পরীক্ষায় দুর্নীতির অভিযোগে সিবিআই তদন্তের দাবিতে পরীক্ষার্থীদের বিক্ষোভ।

    Newsbazar, ডেস্ক,১৮ই জুনঃ রাজ্যের ডবলু বি এস পরীক্ষায় দুর্নীতির অভিযোগে সিবিআই তদন্তের দাবিতে  সোমবার পরীক্ষার্থীরা পিএসসি অফিসের সামনে বিক্ষোভে ফেটে পড়েন । পরীক্ষার্থীদের অভিযোগ বিগত ২০১২ সালের পর ২০১৭-তেও পরীক্ষায় দুর্নীতি হয়েছে । এই বিষয়টি নিয়ে মুখ্যমন্ত্রী ও রাজ্যপালের সাথে দেখা করে তারা অভিযোগ জানাবেন বলে জানান । বিক্ষোভে অংশ নেওয়া পরীক্ষার্থীদের অভিযোগ, ২০১৭-র ডব্লুবিসিএস-এর প্রিলিমিনারির দুটি লিস্ট বের করা হয়েছিল। প্রথম তালিকায় যাঁরা সুযোগ পায়নি, দ্বিতীয় তালিকায় তাঁদের সুযোগ করে দেওয়া হয়েছিল বলে অভিযোগ। মেইন পরীক্ষায়  এক পরীক্ষার্থীর ইংরেজির নম্বর শূন্য থেকে ১৬২ করে দেওয়ার অভিযোগও উঠেছে পিএসসি কর্তৃপক্ষের বিরুদ্ধে। এমন কী বাংলায় তাঁর নম্বর ১৮ থেকে ১৬৮ করে দেওয়া হয়েছে বলেও অভিযোগ করেছেন পরীক্ষার্থীরা। তারা আরও জানান যে বিষয়টি নিয়ে পিএসসি কর্তৃপক্ষের কাছে এর আগে অভিযোগ জমা দেওয়া হয়েছিল   পিএসসি-র চেয়ারম্যান বিষয়টি নিয়ে তদন্তের আশ্বাস দিয়েছিলেন বলে দাবি পরীক্ষার্থীদের। যদিও কাজের কাজ কিছুই হয়নি বলে জানিয়েছেন পরীক্ষার্থীরা। পরীক্ষায় অকৃতকার্য হওয়া পরীক্ষার্থীরা জানিয়েছেন, আরটিআই করলেও তার কোনও উত্তরই দিচ্ছে না পিএসসি কর্তৃপক্ষ।                                                                                                                                                                                                                                                                                                                           

  • অবশেষে সারদা-নারদা-রোজভ্যালি মামলা নিয়ে সিবিআই-এর ঘুম ভাঙ্গতে চলেছে।

    Newsbazar, ডেস্ক,১৮ই জুনঃ অবশেষে  সারদা-নারদা-রোজভ্যালি মামলা নিয়ে সিবিআই-এর ঘুম ভাঙ্গতে চলেছে। ঐ সব মামলার অগ্রগতি নিয়ে আলোচনা করার জন্য  মঙ্গলবার সন্ধেয় কলকাতায় আসছেন সিবিআই-এর স্পেশাল ডিরেক্টর রাকেশ আস্থানা।  এই সব প্রতারণা মামলার সঙ্গে যুক্ত তদন্তকারী আধিকারিকদের মামলাগুলির স্টেটাস রিপোর্ট সহ   হাজির থাকতে বলা  হয়েছে  বলে জানা গেছে।  সামনে লোকসভা নির্বাচন। রাজ্যে শাসকদলের বিরুদ্ধে যেসব মামলা নিয়ে বিরোধীরা শোরগোল করা মামলাগুলির মধ্যে  সারদা-নারদা-রোজভ্যালি উল্লেখযোগ্য। সেই মামলাগুলি নিয়ে মমতা-মোদীর সমঝোতার অভিযোগ তুলেছিল রাজ্যের বাম ও কংগ্রেস। বিজেপির তরফেও মামলাগুলি নিয়ে দিল্লিতে দরবার করা হয়েছিল। এবার সেই সব পরিস্থিতি জানতে কলকাতায় আসছেন সিবিআই-এর স্পেশাল ডিরেক্টর রাকেশ আস্থানা। বুধবার সকাল নটায় নিজাম প্যালেসে সারদা-নারদা-রোজভ্যালি-র তদন্তকারী আধিকারিকদের কেস ডায়েরি ও স্ট্যাটাস রিপোর্ট নিয়ে আসতে বলা হয়েছে। এর মধ্যে রয়েছেন , জয়েন্ট ডিরেক্টর ও ডিআইজি  পদমর্যাদার অফিসাররা। একজন স্পেশাল ডিরেক্টর পর্যায়ের অফিসার এই ধরনের বৈঠক এর আগে  করেননি। ফলে এই বৈঠকের গুরুত্ব অপররিসীম। আগামি দিনে এই মামলাগুলিতে কী ভাবে এগনো হবে, তা সম্পর্কে পরিষ্কার জানা যাবে বলেই মনে করেছেন তদন্তকারীদের একাংশ। তবে বাম ও কংগ্রেস এ ব্যাপারে যথেষ্ট সন্দিহান কারন তারা মনে করে মমতা ও মোদির গোপন সমঝোতা হয়ে গেছে।      

  • খোদ কলকাতা শহরের বুকে তৃণমূলের দুই গোষ্ঠীর মধ্যে সংঘর্ষ।

    Newsbazar, ডেস্ক, ১৩ জুনঃ খোদ কলকাতা শহরের  বুকে তৃণমূলের দুই গোষ্ঠীর মধ্যে সংঘর্ষ। কাঁকুড়গাছির ঘোষবাগান এলাকায় দলীয় অফিস দখল করা নিয়ে বিধায়ক পরেশ পালের অনুগামীদের সঙ্গে মন্ত্রী সাধন পাণ্ডের অনুগামীদের সংঘর্ষ হয়।  পরেশ পালের অনুগামীদের বিরুদ্বে এই হামলার অভিযোগ উঠেছে। স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, সোমবার রাতে কাঁকুরগাছির ঘোষবাগানের একটি দলীয় অফিসে বসেছিলেন মন্ত্রী তথা মানিকতলার বিধায়ক সাধন পাণ্ডের অনুগামী বলে পরিচিত সৌরভ মিত্র-সহ আরও অনেকে । এই সময় এলাকায় বেলেঘাটার বিধায়ক পরেশ পালের অনুগামী  সুদীপ সাহা ও তার দলবল হামলা চালায় বলে অভিযোগ। সাধন পাণ্ডের অনুগামীদের অভিযোগ, তাদের পিস্তলের বাঁট দিয়ে মারধর করা হয়। দলীয় অফিসেও ভাঙচুর চালানো হয়। ঘটনার জেরে ফুলবাগান থানায় অভিযোগ দায়ের করেছেন সৌরভ মিত্র। স্থানীয় বাসিন্দাদের অভিযোগ, উল্টোডাঙা থেকে কাঁকুড়গাছি এলাকায় তৃণমূলের দুই গোষ্ঠীর মধ্যে হামেশাই  গণ্ডগোল হয়ে থাকে ।  

