���������������

  • ডেস্ক:লায়ন্স ক্লাব অব মালদা অপরাজিত এর উদ্যোগে এক সপ্তাহের রেশন

    ডেস্ক:লায়ন্স ক্লাব অব মালদা অপরাজিত এর উদ্যোগে পুজোর চারদিন সহয়তা শিবির খোলা হলো ।tআজ মহা ষষ্ঠীর পূর্ণ লগ্নের সন্ধ্যায় এই শিবিরের উদ্বোধন করলেন স্বামী সুরতানন্দ জি মহারাজ । উপস্থিত ছিলেন কাউন্সিলর সুমলা আগরওয়ালা।এদিন আর্থিক দিক দিয়ে অভাবী পঞ্চাশটি পরিবার কে এক সপ্তাহের মুদি বাজার প্যাকেট করে উপহার দেন অপরাজিত এর সদস্যরা। ক্লাবের পক্ষে রমা সিনহা জানান, প্রতি বছরই জেলা শাসকের বাংলোর সামনে এই শিবির করা হয়ে থাকে। প্রতি বছর নতুন কিছু করার চেষ্টা করা হয়। এই বছর এক সপ্তাহের রেশন দেওয়া হয়। এছাড়াও পুজোর চারদিন এই শিবিরের পানীয় জল ছাড়াও দর্শনার্থীদের জন্য বিভিন্ন সহয়তার ব্যাবস্থা রাখা হয়েছে।

  • দুঃস্থ মানুষদের মধ্যে নতুন বস্ত্র বিতরণ

    সুমিত ঘোষ:বাঙালির শ্রেষ্ঠ উৎসব শারদ উৎসব কে সামনে রেখে শুভ ষষ্ঠীর সকালে পুরাতন মালদার নারায়ণপুরের পার দিঘি এলাকায় দুঃস্থ মানুষদের মধ্যে নতুন বস্ত্র বিতরণ করলেন বিশিষ্ট সমাজসেবী রঞ্জিত মুসারদি। এদিন তিনি নিজে উদ্যোগ নিয়ে সপরিবারে আদিবাসী অধ্যুষিত এলাকায় পৌঁছে গিয়ে দূঃস্থ প্রায় শতাধিক মানুষদের মধ্যে বস্ত্র বিতরণ করেন এবং কিছু শুকনো খাবার তুলে দেন। এই উদ্যোগকে সাধুবাদ জানিয়েছেন স্থানীয়রা।

