শিলিগুরি দার্জিলিং কোচবিহার,জল্পাই গ

  • শিলিগুড়ির বিশেষ সংশোধনাগারে বিচারধীন এক বন্দীর ঝুলন্ত দেহ উদ্ধার

    ডেস্ক, শিলিগুড়ি, ১২ ডিসেম্বর : শিলিগুড়ির বিশেষ সংশোধনাগার থেকে বিচারধীন এক বন্দীর ঝুলন্ত দেহ উদ্ধার হল। জানা যায়  মৃতের নাম ভুষা বিরজা। তার বাড়ি শিলিগুড়ির খড়িবাড়ি এলাকায়। সংশোধনাগার কতৃপক্ষ এই ঘটনার বিভাগীয় তদন্ত শুরু করেছে পাশাপাশি এই ঘটনায়  শোকজ় করা হয়েছে সংশোধনাগারের হেড ওয়ার্ডেন এবং আরও এক ওয়ার্ডেনকে। মদ পাচারের অভিযোগে গতকাল ভুষা বিরজাকে গ্রেপ্তার করে আবগারি দপ্তরের আধিকারিকরা। পরে তুলে দেওয়া হয় খড়িবাড়ি থানার পুলিশের হাতে। গতকালই তাকে শিলিগুড়ি মহকুমা আদালতে পেশ করা হয়। বিচারক ২১ ডিসেম্বর পর্যন্ত তার জেল হেপাজতের নির্দেশ দেন। আজ সকালে সংশোধনাগার থেকে তার ঝুলন্ত দেহ উদ্ধার হয়। সংশোধনাগার সূত্রে খবর, গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মঘাতী হয় ওই ব্যক্তি। সংশোধনাগারের সুপার জানান, আত্মহত্যার কারন এখনও  জানা যায়নি। গতকালই সংশোধনাগারে ওই বন্দীকে নিয়ে আসা হয়েছিল। হেড ওয়ার্ডেন তপন মণ্ডল ও ওয়ার্ডেন প্রদীপ দেবনাথকে শোকজ় করা হয়েছে। শুরু হয়েছে তদন্ত।"

  • উত্তরবঙ্গ মেডিকেল কলেজের চিকিৎসকরা বিরল অস্ত্রোপচার করলেন

    ডেস্ক, ৬ ডিসেম্বর : উত্তরবঙ্গ মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালের চিকিৎসকরা আজ এক বিরল অস্ত্রোপচার করে এক মরণাপন্ন যুবকের পিঠ থেকে ছুরি বের করলেন। ছুরি তার ফুসফুস এফোঁড় ওফোঁড় করে হৃদয় ছুঁয়ে গেছিল । জানা যায় মঙ্গলবার রাতে আলিপুরদুয়ারে এক যুবক ছুরির ঘায়ে জখম হন। দুষ্কৃতীরা তাঁর  পিঠে ছুরি ঢুকিয়ে দেয়। যা বুক ফুঁড়ে বেরিয়ে পড়ে । গতরাতে পুলিশ গুরুতর জখম অবস্থায় তাকে আলিপুরদুয়ার জেলা হাসপাতালে ভরতি করে। সেখানে ছুরিটি বের করতে পারেনি হাসপাতাল চিকিৎসক। পরে উত্তরবঙ্গ মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালে তাকে রেফার করা হয়। বুধবার পুলিশ ওই যুবককে উত্তরবঙ্গ মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালে নিয়ে আসে। যুবকের শরীরে তখনও বিঁধে ছিল ছুরি। ফলে রোগীকে বেডে ঠিকমত শোয়ানো যাচ্ছিল না।  শেষ পর্যন্ত ডানদিকে কাত করে শুইয়ে যুবককে অজ্ঞান করে শুরু হয় অস্ত্রোপচার। ঘণ্টাখানেক ধরে চলে অস্ত্রোপচার। শেষে অস্ত্রোপচার সফল হয় । বর্তমানে যুবক কিছুটা সুস্থ রয়েছেন বলে জানা গেছে। হাসপাতাল সূত্রে জানানো হয় এটি একটি বিরল অস্ত্রোপচার। রোগীকে প্রথমে সঠিকভাবে অ্যানেসথেসিয়া করা প্রয়োজন ,এবং তার জন্য রোগীকে চিৎ করে শোয়াতে হয়। কিন্তু তা করা যাচ্ছিল না কারন তার পিঠে ছুরি বিঁধেছিল। তাই রোগীকে কাত করে শোয়ানো হয়েছিল।  একটি ফুসফুস চুপসে দিয়ে অপর ফুসফুসের মাধ্যমে অ্যানেসথেসিয়া পর্ব সারা হয়। এরপর অস্ত্রোপচার করা হয়। আরও জানানো হয় উপযুক্ত পরিকাঠামো ছাড়া এই অস্ত্রোপচার সম্ভব নয়। এছাড়া সাহস, একাগ্রতা খুবই প্রয়োজন। ফুসফুস এফোঁড় ওফোঁড় হলেও হৃদয়ের কোনও ক্ষতি হয়নি।"

