সারা ভারত

  • বিজেপি জম্মু ও কাশ্মীর সরকারের ওপর সমর্থন তুলে নেওয়ায় কাশ্মীর উপত্যকায় রাজনৈতিক সংকট ঘনীভূত

    Newsbazar, ডেস্ক, ১৯ জুনঃ কাশ্মীর উপত্যকায় রাজনৈতিক সংকট  দেখা দিল। আজ জম্মু ও কাশ্মীর সরকারের ওপর সমর্থন তুলে নেওয়ার কথা ঘোষনা করে  বিজেপি।এদিন কাশ্মীরের বিজেপি পরিষদীয় দলের    জরুরি বৈঠকে  সমর্থন প্রত্যাহারের ব্যাপারে সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। বিষয়টি সম্পর্কে সভাপতি অমিত শাহ এবং প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর কথাও হয়।বিজেপি পরিষদীয় দলের পক্ষ থেকে রাজ্যপাল এম এন ভোরা কে সিদ্ধান্ত জানিয়ে দেওয়া হয়।        জম্মু ও কাশ্মীরের মুখ্যমন্ত্রী মেহবুবা মুফতি রাজ্যপালের কাছে ইস্তফা পত্র  জমা দিয়েছেন বলে পিডিপির নেতা সঈম আখতার জানিয়েছেন।  এবিষয়ে  বিকেল ৫ টা নাগাদ  সাংবাদিক সন্মেলন করে দলের বক্তব্য জানানো হবে বলেও  তিনি জানান। বিজেপির তরফে জম্মু ও কাশ্মীরের দায়িত্বপ্রাপ্ত নেতা রাম বাধব বলেছেন, উপত্যকায় জঙ্গি কার্যকলাপ বেড়েছে, এবং পিডিপি চাইছে  সংঘর্ষ-বিরতি যেন প্রত্যাহার করা না হয়,  রাজ্যে মানুষের মৌলিক অধিকার খর্ব করা হচ্ছে। সম্প্রতি সেখানে বর্ষীয়ান সাংবাদিক সুজাত বুখারিকে খুন করা হয়। এই অবস্থায় পিডিপির সঙ্গে  চলা সম্ভব নয় তাই এই সরকারের উপর থেকে সমর্থন প্রত্যাহারের সিদ্বান্ত নেওয়া হয়েছে।  বিজেপির তরফে আরও  জানানো হয়েছে, উপত্যকার শান্তি ও উন্নতি  তারা চেয়েছিলেন। এবং সেখানকার  মানুষের কথা ভেবেই তিনবছর আগে পিডিপিকে সমর্থনের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছিল। প্রবল রাজনৈতিক সংকটে ঘনীভূত উপত্যকায় শাসনভার আপাতত কার হাতে ন্যাস্ত থাকে  এখন তা দেখার । রাজ্যপাল আপাতত এই দায়িত্বভারগ্রহণ করতে পারেন বলেও জানা গিয়েছে। বিষয়টি নিয়ে কংগ্রেসের তরফে জানানো হয়েছে, 'যা ঘটেছে তা ভালো হয়েছে।' সর্বশেষ খবরে জানা যায় মুখ্যমন্ত্রী মেহবুবা মুফতি  সাংবাদিক সন্মেলনে জানিয়েছেন যে বিজেপির সমর্থন প্রত্যাহারের আর সরকার চালিয়ে যাওয়ার কোন মানে হয় না। আমি আমার সরকারের পদত্যাগপ্ত্র রাজ্যপালের কাছে জমা দিয়ে এসেছি।এই ঘটনায় আমি খুব বেদনাহত আমরা ক্ষমতায় থাকার জন্য জোট করিনি এই জোট করার উদ্দেশ্য  ছিল উপত্যকায় শান্তি ফিরিয়ে আনা। এবং সংঘর্ষ-বিরতি।           

  • সাংবাদিক গৌরী লঙ্কেশ হত্যাকাণ্ড ঘিরে অভিযুক্ত পরশুরাম ওয়াঘমোরের বিস্ফোরক বয়ান

    news bazar24: ধৃত পরশুরাম ওয়াঘমোর(২৬),সাংবাদিক গৌরী লঙ্কেশ হত্যাকাণ্ডে অভিযুক্ত। ধৃত পরশুরাম জানিয়েছেব, ৪ টি বুলেট যখন নিজের বন্দুক থেকে সে গৌরী লঙ্কেশের বুকে বিঁধিয়ে দিয়েছিল, তখনও সে জানত না যে কাকে হত্যা করা হচ্ছে। গোয়েন্দাদের জিজ্ঞসাবাদের মুখে সে জানিয়েছে, তাকে ২০১৭ সালের মে মাসে নির্দেশ দেওয়া হয়েছিল নিজের ধর্মকে রক্ষা করতে কোনও একজনকে হত্যা করতে হবে। তবে কাকে হত্যা করতে হবে, তাঁর পরিচয় পরশুরামকে জানানো হয়নি। সে প্রস্তাবে রাজি হয়ে যায়।পরশুরাম জানিয়েছে, তাকে বাইকে বসিয়ে প্রথমে গৌরী লঙ্কেশের বাড়িটি চিনিয়ে দেওয়া হয়। পরে গৌরী লঙ্কেশের বেঙ্গালুরুর আর আরনগরের বাড়ির সামনে তাকে ছেড়ে দেয় সেই বাইক আরোহী। কিন্তু তখন গৌরী লঙ্কেশ বাড়ির ভিতরে ছিলেন। সেই উদ্যোগ ব্যর্থ হয় । এরপর ৫ সেপ্টেম্বর ২০১৭ সালে বিকেল ৪ টে নাগাদ ফের বন্দুক হাতে পায় পরশুরাম। পৌঁছে যায় গৌরী লঙ্কেশের বাড়ির সামনে। গৌরী নিজের গাড়ি নিয়ে বাড়ি ফিরছিলেন। সেই সময়ে বাড়ির গেট খুলতে গাড়ি থেকে নামেন গৌরী লঙ্কেশ। বাড়ির গেটের সামনে দাঁড়িয়ে একটু কেশে নেয় পরশুরাম। আর পরশুরামের দিকে গৌরী তাকাতেই, ৪ টে গুলি গৌরীর শরীরে বিঁধিয়ে ফেলে পরশুরাম। রক্তাক্ত অবস্থায় মাটিতে লুটিয়ে পড়েন সাংবাদিক গৌরী লঙ্কেশ। ধৃত পরশুরাম ওয়াঘমোরে উত্তর কর্ণাটকের বিজয়পূরা থেকে এই সপ্তাহের প্রথমের দিকেই ধরা পড়েছে। তাকে জিজ্ঞাসাবাদ করে একাধিক চাঞ্চল্যকর তথ্য পেয়ে চলেছে বিশেষ তদন্তকারী দল।খুনের পর এখন পরশুরামের মনে হচ্ছে, এই হত্যা সে না করলেই পারত। গোয়েন্দা সূত্রে এমনটাই জানানো হয়েছে।  

