ফুট বল

  • বিশ্ব ফুটবল জগতের মহীরুহের পতন প্রয়াত গর্ডন ব্যাঙ্কস৷

    ডেস্ক, ১২ই ফেব্রুয়ারীঃ বিশ্ব ফুটবল জগতের মহীরুহের পতন ঘটল। প্রয়াত ১৯৬৬ সালের বিশ্বকাপ জয়ী কিংবদন্তি ব্রিটিশ গোলরক্ষক গর্ডন ব্যাঙ্কস৷ ৮১ বছর বয়সে বার্ধক্যজনিত কারণে শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন ইংল্যান্ডের প্রাক্তন এই গোলকিপার৷ তার পরিবার  সূত্রে জানানো হয়েছে মঙ্গলবার (১২ ফেব্রুয়ারি) ভোরে ঘুমের মধ্যেই তাঁর মৃত্যু হয়। ১৯৬৬ সালে ইংল্যান্ডের বিশ্বকাপ জয়ের অন্যতম প্রধান কাণ্ডারি ছিলেন গর্ডন৷ ফাইনালে পশ্চিম জার্মানির বিরুদ্ধে ইংল্যান্ড জিতেছিল ৪-২ ব্যবধানে৷ সেই ম্যাচে জোড়া গোল হজম করলেও রক্ষণ আগলে ম্যাচ জিতিয়েছিলেন ব্যাঙ্কস৷ ৭৩টি ম্যাচে দেশের হয়ে প্রতিনিধিত্ব করা ছাড়াও তিনি ক্লাব ফুটবলে লেস্টার সিটি ও স্টোক সিটির হয়ে খেলেছিলেন। নিঃসন্দেহে ফুটবলের ইতিহাসে সেরা গোলকিপারদের অন্যতম ব্যাঙ্কস স্মরণীয় হয়ে আছেন বিশ্বকাপ ফুটবলের ইতিহাসে অন্যতম সেরা মুহুর্তটি উপহার দেওয়ার জন্য। ১৯৬৬ সালে বিশ্বকাপ জেতার ৪ বছর পরে বিস্ময়কর প্রতিভায়  ফুটবল সম্রাট পেলের হেড জালে জড়ানো থেকে বাঁচিয়ে ছিলেন। বিশ্বকাপ তথা ফুটবলের ইতিহাসে এই মুহূর্ত চিরকাল স্মরণীয় হয়ে থাকবে।  

  • যুবভারতী তে ফিরতি লীগে নেরোকা কে ২-১ পরাজিত করে লিগ জয়ের স্বপ্ন দেখতে শুরু করল ইস্টবেঙ্গল