  • রাতে উচ্চস্বরে টিভি চালানোর প্রতিবাদ করায় দুই পরিবারে সংঘর্ষ, আহত ৬জন।

    Newsbazar 24 ,ডেস্ক, মালদা, ১৪ অক্টোবর : মালদা শহরের ঝলঝলিয়ার নেতাজি কলোনি এলাকায় অনেক রাতে খুব জোরে  টিভি চালানো নিয়ে বচসার জেরে  আহত হলেন দুই পরিবারের কয়েকজন । তাদের মধ্যে বেশী আহত কয়েকজনকে  মালদা মেডিকেলে ভর্তি করা হয়েছে । রাতেই দুই পরিবারের তরফে থানায় অভিযোগ  জানানো হয়। ঝলঝলিয়ার নেতাজি কলোনি এলাকার বাসিন্দা রাজকুমার দাস(৪৫) , সুবল দাস (৫৮) ও কৃষ্ণ দাস (৫৬)।  এরা পাশপাশি থাকেন অভিযোগ রাজকুমারের ছেলে তাপস প্রতিদিন রাতে খুব জোরে টিভি  চালিয়ে রাখেন। এনিয়ে স্থানীয় বাসিন্দারা বহুবার অভিযোগ জানালেও তাতে কর্ণপাত করেননি তাপস। গতরাতেও একই ঘটনার  পুনরাবৃত্তি ঘটলে  সুবল দাসের  ছেলে জয়ন্ত দাস (২৬) টিভির সাউন্ড কমানোর জন্য রাজকুমারের বাড়িতে বলতে যান। অভিযোগ, সেখানে তাঁকে মারধর করে রাজকুমার ও তাপস। জয়ন্তর চিৎকার শুনে তার বাবা ছেলেকে বাঁচাতে গিয়ে গুরুতর জখম হন। এই নিয়ে দুই পরিবারের মধ্যে সংঘর্ষ বেধে যায়। জখম হন কৃষ্ণ ও রাজকুমারের স্ত্রী চন্দনা।  এরপর গতরাতেই থানায় অভিযোগ জানাতে যায় দুই পরিবারের সদস্যরা। তাঁদের প্রথমে চিকিৎসার পরামর্শ দেয় পুলিশকর্মীরা। প্রাথমিক চিকিৎসার পর জয়ন্ত, তাপস ও চন্দনাদেবীকে ছেড়ে দেওয়া হলেও মালদা মেডিকেলে চিকিৎসাধীন সুবল, কৃষ্ণ ও রাজকুমার। সুবলের পরিবারে অভিযোগ গতরাতে  যখন তারা ঘুমোচ্ছিলেন।তখন রাজকুমারের বাড়িতে উচ্চস্বরে টিভি চলছিল। জয়ন্ত এর প্রতিবাদ করতে গেলে তাকে মারধর করা হয়। ছেলের চিৎকারে শুনে  তার বাবা ও কাকা  ছুটে গেলে তাঁদেরও মারধর করে রাজকুমার ও তাপস।  এদিকে অভিযুক্ত তাপসের বাবা রাজকুমার পালটা অভিযোগ করে বলেন,  যে গত রাতে তার  ছেলে টিভি দেখছিল। সেই সময় সুবলের ছেলে তাদের  বাড়িতে এসে তার  ছেলেকে শাসাতে শুরু করে। প্রতিবাদ করতে গেলে সুবলের পরিবারের সদস্যরা বাঁশ দিয়ে মেরে আমার ছেলের মাথা ফাটিয়ে দেয়।" রাতেই দু'পক্ষের তরফে থানায় মৌখিক অভিযোগ জানানো হয়েছে।ইংরেজবাজার থানার পুলিশে ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে বলে জানা গেছে। 

  • বৈষ্ণবনগর থানার বাখরাবাদ গ্রাম পঞ্চায়েত এলাকায় প্রচুর তাজা বোমা উদ্বার।

    Newsbazar 24 ,ডেস্ক, মালদা, ১৪ অক্টোবর : আবার খবরের শিরোনামে মালদা  জেলার বৈষ্ণবনগর থানা। গতকাল আমরা জানিয়েছিলাম বৈষ্ণবনগর থানা সংলগ্ন এলাকা থেকে উদ্বার হয়েছিল জাল নোট। এবার পুজার মুখে বৈষ্ণবনগর থানা এলাকার ভারত বাংলাদেশ সীমান্তের বাখরাবাদ গ্রাম পঞ্চায়েত এলাকার খোসালপুরের  জমি থেকে উদ্ধার হল প্রচুর বোমা৷ এই ঘটনাকে কেন্দ্র করে এলাকায় আতঙ্কের পরিবেশ তৈরি হয়েছে। বোমাগুলি বালতি ও জ্যারিকেনে রাখা ছিল। খবর পাওয়া মাত্র পুলিশ ঘটনা স্থলে পৌছায়। পাশাপাশি বম্ব স্কোউয়াড বাহিনীকে খবর দেওয়া হয়। পুলিশ ঐ জায়গাটিকে ঘিরে রেখেছে। সূত্রে জানা যায় গ্রামের কয়েকজন বাসিন্দা  গতকাল বিকেলে  বাখরাবাদের খোসালপাড়ার  ফাকা জমির একটি  কোনে ঝোপে লুকিয়ে রাখা বেশ কয়েকটি বালতি ও  জ্যারিকেনে সহ বোমাগুলি  দেখতে পান৷ ৷ তাঁরা গ্রামে গিয়ে গোটা ঘটনাটি জানান৷ এরপর স্থানীয় বাসিন্দারা খবর দেন বৈষ্ণবনগর থানায়৷ খবর পেয়ে ঘটনাস্থানে আসেন পুলিশকর্মীরা। সেখান থেকে ৯৬টি তাজা বোমা উদ্ধার হয়৷  বৈষ্ণবনগর থানা পুলিশ সূত্রে জানা গেছে , উদ্ধার হওয়া বোমাগুলি সাধারণ সুতলি বোমা৷ তবে প্রতিটিই তাজা৷ যে কোন মুহূর্তে বিস্ফোরন হতে পারে। স্বাভাবিক ভাবেই এই বোম উদ্বারের ঘটনায় সমগ্র এলাকা জুড়ে আতঙ্ক ছড়িয়েছে যদিও পুলিশ বোমাগুলিকে নিষ্ক্রিয় করার কাজ শুরু করেছে ৷ পূলিস ইতিমধ্যে তদন্ত শুরু করেছে কে বা কারা সেখানে ওই বোমাগুলে মজুত করেছে। প্রাথমিক ভাবে অনুমান বোমাগুলি অন্য কোথায়ও বানিয়ে এখানে  জমির ঝোপে লুকিয়ে রাখা হয়েছিল।  

