ক্রিকেট

  • তিন ম্যাচের টি২০ সিরিজে দ্বিতীয় ম্যাচে জিতে সিরিজে সমতা ফেরাল ভারতীয় দল

    ডেস্ক, ৮ই ফেব্রুয়ারীঃ তিন ম্যাচের টি২০ সিরিজের প্রথম ম্যাচে শোচনীয় হারের পর ভারতীয় ক্রিকেট দল দ্বিতীয় ম্যাচে  দারুণভাবে ঘুরে দাঁড়াল । আজ  ইডেন পার্কে নিউজিল্যান্ডকে সাত উইকেটে পরাজিত করল ভারতীয় দল। টসে  জিতে প্রথমে ব্যাট করার সিদ্ধান্ত নেয়  নিউজিল্যান্ড। প্রথম ম্যাচের নায়ক সেই  ওপেনার টিম সেইফার্ট আজ রান করতে পারন নি  । দু'জনেই ১২ বলে ১২ রান করে ফিরে যান প্যাভেলিয়নে।এর পর কেন উইলিয়ামসন চেষ্টা করেন  কিন্তু তিনিও  ব্যর্থ হন। মাত্র ২০ রান করে তিনি আউট হয়ে যান।  পরপর তিন জন আউট হয়ে যাওয়ায় কিছুটা বে কায়দায় পড়েন।। এর পর নিউজিল্যান্ড ব্যাটিংয়ের হাল ধরেন রস টেলর ও কলিন ডে গ্র্যান্ডহোম। টেলর ৪২ ও গ্র্যান্ডহোম ৫০ রান করে আউট হন। নির্ধারিত ৫০ ওভারে  ৮ উইকেটে ১৫৮ রানে  শেষ হয় নিউজিল্যান্ডের ইনিংস। ভারতের হয়ে তিন উইকেট নেন ক্রুনাল পাণ্ড্যে, দু'টি উইকেট খলিল আহমেদের। একটি করে উইকেট ভুবনেশ্বর কুমার ও হার্দিক পাণ্ড্যের। জয়ের জন্য প্রয়োজন ১৫৯ রান। রোহিত শর্মা ও শিখৱ ধাওয়ান  ভারতীয় ইনিংসের ভিতটা শক্ত করে দিয়ে যান  । ২৯ বলে ৪০ রানের ইনিংস খেলেন রোহিত তার মধ্যে ৪টি ছয় । ৩১ বলে ৩০ রান করেন শিখর ধাওয়ান। বিজয় শঙ্কর আট বলে ১৪ রান করে আউট হয়ে যান।  এর পর বাকি কাজটি  সাঙ্গ করেন করে দেন দুই উইকেট কিপার ব্যাটসম্যান ঋষভ পন্থ  ও এমএস ধোনি। তিন নম্বরে নামা ঋষভ পন্থ ২৮ বলে ৪০ রান করে। এমএস ধোনির ১৭ বলে ২০ রান করেন। দু'জনেই অপরাজিত থাকেন। ১৮.৫ ওভারে বাউন্ডারির সাহায্যে  ভারতকে জয় এনে দেন পন্থ।  ভারত ৩ উইকেটে  ১৬২ করে । সাত উইকেটে ম্যাচ জিতে সিরিজে সমতায় ফেরে ভারত। আজকের ম্যাচের সেরা হয়েছেন ক্রুনাল পাণ্ড্যে। আজকে রোহিত শর্মা আন্তর্জাতিক টি-২০ ম্যাচে সর্বোচচ রানের রেকর্ড গড়ে ফেললেন।   রবিবার শেষ টি২০ ম্যাচ এখন ফাইনাল দুই দলের জন্য।