  • শিলিগুড়ির এক মিষ্টি ব্যবসায়ী তোলাবাজির অভিযোগ আনলেন।

    শিলিগুড়ি, ৫ ডিসেম্বর : আজ  শিলিগুড়ি জার্ণালিস্ট ক্লাবে সাংবাদিক বৈঠকে  শিলিগুড়ির একজন মিষ্টি ব্যবসায়ী তোলাবাজির অভিযোগ আনলেন। তাঁর অভিযোগ, তাঁর দোকানের মিষ্টির মান খারাপ এই অভিযোগ তুলে তাঁকে ব্ল্যাকমেল করে এক কোটি টাকা দাবী করে বলে অভিযোগ। পুলিশে জানানো  সত্ত্বেও তারা নাকি কোনও পদক্ষেপই নেয়নি। জানা গেছে শিলিগুড়ির ঐ মিষ্টি ব্যবসায়ীর নাম  শিবকুমার বনসল। তিনি  বলেন, "আমরা ISO সার্টিফায়েড মিষ্টি বিক্রি করি। কয়েকদিন আগে আমাদের কাছে একটি ফোন আসে। ফোনে বলা হয় আমাদের মিষ্টিতে নাকি পোকা ছিল। আমাদের একটি ভুয়ো ভিডিয়োও দেখানো হয়। বলা হয়, এনিয়ে সমঝোতা না করলে ভিডিয়োটি ভাইরাল করে দেওয়া হবে। বিনিময়ে এক কোটি টাকা চাওয়া হয়। স্থানীয় ভক্তিনগর থানায় অভিযোগ জানিয়েও কোনও লাভ হয়নি।" সাংবাদিকদের তিনি আরও জানান , "যারা টাকা চেয়েছিল তাদের নাম বিজয় জয়সওয়াল, মনোজ শাহ ও দীপক জয়সওয়াল।" এবিষয়ে অভিযুক্ত ওই তিনজনের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে  তাঁরা কেউই অভিযোগ স্বীকার করেননি। তাঁরা জানান, এটা তাদের বিরুদ্বে  চক্রান্ত বা সমস্ত  অভিযোগটাই মিথ্যা। " শিলিগুড়ি কমার্স কলেজের অশিক্ষক কর্মী মনোজ শাহ বলেন, " আমি টাকা চাইনি। আমায় ফাঁসানো হচ্ছে। একাধিক কল রেকর্ড শোনানো হচ্ছে, সেগুলি আমার গলা নয়। ওই মিষ্টি বিক্রেতার বিরুদ্ধে বাগডোগরা থানায় লিখিত অভিযোগ জানিয়েছি। আশা করি পুলিশ উপযুক্ত পদক্ষেপ নেবে।" শিলিগুড়ি মার্চেন্ট অ্যাসোসিয়েশনের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে , "শহরে এধরনের ঘটনায় ব্যবসা ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে। এই চক্রান্তের বিরুদ্ধে পুলিশ উপযুক্ত পদক্ষেপ নেবে আশা করি।" শিলিগুড়ি পুলিশ সূত্রে জানা যায় , দুটি অভিযোগই খতিয়ে দেখে পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে । এবং ইতিমধ্যে নির্দিষ্ট ধারায় মামলা দায়ের হয়েছে।  

