হাওড়া - হুগলী

  • রাজ্যে শিল্পায়নের দাবিতে সিঙ্গুর থেকে রাজভবন পর্যন্ত পদযাত্রায় সারা ভারত কৃষক সভা

    Newsbazar 24 ডেস্ক, কলকাতা, ২৮ নভেম্বর : সারা ভারত কৃষকসভার তরফ থেকে সিঙ্গুর-সহ রাজ্যে শিল্পায়নের দাবিতে  সিঙ্গুর থেকে রাজভবন পর্যন্ত  পদযাত্রার আয়োজন করা হয়েছিল। আজ  সকালে সিঙ্গুর থেকে পদযাত্রার সূচনা করেন প্রাক্তন সাংসদ হান্নান মোল্লা। আজ সারাদিন চলার পর আগামীকাল  ২৯ নভেম্বর পদযাত্রা শেষে  রানি রাসমনি রোডে সমাবেশের আয়োজন করা হয়েছে সারা ভারত কৃষকসভার তরফ থেকে। জমিতে চাষ নেই, হাতে কাজ নেই এই স্লোগানের মধ্য দিয়ে শুরু হলো সিঙ্গুর থেকে রাজভবন অভিযান। রাজ্যের কয়েক হাজার কৃষক, খেতমজুর সিঙ্গুর রতনপুর মোড়ে বুধবার সকাল দশটায় ৫২ কিলোমিটার দীর্ঘ পদযাত্রার সূচনা করেন সারা ভারত কৃষকসভার সর্বভারতীয়  সাধারণ সম্পাদক হান্নান মোল্লা।পদযাত্রা উদ্বোধন করে হান্নান মোল্লা বলেন, সিঙ্গুরের মানুষ প্রতারিত হয়েছেন। সিঙ্গুরে শিল্পায়ন হয়নি, চাষও হয়নি। সিঙ্গুর নিয়ে মুখ্যমন্ত্রী মিথ্যা কথা বলছেন। তিনি  আরও অভিযোগ করেন  কৃষকদের ফসলের ন্যায্যমূল্যের দাম যাতে পায় তার কোন উদ্যোগ নেয়নি। কৃষক ও কৃষি নিয়ে হান্নান মোল্লা কেন্দ্রীয় সরকারের তীব্র সমালোচনা করেন।  স্লোগানে স্লোগানে এগিয়ে চলছে পদযাত্রা। কৃষক, খেতমজুর পরিবারসহ সব বেকারের কাজের দাবীতে। পদযাত্রায় অংশগ্রহণকারীদের অভিযোগ কেন্দ্রে মোদী সরকারের  বছরে দু'কোটি বেকারের কর্মসংস্থান আর রাজ্যে মমতা সরকারের মিথ্যা  প্রতিশ্রুতি বছরে দু'লক্ষ বেকারের কর্মসংস্থান। কেন্দ্র ও রাজ্য দুই সরকারই কর্মসংস্থানের প্রশ্নে ব্যর্থ।  আরও অভিযোগ, গত সাড়ে সাত বছরে রাজ্যে গড়ে ওঠেনি একটিও নতুন শিল্প। চাকরি নেই, জব ফেয়ার বাতিল করেছে সরকার, এসএ সি আর টেট পরীক্ষায় সীমাহীন দুর্নীতি। আয় কমছে কৃষিতে। ভারতের জাতিগত আর্থ-সামাজিক গণনার রিপোর্ট অনুযায়ী, গ্রামীণ জনগণের চার ভাগের মধ্যে তিন ভাগের মাসিক আয় ৫০০০টাকার নিচে। অন্যদিকে দেশি-বিদেশি কর্পোরেটের হাতে রয়েছে দেশের সম্পদের সিংহভাগ। মিছিলে অন্যদের মধ্যে অংশ নেন সংগঠনের রাজ্য সম্পাদক অমল হালদার, সারা ভারত খেতমজুর ইউনিয়নের রাজ্য সম্পাদক অমিয় পাত্র, কৃষকসভার হুগলি জেলা সম্পাদক ভক্তরাম পান।  

