অন্য খেলা

  • সাইক্লিং বিশ্ব চ্যাম্পিয়নশিপে স্বর্ণ পদক জয়ী ভারতের তরুণ সাইক্লিস্ট ইসো আলবিন।

    Newsbazar24, ডেস্ক, ১৮ আগস্টঃ জুনিয়র ট্র্যাক সাইক্লিং বিশ্ব চ্যাম্পিয়নশিপে  নতুন রেকর্ড গড়লেন আন্দামান এবং নিকোবর তরুণ সাইক্লিস্ট ইসো আলবিন। ১৭ বছরের এই তরুণ ইউনিয়ান সাইক্লিস্ট ইন্টারন্যাশনাল (ইউসিআই) জুনিয়র ট্র্যাক সাইক্লিং বিশ্ব চ্যাম্পিয়নশিপে পদক এনে দিলেন ভারতকে। এই ইভেন্টে এটাই ভারতের প্রথম পদক। সুইৎজারল্যান্ডে আয়োজিত এই প্রতিযোগীতায় রুপো জিতে ইতিহাস তৈরি করলেন আলবিন। শেষ ল্যাপের লড়াইয়ে চেক প্রজাতন্ত্রের প্রতিযোগী জাকুব স্তাস্তনির উপর প্রবল চাপ সৃষ্টি করেন আন্দামান এবং নিকোবরের আলবিন। তবে, শেষ পর্যন্ত চেক প্রতিযোগীর কাছে পিছিয়ে পড়তে হয় এই ভারতীয় তরুণকে। এই প্রতিযোগীতায় ব্রোঞ্জ জেতেন কাজাখস্তানের প্রতিযোগী আন্দ্রে চুগায়। চেক প্রজাতন্ত্রের প্রতিযোগী জাকুব স্তাস্তনি ইসোরর থেকে ০.০১৭ সেকেন্ড আগে রেস শেষ করে সোনা জেতেন। রেস শেষে ইউসিআই-এর ওয়েবসাইটে আলবিন বলেন, 'আমি সব সময় চেয়েছিলাম আগে থাকতে এবং সংঘর্ষ এড়াতে। আমার বিশ্বাস ছিল আমি এই রেস জিততে পারি কিন্তু আমি তবুও খুশি... কিছুটা খুশি তো বটেই।' ইসোর নয়া এই কৃতিত্বে তাঁকে শুভেচ্ছা জানিয়েছেন ক্রীড়ামন্ত্রী রাজ্যবর্ধন সিং রাঠৌর। টুইট করে তিনি শুভেচ্ছা জানান ইসোরকে। নিজের টুইটে তিনি লেখেন, 'অসাধারণ ইসো! আরও অনেক পদক যেন তুমি জিততে পার।'

