শিলিগ�রি দার�জিলিং কোচবিহার,জল�পাই গ

  • সরকারি অনুষ্ঠানসহ মুখ্যমন্ত্রীর অনুষ্ঠানেও জমি মাফিয়ারা উপস্তিত থাকছেন-শঙ্কর মালাকার।

    Newsbazar 24 ,ডেস্ক, মালদা, ১৪ অক্টোবর : শিলিগুড়ি জলপাইগুড়ির জমি মাফিয়ারা  সরকারি অনুষ্ঠানসহ মুখ্যমন্ত্রীর অনুষ্ঠানেও যোগ দিচ্ছে । অভিযোগ জানানোর পরও পুলিশের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা না নেওয়ার অভিযোগে, এবং  সেই সকল জমি মাফিয়াদের নামের তালিকা তৈরি করে মুখ্যমন্ত্রীকে চিঠি লিখতে চলেছেন মাটিগাড়া-নকশালবাড়ির কংগ্রেস বিধায়ক শংকর মালাকার।  উত্তরবঙ্গ সফরে এসে মুখ্যমন্ত্রী পুলিশের শীর্ষ কর্তাদের নির্দেশ দিয়েছিলেন  জমি মাফিয়াদের গ্রেপ্তারের জন্য । তাঁরই নির্দেশে গ্রেফতার করা হয়েছিল তৃনমূলের এক কাউন্সিলার  জমি মাফিয়াকে। তারপরেও  পুলিশ কিছু  ধড়পাকড় করে । শিলিগুড়ি মেট্রোপলিটন পুলিশের তরফে প্রায় একমাস ব্যাপী অভিযান চালানো হয়।  বিধায়কের অভিযোগ, যাদের ধরা হয়েছে তাদের মধ্যে রাঘব বোয়ালরা নেই।    তিনি এই ব্যাপারে  জমি মাফিয়াদের পাশাপাশি  ভূমি রাজস্ব দপ্তরের  বিএল আর ও সহ আধিকারিকদের বিরুদ্বে অভিযোগ করেছেন। তিনি বলেছেন এদের দ্বারা পতিত জমি সরকারি জমিতে পরিণত হয়। একজনের  জমি অন্যের নামে পরিবর্তিত হয়ে যায়।শংকর মালাকার বলেন  জলপাইগুড়ি জেলার রাজগঞ্জ ব্লক সহ শিলিগুড়ি মহকুমার অধীন খড়িবাড়ি, মাটিগাড়া, নকশালবাড়ি এলাকায় এমন অভিযোগ রয়েছে অনেক। দলগতভাবে সেই সব অভিযোগের নথি সংগ্রহ করা হচ্ছে। বেশকিছু নথি সংগ্রহের কাজ ইতিমধ্যে সম্পন্ন হয়েছে।  সূত্রের খবর অনুযায়ী বিধায়কের আরও অভিযোগ, এইসব জমি মাফিয়ারা, উত্তরবঙ্গে মুখ্যমন্ত্রীর অনুষ্ঠানে অংশ নেন। কিংবা অনুষ্ঠান মঞ্চের আশপাশে ঘোরা ফেরা করতে দেখা যায়। এর আগেও মুখ্যমন্ত্রীকে বিষয়টি নিয়ে চিঠি দিয়েছিলেন শঙ্কর মালাকার। তার মধ্যে কয়েকজন ধরাও পড়ে। অভিযোগ বেশিরভাগই অধরা থেকে গিয়েছে বলে অভিযোগ। তাই ফের জমি মাফিয়াদের নাম মুখ্যমন্ত্রীর কাছে পাঠাচ্ছেন তিনি।  