    কলকাতা, ৭ই ফেব্রুয়ারীঃ আজ যুবভারতী ক্রীড়াঙ্গনে মেক্সিকান স্ট্রাইকারের  জোড়া গোলে ইস্টবেঙ্গল স্বপ্নের জয় ছিনিয়ে নিল ইস্টবেঙ্গল। ফিরতি লীগে নেরোকা এফ সিকে ২-১ পরাজিত করে লিগ জয়ের স্বপ্ন দেখতে শুরু করল।    ম্যাচ শুরুর তিন মিনিটের মধ্যেই নেরোকাকে এগিয়ে দিয়েছিলেন চেঞ্চো। ম্যাচের শুরু থেকেই আক্রমণাত্মক ছিল নেরোকা। তখনও খেলা ঠিকমত ধরতে পারেননি ইস্টবেঙ্গল। সেই সুযোগেই গোলে করে যায় নেরোকা। কাটসুমির সেন্টার লাল হলুদ গোলরক্ষক রক্ষিত ডাগারের হাত থেকে বেরিয়ে এলে তা লালরিনডিকা রালতে বিপদমুক্ত করার বদলে চেঞ্চোকে বাড়িয়ে দেন চেঞ্চো ভুল করেন নি  নতুন দলের হয়ে অভিষেকেই গোল পেলেন তিনি। তবে সেই ভুলকে পেছনে ফেলে দ্রুত মাঝমাঠের দখল নিয়ে সমতায় ফেরার জন্য মরিয়া হয়ে ওঠে ইস্টবেঙ্গল। কিন্তু গোলমুখে জোবি জাস্টিন ও জাইমে স্যান্টোস কোলাডোর সহজ সুযোগ নষ্ট লালহলুদ ব্রিগেডকে সমতায় ফিরতে দেয়নি। আক্রমণের চাপ সামলাতে একটা সময় পুরো নেরোকার  ডিফেন্সে নেমে আসে। ০-১ গোলে পিছিয়ে থেকেই দ্বিতীয়ার্ধে  ইস্টবেঙ্গল আক্রমণে গতি বাড়াতে থাকে।  ৫৮ মিনিটে অ্যান্তনিও দোভালকে তুলে এনরিক এসকুয়েদাকে নিয়ে আসেন কোচ। তার পরই ঘুরে যায় খেলা। কেন এতক্ষণ তাঁকে বেঞ্চে বসিয়ে রেখেছিলেন কোচ সেটাই এখন প্রশ্ন। ৬৭ মিনিটে গোলের মুখ খোলেন এনরিক এসকুয়েদা। স্যান্টোস কোলাডোর ক্রস ধরে বক্সের মধ্যে থেকেই এসকুয়েদার ক্লিনিক্যাল হেডারে সমতায় ফেরান ইস্টবেঙ্গলকে।  ন'মিনিটের মধ্যে আবারও গোল। এ বারও  সেই এসকুয়েদাই। ব্রেন্ডনের থেকে বল পান সামাদ বক্সের ঠিক ডানদিকে। আর সেখান থেকেই সামাদের মাপা ক্রসে  এসকুয়েদারের  মাপা হেড।  এবং গোল । সেখানেই শেষ হয়ে যায় ম্যাচ। তখনও নির্ধারিত সময়ের খেলা বাকি চার মিনিট। কিন্তু নেরোকা আর ম্যাচে ফিরতে পারেনি। এগিয়ে গিয়েও তাই খালি হাতে ফিরতে হল তাদের। কোলাডো ও  এনরিকের যুগলবন্দীতে জয়ের ধারাবাহিকতা বজায় রাখল লাল হলুদ শিবির

  • ১৫ বছর পর লিগের জোড়া কলকাতা ডার্বি লাল-হলুদের।ফিরতি পর্বেও ২-০ তে জয় ইস্টবেঙ্গলের