  • আগামীকাল শুরু হচ্ছে ১৮তম এশিয়ান গেমস ইন্দোনেশিয়ার জাকার্তা ও পালেম্বাং শহরে।

    আগামীকাল ১৮ আগস্ট শনিবার শুরু হচ্ছে ১৮তম এশিয়ান গেমস চলবে ২ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত। ইন্দোনেশিয়ার জাকার্তা ও পালেম্বাং শহর যৌথভাবে আয়োজন করছে এবারের এশিয়ান গেমস। তবে গেমসের উদ্বোধনী ও সমাপ্তি দুই অনুষ্ঠানই হবে জাকার্তার জিবিকে স্টেডিয়ামে। ইতিমধ্যেই মশাল পৌঁছে গিয়েছে জাকার্তায়।  শনিবার ভারতীয় সময় বিকেল সাড়ে ৫টায় শুরু হবে জমজমাট উদ্বোধনী অনুষ্ঠান। এবারে গেমস ভারতে সম্প্রচার করছে সোনি সংস্থা। উদ্বোধনী অনুষ্ঠানটিও দেখা যাবে সোনি চ্যানেলেই। যে কোনও মাল্টি ইভেন্ট গেমসের আসরের উদ্বোধনের অন্যতম আকর্ষণ হল অ্যাথলিটদের প্যারেড। সেই প্যারেড শুরু হবে ভারতীয় সময় সন্ধ্যা ৬টায়। উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে ভারতের পতাকা বহন করার সম্মান পেয়েছেন নবীন জাভেলিন থ্রোয়ার নীরজ চোপরা। ভারতীয় দলকে তিনিই প্যারেডে নেতৃত্ব দেবেন। ভারতীয় দল৫৪১ জন খেলোয়াড় নিয়ে ৩৪টি ক্রীড়ায় অংশ নেবেন।ভারতীয় ক্রীড়া বিশেষজ্ঞরা মনে করছেন ২০১৮ এশিয়ান গেমসে ফের একবার নিজেদের ক্রীড়াশৈলি প্রদর্শনের মধ্য দিয়ে এশিয়ান গেমসকে আলোকিত করবেন ভারতীয় ক্রীড়াবিদেরা। তাঁদের বিশ্বাস বিভিন্ন ইভেন্টে ভারতের সোনা পাওয়ার সম্ভবনাও রয়েছে অনেকটাই। এমনিতে বহু বার এশিয়াডে সাফল্য পেয়েছে ভারত। বিভিন্ন ইভেন্টে জিতেছে সোনা। তবে, এ বার সোনা জেতার বিষয়ে ভারত মূলত নির্ভর করছে শুটিং, রেসলিং এবং বক্সিংয়ের উপর। সোনা জিততে ভারতের প্রধান ভরসা রেসলার, বক্সার এবং শুটাররা। চার বছর আগে গত এশিয়াডে ভারতের পদক সংখ্যা ছিল ১১টি সোনা সহ মোট ৫৭ টি পদক । অলিম্পিকে ভারত সেই ভাবে সফল না হলেও এশিয়াডে নিজেদের দাপট শুরুর বছর থেকেই রেখেছে ভারত। এশিয়ান গেমসের দীর্ঘ দিনের ইতিহাসে মাত্র দু'বার প্রথম আটে শেষ করতে ব্যর্থ হয়েছিল ভারত। ১৯৫১ সালে ভারতের মাটিতেই প্রথম এশিয়ান গেমস আয়োজিত হয়। শেষ চারবার কম করে ভারতের ঝুলিতে এসেছিল ১০টি সোনা। মনে করা হচ্ছে জাকার্তায় অনুষ্ঠিত হতে চলা এই বারের এশিয়ান গেমসে আরও ভাল পারফর্ম করবেন ভারতীয় অ্যাথলিটরা। ২০২০ টোকিও অলিম্পিকের আগে এখানে নিজেদের ঝালিয়ে নেওয়ারও সুযোগ পেয়ে যাবেন ভারতীয় তারকারা। ভারতীয় অলিম্পিক অ্যাসোসিয়েশনের প্রধান নীরেন্দ্র বার্তা বলেন, 'শেষ বার অষ্টমস্থানে শেষ করেছিল ভারত। এই বার আশা করি আমরা গতবারের থেকেও পদক সংখ্যা বাড়াব এবং ক্রমতালিকায় ভালস্থানে থাকব।' শুটিংয়ে ভারত যাদের দিকে চেয়ে রয়েছে তাঁদের মধ্যে উল্লেখযোগ্য অনিশ ভানওয়াল, ইলাভেনিল ভালারিভান এবং মনু ভাকর। ১৫ বছর বয়সে কমনওয়েলথ গেমসে ২৫ মিটার র্যাপিড ফায়ার পিস্তল ইভেন্টে সোনা জেতেন অনিশ। ১৬ বছর বয়সী মহিলাদের ১০ মিটার এয়ার রাইফেল ইভেন্টের ফাইনালে জয় পেয়েছেন। এছাড়া রেসলিংয়ে ৫০ কেজি বিভাগে ভিনেশ পোঘাতের দিকে নজর থাকবে ভারতের। নজর থাকবে বিকাশ কৃষ্ণের দিকেও। সোনার জন্য নজর থাকবে জ্যাভলিন থ্রোয়ার নীরজ চোপড়ার দিকেও। এছাড়াও সকলের নজর রয়েছে  ভারতীয় ব্যাডমিন্টন দলের দিকে, যে দলে আছেন পিভি সিন্ধু, কিদাম্বি শ্রীকান্ত, সাইনা নেহওয়ালের মতো তারকারা। তার উপর রয়েছে ভারতীয়  পুরুষ ও মহিলা হকি দল যারা গতবার পদক জিতেছিল।     