  • প্রায় দুই দিন নিখোঁজ থাকার পর নর্দমা থেকে উদ্ধার হল এক ব্যাক্তির ক্ষতবিক্ষত দেহ।

    News Bazar24: প্রায় দুই দিন নিখোঁজ থাকার পর নর্দমা থেকে উদ্ধার হল এক ব্যাক্তির ক্ষতবিক্ষত দেহ। শনিবার সকালে মালদহের ইংরেজবাজার শহরের বাঁশবাড়ি এলাকা থেকে পুলিশ দেহটি উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য পাঠায়। ঘটনায় এদিন তীব্র চাঞ্চল্য ছড়িয়ে পড়ে এলাকায়। খবর পেয়ে ছুটে আসে মৃতের পরিবারের লোকেরা। পুলিশ সুত্রে জানা গিয়েছে মৃত ব্যাক্তির নাম জয়ন্ত প্রামাণিক(৪২) । বাড়ি মালদহের চাঁচল থানার মালতিপুর এলাকায়। পেশায় তিনি লড়ির খালাসি ছিলেন। পরিবারে রয়েছে স্ত্রী সহ দুই সন্তান। পরিবার সুত্রে জানা গিয়েছে কর্মসুত্রে গত কয়েক বছর ধরে পরিবার নিয়ে ইংরেজবাজার শহরের বাঁশবাড়ি গোসাইঘাট এলাকায় ভাঁড়া থাকতেন। গত দুই দিন থেকে নিখোঁজ হয়ে যায়। পরিবারের লোকেরা তার কোন খোঁজ না পেয়ে থানায় অভিযোগ দায়ের করে। শনিবার সকালে বাঁশবাড়ি এলাকায় নর্দমার মধ্যে একটি দেহ ভেসে থাকতে দেখে স্থানীয়রা। ইংরেজবাজার থানায় খবর দিলে ঘটনাস্থলে ছুটে আসে পুলিশ। দেহটি নর্দমা থেকে উদ্ধার করে সনাক্ত করে। খবর দেয় পরিবারের লোকেদের। পুলিশ সুত্রে জানা গিয়েছে মৃতদেহে একাধিক ক্ষতের চিহ্ন রয়েছে। মৃতের মা পূর্ণিমা প্রামাণিকের অভিয়োগ স্ত্রীর সঙ্গে মাঝে মধ্যেই তার বিবাদ লেগে থাকত। সেই কারণে তার ছেলে খুন হতে পারে। তবে দেহটি উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য পাঠিয়ে ঘটনার তদন্তে নেমেছে ইংরেজবাজার থানার পুলিশ।