  • সমস্ত দেশজুড়ে পালিত হল খুশির ইদ

    News bazaar, ডেস্ক,১৬ই জুনঃ আজ সমস্ত দেশজুড়ে পালিত হল খুশির ইদ।   এই উৎসবের আমেজে মাতোয়ারা কাশ্মীর থেকে কন্যাকুমারী পর্যন্ত  মুসলিম ধর্ম্যাবলম্বী  মানুষের সাথে সকল ধর্মের মানুষ । ইদ পালনের সঙ্গে সঙ্গেই শেষ হল  রামজান মাস। কেনাকাটা থেকে খাওয়া দাওয়া সমস্ত কিছু মিলিয়ে আজ উৎসবে মুখরিত গোটা দেশ। শুরু হয়েছে একে অপরকে শুভেচ্ছাবার্তা প্রেরণের পালা। এদিন ইদ উপলক্ষ্যে শুভেচ্ছা  বার্তা জানিয়েছেন রাষ্ট্রপতি রামনাথ কোবিন্দ ও প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। এক টুইট বার্তায় রাষ্ট্রপতি রামনাথ কোবিন্দ  বলেছেন “ইদ মোবারক এবং সকল সহকর্মী নাগরিকদের  জানাই শুভেচ্ছা, বিশেষ করে ভারতে ও বিদেশে বসবাসকারী আমাদের মুসলিম ভাই ও বোনদের । এই সুখী উৎসব আপনাদের পরিবারে আনন্দ নিয়ে আসুক এবং    পারস্পরিক শুভেচ্ছার মধ্য দিয়ে সৌভাতৃ্ত্বের বার্তা নিয়ে আসুক সমাজে এই কামনা করি।"  প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী টুইট বার্তায় বলেছেন “আমার সকল মুসলিম ভাই ওবোনেদের  ঈদ মোবারক। এই দিনে আমাদের সমাজে ঐক্য এবং একত্রীকরণের  বন্ধনকে আরও সুগভীর করে তুলুক এই কামনা করি। দেশের অন্যান্য  অংশে ইদ পালনের ছবি ও খবর এক নজরে , দেখে নেওয়া যাক। ১)অন্ধ্রপ্রদেশে এদিন অন্ধ্রপ্রদেশে ইদের নমাজে দেখা যায় মুখ্য়মন্ত্রী চন্দ্রবাবু নাইডুকে। সেখানের বিয়জওয়াড়ার গান্ধী স্টেডিয়ামে নামাজপাঠের অনুষ্ঠানে অংশ নেন চন্দ্র বাবু নাইডু। ২) উত্তর প্রদেশ ইদ উৎসবে মাতোয়ারা হয়  উত্তর প্রদেশ। সেখানে গোরক্ষপুরে খুশির ইদ পালনের ছবি। ৩)নয়াদিল্লি প্রথা মেনে এদিন নয়াদিল্লির জামা মসজিদে পাঠ করা হয় ইদের নামাজ। অংশ নেন বহু ইসলাম ধর্মাবলম্বী মানুষ। দিল্লির দরগা পাঞ্জা শরিফে নমাজ় পাঠ করেন কেন্দ্রীয় মন্ত্রী মুক্তার আব্বাস নকভি। বলেন, “আমি আশা করি দেশে শান্তি ও ভ্রাতৃত্বের বার্তা নিয়ে আসবে এই ইদ।” ৪) মধ্যপ্রদেশে   মধ্যপ্রদেশে ইদ মধ্যপ্রদেশের বিজেপির মুখ্যমন্ত্রী শিবরাজ সিং চৌহান ও কংগ্রেস নেতা কমল নাথকে ইদ উপলক্ষ্যে আয়োজিত এক অনুষ্ঠানে একই মঞ্চে দেখা যায়। ৫) মুম্বই ইদ উপলক্ষ্যে বৃষ্টি উপেক্ষা করেই মুম্বইয়ের মিনারা মসজিদের সামনে নমাজ় পাঠ করা হয় ৬) পশ্চিমবঙ্গ শনিবার সকালে কলকাতার রেডরোডে চলে সাড়ম্বরে নমাজ পাঠ। সেখানে উপস্থিত হয়ে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় সম্প্রীতির বার্তাও দেন। তিনি বলেন, ভারত সবার দেশ। হিন্দু মুসলিম সব ধর্মের দেশ। এদিন ইদ উপলক্ষে দিনভর নানা অনুষ্ঠান কলকাতা জুড়ে। বিকেলে পার্ক সার্কাস থেকে বেরোয় শোভাযাত্রা।    

  • সদ্য প্রয়াত বিশিষ্ট সাংবাদিক সুজাত বুখারির মুল্যায়ন “কাশ্মীরে টিকে থাকাই সাংবাদিকতার সবচেয়ে বড় চ্যালেঞ্জ”

    Newsbazar, ১৫ই জুন: ইদের মরশুমে কাশ্মীর উপত্যকায়  'রাইজিং কাশ্মীর' পত্রিকার সম্পাদক সুজাত বুখারির জগন্য হত্যাকাণ্ডএ  ক্ষোভে ফুঁসছে সাংবাদিক মহল। দিনে দুপুরে এভাবে সাংবাদিক হত্যা কিছুতেই মেনে নিতে পারছেনা সেখানের স্থানীয় সাংবাদিক মহল। উল্লেখ্য গতকাল শ্রীনগরে প্রেস কলোনিতে তাঁর দফতরের সামনেই সইদ সুজাত বুখারিকে গুলি করে হত্যা করা হয়। প্রাথমিকভাবে মনে করা হয়েছিল এটি বিচ্ছিন্নতাবাদী তথা জঙ্গিদের কার্যকলাপ। গোটা বিষয়টি নিয়ে তদন্তে নেমেছে পুলিশ। পুলিশি তদন্তে সিসিটিভি ফুটেজে ধরা পড়েছে আততায়ীদের ছবি। সেই ছবি প্রকাশ করেছে কাশ্মীর পুলিশ। ফলে খুব শীঘ্রই আততায়ীদের ধরে ফেলা সম্ভব হবে বলে মনে করা হচ্ছে। আততায়ীদের ছবিতে দেখা গিয়েছে,তারা বাইকে চড়ে এই হামলা চালিয়ে পালিয়ে যায়। উল্লেখ্য,রমজানের সময়ে কাশ্মীরে সংঘর্ষ বিরোধীচুক্তি লাগু করার ডাক দিয়েছিল কেন্দ্রেীয় সরকার। কেন্দ্রর এই পদক্ষেপের সমর্থনে ছিলেন বুখারি। আর সেজন্যই তিনি বিচ্ছিন্নতাবাদীদের রোষের মুখে পড়েন বলে দাবি বহু মহলের। সাংবাদিক বুখারির মৃত্যুতে শোক জানিয়েছেন কাশ্মীরের রাজনৈতিক নেতারা। শোক প্রকাশ করেন কংগ্রেস নেতা রাহুল গান্ধী থেকে কাশ্মীরের মুখ্যমন্ত্রী মেহবুবা মুফতি ও বিজেপি নেতৃবৃন্দ।  তিন মাস আগেই 'রাইজিং কাশ্মীর' পত্রিকায় এক সম্পাদকীয়তে সুজাত বুখারি লিখেছিলেন, 'টিকে থাকাই কাশ্মীরে সাংবাদিকতার প্রথম চ্যালেঞ্জ'। তিন তিনবার তাঁকে হত্যার চেষ্টা হয়েছিল, তিনি টিকে ছিলেন। কিন্তু বৃহস্পতিবার আর পারলেন না। জঙ্গিদের গুলিতে মরতে হয়েছে ঠিকই, কিন্তু রয়ে গিয়েছে রমজানে সংঘর্ষ বিরতি থেকে আফস্পা প্রত্যাহার -কাশ্মীরের বিভিন্ন ইস্যু নিয়ে তাঁর বলিষ্ঠ মতামত, লেখা। কাশ্মীরের বলিষ্ঠ কন্ঠস্বর হিসেবেই পরিচিত ছিলেন বুখারি। তাঁর প্রত্যেকটি সম্পাদকীয় কাশ্মীরের প্রেক্ষিতে অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ বলে মনে করা হয়। কোনও এক পক্ষের হয়ে মত প্রকাশ নয়, তাঁর ভাবনা চিন্তায় ভারসাম্য রক্ষার নজির ছিল। কাশ্মীরে রমজান মাসে সন্ত্রাস বিরোধী অভিযান বন্ধ রেখেছিল নরেন্দ্র মোদীর সরকার।  তিনি লেখেন, 'গত কয়েক বছরের মধ্যে যেসব নাগরিক জঙ্গিদলে নাম লিখিয়েছেন, আর যাঁরা সেনা-জঙ্গি সংঘর্ষের শিকার - সবার মৃত্যুই সমান কষ্টদায়ক'। কাশ্মীরিদের দীর্ঘদিনের দাবি আফস্পা প্রত্যাহারের পক্ষেও তিনি সওয়াল করেন কলামে। তিনি সাফ জানান, শুধু নাগরিক অধিকার কেড়ে নেয় বলেই এই আইনকে কাশ্মীরিরা ঘৃণা করেন তা নয়। এই আইনের বলে নিরাপত্তার নামে সশস্ত্র বাহিনী অবাধ ক্ষমতা ভোগ করে। একইভাবে পাক সেনার যুদ্ধবিরতি লঙ্ঘন করে গোলা নিক্ষেপ করার ঘটনারও তীব্র সমালোচক ছিলেন সুজাত বুখারি। তাঁর মতে এতে দুদেশই সমানভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হবে।  