  • সিকিম থেকে শিলিগুড়িতে আসার পথে তিস্তায় গাড়ী পড়ে মৃত ১ আহত ৩।

    Newsbazar24, ডেস্ক, ১২ অক্টোবর : আজ সকালে দার্জিলিং জেলার সেবকের কালীঝোড়া এলাকায় নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে তিস্তার জলে গাড়ি পড়ে মৃত্যু হল একজনের। আহত ৩। গাড়িটি সিকিম থেকে শিলিগুড়িতে আসছিল বলে  জানা গেছে। চালক সহ মোট চারজন ছিলেন ওই গাড়িতে। স্থানীয় সূত্রে প্রত্যক্ষদর্শীদের কাছ থেকে জানা যায় , নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে কয়েকশো ফুট উঁচু পাহাড়ের বাঁক থেকে তিস্তায়  পড়ে যায়  গাড়ি। ঘটনায় একজনের মৃত্যু হয়। অন্যদিকে, গুরুতর জখম হন তিনজন। জলে তলিয়ে যাওয়ায় ফলে গাড়িতে আটকে পড়েই মৃত্যু হয় ওই ব্যক্তির। মৃতের নাম পরিচয় কিছুই জানা যায়নি। অন্যদিকে, ঘটনার পরই ঘটনাস্থলে  হাজির হয় সেবক থানার পুলিশ। স্থানীয় বাসিন্দাদের উদ্যোগে খুব শীঘ্রই  ওই গাড়িতে থাকা যাত্রীদের উদ্ধার করা হয়। পরবর্তীতে সকলকেই শিলিগুড়ির একটি নার্সিংহোমে পাঠানো হয় চিকিৎসার জন্য। মৃতদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য উত্তরবঙ্গ মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে পুলিশের তরফে।

  • জাল সার্টিফিকেট দেখিয়ে উত্তরবঙ্গ মেডিকেল কলেজে ভরতি হতে গিয়ে ধৃত যুবক

    Newsbazar 24, ডেস্ক,  ১১ অক্টোবর : অভিজিৎ সিনহা নামে এক যুবক ভুয়ো সারটিফিকেট দাখিল করে উত্তরবঙ্গ মেডিকেল কলেজে ভরতি হতে গিয়ে পুলিশের হাতে ধরা পড়ল । আগামীকাল তাকে শিলিগুড়ি  মহকুমা আদালতে তোলা হবে বলে জানা গেছে।   সূত্রে জানা যায় শিলিগুড়ির বাসিন্দা অভিজিৎ আজ সকালে বেশ কিছু ভুয়ো কাগজপ্ত্র নিয়ে উত্তরবঙ্গ মেডিকেল কলেজের অধ্যক্ষের সাথে দেখা করে জানায় যে সে এই বছর এই মেডিকেল  কলেজে ভরতি হয়েছে।  কলেজ কর্তৃপক্ষ অভিজিতের দাখিল করা কাগজপ্ত্র গুলিকে নকল  বলে জানায়। এই ঘটনার পরই অধ্যক্ষ সমীর ঘোষ রায় তার বিরুদ্ধে উত্তরবঙ্গ মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতাল ফাঁড়িতে লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন। সেই অভিযোগের ভিত্তিতে আজ বিকেলে ওই অভিজিৎকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ। উত্তরবঙ্গ মেডিকেল কলেজের অধ্যক্ষ সমীরবাবুর কাছ থেকে জানা যায় , এক যুবক  কিছু কাগজপত্র দেখিয়ে জানায়, সে  এই মেডিকেল কলেজে  ডাক্তারী  কোর্সে ভরতি হয়েছে। সেই সংক্রান্ত বেশ কিছু কাগজপত্রও দেখায় সে। কিন্তু, সে যেসব কাগজ দেখিয়েছিল সবগুলোই নকল। এরপরই পুলিশে অভিযোগ জানানো হয়। পুলিশের তরফে জানা গেছে, ঘটনার তদন্ত শুরু হয়েছে। এই ঘটনার পিছনে বড় কোন চক্র আছে কিনা তাও পুলিশ তদন্ত করে দেখছে।   