  • টি২০ সিরিজের প্রথম ম্যাচে ভারতের পুরুষ ও মহিলা দল পরাজিত।

    ডেস্ক , ৬ ফেব্রুয়ারি : ওডিআই সিরিজ়ের ব্যাপক সাফল্যের পর  প্রথম টি-২০ ম্যাচে   ভারত মুখ থুবড়ে পড়ল নিউজ়িল্যান্ড-র কাছে এবং  বিশাল ব্যবধানে  পরাজয়  স্বীকার করল। টসে জিতে ভারতীয় দল  প্রথমে ফিল্ডিংয়ের সিদ্ধান্ত নেন । ওয়েলিংটনে প্রথমে ব্যাট করে ৬ উইকেট হারিয়ে ২১৯ রান করে নিউজ়িল্যান্ড। ২২০ রানের টার্গেট নিয়ে ব্যাট করতে নেমে ১৩৯ রানে শেষ হয়ে যায় ভারতীয় ইনিংস। ৮০ রানে জিতে তিন ম্যাচের সিরিজ়ে ১-০ তে এগিয়ে গেল নিউজ়িল্যান্ড। T-20-তে ভারতের এটাই সবচেয়ে বড় ব্যবধানে হার। আজ টস জিতে প্রথমে ফিল্ডিংয়ের সিদ্ধান্ত নেন ভারত অধিনায়ক রোহিত শর্মা। কিন্তু নিউজ়িল্যান্ড-র ওপেনার টিম সেইফার্টের  ৪৩ বলের অনবদ্য ৮৪  রান করেন যদিও এর মধ্যে তিনি দুবার জীবন পেয়েছেন। ২১৯ রানে ইনিংস শেষ করে  নিউজ়িল্যান্ড। নিউজ়িল্যান্ডের হয়ে কলিন মুনরো ৩৪, কেন উইলিয়ামসন ৩৪ এবং রস টেলর ২৩ রান করেন। হার্দিক পান্ডিয়া ২টি উইকেট নেন। একটি করে উইকেট নেন ভুবনেশ্বর কুমার, খলিল আহমেদ, ক্রুনাল পান্ডিয়া ও যুজবেন্দ্র চাহল। ২২০ রানের টার্গেট নিয়ে ব্যাট করতে নেমে শুরুতে শিখর ধাওয়ান ও বিজয় শংকর ছাড়া কেউ সেভাবে দাঁড়াতেই পারেননি। ধাওয়ান করেন ২৯ ও শংকর করেন ২৭। শেষ দিকে মহেন্দ্র সিং ধোনি করেন ৩৯ রান। ইনিংসে ৪ বল বাকি থাকতেই ১৩৯ রানে অল আউট হয়ে যায় ভারত। কিউয়িদের হয়ে টিম সাউদি ৩টি উইকেট নেন। ফার্গুসন, স্যান্টনার ও ইশ সোধি ২টি করে উইকেট নেন।  আজ ভারতীয় দলের বাজে ফিল্ডিং হারের অন্যত্ম প্রধান কারন বলে মনে হয়। টি-২০  ক্রিকেটে  গাদা গাদা ক্যাচ ফেলে জেতা সম্ভব নয়। ব্ল্যাক ক্যাপসদের পক্ষে সর্বোচ্চ রান করা সেইফার্টকে দুইবার জীবন দিয়েছেন ধোনি ও কার্তিক। কার্তিক এরপর আবার রস টেলরের ক্যাচও মিস করেন। পরে অবশ্য দারুণ ক্যআচ নিয়ে মিচেলকে ফিরিয়ে পাপস্খালন করেন কার্তিক।  

  • ভারত বনাম নিউজিল্যান্ড, প্রথম টি২০: কখন, কোথায় দেখবেন ম্যাচের লাইভ

    ডেস্ক, ৫ই ফেব্রুয়ারীঃ যে ওয়েলিংটনেভারত বনাম নিউজিল্যান্ড, ওডিআই সিরিজ শেষ  হয়েছিল সেখান থেকেই টি২০ সিরিজ শুরু করতে চলেছে ভারত ও নিউজিল্যান্ড-র । বিরাট কোহলিকে বিশ্রাম দেওয়া শেষ দুটো ওডিআইর মত   টি২০ সিরিজেও দলকে নেতৃত্ব দেবেন রোহিত শর্মা। টি-২০ সিরিজ খেলতে ওয়েলিংটনে ভারতীয় দলে যোগ দিয়েছেন ক্রুনাল পান্ডে ও সিদ্বারথ কল। ভারত বনাম নিউজিল্যান্ড প্রথম টি২০ হবে ৬ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯।খেলা হবে ওয়েলিংটনের ওয়েস্টপ্যাক স্টেডিয়ামে। খেলা শুরু হবে ভারতীয় সময় দুপুর ১২.৩০ মিনিট থেকে। খেলা দেখা যাবে স্টার স্পোর্টস নেটওয়ার্কে। ভারত বনাম নিউজিল্যান্ড প্রথম টি২০-এর লাইভ স্ট্রিমিং দেখা যাবে  