  • প্রয়াত প্রাক্তন দিকপাল ব্যাডমিন্টন খেলোয়াড় মনোজ গুহ।

    Newsbazar24, ৬ অগাস্ট :  প্রয়াত প্রখ্যাত প্রাক্তন ব্যাডমিন্টন খেলোয়াড় মনোজ গুহ। বয়স হয়েছিল ৯৮ বছর। বার্ধক্যজনিত রোগে ভুগছিলেন মনোজ গুহ।  জন্ম ১৯২০ সালের ১৩ সেপ্টেম্বর। ২০১৫ সালে বাংলার গৌরব সম্মানে ভূষিত হয়েছিলেন এই শাটলার। ফুটবলার হিসাবে তার খেলোয়াড় জীবন শুরু হয়। পরবর্তীকালে  ১৯৪৬ সালে রেফারির পরীক্ষায় পাশ করে খেলা পরিচালনা করেছিলেন। পাশাপশি  ব্যাডমিন্টন খেলা শুরু করেন। ব্যাডমিন্টনে সিঙ্গলসে ৮ বারের রাজ্য চ্যাম্পিয়ন   ডবলসে ৬ বার ও মিক্সড ডবলসে ৫ বার চ্যাম্পিয়ন হয়েছিলেন। ৫ বার ত্রিমুকুট জয়ের কৃতিত্ব ছিল তার।   শুধু রাজ্য পর্যায়ে নয়, জাতীয় পর্যায়েও সাফল্য পেয়েছিলেন। সিঙ্গলসে ১৯৪৯ থেকে ১৯৫১ সাল পর্যন্ত তিন নম্বর তারকা ছিলেন। জি এস হিমাদির সঙ্গে জুটি বেঁধে ডাবলসে তিনবার জাতীয় চ্যাম্পিয়ন।   ১৯৪৭ সালে ভারতীয় ব্যাডমিন্টন দলের সদস্য হিসাবে প্রথমবার দেশের বাইরে গিয়েছিল ।  ১৯৫১-৫২ ও ১৯৫৪-৫৫ সালে টমাস কাপে দেশের হয়ে প্রতিনিধিত্বও করেন তিনি। ভারতীয় ব্যাডমিন্টন দলকে বিশ্ব ক্রমপর্যায়ে তিন নম্বরে তুলে আনতে অন্যতম ভূমিকা ছিল মনোজ গুহর। ১৯৫৪ সালে টমাস কাপে ভারতীয় দলের সহ অধিনায়ক ছিলেন। সেই সময়, ডাবলসে চার নম্বর জুটি হয়েছিলেন গজানন হিমাদিকে সঙ্গী করে। এরপর ১৯৬৫ সালে ভারতীয় ব্যাডমিন্টন দলের চিফ কোচ করা হয়েছিল মনোজ গুহকে। ওই বছরই এশিয়ান ব্যাডমিন্টন চ্যাম্পিয়নশিপে ভারতীয় দল অংশগ্রহণ করেছিল। একাধিকবার টমাস ও উবের কাপে দেশের কোচের দায়িত্ব পালন করা মনোজ গুহ ১৯৭৮ সালে কেনিয়ার কোচ হয়েছিলেন। ক্রীড়াবিদ হিসাবে মনোজ গুহর সবচেয়ে বড় কীর্তি ভারতীয় ব্যাডমিন্টনে নয়া প্রজন্মকে প্রতিষ্ঠা করা। আশির দশকে ভারতীয় ব্যাডমিন্টনে এক নবীন প্রজন্মের জোয়ার দেখা গিয়েছিল তার জনক ছিলেন মনোজ গুহ। তার হাত ধরে সে সময় কলকাতার বুক থেকে উঠে এসেছিলেন একাধিক শাটলার। যার মধ্যে উল্লেখযোগ্য নাম অমৃতা মুখোপাধ্যায়, সৌমেন ভট্টাচার্য। এমনকী খোদ মনোজ গুহর ছেলে শশাঙ্ক শেখর গুহ যিনি লাল্টু গুহ নামেই ব্যাডমিন্টন মহলে পরিচিত ছিলেন, তিনি এই নবীন প্রজন্মের তালিকায় ছিলেন। এমন বহু শাটলার সে সময় জাতীয় স্তরে বাংলা থেকে প্রতিনিধিত্ব করেছিলেন। বলতে গেলে বাংলার ব্যাডমিন্টনে বৈপ্লবিক পরিবর্তনের কারিগর ছিলেন তিনি। । তাঁর মৃত্যুতে শোকস্তব্ধ ক্রীড়াজগৎ।  

