শিলিগুরি দার্জিলিং কোচবিহার,জল্পাই গ

  • শিলিগুড়ি পৌর নিগমের ন্যায্য পাওনা আদায়ের দাবীতে মেট্রো চ্যানেলে ধর্নায় বসছেন মেয়র

    শিলিগুড়ি, ২০ ফেব্রুয়ারি :  শিলিগুড়ি পৌর নিগমের  রাজ্য সরকারের বিভিন্ন প্রকল্পে  বঞ্চিত  হচ্ছে এবং এটা রাজ্য সরকারের ইচ্ছাকৃত।  এই অভিযোগ করেছেন শিলিগুড়ি পৌর নিগমের মেয়র অশোক ভট্টাচার্য।  এর আগেও বহুবার  রাজ্য সরকারের বিরুদ্ধে এই অভিযোগ তিনি  এনেছেন । নিজেদের ন্যায্য পাওনা  আদায় করতে এবার কলকাতায় ধরনায় বসার  সিদ্বান্ত নিয়েছেন তিনি। আগামী ১ মার্চ কলকাতার মেট্রো চ্যানেলে ধরনায় বসবেন বলে তিনি সংবাদমাধ্যমকে গতকাল জানান । তিনি আরও জানান যে সেখানে উপস্থিত থাকবেন বিরোধী দলের নেতারাও।  এই ধরনা য় নেতাদের পাশাপাশি আমন্ত্রণ জানানো হবে রাজ্যের বুদ্ধিজীবীদেরও। ওই দিনই বিকেলে শিলিগুড়ি সম্পর্কিত বিভিন্ন দাবি দাওয়া নিয়ে রাজভবনে রাজ্যপালের সঙ্গে দেখাও করবেন তিনি। গতকাল শিলিগুড়িতে  সাংবাদিকদের মুখোমুখি হয়ে অশোকবাবু বলেন, "১ মার্চ মেট্রো চ্যানেলে আমরা শিলিগুড়ি পৌর নিগমের  পক্ষ থেকে ধরনা কর্মসূচি নিয়েছি। আমাদের কাউন্সিলর, শ্রমিক সংগঠন ছাড়াও শিলিগুড়ি ও কলকাতার বুদ্ধিজীবীরাও থাকবেন এই ধর্নায় । বিরোধী দলনেতা আবদুল মান্নান ছাড়াও  থাকবেন সুজন চক্রবর্তীসহ সি পি এমের অন্য নেতারাও। আমরা ইতিমধ্যে পুলিশ কমিশনারকে ধর্নার জন্য অনুমতি  চেয়েছি। অনুমতি না পেলেও আমরা ধর্নায় বসব।  দিনের পর দিন শিলিগুড়িকে বঞ্চনা করা হচ্ছে। প্রাপ্য টাকা দেওয়া হচ্ছে না।  ইচ্ছাকৃতভাবে ষড়যন্ত্র করে প্রাপ্য টাকা থেকে বঞ্চিত করা হচ্ছে শিলিগুড়ি পৌর নিগমকে। বারবার বলেও কাজ না হওয়ায়, এবার কলকাতার মেট্রো চ্যানেলে ধরনায় বসব আমরা। । অশোকবাবু আরও বলেন, "আগামী অর্থবছরের পরিকাঠামো উন্নয়নের জন্য আমরা  ৫৪ কোটি টাকার প্রকল্প পাঠিয়েছিলাম। মাত্র ১০ কোটি টাকার কাজের অনুমোদন দেওয়া হয়েছে । শিলিগুড়ি পৌরনিগমকে স্তব্দ করে দেওয়ার প্রচেস্টা চালাচ্ছে রাজ্য সরকার । শিলিগুড়ির উন্নয়নের স্বার্থে  আমি বিরোধীদেরও এই ধর্নায় সামিল হয়ার জন্য আহবান জানাচ্ছি।    যদিও শিলিগুড়ি পৌরনিগমের বিরোধী তৃনমূল কাউন্সিলারদের  দাবি, কলকাতার মেট্রো চ্যানেলে বসার সিদ্ধান্ত আসলে মেয়রের রাজনৈতিক  স্ট্যান্ট।  শিলিগুড়ির উন্নয়নে রাজ্য সরকারের নানা কাজে বাঁধা সৃস্টি  করছেন  মেয়র  এবং কাজ করতে না পেরে এইসব  মিথ্যা অভিযোগ এনেছেন।  