  • কাশ্মীরের তরুন সেনা জওয়ান আওরেঙ্গজেবের ইদের ছুটিতে বাড়ী ফেরা হল না।

    Newsbazar, ১৫ই জুন:  কাশ্মীরের পুলওয়ামা জেলা থেকে অপহৃত সেনা  জওয়ান আওরেঙ্গজেব ইদের ছুটিতে  বাড়ী ফিরছিলেন কিন্তু তা আর হল না । বৃহস্পতিবার ভোরে বাড়ি ফেরার সময়ই পুলওয়ামার কালামপুরা এলাকা থেকে মাথায় বন্দুক ঠেকিয়ে তাঁকে অপহরণ করেছিল  জঙ্গিরা। ওইদিনই পুলিশ তাঁর গুলিবিদ্ধ নিথর দেহ উদ্ধার করেছে । উল্লেকযোগ্য আওরেঙ্গজেব এর আগে কুখ্যাত হিজবুল কমান্ডার সমীর টাইগারের এনকাউন্টারে জড়িত ছিলেন। বৃহস্পতিবারই পুলিশের এক তদন্তকারী দল কালামপুরা থেকে দশ কিলোমিটার দূরে গুস্সু গ্রামে তাঁর মৃতদেহ আবিষ্কার করে। পুলিশ সূত্রে জানা গেছে  জওয়ান আওরেঙ্গজেবের ঘাড়ে ও মাথায় গুলি করা হয়েছে । তারা আরও জানিয়েছে আওরেঙ্গজেব ৪ জম্মু ও কাশঅমীর লাইট ইনফ্যান্ট্রির সদস্য ছিলেন। শোপিয়ান জেলার শাদিমার্গ এলাকায় ৪৪ রাষ্ট্রীয় রাইফেলস-এর শিবিরে নিযুক্ত ছিলেন তিনি। জানা গিয়েছে ইদের ছুটি উপলক্ষ্যে বাড়ি রাজৌরির বাড়িতে যাচ্ছিলেন তিনি। তাঁর সহকর্মীরা তাঁকে সকাল ৯টা নাগাদ একটি স্থানীয় গাড়িতে তুলে দেয়। গাড়িটিতে তাঁর শোপিয়ান অবধি যাওয়ার কথা ছিল। কিন্তু কালামপুরার কাছে পথ আটকায় জঙ্গিরা এবং তুলে নিয়ে যায় ওই জওয়ানকে। তাঁর মৃত্যুতে শোক প্রকাশ করেছেন ন্যাশনাল কনফারেন্স নেতা ওমর আবদুল্লা। বৃহস্পতিবার সন্ধ্যাতেই এক ইফতার পার্টিতে যোগ দিতে যাওয়ার সময়, জঙ্গিদের গুলিতে খুন হন রাইসিং কাশ্মীর পত্রিকার সম্পাদক সুজাত বুখারি। তারপরই আবার আওরেঙ্গজেবের মৃত্যু সংবাদ আসায় ওমর টুইটারে লেখেন, ' কাশ্মীর বাসীর পক্ষে আজ একটি কালো দিন। প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী  ও স্বরাস্ট্র মন্ত্রী এক শোকবারতায় কাশ্মীরের তরুন সেনা  জওয়ান আওরেঙ্গজেব-র মৃত্যুতে গভীর শোক প্রকাশ করেছেন এবং তার শোকসন্তপ্ত পরিবারকে সমবেদনা জানিয়েছেন।      

  • ভারতীয় সেনাবাহিনীর এক জওয়ান জম্মু কাশ্মীরের শোপিয়ান জেলা থেকে অপহৃত

    Newsbazar24: ডেস্ক, ১৪ই জুনঃ ভারতীয় সেনাবাহিনীর এক জওয়ানকে জম্মু কাশ্মীরের শোপিয়ান জেলা থেকে অপহরণ করার খবর পাওয়া গেছে। অপহৃত ঐ জওয়ান-র নাম আওরেঙ্গজেব তার বাড়ি কাশ্মীরেরই পুঞ্চ জেলায়   তিনি কুখ্যাত হিজবুল সমীর টাইগার-এর এনকাউন্টারের ঘটনায় জড়িত ছিলেন বলে জানা গিয়েছে।   সূত্র থেকে জানা যায় যে , বুধবার ডিউটি শেষে বাসে করে ওই জওয়ান বাড়ি ফিরছিলেন। মাঝপথে সশস্ত্র জঙ্গিরা  মাথায় বন্দুক ঠেকিয়ে তাঁকে বাস থেকেই তুলে নিয়ে যায়। ঘটনার তদন্তে  নেমেছে জম্মু কাশ্মীরের পুলিশ। জানা গিয়েছে আওরেঙ্গজেব ২৩ রাষ্ট্রীয় রাইফেলস-এর সদস্য ছিলেন। তাদেরও খবর দিয়েছে পুলিশ।  বেশ কিছুদিন আগেই পুলওয়ামা জেলার দ্রাবগামে যৌথবাহিনীর সঙ্গে সংঘর্ষে নিহত  হয়েছিল হিজবুল মুজাহিদীন কমান্ডার সমীর ভাট ওরফে সমীর টাইগার এবং  আকিব খানও। জম্মু কাশ্মীরে পুলিশ ও সেনাকে লক্ষ্য করে পাথর ছোঁড়ার ঘটনায় অনেকবার নাম জড়িয়েছে সমীর ভাটের। ২০১৬-র মার্চে তাঁকে একবার গ্রেফতারও করা হয়েছিল। কিন্তু দিনকয়েকের মধ্যে মুক্তিও দেওয়া হয়। এর কিছুদিন পরে  পরেই সে হিজবুল মুজাহিদীন-এ যোগ দেয় বলে জানা যায় । নিরাপত্তা বাহিনী জানিয়েছে তারপর থেকেই তার নাম ছিল এ প্লাস প্লাস স্তরের জঙ্গির তালিকায়। কেন্দ্রীয় সরকার কাশ্মীরে জঙ্গিদের বিরুদ্ধে সেনা ও যৌথবাহিনীকে সর্বাত্মক পদক্ষেপ নেওয়ার অনুমতি দেওয়ার পর সেনাবাহিনীর উল্লেখযোগ্য সাফল্য ছিল  সমীর টাইগারের এনকাউন্টারে মৃত্যু। ওই এনকাউন্টারে সক্রিয় ভূমিকায় ছিলেন আওরেঙ্গজেব।  সম্ভবত সেই কারণেই তাঁকে অপহরণ করা হয়েছে বলে মনে করছে পুলিশ। তবে এখনও পর্যন্ত কোনও গোষ্ঠী অপহরণের দ্বায়  স্বীকার করেনি। এদিকে উত্তর কাশ্মীরের বন্দিপোড়ার পানার জঙ্গলে বৃহস্পতিবার আরও দুই জঙ্গিকে নিকেশ করেছে সেনাবাহিনী। ওই ঘটনায় এক জওয়ান শহিদও হয়েছেন। গত ৯ জুন ওই এলাকা দিয়ে টহল দেওয়ার সময় সেনাবাহিনীর উপর হামলা চালিয়েছিল এই জঙ্গিরা। সেই থেকে পানামের ঘন জঙ্গলে অভিযান চালাচ্ছিল সেনা।  

