শিলিগুরি দার্জিলিং কোচবিহার,জল্পাই গ

  • দার্জিলিংয়ে ২ হাজার কোটি টাকার বিনিয়োগ প্রস্তাব। ১৮টি প্রকল্পে হবে এই বিনিয়োগ

    ডেস্ক ঃ স্বপ্নের পাহাড়ে শিল্প সম্মেলনের প্রথম ২৪ ঘণ্টাতেই এল ২ হাজার কোটি টাকার বিনিয়োগ প্রস্তাব। দার্জিলিংয়ে ২ হাজার কোটি টাকার বিনিয়োগ প্রস্তাব। ১৮টি প্রকল্পে হবে এই বিনিয়োগ। প্রস্তাবিত প্রকল্পগুলির অন্যতম হল- মিরিকে অত্যাধুনিক ফ্লোটিং মার্কেট। কালিম্পংয়ে এডুকেশন হাব। দার্জিলিংয়ে আইটি পার্ক। মকাইবাড়ি চা বাগানে সাড়ে তিনশো কোটি টাকা বিনিয়োগ। সিকিমের মুখ্যমন্ত্রী পবন চামলিংয়ের সঙ্গে বৈঠকে বসবেন বলে জানান মুখ্যমন্ত্রী।

  • পাহাড়েও গিয়েই প্রাতঃভ্রমণে বেরিয়ে পড়লেন মুখ্যমন্ত্রী।

    ডেস্ক ঃ । ট্রেটমার্ক সুতির শাড়ি, তারপরও সবুজ শাল গায়ে জরিয়ে বেরিয়ে পড়লেন। ম্যাল হয়ে পাহাড়ের পাকদণ্ডী দিয়ে ঘুরলেন। সাধারণ মানুষের সঙ্গে কথা বললেন। সঙ্গী সমতল থেকে যাওয়া শিল্পপতিদের দল। সেদলে রয়েছেন শিল্পোদ্যোগী সঞ্জয় বুধিয়া। । ট্রেটমার্ক সুতির শাড়ি, তারপরও সবুজ শাল গায়ে জরিয়ে বেরিয়ে পড়লেন। ম্যাল হয়ে পাহাড়ের পাকদণ্ডী দিয়ে ঘুরলেন। সাধারণ মানুষের সঙ্গে কথা বললেন। সঙ্গী সমতল থেকে যাওয়া শিল্পপতিদের দল। সেদলে রয়েছেন শিল্পোদ্যোগী সঞ্জয় বুধিয়া।মর্নিং ওয়াকের পাশাপাশি পাহাড়ে শিল্প সম্মেলন নিয়ে ঘরোয়া আলোচনাও সেরে নিলেন মুখ্যমন্ত্রী। পথ চলার পাশাপাশিই কথা বললেন স্থানীয় বাসিন্দাদের সঙ্গে। তাঁদের অভাব-অভিযোগের কথা শুনলেন। কখনও বা নেহাতই মজার ছলেই কথা বললেন তাঁদের সঙ্গে।মঙ্গলবার থেকে পাহাড়ে দুদিনের শিল্প সম্মেলন। মুখ্যমন্ত্রীর উপস্থিতিতে মুখোমুখি হবে পাহাড় ও সমতলের শিল্পমহল। পাহাড়ের অর্থনীতিকে চাঙ্গা করতে, বিভিন্ন শিল্প সম্ভাবনা নিয়ে আলোচনা হবে। লগ্নি টানতে গুরুত্ব পাবে চা এবং পর্যটন শিল্প। 