  • জেলা স্তরের স্পোর্টস কমিটির সম্পাদকের পদ নিয়ে শিলিগুড়িতে তৃনমুলের প্রাথমিক শিক্ষকদের মধ্যে মারামারি।

    ডেস্ক,শিলিগুড়ি, ৩ ডিসেম্বরঃ  প্রাথমিক বিদ্যালয়ের জেলা স্তরের স্পোর্টস কমিটির সম্পাদকের পদ নিয়ে শিলিগুড়িতে তৃনমুল প্রভাবিত প্রাথমিক শিক্ষকদের মধ্যে ঝগড়া ও হাতাহতি। ফলত একদল শিক্ষকের হাতে মার খেলেন তাদেরই  সহকর্মী সুরজিৎ বড়ুয়া নামে এক শিক্ষক।ঘটনাটি ঘটে নকশালবাড়িতে।      প্রাথমিক বিদ্যালয়ের জেলা স্তরের স্পোর্টস কমিটির  সম্পাদকের পদ নিয়ে কাজিয়ার জের। পশ্চিমবঙ্গ তৃণমূল প্রাথমিক শিক্ষক সমিতির সদস্যদের হাতে মার খেলেন পশ্চিমবঙ্গ প্রাথমিক শিক্ষক সমিতির সভাপতি সুরজিৎ বড়ুয়া। গতকাল । দার্জিলিংয়ে পশ্চিমবঙ্গ প্রাথমিক শিক্ষক সমিতি সংগঠনটি চালান তৃণমূল নেতা রঞ্জন শীলশর্মা।   সূত্রে জানা যায় প্রাথমিক বিদ্যালয়ের জেলা স্তরের স্পোর্টস কমিটির সম্পাদকের পদ নিয়ে বেশ কয়েকদিন ধরে গন্ডগোল চলছিল তৃনমুল প্রভাবিত প্রাথমিক শিক্ষকদের মধ্যে । সমস্যা সমাধানের জন্য গতকাল নকশালবাড়িতে শিক্ষা সংসদের তরফে বৈঠক ডাকা হয়। সেখানে হাজির ছিলেন পশ্চিমবঙ্গ তৃণমূল শিক্ষক সমিতির নেতারা। উপস্থিত হয়েছিলেন  তৃনমুল নেতা রঞ্জন শীলশর্মা পরিচালিত অপর সংগঠন পশ্চিমবঙ্গ প্রাথমিক শিক্ষক সমিতির কয়েকজন নেতাও।  কিন্তু, বৈঠক শেষে এই সংগঠনের সভাপতি সুরজিৎ বড়ুয়াকে মারধর করা হয়। তাঁকে নকশালবাড়ি গ্রামীণ হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখানেই চিকিৎসাধীন রয়েছেন তিনি। আহত সুরজিৎবাবু বলেন, "আমরা সকলেই শিক্ষক। কিন্তু একটি  সংগঠনের নেতারা গুন্ডার মতো হামলা চালায়। আমাকে মারধর করা হয়। মেরে আমার মুখ ফাটিয়ে দিয়েছে।" সুরজিৎবাবুর পাশে দাঁড়িয়ে ঘটনার প্রতিবাদ করেছেন তৃনমুল নেতা রঞ্জন শীলশর্মা,তিনি বলেন, "ক্ষমতাসীন দলের অফিসিয়াল সংগঠন মারধর করেছে। এর বিচার চাই।" তবে গন্ডগোল ও মারধোরের ঘটনা অস্বীকার করেছে পশ্চিমবঙ্গ তৃণমূল প্রাথমিক শিক্ষক সমিতি। সমিতির সদস্যরা জানান, রঞ্জন শীলশর্মার নেতৃত্বে ওই সংগঠন স্পোর্টস বানচাল করার পরিকল্পনা কষেছিল। এই নিয়ে ওদের নিজেদের মতবিরোধেই কেউ আক্রান্ত হয়ে থাকতে পারে। তাঁদের কেউ এসবের সঙ্গে যুক্ত নয়।