  • প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী অটলবিহারী বাজপেয়ী খুব শীঘ্রই সুস্থ হয়ে উঠবেন-ডিরেক্টর এইমস

    Newsbazar, ডেস্ক, ১৩ জুনঃ দিল্লি এইমসের তরফে জানানো হয়েছে প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী অটলবিহারী বাজপেয়ী খুব শীঘ্রই সুস্থ হয়ে উঠবেন ।  মূত্রনালির সংক্রমণের কারণে সোমবার সকালে তাঁকে হাসপাতালে ভর্তি করানো হয়েছিল। গত দু-দিনে প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রীর স্বাস্থ্যের উন্নতি হয়েছে। জানিয়েছেন এইমসের ডিরেক্টর। বাজপেয়ীর ব্যক্তিগত চিকিৎসক তথা বর্তমানে দিল্লি এইমসের ডিরেক্টর রণদীপ গুলেরিয়া জানিয়েছেন, গত ৪৮ ঘণ্টায় অটল বিহারীর বাজপেয়ীর স্বাস্থ্যের প্রভূত উন্নতি হয়েছে। কিডনি ফাংশান স্বাভাবিক। প্রস্রাবও হয়েছে স্বাভাবিকের কাছাকাছি। তাঁর সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণের মধ্যে। রক্তচাপ, শ্বাসপ্রশ্বাস, হৃদযন্ত্রের কাজও স্বাভাবিক বলে জানিয়েছেন তিনি। আগামি কয়েকদিনের মধ্যে তিনি পুরোপুরি সুস্থ হয়ে উঠবেন বলে আশাপ্রকাশ করেছেন গুলেরিয়া। তাকে খুব তাড়াতাড়ি বাড়ি পাঠানো সম্ভব হবে বলে মন্তব্য করেছেন তিনি। বর্তমানে বাজপেয়ীর বয়স ৯৩ বছর।  

  • প্রযুক্তির ব্যবহার গুনগতমানের শিক্ষা ও শিক্ষক-শিক্ষিকাদের দক্ষতাবৃদ্ধিতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা নিতে চলেছে

    Newsbazar, ডেস্ক, ৫ই জুনঃ  গতকাল সোমবার কলকাতায় মার্চেন্ট চেম্বার অফ্ কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রি আয়োজিত এক সভায় কেন্দ্রীয় মানব সম্পদ উন্নয়ন মন্ত্রকের অধীন বিদ্যালয় শিক্ষা দপ্তরের সচিব শ্রী অনিল স্বরূপ বলেন  দেশের প্রতিটি শিশুকে গুনগতমানের শিক্ষা প্রদানে সরকার দায়বদ্ধ। এই লক্ষ্যপূরণে প্রযুক্তির ব্যবহার এবং শিক্ষক-শিক্ষিকাদের দক্ষতাবৃদ্ধি প্রশিক্ষণ দেওয়া হচ্ছে।  তিনি আরও বলেন, প্রত্যন্ত অঞ্চলের স্কুল হোক বা শহরের স্কুল, সর্বত্রই প্রযুক্তি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা নিতে চলেছে। সমাজে পরিবর্তন সংক্রান্ত সমস্যাগুলি দূর করার মতো প্রয়োজনীয় ক্ষমতা প্রযুক্তির রয়েছে। আগামী বছর থেকে সিবিএসই পরিচালিত পরীক্ষাগুলিতে প্রযুক্তি ব্যবহারের ফলে ভুল-ভ্রান্তি দূর হবে বলেও তিনি অভিমত প্রকাশ করেন।        তাঁর অভিজ্ঞতার কথা স্মরণ করে শ্রী স্বরূপ বলেন, আইসন্যান্ড থেকে ফিনল্যান্ড পর্যন্ত বিশ্বের সর্বত্রই মানুষ সমাধানের খোঁজ করে। কিন্তু, ভারতে কি হয় তার খোঁজ অনেকেই রাখে না। এই বিষয়টিকে মাথায় রেখেই তিনি সমগ্র ভারত সফরের উদ্যোগ নেন। এর অঙ্গ হিসেবে তিনি এ পর্যন্ত ২৪টি রাজ্য সফর করেছেন। পুনে থেকে গোয়া, কার্গিল থেকে শ্রীনগর, বস্তার থেকে সুকমা গিয়েছেন তিনি। সফরের সময় বিভিন্ন জায়গা থেকে তিনি এমন কিছু অসাধারন সমাধান সূত্রের খোঁজ পেয়েছেন, যা বিশেষভাবে উল্লেখ, স্বীকৃতি ও প্রশংসার দাবী রাখে। তিনি ১১১টি সেরা সমাধান সূত্র একত্রিত করে, সেগুলিকে নিয়ে সাত দিনের এক কর্মশিবিরের আয়োজন করেন। ব্যক্তিগত বুদ্ধিমত্তার এক অসাধারন উদাহরনও তিনি চাক্ষুষ করেছেন। মহারাষ্ট্রের পস্তেপদা অঞ্চলে না আছে বিদ্যুৎ, না আছে কোনও ওয়াই-ফাই। তা সত্ত্বেও সেখানকার শিক্ষক সন্দীপ গোন্ড সেকেন্ড-হ্যান্ড ল্যাপটপ দিয়ে এক ডিজিটাল ক্লাসরুম তৈরি করেছেন। এখন, সেখানকার প্রতিটি শিশুর কাছে ল্যাপটপ রয়েছে। সৌরশক্তির সাহায্যে ঐ ল্যাপটপগুলি চার্জ করা হয়। ৬০ হাজার বিদ্যালয়ের কাছে শিক্ষক সন্দীপ গোল্ডের ঐ উদ্যোগ মডেল বা আদর্শস্বরূপ হয়ে উঠেছে। এমনকি, স্বয়ং রাষ্ট্রপতি তাকে রাষ্ট্রপতি ভবনে ডেকে পাঠিয়ে সম্মান জানিয়েছেন।        লক্ষ্মৌ সফরের সময় তিনি একবার বিদ্যালয়ের মধ্যাহ্নকালীন আহার বা মিড-ডে মিল খেয়ে দেখেন। সেই খাবার এত সুস্বাদু ছিল যে, তিনি সে ব্যাপারে খোঁজ-খবর শুরু করেন। তিনি জানতে পারেন অক্ষয় পাত্র নামে জনৈক ব্যক্তি ঐ খাবর সরবরাহ করে থাকেন। ১৫ লক্ষ শিশুকে ঐ মিড-ডে-মিল সরবরাহ করা হয়। বর্তমানে ৩০ লক্ষ শিশুকে ঐ খাবার সরবরাহ করা হচ্ছে।        ঐ সভায় রামকৃষ্ণ মিশনের পরিচালন পর্ষদের সদস্য স্বামী মুক্তিদানন্দ, বিড়লা হাইস্কুলের ডাইরেক্টর শ্রীমতী মুক্তা নৈম, হেরিটেজ স্কুলের প্রিন্সিপাল শ্রীমতা সীমা সাপরু প্রমুখ উপস্হিত ছিলেন।