  • পুলিশকে পুড়িয়ে মারার অভিযোগে শিলিগুড়ির এসএফ আই নেত্রী গ্রেপ্তার।

    Newsbazar24, ডেস্ক, ১০ অক্টোবরঃ পুলিশকে মারধর ও পুড়িয়ে মারার চেষ্টার অভিযোগেহাওড়া থেকে গ্রেপ্তার করা হল  শিলিগুড়ির এসএফ আই নেত্রী সুকৃতি আশকে।  আজ দুপুরে হাওড়া আদালতে হাজির করানোর পর । সেখান থেকে ট্রানজ়িট রিমান্ডে শিলিগুড়ি আনা হচ্ছে। আগামীকাল তাঁকে শিলিগুড়ি মহকুমা আদালতে হাজির করানো হবে। দাড়িভিটা  হাইস্কুলের ঘটনায় ২৪ সেপ্টেম্বর শিলিগুড়িতে বামেদের মিছিলে মুখ্যমন্ত্রীর কুশপুতুল পোড়ানোর সময়  বাধা দেয় পুলিশ। সেইসময় ধস্তাধস্তিতে শিলিগুড়ি থানার আইসি সহ কয়েকজন পুলিশ কর্তার গায়ে কুশপুতুল পোড়ানোর  জন্য আনা কেরোসিন ছিটকে পড়ে। পুলিশ কর্তারা অভিযোগ করেন, তাঁদের পুড়িয়ে মারার চেষ্টা হয়েছিল। যদিও সেইসময় মেয়র অশোক ভট্টাচার্য জানিয়েছিলেন ,ধাক্কাধাক্কিতে হয়ত কেরোসিন ছিটকে পড়তে পারে।  প্রকাশ্যে  মিছিল থেকে পুলিশকে পুড়িয়ে মারার চেষ্টার অভিযোগ হাস্যকর। ঘটনার পর দুই সিপিএম নেতাকে আটক করা হলেও বামেদের চাপে তাদের ওই রাতেই  ছেড়ে দেওয়া হয়। তবে মূল অভিযুক্ত সুকৃতি আশসহ মেয়র অশোক ভট্টাচার্য ও অন্য নেতাদের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করে রেখেছিল পুলিশ। আজ হাওড়ায় এক আত্মীয়ের বাড়ি থেকে ওই নেত্রীকে গ্রেপ্তার করা হয়। এই ঘটনা জানার পর কড়া প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেছেন মেয়র অশোক ভট্টাচার্য ।তিনি বলছেন মিথ্যা অভিযোগে গ্রেপ্তার করা হল আমাদের নেত্রীকে, আমরা এর শেষ দেখে ছাড়ব।       

  • ইসলামপুরের ছাত্র মৃত্যুর ঘটনায় কেন্দ্রীয় মানবাধিকার কমিশনের প্রতিনিধি দল রাজ্যে অসহযোগিতার মুখে।