  • হাওড়ায় চৈতন্য চেতনা পদযাত্রা

    নিজস্ব প্রতিবেদক, হাওড়া: বর্তমানে সমাজের বিভিন্ন স্তরে যে সামাজিক অবক্ষয়, হিংসা, অশান্তি ও হানাহানি শুরু হয়েছে তা রুখতে শ্রীচৈতন্য মহাপ্রভুর দেখানো পথ আজও প্রাসঙ্গিক ।তাই একটি সুস্থ সমাজ গড়ে তুলতে শ্রী গৌড়ীয় মঠ ও মিশনের  শততম বর্ষপূর্তি উপলক্ষে শ্রীচৈতন্য চেতনা পদযাত্রা ও ধর্ম সভা অনুষ্ঠিত হলো হাওড়া শহরে । আজ 25 নভেম্বর পদযাত্রার সূচনা করেন রাজ্যের সমবায় মন্ত্রী  ও স্থানীয় বিধায়ক অরূপ রায়। তিনি বলেন, মানুষের মধ্যে চেতনা এবং নীতিবোধ জাগিয়ে তুলতে শ্রীচৈতন্যের দেখানো পথ আজকের দিনেও খুবই প্রসঙ্গীক। বিজয়ানন্দ স্মারক উদ্যান থেকে পদযাত্রা নেতাজি সুভাষ রোড ,রাম চরণ সেঠ  রোড হয়ে রামরাজাতলা শংকর মঠে গিয়ে শেষ হয়। গৌড়ীয় মিশনের বর্তমান আচার্য ও সভাপতি বিষ্ণুপাদ পরমহংস শ্রীমদ ভক্তি সুন্দর সন্ন্যাসী মহারাজ বলেন ,শ্রীচৈতন্য মহাপ্রভুর ব্যবহৃত জিনিসপত্র এবং তার আদর্শকে বর্তমান প্রজন্মের কাছে তুলে ধরতে বাগবাজার গৌড়ীয় মঠে  শ্রীচৈতন্য মহাপ্রভু মিউজিয়াম তৈরি করা হয়েছে। খুব শীঘ্রই তা সাধারণ মানুষের দর্শনের জন্য খুলে দেওয়া হবে।

  • হুগলীর সভা থেকে ফেরার পথে বিজেপি রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ আক্রান্ত

    Newsbazra 24, ডেস্ক,১৮ই নভেম্বরঃ বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ আবারও আক্রান্ত । তবে রাজ্য সভাপতির গাড়ি অল্পের  জন্য রক্ষা পেলেও বিজেপি নেতা জয় বন্দ্যোপাধ্যায় আহত হয়েছেন বলে বিজেপি সূত্রে জানা গেছে। তাঁর গাড়িতে ভাঙচুর চালানো হয় এবং এর ফলে জয়েরও মাথা ফাটে বলে অভিযোগ। সূত্রে জানা যায় যে রবিবার হুগলির মশাট থেকে সভা সেরে ফিরছিলেন রাজ্য বিজেপি সভাপতি দিলীপ ঘোষ, প্রাক্তন সভাপতি রাহুল সিনহা, মহিলা মোর্চা সভানেত্রী লকেট চট্টোপাধ্যায় ও বিজেপি নেতা জয় বন্দ্যোপাধ্যায় । সেইসময় হুগলির কালীতলায় কালো পতাকা হাতে একদল লোক বিজেপি নেতাদের  পথ আটকায়। বাঁশ দিয়ে জয় বন্দ্যোপাধ্যায়ের গাড়ির পিছনের কাঁচ ভেঙে দেওয়া হয়। আঘাত লাগে জয়েরও। বিজেপি সূত্রে জানানো হয়েছে, মোট পাঁচটি গাড়িতে  হামলা চালানো হয়। জয় ছাড়াও দলের কয়েকজন কর্মী আক্রান্ত হয়েছেন। এই ঘটনায় অভিযোগের তির তৃণমূলের দিকে। হুগলির তৃণমূল তেলা সভাপতি তথা কৃষি বিপণনমন্ত্রী তপন দাশগুপ্তের প্ররোচনায় এই হামলা চলেছে বলে অভিযোগ। তৃণমূল এই অভিযোগ অস্বীকার করেছে। তৃণমূলের দাবি, এই ঘটনা বিজেপির সাজানো। ।  বিজেপি রাজ্য সভাপতি জানিয়েছেন , আজ মশাটে বিজেপির জনসভায় ব্যাপক জনসমাগম হয়েছিল তাই  ভয় পেয়েই তৃণমূল এই কাজ করেছে। এদিকে এই ঘটনার প্রতিবাদে বিজেপির রাজ্য কমিটি আগামীকাল গোটা রাজ্য জুড়ে বিক্ষোভ কর্মসূচীর ডাক দিয়েছে।   