  • শিলিগুড়ির বিধান মার্কেটে অগ্নিকান্ড, সম্পূর্ণ ভস্মীভুত ৩টি দোকান।

    ডেস্ক, শিলিগুড়ি, ২ ডিসেম্বরঃ  শিলিগুড়ির বিধান মার্কেটে অগ্নিকান্ড। এর ফলে   তিনটি দোকান সম্পূর্ণ ভস্মীভুত । আরও দুটি দোকান ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে।  খবর পাওয়া মাত্র দমকলের ৪টি ইঞ্জিন  ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়ে আগুন নিয়ন্ত্রণে আনে।     স্থানীয় সূত্রে জানা যায় আস ভোরে  মার্কেটের এক  নিরাপত্তারক্ষী  লক্ষ করেন  মার্কেটের তুলাপট্টী এলাকা থেকে ধোঁয়া বেরোচ্ছে। সেখানে যেতেই আগুন চোখে পড়ে।  সাথে সাথে তিনি  স্থানীয় ব্যবসায়ীদের খবর দেন তিনি। পাশাপাশি দমকলকে খবর দেওয়া হয় । দমকলের দুটি ইঞ্জিন দ্রুত ঘটনাস্থানে পৌঁছায়। আগুন নিয়ন্ত্রণে আনার কাজ শুরু হয়। নিয়ন্ত্রণে না আসায় আরও দুটি ইঞ্জিন পৌঁছায় সেখানে। শেষ পর্যন্ত কয়েকঘণ্টার মধ্যে ৪টি ইঞ্জিনের চেষ্টায় আগুন নিয়ন্ত্রণে আসে।  তিনটি দোকান পুরোপুরি ভস্মীভুত ও  দুটি দোকান আংশিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়। স্বাভাবিক ভাবেই উত্তরবঙ্গের  অন্যতম বিশাল বাজার শিলিগুড়ির বিধান মার্কেটের  অগ্নিনির্বাপণ ব্যবস্থা নিয়ে প্রশ্ন উঠেছে। যদিও ব্যাবসায়ীদের অভিযোগ  এর আগেও এই ব্যাপারে ব্যাবস্থা নেওয়ার কথা বললেও  আজ পর্যন্ত কোন সঠিক ব্যাবস্থা নেওয়া হয়নি। দমকল কর্মীদের বক্তব্য , শীতের মরশুম বলে ওই দোকানগুলিতে শীতবস্ত্র মজুত ছিল। ফলে আগুন নেভাতে  তাদেরকে খুব কষ্ট করতে হয়েছে। আগুন লাগার কারণ এখনও স্পষ্ট নয়। তবে দমকল কর্মীদের প্রাথমিক অনুমান, শর্ট সার্কিটের ফলেই এই আগুন লাগে। স্থানীয় কাউন্সিলর  দ্রুত ঘটনাস্থলে পৌছান সেখানে তিনি জানান  "মনে  হচ্ছে শর্ট সার্কিট থেকেই আগুন লেগেছে। এই ঘটনায় ক্ষতির মুখে পড়তে হল ব্যবসায়ীদের। ক্ষতির পরিমাণ হিসেব করে দেখা হচ্ছে। প্রয়োজনে ক্ষতিগ্রস্থ ব্যাবসায়ীদের সাহায্য করা হবে।"

  • শিলিগুড়িতে সিন্ডিকেটরাজের গুন্ডামীর প্রতিবাদে উদ্যোগপতি রাজ্য ছেড়ে চলে যেতে চাইছেন।