  • কোচবিহার পঞ্চম আন্তর্জাতিক লিটল ম্যাগাজিন মেলার পরিসমাপ্তি ঘটল

    কোচবিহার,রাজকুমার দাস :---২৫,২৬ও২৭ শে জানুয়ারী কোচবিহারের রাজবাড়ী উদ্যানে তিন দিনের পঞ্চম বর্ষের আন্তর্জাতিক লিটল ম্যাগাজিনের মেলার সমাপ্তি হলো।উদ্যোগে তোর্সা সাহিত্য সংসদ।উদ্বোধন করেন কবি অরুনকুমার চক্রবর্তী(লাল পাহাড়ির দেশে যা "-খ্যাত),  পাশাপাশি ছিলেন কোচবিহার দক্ষিণের বিধায়ক । এই মেলায় বাংলার প্রতিটি জেলা থেকে প্রকাশিত লিটল ম্যাগাজিন এর পাশাপাশি বাংলাদেশের রংপুর,আসামের গৌহাটি প্রমুখ স্থান থেকে পত্র পত্রিকা অংশগ্রহণ করেন। প্রতিদিন চলে নানান ধরনের সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের পাশাপাশি কবিতা পাঠ,সংবর্ধনা ও আলোচনা সভা।প্রায় শতাধিক লিটল ম্যাগাজিন অংশগ্রহণ করেন।সংস্থার সম্পাদক মানস চক্রবর্তী জানান জেলায় সাহিত্য প্রীতি বাড়াতে এই ধরনের উদ্যোগ গ্রহণ করা হয়েছে।মেলায় সকলকে নিজের মতো করে আপনজন হয়ে অংশগ্রহণ করতে আহ্বান জানিয়েছেন তিনি।নাচ গান আবৃত্তি অঙ্কন প্রমুখ প্রতিযোগিতা ছিল এই সাহিত্য প্রিয় মঞ্চে।সকলের স্বতস্ফুর্ত যোগদান এই মেলাকে আগামী দিনে আরও অনেক পথ এগিয়ে নিয়ে যেতে সাহায্য করবে তাতে কোন সন্দেহ নেই।এই বছরই প্রথম আন্তর্জাতিক তকমা পেল এই মেলা।তিনদিনের কবি লেখকদের মেল বন্ধনে বেশ জমজমাট পূর্ণ হয়ে উঠেছিল রাজবাড়ীর পার্শবর্তী উদ্যান।আগামী দিনে এই মেলা বিন্দু থেকে সিন্ধুতে পরিণত হবে তা আশা করা যেতেই পারে।

  • তৃণমূল বিজেপি কেউই গরিবদের কথা ভাবে না, বামপন্থীরাই শুধু তাদের কথা ভাবে- অশোক ভট্টাচার্য , সিপি এম নেতা

    ডেস্ক, ২২ জানুয়ারি : আজ শিলিগুড়িতে সাংবাদিকদের মুখোমুখি হয়ে সিপি এম নেতা এবং শিলিগুড়ির মেয়র অশোক ভট্টাচার্য একইসাথে তৃণমূল ও বিজেপি-কে কটাক্ষ করে বলেন সমগ্র দেশজুড়ে  বিজেপি  বিরোধী হাওয়া  চলছে। কারন এরা  কেউই গরিবদের কথা ভাবে না। বামপন্থীরাই শুধু তাদের কথা ভাবে। বাকিরা শুধু ভোটের সময় বড় বড় কথা বলে।  মালদায় অমিত শাহর জনসভা  প্রসঙ্গে  তিনি বলেন, "ওর কথা যত কম বলা যায়, ততই ভাল। বাংলায় তৃনমূলের বিকল্প বিজেপি নয় বিকল্প সিপিএম । অমিত শাহরা নিজের রাজ্যে গিয়ে দেখুন আসন্ন নির্বাচনে কী হাল হয় ওদের।" পাশাপাশি অশোকবাবু তৃণমূলকে কটাক্ষ করে বলেন, "তৃণমূল কংগ্রেস সম্পর্কে মানুষের মোহভঙ্গ হয়েছে । তৃণমূল ১৯ তারিখের সভা নিয়ে  অনেক কিছু আশা করেছিল। কিন্তু ,  বাস্তবে তা হয়নি। বিজেপি  ও তৃণমূল কংগ্রেসকে নিশানা করে বলেন, ওরা ভোটের লক্ষ্যে মানুষের কথা বলে। কিন্তু মেহনতি মানুষ, দলিত এবং সমাজের সবস্তরের মানুষের হয়ে আন্দোলন করে একমাত্র বামপন্থীরাই। তাই জনসভায় অমিত শাহ কী বললেন, তাতে কিছু এসে যায় না।" তিনি আরও বলেন, "আজ যারা সভায় গেছিল তারা অমিত শাহকে দেখতেই মালদায় গেছিল।" অশোকবাবু আক্ষেপের সাথে বলেন  "গত কয়েকবছরে শিলিগুড়ি পৌরসভার প্রাপ্য টাকা আটকে দিয়েছে রাজ্য। মুখ্যমন্ত্রী কথা দেওয়া সত্ত্বেও  এখনও  টাকা পেলাম না। তাই ফের মুখ্যমন্ত্রীর সঙ্গে দেখা করতে চাই। এখনও আশা ছাড়িনি।"    