  • দুস্হ দের বস্ত্র বিতরণ মালদার মোথাবাড়ি তে

    ঝিনুক মিশ্র :  শতাধিক অসহায় দরিদ্র মানুষের হাতে বস্ত্র তুলে দিলো মোথাবাড়ি এলাকার এক সেচ্ছাসেবি সংস্হা মোথাবাড়ি সল্ফ হেল্ফ গ্রুপ। মোথাবাড়ি এলাকার বাজার পাড়া হালদার পাড়া ঘোষ পাড়া পালপাড়া মন্ডল পাড়া এলাকার মানুষের বস্ত্র বিতরণ করা হয়। মোথাবাড়ি সেল্ফ হেল্প গ্রুপের সম্পাদক তথা বিশিষ্ট সমাজ সেবী আনহারুল হক ব্যক্তি গত উদ্যেগে এই নতুন বস্ত্র বিতরণ করে। এই সংস্হা প্রতি বছর ঈদ ও দূর্গা পূজা তে যাদের নতুন বস্ত্র কিনার ক্ষমতা নেই তাদের নতুন বস্ত্র বিতরণ করে ।এই সংস্হা গত ইদে 400 পরিবারের সদস্যদের হাতে নতুন বস্ত্র বিতরণ করেছিলো । এবার দূর্গা পূজা উৎসব উপ লক্ষ্যে শতাধিক দুস্হর হাতে নতুন বস্ত্র বিতরণ করে। মোথাবাড়ি সেলফ হেল্ফ গ্রুপের সম্পাদক তথা বিশিষ্ট সমাজ সেবী আনহারুল হক জানিয়েছেন " প্রতি বছর ইদ ও দূর্গা পূজা তে আমরা দুস্হ দের নতুন বস্ত্র বিতরণ সহ বিভিন্ন সমাজসেবা মুলক কাজে এগিয়ে করে থাকে।

  • আশ্রয় হীন দের "অনুভবের" অনুভূতি দিলো ইংরেজবাজার পৌরসভা

    সুমিত ঘোষ : এক অভিনব উদ্যোগ নিল মালদহের ইংরেজবাজার পৌরসভা। ইংরেজবাজার পৌরসভার অন্তর্গত ফুটপাত, রেল স্টেশন, বাস স্ট্যান্ড ফ্যাক্টরির বাইরে , খোলা আকাশের নিচে সহ এই ধরনের জায়গায় যে সমস্ত একক পুরুষ , একক মহিলা বা পরিবার ও চিকিৎসার জন্য বাইরে থেকে আসা মানুষদের জন্য অনুভব নামক একটি বহুতল এর উদ্বোধন করা হল। রাজ্য সরকারের সহযোগিতায় এবং ইংরেজবাজার পৌরসভার উদ্যোগে 118 লক্ষ টাকা ব্যয়ে এদিন রামকৃষ্ণ মিশন বাধ রোড এলাকায় অনুভব নামক এই বহুতল এর উদ্বোধন করা হয়। এদিনই উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন ইংরেজবাজার পৌরসভার চেয়ারম্যান নিহার রঞ্জন ঘোষ ভাইস চেয়ারম্যান দুলাল সরকার জেলাশাসক কৌশিক ভট্টাচার্য বিশিষ্ট শিক্ষাবিদ শক্তিপদ পাত্র সহ অন্যান্য অতিথিরা। এই বিষয়ে ইংরেজবাজার পৌরসভা ভাইস চেয়ারম্যান দুলাল সরকার জানান এদিন আনুষ্ঠানিকভাবে এই বহুতলের উদ্বোধন করেন চেয়ারম্যান নিহার রঞ্জন ঘোষ। রাজ্য সরকারের সহযোগিতায় এবং ইংরেজ বাজার পৌরসভার উদ্যোগে 118 লক্ষ টাকা ব্যয়ে তৈরি করা হয়েছে এই বহুতল। 8 টি রুম রয়েছে বহুতলে। পৌরসভার অন্তর্গত ফুটপাত রেলস্টেশন বাসসটান সহ বিভিন্ন জায়গায় খোলা আকাশের নিচে অসহায় যে সকল মানুষ বসবাস করে বা চিকিৎসার জন্য বাইরে থেকে মালদায় যারা আসেন তাদের জন্য এই বহুতল। বহুতল এর নিরাপত্তা নিয়ে বলতে গিয়ে দুলাল বাবু জানান ইংরেজবাজার পৌরসভা নিরাপত্তাকর্মী 24 ঘন্টা থাকবে। এছাড়াও ইংরেজবাজার থানার পুলিশ দৈনিক আবাসিকদের তথ্য নেবেন ও পরিদর্শন করবেন। আবাসিকদের থাকা খাওয়া পানীয় জল চিকিৎসা সহ সমস্ত রকমের ব্যবস্থা করা হয়েছে।   ভিডিও না আসলে একটু অপেক্ষা করুন.....