  • পুরুষ এবং মহিলাদের টি-২০ বিশ্বকাপ ২০২০-র ক্রীড়াসূচি প্রকাশিত হল।

    ডেস্ক, ৩০ জানুয়ারীঃ আইসিসি আজ আনুষ্ঠানিক ভাবে প্রকাশ করল  টি-২০ বিশ্বকাপ ২০২০-র  ক্রীড়াসূচি। পুরুষ এবং মহিলাদের টি-২০ বিশ্বকাপ হবে ওই একই বছরে মহিলা ও পুরুষদের।  উভয় বিভাগে ২০২০ সালের টি-২০ বিশ্বকাপের আসরের আয়োজক দেশও হচ্ছে অস্ট্রেলিয়া।  টি-২০ বিশ্বকাপের ইতিহাসে এই প্রথম পুরুষ এবং মহিলাদের জন্য একই দেশে একই বছরে বিশ্বকাপ অনুষ্ঠিত হতে চলেছে। পুরুষ এবং মহিলা টি-২০ বিশ্বকাপের ফাইনালও হবে  বিশ্বের অন্যতম বড় স্টেডিয়াম মেলবোর্ন ক্রিকেট গ্রাউন্ডে। ক্রীড়াসূচী থেকে দেখা যাচ্ছে  কোনও বিভাগেই গ্রুপ লীগে  ভারত-পাকিস্তানের ম্যাচ নেই। বরং অস্ট্রেলিয়া পুরুষদের টি-২০ বিশ্বকাপের প্রথম ম্যাচে পাকিস্তানের মুখোমুখি হবে। অন্যদিকে, মহিলাদের টি-২০ বিশ্বকাপের প্রথম ম্যাচে  অস্ট্রেলিয়াই ভারতের মুখোমুখি হবে সিডনি-তে। ২০২০ সালের টি-২০ বিশ্বকাপে মহিলা ও পুরুষদের প্রতিযোগিতা একই বছরের দুটো সময়ে অস্ট্রেলিয়াতেই অনুষ্ঠিত হবে।  মহিলাদের টি-২০ বিশ্বকাপ-এর আসর ২১ ফেব্রুয়ারি, ২০২০ সালে বসবে। শেষ হবে ৮ মার্চ। মোট ২৩টি দল এতে অংশ নেবে। ফাইনাল হবে  ৮ মার্চ।  মহিলাদের টি-২০ বিশ্বকাপের গ্রুপ লিগের ম্যাচঃ (২১ ফেব্রুয়ারি-৩ মার্চ) গ্রুপ এঃ অস্ট্রেলিয়া, নিউজিল্যান্ড, ভারত, শ্রীলঙ্কা, কোয়ালিফায়ার ১ গ্রুপ বিঃ ইংল্যান্ড, ওয়েস্ট ইন্ডিজ, দক্ষিণ আফ্রিকা, পাকিস্তান, কোয়ালিফায়ার ২ সেমিফাইনালঃ ৫ মার্চ,    ফাইনালঃ ৮ মার্চ পুরুষদের টি-২০ বিশ্বকাপ ক্রিকেট শুরু হবে ১৮ অক্টোবর। প্রতিযোগিতা শেষ হবে ১৫ নভেম্বর। মূল প্রতিযোগিতা শুরুর আগে বেশকিছু যোগ্যতা নির্ণায়ক ম্যাচ আছে পুরুষদের টি-২০ ক্রিকেট বিশ্বকাপে। এই ম্যাচগুলো খেলা হবে ১৮ অক্টোবর থেকে। সুপার ১২ নিয়ে মূল প্রতিযোগিতা শুরু হবে ২৪ অক্টোবর। যেখানে সিডনি ক্রিকেট গ্রাউন্ডে পাকিস্তানের সঙ্গে মুখোমুখি হবে অস্ট্রেলিয়া। পুরুষদের গ্রুপ লিগের ম্যাচঃ (২৪ অক্টোবর-৮ নভেম্বর) গ্রুপ ১: পাকিস্তান, অস্ট্রেলিয়া, ওয়েস্ট ইন্ডিজ, নিউজিল্যান্ড, দুজন কোয়ালিফায়ার গ্রুপ ২: ভারত, ইংল্যান্ড, দক্ষিণ আফ্রিকা, আফগানিস্তান, দুজন কোয়ালিফায়ার সেমিফাইনাল: ১১ নভেম্বর এবং ১২ নভেম্বর, ফাইনাল: ১৫ নভেম্বর    