  • উদ্বোধন হলো গাজোল উৎসবের, চলবে সাত দিন ধরে

    ডেস্ক: সাত দিনব্যাপী গাজোল উৎসবের সূচনা হয়ে গেল সোমবার। এদিন এক বর্ণাঢ্য শোভাযাত্রার মধ্য দিয়ে গাজোল উৎসবের সূচনা করা হয়। উপস্থিত ছিলেন মালদা জেলা পরিষদের সভাধিপতি গৌড় চন্দ্র মন্ডল, গাজোল বিধানসভা কেন্দ্রের বিধায়ীকা দিপালী বিশ্বাস সহ অন্যান্য। জানা যায় গাজোল উৎসবের বিভিন্ন ধরনের স্টল রয়েছে। সরকারি বিভিন্ন সুযোগ-সুবিধা সম্পর্কে সচেতন করা হবে এই স্টল গুলি থেকে।

  • টিএমসিপি সদস্য ও সদস্যাদের সংযত হওয়া উচিত- গৌতম দেব

    শিলিগুড়ি, ১৩ জানুয়ারি : গত ১১ই জানুয়ারী তৃণমূল ছাত্র পরিষদের মিছিলকে কেন্দ্র করে টিএমসিপি ও এসএফআই সদস্যদের মধ্যে মারামারি হয়েছিল  শিলিগুড়ি মহিলা কলেজে। ছাত্রীদের মধ্যে হাতাহাতির পাশাপাশি এক  অভিভাবককে আটকের ঘটনাও ঘটে। এই ঘটনার প্রতিবাদে বামেরা আন্দোলনে নামে। তৃণমূল নেতৃত্বের কড়া সমালোচনা করেন বাম নেতারা। পরিস্থিতির  মোকাবিলায় দার্জিলিং জেলা তৃণমূল কংগ্রেসের সভাপতি তথা রাজ্যের পর্যটন দপ্তরের মন্ত্রী গৌতম দেব বলেন, "আমাদের ছাত্র সংগঠনের  সদস্য সদস্যাদের  বলব সংযত হতে। আমাদের সহিষ্ণুতা দেখাতে হবে। আমরা বদলা চাই না, বদল চাই।" তৃণমূল ছাত্র পরিষদের দার্জিলিং জেলা কমিটি বৃহস্পতিবার সকালে এক মহামিছিলের আয়োজনকরেছিল।  নেতৃত্বএ ছিলেন  তৃণাঙ্কুর ভট্টাচার্য।  জেলা নেতৃত্বের নির্দেশ  তাই শহরের প্রতিটি কলেজ থেকে পড়ুয়াদের মিছিলে আনা হয়। শিলিগুড়ি মহিলা কলেজে সকলকে  নিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করলে  প্রতিবাদে সরব হন শিলিগুড়ি মহিলা কলেজের এসএফ  আই-এর সদস্যরা।  ত্তখন তৃণমূল ছাত্র পরিষদের  সদস্যরা  ওই কলেজের এক এসএফ  আই নেতা ও তার বাবা ও দিদিকে মারধর করা হয় বলে অভিযোগ। পালটা তাদের এক  সদস্যকে মারধরের অভিযোগ ওঠে এসএফআই-র বিরুদ্বে । পরে দুই তরফে শিলিগুড়ি থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করা হয়। এই অবস্থা মোকাবিলায় নামেন জেলা তৃণমূল কংগ্রেসের সভাপতি গৌতম দেব। তিনি ছাত্র সংগঠনের নেতৃত্বদের উদ্দেশে বলেন, "আমাদের সহনশীল ও ধৈর্যশীল হতে হবে।সিপিএম বা এসআইয়ের মত গুন্ডাবাজী করলে চলবে না। তিনি আরও বলেন  আমাদের মুখ্যমন্ত্রী আগেই জানিয়েছেন, বদলা নয় বদল চাই।আমাদের ছেলেমেয়েদের বাইরে থেকে প্ররোচনা দেওয়া হয়। আমি সকলকে বলব, তারা যাতে প্ররোচনায় পা না দেয়।" গৌতমবাবু আরও বলেন, "এই ঘটনায় যে মেয়েটি মার খেয়েছে বলে অভিযোগ, সে ওই কলেজের ছাত্রী কি না তা দেখা দরকা