  • তৃনমূল কর্মী খুনে অভিযুক্ত অপর তৃনমূল নেতাকে প্রকাশ্য দিবালোকে গুলি করে খুন।

    Newsbazar 24 ডেস্ক, ২৪ অক্টোবরঃ আবারও প্রকাশ্য দিবালোকে রাস্তায় দুষ্কৃতীরা  তৃনমূল নেতাকে লক্ষ করে গুলি চালাল। পর পর তিনটি গুলি করা হল তাকে। রক্তাক্ত অবস্থায়  তিনি মাটিতে লুটিয়ে পড়েন। হাসপাতালে নিয়ে  যাওয়ার পথে তার মৃত্যু হল। ঘটনাটি ঘটেছে হাওড়ার উলুবেড়িয়া থানার বাহির গঙ্গারামপুরে। এই তৃনমূল নেতার বিরুদ্বে নিজের দলের দুই কর্মী খুনের অভিযোগ রয়েছে। স্থানীয় সূত্রে জানা যায় মঙ্গলবার রাতে হাওড়ার উলুবেড়িয়ায় বাহির গঙ্গারামপুরের তৃণমূল নেতা ইমতিয়াজ আলি স্ত্রীর সঙ্গে  বাড়ি থেকে বেরিয়ে স্থানীয় বাজারে যাচ্ছিলেন মাংস কিনতে। তখনই তিন দুষ্কৃতীকারী  ইমতিয়াজকে লক্ষ্য করে খুব কাছ থেকে গুলি ছোঁড়ে। তিনি মাটিতে লুটিয়ে  পড়েন।  গুলি চালিয়েই পালিয়ে যায় দুষ্কৃতীরা। স্থানীয়রা সঙ্গে সঙ্গে হাসপাতালে নিয়ে যায়। কিন্তু হাসপাতালে গেলে ইমতিয়াজকে মৃত বলে ঘোষণা করেন চিকিৎসকরা। এই ইমতিয়াজ হাওড়ার দ্বীপাঞ্চল ভাটোরার বাসিন্দা । তাঁর বিরুদ্ধে ঐ এলাকার তৃনমূল কর্মী  লালচাঁদ ও মন্মথকে খুনের অভিযোগ রয়েছে।  গত বছর ওই খুনের ঘটনা ঘটেছিল ভাটোরায়। তারপর ইমতিয়াজ গ্রেফতারও হয়েছিল। দিন ১৫ আগে ইমতিয়াজ জামিন পান। কিন্তু ভাটোরা না গিয়ে উলুবেড়িয়ার বাহির গঙ্গারামপুরে ভাড়া বাড়িতে থাকতে শুরু করেন।  পুলিশ জানিয়েছে, এই খুনের পিছনে রয়েছে পুরনো শত্রুতা। ব্যক্তিগত আক্রোশের জেরেই এই খুন করা হয়েছে। দুষ্কৃতীদের খোঁজে তল্লাশি শুরু করেছে পুলিশ। প্রাথমিক তদন্তে পুলিশের অনুমান, এক বছর আগে ভাটোরায় খুনের বদলায় এই খুন হতে পারে।    