  • রাষ্ট্রপতির কাছে প্রাণ ভিক্ষার আবেদন জগত রাই-এর

    news bazar24:বিহারের বৈশালি জেলার রামপুর শ্যামচাঁদ গ্রামে ২০০৬ সালে একটি মোষ চুরির ঘটনা ঘটে। মোষ চুরির অভি‌যোগে মোষের মালিক বিজেন্দ্র মাহাতো প্রতিবেশী জগত রাই, ওয়াজির রাই, অজয় রাইয়ের বিরুদ্ধে অভি‌যোগ আনেন।অভি‌যোগ তুলে নেওয়ার জন্য জগত রাই বিজেন্দ্রকে চাপ দিতে থাকে ।  এরপর জগত রাই এক রাতে বিজেন্দ্রের বাড়িতে আগুন লাগিয়ে দেয়। ঘটনায় মারা ‌যান বিজেন্দ্র মাহাতর ৫ সন্তান ও স্ত্রী। পরে মৃত্যু হয় বিজেন্দ্রও।ঘটনায় স্থানীয় আদালত জগত রাইকে মৃত্যুদণ্ড দেয় স্থানীয় আদালত। হাইকোর্ট পেরিয়ে মামলা গড়ায় সুপ্রিম কোর্টে। ২০১৩ সালে মৃত্যুদণ্ডের রায় বহাল রাখে সুপ্রিম কোর্ট।তার পরেই রাষ্ট্রপতির কাছে প্রাণ ভিক্ষার আবেদন করে জগত রাই। সাত জনকে পুড়িয়ে মারার ঘটনায় মৃত্যদণ্ডপ্রাপ্ত এক ব্যক্তির প্রাণভিক্ষার আবেদন খারিজ করলেন রাষ্ট্রপতি রামনাথ কোবিন্দ। রাষ্ট্রপতি হওয়ার পর এটাই ছিল তাঁর কাছে প্রথম প্রাণভিক্ষার আবেদন। সঙ্গে রাষ্ট্রপতি ভবনের তরফে জানানো হয়েছে, রাষ্ট্রপতির কাছে আর কোনও প্রাণভিক্ষার আবেদন পড়ে নেই।

  • ক্ষেপণাস্ত্র উৎক্ষেপনে ভারতীয় বিজ্ঞানীদের সাফল্য অগ্নি ৫-র সফল উৎক্ষেপনে

    Newsbazar ডেস্ক, ৩রা জুনঃ ফের ক্ষেপণাস্ত্র উৎক্ষেপনে সাফল্য ভারতের। রবিবার ওড়িষার  উপকূলে সম্পূর্ণ দেশীয় প্রযুক্তিতে তৈরি, পরমাণু অস্ত্র বহনক্ষম, ৫০০০ কিলোমিটার পাল্লার ক্ষেপণাস্ত্র অগ্নি - ৫ এর সফল পরীক্ষামূলক উৎক্ষেপণ করেছে। প্রতিরক্ষা মন্ত্রক থেকে জানানো হয়েছে ,বঙ্গোপসাগরের ডঃ আব্দুল কালাম দ্বীপে ইন্টিগ্রেটেড টেস্ট রেঞ্জ (আইটিআর) - এর ৪ নম্বর লঞ্চ প্যাড থেকে, সকাল ৯টা বাজে ৪৮ মিনিটে, একটি মোবাইল লঞ্চারের সাহায্যে এই ভূমি থেকে ভূমি ক্ষেপণাস্ত্রটি নিক্ষেপ করা হয়। এর আগে এই অত্যাধুনিক ক্ষেপণাস্ত্রটির আরও পাঁচটি ট্রায়াল হয়েছে। এ নিয়ে ষষ্ঠবার এই ক্ষেপণাস্ত্র উৎক্ষিপ্ত হল। এদিনের ট্রায়ালে ক্ষেপণাস্ত্রটি তার পাল্লা ক্ষমতার সম্পূর্ণ দূরত্বটাই সফলভাবে পার করেছে। প্রতিরক্ষা সূত্র আরও  জানায়, 'ক্ষেপণাস্ত্রটির ফ্লাইট পারফরম্যান্স ট্র্যাক করা হয়েছে, এবং  একাধিক রেডার, ট্র্যাকিং যন্ত্র এবং অবজারভেশন স্টেশনগুলির গুলির মাধ্যমে এর সম্পূর্ণ অভিযানটি পর্যবেক্ষণ করা হয়েছে।  অগ্নি সিরিজের অন্যান্য ক্ষেপণাস্ত্রের থেকে,  অনেক উন্নত প্রযুক্তি অগ্নি - ৫'এ ব্যবহার করা হয়েছে। অগ্নি - ৫ এর সঙ্গে এই ট্রায়ালে দেশীয় সেই প্রযুক্তিগুলিরও পরীক্ষা সফল হয়েছে। বিভিন্ন অত্যাধুনিক  প্রযুক্তিগুলি কাজে লাগিয়ে ক্ষেপণাস্ত্রটি এমনভাবে প্রোগ্রাম করা হয়েছে যে এটি তার গতিপথের শীর্ষে পৌঁছানোর পরে, এর মুখ পৃথিবীর দিকে ঘুরে যায়। এরপর পৃথিবীর মহাকর্ষ বলের টানে গতি বাড়িয়ে নেমে আসে নির্ধারিত লক্ষ্যের দিকে। ক্ষেপণাস্ত্র পৃথিবীর বায়ুমণ্ডলে প্রবেশ করার পর বাতাসের সঙ্গে সংঘর্ষে এর তাপমাত্রা ৪০০০ ডিগ্রী সেলসিয়াসের উপরে উঠে যায়। এই তাপমাত্রা বৃদ্ধি মোকাবিলা করার জন্য দেশীয় প্রযুক্তিতে বিকশিত কার্বন-কার্বন কম্পোজি'এর উত্তাপ-ঢাল দেওয়া হয়েচে। যেটি নিজে পুড়ে ভেতরের তাপমাত্রাকে ৫০ ডিগ্রী সেলসিয়াস নীচেই বজায় রাখে। এরপর এর উন্নত নেভিগেশন সিস্টেমের মাধ্যমে ক্ষেপণাস্ত্রটি নির্দিষ্ট লক্ষ্যে আঘাত হানে। অগ্নি - ৫ এর প্রথম পরীক্ষাটি হয়েছিল ২০১২ সালের ১৯ এপ্রিল। তারপর ২০১৩-র ১৫ সেপ্টেম্বর হয় দ্বিতীয় পরীক্ষা, ২০১৫ -র ৩১ জানুয়ারি তৃতীয়, ২০১৬-র ২6 শে ডিসেম্বর চতুর্থ ও শেষ পরীক্ষাটি হয়েছিল এবছরেরই ১৮ জানুয়ারি। আজকের মতো এর আগের পাঁচবারের পরীক্ষাও সফল হয়েছিল। এরপর অগ্নি - ৫ ক্ষেপণাস্ত্র তুলে দেওয়া হবে স্ট্র্যাটেজিক ফোর্সেস কমান্ড বা এসএফসির হাতে।  

  • যা বলার বলব নাগপুরেই ঃ আরএসএস-এর সমাবর্তনে যোগদান বিতর্কে মুখ খুললেন প্রাক্তন রাষ্ট্রপতি