    রবিবার (২৭ জানুয়ারি), ২০১৮-১৯-র আই লিগের ফিরতি ডার্বিতেও জিতল  ইস্টবেঙ্গল! এদিন গোল করে ও করিয়ে ম্যাচের নায়ক জবি জাস্টিন। বিগত ২০০৩-০৪ এ  জাতীয় লিগে মোহনবাগানের বিরুদ্ধে দুই পর্বেই  জয় পেয়েছিল ইস্টবেঙ্গল। মোহনবাগানের বিরুদ্ধে লাল-হলুদকে এদিন জোড়া গোলে জয় এনে দিলেন জবি জাস্টিন ও কোলাডো।  প্রথম লেগে মোহনবাগানের বিরুদ্ধে ৩-২ গোলে জিতেছিল  লাল হলুদ ব্রিগেড । কোচ বদল করলেও মোহনবাগানের ভাগ্য পরিবর্তন হল না। শঙ্করলালের পরিবর্তে খালিদ জামিলকে নিয়ে এলেও   অবস্থার  বদল হল না।  দ্বিতীয় লেগে ফলাফল হল ২-০ ফলে, ১৫ বছর পর লিগের জোড়া কলকাতা ডার্বির রঙই হল লাল-হলুদ। ওয়ার্ম আপের সময় চোট পেয়ে ডার্বি থেকে ছিটকে গেলেন ইউতা। তাঁর পরিবর্তে দলে  এলেন হেনরি কিসেককা, ডার্বি শুরু হল , খেলার ৫ মিনিটের মাথায়  ইস্টবেঙ্গলের প্রথম আক্রমণ, ডানদিক থেকে টনি ডোভালের ক্রস থেকে কিম কিমার হেড বাইরে,৭  মিনিটে  ডানমাওয়াইয়ার নিচু ক্রসে পা ঠেকাতে ব্যর্থ। ফিরতি বলে ডানমাওয়াইয়ার শট সহজেই শিল্টনের নাগালে। ১৪ মিনিটে কর্নার পেল মোহনবাগান । সনি নর্দির পাস থেকে কিংসলের ট্যাপ ইন বাইরে,তারপর  মোহনবাগানের ওমরকে হলুদ কার্ড দেলহানো হল। ২৬ মিনিট বাঁদিক থেকে সনি নর্দির ক্রস। বক্সের মধ্যে ঠিকমতো শট নিতে পারলেন না ডিকা ,৩০ মিনিটে গোলের কাছ থেকে শট সনি নর্দির। ব্লক করলেন চুলোভা । ৩৫ মিনিটে  জবি জাস্টিনের পাস থেকে গোল কোলাডোর। ইস্টবেঙ্গল ১-০ তে এগিয়ে গেল । ২ মিনিট অতিরিক্ত সময় খেলা হলেও  প্রথমার্ধের শেষে  ১-০ গোল  এগিয়ে ইস্টবেঙ্গল দ্বিতীয়ার্ধের খেলার শুরুতেই ,ইস্টবেঙ্গলের চুলোভাকে হলুদ কার্ড দেখানো হল ,৫১ মিনিটে বক্সের মধ্যে ডিকার ঘাড় চেপে ধরলেন স্যান্টোস। কোনও কার্ড দেখাননি রেফারি। লালকার্ড দেখতে পারতেন স্যান্টোস।  পিন্টু মাহাতর পরিবর্তে মাঠে এলেন শেখ ফৈয়াজ,৫৩ মিনিটে অফসাইডের জন্য গোলবাতিল মোহনবাগানের। সনি নর্দির কর্নার থেকে কিংসলে হেড দেন। তা পড়ে ড্যারেনের পায়ে। গোলে বল জড়ালেও তা বাতিল করা হয়। ঘন ঘন  আক্রমণে মোহনবাগান। এরপর  ইস্টবেঙ্গলের   লালডানমাউইয়ারের পরিবর্তে মাঠে এলেন ব্র্যান্ডন। ৬৫ মিনিটে সুযোগ হাতছাড়া জবি জাস্টিনের। তাঁর শট ক্রসবারের উপর দিয়ে বাইরে গেল । ৬৯ মিনিটে  জবি জাস্টিনের শট আটকাতে  গিয়ে চোট পেলেন কিংসলে। ৭৬ মিনিটে আবার গোল এবার  কর্নার থেকে হেডে গোল জবি জাস্টিনের। মোহনবাগান ০-২ ইস্টবেঙ্গল। ৮৩ মিনিটে  চুলোভারকে বিপজ্জনক ভাবে  ধাক্কা মেরে সনি নর্দি হলুদ কার্ড দেখেন। ৮৬ মিনিটে এনরিকের শট  রুখলেন শিলটন পাল, নির্ধারিত সময়ের পরেও ৩ মিনিট অতিরিক্ত সময় দেওয়া হলেও ফল একই থাকল। পরিশেষে আজকের ডার্বিতে খারাপ রেফারিং-এর কথা উল্লেখ না করলেই নয় ।   লাইন্সম্যান অ্যান্টনি আব্রামের মোহনবাগানের গোল বাতিল নিয়ে বিতর্ক থেকেই গেল। অন্যদিকে  শিল্টন পাল হাইমেকে ফাউল করলে দেখতে পাননি রেফারি সিআর শ্রীকৃষ্ণ। কখনও হাইমে বেঁচে গিয়েছেন নিশ্চিত কার্ড দেখার হাত থেকে।            