  • ৪ বছরের শিশুর পেট থেকে পাওয়া গেল কুলের বীজ, নাটবল্টু কাপড়ের টুকরো ও মাটি

    Newsbazar24,ডেস্ক ,২৫ অগাস্ট : বর্ধমান মেডিক্যাল কলেজ ও হাসপাতালের ডাক্তাররা এক  ৪ বছরের শিশুর পেটের অস্ত্রোপচারের ক্ষেত্রে সফল । পেট থেকে বের করা হল ২০৩ টি কুলের বীজ, একটি নাটবল্টু, বেশ কিছু কাপড়ের টুকরো ও মাটি। শিশুটি বর্তমানে সুস্থ রয়েছে বলে  জানা গেছে।  হুগলির শ্যামবাজারের বাসিন্দা  ৪ বছরের রুইদাসের সমস্যা  শুরু হয়েছিল ৩-৪মাস আগে। শিশু রুইদাসের  পেটে ব্যথার সঙ্গে পেট শক্ত হয়ে যাচ্ছিল। পায়খানায় হচ্ছিল না। প্রথমে আরামবাগ মহকুমা হাসপাতালে ভর্তি করলে  এক্স রে করা হয়। এরপর সেখানকার চিকিৎসকরা শিশু-সহ অভিভাবকদের পাঠিয়ে দেন বর্ধমান মেডিক্যাল কলেজে। ১৪ অগাস্ট শিশুটিকে নিয়ে যাওয়া হয় বর্ধমান মেডিক্যাল কলেজে। চলতে থাকে চিকিৎসা। চিকিৎসকরা অনুমান করেন, পেটে শক্ত কিছু রয়েছে। শিশুটিকে ভর্তি করে নেওয়া হয় সেখানে। নানা পরীক্ষার পর অস্ত্রোপচারের সিদ্ধান্ত নেন চিকিৎসকরা। ২৫ অগাস্ট নরেন্দ্রনাথ মুখোপাধ্যায়ের নেতৃত্বে দশজনের চিকিৎসকদল এই অস্ত্রোপচার করেন। ২০৩ টি কুলের বীজ, নাটবল্টু পাওয়ার পর তাজ্জব হয়ে যান চিকিৎসকরা। শিশুটির অভিভাবকরা জানিয়েছেন, বাড়ির কাছেই একটি কুল গাছ রয়েছে। সেখান থেকেই সে কুল খেতে পারে। মাটি মুখে দিতে তারা দেখেছেন বলে জানিয়েছেন। কিন্তু পেট থেকে যে পরিমাণ মাটি পাওয়া গিয়েছে, সেটা একটু অস্বাভাবিক লেগেছে চিকিৎসকদের। চিকিৎসকরা জানিয়েছেন  শিশুটি মানসিকভাবে সুস্থ নয়। তাই তার সাইকোলজিক্যাল কাউন্সেলিং করা দরকার ।  

  • রাজ্যে খোদ পুলিশের বড় কর্তার বাড়িতেই চুরি

    Newsbazar 24, ডেস্ক, ২৪ জুলাইঃ রাজ্যে খোদ পুলিশের বড় কর্তার বাড়িতেই চুরি। ঘটনাটি ঘটেছে হুগলির আরামবাগের চাঁদুরে। বাড়িতে না থাকার সুযোগে এই চুরি বলে জানা গিয়েছে। খবর পাওয়ামাত্র পুলিশের ছোট বড় কর্তারা ছুটে যান ঘটনাস্থলে কারন এসডিপিওর বাড়ী বলে কথা।  ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে আরামবাগ থানার পুলিশ। এই ঘটনায় স্বভাবতই সাধারণ মানুষের নিরাপত্তা নিয়ে প্রশ্ন তুলতে শুরু করেছেন স্থানীয় মানুষজন।আরামবাগে চাঁদুরে বাড়ি বিষ্ণুপুরের এসডিপিও সুকমলকান্তি দাসের। বিষ্ণুপুরে থাকায় আরামবাগের বাড়িতে সাধারণ কেউ থাকেন  না। রবিবার তিনি বাড়িতে ফিরে দেখেন দরজার তালা ভাঙা। ঘর, আলমারি লণ্ডভণ্ড। স্থানীয় সূত্রে জানা গিয়েছে, কয়েক ভরি গয়না ও নগদ টাকা চুরি গিয়েছে।

  • ধর্ষণ কান্ডে অভিযুক্ত সাংসদকে আদিবাসী উন্নয়ন কমিটির চেয়ারম্যান করা মুখ্যমন্ত্রীর 'স্টান্ট' - দিলীপ ঘোষ।