  • সম্পন্ন হল বাৎসরিক কলেজ উৎসব "স্টার্ট-আপ ২০১৮"।

    কলকাতা, রাজকুমার দাস:- ছাত্র-ছাত্রীদের পড়াশুনার চাপ কমাতে, বইয়ের বোঝা কে সরিয়ে রেখে শুক্রবার সল্টলেক-এ 'টেকনো ইন্ডিয়া ইনস্টিটিউট অফ টেকনোলজি' অ্যান্ড 'সারজ মোহন ইনস্টিটিউট অফ টেকনোলজি' উপস্থাপন করল বাৎসরিক কলেজ উৎসব "স্টার্ট-আপ ২০১৮"। এদিন অনুষ্ঠান উদ্বোধন করেন ইনস্টিটিউশনের অধ্যক্ষ শ্রীমতী সবরি মন্ডল। সকল ছাত্র-ছাত্রী অনুষ্ঠানে যেমন উপস্থিত হয়েছে তেমনি অনুষ্ঠানেও অংশগ্রহণ করেছে ক্যুইজ প্রতিযোগিতা, গান, নাচ এসবের মধ্য দিয়ে। শুধুমাত্র কলেজ ছাত্রছাত্রী নয় ছিলেন বলিউড গায়ক রাহুল জাইন, ডি.জে. শেরলী শেঠী তাদের সুর ও মিউজিক এর মধ্য দিয়েই আনন্দে মাতিয়ে তুলেছে ছাত্র-ছাত্রীদের।

  • মেট্রোর টিকিট কাউন্টারের সামনে গুলি ছিটকে জখম শিশু সহ ৩

    newsbaza24 : শুক্রবার ভরদুপুরে দমদম মেট্রোর টিকিট কাউন্টারের সামনে আরপিএফ জওয়ানের রাইফেল থেকে গুলি ছিটকে জখম হন ৩ জন। অভিযোগ, ডিউটি হস্তান্তরের সময় আরপিএফ জওয়ানের হাত থেকে পড়ে যায় এসএলআর রাইফেলটি। তখনই গুলি ছিটকে যায়। জখম হয় এক শিশু ও তার মা এবং একজন মেট্রোকর্মী। এই ঘটনায় আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে মেট্রো স্টেশন চত্বরে। পরিস্থিতি মোকাবিলায় সঙ্গে সঙ্গেই পদক্ষেপ করে মেট্রোরেল কর্তৃপক্ষ। মেট্রো রেলের মুখ্য জনসংযোগ আধিকারিক ইন্দ্রাণী বন্দ্যোপাধ্যায় জানান, এই ঘটনায় উচ্চপর্যায়ের তদন্ত কমিটি গঠন করা হচ্ছে। 

  • সুর সাধক কল্যান সেন বরাটের ৫০ বছর পূর্তি অনুষ্ঠান

    রাজকুমার দাস, কলকাতা ,৮ জুন,২০১৮:আজ রবীন্দ্রসদন ছিল তারকাখচিত শিল্পীদের মেলা।শিল্পী জীবনে সুর সাধক কল্যান সেন বরাটের ৫০ বছর পূর্তি অনুষ্ঠান।শিল্পীর সাথে একান্ত ব্যক্তিগত ভাবে বাংলার প্রায় সব শিল্পীর যোগাযোগ নেহাত কম নয়।তাই একক সংগীত ময় সন্ধ্যেয় আসর মাতিয়েছেন বাংলার প্রখ্যাত শিল্পীরা।হৈমন্তী শুক্লা,জোজো, ব্রততী ব্যানার্জী,কোহিনুর সেনবরাট,রূপঙ্কর,শুভমিতা,সহ আরো বহু শিল্পী উপস্থিত থেকে কল্যান সেনবরাট কে গানে কবিতায় শুভেচ্ছা জানান।সাথে ছিল শিল্পীচক্র,ও "ক্যালকাটা কয়ার"এর সংগীত পরিবেশন।নিবেদনে ছিল ড্যাফোডিল ইনকোরপরেট।