  • অজস্র গোলের সুযোগ নষ্ট করে ভারত ২-০ তে পরাজিত সংযুক্ত আরব আমিরশাহীর কাছে।

    ডেস্ক ১০ জানুয়ারীঃ আজ এশিয়ান কাপে আরব আমিরশাহির জায়েদ স্পোর্টস সিটি স্টেডিয়ামে   সংযুক্ত আরব আমিরশাহির বিরুদ্ধে সমানে সমানে লড়লেন সুনীলরা। কিন্তু অসংখ্য গোলের সুযোগ তৈরি করেও নিশ্চিত গোলের সুযোগও নষ্ট করল শেষ পর্যন্ত ২-০ গোলে পরাজিত হতে হল ভারতকে। শুরু থেকে  ভারত  সংযুক্ত আরব আমিরশাহীকে চাপেই রেখেছিল ভারত। গোলের কাছে গিয়ে বার কয়েক নিশ্চিত গোলের সুযোগও নষ্ট করল।  প্রথমার্ধে  ভারতীয় দল বেশী  সুযোগ পেল । সংযুক্ত আরব আমিরশাহী একটাই সুযোগ তৈরি করল আর তা থেকেই গোল তুলে নিল। ম্যাচের ৪১ মিনিটে   মাঝ মাঠে  থেকেই আল আহমেদ  বল নিয়ে  ভারতের বক্সে ঢুকে পড়েছিলেন। সন্দেশ আর আনাসের মধ্যে  ভুল বোঝাবুঝির সুযোগ নিলেন আল আহমেদ।  সেই সুযোগেই ফাকায় দাড়িয়ে থাকা খালফানকে বল বাড়িয়ে দেন আল আহমেদ। দুই ডিফেন্ডারকে টপকে ভারতের গোলে বল ঠেলেন খালফান। গোলকিপার গুরপ্রিত অসহায় ভাবে দাঁড়িয়ে থাকেন। ভারত প্রথমার্ধ শেষ করে ১-০ গোলে পিছিয়ে থেকে। গোল খাওয়ার পরই সুনীল ছেত্রী গোলের  সুযোগ নষ্ট করলেন । ৪৩ মিনিটে প্রথম পোস্ট থেকে সুনীলের শট দ্বিতীয় পোস্টের কয়েক ইঞ্চি দূর দিয়ে বেরিয়ে গেল বাইরে। পুরো ম্যাচে প্রচুর গোলের সুযোগ  নষ্ট করল ভারত।   ৮৮ মিনিটে আলি আহমেদ  গোল করে ২-০ করলেন। রক্ষণের সঙ্গে সঙ্গে গুরপ্রিতকেও এ দিন বেশ দিশাহীন দেখাল। ম্যাচ শুরুর আট মিনিটের মধ্যেই অনিরুদ্ধ থাপার কর্নার থেকে সন্দেশ ঝিঙ্গানের হেড অল্পের জন্য বাইরে গেল। ১৩ মিনিটে আবার সেই থাপা-ঝিঙ্গান জুটির গোল মিস। ২৩ মিনিটে থাপার ক্রস থেকে সুনীল ছেত্রীর হেড দারুণভাবে বাঁচিয়ে দিলেন এইসা। ২৮ মিনিটে আবার নিশ্চিত মিস। আশিকের জন্য বক্সের বাইরে থেকে মাপা পাস বাড়িয়েছিলেন সুনীল ছেত্রী। গোলকিপারকে একা পেয়েও গোলে বল রাখতে পারলেন না আশিক। এ ভাবেই প্রথমার্ধে এত আক্রমণ করেও  গোলের মুখ খুলতে পারল না  উল্টে খেলার গতির বিরুদ্বে ভারত শেষ বেলায় গোল খেয়ে গেল । দ্বিতীয়ার্ধের শুরুতে হোলিচরন নার্জারিকে তুলে জেজেকে নামিয়েছিলেন কনস্টানটাইন। কিন্তু তাতেও লাভ হল না। নিজেদের ভুল আর ক্রসপিসের জন্যই পিছিয়ে থাকতে হল ভারতকে । ৫৩ মিনিটে জেজের মিসের পর ৫৫ মিনিটে তাঁর শট ক্রসপিসে লেগে ফিরল। যত সুযোগ নষ্ট করল ভারত তাতে আরব আমিরশাহীকে  গোলের মালা পরাতে পারতেন সুনীল ছেত্রীরা। শেষ মিনিটে যেভাবে আবার ক্রসপিসে লেগে ফিরল সন্দেশ ঝিঙ্গানের হেড তাতে বলাই যায় দিনটা ভারতের ছিল না।  এখন  শেষ ম্যাচের দিকে তাকিয়ে থাকতে হবে  ভারতকে।  

  • এএফসি এশিয়ান কাপের প্রথম ম্যাচে থাইল্যান্ডের বিরুদ্ধে দুরন্ত জয় ভারতের,মেসিকে টপকে গেলেন সুনীল।