  • দার্জিলিংর মিরিকে শিক্ষার্থী সহ বাস খাদে পড়ে আহত প্রায় ৩০ জন।

    ডেস্ক,  ৪ জানুয়ারীঃ  পাহাড়ে শিক্ষামূলক ভ্রমণে এসে দুর্ঘটনার কবলে বাস। আহত   প্রায় ৩০ জন। সুত্রে জানা যায় তিনটি বাসে করে মুম্বই থেকে দার্জিলিঙে শিক্ষামূলক ভ্রমণে এসেছিল  বেশ কিছু শিক্ষার্থী সহ  শিক্ষকরা । পাহাড় থেকে নামার সময় তাদের বাস দু'টি নিয়ন্ত্রন হারিয়ে খাদে পড়ে যায়।  দুর্ঘটনাটি ঘটে মিরিকের গয়াবাড়ির কাছে।   আরও জানা যায়  তিনটি বাস পরপর পাহাড় থেকে নামার সময় পিছনের বাসটি দ্বিতীয় বাসটিকে ধাক্কা মারে। ফলে, দুটি বাসই খাদে পড়ে যায়। দ্বিতীয় বাসটি প্রায় ১৫০ ফুট ও শেষের  বাসটি অন্তত ৫০  ফুট নিচে একটি বাঁশঝাড়ে আটকে যায়।   এলাকাটি জঙ্গলভর্তি  ও দুর্গম হওয়ায় মোবাইল ফোনের নেটওয়ার্ক না পাওয়ায়  দুর্ঘটনাগ্রস্ত পড়ুয়া ও শিক্ষকরা কারও সঙ্গে যোগোযোগ করতে পারছিল না। স্থানীয় বাসিন্দারা উদ্বারকার্যে হাত লাগান এবং পুলিশে খবর পাঠান। পুলিশ দ্রুত ঘটনাস্থলে পৌছায় এবং স্থানীয়দের সাহায্যে দুর্ঘটনাগ্রস্তদের রাতেই উদ্ধার করে হাসপাতালে পাঠানো হয়। গভীর রাত  পর্যন্ত চলে উদ্ধারকাজ। কয়েকজনকে প্রাথমিক চিকিৎসার পর ছেড়ে দেওয়া হয়েছে। আশঙ্কাজনক অবস্থায় কয়েকজনকে উত্তরবঙ্গ মেডিকেল কলেজে রেফার করা হয়।  

  • উত্তর দিনাজপুরের কালিয়াগঞ্জে কৃষকদের হয়রানির খবর করতে গিয়ে নিগৃহীত সাংবাদিকরা।