  • এক নজরে রাজ্যের মাধ্যমিকের ফলাফল

    News Bazar24 :এবার কলকাতা কে টেক্কা দিল জেলার ছাত্ররা। মাধ্যমিক পরীক্ষার ফলাফল প্রকাশিত হলো আজ সকালে। চলুন দেখাযাক কোন জেলার কেমন হয়েছ ফলাফল, প্রথম হয়েছে কোচবিহারের সঞ্জীবনী দেবনাথ। পাশের হার সর্বাধিক পূর্ব মেদিনীপুর জেলায়। মেধাতালিকায় স্থান পেয়েছে মোট ৫৬ জন। এরমধ্যে কলকাতার মাত্র ২ জন আছে। উত্তরবঙ্গের ফলাফল সবথেকে ভালো হয়েছে। এবারও ফলের নিরিখে কলকাতাকে ছাপিয়ে গেছে জেলা। এক নজরে মেধাতালিকা প্রথম স্থান সঞ্জীবনী দেবনাথ - কোচবিহার - সুনীতি অ্যাকাডেমি - প্রাপ্ত নম্বর ৬৮৯ দ্বিতীয় স্থান শীর্ষেন্দু সাহা - বর্ধমান - সাতগাছিয়া হাইস্কুল - প্রাপ্ত নম্বর ৬৮৮ তৃতীয় স্থান ময়ূরাক্ষী সরকার - কোচবিহার - সুনীতি অ্যাকাডেমি - প্রাপ্ত নম্বর - ৬৮৭ নীলাব্জ দাস - জলপাইগুড়ি - জলপাইগুড়ি জ়িলা স্কুল - ৬৮৭ মৃন্ময় মণ্ডল - জলপাইগুড়ি - জলপাইগুড়ি জ়িলা স্কুল - ৬৮৭ চতুর্থ স্থান দ্বীপ গায়েন - উত্তর ২৪ পরগনা - প্রফুল্লনগর বিদ্যামন্দির - ৬৮৬ পঞ্চম স্থান অঙ্কিতা দাস - উত্তর ২৪ পরগনা - সুনীতি অ্যাকাডেমি - ৬৮৫ সৌমী নন্দী - বাঁকুড়া - গোগরা হাইস্কুল - ৬৮৫ শ্রীজা পাত্র - বাঁকুড়া - বিবেকানন্দ শিক্ষানিকেতন হাইস্কুল - ৬৮৫ অনীক জানা - পশ্চিম মেদিনীপুর - মেদিনীপুর শ্রী রামকৃষ্ণ মিশন বিদ্যাভবন - ৬৮৫ প্রথমকান্তি মজুমদার - নদিয়া - কাঁচরাপাড়া হারনেট হাইস্কুল - ৬৮৫ ষষ্ঠ স্থান সুমিত বাগচি - কোচবিহার - দিনহাটা হাইস্কুল - ৬৮৪ নিধি চৌধুরি - জলপাইগুড়ি - জলপাইগুড়ি সেন্ট্রাল গার্লস হাইস্কুল - ৬৮৪ অরিত্রিকা পাল - পূর্ব বর্ধমান - পারুলিয়া কে কে হাইস্কুল - ৬৮৪ প্রতিমান দে - পূর্ব বর্ধমান - কান্দারা জ্ঞানদাস মেমোরিয়াল হাইস্কুল - ৬৮৪ শ্রুতি সিংহমহাপাত্র - বাঁকুড়া - বাঁকুড়া মিশন গার্লস হাইস্কুল - ৬৮৪ রৌনক সাহা - বীরভূম - নবনালন্দা শান্তিনিকেতন হাইস্কুল - ৬৮৪ সপ্তম স্থান মহাশ্বেতা হোমরায় - কোচবিহার - মনীন্দ্রনাথ হাইস্কুল - ৬৮৩ দেবাঞ্জন ভট্টাচার্য - পূর্ব বর্ধমান - বর্ধমান মিউনিসিপ্যাল হাইস্কুল - ৬৮৩ অরিন্দম ঘোষ - পূর্ব বর্ধমান - সুলতানপুর তুলসিদাস বিদ্যামন্দির - ৬৮৩ পারমিতা মণ্ডল - দক্ষিণ দিনাজপুর - রামকৃষ্ণ বিবেকানন্দ মিশন বিদ্যাভবন - ৬৮৩ সার্থক তালুকদার - কলকাতা - বরানগর রামকৃষ্ণ মিশন বিদ্যাভবন - ৬৮৩ অষ্টম স্থান দেবস্মিত রায় - কোচবিহার - রামভোলা হাইস্কুল - ৬৮২ তাপস দেবনাথ - আলিপুরদুয়ার - কামাক্ষাগুড়ি হাইস্কুল - ৬৮২ জুমানা নারজিস - দক্ষিণ দিনাজপুর - বংশীহারী হাইস্কুল - ৬৮২ অরিন্দম সাহা - মালদা - এ সি ইনস্টিটিউশন - ৬৮২ অনামিত্র মুখোপাধ্যায় - বাঁকুড়়া - বিবেকানন্দ শিক্ষানিকেতন হাইস্কুল - ৬৮২ দেবারতি পাঁজা - বাঁকুড়া - বাঁকুড়া মিশন গার্লস হাইস্কুল - ৬৮২ দিশা মণ্ডল - বাঁকুড়া - বিবেকানন্দ শিক্ষানিকেতন হাইস্কুল - ৬৮২ প্রেরণা মণ্ডল - হুগলি - কৃষ্ণভাবিনী নারীশিক্ষা মন্দির - ৬৮২ রূপ সিনহা বাবু - বাঁকুড়া - সিমলাপাল মদনমোহন হাইস্কুল - ৬৮২ নবম স্থান ঐতিয্য সাহা - কোচবিহার - সুনীতি অ্যাকাডেমি - ৬৮১ সায়ন্তিকা রায় - দার্জিলিং - বাগডোগরা বালিকা বিদ্যালয় - ৬৮১ অম্লান ভট্টাচার্য - মালদা - রামকৃষ্ণ মিশন বিবেকানন্দ বিদ্যামন্দির - ৬৮১ সায়ন্তন চৌধুরি - মালদা - রামকৃষ্ণ মিশন বিবেকানন্দ বিদ্যামন্দির - ৬৮১ মহম্মদ রফিকুল হাসান - মালদা - মোজ়ামপুর HSS হাইস্কুল - ৬৮১ সায়ন নন্দী - বাঁকুড়া - বিষ্ণুপুর হাইস্কুল - ৬৮১ সৌত্রিক সুর - হুগলি - মগরা উত্তম চন্দ্র হাইস্কুল - ৬৮১ তন্ময় চক্রবর্তী - হুগলি - সিঙ্গুর মহামায়া হাইস্কুল - ৬৮১ সোহম আহমেদ - বীরভূম - সিউড়ি পাবলিক অ্যান্ড চন্দ্রঘাঁটি মুস্তাফি মেমো হাই স্কুল - ৬৮১ সৈকত সিংহ রায় - নদিয়া - কৃষ্ণনগর কলেজিয়েট স্কুল - ৬৮১ স্বস্তিক কুমার ঘোষ - উত্তর ২৪ পরগনা - কাঁচরাপাড়া হারনেট হাইস্কুল - ৬৮১ দশম স্থান বৈদূর্য বিশ্বাস - কোচবিহার - মাথাভাঙা হাইস্কুল - ৬৮০ সুমন কুমার সাহা - কোচবিহার - মাথাভাঙা হাইস্কুল - ৬৮০ প্রীমরস সরকার - আলিপুরদুয়ার - আলিপুরদুয়ার নিউটাউট গার্লস হাইস্কুল - ৬৮০ মির মহম্মদ ওয়াসিফ - মালদা - রামকৃষ্ণমিশন বিবেকানন্দ বিদ্যামন্দির - ৬৮০ অরিত্র সরকার - মালদা - এ সি ইনস্টিটিউশন - ৬৮০ তামান্না ফিরদৌস - মালদা - বামনগ্রাম HMAM হাইস্কুল - ৬৮০ অন্বেশা দেঘরিয়া - বাঁকুড়া - বাঁকুড়া মিশন গার্লস হাইস্কুল - ৬৮০ গৌরব মণ্ডল - বাঁকুড়া - বড়জোড়া হাইস্কুল - ৬৮০ মোনালিসা সামন্ত - হুগলি - ঘোড়াদহ S C হাইস্কুল - ৬৮০ শুভম রায় - বীরভূম - BKIPP প্রবীর সেনগুপ্ত বিদ্যালয় - ৬৮০ ইন্দ্রজিৎ মিশ্র - পূর্ব মেদিনীপুর - পারুলিয়া রামকৃষ্ণ মিশন বিদ্যাপীঠ - ৬৮০ অগ্নিভ সিনহা - পূর্ব মেদিনীপুর - তমলুক হ্যামিলটন হাইস্কুল - ৬৮০ দেবানয়া প্রধান - পূর্ব মেদিনীপুর - বাগমারি নারীকল্যাণ শিক্ষাসদন - ৬৮০ পবিত্র সেনাপতি - পূর্ব মেদিনীপুর - গভ: স্পন. মাল্টিপারপাস স্কুল ফর বয়েজ় টাকি হাউজ় - ৬৮০

  • রাজ্যে সম্প্রীতির ছবি : দাওয়াত এ ইফতার

    News Bazar24:কলকাতা,রাজকুমার দাস: মঙ্গলবার মধ্য কলকাতার মার্কস স্কোয়ারে স্থানীয় কাউন্সিলর মোঃ জসীমউদ্দীন এর নেতৃত্বে ধর্ম বর্ণ নির্বিশেষে সম্প্রীতির মেলবন্ধনে এক বিরাট ইফতার পার্টি র আয়োজন করা হয়।প্রায় পাঁচ হাজারেরও বেশি মুসলিম ধর্মালম্বী মানুষের পাশাপাশি অন্য সকল ধর্মের মানুষ এই উৎসবে সামিল হয়।ছিলেন মন্ত্রী জনাব ফিরাদ হাকিম ববি,অতীন ঘোষ,জনাব ইদ্রীস আলী,দোলা সেন,সহ অন্যান্য।কে এম সি র ৩৯নম্বরের কাউন্সিলর এর উদ্যোগ সত্যিই মানুষের মধ্যে বেশ সাড়া ফেলেছে।

  • মাধ্যমিকে রাজ্যে প্রথম কোচবিহারএর সঞ্জীবনী দেবনাথ

    News Bazar24:আজ সকাল ১০টায় প্রকাশিত হল মাধ্যমিক পরীক্ষার ফলাফল।এবছর পাশের হার ৮৫.৪৯ শতাংশ। গত বছর এই হার ছিল ৮৫.৬৫ শতাংশ। জেলাভিত্তিক পাসের হারে এগিয়ে পূর্ব মেদিনীপুর(৯৬.১৩ শতাংশ)। মেয়েদের তুলনায় ছেলেদের সাফল্যের হার এবার বেশি। রাজ্যে প্রথম হয়েছেন কোচবিহার সুনীতি অ্যাকাডেমির সঞ্জীবনী দেবনাথ। তাঁর প্রাপ্ত নম্বর ৬৮৯। দ্বিতীয় হয়েছেন বর্ধমানের সাতগেছিয়ার শীর্ষেন্দু সাহা। তিনি পেয়েছেন ৬৮৮। ৬৮৭ নম্বর পেয়ে তৃতীয় হয়েছেন তিন জন। এরা হলেন কোচবিহার সুনীতি অ্যাকাডেমির ময়ূরাক্ষী সরকার, জলপাইগুড়ি জেলা স্কুলের নীলাজ্জ দাস ও জলপাইগুড়ি জেলা স্কুলেরই মৃণ্ময় মণ্ডল।

  • রাজ্য মন্ত্রিসভার তিনমন্ত্রীর পদত্যাগ মন্ত্রিসভায় বড়সড় পরিবর্তন হতে চলেছে?