    ডেস্ক, ৭ জানুয়ারীঃ এএফসি এশিয়ান কাপে  দুর্দান্ত জয় দিয়ে  শুরু করল ভারত। আবুধাবির আল নাহান স্টেডিয়ামে থাইল্যান্ডকে ভারত  ৪-১ গোলে হারাল । এএফসি এশিয়ান কাপের প্রথম ম্যাচে থাইল্যান্ডের বিরুদ্ধে শুরু থেকেই ম্যাচকে সামনে থেকে নেতৃত্ব দিলেন সুনীল। ভারতের হয়ে জোড়া গোল  তার । তারমধ্যে একটি পেনাল্টিতে। সেই পেনাল্টিটা আদায় করে নিয়েছিলেন আশিক কুরুনিয়ান।  থ্রো থেকে বল নিয়ে গোলের মধ্যে ঢুকে পড়েছিলেন তিনি। সেখান থেকেই চলতি বলে শট নেন গোল লক্ষ্য করে। কিন্তু সেই শট গোলকিপারের গায়ে লেগে থাইল্যান্ড ডিফেন্ডার বানমাথানের হাতে গিয়ে লাগে। পেনাল্টি পায় ভারত।  পেনাল্টি থেকে ঠান্ডা মাথায় ডান পায়ের শটে গোল করে ভারতকে ১-০তে এগিয়ে দিয়েছিলেন সুনীল ছেত্রী। এর সঙ্গেই আন্তর্জাতিক ম্যাচে ৬৬ গোল করে লিওনেল মেসিকে টপকে যান তিনি বর্তমানে খেলা ফুটবলার হিসেবে । তাঁর আগে রয়েছেন ক্রিস্টিয়ানো রোনাল্ডো। যদিও  ১-০তে এগিয়ে থাকা  বেশিক্ষণ স্থায়ী হয়নি । ৩৩ মিনিটে ফ্রি কিক থেকে গোল শোধ করে দেন থাইল্যান্ডের অধিনায়ক তিরাসিল ডাংডা। গোল ছেড়ে কিছুটা সেই সময় বেরিয়ে এসেছিলেন গুরপ্রিত সান্ধু। পিছিয়ে থেকে গোল শোধ করে প্রথমার্ধে ম্যাচের প্রাধান্য রেখে দ্রুত গতিতে খেলতে  থাকে থাইল্যান্ড।এএফসি এশিয়ান কাপের প্রথম ম্যাচের প্রথমার্ধ শেষ হয়েছিল ১-১ গোলে। কিন্তু, বিরতির পর   ভারতকে অন্য রুপে পাওয়া গেল।ঝলসে উঠল ভারত।  ৪৬ মিনিটে বক্সের মাথার উপর থেকে অসাধারণ গোল সুনীলের। উদান্তার সেন্টার থেকে। এই গোল করে আন্তর্জাতিক ম্যাচে নিজের ৬৭ তম গোল করে ফেলেন তিনি। এদিন যেমন মেসিকে টপকালেন তেমনই ইতিহাস তৈরি করে ফেলতেন পারতেন সুনীল। এশিয়ান কাপের প্রথম খেলায় তার  হ্যাটট্রিক হত  দুটি সহজ সুযোগ নষ্ট না  করলে। ৬৭ মিনিটে ভারতের হয়ে ব্যবধান বাড়ান অনিরুদ্ধ থাপা। বুদ্ধিদীপ্ত গোল। বক্সের মধ্যে উদান্তার থেকে বল পেয়ে ছোট্ট একটা চিপ। বল জালে জড়িয়ে যায়। আশিক কুরিয়ানের পরিবর্ত হিসাবে মাঠে নেমে গোল করেন জেজে। বক্সের মাথা থেকে।

  • অনুর্ধ ১৭ বালিকা দলের ফুটবল প্রতিযোগিতায় জয়ী আলাল হাই স্কুল

    কার্ত্তিক পাল , ২৪ ডিসেম্বরঃ ,মালদা জেলা বিদ্যালয় স্পোর্টস অ্যাসোসিয়েশানের    উদ্যোগে গত ২২তারিখ হরিশচন্দ্রপুর হাই স্কুল মাঠে স্কুল পর্যায়ের অনুর্ধ ১৭ বছর বালিকা দলের এক ফুটবল প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হল। এই খেলায় ৭টি স্কুল দল অংশগ্রহণ করেছিল। ফাইনাল খেলায় অংশগ্রহণ করে আলাল হাই স্কুল ও কুশিদা আর ডি বালিকা বিদ্যালয়। উক্ত খেলায় আলাল হাই স্কুল- কুশিদা  আর ডি বালিকা বিদ্যালয় কে ২-০ গোলে পরাজিত করে।