    Newsbazar24, শিলিগুড়ি, ৮অক্টোবরঃ  ইসলামপুরের দাড়িভিটায় গুলিতে ছাত্র মৃত্যুর ঘটনায় কেন্দ্রীয় মানবাধিকার কমিশনের  প্রতিনিধি দল রাজ্যে এল।  তবে রাজ্যে তাদের এই আগমন   সুখকর হল না কারন  বাগডোগরা বিমানবন্দরে নামার পর গাড়ির জন্য প্রায় দু'ঘণ্টা অপেক্ষা করতে হয় বলে অভিযোগ । পরে  যদিও রাজ্য প্রশাসনের  গাড়ি এলে সন্ধের দিকে তাঁরা ইসলামপুর পৌঁছন। তবে এবিষয়ে মানবাধিকার কমিশনের ডিএসপি কিছু জানাতে অস্বীকার করেন।   যদিও তাদের সঙ্গে থাকা  সমাজকর্মী শ্রীরূপা মিত্র চৌধুরি বলেন, "আমি দাড়িভিটার ঘটনা নিয়ে কেন্দ্রীয় মানবাধিকার কমিশনে অভিযোগ করেছিলাম। কমিশ নের  একজন  ডিএসপিও দুই  ইন্সপেক্টর আজ তদন্তে এসেছেন। এ ব্যাপারে রাজ্যকে অবহিত করা সত্ত্বেও রাজ্য অসহযোগিতা করছে। কেন্দ্রীয় কমিশন আমাকে আজ এই সফরে থাকতে বলেছিল। আমি তাই দিল্লি থেকে এসেছি। কিন্তু প্রথমেই অসহযোগিতার মুখে পড়তে হল। শুনেছি রাজ্য মানবাধিকার কমিশনও নাকি এনিয়ে তদন্ত করছে। সাধারণত রাজ্যের মানবাধিকার কমিশন তদন্ত করলে লিখিতভাবে তা কেন্দ্রীয় মানবাধিকার কমিশনকে তা জানানোর নিয়ম। কিন্তু এক্ষেত্রে কিছুই জানানো হয়নি। তা ছাড়া রাজ্যের পুলিশ অভিযুক্ত। তাই রাজ্যের কমিশন ঠিক তদন্ত করবে বলে মনে করি না।"  এবিষয়ে কেন্দ্রীয় মানবাধিকার কমিশনের  ডিএসপি বলেন, "দাড়িভিটার ঘটনা নিয়ে আমাদের কাছে অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে  তদন্ত করতেই আমরা ইসলামপুর এসেছি। অভিযোগকারীদের সঙ্গে কথা বলার পর কাজ শুরু করব।"  

  • দলের নেতা মন্ত্রীদের চামড়া তুলে নেওয়ার হুমকি কোচবিহার যুব তৃনমূলের

    Newsbazar24, ডেস্ক, ৭ অক্টোবরঃ  ‘দলের নেতা মন্ত্রীদের চামড়া তুলে নেওয়ার হুমকি’।না এই হুমকি বিজেপি নেতা দিলীপ ঘোষের নয় এই হুমকি কোচবিহার তৃণমূল যুব কংগ্রেসের নেতা-কর্মীদের। গত বৃহস্পতিবার বিকেলে কোচবিহারের মাথাভাঙা-১ ব্লকের শিকারপুরে মিছিল করে এই হুঁশিয়ারি দেন  দলের নেতা–মন্ত্রীদের । তাঁদের অভিযোগ, কিছু নেতা-মন্ত্রী দলকে নিজের ইচ্ছামত ব্যাবহার করছেন। তাই তাদের বিরুদ্ধে আন্দোলনে নামা হয়েছে। দেখা গেছে গত পঞ্চায়েত নির্বাচনের আগে থেকেই কোচবিহারে তৃণমূল ও যুব তৃণমূলের মধ্যে বিরোধ । কোচবিহারের রাজনৈতিক মহল সহ সকলেই জানে দলের কোচবিহার জেলা সভাপতি তথা মন্ত্রী রবীন্দ্রনাথ ঘোষের সাথে সাংসদ তথা যুব তৃণমূল সভাপতি পার্থপ্রতীম রায়ের বিরোধ । এই ঘটনা নিয়ে  দেওয়ানহাটে কিছুদিন আগে মন্ত্রী রবীন্দ্রনাথ ঘোষকে হেনস্থা হতে হয় যুব কর্মীদের হাতে। পাশাপাশি তাঁর বিরুদ্ধেও স্লোগানও দেওয়া হয়। দেওয়নাহাটের পর গতকাল কোচবিহারের মাথাভাঙায় শিকারপুরে রবীন্দ্রনাথ ঘোষ সহ দলের নেতা-মন্ত্রীদের চামড়া তুলে নেওয়ার হুঁশিয়ারি দিয়ে মিছিল করা হয় পুলিশের সামনেই ।সূত্রে জানা যায়  শিকারপুর গ্রাম পঞ্চায়েতে তৃণমূল ও যুব তৃণমূলের পঞ্চায়েত সদস্যদের মধ্যে বিরোধ । অভিযোগ, যুব তৃণমূলের দুই পঞ্চায়েত সদস্যকে পঞ্চায়েতের কোনও বৈঠকে  ডাকা হয় না। তাঁদের অন্ধকারে রেখেই সিদ্ধান্ত নিচ্ছেন প্রধান। এমনকী গত মঙ্গলবার গ্রাম পঞ্চায়েতের একটি বৈঠকে যুবদের ঢুকতেই দেওয়া হয়নি । তাই বৃহস্পতিবার মাথাভাঙা-১ ব্লক যুব তৃণমূল নেতা কামাল হোসেনের নেতৃত্বে বিক্ষোভ দেখান পঞ্চায়েত কার্যালয়ের সামনে। তিনি বলেন, "এক শ্রেণীর নেতামন্ত্রী দলকে ব্যবহার করছে নিজেদের লাভের জন্য। তাই তাদের বিরুদ্ধে আন্দোলনে নামা হয়েছে।"  যদিও তৃণমূলের মাথাভাঙা-১ ব্লক সভাপতি মজিরুল হোসেন বলেন, "যারা এই ঘটনা ঘটিয়েছে, তারা দলের কেউ নয়।" যুব তৃণমূলের কোচবিহার জেলা সভাপতি পার্থপ্রতীম রায়ের কোন প্রতিক্রিয়া পাওয়া যায়নি। দলের জেলা সভাপতি তথা উত্তরবঙ্গ উন্নয়ন মন্ত্রী রবীন্দ্রনাথ ঘোষ  প্রথমে বিষয়টি এড়িয়ে যান পড়ে অবশ্য বলেন ‘ এই ধরনের স্লোগান যারা দিয়েছেন তার দলের কেঊ নন, তারা দুষ্কৃতী।  