    ডেস্ক,  রায়গঞ্জ, ৩ জানুয়ারি : উত্তর দিনাজপুর জেলার কালিয়াগঞ্জের ধনকৈইলের কিষান মাণ্ডিতে ধান বিক্রি করতে এসে কৃষকরা হয়রানির  খবর সংগ্রহ করতে গিয়ে খাদ্য দপ্তরের আধিকারিকের হাতে হেনস্থার শিকার হতে হল। খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে  কালিয়াগঞ্জ থানার পুলিশ গিয়ে  পরিস্থিতি স্বাভাবিক করে । গতকাল কৃষকদের একাংশ অভিযোগ করেছিলেন সরকারি সহায়ক মূল্যে ধান বিক্রি করতে এসে হয়রানির শিকার হতে হচ্ছে তাদের। পাশাপাশি দাপট চলছে ফড়েদের। সেই খবর পাওয়ামাত্র  সাংবাদিকরা  খবর সংগ্রহ করতে যান কিষান মাণ্ডিতে হাজির হন । সেখানে ধান সংগ্রহের ছবি তোলার সময় তাঁকে বাধার মুখে পড়তে হয়। অভিযোগ, খাদ্য দপ্তরের এক আধিকারিক ওই সাংবাদিককে ছবি তুলতে বাধা দেন এবং দুর্ব্যবহার করেন। খবর পেয়ে অন্য সাংবাদিকরা হাজির হলে মাণ্ডিতে উত্তেজনা তৈরী হয়। ঘটনাস্থলে  যায় কালিয়াগঞ্জ থানার পুলিশ। চাপের মুখে মাণ্ডিতে ধান সংগ্রহের দায়িত্বে থাকা ওই আধিকারিক ভুল স্বীকার করে নেন। এই ঘটনার পর কালিয়াগঞ্জ প্রেস ক্লাবের সাধারণ সম্পাদক অলিপ মিত্র গতকালই উপযুক্ত পদক্ষেপ নেওয়ার আর্জি জানিয়েছেন ব্লক খাদ্য পরিদর্শক ও জেলাশাসক অরবিন্দ কুমার মিনার কাছে।  মাণ্ডিতে আসা এক কৃষক অভিযোগ করেন, "আমরা ধান নিয়ে এসেও বিক্রি করতে পারছি না।  আজ নয় কাল বলে শুধু ঘোরাচ্ছে । বলছে সকাল ১১টার মধ্যে আসতে হবে। আজ ১১টার আগেই এসেছি, কিন্তু দুপুর পার হয়ে গেলেও ধান বিক্রির অনুমতি পাইনি।" আর এক কৃষকের অভিযোগ, "সোমবার থেকে ঘুরছি, এখনও ধান বিক্রির জন্য রেজিস্ট্রেশন করাতে পারিনি। নানা অজুহাতে ঘোরানো হচ্ছে।" কৃষকদের আরও অভিযোগ, ধান বিক্রির জন্য কমিশন চাওয়া হচ্ছে। কমিশন দিতে রাজি না হওয়ায় ধান নেওয়া হচ্ছে না। অথচ অনেক ফড়েরা অনায়াসে  ধান বিক্রি করছে।  

  • মিথ্যা অভিযোগ তোলার জন্য ছাত্ররা সহকারী শিক্ষককে বাধ্য করল প্রধান শিক্ষককের কাছে ক্ষমা চাইতে।

