মার্কেট ফর ইউ

  • বুধবার গঠিত হল মালদা মার্চেন্ট চেম্বার অফ কমার্স এর নতুন কমিটি

    জিৎ বর্মন:মালদা মার্চেন্ট চেম্বার অফ কমার্স এর নতুন কমিটিতে জায়গা পেলেন না বিদায়ী সম্পাদক উজ্জ্বল সাহা। প্রাক্তন সম্পাদকের বিরুদ্ধে ওঠা বিভিন্ন আর্থিক অভিযোগের কারণেই ,এমনটা হয়েছে বলে মনে করছেন জেলার ব্যবসায়ী মহল। বুধবার গঠিত হল মালদা মার্চেন্ট চেম্বার অফ কমার্স এর নতুন কমিটি । নতুন কমিটিতে জায়গা পেলেন না গতবারের বিদায়ী সম্পাদক উজ্জ্বল সাহা। কিছুদিন আগেই শ্রী সাহার বিরুদ্ধে ওঠা আর্থিক অভিযোগ এবং তার ভিত্তিতে ইংরেজ বাজার থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের ,পরে এই বিদায়ে সম্পাদকের বিরুদ্ধে পুলিশের ৪২০ এবং ৪০৬ ধারায় মামলা রুজু, এছাড়াও অভিযোগকারী ব্যবসায়ী আইনজীবী সঞ্জয় শর্মার তোলা বিস্ফোরক কিছু অভিযোগ। যার মধ্যে উল্লেখযোগ্য যে এই বিদায়ী সম্পাদক মালদা মার্চেন্ট চেম্বার অব কমার্সের মতো ঐতিহ্যবাহী এক সংগঠনের সম্পাদকের মতো গুরুত্বপূর্ণ পদের অপব্যবহার করছেন, জড়িয়ে পড়ছেন বিভিন্ন আর্থিক ছাড়াও অন্যান্য অভিযোগে। এরপরই যথেষ্ট অস্বস্তিতে পড়েন জেলার প্রায় ৭০ ০০০ ব্যবসায়ীদের মিলিত এই সংগঠনের কর্মকর্তারা। মনে করা হচ্ছে এইসব কারনেই এবারের কমিটি থেকে বাদ দেওয়া হয়েছে উজ্জল সাহাকে। এ বিষয়ে মালদা মার্চেন্ট চেম্বার অফ কমার্সের নবনিযুক্ত সম্পাদক জয়ন্ত কুন্ডু কে জানতে চাইলে তিনি উজ্জ্বল সাহার ব্যাপারে বিস্তারিত কিছু বলতে না চাইলেও, জানান আমাদের এই সংগঠন ৬৩ বছরের পুরনো ।ঐতিহ্যবাহী এই সংগঠন এই সংগঠনে ,ব্যক্তি নয় সব সময় আমরা সংগঠনের মর্যাদা কে সামনে রাখি। এক্ষেত্রে কোন ব্যক্তি বিশেষের কারণে যদি সংগঠনের ক্ষতি হয়, বা তার সুনাম ক্ষুন্ন হয় তাহলে কখনোই আমরা তার পাশে থাকব না ।আমাদের সংগঠন কখনোই কোনো দুর্নীতির সঙ্গে আপস করবে না ।আমাদের লক্ষ্য কেবলমাত্র ব্যবসায়ীদের স্বার্থ রক্ষা করা ,আর সেই লক্ষ্যকে সামনে রেখে এগিয়ে যাবে এই ঐতিহ্যবাহী সংগঠন। সংগঠনের নতুন কমিটিতে অভিযুক্ত উজ্জ্বল সাহা কোন পথ না পাওয়ায় খুশি উজ্জল সাহার বিরুদ্ধে অভিযোগকারী ব্যবসায়ী পবন কুমার শরাফ ও ,তিনি বলেন, আমি অত্যন্ত খুশি, উজ্জ্বল সাহার মত একজন অসাধু ব্যবসায়ী কে কমিটিতে জায়গা না দেওয়ায় ।