  • ইংরেজবাজার পৌরসভার সার্ধশতবর্ষে দিবারাত্রির ফুটবল প্রতিযোগিতার শুভ উদ্বোধন

    মালদা, ২২ ডিসেম্বরঃ  মালদহের ইংরেজবাজার পৌরসভার সার্ধশতবর্ষ উপলক্ষে আগামী ২৪শে ডিসেম্বর থেকে গতবারের ন্যায় কার্নিভালের মধ্য দিয়ে এবার সার্ধশতবর্ষ উৎসবের সূচনা করার সিদ্বান্ত নিয়েছে। এই উৎসবকে কেন্দ্র করে বিভিন্ন অনুষ্ঠানের পরিকল্পনা নিয়েছে ইংরেজবাজার পৌরসভা। তারই অঙ্গ হিসাবে এবং এই সার্ধশতবর্ষ উৎসবকে স্মরণীয় করে রাখার জন্য দিবারাত্রির ফুটবল প্রতিযোগিতার আয়োজন করেছে ইংরেজবাজার পৌরসভা।তারা সিদ্বান্ত নিয়েছেন এই ফুটবল প্রতিযোগিতা হবে এক ওয়ার্ডের সঙ্গে অন্য ওয়ার্ডের। । গতকাল প্রদীপ প্রজ্জলনের মধ্য দিয়ে এই অনুষ্ঠানের শুভ সূচনা করেন পৌরপ্রধান নীহার রঞ্জন ঘোষ উপ পৌরপ্রধান দুলাল সরকার। এছাড়াও উপস্থিত ছিলেন মালদা কলেজের অধ্যক্ষ মানস কুমার বৈদ্য ও বিভিন্ন ওয়ার্ডের কাউন্সিলারগন এবং মালদা জেলার প্রাক্তন ক্রীড়াবিদরা। এই ফুটবলখেলাকে কেন্দ্র করে মালদা কলেজ মাঠে বহু দর্শক সমাগম হচ্ছে। এ প্রসঙ্গে পৌরপ্রধান নীহার রঞ্জন ঘোষ জানান আমাদের পৌরসভার ২৯টি ওয়ার্ডের মধ্যে আমাদের দলের পাশাপাশি বিরোধীদলেরও কাউন্সিলারদের এই খেলায় সামিল করা হয়েছে।তিনি আরও বলেন আমি মনে করি সার্ধশতবর্ষ উৎসবকে কেন্দ্র করে  খেলার মাধ্যমে এক ওয়ার্ডের সঙ্গে অন্য ওয়ার্ডের সম্পর্কে আরও নিবিড় হবে।    জেলার ক্রীড়াবিদ এবং ক্রীড়াপ্রেমীরা পৌরসভার এই উদ্যোগকে সাধুবাদ জানিয়েছেন। গতকাল এবং আজ রাঊন্ড লীগের খেলাগুলি শেষ হয়েছে। আগামীকাল হবে কোয়ার্টার ফাইনাল পর্যায়ের খেলা।      