    ডেস্ক, শিলিগুড়ি, ৩ জানুয়ারি : ছাত্রদের চাপে স্কুলের সহকারী শিক্ষক বাধ্য হল  প্রধান শিক্ষককের কাছে ক্ষমা চাইতে। ঘটনাটি ঘটেছে  শিলিগুড়ির শালবাড়ি হাইস্কুলে। ঐ স্কুলের এক  শিক্ষক মানিক রায় অভিযোগ করেন যে প্রধান শিক্ষক শ্যামল গোপ ছাত্রদের কাছ থেকে টাকা নিয়ে  স্কুলের মধ্যেই  টেস্ট পেপার বিক্রি করছেন। মানিকবাবু শাসকদলের শিক্ষক সংগঠনের নেতা । এটই ব্যাপার নিয়ে আন্দোলনেও নামে তৃণমূল দল । আজ স্কুল খুলতেই  ছাত্ররা আন্দোলনে নামে। প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে  মিথ্যা অভিযোগ তোলার জন্য । মানিকবাবুকে  প্রধান শিক্ষকের কাছে ক্ষমা চাইতে হবে বলে  দাবিও জানায়। এই বিক্ষোভে সামিল হয়   অভিবাবক সহ স্কুলের প্রাক্তন ছাত্ররাও। স্কুলে উত্তেজনাকর পরিস্থিতির সৃস্টি হয়।  খবর পেয়ে স্কুলে আসে পুলিশ। চাপের মুখে প্রধান শিক্ষকের পায়ে ধরে ক্ষমা চান মানিক রায়। এরপরই পরিস্থিতি শান্ত হয়। ছাত্রদের আরও অভিযোগ, স্থানীয় এক তৃণমূল নেতা স্কুলে এসে প্রধান শিক্ষককে হুমকিও দিয়েছেন। সেই কারণে ছাত্ররা ওই নেতার বাড়িতেও চড়াও হয়। গোটা ঘটনা নিয়ে কিছু বলতে চাননি মানিক রায় ও শ্যামল গোপ। স্কুলের এক ছাত্র বলে, "আমাদের সুবিধার জন্যই স্যার টেস্ট পেপার এনে দেন। উনি ব্যবসা করেননি। আমরা সময়ে টেস্ট পেপার পেয়ে পরীক্ষার জন্য প্রস্তুতি নিতে পারি। তার জন্যই হেডস্যার তাড়াতাড়ি আমাদর বই এনে দেন। কিন্তু, মানিক রায় নামে ওই শিক্ষক বলছে হেডস্যার বই বিক্রি করে টাকা খাচ্ছে। বইয়ে দামও লেখা আছে। আমাদের থেকে হেডস্যার টাকাও নিয়েছেন। আমাদের কোনও আপত্তি নেই। ওরা বদনাম করছে। হেডস্যার না কি চোর। গালিগালাজও করা হয়। বাদল দাস নামে এক তৃণমূল নেতাও হেডস্যারকে হুমকি দেয় বের করে দেওয়ার।" এদিকে  তৃণমূলের শিক্ষক সংগঠনের জেলা সভাপতি সুপ্রকাশ রায় বলেন, "স্কুলে গুন্ডামি করা হয়েছে। আমাদের সদস্য শিক্ষক মানিক রায়কে ক্ষমা চাওয়ানো হয়েছে। বিরোধী রাজনৈতিক দলের কিছু শিক্ষক নেতা এসবের পিছনে থেকে মদত দিয়েছেন। আমরা এর শেষ দেখে ছাড়ব।  

  • আচমকা শিলিগুড়ি প্রাথমিক শিক্ষা সংসদের চেয়ারম্যান প্রণব ভট্টাচার্য-র পদত্যাগ

    ডেস্ক, শিলিগুড়ি, ২ জানুয়ারি : তৃনমূলের শিক্ষক সংগঠনের সাথে বনিবনা না  হওয়ায়  শিলিগুড়ি প্রাথমিক শিক্ষা সংসদের চেয়ারম্যান প্রণব ভট্টাচার্য পদত্যাগ করলেন । গতকাল তিনি শিক্ষা দপ্তরে তার পদত্যাগপত্র পাঠিয়ে পদ থেকে  অব্যাহতি চান। আজ শিক্ষা দপ্তর তাঁর পদত্যাগপত্র গ্রহণ করেছে। যদিও পদত্যাগ পত্রে তিনি ব্যক্তিগত কারনের কথা উল্লেখ করেছেন বলে জানা গেছে।  সুত্রে জানা যায় কিছুদিন ধরে  শাসক দলের  শিক্ষক সংগঠনের সঙ্গে বনিবনা হচ্ছিল না।  এ ব্যাপারে তিনি তার ঘনিষ্ঠ মহলে  ক্ষোভ প্রকাশ করছিলেন । ২০১৭ থেকে শিলিগুড়ি প্রাথমিক শিক্ষা সংসদের চেয়ারম্যান পদে ছিলেন তিনি।  এই ব্যাপারে তার সাথে যোগাযোগ করা হলে  তিনি বলেন "আমি আবার  কোচবিহারের পঞ্চানন বর্মক বিশ্ববিদ্যালয়ে  প্রফেসর হিসাবে ফিরে যেতে চাই । তাই আমার এই পদত্যাগ। পশ্চিমবঙ্গ প্রাথমিক শিক্ষা পর্ষদের চেয়ারম্যান মানিক ভট্টাচার্যকে প্রণব ভট্টাচার্য-র  পদত্যাগ প্রসঙ্গে জিজ্ঞেস করা হলে  তিনি জানান " আপনারা এ  ব্যাপারে  অন্য কিছু খুজবেন না । চেয়ারম্যান হিসেবে প্রণববাবু ভাল কাজ করেছেন । তবে উনি বিশ্ববিদ্যালয়ে উঁচু পদে মনোনীত হয়ে যেতে চাইছেন। তাই তাকে আমরা আর আটকে রাখতে চাইনা "