  • স্কুল কবাডিতে চ্যাম্পিয়ন্স মোথাবাড়ি ও বাঙ্গীটোলা হাইস্কুল

    News bazar24: জোনাল কাউন্সিল ফর স্কুল গেমস এন্ড স্পোর্টসের কালিয়াচক 2 জোনের অনুর্ধ 14 বালক ও বালিকা বিভাগে কবাডি খেলা DSKB হাই মাদ্রাসা মাদ্রাসা মাঠে সোমবার হয়ে গেলো।খেলায় বালক ও বালিকা বিভাগে চ্যাম্পিয়ন হয় মোথাবাড়ি ও বাঙ্গীটোলা হাইস্কুল । আজ মাঠে ফাইনাল খেলায় অনুর্ধ 14 বালিকা খেলায় পাচকড়ি টোলা হায় স্কুল কে হারিয়ে চ্যাম্পিয়ন হয় বাঙ্গীটোলা হাইস্কুল। অন্যদিকে অনুর্ধ 14 বালক বিভাগে চ্যাম্পিয়ন্স হলো মোথাবাড়ি হায় স্কুল । মোথাবাড়ি ডি এস কে বি হাই মাদ্রাসা কে হারিয়ে চ্যাম্পিয়ন হয়। এই খেলাকে ঘিরে ছাত্র ছাত্রী ও অভিভাবকদের মধ্যে যথেষ্ট উত্তেজনা লক্ষ করা যায়। বিজয়ীদের হাতে পুরস্কার তুলে দেন জোনাল কাউন্সিল ফর স্কুল গেমস এর কালিয়াচক দুই জোনের সম্পাদক রবীন্দ্রনাথ সাহা। আপনি এই খবরটি পড়লেন Newsbazar24.comএ