    ডেস্ক, শিলিগুড়ি, ১লা ডিসেম্বরঃএবার শিলিগুড়িতেও সিন্ডিকেটের থাবা এবং  তাও শিল্প স্থাপনে।মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্ধ্যোপাধ্যায় সিন্ডিকেট রাজের বিরুদ্বে বিদ্রোহ ঘোষনা করেছেন, কিন্তু বাস্তবে তার প্রতিফলন ঘটেনি। তার দলের লোকেরাই এই সিন্ডিকেটরাজের সাথে জড়িত তা আর একবার শিলিগুড়িতে প্রমানিত হল। স্থানীয় এক উদ্যোগপতি শিলিগুড়ির কাছে লিচুপাখরিতে ফুডপার্কে শিল্প স্থাপন করতে গিয়ে হুমকি, এবং বাঁধার মুখে পড়েছেন তার ফলে তিনি রাজ্যে বিনিয়োগ থেকে সরে আসতে চাইছেন।   শিলিগুড়ির কাছে বাগডোগরায় ফুডপার্কে একটি প্রকল্প গড়ার কাজ শুরু  করেছেন মহানন্দা ফুড প্রাইভেট লিমিটেডের তরফে কমল মুন্দ্রা নামে এক বিনিয়োগকারী। সেই প্রকল্পে ২৫ কোটি টাকা বিনিয়োগের কথা। ইতিমধ্যে কাজ  শুরু হয় গেছে, প্রাথমিকভাবে পরিকাঠামো তৈরি করার জন্য খরচ প্রায় সাড়ে তিন কোটি টাকা ধরা হয়েছে। কমলবাবুর অভিযোগ, কাজ শুরু হতেই এলাকায় সিন্ডিকেটরাজ ও স্থানীয় দাদাদের  গুন্ডাগিরির মুখে পড়েছেন তিনি। স্থানীয় সিন্ডিকেটের নেতারা জানিয়েছেন তাদের থেকেই নিতে হবে সিমেন্ট, ইট বালি রডসহ যাবতীয় নির্মাণ সামগ্রী এবং তাও আবার  বাজার দরের থেকে অনেক বেশি দামে। এবং কাজের জন্য সমস্ত  শ্রমিক নিতে হবে সিন্ডিকেটের মাধ্যমে।  এ ব্যাপারে তিনি আপত্তি করায় গতকাল কাজ আটকে দেয় সিন্ডিকেটের সদস্যরা। মারধর ও দেখে নেওয়ার হুমকি দেওয়া হয়। অপারগ হয়ে  বিনিয়োগকারী সংস্থা পুলিশে খবর দিলে গতকাল পুলিশ এসে ১৪ জনকে আটক করলেও স্থানীয় তৃণমূল নেতার মধ্যস্থতায় রাতেই সকলে ছাড়া পেয়ে যান।  ছাড়া পাওয়ার পর আবার কাজ আটকে দিয়েছে তারা। এই পরিস্থিতিতে বিনিয়োগকারী কমল মুন্দ্রা জানালেন, "আগামী  ৫  ডিসেম্বর সিন্ডিকেটের সঙ্গে আলোচনায় বসতে বাধ্য করা হচ্ছে আমাদের । আমরা এই ব্যাপারে  বিস্তারিত জানিয়েছি স্থানীয় মন্ত্রী সহ শিল্প দপ্তরে । যদি এই সমস্যা না মেটে তাহলে আমরা এখানে আর শিল্প স্থাপন করতে চাই না।" নর্থবেঙ্গল ইন্ড্রাস্ট্রিজ় অ্যাসোসিয়েশনের সম্পাদক সুরজিৎ পাল আজ সাংবাদিক বৈঠক করে বলেন, "সিন্ডিকেট রাজ চলছে। বিনিয়োগ করতে এসে হুমকির মুখে পড়তে হচ্ছে। লরিতে করে এলাকায় বালি নিয়ে যেতে গাড়ি পিছু ৫০ টাকা গুন্ডাট্যাক্স দিতে হচ্ছে। বেশি দামে সামগ্রী কিনতে বাধ্য করা হচ্ছে। স্থানীয় মন্ত্রী গৌতম দেবকে সব জানাচ্ছি। সমস্যা না মিটলে মুখ্যমন্ত্রীকেও সব জানাব। কোনওভাবেই সিন্ডিকেট রাজের সঙ্গে আপস করতে চাই না।" স্বাভাবিক ভাবেই প্রশ্ন উঠেছে শিল্পস্থাপনে রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রীর প্রয়াস বারবারে বাঁধা প্রাপ্ত হচ্ছে নিজের দলের মদতে গড়ে উঠা সিন্ডিকেটরাজের কাছে। এ ব্যাপারে ব্যাবস্থা গ্রহণে সদিচ্ছার অভাব কি দলীয় স্বার্থে।    