  • তৃণমূল কংগ্রেসের সংখ্যালঘু সেলের চেয়ারম্যান কে খুনের হুমকির অভিযোগ

    Newsbazar 24, ডেস্ক, ৬ অক্টোবরঃ তৃণমূল কংগ্রেসের সংখ্যালঘু সেলের চেয়ারম্যান কে খুনের হুমকি দেওয়া হয়েছে বলে অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে  উত্তরবঙ্গ মেডিকেল কলেজ পুলিশ ফাঁড়িতে। এই অভিযোগ রফিকুল ইসলাম নিজে দায়ের করেছেন । তিনি আরও অভিযোগ করেছেন তাঁকে ফোন করে খুনের হুমকি দেওয়া হচ্ছে।  অভিযোগ, কয়েকদিন আগে তাঁর ফোনে একটি  মেসেজ আসে। সেখানে তাঁকে প্রাণে মেরে ফেলার হুমকি দেওয়া হয়। কিছুক্ষণ পরই  আবার ঐ নম্বর থেকে ফোন করে শাসানি দেওয়া হয় এবং বলা হয়  বাঁচতে চাইলে পাঁচ লাখ টাকা দিতে হবে। পুলিশের কাছে গেলে পরিবারের সদস্যদের খুনের হুমকিও দেওয়া হয়। আচমকা হুমকিতে আতঙ্কিত হয়ে পড়েন তিনি। শেষপর্যন্ত আজ দুপুরে তিনি পরিবারের নিরাপত্তা চেয়ে পুলিশে অভিযোগ দায়ের করেন।