  • ব্যাডমিন্টনে বিশ্ব চ্যাম্পিয়নশিপের শিরোপা অধরাই থেকে গেল পি ভি সিন্ধুর।

    Newsbazar 24 ডেস্ক, ৫ অগাস্ট : ব্যাডমিন্টনে বিশ্ব চ্যাম্পিয়নশিপের শিরোপা অধরাই থেকে গেল ভারতীয়  তারকা শাটলার পি ভি সিন্ধুর।  বিশ্ব ব্যাডমিন্টন চ্যাম্পিয়নশিপের ফাইনালে  হেরে গেলেন তিনি এবং এই বছর রুপা নিয়ে সন্তুষ্ট থাকতে হল তাকে। বিশ্ব চ্যাম্পিয়নশিপে মহিলাদের সিঙ্গলসে এই  নিয়ে পর পর দুইবার হারলেন তিনি। ৪৬ মিনিটের লড়াইয়ের পর ২১-১৯, ২১-১০ গেমে সিন্ধু ম্যাচ হারেন স্পেনের ক্যারোলিনা মারিনের কাছে।প্রথম সেটে তরুণ মারিনের  বিরুদ্ধে লড়াই চালালেও, দ্বিতীয় সেটে  কারোলিনাকে একবারও কঠিন চ্যালেঞ্জের সামনে ফেলতে পারেননি সিন্ধু। এদিন গোটা ম্যাচে অস্বাভাবিক রকম ভাবে একাধিক ভূল  করেন সিন্ধু, যা সিন্ধুর মতো শাটলারের থেকে প্রত্যাশিত নয়। এই কারোলিনার কাছে হেরেই বিশ্ব ব্যাডমিন্টন চ্যাম্পিয়নশিপ থেকে বিদায় নিতে হয়েছিল ২০১২ অলিম্পিকে ব্রোঞ্জ জয়ী আরেক তারকা সাইনা নেহওয়ালকে। গতবছরও  বিশ্ব চ্যাম্পিয়নশিপেও জাপানের নোজ়োমি ওকুহারার কাছে হেরে  তিনি রূপো পেয়েছিলেন। এবারের ফাইনালে হেরে তাই দ্বিতীয়বার রূপো পেলেন এই ভারতীয় ব্যাডমিন্টন তারকা। এর আগে ২০১৩ ও ২০১৪ সালে ব্রোঞ্জ জিতেছিলেন। এই মুহূর্তে বিশ্ব  র‍্যাঙ্কিংয়ে তিন নম্বরে  রয়েছেন ২৩ বছর বয়সি পি ভি সিন্ধু। এদিকে, বিশ্ব চ্যাম্পিয়নশিপের ফাইনাল জিতে ইতিহাস গড়লেন ২৫ বছর বয়সি মারিন। তিনিই একমাত্র মহিলা যিনি মহিলাদের সিঙ্গলসে তিন বছর এই খেতাব জিতলেন। এর আগে ২০১৪ ও ২০১৫ সালেও এই টুর্নামেন্টে জয় পেয়েছিলেন মেরিন। এর আগে রিও অলিম্পিক ফাইনালেও সিন্ধুকে হারিয়েছিলেন মেরিন। এই ম্যাচে হেরে গেলেও  কারোলনিরা প্রশংসা করে সিন্ধু  বললেন, 'খুব ভাল খেলেছে কারোলিনা। এই জয় ওঁর প্রাপ্য।'  

  • রাজ্য অ্যাথলেটিকস মিটের তৃতীয় দিনে মালদার প্রতিযোগীরা ৪ টি সোনা ১ টি রুপো ও ২ টি ব্রোঞ্জ পদক লাভ করেছে

    Newsbazar24, ডেস্ক, ৪ আগস্টঃ ৬৮তম রাজ্য অ্যাথলেটিকস মিটের তৃতীয় দিনে   মালদার প্রতিযোগীরা ৪ টি সোনা ১ টি রুপো ও ২ টি ব্রোঞ্জ পদক লাভ করেছে । অনূর্ধ্ব ১৬ পুরুষ বিভাগে অরিন্দম ঝা ডিসকাস থ্রোতে স্বর্ণ পদক ও জেভলিন থ্রোতে রৌপ্য পদক লাভ করেছে, অনূর্ধ্ব ১৮ মহিলা ৩০০০ মিটার দৌড়ে শিখা মণ্ডল স্বর্ণ পদক  এবং ৮০০ মিটার দৌড়ে অনিমা মণ্ডল রৌপ্য পদক, অনূর্ধ্ব ২০ মহিলা বিভাগে ৮০০ মিটার দৌড়ে প্রিয়া ঘোষ স্বর্ণ পদক, তাপসী ঘোষ ডিসকাস থ্রোতে স্বর্ণ পদক এবং  মামনি ঘোষ ডিসকাস থ্রোতে ব্রোঞ্জ পদক লাভ করেছে। এখনও পর্যন্ত মালদা জেলার ঝুলিতে মোট ১২টি পদক হয়েছে।   