  • যাঁর সৎকার করা হয়েছে তিনিই নাকি বাজারে ঘুরে বেড়াচ্ছেন

    ডেস্কঃ (I.D). ১২ মার্চ ২০১৮ঃ-যাঁর সৎকার করা হয়েছে তিনিই নাকি বাজারে ঘুরে বেড়াচ্ছেন  আতঙ্ক ছড়াল ওদলাবাড়ির কান্তিতে। তোলপাড় গোটা এলাকা। শুক্রবার গলায় ফাঁস লাগানো অবস্থায় মালবাজার মহকুমার ওদলাবাড়ি বাজার থেকে এক ব্যাক্তির মৃতদেহ উদ্ধার করে মালবাজার পুলিশ। মৃতের বাড়ির লোক এসে মৃতদেহ শনাক্ত করে। মৃতের দুই ছেলে সঞ্জিত রায়(২৭),  বিশ্বজিত রায়(২৪) জানান মৃত ব্যক্তি তাঁদের বাবা। নাম গিরেন রায়(৫৪)। বাড়ি ক্রান্তির রাজাডাঙ্গা গ্রাম পঞ্চায়েতের দক্ষিন হাসখালি এলাকায়। তাঁরা জানান তাঁদের বাবার গত ৪ বছর ধরে মাথা খারাপ। কখনও বাড়িতে থাকেন তো কখনও বাইরে চলে যায়। গতকালই জলপাইগুড়িতে মৃতদেহ ময়না তদন্ত করে, কাঠাম বাড়ি এলাকায় বাবার মৃতদেহ সৎকার করে ছেলেরা।শনিবার ক্রান্তি এলাকায় এলাকার মানুষ দেখতে পান গিরেন রায় বাজারে ঘুরে বেড়াচ্ছে। আর এতেই হতবাক এলাকার মানুষ। যে ব্যক্তিকে শুক্রবার রাতে সৎকার করা হল সেই ব্যাক্তি আবার বাজারে ঘুরে বেড়াচ্ছে! এলাকার মানুষ ভয় পেয়ে যায়। এরপর কিছু যুবক অই ব্যক্তিকে নিজের বাড়িতে নিয়ে আসে। বাড়িতে আনা মাত্রই ছেলে সঞ্জিত,  বিশ্বজিত-সহ বাড়ির লোকজন ঘাবড়ে যায়। তাদের বক্তব্য, ওই ব্যক্তিই তাঁদের বাবা গিরেন রায়। তাহলে গত কাল রাতে যার মুখাগ্নি করা হল তিনি কে? নিবার সকাল থেকে গিরেন রায়কে দেখতে ভিড় করেন এলাকার মানুষজন। আসে ক্রান্তি ফাঁড়ির পুলিসও। এলাকার মানুষ এবং পরিবারের একই কথা। দুজনের চেহারা একই রকম। দুই ছেলে সঞ্জিত এবং বিশ্বজিতের বক্তব্য,  এখন যে জীবিত রয়েছেন তিনি তাদের বাবা। কিন্তু গতকাল যার মৃত্যু হল সে কে?  এই প্রশ্ন পুলিশের মধ্যেও ঘুরপাক খাচ্ছে। তবে ছেলেরদের বক্তব্য,  যে ব্যাক্তি গত কাল মারা গেছেন, তিনি দেখতে একেবারেই তাদের বাবার মতো। এলাকার পঞ্চায়েত সদস্য সুজিত কুমার ঘোষ বলেন,  দুজনের চেহারার এত মিল যে বোঝা মুশকিল। 

  • কিশোরীকে ধর্ষন করল ৭০বছরের বৃদ্ধ

    ডেস্ক : (I.D). ১২ মার্চ ২০১৮:-মানসিক ভারসাম্যহীন এক কিশোরীকে ধর্ষন করলেন ৭০ বছরের এক বৃদ্ধ। ধৃত অভয় সিং পেশায় ভেন চালক।অশোক নগরের থানায় অভিযোগ দায়ের করা হলে গ্রেফতার করা হয় অভয় সিং কে।ধৃত অভয় সিং এর আগেও ধর্ষনের জন্য জেল খেটেছে।