  • ভারতের ক্রিকেটে ইতিহাস ,অস্ট্রেলিয়ায় সর্ব প্রথম টেস্ট সিরিজ জয়, বৃষ্টি ভেস্তে দিল সিডনি টেস্ট,

    ডেস্ক, ৭ জানুয়ারীঃ অবশেষে বৃষ্টি ও স্বল্প আলোর কৃপায় অমীমাংসিত থেকেই গেল সিডনি টেস্ট। ঈশ্বরের কৃপা বর্ষিত হল অস্ট্রেলিয়া দলের ঊপর। চতুর্থ দিনে চা-পানের বিরতি-র আগে যেখানে খেলা বন্ধ হয়েছিল, পষ্ণম দিনে সেখান থেকে  খেলার গতিপ্রকৃতি একটুও বদলায়নি । পঞ্চম দিনেও মধ্যাহ্নভোজ পর্যন্ত কোন খেলা করানো যায়নি। মধ্যাহ্নভোজের পর আলোর অবস্থা ও আবার  মাঠ পরিদর্শন করে আম্পায়রা।  আলোর অবস্থা পর্যালোচনা করেন ।  আবহাওয়ার উন্নতির আশায় কিছুক্ষণ অপেক্ষাও করেন আম্পায়রা। কিন্তু পর্যাপ্ত আলো না থাকায় দুই দলের অধিনায়কের সঙ্গেও কথা বলে র সিডনি টেস্ট ড্র বলে ঘোষণা করেন। চতুর্থ টেস্ট ড্র হলেও  ভারতের দখলেই থেকে যায় সিরিজ। ২-১ ফলে টেস্ট সিরিজ জয় করে বিরাট কোহলির নেতৃত্বে  ভারতীয় দল অস্ট্রেলিয়ার  নতুন ইতিহাস রচনা করেন। কারণ, এই সফরের আগে অস্ট্রেলিয়ায় কোনও টেস্ট সিরিজ জয়ের রেকর্ড ভারতের দখলে ছিল না। ম্যান অফ দি ম্যাচ এবং ম্যান অফ দি সিরিজ নির্বাচিত হয়েছেন চেতেশ্বর পূজারা। এই সফরে তিনটি  শতরান  করেছেন এই ব্যাটসম্যান। সিডনি টেস্টে  প্রথম ইনিংসে ভারতীয় ব্যাটসম্যা‌নদের ৬২২ রানের লক্ষ্যের সামনে দাড়াতেই পারেননি অস্ট্রেলিয়ার ব্যাটসম্যানরা। ৩০০ রানেই শেষ যায় তাদের প্রথম ইনিংস। ফলো-অন  করার পর চার ওভারই ব্যাট করতে পেরেছিল অস্ট্রেলিয়া। বিনা উইকেটে ৪ ওভারে তাদের সংগ্রহ ছিল ৬ রান। এরমধ্য হ্যারিস  বুমরাহের বলে আউট হতে হতে বেঁচেছিলেন। স্যাঁতস্যাঁতে আবহাওয়ায় স্পিনাররা এই পিচে কার্যকরি হয়ে উঠতে পারতেন এবং ভারতের জয় নিশ্চিত ছিল বলেই মনে করা হচ্ছে।  তারপর বৃষ্টি এসে শেষটা ভেস্তে দিল যেভাবে তৃতীয় দিনের শেষটাও দিয়েছিল।   সিডনি টেস্টে ভারত যদি জিতত তা হলে সিরিজ  ৩-১ ফলে ভারতের দখলেই যেত।  তাই সিডনি টেস্ট ড্র হওয়ায় ভারতের একটা নিশ্চিত জয় হাতছাড়া হয়েছে একথা সত্য। অবশেষে ভারত জিতল ইন্ডিয়া- গাভাসকার ট্রফি।