আমরা খুশি পুলিশ প্রশাসন এবং মালদা মার্চেন্ট চেম্বার অফ কমার্স যেভাবে আমাদের পাশে দাঁড়িয়েছেন তাতে আমরা আপ্লুত ।আইনের ওপর আমাদের পুরো ভরসা আছে, নিশ্চয়ই এই অভিযুক্ত তার প্রাপ্য সাজা পাবে। এ ধরনের একজন অসাধু ব্যবসায়ী যিনি বহু লোককে ঠকিয়েছেন, বহু লোকের কাছ থেকে ঋণ করে তাদের টাকা শোধ করেননি, তার কোন মতেই এই ধরনের সংগঠনের মাথায় থাকা উচিত নয় ।অনেক ব্যবসায়ী এতদিন ভয়ে মুখ খুলতে পারেননি। আশাকরি ,এবারে আমার মত বহু ব্যবসায়ী এগিয়ে এসে তাদের অভিযোগ জানাবেন। এই ঘটনায় খুশি অভিযুক্তের আইনজীবী সঞ্জয় শর্মাও তিনি বলেন অত্যন্ত সদর্থক পদক্ষেপ। এই ধরনের একজন অসাধু লোককে সংগঠনের মাথায় রাখা কখনই উচিত কাজ হতো না। উজ্জল সাহার বিরুদ্ধে ইতিমধ্যেই বহু অভিযোগ সামনে আসছে ।বহু ব্যবসায়ী আমার কাছেও এসেছেন, এমন ঘটনাও শোনা যাচ্ছে যে কোন দোকান থেকে ৬০ হাজার টাকার মোবাইল কিনে তাকে ২০হাজার টাকা দেওয়ার পর বাকি টাকা তিনি শোধ করেননি ।এগুলি সবই প্রমাণসাপেক্ষ ,তবে আশা রাখি আগামীতে বহু লোক, যারা এতোদিন ভয়ে এগিয়ে এসে এই সম্পাদকের বিরুদ্ধে মুখ খুলতে পারেননি বা অভিযোগ জানাতে পারেননি, তারা সাহস পাবেন আগামীতে তারা তাদের অভিযোগ জানাবেন। নতুন গঠিত এই কমিটির মেয়াদ থাকবে ২০২১ সাল পর্যন্ত। অন্যদিকে এবারের নতুন কমিটির সভাপতি পদে নির্বাচিত হয়েছেন শ্রী দেবব্রত বাসু। এবং সম্পাদক পদে নির্বাচন করা হয়েছে মালদা জেলার প্রতিষ্ঠিত, সৎ এবং আদ্যপ্রান্ত ভালো মানুষ এবং জনপ্রিয় ব্যবসায়ী হিসেবে পরিচিত শ্রী জয়ন্ত কুন্ডু কে। সংগঠনের প্রাক্তন সম্পাদক উজ্জল সাহার বর্তমান কমিটিতে জায়গা না পাওয়া প্রসঙ্গে, এবং তাঁর বিরুদ্ধে ওঠা বিভিন্ন অভিযোগ প্রসঙ্গে তার প্রতিক্রিয়া জানার জন্য আমাদের সাংবাদিক, উজ্জল সাহাকে বারবার ফোন করলেও তিনি ফোন তোলেনি। হোয়াটসঅ্যাপেও মেসেজের কোন উত্তর আসেনি ,একবারই মাত্র তিনি ফোন ধরেছিলেন ,তাকে এ বিষয়ে তার প্রতিক্রিয়া জানতে চাওয়া হলে তিনি বলেন, আমি এখন ঘুমোচ্ছি পড়ে প্রতিক্রিয়া জানাবো । তারপর বহুবার ফোন করলেও ফোন ধরেননি উজ্জ্বল বাবু। সূত্র মারফত জানা গেছে উজ্জল সাহাকে মার্চেন্ট চেম্বার অব কমার্সের নতুন কমিটিতে জায়গা দেওয়ার জন্য মোট ২৪ জনের এক্সিকিউটিভ কমিটির একজন ও সুপারিশ করেননি ।