    Newsbazar, ডেস্ক, ৫ই মেঃ  রাজ্য  মন্ত্রিসভায় বড়সড় পরিবর্তন হতে চলেছে। মঙ্গলবার মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের নির্দেশে পদত্যাগ করেছেন তিনমন্ত্রী। মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় তাঁর চিন সফরের আগেই এই রদবদল করতে পারেন। নবান্ন সূত্রে জানা যায় মন্ত্রিসভায় নতুন মুখ আসতে চলেছে। রাজ্যের রাজনৈতিক মহলে ইতিমধ্যে জোর আলোচনা শুরু হয়েছে  কাদের গুরুত্ব বাড়বে আর ,  কাদের গুরুত্ব কমবে । ইতিমধ্যে তিন  মন্ত্রী অবনী জোয়ারদার, চূড়ামণি মাহাতো ও জেমস কুজুর পদত্যাগপত্র জমা দিয়েছেন।  এঁদের মধ্যে প্রথম জন ছিলেন দফতরহীন মন্ত্রী। চূড়ামণি মাহাতো আদিবাসী উন্নয়ন ও জেমস কুজু অনগ্রসর শ্রেণিকল্যাণ দফতরের মন্ত্রী ছিলেন। তিনজনেরই পদত্যাগপত্র গৃহীত হয়েছে। রাজনৈতিক মহলের অনুমান সম্প্রতি  পঞ্চায়েত নির্বাচন শেষ হয়েছে।সামনে লোকসভা নির্বাচনের কঠিন লড়াই। তাই মুখ্যমন্ত্রী মন্ত্রিসভায় পরিবর্তন করে চমক দিতে চাইছেন। এদিন  তিন মন্ত্রী পদত্যাগ করলেন। তাঁদের মন্ত্রিত্ব যাওয়ার পাশাপাশি আরও বেশ কয়েকজনের গুরুত্ব কমানো হতে পারে। সেই তালিকায় রয়েছেন মেয়র শোভন চট্টোপাধ্যায়ের মতো মন্ত্রীও। আবার  গুরুত্ব বাড়তে পারে অরূপ বিশ্বাস, শুভেন্দু অধিকারীদের। এছাড়াও আরও নতুন মুখ আনা হতে পারে। যাঁরা ভালো কাজ করছেন, অথচ মন্ত্রিত্ব পাননি, তাঁদের ভাগ্যে শিকে ছিঁড়তেও পারে   । পঞ্চায়েত ভোটে বা বিগত দিনে যাঁরা ভালো কাজ করেছেন, মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের গুডবুকে রয়েছেন, তাঁরা লোকসভা ভোটের আগে মন্ত্রিত্ব পেতে পারেন। খুব শীঘ্রই মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় পরিষ্কার করে দেবেন কাদের ভাগ্যে এবার শিকে ছিঁড়ছে। মুখ্যমন্ত্রী জানিয়েছেন, পারফরম্যান্সের নিরিখেই এই রদবদল ঘটানো হবে।  

  • তিন দিনের মধ্যেই ডিএ মামলার ফয়সালা করতে হবে, রাজ্যকে হাইকোর্ট-র কঠোর বার্তা।

    Newsbazar, ডেস্ক, ৫ই মেঃ  ডিএ নিয়ে  মঙ্গলবার হাইকোর্ট-এ আবার শুনানি শুরু হয়েছে। আগামী তিনদিনের মধ্যেই এই ব্যাপারে চূড়ান্ত ফয়সালা হয়ে যাবে বলে কোর্ট সূত্রে জানা গেছে। অবশ্য এর আগে হাইকোর্ট  জানিয়েছিল আর বিলম্ব নয়,। তাড়াতাড়ি এই মামলার শুনানি শুরু করতে হবে। এদিন ডিএ মামলায় রাজ্য সরকারকে তীব্র ভর্ৎসনা করল কলকাতা হাইকোর্ট। কলকাতা হাইকোর্টের প্রধান বিচারপতি ৪ মে শুনানিতে সাফ জানিয়ে দিয়েছিলেন, ১৭ মে-র মধ্যেই এই মামলার নিষ্পত্তি ঘটানো হবে। কিন্ত  পঞ্চায়েত ভোটের কারণে শুনানি পিছিয়ে যায়। পঞ্চায়েত ভোটপর্ব শেষ হওয়ার পর সেই শুনানি এবার শুরু হয়েছে। তিনদিনের শুনানিতে এই ফয়সালা করতে চাইছে হাইকোর্ট।   এদিনও রাজ্য আদালতে জানায় কর্মচারীদের মহার্ঘভাতা সরকারের মর্জিমাফিক। বিচারপতি  বলেন রোপা অনুযায়ী ডিএ বা মহার্ঘভাতা সরকারি কর্মচারীদের প্রাপ্য। তিনি এ প্রসঙ্গেই একের পর এক প্রশ্ন  রাজ্যের এজির দিকে ছুড়ে দেন।  তিনি জিজ্ঞাসা করেন নিত্যপ্রয়োজনীয় জিনিসপত্রের দাম বাড়ছে, সেক্ষেত্রে রাজ্য কীসের ভিত্তিতে ডিএ ঠিক করে? এসি ঘরে বসে কি এইসব ঠিক করা হয়? উত্তরে এজি জানান, রাজ্য সরকারী কর্মচারীরা ঠিক করতে পারে না  রাজ্য সরকার কত ডিএ দেবে, আবার কেন্দ্রের সম পরিমাণ ডিএও দাবি করতে পারে না কর্মচারীরা। স্যাটও এ কথা জানিয়েছে। এরপর বিচারপতি জানতে চান কীসের ভিত্তিতে স্যাট এ কথা জানাল। এর  কোনও প্রামান্য নথি তাঁদের কাছে রয়েছে কি? এব্যাপারে আগামীকাল  আবার শুনানি হবে বলে জানা যায়। বর্তমানে ডি এ  মামলা এখন বিচারাধীন হাইকোর্টের ডিভিশন বেঞ্চে।    

  • মন্ত্রী শুভেন্দু অধিকারী অধিকারীর বিরুদ্বে গুন্ডাগিরির অভিযোগ আনলেন মহঃ সেলিম।

    Newsbazar, ডেস্ক,৫ জুনঃ সিপিএম নেতা ও সাংসদ মহম্মদ সেলিম, মালদা জেলা তৃণমূলের পর্যবেক্ষক তথা রাজ্যের  পরিবহন মন্ত্রী শুভেন্দু অধিকারীর বিরুদ্বে গুন্ডাগিরির অভিযোগ আনলেন। আজ মালদা জেলায় নব নির্বাচিত দলীয় পঞ্চায়েত প্রতিনিধিদের নিয়ে বৈঠকে তিনি মন্তব্য করেছিলেন , মুর্শিদাবাদের কায়দায় মালদা দখল করা হবে। শুধু ত্রিস্তর পঞ্চায়েতের নেতারাই নন, জেলার প্রথম সারিরে সমস্ত নেতারাও আমরা সঙ্গে যোগাযোগ করছেন দলে আসার জন্য। তাঁর কথায়, নির্বাচনে তৃণমূল ইতিমধ্যেই পঞ্চায়েতের ৭০ শতাংশ আসন দখল করেছে। বাকি ৩০ শতাংশও জোড় করে দখল করবেন। কেউ থাকবে না বিরোধী আসনে। তৃণমূলের উন্নয়নের নৌকায় আসবেন সবাই। এই মন্তব্যের প্রতিক্রিয়া  দিতে গিয়ে সেলিম বলেন, শুভেন্দুবাবু একজন মন্ত্রী বা জনপ্রতিনিধিদের মত কথা বলছেন না, তিনি একজন গুণ্ডা মস্তানের মত কথা বলছেন, তিনি বলছেন সব দখল করে নেবেন, তার কথা বলার ভঙ্গিমা  দেখে  তাকে একজন মন্ত্রী বলে মনে হয় না। তারপর বলছেন জনপ্রতিনিধিরা সব তৃণমূলে চলে আসবে। জনপ্রতিনিধি তো নির্বাচিত হন, আর তা ভিন্ন যেটা হয়, তা হল গরু-ছাগলের মতো কেনাবেচা। তাহলে কি তারা  জনপ্রতিনিধিদের গরু-ছাগলের মতো কেনাবেচা করবেন।  সেলিম আরও বলেন , শুভেন্দু অধিকারী আগে স্থির করুন, তিনি কার হয়ে কাজ করবেন, তারপর বড় বড় কথা বলবেন।  তিনি এখন  মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের হয়ে সাফাই গাইছেন । তিনি এর আগে বিজেপি সভাপতি অমিত শাহকে হাত করে সিবিআইয়ের জেরা থেকে রেহাই পেয়েছেন। এখন তিনি কার হয়ে কাজ করছেন বোঝা দায়।  সিবিআই একটু চুপচাপ হওয়াতে  এখন আবার মমতা-মমতা করছেন। ওনার পূর্ব মেদিনীপুরের নন্দীগ্রামে  তৃণমূল তৃনমূলকে মারছে মহিলাদের ইজ্জত  লুট করছে। বিরোধীমুক্ত করার নামে সাধারন মানুষের উপর আক্রমণ নামিয়ে নিয়ে আনছে, তাইতো আজ জঙ্গলমহলের মানূষ তৃনমুলের কাছ থেকে মুখ ফিরিয়ে নিচ্ছে।       