  • এস আর এম বি কাপ ক্রিকেট প্রতিযোগিতায় চ্যাম্পিয়ান মালদা অনীক সংঘ

    কার্ত্তিক চন্দ্র পাল,মালদা, ৬  জানুয়ারীঃ,আজ ছিল এস আর এম  বি কাপ    ক্রিকেট টুর্নামেন্টের  ফাইনাল খেলা। গত ৩০শে ডিসেম্বর থেকে মোট আটটি দল নিয়ে    এই প্রতিযীগিতা শুরু হয়েছিল মালদহের প্রানকেন্দ্র বৃন্দাবনি ময়দানে। আজ চূড়ান্ত পর্যায়ের এই খেলায় অংশগ্রহণ করেছিল মালদা অনীক সংঘ ও সবুজ সংঘ  বহরমপুর। এই খেলাকে কেন্দ্র করে ব্যাপক দর্শক সমাগম হয়েছিল।  অনীক সংঘ,মালদা টসে জিতে ফিল্ডিং  করার সিদ্বান্ত নেয়। সবুজ সংঘ নির্ধারিত   ৩০ ওভারে ২৯১রান করে সকলে আউট হয়ে যান।সবুজ সংঘ-র সব্বোচ্চ রান করেন তন্ময় প্রামানিক ৪৫ বলে ৮২ রান ও পঙ্কজ সাঊ ২৮ বলে ৫২ রান  করেন। ন।  জবাবে ব্যাট করতে নেমে অনীক সংঘ রাহুল দালাল ও অরুন চাপরানার ব্যাটিংএ ভর করে ২ উইকেট বাকী থাকতেই জয়ের লক্ষ মাত্রায় পৌছে যান।   অনীক সংঘ-র রাহুল দালাল ৫১ বলে ১১১ রান এবং অরুন চাপরানা ৬৩ বলে ৯১  রান করেন। ।  মালদা অনীক সংঘ ২ উইকেটে  জয়লাভ করে। ম্যান  অফ দি ম্যাচ হন মালদা অনীক সংঘের রাহুল দালাল। ম্যান  অফ দি সিরিজ হন মালদা অনীক সংঘের অরুন চাপরানা। চ্যাম্পিয়ান দল মালদা অনীক সংঘ পান নগদ ১ লক্ষ টাকা ও ট্রফি এবং বিজিত দল পায় নগদ ৫০,০০০=০০টাকা  ও রানার্স ট্রফি।       

  • এস আর এম বি কাপ ক্রিকেট টুর্নামেন্টের ফাইনালে মুখোমুখি মালদা অনীক সংঘ ও সবুজ সংঘ বহরমপুর

    কার্ত্তিক চন্দ্র পাল,মালদা, ৪ জানুয়ারীঃ,মালদহে অনুষ্ঠিত এস আর এম  বি কাপের   সীমিতওভারের ক্রিকেট টুর্নামেন্টের  ফাইনালে  দ্বিতীয় দল হিসাবে উঠল মালদা অনীক সংঘ ।  আজ ছিল এই  টুর্নামেন্টের দ্বিতীয় সেমিফাইনাল। মুখোমুখি হয়েছিল মালদা অনীক সংঘ ও  অগ্রগামী  সংঘ শিলিগুড়ি। অনীক সংঘ,মালদা টসে জিতে ব্যাটিং করার সিদ্বান্ত নেয়। অনীক সংঘ, ২৯।৫ ওভারে ২৮৬ রান করে সকলে আউট হয়ে যান। ব্যাটিংএ  অনীক সংঘ-র জয়জীৎ বসু ৬৩বলে ৮৩ রান এবং অরুন চাপরানা ৪৫ বলে ৭৫ রান করেন। বোলিংএ অনীক সংঘ-র অরুন চাপরানা আদিত্য শর্মা ৬ ওভারে ৩৯ রান দিয়ে ৫ উইকেট এবং শ্চীন শর্মা  ৪ ওভারে ২২ রান দিয়ে ২  উইকেট সংগ্রহ করেন। জবাবে ব্যাট করতে নেমে  অগ্রগামী  সংঘ শিলিগুড়ি  ২৮ ওভারে ২১৩ রান করে সকলে আউট হয়ে যান। অগ্রগামী  সংঘের নবাঙ্কুর ঘোষ ৩৭ বলে ৫৬ রান করেন এবং আদিত্য শর্মা ৪৩ বলে ৬০ রান করেন। বোলিংএ অগ্রগামী  সংঘ-র আদিত্য শর্মা ৫।৫ ওভারে ৩৩ রান দিয়ে  ৪ উইকেট এবং নবাঙ্কুর ঘোষ ৩ ওভারে ৪১ রান দিয়ে ৩ উইকেট সংগ্রহ করেন।  মালদা অনীক সংঘ ৭৩ রানে  জয়লাভ করে। ম্যান অফ দি ম্যাচ হন মালদা অনীক সংঘের অরুন চাপরানা। (উপরের ছবিতেমালদা অনীক সংঘের অরুন চাপরানার হাতে ম্যান অফ দি ম্যাচের পুরুস্কার তুলে দিচ্ছেন ইংরেজবাজার পৌরসভার প্রাক্তন চেয়ারম্যান ও কাউন্সিলার নরেন্দ্র নাথ তেওয়ারী)