  • বিশ্ব ব্যাডমিন্টন চ্যাম্পিয়নশিপের ফাইনালে দ্বিতীয়বার পিভি সিন্ধু

    Newsbazar 24 ডেস্ক, ৪ আগস্টঃ ব্যাডমিন্টন বিশ্ব চ্যাম্পিয়নশিপের ফাইনালে ভারতীয় শাটলার পিভি সিন্ধু। তিনি বিশ্বের দুই নম্বর ব্যাডমিন্টন খেলোয়াড় জাপানের আকানে ইয়ামাগুচিকে স্ট্রেট সেটে হারিয়ে  ফাইনালে উঠলেন। এনিয়ে পরপর দুইবার তিনি বিশ্ব চ্যাম্পিয়নশিপের ফাইনালে। এদিন সেমিফাইনালে আকানে ইয়ামাগুচিকে ২১-১৬, ২৪-২২ সেটে পরাজিত করেন। এখানে উল্লেখ্য গতবছর এই টুর্নামেন্টের ফাইনালে উঠেও পরাজিত হয়েছিলেন পিভি সিন্ধু। এবার শেষ অবধি চ্যাম্পিয়ন হতে পারেন কিনা সেটাই দেখার। এদিন শুরুতে পিছিয়ে পড়লেও  সিন্ধু পরের দিকে দারুণভাবে খেলায় ফিরে আসেন । কোর্ট কভার করা, বিভিন্ন ধরনের স্ট্রোকে দিশেহারা করে দেন ইয়ামাগুচিকে। ফলে জাপানি খেলোয়াড় দুটি সেটেই প্রথমে এগিয়ে শেষে হেরে যান। ফাইনালে পিভি সিন্ধুর প্রতিপক্ষ স্পেনের ক্যারোলিনা মারিন। তিনি    এদিন অপর সেমি ফাইনালে চিনের হি বিনহোয়াওয়েরকে পরাজিত করেছেন। এর আগে পিভি সিন্ধু ও ক্যারোলিনা মারিন মোট ১২ বার মখোমুখি হয়েছিলেন।   দুজনেই  ৬টি করে ম্যাচ জিতেছেন।  

  • রাজ্য অ্যাথলেটিকস মিটে প্রথম দুই দিনে মালদাজেলার পাঁচটি পদক জয়।

    Newsbazar24, ডেস্ক, ৪ আগস্টঃ ৬৮তম রাজ্য অ্যাথলেটিকস  শুরু হয়েছে কলকাতার যুবভারতী ক্রীড়াঙ্গনে গত ২রা আগস্ট।  এবারই প্রথম  যুবভারতী ক্রীড়াঙ্গনের নতুনভাবে বসানো সিন্থেটিক ট্র্যাকে শুরু হয়েছে  রাজ্য অ্যাথলেটিকস মিট। রাজ্য মিটের উদ্বোধন করেছিলেন রাজ্যের  ক্রীড়ামন্ত্রী অরূপ বিশ্বাস।   প্রথম দুই দিনে মালদা জেলার প্রতিযোগিরা ইতিমধ্যে ১টি সোনা ৩টি রুপো ও ১টি ব্রোঞ্জ পদক পেয়েছে। অনূর্ধ্ব ২০ ছেলেদের  বিভাগে  জ্যাভলিন থ্রো তে বিধু চৌধুরী সোনা পেয়েছে ও জামাল আনসারি রুপো পেয়েছে। অনূর্ধ্ব ২০ মহিলা বিভাগে মামনি ঘোষ ব্রোঞ্জ পদক লাভ করেছে। এখানে উল্লেকযোগ্য গত বছর এই বিভাগে মামনি ঘোষ রেকর্ড গড়ে সোনা পেয়েছিলেন । এ ছাড়াও অনূর্ধ্ব ২০ ডিসকাস থ্রো মহিলা বিভাগে রিয়া ঘোষ রৌপ্যপদক লাভ করেছেন। অনূর্ধ্ব ২০ পুরুষ বিভাগে হাইজাম্পে বিশ্বজিৎ ঘোষ দ্বিতীয় হয়ে রৌপ্যপদক  লাভ করেছেন।  মালদা জেলা থেকে মোট ২১জন প্রতিযোগী এই প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণ করছে। সাথে কোচ হিসাবে গিয়েছেন মালদা জেলার বিশিষ্ট অ্যাথলেটিকস প্রশিক্ষক শ্রী পুলক ঝা এবং ম্যানেজার হিসাবে গিয়েছেন মানসরায় বর্মণ।   