  • আন্দোলনের নতুন দিশায় ভাঙরবাসী

    Newsbaar ডেস্ক, ৪ই জুনঃ ভাঙড়ের জমি রক্ষা কমিটির অন্যতম নেতা  অলীক চক্রবর্তী সহ গ্রেপ্তার হওয়া সকলের নিঃশর্ত মুক্তির দাবিতে  জমি রক্ষা কমিটি নানা কর্মসূচি নিয়েছে। রবিবার থেকে  তার শুরু করেছেন  নতুন দুই কর্মসূচি। রবিবার সন্ধেয় বিভিন্ন গ্রামে মশাল ও লাঠি নিয়ে মিছিল হয়। একঘণ্টা নিষ্প্রদীপ রাখায় হয় মাছিভাঙা, খামারআইট-এর মতো গ্রাম। অপরদিকে, একই দাবীতে  সোমবার বিকেলে মৌলালি মোড় থেকে বিক্ষোভ মিছিলের ডাক দিয়েছে ভাঙর আন্দোলন সংহতি কমিটি। নেতাকে  গ্রেফতার  করা হলেও,  আন্দোলন থেকে পিছিয়ে আসতে  চায় না ভাঙড়ের জমি রক্ষা কমিটি। আন্দোলন জারি রাখতে শুরু হয়েছে নতুন কর্মসূচি। সন্ধেয় মশাল মিছিলেল আয়োজন শুরু হয়েছে রবিবার থেকে। গ্রাম একইসঙ্গে একঘণ্টা নিষ্প্রদীপ রাখার কাজও শুরু হয়েছে। এদিকে  আটক  নেতা অলীক চক্রবর্তীক হটাত অসুস্থ হয়ে পড়ায়  দক্ষিণ কলকাতার একটি নার্সিং হোমে ভর্তি করানো হয়েছে। পুলিশের তরফ থেকেই এই ভর্তি করানো হয়। বারুইপুর আদালতে অলীক চক্রবর্তীর আইনজীবী তাঁর মক্কেলকে এসএসকেএম হাসপাতালে রেখে চিকিৎসার আবেদন করলে তা খারিজ করে দেন বিচারক। পুলিশেকেই ব্যবস্থা নেওয়ার নির্দেশ দেন অতিরিক্ত মুখ্য বিচারবিভাগীয় বিচারক। রবিবার বারুইপুর মহকুমা হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হলে চিকিৎসকরা তাঁর চিকিৎসা সংক্রান্ত কাগজপত্র খতিয়ে দেখেন। এরপর চিকিৎসকরা পুলিশকে জানান, জটিল আলসারে আক্রান্ত অলীক চক্রবর্তী। তাঁর পাকস্থলীও ক্ষতিগ্রস্ত। এরপরেই জেলা পুলিশের কর্তারা অলীক চক্রবর্তীকে দক্ষিণ কলকাতার নার্সিংহোমে ভর্তি করার সিদ্ধান্ত নেন। এদিকে তাঁর স্ত্রী তথা ভাঙর আন্দোলনের অপর নেত্রী শর্মিষ্ঠা চৌধুরী তার স্বামীর    বর্তমান অবস্থার জন্য রাজ্য সরকাকে দায়ী করেছেন । অলীক চক্রবর্তীর বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলা দেওয়া হয়েছে বলে অভিযোগ করেছেন তিনি। যদিও সেই অভিযোগ উড়িয়ে দিয়েছেন, বারুইপুরের পুলিশ সুপার অরিজিৎ সিং।  

  • দুলাল কুমারের মৃত্যু নিয়ে আত্মহত্যার তত্ত্ব খারিজ করে সিবিআই তদন্তের দাবি রাজ্য বিজেপির

    Newsbazar ডেস্ক, ৩রা জুনঃ পুরুলিয়ায় পরপর দুই বিজেপি কর্মীর মৃত্যুর জন্য   রাজ্যের শাসকদল  তৃণমূলকে দায়ী করেছে রাজ্য বিজেপি। এর মধ্যেই পুরুলিয়ার নতুন পুলিশ সুপারও জানালেন  দুলাল কুমার আত্মহত্যা করেছেন। তবে এই  আত্মহত্যার তত্ত্ব মানতে নারাজ বিজেপি রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ। তিনি বলেন , প্রয়োজনে তাঁরা কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রক, এমনকী রাষ্ট্রপতির কাছেও দরবার করবেন, পাশাপাশি সিবিআই তদন্তের দাবিতে হাইকোর্টে আবেদন জানাবেন। তিনি আরও বলেন ময়না তদন্তের আগে যেখানে পুলিশ সুপার আত্মহত্যার তত্ত্ব খাড়া করেছেন সেখানে কোন সরকারী ডাক্তারের সাহস আছে তার বিরুদ্বে রিপোর্ট দেবার।   আজ সরকারীভাবে ময়নাতদন্তের রিপোর্ট-এ দুলাল কুমারের মৃত্যুকে আত্মহত্যা বলেই জানানো হয়েছে। ময়নাতদন্তের এই রিপোর্ট অবশ্য মানতে নারাজ বিজেপির রাজ্য নেতৃত্ব। তাঁরা মনে করছেন রাজ্য  প্রশাসন সিআইডি তদন্তের নামে ধামাচাপা দেওয়ার চেষ্টা করছে । দিলীপ ঘোষ বলেন, আমরা ওই রিপোর্ট মানি না, আমরা এই ঘটনার সিবিআই তদন্ত দাবি করছি। তিনি বলেন, পুরুলিয়ার দুই কর্মীকে খুন করা হয়েছে, তা আত্মহত্যা বলে আমাদের বুঝিয়ে দিলেই হবে না। আমরা এই দুই ঘটনার সিবিআই তদন্তের দাবিতে হাইকোর্টে আবেদন জানাব। এমনকী প্রধানমন্ত্রী, রাষ্ট্রপতির কাছেও দরবার করব সিবিআই তদন্ত চেয়ে। পাশাপাশি লকেট  চট্টোপাধ্যায় দুলাল কুমারের বাড়িতে দাঁড়িয়েও জানিয়ে দেন  রাজ্যের আত্মহত্যার তত্ত্ব আমরা মানি না। শনিবার  বলরামপুরের দাভাগ্রামে বিদ্যুতের হাইটেনশন লাইনের টাওয়ার থেকে দুলাল কুমারের  ঝুলন্ত দেহ উদ্ধার করা হয়। তারপরই সেই মৃত্যু নিয়ে শাসক-বিরোধী তরজা শুরু হয়। এরই মধ্যে ময়নাতদন্তের রিপোর্টের আগে বিজেপি কর্মীর মৃত্যুকে আত্মহত্যা বলে ব্যাখ্যা করে বরখাস্ত হন পুরুলিয়ার এসপি জয় বিশ্বাস। তাঁর স্থলাভিষিক্ত হন আকাশ মাগারিয়া। এদিন ময়নাতদন্তের রিপোর্টের পর নতুন এসপিও জানান, দুলাল কুমারের মৃত্যু আত্মহত্যাই।  