    Newsbazar24, ডেস্ক, ৮ জুলাইঃ তৃনমূলে আদিবাসী মুখ  খুজে না পায়ে ধর্ষণ কান্ডে অভিযুক্ত সিপিএমের বহিষ্কৃত সাংসদকে আদিবাসী উন্নয়ন কমিটির চেয়ারম্যান করেছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় 'স্টান্ট' দিয়েছেন বলে কটাক্ষ করলেন বিজেপি রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ। তিনি বলেন, মুখ্যমন্ত্রীর এই আদিবাসী উন্নয়ন-ভাবনা  আদিবাসীদের বোকা বানানো ছাড়া আর কিছুই নয়। ঋতব্রতর আদিবাসী উন্নয়ন সম্পর্কে কী ধারণা আছে, তা আগামীদিনে আদিবাসী এলাকার মানুষ বিচার করবে। দিলীপ ঘোষ  হুগলির শ্রীরামপুরে এক অনুষ্ঠানে বলেন, “সিপিএম থেকে বহিষ্কৃত  একজন নেতাকে আদিবাসী কমিটিতে রেখে আদিবাসীদের দলে টানতে চাইছেন  মুখ্যমন্ত্রী।আমি জঙ্গলমহলের মানুষ, আদিবাসীদের সঙ্গে বড় হয়েছি, তাঁদের সঙ্গে খেলাধূলা করেছি। আমি বুঝি, তাঁরা কী চান, জঙ্গলমহলের মানুষেরা বোঝেন তাঁদের চাওয়া। কিন্তু ঋতব্রত বন্দ্যোপাধ্যায়ের মতো কেউ কী করে জানবেন-বুঝবেন আদিবাসীদের যন্ত্রণা! সবই তো চোখ দিয়ে দেখা যায় না, উপলব্ধি করতে হয়”।  এ  প্রসঙ্গেই দিলীপবাবু আরও  বলেন, মুখ্যমন্ত্রী তো প্রতি মাসে একবার করে হলেও জঙ্গলমহলে যান। কিন্তু সেখানকার মানুষের চাওয়া-পাওয়া তিনি বুঝতে পারলেন না । তিনি যদি বুঝতে পারতেন, তাহলে জঙ্গলমহলের মানুষ তৃণমূলকে ভোট না দিয়ে বিজেপিকে ভোট দিতেন না। তৃনমূলকে জঙ্গলমহলের মানুষ বিশ্বাস করেন না।কারন তৃনমূলের স্বঘোষিত আদিবাসী নেতারা নিজের আখের গুছিয়ে বড় বড় অট্টালিকা তৈরী করেছেন। তাই তিনি আদিবাসী উন্নয়নে যতই প্রচেষ্টা নিন না সবি বিফ্লে যাবে।    

  • হুগলির বৈদ্যবাটি স্টেশনে প্রকাশ্য দিবালোকে যুবক খুন আইনশৃঙ্খলা প্রশ্নের মুখে।

    Newsbazar, ডেস্ক, ১৯ জুনঃ হুগলির বৈদ্যবাটি স্টেশনে প্রকাশ্য দিবালোকে বহু মানুষজনের সামনে এক অজ্ঞাত পরিচয় যুবকে খুনকরে পালালো দুই যুবক । ঘটনাটি ঘটেছে আজ মঙ্গলবার বিকেল সাড়ে তিনটে নাগাদ  খবর পেয়েই ঘটনাস্থলে যায় পুলিশ। যুবকের পরিচয় জানার চেষ্টা করছে পুলিশ। খুন হওয়া যুবকের পরিচয়  এখনও জানা যায়নি  বলে খবর পাওয়া গেছে। পরিচয় জানতে পারলেই, খুনের উদ্দেশ্য সম্পর্কে জানা যাবে বলে মনে করছেন তদন্তকারীরা। হুগলির বৈদ্যবাটি স্টেশনে অন্যান্যদের  মতোই ট্রেন থেকে নামেন অজ্ঞাত পরিচয় এক যুবক। স্টেশনে নামার সঙ্গে সঙ্গে তাঁর ওপর ঝাঁপিয়ে পড়ে অপর দুই যুবক। কুপিয়ে স্টেশনেই ফেলে রেখে তারা ভদ্রেশ্বরের দিকে চলে যায় বলে জানিয়েছেন প্রত্যক্ষদর্শীরা। দুই যুবকের হাতে ধারালো অস্ত্র থাকায় কেউই এগোবার সাহস পান নি । দিনের আলোয় প্রকাশ্যে খুন নিয়ে আইনশৃঙ্খলা নিয়ে প্রশ্ন তুলতে শুরু করেছেন স্থানীয় বাসিন্দারা। পুলিশের অনুমান, দুষ্কৃতীরা খুনের নির্দিষ্ট লক্ষ্যেই নিয়েই এসেছিল। আর মৃত যুবকের প্রতি তাদের রাগ এতটাই বেশি ছিল যে যুবককে ছিন্ন ভিন্ন করে দেওয়া হয়। মৃত যুবকের পরিচয় জানার চেষ্টা করছেন তদন্তকারীরা।  