  • বিশ্ব ব্যাডমিন্টন চ্যাম্পিয়নশিপ থেকে বিদায় সাইনা নেহওয়ালের

    Newsbazar 24, ডেস্ক,৩ আগস্ট১৮; বিশ্ব ব্যাডমিন্টন চ্যাম্পিয়নশিপ থেকে বিদায় সাইনা নেহওয়ালের। বিশ্ব ব্যাডমিন্টন চ্যাম্পিয়নশিপের প্রি কোয়ার্টার ফাইনালে তিনি স্প্যানিস শাটলার কারোলিনা মারিনের কাছে ৬-২১ এবং ১১-২১ ব্যবধানে হেরে গেলেন  সাইনা।  বিশ্ব ব্যাডমিন্টন চ্যাম্পিয়নশিপে সাইনা ২০১৫ সালে  ব্রোঞ্জ জিতেছিলেন সাইনা। ২০১৭-এ রূপো জেতেন তিনি। ২০১৬ রিও অলিম্পিকে সোনা জেতেন এই স্প্যানিস  শাটলার তবে, এই ম্যাচে সাইনার প্রতিপক্ষ কারোলিনাও সব দিক দিয়ে সাইনার থেকে অনেক এগিয়ে ছিলেন । এদিন ম্যাচের প্রথম থেকেই ম্যাচের রাশ নিজের হাতে রেখে চেপে ধরে সাইনাকে। এক মুহূর্তের জন্য  সাইনাকে এই ম্যাচে ঠিক মতো খেলতেই দেননি তারকা এই স্প্যানিস শাটলার। । তবে শুধু কারোলিনাই ভাল খেলে সাইনাকে এক পেশে ম্যাচে হারিয়েছেন তা কিন্তু নয়। সাইনা নিজেও ম্যাচের গতির সঙ্গে শুরু থেকে মানিয়ে নিতে পারেননি। খোলস ছেড়েই বেরোতে  পারেননি তিনি। প্রথম সেটে ৬-২১ ব্যবধানে হারার পর আশা করা হয়েছিল দ্বিতীয় সেটে ফিরে আসবেন সাইনা। আশা  জাগিয়ে শুরু করলেও তাঁকে ঘুরে দাঁড়াতে দেননি কারোলিনা। কিন্তু ১১-২১ পয়েন্টে হেরে তিনি বেদায় নেন।  শনিবার কোয়ার্টার ফাইনালে চিনের প্রতিপক্ষ হি বিংজিয়াও-এর মুখোমুখি হবেন স্প্যানিস প্রতিপক্ষ কারোলিনা মারিন।  

  • বিশ্ব ব্যাডমিন্টন চ্যাম্পিয়নশিপের সেমিফাইনালে একমাত্র ভারতীয় তারকা শাটলার পিভি সিন্ধু।

    Newsbazar 24, ডেস্ক,৩ আগস্ট১৮; বিশ্ব ব্যাডমিন্টন চ্যাম্পিয়নশিপে একমাত্র ভারতীয় তারকা শাটলার পিভি সিন্ধু সেমিফাইনালে।তিনি স্ট্রেট সেটে পরাজিত করেন জাপানী তারকা নোজোমি ওকাহুরাকে ২১-১৭ ও ২১-১৯ পয়েন্টে।খেলার  শুরুতেই দারুন শুরু করেছিলেন  নোজোমি ওকাহুরা, কিন্তু কিছু ক্ষনের মধ্যে খেলা ধরে নেন  ভারতীয় তারকা। ওকাহুরা শেষ পর্যন্ত লড়াই চালিয়ে যান এবং শেষে হার মানেন। সেমিফাইনালে তিনি আর এক জাপানী তারকা শাটলার আকানে যমুগুছির মুখোমুখি হবেন। আকানে কোয়ার্টার ফাইনালে প্রতিদন্দ্বিতা পূর্ণ উত্তেজক ম্যাচে চীনা প্রতিযোগী চেন ইয়ুফীকে ২১-১৩, ১৭-২১ ও ২১-১৬ ব্যাবধানে পরাজিত করেন।