  • শিলিগুড়িতে এবিভিপি সমর্থকদের উপর হামলা অভিযুক্ত তৃনমূল ছাত্র পরিষদ

    Newsbazar24, ডেস্ক, ৫ অক্টোবরঃ ইসলামপুরের দাড়িভিটা কান্ডের প্রতিবাদে  শুক্রবার  শিলিগুড়িতে অখিল ভারতীয় বিদ্যার্থী পরিষদের(এবিভিপি)  পূর্বঘোষিত  কর্মসূচি মিছিলকে ঘিরে  ব্যাপক  উত্তেজনা তৈরী হল ।  নিউ জলপাইগুড়ি স্টেশনে। এদিন শিলিগুড়িতে মিছিলে যোগ দিতে উত্তরবঙ্গের বিভিন্ন জেলা থেকে এবিভিপির কর্মী-সমর্থকরা ট্রেনে করে নিউ জলপাইগুড়ি স্টেশনে পৌঁছান। স্টেশন সূত্রের খবর অনুযায়ী এবিভিপি কর্মী সমর্থকেরা স্টেশন থেকে বেরোবার সময় তাদের উপর তৃনমূল সমর্থকেরা  চড়াও হয় বলে অভিযোগ । গোটা স্টেশন রণক্ষেত্রে পরিণত হয়।এবিভিপির সদস্যদের অভিযোগ তার যখন স্টেশন থেকে  বাইরে বেরোচ্ছিলেন সেসময় তৃণমূল আশ্রিত দুষ্কৃতীরা তাঁদের ওপর চড়াও হয়। লাঠি সহ ধারালো অস্ত্র দিয়ে মারধর করা হয় স্টেশন  চত্বরেই। প্রাণ বাঁচাতে তাঁরা  আশ্রয় নেন অন্য একটি জায়গায়। হামলার ফলে  তাদের বেশ কয়েকজন আহত হয়েছেন বলে অভিযোগ। এবিভিপির পক্ষ থেকে অভিযোগ করা হয় যে  তারা মিছিলের জন্য আগাম অনুমতি চেয়েছিলেন কিন্তু তাদেরকে অনুমতি না দিয়ে তৃনমূল ছাত্র পরিষদকে মিছিলের অনুমতি দেওয়া হয়। উত্তরবঙ্গের বিভিন্ন জেলা থেকে বাসে করে আমাদের কর্মীরা শিলিগুড়ি আসছিলেন কিন্তু পুলিশ রাস্তায় আটকে দেয়, এছাড়াও আটকানো হয় শিলিগুড়ি জংশন স্টেশনে।  শিলিগুড়ি কাঞ্চনজঙ্ঘা স্টেডিয়াম থেকে মিছিল শুরু হওয়ার কথা ছিল। শিলিগুড়িতে  মিছিল ঢুকতে না দেওয়ায় মিছিল বদলে তারা অবস্থান শুরু করেন। এদিন এবিভিপির অবস্থানে আসেন ইসলামপুরের নিহত ছাত্র রাজেশ সরকারের মা ঝরনা সরকার ও আহত ছাত্র বিপ্লব সরকারের মা সরস্বতী সরকার। এবং সেই মঞ্চ থেকে রাজেশের মা বলেন সঠিক ভাবে তদন্ত হচ্ছে না। সিআইডি তদন্তের উপর আমার আস্থা নেই। আমরা সিবিআই তদন্ত চাই। তাই এখানে এসেছি।অন্যদিকে সরস্বতীদেবী বলেন, আমার ছেলেকে গুলি করল।  সঠিকভাবে তদন্ত হউক।আমরা  সিবিআই তদন্ত চাই। তাহলেই সঠিক তদন্ত হবে। এর অপরদিকে এবিভিপির পাশাপাশি মিছিল করে  দার্জিলিং জেলা তৃণমূল ছাত্র পরিষদ।এদিন এই মিছিলটি শিলিগুড়ির পানিট্যাঙ্কি মোড় থেকে শুরু হয়ে শেষ হয় ভেনাস মোড়ে গিয়ে। এবং এই মিছিলে পা  মেলান রাজ্যের পর্যটনমন্ত্রী গৌতম দেব। যদিও এদিন পর্যটনমন্ত্রীকে প্রশ্ন করা হয় যে এবিভিপির মিছিলের কি পাল্টা মিছিল এর উত্তরে তিনি বলেন যে তৃণমূল কংগ্রেস কোউকে অনুসরণ করে চলে না। বরং তৃণমূল কংগ্রেসেকে অনুসরণ করে চলে অনেকেই।