  • টিএমসিপির গোষ্ঠীদ্বন্দ্ব'এ কলেজের ছাত্রনেতাকে নগ্ন করে হেনস্থায় অভিযুক্ত ইউনিট সভাপতি

    Newsbazar ডেস্ক, ৩রা জুনঃ উত্তর কলকাতার সেন্ট পলস কলেজে তৃণমূল ছাত্র পরিষদের গোষ্ঠীদ্বন্দ্বে ছাত্র সংসদের এক  পদাধিকারীকে নগ্ন করে হেনস্থার অভিযোগ। তিনি স্টুডেন্টস এইড ফান্ড-এর হিসেব দাবী করেছিলেন বলে তাকে হেনস্থা করা হয়েছে বলে অভিযোগ।  আক্রান্ত ছাত্রের পক্ষ থেকে কলেজ কর্তৃপক্ষের কাছে অভিযোগ জানানো হয়েছে। কলেজের এক ছাত্র ছাড়াও, এক অশিক্ষককর্মী এবং তৃণমূলের এক বহিরাগত  ছাত্রনেতা নাম শেখ এনামুল হক ওরফে তপু এই  ঘটনায় যুক্ত বলে অভিযোগ। ঘটনায় দোষীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির আশ্বাস দিয়েছেন, টিএমসিপি সভানেত্রী জয়া দত্ত। অভিযোগকারী ছাত্র সেন্ট পলস কলেজের ছাত্র এবং তৃণমূল ছাত্র পরিষদ পরিচালিত সংসদের গুরুত্বপূর্ণ পদাধিকারী। কলেজ সূত্রে জানা যায়    তিনি কলেজ কর্তৃপক্ষের কাছে কলেজের টিএমসিপি ইউনিটের সভাপতি, এক অশিক্ষককর্মী এবং বহিরাগত এক টিএমসিপি সদস্যের বিরুদ্ধে অভিযোগ জমা দিয়েছেন।  তিনি জানিয়েছেন, স্টুডেন্টস এইড ফান্ড-এর হিসেব চাওয়ায় তাকে হেনস্থা করা হয়েছে।  অভিযুক্ত তিনজন কলেজের ভিতরেই তাকে  নগ্ন করে  ছবি তোলে। এমন কী ঐ  অবস্থায় ছুটে পালানোর সময়ও অভিযুক্তরা ছবি তোলে বলে অভিযোগ। অভিযোগকারী ছাত্র প্রমাণ হিসেবে সেই ভিডিও সামনে এনেছেন। তার আরও অভিযোগ  ঘটনার সময় তৃণমূল ছাত্র পরিষদের অন্যতম সাধারণ সম্পাদক আব্দুল কায়ুম মোল্লাও ঘটনাস্থলে ছিলেন। যদিও সেই অভিযোগ অস্বীকার করেছেন আব্দুল কায়ুম মোল্লা। অন্যদিকে ঘটনাটিকে রাজনৈতিক উদ্দেশ্য প্রণোদিত বলেছেন, অভিযুক্ত ছাত্রনেতা শেখ এনামুল হক।   এই ঘটনাকে কেন্দ্র করে তৃনমূল ছাত্র পরিষদের 'গোষ্ঠীদ্বন্দ্ব' প্রকাশ্যে এল। ঘটনার  দায় এড়াতে একদিকে যখন টিএমসিপির রাজ্য সভাপতি জয়া দত্ত যখন বলছেন, সেন্ট পলস কলেজে টিএমসিপির কোনও ইউনিটই নেই। ঠিক তখনই প্রাক্তন সভাপতি শঙ্কুদেব পণ্ডা আক্রান্ত ছাত্রের পাশে দাঁড়ানোর কথা জানিয়েছেন। অভিযুক্তরা গ্রেফতার না হওয়া পর্যন্ত লড়াই চালাবেন বলে জানিয়েছেন শঙ্কুদেব পণ্ডা। শঙ্কুদেব পণ্ডা তার ফেসবুক পোস্টে জানিয়েছেন, ফেসবুক পোস্ট করার জন্য তিনি ক্ষমা চাইছেন। কেননা তার অন্য কোনও উপায় নেই। তাকে অনেক জুনিয়ার  টিএমসিপি কর্মী ইনবক্সে এসএমএস করেছেন বলে জানিয়েছেন শঙ্কুদেব।তিনি আরও লিখেছেন  যাঁরা এই ধরনের কাজ করেছেন, তারা রাজনৈতিক কর্মীই নন। বলেছেন শঙ্কুদেব। অবিলম্বে অভিযুক্তদের গ্রেফতারের দাবি তুলেছেন  তিনি। শঙ্কুদেব পণ্ডা ছাত্র আন্দোলন নিয়ে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের কথাও তুলে ধরেছেন। তিনি বলেছেন, নেত্রী বলেছেন যারা ছাত্র আন্দোলন করে তাদের নীতিবোধ থাকে। তারা লড়াই করতে জানে।  যতদিন পর্যন্ত অভিযুক্তদের গ্রেপ্তার না করা  হবে ততদিন তোমাদের লড়াইয়ে আমিও আছি।    

  • কমল পেট্রোল-ডিজেলের দাম

    news bazar24:কমল পেট্রোল-ডিজেলের দাম,লিটার প্রতি ৯ পয়সা করে কমল পেট্রোল ও ডিজেলের দাম। কলকাতায় পেট্রোলের দাম দাঁড়াল লিটার প্রতি ৮০ টাকা ৮৪ পয়সা। ডিজেলের দাম ৭১ টাকা ৬৬ পয়সা। দাম সামান্য কমার পর দিল্লিতে এখন পেট্রোলের দাম লিটার প্রতি ৭৮ টাকা ২০ পয়সা। মুম্বইয়ে পেট্রোলের দাম দাঁড়িয়েছে ৮৬ টাকা ১ পয়সা। চেন্নাইয়ে দাম ৮১ টাকা ১৯ পয়সা। দিল্লিতে এক লিটার ডিজেলের দাম ৬৯ টাকা ১১ পয়সা। মুম্বাইয়ে ৭৩ টাকা ৫৮ পয়সা ও চেন্নাইয়ে দাম ৭২ টাকা ৯৭ পয়সা।