  • গৌড়বঙ্গ বিশ্ববিদ্যালয়ের রসায়ন বিভাগের অধ্যাপকশুভময় চৌধুরিকে খুনের চক্রান্ত

    ডেস্ক, ৬ মার্চ : গত ২৮ ফেব্রুয়ারি রাত ৮টা। গৌড়বঙ্গ বিশ্ববিদ্যালয়ের রসায়ন বিভাগের  অধ্যাপকশুভময় চৌধুরি  ইংরেজবাজার থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করে অভিযোগপত্রে জানান, সেদিন সন্ধে সাড়ে ৬টা নাগাদ তিনি যখন বিশ্ববিদ্যালয়ে নিজের ঘরে বসে কাজ করছিলেন, সেই সময় এক বহিরাগত তাঁর ঘরে ঢুকে পড়ে। সে তাঁকে বিশ্ববিদ্যালয় ছেড়ে চলে যাওয়ার নির্দেশ দেয়। তা না হলে তাকে খুন করা হবে । তাকে তিনি চেনেন না। নিরাপত্তার স্বার্থে তাই তিনি পুলিশে অভিযোগ দায়ের করছেন। ১ মার্চ বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্যের কাছেও একই অভিযোগ দায়ের করেন শুভময়বাবু। সেই অভিযোগ পেয়েই তড়িঘড়ি ১৮ জনের তদন্ত কমিটি গঠন করেন উপাচার্য স্বাগত সেন। বিশ্ববিদ্যালয় সূত্রে জানা গেছে, ওই কমিটি আগামীকাল তদন্তের কাজ শুরু করছে। তবে শুভময়বাবুর অভিযোগের ঘটনায়  বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপকদের একাংশ  প্রশ্ন তুলেছেন , এই ঘটনা যদি ঘটে থাকে  তবে  শুভময়বাবু প্রথমে উপাচার্য কিংবা রেজিস্ট্রারকে সেকথা না জানিয়ে থানায় অভিযোগ দায়ের করতে গেলেন কেন ? সেদিন বিশ্ববিদ্যালয়ের গেটের বাইরে দুই ছাত্র সংগঠনের মধ্যে একটি গোলমাল হয়েছিল। সেকারণে বিশ্ববিদ্যালয়ের আধিকারিকদের অধিকাংশই সেসময় নিজেদের দপ্তরে ছিলেন। আজ সেই প্রশ্নই তুলেছেন বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রার সাধনকুমার সাহা। তিনি এই ঘটনার পিছনে ষড়যন্ত্রের গন্ধও পাচ্ছেন। এই ঘটনা বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষকে কালিমালিপ্ত করার প্রচেষ্টা হলেও হতে পারে বলে মনে করছেন তিনি। সাধনবাবু বলেন, “সেদিন রাত ৯টা পর্যন্ত আমি বিশ্ববিদ্যালয়ে ছিলাম। এমন কোনও ঘটনা ঘটেছে বলে কোনও সূত্র থেকে জানতে পারিনি। পরদিন উপাচার্য আমাকে জানান, শুভময়বাবুকে নাকি হুমকি দেওয়া হয়েছে।  শুভময়বাবু বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষের আগে পুলিশে কেন অভিযোগ দায়ের করলেন, সেই বিষয়টি বোধগম্ হচ্ছে না । উল্লেখ্য, পুলিশ কিংবা উপাচার্যের কাছে দায়ের করা অভিযোগে শুভময়বাবু কারোর নাম উল্লেখ করেননি। কিন্তু, ওয়েবকুপা-র রাজ্য নেতৃত্বের কাছে তিনি এই ঘটনায় এমন কয়েকজনের নাম উল্লেখ করেছেন  যাঁরা  বিভিন্ন সময়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের দুর্নীতি নিয়ে সরব হয়েছিলেন। যাঁদের অভিযোগের ভিত্তিতেই পূর্বতন উপাচার্য গোপালচন্দ্র মিশ্র  তৎকালীন কন্ট্রোলার অফ এগজ়ামিনেশন সনাতন দাস ও সহকারী রেজিস্ট্রার অরিজিৎ দাসকেইস্তফা দিতে হয়েছে। । সেই সব অভিযোগ পেয়েই রাজ্য সরকার রুশার টাকা নয়ছয় নিয়ে তদন্তের নির্দেশ দেয়। সেই তদন্ত এখনও চলছে। ফলে রুশার কোটি কোটি টাকার বিল এখনও আটকে রয়েছে। এই অবস্থাতেই মাস তিনেক আগে বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্যের দায়িত্ব নেন স্বাগত সেন। এই সময়কালে বিশ্ববিদ্যালয়ের বিরুদ্ধে নতুন করে কোনও অভিযোগ ওঠেনি।  এই অবস্থায় বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপকদের একটি অংশের বক্তব্য, দায়িত্ব নেওয়ার পর উপাচার্য স্বাগত সেন নিজেই বিশ্ববিদ্যলয়ের একাধিক দুর্নীতির তদন্তের জন্য রাজ্য সরকারের কাছে CID তদন্তের আবেদন জানান। সেই জন্য  উপাচার্যকে অপদস্থ করার জন্য  সম্ভবত সক্রিয় হয়েছে বিশ্ববিদ্যালয়ের একাংশ। এনিয়ে সঠিক তদন্ত হলেই আসল সত্যটা  বেরিয়ে আসবে ।