  • এক রাষ্ট্রায়ত্ত ব্যাঙ্কের শাখায় ডাকাতি

    Newsbazar, ডেস্ক, ৬ইমেঃ  আজ দুপুর ২টা নাগাদ ডানকুনিতে  এক রাষ্ট্রায়ত্ত ব্যাঙ্কের শাখায়  ভয়াবহ ডাকাতি। দুপুর  ডাকাত দল আগ্নেয়াস্ত্র নিয়ে  ব্যাঙ্কে ঢোকে বলে জান গেছে ।  অল্প কিছুক্ষণের মধ্যেই তারা কাজ সেরে বেরিয়ে যায়।  এ ঘটনা জানাজানি হতেই  এলাকায় আতঙ্ক  ছড়িয়ে পড়ে। ব্যাঙ্কের পক্ষ থেকে থানায় যোগাযোগ করা হয়  এবং সাথে সাথে পুলিশ সেখানে পৌছায়।  লুট হওয়া টাকার পরিমাণ এখনও জানা যায় নি।   স্থানীয় সূত্রে জানা যায় দুপুর দুটো নাগাদ  ডানকুনি হাউসিং এলাকায় এক রাষ্ট্রায়ত্ত ব্যাঙ্কের শাখায় হানা দেয়, ৭ থেকে ৮ জনের একটি দুষ্কৃতী দল। মটর সাইকেল  চড়েই এসেছিল ডাকাত দল।  আর  ১৫ মিনিট-এর মধ্যেই তারা বেরিয়ে যায়। অস্ত্র নিয়ে তারা ব্যাঙ্কে ঢোকে বলে জানা গিয়েছে। এদের প্রায় সবাই ওড়িয়া ভাষায় কথা বলছিল। খবর পেয়েই ঘটনাস্থলে যায় পুলিশ। যান ওই রাষ্ট্রায়ত্ত ব্যাঙ্কের উচ্চ পদস্থ আধিকারিকরাও।

  • দক্ষিণেশ্বরের গেস্ট হাউসের ঘরের দরজা ভেঙে উদ্ধার দম্পতির দেহ

    ডেস্ক ঃ  দক্ষিণেশ্বরের একটি গেস্ট হাউসের ঘরের দরজা ভেঙে উদ্ধার করা হয় দেহ দুটি। প্রাথমিক তদন্তের পর পুলিসের অনুমান, আর্থিক অনটনের জেরেই আত্মঘাতী হয়েছে দম্পতি। শুক্রবার সন্ধেয় অন্নপূর্ণা গেস্ট হাউসে ওঠেন সত্তর ঊর্ধ্ব সুব্রত নিয়োগী ও তাঁর স্ত্রী কাঁকন নিয়োগী। শনিবার সকালে মন্দিরে যাবেন বলে তাদের ঘুম থেকে ডেকে দেওয়ারও কথা বলেন সুব্রত বাবু। সকালে তাঁদের ঘরে ডাকাডাকি করে কোনও সাড়া না মিলতেই, সন্দেহ হয় গেস্ট হাউজ কর্তৃপক্ষের। তারপরই ভাঙা হয় গেস্ট হাউজের ঘরের দরজা। দেখা যায়, পাশাপাশি 'শুয়ে রয়েছেন' সুব্রত নিয়োগী ও তাঁর স্ত্রী কাঁকন নিয়োগী। কিন্তু শরীরে কোনও প্রাণ নেই। দেহ দুটি উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য পাঠায় পুলিস। গেস্ট হাউজের রেজিস্টারে বৃদ্ধ দম্পতি নিজেদেরকে চারু মার্কেট এলাকার বাসিন্দা নথিভুক্ত করেছিলেন। এই ঘটনায় তদন্ত শুরু করেছে বেলঘরিয়া থানার পুলিস।