  • বিপজ্জনক বাড়ির ভিতর-বাইরের গাছ কাটবে পৌরনিগম

    news bazar24: বিপজ্জনক বাড়ির ভিতর-বাইরের গাছ কাটবে পৌরনিগম,কলকাতায় প্রায় ৩ হাজারের মতো বিপজ্জনক বাড়ি রয়েছে। কিন্ত বাড়ি ভাঙতে গিয়ে নানা সমস্যার সম্মুখীন হতে হচ্ছে কলকাতা পৌরনিগমকে। ওইসব বাড়ির ভিতরের ও বাইরের গাছগুলিও যেকোনও সময় বিপদের কারণ হতে পারে। ত্রদিকে বর্ষা ঘাড়ের উপর নিশ্বাস ফেলছে। এই অবস্থায় গাছগুলি কেটে ফেলার উদ্যোগ নিল কলকাতা পৌরনিগম। পৌরনিগমের বিল্ডিং বিভাগ সূত্রে খবর, আগামী ১৫ দিনের মধ্যে বিপজ্জনক বাড়ির ভিতরে বা বাইরে যে সমস্ত গাছ আছে, তাঁর তালিকা বানাতে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে সমস্ত বরোকে। বিপজ্জনক বাড়ি সংক্রান্ত বিষয়ে গত বছরের এপ্রিলে কলকাতা পৌর আইনে ৪১২ এ ধারাটি যুক্ত করা হয়। কিন্ত এই আইনের প্রয়োগ করেও পৌরনিগম বাগে আনতে পারছে না বিপজ্জনক বাড়ির মালিকদের। বিল্ডিং বিভাগ যদিও বিপজ্জনক বাড়ি ইতিমধ্যেই ভাঙতে শুরু করেছে। বিপজ্জনক বারি ভাঙতে সমস্যার কথা স্বীকার করেছে কলকাতা পৌরনিগম। তাই এবার আপৎকালীন ব্যবস্থা হিসাবে বিপজ্জনক বাড়ির ভিতরে এবং আশপাশের গাছ কেটে ফেলার সিদ্ধান্ত নিল। বিল্ডিং বিভাগ ইতিমধ্যেই নির্দেশ পাঠিয়েছে সমস্ত বরোতে। মৌলালির একটা বাড়িতে গাছ কাটার নির্দেশ ইতিমধ্যে দেওয়া হয়েছে বলে জানা গেছে।

  • আবারউত্তপ্ত ভাঙড়, ভাঙড়ের বিভিন্ন জায়গায় রাস্তা অবরোধ করে দফায় দফায় বিক্ষোভ

    Newsbazar,ডেস্ক, ১ জুনঃ আবারউত্তপ্ত ভাঙড়। ভাঙড় আন্দোলনের অন্যতম কান্ডারী অলীক চক্রবর্তীকে  গ্রেফতারের প্রতিবাদে  শুক্রবার সকাল থেকে ভাঙড়ের বিভিন্ন জায়গায় রাস্তা অবরোধ করে দফায় দফায় বিক্ষোভ চালান ভাঙড়বাসীরা। জমি-জীবিকা, বাস্তুতন্ত্র ও পরিবেশ রক্ষা কমিটির সদস্যরা হাডোয়া রোডের উপর গাছের গুঁড়ি ফেলে অবরোধ শুরু করে। কমিটির পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, তাঁদের নেতাকে গ্রেফতার করে আন্দোলন কে দমিয়ে রাখা যাবে না। এদিন আন্দোলনকারীদের পক্ষ থেকে অনির্দিষ্টকালীন বিক্ষোভের ডাক দেওয়া হয়েছে। শুক্রবার সকাল থেকে হাড়োয়া-লাউহাটি রোডের বিভিন্ন জায়গায় গাছের গুঁড়ি ফেলে, বাঁশ দিয়ে গেট তৈরি করে অবরোধে সামিল হন ভাঙড়ে পাওয়ার গ্রিড বিরোধী আন্দোলনকারীরা। এই অবরোধের জেরে এলাকায় যান চলাচল কার্যত বন্ধ হয়ে যায়। উল্লেখ্য বৃহস্পতিবার ভুবনেশ্বর থেকে গ্রেফতার করা হয় ভাঙড় আন্দোলনের অন্যতম নেতা  অলীক চক্রবর্তীকে। তাঁকে যেভাবে গ্রেফতার করা হয়েছে, তা বেআইনি বলে ব্যাখ্যা করে আন্দোলনকারীরা বৃহস্পতিবার রাতে এর প্রতিবাদে মশাল মিছিল করেন আন্দোলনকারীরা। আজ সকাল থেকে পাওয়ার গ্রিড সংলগ্ন এলাকায় সব রাস্তায় অবরোধ করা হয়। নতুনহাট, খামারআইট, পদ্মপুকুর, বকডোবায় রাস্তা অবরোধ করা হয়। এদিন বিকেলে মাটিডাঙা থেকে একটি মহামিছিল বের হবে বলে জানান আন্দোলনকারীরা।পথে নামে। আন্দোলনকারীদের আরও দাবি, অলীক চক্রবর্তী অসুস্থ, তাঁকে অবিলম্বে মুক্তি দিতে হবে। যতক্ষণ না মুক্তি দেওয়া হচ্ছে, ততক্ষণ এই অবরোধ চলবে। প্রসঙ্গত দক্ষিণ ২৪ পরগনার ভাঙড়ে পাওয়ার গ্রিডের জমি নেওয়াকে কেন্দ্র করে আন্দোলন শুরু  হয়েছিল। পাওয়ার গ্রিডের জন্য জমি দিতে নারাজ এলাকাবাসীদের অধিকাংশদের  নিয়ে আন্দোলনে নেতৃত্ব দেন সিপিআইএমএল-র  অলীক চক্রবর্তী ও  শর্মিষ্ঠা চৌধুরী সহ আরও অনেকে। ভাঙড়বাসীর স্বতঃস্ফূর্ত অংশগ্রহণে  আন্দোলন চরম আকার ধারণ করে, আন্দোলনকারীদের শায়েস্তা করতে গিয়ে রক্তও ঝরে। শাসকদলের অভিযোগ, এই আন্দোলনে মাওবাদী-যোগ রয়েছে। তারাই  ভাঙড়ের মানুষকে ভুল বোঝাচ্ছেন  এবং এলাকায় উত্তেজনা  তৈরী করছেন।    

  • টাকা তোলার আরও একটি মামলায় আদালতে চাপ বাড়ল মুকুল রায়ের

    News bazar24:রেলে চাকরি দেওয়ার নামে টাকা তোলার মামলায় আদালতে চাপ বাড়ল মুকুল রায়ের।একই ধরনের আরও ন’টি মামলার শুনানিতে রাজ্যের শীর্ষ আদালত মুকুল রায়ের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা না নিতে অন্তর্বর্তী নির্দেশ জারি করেছে।চাপ বাড়লেও স্বস্তিতে রয়েছে মুকুল রায়। বছরখানেক আগে এই সংক্রান্ত ৯টি মামলা দায়ের হয় বীজপুর থানায়। মুকুল রায়ের ভায়রাভাই সৃজন রায়কে গ্রেফতার করা হয় দিল্লি বিমানবন্দর থেকে। অভিযুক্তের বিরুদ্ধে বিশ্বাসভঙ্গ, জালিয়াতি, প্রতারণার মতো মারাত্মক অভিযোগ রয়েছে । সেখানে মুকুল রায়েরও নাম আসে। যদিও মুকুল রায় আগেই অভিযোগ করেছেন বিষয়টি রাজনৈতিক উদ্দেশ্যে করা হচ্ছে। তাকে অন্তর্বর্তী নির্দেশ দিয়েছিলেন বিচারপতি শিবকান্ত প্রসাদ। অন্য একটি মামলায় একই অভিযোগে জগদ্দল থানা মুকুল রায়ের তরফে জরুরি ভিত্তিতে শুনানি চাওয়া হয়েছিল, শুনানিতে তদন্তে স্থগিতাদেশ চাওয়া হলে আদালত তা দেয়নি। 

  • মহেশতল উপনির্বাচনের ভোট বৃদ্ধিতে তৃনমূলকে পিছনে ফেলল বিজেপি, ক্ষয় অব্যাহত সিপিএমের।