  • শিলিগুড়ির জমি মাফিয়া তৃণমূল নেতা হিম্মত সিং চৌহান শর্তসাপেক্ষে জামিন পেলেন

    ডেস্ক, শিলিগুড়ি, ২৩ ডিসেম্বর : তৃণমূল নেতা হিম্মত সিং চৌহান প্রায় সাড়ে চার মাস  জেলে থাকার পর শর্তসাপেক্ষে জামিনে মুক্তি পেলেন । এলাকায় জমি মাফিয়া বলে পরিচিত হিম্মত সিং চৌহানকে জমির কাগজ জাল করে জবর দখল ও বিক্রির অভিযোগে গত  ৪ই অগাস্ট  গ্রেপ্তার করেছিল পুলিশ। গতকাল শর্তসাপেক্ষে জামিনে মুক্তি পান তিনি। জামিনে ছাড়া পেয়েই তিনি কলকাতার উদ্দেশ্যে যাত্রা করেন । হৃদরোগের সমস্যাজনিত কারণে স্বাস্থ্য পরীক্ষা করাতে কলকাতা যাচ্ছেন বলে জানান। রাজনৈতিক মহলের অনুমান , কলকাতায় তৃণমূলের শীর্ষ নেতৃত্বের সঙ্গে তিনি কথা বলবেন। লোকসভা নির্বাচনের প্রাক্কালে দলে নিজের অবস্থান ঠিক রাখতেই হিম্মতের এমন সিদ্ধান্ত বলে খবর। গতকাল সকালে মুক্তি পেয়ে চম্পাশরি এলাকায় পরিবারের সঙ্গে সময় কাটিয়ে দুপুরে কলকাতার উদ্দেশে রওনা দেন তিনি।  পূর্ত দপ্তরের জমি জবর দখল ও বিক্রির অভিযোগে চলতি বছরের ৪ অগাস্ট তৃণমূল নেতা হিম্মত সিং চৌহানকে গ্রেপ্তার করে প্রধাননগর থানার পুলিশ। এরপর তাঁর বিরুদ্ধে আরও কিছু মামলা রুজু করে প্রধাননগর থানা ও মাটিগাড়া থানার পুলিশ। পুলিশি হেপাজতে থাকাকালীন একাধিকবার পুলিশের বিরুদ্ধে তিনি অভিযোগ তোলেন। শুধু তাই নয়, তাঁকে গ্রেপ্তারের পিছনে শিলিগুড়ির প্রাক্তন তৃণমূল বিধায়কের ষড়যন্ত্র আছে বলেও অভিযোগ তোলেন। যদিও, জামিনের পর তিনি বলেন, কারো বিরুদ্ধে কোনও অভিযোগ নেই তাঁর। কলকাতা পাড়ি দেওয়ার আগে ফোনে হিম্মত সিং চৌহান জানান, "আমাকে মিথ্যে মামলায়  ফাঁসানো হয়েছিল। আমার বিরুদ্ধে থানায় কোনও লিখিত অভিযোগ ছিল না। তবে, কারো বিরুদ্ধে কোনও অভিযোগ নেই আমার। দল ও সরকার আমাকে যথেষ্ট সাহায্য করেছে। আমি দলের সাথেই আছি। মুখ্যমন্ত্রী ও গৌতম দেবের সঙ্গে আছি।" হিম্মত সিং চৌহানের আইনজীবী চন্দন দে জানান, ১০ হাজার টাকার বন্ডে তাঁর জামিন মঞ্জুর করেছেন বিচারক। তবে, তদন্তের স্বার্থে সপ্তাহের শেষে একদিন করে মাটিগাড়া থানা ও প্রধাননগর থানায় হাজিরা দিতে হবে তাঁকে। যদিও তাঁর গতিবিধির উপর কোনও বাধা-নিষেধ লাগু করেনি আদালত। পাশাপাশি পুলিশের তরফে যতদিন পর্যন্ত চার্জশিট পেশ না হচ্ছে ততদিন হাজিরা দিতে হবে তাঁকে।