    ডেস্ক ঃ ১ সপ্তাহের মৌনতার পর প্রণব জানালেন যা বলার বলব নাগপুরেই। রবিবার একটি সংবাদপত্রে প্রকাশিত খবর অনুসারে প্রণববাবু জানিয়েছেন, যা বলার আমি নাগপুরেই বলব। এব্যাপারে আমাকে বহু মানুষ চিঠি লিখেছেন। বন্ধুদের ফোনও পেয়েছি। কিন্তু কারও প্রশ্নেরই জবাব দিইনি। ৭ জুন সবাই জবাব পাবেন। ৭জুন নাগপুরে আরএসএসের সদর দফতরে সংগঠনের সমাবর্তন অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখবেন প্রাক্তন রাষ্ট্রপতি প্রণব মুখোপাধ্যায়। গত সপ্তাহে এই খবর প্রকাশ্যে আসতেই বিতর্ক শুরু হয়। প্রণববাবু আমন্ত্রণ গ্রহণ করেছেন জেনে তাঁর সিদ্ধান্তের সমালোচনা করেন অনেকে। চিঠি লিখে প্রণববাবুকে ওই অনুষ্ঠানে না যেতে অনুরোধ করেন কংগ্রেসের বেশ কয়েকজন নেতা। সেই তালিকায় রয়েছে প্রাক্তন মন্ত্রী জয়রাম রমেশের নামও। 

  • ফের নিপা সংক্রমণ, মৃতের সখ্যা ১৬ ছড়াল

    news bazar24:ভয়ঙ্কর নিপা ভাইরাসের সংক্রমণে আরো ২ জনের মৃত্যু হল হল কেরলে। এই নিয়ে সেখানে মৃতের সংখ্যা দাঁড়াল ১৬। কলকাতাতেও কেরলের এক জওয়ানের মৃত্যু হয়েছে কয়েকদিন আগে। মনে করা হচ্ছে নিপা ভাইরাসের সংক্রমণেই তাঁর মৃত্যু হয়। তবে এখনও পর্যন্ত সংশ্লিষ্ট পরীক্ষার রিপোর্ট আসেনি। কেরলের স্বাস্থমন্ত্রী কেকে শৈলজা জানিয়েছেন, কোজিকোডে নতুন করে এই ভাইরাস আক্রান্ত হয়ে রাসিন নামে এক যুবকের মৃত্যু হয়েছে। বৃহস্পতিবার নিপা ভাইরাসে আক্রন্ত হয়ে মৃত্যু হয় এক আইনজীবীর। তিনি বলেন, পরিস্থিতি মোকাবিলায় ইতিমধ্যেই কাজ শুরু করেছে সরকার। আগামী ৫ জুন পর্যন্ত প্রাথমিকভাবে বন্ধ রাখা হয়েছে স্কুল-কলেজ। এই রোগের সংক্রমণে ভর্তি বা যাদের মধ্যে এই ভাইরাস লক্ষণ দেখা গেছে, তাদের আলাদা করার ব্যবস্থা করা হচ্ছে। শুধু তাই নয়, হাসপাতালগুলিতে চিকিৎসার জন্য পর্যাপ্ত ব্যবস্থা রাখা হয়েছে। এদিকে, নিপা ভাইরাস আতঙ্কে এবার নতুন ব্যবস্থা নিল দক্ষিণ-পূর্ব রেল। দূরপাল্লার ট্রেনগুলিতে বন্ধ করা হল ফল বিক্রি। প্রিমিয়াম ট্রেনগুলিতেও খাবারের সঙ্গে আপাতত ফল দেওয়া বন্ধ করা হল। শুধু কেরলেই নয়, নিপা ভাইরাসের আতঙ্ক ছড়িয়েছে এরাজ্যেও। বাজারে লিচু, কালোজাম বিক্রি প্রায় বন্ধ। কলকাতার বেলেঘাটা আইডি হাসপাতালে বাড়ছে নিপা সংক্রমণের উপসর্গ নিয়ে ভর্তি হওয়া রোগীর সংখ্যা। পূর্ব মেদিনীপুরের ঘাটালের বাসিন্দা উত্তম ভৌমিক। বছর ছত্রিশের উত্তম মঙ্গলবারই কেরল থেকে ফিরেছিলেন। তারপর ধূম জ্বর। রক্তে প্লেটলেটের সংখ্যা কমছে। ঝুঁকি না নিয়ে বেলেঘাটা আইডিতে ভর্তি করা হয় উত্তমকে। নিপা সন্দেহে আইসোলেশন ওয়ার্ডেই রাখা হয়েছে তাঁকে।

  • ২০১৯-র লোকসভা নির্বাচন এগিয়ে নিয়ে আনার পরিকল্পনা নেই - ওমপ্রকাশ রাওয়াত

    Newsbazar, ডেস্ক, ২রা জুনঃ ভারতের মুখ্য নির্বাচন কমিশনার ওমপ্রকাশ রাওয়াত আজ কলকাতায় এসে বলেন ২০১৯-র লোকসভা  ভোট এগিয়ে আনার কোনও প্রস্তাব তাদের কাছে নেই। পাশাপাশি তিনি অতি সম্প্রতি ঘটে যাওয়া পঞ্চায়েত ভোট পরিচালনা নিয়ে রাজ্য নির্বাচন কমিশনের সমালোচনা করলেন ।  মুখ্য নির্বাচন কমিশনার ওমপ্রকাশ রাওয়াত রাজ্যে পঞ্চায়েত ভোট পরিচালনা নিয়ে রাজ্য নির্বাচন কমিশনকে সরাসরি  সমালোচনা  না করে তিনি কাজের তুলনা করেন ।  তিনি বলেন, রাজ্যের নির্বাচন কমিশনও একটি সাংবিধানিক সংস্থা। তাকে তার দায় দায়িত্ব সঠিকভাবে প্রতিপালন  করতে হবে। তিনি সম্প্রতি রাজ্যে মহেশতলা বিধান  সভার উপনির্বাচন সুষ্ঠুভাবে সম্পন্ন হওয়ায় নির্বাচন দপ্তরের  সকল আধিকারিকদের ও কর্মীদের ধন্যবাদ  জানান। কথাপ্রসঙ্গে তিনি বলেন নির্বাচন দপ্তরের কাজ হল মানুষকে সুষ্ঠূভাবে তাদের ভোটাধিকার প্রয়োগ করতে দেওয়া। পাশাপশি তিনি জন্সধারনের কাছে আরও আবেদন জানান যে , ২০১৯-এর নির্বাচনে কোনও অব্যবস্থা নজরে আসলে জনগণ সেই ছবি তুলে নির্বাচন কমিশনে পাঠাতেও পারবেন। এছাড়াও তিনি জানান নির্বাচন কমিশনের ইভিএম-র উপর ভরসা রয়েছে এবং আগামীদিনেও থাকবে । নির্বাচনে হারলেই ইভিএম নিয়ে অভিযোগ ওঠে বলে মন্তব্য করেছেন তিনি। কর্ণাটক বিধানসভার নির্বাচন এবং কয়েকটি রাজ্যে উপনির্বাচনের ফল প্রকাশের পর বিভিন্ন মহল থেকে লোকসভা নির্বাচন এগিয়ে আনার কথা শোনা যাচ্ছিল। এদিন কলকাতায় মুখ্য নির্বাচন কমিশনার জানান, বিষয়টি নিয়ে কোনও প্রস্তাব নেই। উল্লেখ্য ১৯৭৭ ব্যাচের এই আইএএস অফিসার গত জানুয়ারী মাসে তিনি দেশের মুখ্য নির্বাচন কমিশনার পদে শপথ নিয়েছিলেন        