  • পুলিশ সুপারের জেলাজুড়ে কড়া নিরাপত্তার ব্যবস্থা ঘোষণার কয়েকঘটার মধ্যে জালনোট সহ ধৃত ২ পাচারকারী

    Newsbazar 24.মালদা, ১৩ অক্টোবর : আবার মালদহে জালনোট সহ ধৃত ২  পাচারকারী। এবার পুজোর ঠিক প্রাক মুহূর্তে বৈষ্ণবনগর থানার পুলিশ ৩৪ নম্বর জাতীয় সড়কে পিটিএস মোড় সংলগ্ন জামাইপাড়া থেকে  ১ লাখ টাকার জালনোট সহ গ্রেপ্তার করল  দুই পাচারকারীকে। এদের নাম ভীম মণ্ডল (২০) ও পলাশ মণ্ডল (১৯)। গতকাল রাত ১টা নাগাদ সাইকেলে খেজুরিয়ার দিকে  যাচ্ছিল  ঐ দুই পাচারকারী । সন্দেহজনকভাবে তাদের চলাচল করতে দেখে খেজুরিয়া আউটপোস্টে কর্তব্যরত পুলিশকর্মীদের  সন্দেহ হওয়ায় তাদের আটক করে জিজ্ঞাসাবাদ শুরু করে পুলিশ । পড়ে  তল্লাশি চালিয়ে উদ্ধার করা হয় ১ লাখ টাকার জালনোট।  গতকাল মালদার  পুলিশ সুপার অর্ণব ঘোষ সাংবাদিকদের সাথে মিলিত হয়ে জানিয়েছিলেন, পুজোকে কেন্দ্র করে জেলাজুড়ে কড়া নিরাপত্তার ব্যবস্থা অঙ্গ হিসাবে  বাড়ানো  হয়েছে নাকা চেকপোস্টের সংখ্যা। এ ছাড়াও অতিরিক্ত পুলিশকর্মী মোতায়েন করা হয়েছে বিভিন্ন অপরাধমূলক এলাকায়। তার এই ঘোষণার কয়েকঘণ্টার মধ্যে  ধরা পড়ল দুই পাচারকারী। স্বাভাবিক ভাবেই পুলিশ সুপারের এই ভুমিকা সকলের ধন্যবাদযোগ্য।  

  • আবার ভিনরাজ্যে কাজ করতে গিয়ে মালদার এক যুবকের মৃত্যু।

    Newsbazar24, ডেস্ক, ১২ অক্টোবর : অভাবের তাড়নায়  ভিন রাজ্যে কাজ করতে গিয়ে মৃত্যু হল  পুরাতন মালদার বদনপুর গ্রামের রবিউল হক(২৫)।  আজ ভোরে ওই যুবকের মৃতদেহ গ্রামে নিয়ে এলে  গ্রামে শোকের ছায়া নেমে এসেছে। এলাকাবাসীরা এই ঘটনায় ক্ষোভে ফেটে পড়েছেন তাদের দাবী স্থানীয়স্তরে কাজের ব্যবস্থা করতে হবে । রবিউলের বাড়ীতে আছেন বৃদ্ব পিতা ,মাতা দুই শিশু সন্তান সহ স্ত্রী।৷ পরিবারের একমাত্র উপার্জনক্ষম রবিউল মাত্র কয়েক দিন আগে উত্তরপ্রদেশের কানপুরে টাওয়ার নির্মাণের কাজে  যান ৷ কিন্তু, গতকাল কাজের দ্বায়িত্বপ্রাপ্ত সংস্থা  থেকে বাড়িতে ফোন করে জানানো হয়, টাওয়ারে কাজ করার সময় সেফটি বেল্ট ছিঁড়ে উপর থেকে পড়ে যান রবিউল৷ সঙ্গে সঙ্গে তাঁকে স্থানীয়      হাসপাতালে নিয়ে গেলে চিকিৎসকরা মৃত ঘোষণা করেন ৷ আজ ভোরে রবিউলের মৃতদেহ গ্রামের বাড়িতে আনা হয়। ঘন ঘন মূর্ছা যাচ্ছেন রবিউলের স্ত্রী৷ কথা বলার  মত অবস্থায় নেই তিনি৷ স্থানীয় বাসিন্দাদের কাছ থেকে জানা যায়  "দরিদ্র  পরিবারে একমাত্র উপার্জনকারী  ছিলেন রবিউল ৷ এলাকায় কাজ না থাকায়  উত্তরপ্রদেশে কাজে গিয়েছিলেন৷ ঠিকাদাররা মোটা টাকার লোভ দেখিয়ে এলাকার যুবকদের প্রতিনিয়ত ভিন রাজ্যে নিয়ে যাচ্ছেন৷ সেখানে কাজ করার সময় দুর্ঘটনায় প্রতি বছরই ১৫-২০ জন করে মারা যাচ্ছেন৷" পাশাপাশি এলাকাবাসীদের দাবী গ্রামের গরীব পরিবারের ছেলেদের জন্য স্থানীয় স্তরে কাজের ব্যাবস্থা না করলে আরও কত পরিবার উপার্জনহীন হবেন তা আর বলার  অপেক্ষা রাখে না।  