  • চতুর্থ টেস্টের জন্য ভারতীয় দলের ১৩ জনের নাম ঘোষনা করল বিসিসিআই

    ডেস্ক,২ জানুয়ারি : আগামীকাল ভারত ও অস্ট্রেলিয়ার টেস্ট সিরিজের শেষ  টেস্ট  শুরু হতে যাচ্ছে।  এই টেস্টের ফলাফলের ঊপর নির্ভর করছে ভারত কি আর একবার অস্ট্রেলিয়ার মাটিতে সিরিজ জিততে পারবে না কি সিরিজ অমীমাংসিত থাকবে। আজকের দিনে দাঁড়িয়ে এই সিরিজের সব থেকে কঠিন ম্যাচ খেলতে নামছে ভারত। আজ শেষ  টেস্ট-র জন্য ১৩ জনের দল ঘোষণা করে দিল ভারতীয় ক্রিকেট কন্ট্রোল বোর্ড।   অভিজ্ঞ স্পিনার রবিচন্দ্রন অশ্বিনকে নিয়ে এখনও সংশয় রয়েছে। অশ্বিন আদৌ খেলতে পারবেন কিনা তা নিয়ে ম্যাচের দিন সকালেই সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে বলে দলের তরফে জানানো হয়েছে। অ্যাডিলেড টেস্টের চতুর্থ দিন পেটে চোট পেয়েছিলেন অশ্বিন। তার পর পার্থ ও মেলবোর্নে খেলতে পারেননি তিনি। মঙ্গলবার অনুশীলন করলেও তিনি এখনও পুরোপুরি সুস্থ নন। হয়তো শেষ টেস্টেও তিনি খেলতে পারবেন না। বুধবার সাংবাদিক সম্মেলনে এসে বিরাট কোহলি বলেন, চোট নিয়ে রীতিমতো হতাশ অশ্বিন। কিন্তু তার পরই অশ্বিনের নাম ১৩ জনের দলে দেখা যায়। টুইট করে টিম ঘোষণা করেছে বিসিসিআই। সেখানেই তারা জানিয়েছে, ‘‘রবিচন্দ্রন অশ্বিন খেলতে পারবে কিনা সেটা ম্যাচের দিন সকালেই সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।'' তবে শেষ টেস্টে ইশান্ত শর্মার নাম নেই। ১৩ জনের দলেও রাখা হয়নি তাঁকে। তাঁর জায়গায়  উমেশ যাদবকে নেওয়া হয়েছে ।রিস্ট-স্পিনার কুলদীপ যাদবকে দেখা টেতে পারে রবীন্দ্র জাডেজার সঙ্গে জুটি বেঁধে স্পিন অ্যাটাককে শক্তিশালী করতে। অবশ্যই যদি অশ্বিন খেলতে না পারে। চতুর্থ টেস্টে নেই রোহিত শর্মা। কারন তিনি দেশে ফিরে গেছেন তার স্ত্রী কন্যা সন্তানের জন্ম দিয়েছেন সম্প্রতি। এই মুহূর্তে ভারত চার ম্যাচের সিরিজে ২-১এ এগিয়ে রয়েছে। ঘোষিত ভারতীয় দল -বিরাট কোহলি(অধিনায়ক), এ রাহানে,কে এল রাহুল। ময়াঙ্ক আগরওযাল। সি পূজারা। হনুমান বিহারী, আর পন্থ, আর জাডেজা,কে যাদব, আর আশ্বিন, মহঃ সামী, জস্প্রীত বুমরা ও ঊমেশ যাদব। ‘‘রবিচন্দ্রন অশ্বিন খেলতে পারবে কিনা সেটা ম্যাচের দিন সকালেই সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।'' (ছবিটি বিসিসি আই সূত্রে প্রাপ্ত)   