  • ভ্রমনপিপাসুদের কাছে সুখবর আগামী ৫ অক্টোবর থেকে দার্জিলিঙে আবার চালু হচ্ছে টয় ট্রেন

    Newsbazar 24,ডেস্ক, ২ অক্টোবর :  যারা  পুজোর সময় দার্জিলিঙে  আসবেন বলে ঠিক করেছেন তাদের কাছে সুখবর। সূত্রে জানা গেছে আগামী ৫ অক্টোবর থেকে আবার  চলতে পারে নিউ জলপাইগুড়ি থেকে দার্জিলিং পর্যন্ত টয়ট্রেন। দার্জিলিং হিমালয়ান রেলওয়ের  ডিরেক্টর জানিয়েছেন , সব কিছু ঠিক করে  আমরা টয়ট্রেন চালাব। আজ ট্রায়াল রান হয়েছে। ৫ অক্টোবর থেকে এই পরিষেবা চালুর সম্ভাবনা আছে। লাইনে ধসের কারণে  গত ৩০ অগাস্ট থেকে বন্ধ রয়েছে টয়ট্রেন পরিষেবা। লাইন মেরামতির পর আজ ট্রায়াল হিসেবে টয়ট্রেন চালানো হয়েছে। রেলকর্তাদের আশা চলতি সপ্তাহ থেকেই ফের চালানো যাবে টয়ট্রেন। পাহাড়ে পর্যটকদের জন্য  "জয় রাইড" ও "রেড পান্ডা" সার্ভিসের মাধ্যমে দুটি টয়ট্রেন পরিষেবা চললেও বরাবরই পর্যটকদের মূল আকর্ষণ নিউ জলপাইগুড়ি থেকে দার্জিলিং পর্যন্ত টয়ট্রেন পরিষেবা। চলতি সপ্তাহে ফের এই পরিষেবা চালু হলে পুজোয় পাহাড়ে বাড়তি ভিড় হতেই পারে বলে আশা করছেন রেল ও পর্যটন দপ্তরের কর্তারা। রক্ষণাবেক্ষণের জন্য পাহাড়ে টয়ট্রেনের অন্য কিছু পরিষেবা অবশ্য পুজোর মুখে বনধ করা হচ্ছে বলে রেল সূত্রে জানানো হয়েছে। রেলসূত্রে খবর, ৫ অক্টোবর অবধি বন্ধ থাকবে দার্জিলিং ও ঘুমের মধ্যে টয়ট্রেনের জয় রাইড। এছাড়া দার্জিলিঙ ও কার্সিয়ঙের মাঝেও টয়ট্রেন বন্ধ থাকবে অক্টোবরের একাধিক দিন। পর্যটন ব্যবসায়ীরা জানান, পুজোর মরশুমে ছুটি কাটাতে বহু মানুষ পাহাড়ে আসেন। তাই টয়ট্রেন পরিষেবা অর্থাৎ নিউ জলপাইগুড়ি থেকে দার্জিলিং পর্যন্ত টয়ট্রেন ফের চালু হলে তা পর্যটন ব্যবসার পক্ষে সুখবর। পর্যটন ব্যবসায়ীরা জানিয়েছেন যদি  ৫ অক্টোবর থেকে এই পরিষেবা চালু করা গেলে তা খুব ভালো খবর। আমরা চাই হেরিটেজ টয়ট্রেন নিয়মিত চলাচল করুক।"  

  • মুখ্যমন্ত্রীর স্বপ্নের পর্যটন প্রকল্প গাজোল ডোবায় "ভোরের আলো"র শুভ উদ্বোধন আগামীকাল