    Newsbazar ডেস্ক,৩১শে মেঃ মহেশতলা বিধানসভা উপনির্বাচনে দুই বছরে তৃণমূলের ভোট বাড়ল ১১,১৪৩ টি। কিন্তু অন্যদিকে, বিজেপির ভোট বেড়েছে ২৭,০৮৪। তৃণমূলের সঙ্গে ব্যবধান  ৬২৮৯৬ ভোটের।  স্বাভাবিকভাবেই , এই ভোট বৃদ্ধিতে উৎফুল্ল গেরুয়া শিবির। অন্যদিকে ২ বছরে ক্ষয়িষ্ণু সিপিএম-এর ভোট কমেছে ৫০,৯০৭ টি। রাজ্যের রাজনৈতিক মহলের বিশ্লেষনে  দেখা যায় সিপিএম থেকে সরে যাওয়া ভোটের সিংহভাগ গিয়েছে বিজেপির দিকে। আর কিছুটা পেয়েছে তৃণমূল। এই ফল নিয়ে অনেক চুলচেরা বিশ্লেষন হবে, অনেক কাঁটা ছেঁড়া হবে, কিন্তু  এক কথায় এটাই বাস্তব যে ক্ষয়িষ্ণু সিপিএম-এর ভোট গেরুয়া শিবিরের দিকেই গিয়েছে।   শতাংশের নিরিখে আমরা যদি দেখি ২০১৬-র বিধানসভা নির্বাচনে তৃণমূলের প্রাপ্ত ভোট ৪৮.৬ শতাংশ। সিপিএম-এর ক্ষেত্রে ৪২.২০ শতাংশ এবং বিজেপির ক্ষেত্রে ৭.৭০ শতাংশ। দুই বছরের মধ্যেই শতাংশের নিরিখে ২০১৮-র বিধানসভা উপনির্বাচনে  তৃণমূলের ক্ষেত্রে ভোট বেড়েছে  প্রায় ১০ শতাংশ। হয়েছে প্রায় ৫৮ শতাংশ। অন্যদিকে, বিজেপি ভোট বাড়িয়েছে প্রায় ১৬ শতাংশ। হয়েছে ২৩ শতাংশ। আর রাজ্যে বামদলগুলি যে ক্ষয় যে অব্যাহত তা আবারও প্রমাণ  করে দিল মহেশতলা। একসময়ের বাম দুর্গ মহেশতলায় সিপিএমের ভোট ২৫ শতাংশ কমে হয়েছে ১৭ শতাংশ। যেখানে তৃণমূলের ভোট বেড়েছে প্রায় ১০ শতাংশ, সেখানে বিজেপির ভোট বেড়েছে ১৬ শতাংশ। একনজরে দেখে নেওয়া যাক দুই বছরে তিন রাজনৈতিক দলের ভোটের হিসেব নিকেশ  

  • মহেশতলায় ৬২ হাজারেরও বেশি ভোট পেয়ে জয়ী তৃণমূল

    News bazar24 :শেষমেশ যে ব্যবধানটা এতটা বেশি হবে, তা নিয়ে হয়তো কিছুটা হলেও সংশয়ে ছিলেন খোদ দক্ষিণ ২৪ পরগনার মহেশতলার তৃণমূল কংগ্রেস প্রার্থী দুলাল দাস। ৬২ হাজারেরও বেশি ভোট পেয়ে জয়ী হয়েছেন তিনি। মহেশতলায় ধারেকাছেও ঘেঁষতে পারল না বিজেপি। জয়ের বিশাল এই ব্যবধানে দুলাল দাস বলেন, ‘‘কিছুটা মনে করেছিলাম, তবে মুখে আগে কিছু বলিনি।‘’ তৃণমূল বিধায়ক কস্তুরী দাসের মৃত্যুতে ২৮ তারিখ এই কেন্দ্রে উপনির্বাচন হয়। কেন্দ্রীয় বাহিনীর তত্ত্বাবধানে শান্তিতেই হয় ভোট। বৃহস্পতিবার গণনা শুরু কিছুপর থেকেই সবুজ ঝড়ের ইঙ্গিত মিলেছিল। প্রত্যেক রাউন্ডেই ব্যাপক ব্যবধান রাখছিল তৃণমূল। প্রথমে সিপিএম দ্বিতীয় স্থানে থাকলেও, কয়েক রাউন্ড পর থেকে দ্বিতীয় স্থানে উঠে আসে বিজেপি। ১৪-১৫ রাউন্ড গণনার পর থেকেই কার্যত বিজয়োল্লাসে মেতেছিলেন দুলাল অনুগামীরা। ২২ তম রাউন্ডের গণনা শেষে বেজে ওঠে ঢাক, হাওয়ায় ভাসে সবুজ আবির। জয় তো হবেই, সে ব্যাপারে নিশ্চিত ছিলেন মহেশতলায় তৃণমূলের পর্যবেক্ষক ফিরহাদ হাকিম ও তৃণমূল প্রার্থী দুলাল দাস। কিন্তু কত ব্যবধানে জয় হবে, তা নিয়ে আগেভাগে কোনও কথা বলতে চাননি তাঁরা। জয়ের পরই মুখ খোলেন ববি-দুলাল। তৃণমূল প্রার্থীর এই বিপুল ভোট পাওয়ার পিছনে কী রহস্য কাজ করেছে? দুলাল দাস জানাচ্ছেন, ‘‘রহস্যটি উন্নয়ন। সারা পশ্চিমবঙ্গের মতো মহেশতলাতেও প্রচুর উন্নয়নের কাজ হয়েছে।

  • নিজের মৃত্যুসংবাদ পড়তে পড়তে সকালের চায়ে চুমুক দিলেন শ্রীলেখা মিত্র

    news bazar24:নিজের মৃত্যুসংবাদ পড়তে পড়তে সকালের চায়ে চুমুক দিলেন শ্রীলেখা মিত্র। তারপর অভিনেত্রী নিজেই লিখলেন নিজের ফেসবুক প্রোফাইলে। ‘ আমি নাকি পাস্ট টেন্স…RIP’। সঙ্গে সেই খবরটির ক্লিপিংস, যেখান থেকে বিভ্রান্তির শুরু।শ্বাসকষ্টের সমস্যা নিয়ে হাসপাতালে হর্তি হয়েছিলেন শ্রীলেখা। তখন একটি ইউটিউব চ্যানেল এমনভাবে শিরোনাম করে‚ এক ঝলকে মনে হয় যেন শ্রীলেখার মৃত্যু হয়েছে। সেই খবরের শিরোনামে লেখা ছিল ‘ অসুস্থ হয়ে সবাইকে কাঁদিয়ে চলে গেলেন নায়িকা শ্রীলেখা মিত্র হাসপাতালে `।গত সপ্তাহে মুক্তি পেয়েছে রেনবো জেলি। সেখানে শ্রীলেখা মিত্র পরীপিসি। নির্যাতিত ছোট্ট ছেলে ঘোতনের জীবনে তাঁর ভূমিকা অ্যাঞ্জেলের মতোই।এমন এক সময়ে কিনা সোশ্যাল মিডিয়ায় ঘুরছে শ্রীলেখার চলে যাওয়ার ভুয়ো খবর ।তবে শ্রীলেখা-অনুগামীদের কাছে ভরসার কথা‚ প্রচলিত বিশ্বাস বলে‚ ভুয়ো মৃত্যু সংবাদ রটলে তাঁর আয়ুবৃদ্ধি পায়। এখন ইন্টারনেটের অন্যতম কুফল হল হোক্স নিউজ বা ভুয়ো খবর। অনেক সময়েই নির্দিষ্ট পাতার ভিউজ বাড়ানোর জন্য এসব কারসাজি করে থাকে কোনও কোনও সাইট , এতে সাময়িকভাবে উদ্দেশ্য হয়তো পূরণ হয়। কিন্তু দীর্ঘ সময়ের ক্ষেত্রে দর্শকদের কাছে সেই সাইট তার গ্রহণযোগ্যতা হারায়।