  • পাহাড়ের ঐতিহ্যবাহী দার্জিলিং গোল্ড কাপ ফুটবল টুর্নামেন্ট আবার শুরু হতে চলেছে।

    ডেস্ক,শিলিগুড়ি, ১৮ নভেম্বর : আবার শুরু হতে চলেছে একসময়ের ঐতিহ্যবাহী দার্জিলিং গোল্ড কাপ ফুটবল টুর্নামেন্ট। বিগত ১৯৮৫ সালে শেষবার এই প্রতিযোগিতা হয়েছিল। ১৯৮৬ সাল থেকে এই ফুটবল টুর্নামেন্ট বন্ধ হয়ে যায়  গোর্খাল্যান্ডের দাবিতে পাহাড় উত্তাল হওয়ার জন্য। বর্তমানে পাহাড়ের পরিস্থিতি উন্নতি হওয়ায় জিটিএ -র প্রশাসনিক বোর্ডের চেয়াম্যান বিনয় তামাং আবার এই প্রতিযোগিতা আয়োজন করতে চলেছেন। আগামী ডিসেম্বরেই এই গোল্ড কাপের সূচনা হবে বলে জানা গেছে । উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে উপস্থিত থাকতে পারেন মুখ্যমন্ত্রী  মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। ইতিমধ্যে বিনয় তামাং  কলকাতায় গিয়ে আইএফ এ সচিব উৎপল গঙ্গোপাধ্যায়ের সঙ্গে বৈঠক করেছেন।তারই ফলশ্রুতি হিসাবে গতকাল আইএফএ কর্তারা বিনয় তামাংকে সঙ্গে নিয়ে শুকনার মাঠ পরিদর্শন করেন।তিনি জানিয়েছেন গোল্ড কাপের শুরু সমতলে হলেও মিরিক, কালিম্পং, দার্জিলিংসহ পাহাড়ের একাধিক জায়গা সহ  গোল্ড কাপের খেলা শেষ হবে পাহাড়ে  এবারের গোল্ড কাপে দেশের ফুটবল দলগুলির পাশাপাশি বাংলাদেশ, নেপাল ও ভুটানের কয়েকটি দল অংশ নেবে। যদিও আই লিগের জন্য বেশ কয়েকটি দল গোল্ড কাপে অংশ নিতে পারবে না।  বিনয় তামাং জানান, "পাহাড়ের মানুষ সব সময়ই ফুটবল পাগল। তাই তাদের ইচ্ছাকে মর্যাদা  দিয়ে আবার এই প্রতিযোগিতা আমরা শুরু করতে চলেছি। এই প্রতিযোগিতা একসময় বন্ধ হয়ে গেছিল।  আমরা চেষ্টা করছি নতুন করে শুরু করার। আগামী মাসেই খেলা শুরু হবে। ইতিমধ্যেই ১৬টি দল যোগাযোগ করেছে। তার মধ্যে কলকাতার কয়েকটি দলও রয়েছে। বাংলাদেশ, নেপাল, ভুটান থেকেও দল আসবে। মুখ্যমন্ত্রী আমাদের এই উদ্যোগকে সাধুবাদ জানিয়েছেন। তাকে দিয়ে আমরা  প্রতিযোগিতার উদ্বোধন করাতে চাই ।  অন্যদিকে,  পাহাড়ে বিনয়ের  বিরোধীরা বিনয়ের এই ফুটবল টুর্নামেন্ট-র আয়োজনকে লোকসভা  নির্বাচনের আগে রাজনৈতিক কৌশল বলে মনে করছেন রাজনৈতিক মহলের একাংশ।

  • কলকাতার দুই প্রধান এ বছরের আই লিগ অভিযান শুরু করল।

    Newsbazar24 ডেস্ক, ২৮ অক্টোবর : কলকাতার দুই প্রধান ২০১৮-র আই লিগ অভিযান শুরু করল। প্রথম ম্যাচে জয় দিয়ে শুরু করল ইস্টবেঙ্গল কিন্তু মোহনবাগান আটকে গেল।   এনরিকে এসকুইদার জোড়া গোলে  পুরো ৩ পয়েন্ট নিয়েই আই লিগ অভিযান শুরু করল ইস্টবেঙ্গল। শনিবার, আই লিগের প্রথম ম্যাচে নেরোকাকে তাদের ঘরের মাঠে ২-০ গোলে হারাল লাল-হলুদ বাহিনী। অত্যন্ত বুদ্ধিমত্তার সঙ্গে প্রতি আক্রমণ নির্ভর ফুটবল খেলে কোচ হিসাবে বাজিমাত ইস্টবেঙ্গলের স্প্যানিশ কোচ আলেজান্দ্রো মেনেন্ডেজ গার্সিয়ারও। জোড়া গোল করে প্রথম ম্যাচেই ম্যাচ সেরা এনরিকে। অপরদিকে অন্য ম্যাচে এগিয়ে থেকেও জিততে পারল না মোহনবাগান। আই লিগের প্রথম ম্যাচে ১-১ গোলে তারা শেষ করল গোকুলাম কেরালার সঙ্গে। ৪০ মিনিটে এগিয়ে যায় সবুজ মেরুন। হেনরি কিসেকার গোলে। অরিজিৎ বাগুইয়ের ফ্রি কিক থেকে হেড গোল করেন তিনি।কিন্তু ৭২ মিনিটেই গোল পরিশোধ করে গোকুলাম মোহনবাগানের রক্ষণের ভুলে। পরিবর্ত রাজেশের দুর্বল শট ক্লিয়ার করতে গিয়ে নিজেই গোলেই গোল করে বসেন কিমকিমা।

  • ফিফা আন্তর্জাতিক ফ্রেন্ডলি ফুটবল ম্যাচে ভারত ও চীনের খেলা গোলশূন্য, অন্যবদ্য গোল কিপিং গুরপ্রীত সিং সান্ধুর