    Newsbazar24, ডেস্ক, ২ অক্টোবর : অবশেষে  মুখ্যমন্ত্রীর স্বপ্নের পর্যটন প্রকল্প গাজোল ডোবায়  "ভোরের আলো"র দ্বার উদ্ঘাটন হতে চলেছে। এই পর্যটন প্রকল্প সাজানোর কাজ প্রায় শেষ পর্যায়ে। আগামী ৩রা  অক্টোবর মুখ্যমন্ত্রী উত্তরবঙ্গ সফরের সময় এটির উদ্বোধন করবেন বলে প্রশাসন সূত্রে জানা যায় । ইতিমধ্যে হাওয়া মহল তৈরি কাজ শেষ হয়ে গিয়েছে।মুখ্যমন্ত্রী স্বপ্ন সার্থক হতে চলেছে। জেলা প্রশাসন সূত্রে জনা যায় , তিন দিনের সফরে আগামীকাল শিলিগুড়ি আসবেন মুখ্যমন্ত্রী। বিমানবন্দর থেকে সরাসরি যাবেন গজলডোবায়। প্রকল্প উদ্বোধন করে গজলডোবায় রাত্রিবাস করার কথা আছে। বৃহস্পতিবার শিলিগুড়ির উত্তরকন্যায় ফিরে সাংবাদিকদের একটি মিডিয়া আওয়ার্ড বিতরণী সভায় যোগ দেবেন তিনি। রাতে উত্তরকন্যায় থেকে পরদিন কলকাতায় ফেরার কথা তাঁর। মুখ্যমন্ত্রীর সাধের 'ভোরের আলো'-কাজের তদারকি  করছেন পর্যটন মন্ত্রী গৌতম দেব। তিনি জানিয়েছেন, মুখ্যমন্ত্রীর ইচ্ছা অনুযায়ী  ২০৮ একর জমির ওপর এটি ভারতের অন্যতম ট্যুরিজম হাব হিসেবে গড়ে তোলার চেষ্টা করা হচ্ছে বলে জানিয়েছেন গৌতম দেব। বেসরকারি তিনটি সংস্থা রাজ্য সরকারের সঙ্গে যৌথ উদ্যোগে কাজ করছেন বলে জানিয়েছেন তিনি। প্রায় ২,২০০ কোটি টাকা ব্যয়ে জলপাইগুড়ির গাজোল ডোবায় মেগা টুরিজম হাব তৈরির কাজ করছে রাজ্য পর্যটন দফতর। প্রায় দুবছর আগে কাজ শুরু হয়েছিল। পর্যটন-সহ রাজ্যের প্রায় বারোটি দফতর এই প্রকল্পে কাজ করছে। প্রকল্পে ৩০ টি কটেজ, ফরেস্ট সাফারি, বোটিং, সাইক্লিং, হাতি সাফারি-সহ একাধিক চমক থাকতে চলেছে। এলাকায় মোবাইল নেটওয়ার্কের সমস্যা দূর করার জন্য  একাধিক সার্ভিস প্রোভাইডার এলাকায় কাজ শুরু করেছে। এলাকার রাস্তার উন্নয়নেও চলছে তৎপরতা। ভোরের আলো থেকে আমবাড়ি পর্যন্ত যেমন রাস্তা মেরামতির কাজে হাত দেওয়া হয়েছে, ঠিক তেমনই ডুয়ার্স থেকেও পৃথক রাস্তা তৈরির কাজ শুরু করেছে পূর্ত দফতর। ভোরের আলোর পুরো কাজ শেষ হলে সেখানে প্রচুর সংখ্যায় বিদেশি পর্যটক যাবেন বলে আশা রাজ্য সরকারের। তাঁদের পৌঁছনোর সুবিধার জন্য প্রকল্প এলাকা থেকে দু কিলোমিটার দূরে তৈরি হচ্ছে হেলিপ্যাড। শিল্পপতিরা তৈরি করছেন রিসর্ট, হোটেল, রেস্টুরেন্ট।এবার পূজার মুখে পর্যটকদের জন্য এই কটেজগুলি খুলে দেওয়া হবে বলে জানা গেছে।