  • শারদ উৎসবে সিসিটিভি ক্যামেরায় নজরদারি চালাবে মালদা জেলা পুলিশ : বিস্তারিত জানতে দেখুন ভিডিও

    বিসর্জনের দিন বাজানো যাবে না ডিজে। সুমিত ঘোষ:  এবারে শারদ উৎসবে সিসিটিভি ক্যামেরায় নজরদারি চালাবে মালদা জেলা পুলিশ। থাকবে সাদা পোশাকের পুলিশ ও। এর জন্য 40 জন পুলিশ অফিসার নিয়োগ করা হয়েছে। আসন্ন শারদ উৎসব নিয়ে শুক্রবার সকালে এক সাংবাদিক বৈঠক করে এমনটাই জানালেন মালদা জেলার পুলিশ সুপার অর্ণব ঘোষ। আসন্ন বাঙালির শ্রেষ্ঠ উৎসব দুর্গাপূজা। হাতে আর মাত্র এক দিন বাকি। আর তারপরই বাঙালির শ্রেষ্ঠ উৎসব দুর্গা পুজোর আনন্দে মাতবে আপামর বাঙালি। শেষ মুহূর্তের প্রস্তুতি তুঙ্গে ক্লাব কর্তাদের পাশাপাশি জেলা প্রশাসন এবং পুলিশ প্রশাসনের ও। ঠিক এমন সময় বাঙালির শ্রেষ্ঠ উৎসব দুর্গাপূজা সুষ্ঠুভাবে সম্পন্ন করতে জেলা পুলিশের পক্ষ থেকে কি কি বাড়তি নিরাপত্তা ব্যবস্থা করা হয়েছে তা নিয়ে এক সাংবাদিক বৈঠক করলেন জেলা পুলিশ সুপার অর্ণব ঘোষ। এদিন তিনি সাংবাদিক বৈঠক করে জানান এবারে দুর্গাপুজোয় সিসিটিভি ক্যামেরায় নজরদারি চালানো হবে। শহরের বিভিন্ন প্রান্তে থাকবেই ক্যামেরাগুলি। এমন অবস্থায় ক্যামেরাগুলো রাখা থাকবে যাতে কারো নজরে না পড়ে। পাশাপাশি সাদা পোশাকের পুলিশ অধিক মাত্রায় থাকবে দর্শনার্থীদের সুবিধার্থে। কোন রকমের অপ্রীতিকর ঘটনা রক্তে নিয়োগ করা হয়েছে 40 জন পুলিশ অফিসার কেউ। পাশাপাশি তিনি আরো জানান এবারের পুজোয় উচ্চমাত্রায় সাউন্ড সিস্টেম বাজানো যাবে। বিসর্জনের দিন বাজানো যাবে না ডিজে। ভিডিও না আসলে অপেক্ষা করুন...