  • কালিয়াচক থানার পুলিশ ৪ জুয়াড়িকে গ্রেফতার করল।

    ডেস্ক, ২৮ ফেব্রুয়ারি: : গোপন সূত্রে খবর পেয়ে ৪ জন জুয়াড়িকে গ্রেফতার করল মালদহের কালিয়াচক থানার পুলিশ। ধৃতদের বুধবার মালদা জেলা আদালতে তোলা হয়। মালদহের কালিয়াচকের রাজনগর বাজার থেকে আবার গ্রেফতার চার জুয়াড়ি। জানা গেছে, ধৃতরা হল রামফল চোধুরী (৪৫) বাড়ি রাজনগর , বিক্রম মণ্ডল(২২)বাড়ি নয়াগ্রাম, রাফিক সেখ(৪৪)  বাড়ি বীরনগর এবং ফুলকুমার মণ্ডল(২৩) । ধৃতদের প্রত্যেকের বাড়ি কালিয়াচক থানা এলাকাতেই। জানা যায়, মঙ্গলবার গভীর রাত্রে কালিয়াচক থানার পুলিশ গোপন সূত্রে খবর পেয়ে রাজনগর বাজার এলাকায় হানা দেয়। সেখানে হানা দিয়ে পুলিশ একটি গোপন ডেরা থেকে ৪ জন জুয়াড়িকে গ্রেফতার করে। বাকি ৫ জন পালিয়ে যেতে সক্ষম হয়। উদ্ধার হয়েছে ২০৬০  টাকার বোর্ডমানি। ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে পুলিশ।  

  • বাইচুং ভুটিয়া বা কে তৃণমূলে গেল বা এল তা নিয়ে আমাদের মাথাব্যথা নেই, - অশোক ভট্টাচার্য