  • শিলিগুড়িতে আবার নিখোঁজ ৩ স্কুলছাত্র।

    ডেস্ক, শিলিগুড়ি, ২৯ নভেম্বর : পুরোপুরি দুই দিন কেটে গেল এখনও পর্যন্ত নিখোজ তিন কিশোরের খোজ পাওয়া গেল না। জানা যায়  ঔ নিখোঁজ ওই তিনজনের নাম  সঞ্জিত শা,মহম্মদ রফিক ও অবিনাশ শা। ওদের বাড়ী সুভাষপল্লির বাগরাকোটে।   স্থানীয় সূত্রে জানা যায় গত বুধবার সকাল থেকে তাদের কোন খোজ পাওয়া যাচ্ছিল না । দিনভর খুঁজেও পাওয়া যায়নি তাদের। ঐ তিন ছাত্রের পরিবারের পক্ষ থেকে  শিলিগুড়ি থানায় নিখোঁজ ডায়েরি করা হয়েছে। পুলিশ ইতিমধ্যে তদন্ত শুরু করেছে  কোনও কারণে তারা বাড়ি থেকে পালিয়েছে কি না তাও খতিয়ে দেখছে পুলিশ। কেউ কেউ বলছেন তাদের কেউ নিয়ে পালিয়েছে।  আরও জানা যায় যে তারা , বাড়ি থেকে   টাকা পয়সা নিয়ে যায়নি। বোঝা যাচ্ছে না ওরা তিনজন কোথায় গেল। গত ২৩ নভেম্বরও শিলিগুড়ির রানিডাঙার একটি বেসরকারি স্কুল থেকে নিঁখোজ হয় তিন ছাত্র। এখনও পর্যন্ত তাদের খোঁজ পাওয়া যায়নি। সেই ঘটনার রেশ কাটতে না কাটতেই আবারও শিলিগুড়িতে নিঁখোজ হল তিন ছাত্র। পৌরনিগমের ১৮ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর নিখিল সাহানি বিষয়টি নিয়ে পুলিশকে তদন্তের আবেদন জানিয়েছেন। 

  • “শাসক দলের শত বাঁধা অতিক্রম করে আমাদের কর্মসূচী রথযাত্রা হবেই” শিলিগুড়িতে সাংসদ সুরিন্দর সিং আলুওয়ালিয়া।