  • কালিতলা ক্লাবের পরিচালনায় ১৮তম এস.আর.এম.বি.কাপ ক্রিকেট টুর্নামেন্ট শুরু হল।

    কার্ত্তিক চন্দ্র পাল,মালদা  ৩০ শে ডিসেম্বরঃ কালিতলা ক্লাবের পরিচালনায় ১৮তম এস আর এম  বি কাপ সীমিতওভারের ক্রিকেট টুর্নামেন্টের শুভ উদ্বোধন হল আজ বৃন্দাবনী ময়দানে। উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন কালীতলা ক্লাবের প্রধান উপদেষ্টা প্রাক্তন মন্ত্রী ও কাউন্সিলার কৃষনেন্দু নারায়ন চৌধুরী,কালীতলা ক্লাবের সভাপতি প্রবীন ভাটিয়া, মালদা জেলা ক্রীড়া সংস্থার সম্পাদক গোপাল চৌধুরী, সহ সভাপতি সোমেশ দাস, উত্তরবঙ্গ স্পোর্টস কাউন্সিলের সদস্য ও কাউন্সিলার প্রসেনজিত দাস এ ছাড়াও মালদা জেলার প্রাক্তন ক্রিকেট খেলোয়াড়েরা।         কালিতলা ক্লাবের সম্পাদক আমাদের জানান  মোট  ৮টি দল নিয়ে নক আউট পর্যায়ে এই খেলা অনুষ্ঠিত  হবে। এই খেলায় অংশগ্রহনকারী দলগুলি হল ১) মালদা অনীক সংঘ,,২)শান্তি ভারতী পরিষদ, মালদা ৩) অগ্রগামী  সংঘ ,শিলিগুড়ি,৪) কলকাতা একাদশ ৫) এ টু জেড বীরভূম ,৬)  এ এন্ড এস ক্রিকেট একাডেমী,কলকাতা ৭) রয়্যাল একাডেমী,বাংলাদেশ, ৮) সবুজ সংঘ বহরমপুর.          আজকের খেলায় অংশগ্রহণ করেছিল , কলকাতা একাদশ ও অগ্রগামী  সংঘ,শিলিগুড়ি। টসে জিতে ব্যাট করার সিদ্বান্ত নেয় কলকাতা একাদশ। তারা নির্ধারিত ৩৫ ওভারে করে ২২২ রান। কলকাতার লোকেশ শর্মা অসাধারন ব্যাটিং করে ৬৭ বলে ১০৪ রান করে নট আউট থাকেন। মুকেশ যাদব করেন ৩৭ বলে ৪২ রান। জবাবে ব্যাট করতে নেমে অগ্রগামী  সংঘ,শিলিগুড়ি ২৫.১ ওভারে ৩ উইকেট হারিয়ে ২২৪ রান করে ম্যাচ জিতে নেন।  কলকাতা একাদশের  লোকেশ শর্মা  ৬৭ বলে ১০৪ রান করে অপরাজিত থেকে  এবং বোলিং এ ৬ ওভার ব্ল করে ৪৪ রান দিয়ে ২ উইকেট সংগ্রহ করে ম্যান অফ দি ম্যাচ নির্বাচিত হন।

  • তৃতীয় দিনের শেষে যশপ্রীত বুমরার আসাধারন বোলিংএ অস্ট্রেলিয়া ১৫১ রানে শেষ। ব্যাটিং বিপর্যয়ের মুখে ভারত।