    শিলিগুড়ি, ২৬ ফেব্রুয়ারি :শিলিগুড়ির রাজনৈতিক মহলে জোর  আলোচনা এই মুহূর্তে হটাৎ কি এমন ঘটনা ঘটল যে যার ফলে বাইচুং ভুটিয়াকে  তৃণমূল কংগ্রেসের সমস্ত পদ  ত্যাগ  করতে হল। এনিয়ে সংবাদ মাধ্যম  শিলিগুড়ির মেয়র তথা সিপিএম নেতা  অশোক ভট্টাচার্যের কাছে প্রতিক্রিয়া জানতে চাইলে, তিনি বলেন, “বাইচুং ভুটিয়া বা কে তৃণমূলে গেল বা এল তা নিয়ে আমাদের মাথাব্যথা নেই। এটা আমাদের বিষয় নয়। ওদের ব্যক্তিগত বিষয়।” এই ব্যাপারে বলতে  গিয়ে তিনি   ভারতী ঘোষের প্রসঙ্গে টেনে বলেন , তৃণমূলের অনেক নেতার পরিণতি ভারতী ঘোষের মতো হবে। বলেন “যারা তৃণূমূল কংগ্রেস করছে তাদের অনেকেই দল থেকে বেরিয়ে আসবে। । যাঁরা যত বেশি এই সরকারের বা মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের কাছে এসেছেন তাঁদের বিপদ সবথেকে বেশি হবে। মান সম্মান মর্যাদা নিয়ে এই দলে অনেকেই থাকতে পারবে না।” কয়েকদিন আগে কুশমণ্ডিতে এক মানসিক ভারসাম্যহীন মহিলাকে গণধর্ষণের অভিযোগ ওঠে। তা নিয়ে  আদিবাসী সমাজের বিক্ষোভের প্রসঙ্গে অশোকবাবু বলেন , সাধারণ মানুষ তৃণমূল কংগ্রেস পরিচালিত রাজ্য সরকারের উপর আস্থা হারাচ্ছে। কুশমণ্ডির ঘটনার বিক্ষোভ সেকথায় প্রমাণ করে। এখানেই না থেমে তিনি আরও বলেন , সম্প্রতি শুভেন্দু চৌধুরীর খাস তালুকে সাধারন মানুষের ক্ষোভের আগুনে তৃনমূল নেতা তথা এলাকার মাফিয়াকে খুন হতে হল। মানুষের  “ক্ষোভ-বিক্ষোভ সামনে আসতে শুরু করেছে। সাধারণ মানুষ আর পুলিশকেও মানছে না। ছোটো ঘটনা ঘটলেও মানুষ থানার ভিতরে ঢুকে যাচ্ছে। পুলিশও বুঝতে পারছে যে পরিস্থিতি হাতের বাইরে চলে যাচ্ছে। দ্রুত তৃণমূল কংগ্রেস তাদের জনপ্রিয়তা হারাচ্ছে। ভবিষ্যতে আরও হারাবে।” বিজেপির প্রাক্তন সভাপতি রাহুল সিনহা   বলেন, 'তৃণমূল কোনও ভদ্রলোকের জায়গা নয়। সেখানে বাইচুং ভুটিয়ার মতো একজন ভারত বিখ্যাত ব্যক্তিত্ব কী করে টিকলেন, সেটাই আমার অবাক লাগে। যাই হোক তিনি এতদিন পর বুঝেছেন, তৃণমূল পার্টিটায় আর যাই হোক ভদ্রলোকেরা থাকতে পারে না।'    

  • শিলিগুড়ির খড়িবাড়ি ব্লকের বাতাসি গ্রামে প্রায় ছয় ফিট লম্বা কোবরা উদ্বার

    ডেস্ক , ২৬ ফেব্রুয়ারি  :  শিলিগুড়ির খড়িবাড়ি ব্লকের বাতাসি গ্রামে প্রায় ছয় ফিট লম্বা কোবরা উদ্বার হল।  এই ঘটনায় ব্যপক চাঞ্চল্য ছড়িয়ে পড়ে এলাকায়।  জানা যায় যে শিলিগুড়ি মহকুমার খড়িবাড়ি ব্লকের বাতাসির বাসিন্দা গৌরাঙ্গ মণ্ডলের বাড়িতে আজ সকালে এক  প্রায় ছয় ফিট লম্বা কোবরা দেখা যায়। এলাকায়  ব্যপক চাঞ্চল্য ছড়িয়ে পড়ে ।উপায় খুজে না পেয়ে গ্রামবাসীরা  বনদপ্তরকে খবর দেন ।বনদপ্তরের কর্মীরা  ঘটনার খবর  পাওয়ার সাথে সাথে ঘটনাস্থলে পৌঁছে সাপটিকে উদ্ধার করে নিয়ে যাণ। বনদপ্তর সূত্রে জানানো হয়েছে , উদ্ধার হওয়া সাপটিকে জঙ্গলে ছেড়ে দেওয়া হবে।