    ডেস্ক, শিলিগুড়ি, ২৭ নভেম্বর : লোকসভা নির্বাচনকে সামনে রেখে পাহাড়ে বিজেপি নিজেদের জমি ফিরে পাওয়ার চেষ্টা শুরু করেছে। তারই অঙ্গ হিসাবে  বিজেপির কেন্দ্রীয় কমিটির সিদ্বান্ত অনুযায়ী রথযাত্রা কর্মসূচীকে সফল করার জন্য শিলিগুড়ি সাংগঠনিক জেলা সফরে এসে গতকাল সাংবাদিকদের সাথে মিলিত হন দার্জিলিঙের বিজেপি  সাংসদ সুরিন্দর সিং আলুওয়ালিয়া। সেখানে তিনি বলেন ‘রাজ্যে শাসক দল যতই বাঁধার সৃস্টি করুক আমাদের কর্মসূচী রথযাত্রা হবেই। যারা এই রথযাত্রাকে সাফল্যমণ্ডিত করে তোলার দায়িত্বে রয়েছেন তাঁরা ইতিমধ্যে সব রকম প্রচেষ্টা নিয়েছেন’। তৃনমূল কংগ্রেস আপনাদের রথযাত্রার পালটা কর্মসূচী পবিত্র যাত্রা করবে জানিয়েছে, এ ব্যাপারে প্রতিক্রিয়া দিতে গিয়ে তিনি বলেন, "এটা তাদের দলের বিষয়, এ ব্যাপারে আমাদের কোন বক্তব্য নেই তবে  আমাদের রথযাত্রা হবেই।" প্রসঙ্গত তিনি আরও বলেন "পাহাড়ের মানুষ এখনও  বিমল গুরুঙের সঙ্গে আছেন এবং আগামীদিনেও থাকবেন। বিনয় তামাং কে? বিমল গুরুং না থাকলে বিনয় তামাংকে কে চিনত? আমাদের ওর সমর্থন দরকার নেই। ও তো এখন শাসক দলের হাতের পুতুল এবং পুলিশকে সাথে করে নিয়ে পাহাড়ে ঘুরে বেড়াচ্ছে। পাহাড়বাসী এবার প্রার্থী হিসেবে ভূমিপুত্র চাইছেন? এ প্রশ্নের উত্তরে আলুওয়ালিয়া বলেন, "ভূমিপুত্রর সঠিক ব্যাখ্যা কী? যারা এদেশে জন্মেছে তারাই ভূমিপুত্র। বাইচুং ভুটিয়া তো ভূমিপুত্র ছিলেন, উনি নির্বাচনেও দাঁড়িয়েছিলেন। তাতে কী হল। বিনয়ও যদি সত্যিকারের ভূমিপুত্র হয় তাহলে  লোকসভা নির্বাচনে প্রার্থী হয়ে দেখাক।"   পাহাড়ের মানুষ জনের অভিযোগ আপনি পাহাড়ে ঠিকমত যান না এই প্রশ্নের উত্তরে তিনি বলেন।,এটা বিরোধীদের রটনা। তিনি আরও বলেন, "পাহাড়ে যখন যাব তখন আপনারা জেনে যাবেন। পাহাড়ের লোকেরা আমার সঙ্গে দেখা করে যাচ্ছে। ওখান লোকের কোনও কাজ আটকে নেই। পাহাড়ের জনসমর্থন এখনও বিমল গুরুঙের সঙ্গেই আছে।  

  • শিলিগুড়ির সেবক থানা সংলগ্ন এলাকায় এক বাইক দুর্ঘটনায় মৃত্যু হল মা ও দুই মেয়ের।