ফলে সর্বসম্মতভাবে নির্বাচনের মাধ্যমে এই সংগঠনের সভাপতি এবং সম্পাদকের পদে দেবব্রত বাসু এবং জয়ন্ত কুন্ডুর নাম উঠে আসে। মালদা মার্চেন্ট চেম্বার অব কমার্সের মতো একটি গুরুত্বপূর্ণ সংগঠনের মাথায় অভিযুক্ত উজ্জ্বল সাহাকে সরিয়ে স্বচ্ছ এবং সৎ ভাবমূর্তির জয়ন্ত কুন্ডু এবং দেবব্রত বাসুর নাম উঠে আসায় এখন খুশির হাওয়া মালদা জেলার ব্যবসায়ী মহলে।

  • রঙের তুলনায় আবিরের বিক্রি বেশি, জানাচ্ছেন বিক্রেতারাই

    ডেস্কঃ (I.D). ০১ মার্চ ২০১৮ঃ- রঙের তুলনায় আবিরের বিক্রি বেশি, জানাচ্ছেন বিক্রেতারাই।তাঁদের মতে, আগের তুলনায় সচেতনতা বেড়েছে মানুষের। তাই রাসায়নিক উপাদান থেকে তৈরি রঙের তুলনায় আবির কিনতেই বেশি উৎসাহ দেখাচ্ছেন মানুষ।রঙের তুলনায় আবিরে ক্ষতিকর রাসায়নিকের মাত্রা কম থাকে বলেই এই প্রবণতা, মনে করছেন তাঁরা। তবে ভেষজ আবির বা ভেষজ রঙের যা চাহিদা, সেই তুলনায় জোগান একেবারে নেই বললেই চলে। গত কয়েক বছরে দোলকে কেন্দ্র করে ভেষজ আবির বা রং ব্যবহারের সুফল নিয়ে সংবাদমাধ্যম থেকে শুরু করে নানা মহলে আলোচনা হচ্ছে। কিন্তু বাজারে গিয়ে ভেষজ আবির খুঁজে খুঁজে হয়রান হওয়া মানুষের সংখ্যা প্রচুর। কোথাও পাওয়া গেলেও চড়া দামের জন্য অনেকেই দূরে সরে যাচ্ছেন। বৃহস্পতিবার সকাল থেকেই শুরু হয়ে যাবে রঙের উৎসব। তার আগে বুধবার দুপুর, বিকেল গড়িয়ে সন্ধ্যা পর্যন্ত রঙের বাজার থাকল জমজমাট।বড়বাজারের পুরনো চীনাবাজার বা মধ্য কলকাতার জানবাজার—সর্বত্রই ছিল থিকথিকে ভিড়। হাতিবাগান, শ্যামবাজারের ফুটপাত বা দক্ষিণে গড়িয়াহাট এসব জায়গাতেও এদিন বিকিকিনির প্রধান উপাদান ছিল আবির ও রং।রঙের বিক্রি তুলনায় কম। ভেষজ আবির বা রং নিয়ে প্রশ্ন করায় তাঁর উক্তি, ও জিনিস বাজারে খুঁজে পাবেন না।পুরনো চীনাবাজারে দোলকেন্দ্রিক রঙের পাইকারি কেনাবেচা চলে। সেখানেও এদিন খুচরো বিক্রি হয়েছে বেশি। বাঙালিরা সাধারণত একদিনের জন্য রঙের উৎসবে মাতলেও শহরের অবাঙালি জনগোষ্ঠীর বেশিরভাগই চার-পাঁচদিন ধরে রং খেলে। তাঁদের ভিড় বেশি ছিল বড়বাজারের রংয়ের দোকানে। এখানে অবশ্য ভেষজ রঙের চাহিদা কম।