  • দল ছাড়লেন ভুটিয়া

    ডেস্কঃ(I.D). ২৬ ফেব্রুয়ারী ২০১৮ঃ-  ফুটবল থেকে রাজনীতিতে। এবার রাজনীতি থেকে কি ফের ক্রীড়াজগতে! খেলোয়াড় রাজনীতিক পদত্যাগের সময়ে সে সব স্পষ্ট না করলেও জল্পনা শুরু হয়েছে ।  ঠিক কেন এখন পদত্যাগ করলেন তার হিসেব খুঁজতে অতীতের কথাও উঠছে রাজনৈতিক মহলে। ২০১৪ সালে যখন দার্জিলিং কেন্দ্রে লোকসভার প্রার্থী করা হয় তখন তৃণমূল কংগ্রেস নিশ্চিত ভাবেই জানত যে, ওই আসন অনিশ্চিত। গুরুঙ্গদের সঙ্গে বিজেপির সমঝোতার পরে ঘাসফুলের জন্য কোনও আশাই ছিল না। একরকম ভাবে হারা আসনেই হারতে হয় ভাইচুংকে। এর পরে বিধানসভা নির্বাচনের ক্ষেত্রেও তাই। লোকসভা সেলিব্রিটি প্রার্থী দেব, মুনমুন সেন, সন্ধ্যা রায়দের মতো নিশ্চিত আসন পাননি ভাইচুং। বিধানসভাতেও তেমনটা পাননি। শিলিগুড়ি আসনটি যে অনিশ্চিত সে ব্যাপারে অনেকটাই নিশ্চিত ছিল তৃণমূল।সামনেই ফের রাজ্যসভা নির্বাচন। ২৩ মার্চ ভোটের জন্য ৫ মার্চ মনোনয়ন জমা দেওয়ার শেষ দিন। রাজ্যে খালি হচ্ছে ৬টি আসন। সিপিএম লড়াইয়ে না থাকায় সব কটি আসনই দখল করতে পারে তৃণমূল কংগ্রেস। মুকুল রায়, কুণাল ঘোষের আসন ছাড়াও সিপিএমের তপন সেন-এর আসনে নিশ্চিত ভাবেই নতুন প্রার্থী দেবেন মমতা। ইতিমধ্যেই ভাইচুং বুঝিয়ে দিয়েছেন তিনি গোর্খাল্যান্ড ইস্যুতে তৃণমূল কংগ্রেসের নীতির সঙ্গে সহমত নন। আদতে সিকিমের বাসিন্দা ভাইচুং ভুটিয়ার সঙ্গে কেন্দ্রীয় মন্ত্রী কিরণ রিজিজুর ঘনিষ্ঠতাও গোপন নয়।  এদিন ভাইচুং টুইট করে দল ছাড়ার পরে পরেই কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী কিরণ রিজিজু একটি টুইট করে এই সিদ্ধান্তকে স্বাগত জানান। একই সঙ্গে রিজিজু জানিয়েছেন তাঁর সঙ্গে কথা হয়েছে ভাইচুং-এর। রিজিজু জানিয়েছেন, ভাইচুং তৃণমূল ছেড়ে ফুটবল ও সিকিমের জন্য কাজ করতে চাইছেন।

  • কড়া নিরাপত্তা বেস্টনী ভেঙে মুখ্যমন্ত্রীর সভামঞ্চে তরুণী , টেনে হিঁচড়ে মঞ্চ থেকে নামিয়ে আটক তরুণী ।