    Newsbazar 24, ডেস্ক, শিলিগুড়ি, ১৯ নভেম্বরঃ গতকাল রাতে সেবক থানা সংলগ্ন এলাকায় এক পথ দুর্ঘটনায় মৃত্যু হল মা ও দুই মেয়ের। গুরুতর জখম হয়েছেন মৃতার স্বামী। জানা গেছে, শিলিগুড়ি পুর এলাকার  বাসিন্দা তাপসবাবু তার স্ত্রী সংঘমিত্রা এবং তাদের  দুই  মেয়ে প্রিয়স্মিতা (৭) ও কৃতিকা(৩) কে নিয়ে বাইকে  রবিবার ছুটি কাটানোর জন্য স্বপরিবারে সেবক ঘুরতে গিয়েছিলেন ।ফেরার পথে আচমকা একটি লরি পেছন থেকে ধাক্কা মারায় বাইক থেকে ছিটকে মাঝরাস্তায় পড়ে যান তাপসবাবুর স্ত্রী সংঘমিত্রা দাস ও তাঁদের দুই মেয়ে। সংঘমিত্রাদেবী ও তাঁর দুই মেয়ের ওপর দিয়ে চলে যায় ট্রাকটি। ঘটনাস্থলেই  প্রাণ হারান  তার স্ত্রী ও দুই মেয়ে । গুরুতর জখম হন তাপসবাবু। সেবক থানার পুলিশের তরফে তাপসকে উদ্ধার করে শিলিগুড়ির একটি নার্সিংহোমে পাঠানো হয়। মৃতদেহগুলি উদ্ধার করে উত্তরবঙ্গ মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালে পাঠানো হয়।   সেবক থানার তরফে জানা গিয়েছে, ট্রাক ও চালকের খোঁজ শুরু হয়েছে। পুলিশ সূত্রে জানা যায়  দুর্ঘটনার সময় তাপসবাবু ও অন্য কারও মাথায় হেলমেট ছিল না। একই বাইকে চারজন ছিলেন। মাননীয়া মুখ্যমন্ত্রীরসেফ ড্রাইভ ও সেভ লাইভ স্লোগানকে   সামনে রেখে  এত প্রচার এত  কর্মসূচি তা সত্ত্বেও বিষয়টি ইয়ে মানুষ এখনও সচেতন তা আর একবার প্রমান হল।  

  • বিয়ের প্রতিশ্রুতি দিয়ে প্রেমিকার সাথে সহবাস, পরে অস্বীকার করে অন্যত্র বিয়ের আগেই গ্রেপ্তার

    Newsbazar 24, ডেস্ক, শিলিগুড়ি, ১৯ নভেম্বরঃ  প্রতিশ্রুতি দিয়ে প্রেমিকার সাথে  দিনের পর দিন সহবাস, করে  পরবর্তীকালে অন্য জায়গায় বিয়ের পিড়িতে বসার আগে  গ্রেপ্তার এক যুবক। প্রেমিকের অন্যত্র বিয়ের খবর পেয়েই তার বিরুদ্ধে থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন যুবতি।   যুবতির অভিযোগের ভিত্তিতে প্রেমিককে গ্রেপ্তার করল মাটিগাড়া থানার পুলিশ। গতকাল তাকে শিলিগুড়ি মহকুমা আদালতে তোলা হলে বিচারক একদিনের জেল হেপাজতের নির্দেশ দেন। আদালত সূত্রে জানা যায় ধৃত যুবকের  নাম উজ্জ্বল মণ্ডল। শিলিগুড়ির মাটিগাড়া এলাকায় তার বাড়ী। আজ  বাড়ির পছন্দ করা মেয়ের সাথে তার বিয়েছিল। যদিও তার আগেই প্রাক্তন প্রেমিকার অভিযোগে  তাকে গ্রেপ্তার করে শিলিগুড়ি মহকুমা আদালতে পেশ করা হয়।   স্থানীয় সূত্রে জানা যায় প্রতিবেশী  এক যুবতির সাথে বহুদিনের সম্পর্ক  উজ্জ্বলের। বিয়ের প্রতিশ্রুতি দিয়ে একাধিকবার সহবাসেও লিপ্ত হয়েছিল উজ্জ্বল ঐ যুবতির সাথে। পরবর্তীকালে ঐ যুবতি বিয়ের কথা বললে তাঁকে "নিচু জাতের" বলে অপমান করে তার সাথে সম্পর্ক ছিন্ন করার চেষ্টা করে  উজ্জ্বল। কিছুদিন পর যুবতি  জানতে পারেন বাড়ীর পছন্দ করা মেয়ের সাথে উজ্জ্বলের বিয়ে ঠিক হয়েছে। গত শনিবার মাটিগাড়া থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন। গতকাল উজ্জ্বলকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ। (ছবিতে অভিযুক্ত যুবককে আদালতে নিয়ে যাচ্ছে পুলিশ)