  • ২০১৯এ লোকসভা নির্বাচনের প্রাক্কালে লোকসভা উপনির্বাচনগুলিতে গেরূয়া শিবিরে ধাক্কা।

    Newsbazar ডেস্ক,৩১শে মেঃ ২০১৯এ লোকসভা নির্বাচনের প্রাক্কালে এই বছর অর্থাৎ ২০১৮তে বিভিন্ন  রাজ্যের বিধানসভা উপনির্বাচনের পাশাপাশি লোকসভা উপনির্বাচনেও গেরূয়া শিবিরের পরাজয়। সম্প্রতি  কর্ণাটকের আরআর নগরের বিধানসভা উপনির্বাচনেও কংগ্রেসের কাছে পরাজিত হয় বিজেপি। এদিকে, লোকসভা উপনির্বাচনেও একই হাল একমাত্র মহারাষ্ট্রের পলঘর ছাড়া ।বাকি ৩টি  লোকসভা উপনির্বাচনেও হার বিজেপি। মহারাষ্ট্রের ভান্ডারা-গোন্ডিয়া কেন্দ্র থেকে জয়লাভ করে এনসিপি।  বিজেপির গড় উত্তরপ্রদেশের কৈরানাতে বিজেপি-দূর্গ ধূলিস্যাৎ করে আসন জিতে নেয় আরএলডি। সেখানে আরএলডি প্রার্থী তবস্সুম হাসান ৫৫ হাজার ভোটে জয়লাভ করেন । অন্যদিকে, মহারাষ্ট্রের  ভাণ্ডারা-গোন্ডিয়া কেন্দ্রে জয়লাভ করে  শরদ পাওয়ারের ন্যাশানালিষ্ট  কংগ্রেস পার্টি (এনসিপি)। এদিকে নাগাল্যান্ডে বিজেপি জোট সঙ্গী এনডিপিপি যদিও পায়ের তলার মাটি ধরে রাখতে সক্ষম হয়। প্রথম থেকেই এরা এগিয়ে ছিল প্রতিদ্বন্দ্বি এনপিপি-র থেকে। তবে , মহারাষ্ট্রের পলঘর কেন্দ্র থেকে লোকসভা উপনির্বাচনে ২৯৫৭২ ভোটে জয়লাভ করে বিজেপি।  উল্লেখ্য, এদিন বিধানসভা উপনির্বাচনেও বেশ কোণঠাসা হয়ে পড়ে বিজেপি। কংগ্রেস সহ একাধিক বিজেপি বিরোধী আঞ্চলিক দল একের পর একআসন দখল করতে থাকে। অন্যদিকে, কর্ণাটকের আরআর নগর বিধানসভা নির্বাচনেও বিজেপিকে হারিয়ে এগিয়ে যায় কংগ্রেস। মমতার গড়ে মহেশতলা কেন্দ্র যেমন তৃণমূলের দখলেই থেকে যায়, তেমনই পঞ্জাবেও কংগ্রেস দখল করে রাখে শাহকোট কেন্দ্রকে। পাল্টা উত্তরপ্রদেশের নূরপুর কেন্দ্রটি হাতছাড়া হয়েছে বিজেপির। ফলে সবমিলিয়ে আগামীতে লোকসভা নির্বাচনের প্রাক্কালে ২০১৮তে  রাজনৈতিকভাবে বিরাট ধাক্কা খেল বিজেপি। গেরূয়া শিবির এর থেকে কি  শিক্ষা নেয় তার দিকে তাকিয়ে আছে ভারতবর্ষের আপামোর জনসাধারণ।     

  • লে-শ্রীনগরের জাতীয় সড়কে পাহাড় ধসে রাস্তা বন্ধ,আটক এই রাজ্যের বহু পর্যটক।

    Newsbazar ডেস্ক, ৩০ মেঃ  লে-শ্রীনগরের জাতীয় সড়কের রাস্তায় দ্রাসের কাছে পাহাড় ধসে রাস্তা বন্ধ। মঙ্গলবার দুপুর থেকে বন্ধ রয়েছে যান চলাচল। সেখানে আটকে পড়েছে বেশ কয়েক হাজার গাড়ি। আটকে পড়েছেন বহু পর্যটক । খাবার জল ঠিকভাবে না পাওয়ায় এবং এটিএম বন্ধ থাকায় বিপাকে পড়েছেন পর্যটকরা। অন্য রাজ্যের পর্যটকদের সঙ্গে সেখানে বহু  বাঙালি পর্যটক আটকে পড়েছেন বলে জানা গিয়েছে। স্থানীয় প্রশাসনকে জানানো সত্ত্বেও এখন পর্যন্ত কোনও রকমের সাহায্য পাওয়া যায়নি বলেই অভিযোগ পর্যটকদের। লে থেকে কাশ্মীরে যাওয়ার পথে ধস। মঙ্গলবার দুপুর থেকেই  শ্রীনগর-লে জাতীয় সড়ক ধসের কারণে বন্ধ। কাশ্মীর পুলিশ সুত্রে জানা যায়  কাশ্মীরের সোনমার্গ ও দ্রাসের মাঝে সাইতান নালায় এই ধস নামে । অন্যদিকে শ্রীনগর জম্মু ঐতিহাসিক মুঘল রোডে ট্রাফিকের কারণে শ্লথ। ধসের কারণে আটকে পড়েছেন পশ্চিমবঙ্গ-সহ বিভিন্ন রাজ্যের বহু পর্যটক। এই রাজ্যেরই  বেশ কয়েকহাজার পর্যটক আটকে  পড়েছেন বলে জানা গিয়েছে। পর্যটকদের মধ্যে অনেকেই কোন্নগর কিংবা সোদপুরের বাসিন্দা বলে জানা গিয়েছে। পর্যটকদের বেশিরভাগই মঙ্গলবার সকাল থেকে শ্রীনগরের পথে রওনা দিয়েছিলেন। কিন্তু দুপুর দুটো নাগাদ দ্রাসের কাছে গিয়ে আটকে পড়েন। পর্যটকদের কাছ থেকে জানা যায় , সেখানে প্রথমের দিকে এক লিটার জলের বোতলের দাম ৪০ থেকে ৫০ টাকা। আর হাফ পাউন্ড রুটি মিলছে ২০ টাকায়। পরে তাও পাওয়া  যায়নি। ২০০০ টাকার হোটেল ভাড়া পৌঁছে গিয়েছে ১০ হাজারে। এটিএম বন্ধ থাকায় বিপাকে পড়েছেন পর্যটকরা। এলাকা দুর্গম হওয়ায় পর্যটকদের কাছে পৌঁছনো যায়নি বলে সাফাই দেওয়া হয়েছে প্রশাসনের তরফে। প্রশাসন সূত্রে জানা গিয়েছে, প্রবল ধস নামার পরেই বর্ডার রোড অর্গানাইজেশনের তরফ থেকে কাজ শুরু করা হয়েছে। জরুরী ভিত্তিতে রাস্তা পরিস্কারের  কাজ চলছে। রাস্তা পরিষ্কার হয়ে গেলেই গাড়ি চালানোর ব্যাপারে সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে জানা গিয়েছে।   পর্যটকরা ২৪ ঘণ্টার বেশি সময় ধরে আটকে রয়েছেন, এই খবর পাওয়ার পরেই মুখ্যমন্ত্রী রাজ্যের আধিকারিকদের নির্দেশ দেন, কাশ্মীর প্রশাসনের সঙ্গে কথা বলার জন্য। রাজ্যের পর্যটকদের সবরকমের সাহায্য করার জন্য নির্দেশ দিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী। পাশাপাশি রাজ্য সরকারের তরফে সেনাবাহিনীর সঙ্গেও কথা বলা হয়। কেননা এলাকা দুর্গম। যানবাহনের জন্য ষেমন দ্বিতীয় পথ নেই, পর্যটকদের কাছে অমিল জল, খাবার।          