    ডেস্ক, ২৮শে ডিসেম্বরঃ ভারত ও অস্ট্রেলিয়ার তৃতীয় টেস্টের তৃতীয় দিনের খেলার শেষে পরিষ্কার হতে চলেছে এই টেস্টে ফয়সলা হবেই। পাল্লা ভারী ভারতের দিকে। কিন্তু ক্রিকেট অনিশ্চয়তার খেলা।  প্রথম ইনিংসে ভারতের একটি সেঞ্চুরি ও দুটো হাফসেঞ্চুরির  দৌলতে  যখন ভারত  ৪০০ রানে ডিক্লেয়ার করল  তখনও বোঝা যায়নি অস্ট্রেলিয়ার ব্যাটিং লাইন আপ এভাবে আত্মসমর্পণ করবে । দ্বিতীয় দিনের শেষে মাত্র ছয় ওভারই খেলার সুযোগ পেয়েছিল অস্ট্রেলিয়া। আট রান নিয়ে তৃতীয় দিনের খেলা  শুরু হয়ছিল অস্ট্রেলিয়ার। দুই ওপেনার মার্কাস হ্যারিস ও অ্যারন ফিঞ্চ ব্যাট  করতে নেমে অস্ট্রেলিয়াকে সাহস যোগাতে পারেননি। ফিঞ্চ আউট হন মাত্র আট রানে। হ্যারিস অউট হন ২২ রানে। উসমান খোয়াজা ও শন মার্শ করেন যথাক্রমে ২১ রান ও  ১৯  রান । ২০ রান করেন ত্রাভিস হেড। মিটেল মার্শ  মাত্র ৯ রান করে ফিরে যান। এর পর অধিনায়ক টিম পাইন ও প্যাট কামিন্স কিছুটা চেষ্টা করেন। কিন্তু সেই ২২ রানের উপর যেতে পারেননি কেউই। পাইন ২২ রানে আউট হন আর কামিন্সের রান ১৭। শেষের দুই উইকেট যায় কোনও রান না করেই। সাত রান করে অপরাজিত থাকেন মিচেল স্টার্ক। ৬৬.৫ ওভারে ১৫১ রানেই শেষ হয়ে যায় অস্ট্রেলিয়া। ভারতের সবচেয়ে সফল বোলার যশপ্রীত বুমরা। তিনি ১৫.৫ অভার বল করে ৬ উইকেট সংগ্রহ করেন। ২ উইকেট নেন রবীন্দ্র জাডেজা। একটি করে উইকেট  ইশান্ত শর্মা ও মহম্মদ শামির। দ্বিতীয় ইনিংসে ব্যাট করতে নেমে ভারত ও অস্ট্রেলিয়ার দেখানো পথে হাটতে শুরু করে। ওপেন করতে নেমে প্রথম ইনিংসের পর দ্বিতীয ইনিংসেও ব্যর্থ হনুমা বিহারী। মাত্র ১৩ রান করেই প্যাভেলিয়নে ফিরলেন তিনি। তিন ও চার নম্বরে নেমে চেতেশ্বর পূজারা ও অধিনায়ক বিরাট কোহলি রান না করেই অয়াউট হয়ে গেলেন।  একজন খেললেন দুই বলও একজন চার। এই দু'জনই প্রথম ইনিংসে ভারতকে সন্মানজনক জায়গায়  নিয়ে গিয়েছিলেন। যেখানে চেতেশ্বর পূজারার ব্যাট থেকে এসেছিল ১০৬ রান ও বিরাট কোহলির ৮২ রান। কিন্তু দ্বিতীয় ইনিংসে রীতিমতো ধাক্কা খেলেন এই সিরিজের দুই সেরা ব্যাটসম্যান। তৃতীয় টেস্ট শুরুর আগে  সহঅধিনায়ক অজিঙ্ক রাহানে বলেছিলেন  তিনি এই ম্যাচে সেঞ্চুরি বা ডবল সেঞ্চুরিও করতে পারেন। কিন্তু দুই ইনিংসে তিনি ব্যর্থ। এ দিন করলেন মাত্র এক রান। প্রথম ইনিংসে করেছিলেন ৩৪ রান। রোহিত শর্মা আউট হলেন পাঁচ রানে। তৃতীয় দিনের শেষে ২৮ রান করে অপরাজিত রয়েছেন মায়াঙ্ক আগরওয়াল ও ছয় রান করে ঋষব পন্থ। তৃতীয় দিনের শেষে ভারতের রান ৫উইকেটে  ৫৪।