    Newsbazar24, ডেস্ক , ১৩ অক্টোবরঃ  আজ অলিম্পিক স্টেডিয়ামে ফিফা আন্তর্জাতিক ফ্রেন্ডলি ম্যাচে  ভারতীয় গোলকিপার গুরপ্রীত সিং সান্ধুর দুর্দান্ত  গোল কিপিংয়ের কাছে  চীন আটকে গেল । শুধু গুরপ্রীতের কথা বললে ভুল হবে । এদিন ভারতের ডিফেন্সের  সন্দেশ ঝিঙ্গান, আনাসরাও ডিফেন্সে দুরন্ত পারফরম্যান্স করেন। যার ফলে ভারতীয় ফুটবলের ইতিহাসে এই প্রথমবার চীনের মাটিতে তাদের বিরুদ্ধে ম্যাচ ড্র করল ভারতীয় দল।তবে শেষ মুহূর্তে ফারুক চৌধুরীর  গোল হলে ম্যাচের ফলাফল অন্যরকম হতেই পারত। এদিন চীনের  বিরুদ্ধে খেলতে নামলেও, গুটিয়ে না থেকে ভারতীয় দল দাপটে  খেলে গেল যার  ফলে  ম্যাচের প্রথমার্ধ গোলশূন্যভাবে শেষ হল  শনিবার সুজহাও অলিম্পিক স্টেডিয়ামে ফিফা আন্তর্জাতিক ফ্রেন্ডলি ম্যাচে ভারত একাধিক গোলের সুযোগ তৈরি করে। তবে চীনের  ছেলেরাও দুটো গোলের সুযোগ পান। যদিও গোলে অপ্রতিরোধ্য হয়ে দাঁড়ান গুরপ্রীত সিং সান্ধু। ম্যাচের ১৩ মিনিটে  বক্স থেকে প্রণয় হালদারকে পাশ বাড়ান সুনীল ছেত্রী। সেখান থেকে বল অনিরুদ্ধ থাপার কাছে যায় । ঠিক সেই সময় ডানদিক থেকে দৌড়ে এসে চলতি বলে  ডানপায়ে জোরালো শট নেন  প্রীতম কোটাল। তবে চীনের গোলকিপার সেভ না করলে দ্বিতীয় পোস্ট দিয়ে গোলে বল ঢুকতেই পারত। ১৭ মিনিটের মাথায় এবার গোলের সুযোগ পান সুনীল। তবে ফ্রিকিক পেলেও গোল করতে পারেননি তিনি। তাঁর শট বার পোস্টের উপর দিয়ে চলে যায়। দ্বিতীয়ার্ধের শুরুতে ফের আক্রমণের ঝাঁঝ বাড়াতে থাকে চিন। পঞ্চাশ মিনিটে চিনের গউলিনের শট পোস্টে লেগে বেরিয়ে যায়। মিনিট ছয়েক পরই উদান্ত সিং ডানদিক থেকে বক্সে ঢুকে শট নিলেও অল্পের জন্য লক্ষ্যভ্রষ্ট হয়। ৬৭ মিনিটে চিনের গাওয়ের শট গোলপোস্টের সামান্য উপর দিয়ে বেরিয়ে যায়। ম্যাচের শেষলগ্নে চিন আরও চেপে ধরে ভারতকে। কিন্তু গুরপ্রীত সিং সান্ধুর তৎপরতায় ভারতের জালে বল ঢোকাতে পারেনি চিন। একদিকে ভারতের চেয়ে ফিফা  র‍্যাঙ্কিংএ   চীন ২১ ধাপ এগিয়ে । তার উপর  আবার চীনের কোচ  ইতালির বিশ্বকাপ জয়ী প্রাক্তন কোচ মার্সেলো লিপ্পি। এই দুইয়ের সংমিশ্রনে চীন অনেক এগিয়ে ছিল তাই  সুনীল ছেত্রী-জেজে’দের কাছে এই ম্যাচ কিন্তু মোটেও সহজ ছিল  না।  কিন্তু তবুও হাল ছেড়ে না দিয়ে লড়াই করে গেল ভারতের ছেলেরা এবং তারা  সব হিসেবনিকেশ বদলে দিল। কারণ, খাতায়-কলমে ম্যাচ ড্র হলেও, চীনকে তাদের ঘরের মাঠে রুখে দেওয়া যে জয়ের সমান।