    ডেস্ক, ২২ ফেব্রুয়ারি: ত্রিস্তরীয় নিরাপত্তাবেষ্টনী টপকে সভা চলাকালীন মঞ্চে আচমকা মুখ্যমন্ত্রীর পায়ের কাছে এক যুবতী, তখন মঞ্চের অন্য দিক থেকে ওঠার চেষ্টা করছিলেন তাঁর বোন। গোটা ঘটনা নিয়ে রীতিমতো ক্ষুব্ধ মুখ্যমন্ত্রী। নিরাপত্তা ব্যবস্থা নিয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করেন মুখ্যমন্ত্রী। পরে করণদিঘির ছাগলাকাটি গ্রামের বাসিন্দা ওই দুই যুবতিকে পাকড়াও করেন, নিরাপত্তাকর্মীরা। তড়িঘড়ি ওই তরুণীকে মঞ্চ থেকে সরিয়ে নিয়ে যান। আজ উত্তর দিনাজপুরের হেমতাবাদে মুখ্যমন্ত্রীর জনসভার মঞ্চে ঘটনাটি ঘটে। এই ঘটনায় মুখ্যমন্ত্রীর নিরাপত্তা প্রশ্ন চিহ্নের মুখে।           পরে ওই দুই তরুণীর সাথে কথা বলে জানা যায় সম্পর্কে তাঁরা দুই বোন। বছরখানেক আগে তাঁদের বাবা দুষ্কৃতীদের হাতে খুন হন। বাবার খুনের বিচার ও খুনিদের শাস্তির দাবী জানাতে এর আগে নবান্নে গিয়েও মুখ্যমন্ত্রীর সাথে দেখা করার চেষ্টা করেছেন তাঁরা। কিন্তু সেখানে তাঁরা ব্যর্থ হন। আজ হেমতাবাদের সভায় মুখ্যমন্ত্রীকে সামনে পেয়ে তাই নিজেদের দাবী জানাতে মরিয়া হয়ে ওঠেন ওই দুই তরুণী। উদ্দেশ্য সফল করতে দুই বোন মঞ্চের দুই দিক দিয়ে  ওঠার চেষ্টা করেন। মঞ্চের বাদিক দিয়ে উঠতে গিয়ে আমিরা খাতুন নামে এক তরুণী নিরাপত্তারক্ষীদের হাতে ধরা পড়ে যান।  মঞ্চের ডানদিক দিয়ে তাঁরই বোন রাবিয়া খাতুন পৌঁছে যান একদম মুখ্যমন্ত্রীর কাছে। মুহুর্তে তৎপরতা শুরু হয়ে যায় নিরাপত্তারক্ষীদের মধ্যে।         পরিস্থিতি সামাল দিতে এগিয়ে আসেন জেলাশাসক আয়েষা রানী। তিনি বলেন, ওই দুই তরুণী তাঁর কাছে বিভিন্ন দাবী নিয়ে একাধিকবার এসেছেন। এমনকি তাঁদের অধিকাংশ দাবী সরকারি নিয়ম মেনে পূরণও করা হয়েছে। রাবিয়া খাতুনকে হাসপাতালে কাজও পাইয়ে দেওয়া হয়েছে বলে জানান জেলাশাসক। কিন্তু তা সত্ত্বেও আজকে ওই দুই তরুণী এমন ঘটনা ঘটালেন কেন তা নিয়ে বিস্ময় প্রকাশ করেন জেলাশাসক। পরে মুখ্যমন্ত্রী নিজেই মাইক হাতে মঞ্চে দাঁড়িয়ে বলতে শুরু করেন, ” এই মেয়েটির জন্য চাকরি করে দেওয়া হয়েছে। গীতাঞ্জলী প্রকল্পে ঘর করে দেওয়া হয়েছে।” তা সত্ত্বেও নিয়মকানুন ভেঙে এই ভাবে মঞ্চে উঠে দাবী জানাতে কেন এল ওই তরুণী তা নিয়ে প্রশ্ন তোলেন মুখ্যমন্ত্রী। তিনি বলেন, “এটা কোনও পদ্ধতি নয়। এত কিছু দেওয়ার পরেও যদি কিছু চাওয়ার থাকে তবে পদ্ধতি মেনে আসতে হবে। এভাবে চলতে পারে না।” মুখ্যমন্ত্রী হেমতাবাদে জনসভা সেরে হেলিকপ্টারে শিলিগুড়ি যান। শিলিগুড়ির ডাবগ্রামে হেলিপ্যাডে নেমে উত্তরকন্যায় যান সড়কপথে। হেমতাবাদের এই ঘটনার জেরে আজ শিলিগুড়িতে মুখ্যমন্ত্রীর নিরাপত্তা কয়েক গুণ বাড়িয়ে দেওয়া হয়। প্রচুর মহিলা পুলিশকর্মী মোতায়েন করা হয়েছে। এ ব্যাপারে বিরোধীরা কড়া প্রতিক্রীয়া জানিয়েছেন, জনদরদী মুখ্যমন্ত্রী তরুণীকে ডেকে তার অভিযোগের কথা শুনতে পারলেন না? জনদরদী মুখ্যমন্ত্রী কি অভিযোগ শুনতে ভ্য পান?