  • রাজ্যসভার ডেপুটি চেয়ারম্যান পদের নির্বাচনে তৃণমূল প্রার্থী দিতে চলেছে।

    Newsbazar ডেস্ক, ৩০ শে মেঃ রাজ্যসভার ডেপুটি চেয়ারম্যান পদে এবার প্রতিদ্বন্দ্বিতা করতে চলেছে বিজেপি বিরোধী জোট। এব্যাপারে মূল উদ্যোক্তা তৃণমূল কংগ্রেস তারা বিজেপিকে চ্যালেঞ্জের মুখে  দাঁড় করাতে চাইছে। পাশাপাশি তাদের লক্ষ ২০১৯-র লোকসভা নির্বাচনে বিজেপি-বিরোধী ঐক্যকে চূড়ান্ত রুপ দেওয়া।    সূত্রে জানা যায় যে ইতিমধ্যে তার  তিনজনের নাম স্থির করেছে। তাঁদের মধ্যে থেকেই একজনকে প্রার্থী করা হবে। তবে তার আগে তারা কংগ্রেসের সঙ্গে আলোচনায় বসতে চাইছে। রাজ্যসভার ডেপুটি চেয়ারম্যানে পি জে কুরিয়েনের মেয়াদ শেষ হচ্ছে ৩০ জুন। তার মধ্যেই ডেপুটি চেয়ারম্যান নির্বাচন করতে হবে। রাজ্যসভায় বর্তমানে প্রায় সমান সমান অবস্থা। কিন্তু এনডিএ শরিকদের মধ্যে দ্বিধা দ্বন্দ রয়েছে। সেই সুযোগ কাজে লাগিয়ে বিজেপিকে ঝটকা দিতে চাইছে বিরোধীরা। তৃণমূল রাজ্যসভার ডেপুটি চেয়ারম্যান পদে প্রার্থী দিতে চেয়েছে । তাতে প্রাথমিকভাবে রাজী  ছিল কংগ্রেস-সহ বিজেপি বিরোধী সমস্ত দলই। আর এই লড়াইয়ে বিজেপিকে চাপে ফেলতে সংখ্যার দিকে তাকিয়ে আছে তারা  এই মর্মে সাংসদ সুখেন্দুশেখর রায় থেকে শুরু করে ডেরেক ওব্রায়ান ও মানস ভুঁইয়ার নামও শোনা যাচ্ছে। তবে এই রাজ্যসভার ডেপুটি চেয়ারম্যান পদে প্রার্থীর লড়াইয়ে এগিয়ে রয়েছেন সুখেন্দুশেখর রায়ই। কংগ্রেসের সঙ্গে আলোচনা করেই নাম চূড়ান্ত করতে উদ্যোগী তৃণমূল।  রাজ্যসভার ভিতরে জোটের ঐক্য অটুট রেখে  বিজেপিকে জোর ধাক্কা দেওয়াই  লক্ষ্য বিরোধীদের। ২৪৫ জন সদস্যের রাজ্যসভায় ডেপুটি চেয়ারম্যান পদে জিততে গেলে ন্যূনতম ১২২টি ভোট পেতে হবে। এই অবস্থায় বিরোধীদের সম্মিলিত ভোট ১১৭। অর্থাৎ এখনও অন্তত পাঁচটি ভোট লাগবে রাজ্যসভায় জিততে গেলে। আর তা সম্ভব তেলেগু দেশম পার্টি অর্থাৎ চন্দ্রবাবু নাইডুর দলের ৬টি ভোট পেলে। তৃণমূল ভাবছে  বর্তমান পরিস্থিতিতে এটা সম্ভব। কিন্তু রাজনৈতিক মহলের অনুমান চেয়ারম্যান নির্বাচনের ক্ষেত্রে এই বিরোধী জোট ঐক্যবদ্ব থাকবে কি কারন ইতিমধ্যে কর্ণাটকে মন্ত্রীসভা নিয়ে দ্বন্দ শুরু হয়েছে।    

  • কেন্দ্রীয় সরকারের বিদেশ মন্ত্রকের ৪বছরের সাফল্যের খতিয়ান।

    Newsbazar ডেস্ক,২৯শে মেঃ কেন্দ্রীয়  সরকারের বিদেশ মন্ত্রকের পক্ষ থেকে বিগত ৪বছরের সাফল্যের খতিয়ান তুলে ধরা হয়েছে তাতে বলা  হয়েছে বিগত চার বছরের শাসনকালে বিদেশমন্ত্রক একাধিক চ্যালেঞ্জের  সম্মুখীন হয়েছেন। সব থেকে বড় চ্যালেঞ্জ ছিল যুদ্ধ বিধ্বস্ত এলাকা থেকে ভারতীয়দের দেশে ফিরিয়ে আনা। সুষমা স্বরাজের অধীন বিদেশমন্ত্রক প্রায় ১০ হাজার ভারতীয়কে দেশে ফেরত আনা হয়েছে । এছাড়াও ডোকলাম সমস্যার সমাধানেও উল্লেখযোগ্য পদক্ষেপ নিয়েছিল বিদেশমন্ত্রক। বিদেশ মন্ত্রী সুষমা স্বরাজ বলেছেন, ডোকলামে স্থিতাবস্থার কোনও পরিবর্তন হয়নি। চিনে কৈলাস-মানস সরোবরের পূণ্যার্থীদের পবিত্র স্নান নিয়ে অভিযোগ প্রসঙ্গে তিনি জানান অভিযোগটি সঠিক নয়, লেকে পবিত্র স্নানের জন্য নির্দিষ্ট স্থান রয়েছে এবং সেটি বজায়  থাকবে। ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী ও চিনের প্রেসিডেন্টের মধ্যে আলোচনায় দুদেশের মধ্যে বিশ্বাসযোগ্যতা জোরদার হয়েছে। যুদ্ধ ছাড়াই আলোচনা ও কূটনীতির মাধ্যমে সমস্যার সমাধান হয়েছে। বিশ্বের বিভিন্ন দেশ ভারতের এই পদক্ষেপকে সমর্থন জানিয়েছে। বিদেশে সংকটে পড়া ভারতীয়দের ফেরত আনার ঘটনাবলি ২০১৪ সালে ইউক্রেন থেকে ১১০০, লিবিয়া থেকে ৩৭৫০ এবং ইরাক থেকে ৭২০০ জনকে ফিরিয়ে আনা হয় ২০১৫ সালে ইয়েমেন থেকে ৪৭৪৮ জন ২০১৬-তে দক্ষিণ সুদান থেকে ১৫৩ জন ২০১৬ তে শ্রম সমস্যার কারণে সৌদি আরব থেকে ১৫০০ জন ভারতীয়কে দেশে ফেরানো হয় । এছাড়াও, ফাদার অ্যালেক্স প্রেম কুমার এবং যুডিথ ডিসুজাকে আফগানিস্তান থেকে মুক্ত করা হয়। ইয়েমেন থেকে উদ্ধার করা হয় কেরলের বাসিন্দা সিস্টার স্যালিকে। সৈয়দ আসিফ আলি নিজামি এবং তার ভাইপো নিজাম আলি নিজামীকে পাকিস্তান থেকে ফেরত আনা হয়েছে। ই-ভিসার সুবিধা দেওয়া হয়েছে ১৮০-র বেশি দেশে।  

  • নিপা ভাইরাসের আতঙ্ক মেঘালয়েও

    news bazar24:ইতিমধ্যেই নিপা ভাইরাসের কবলে পড়ে ১৪ জনের মৃত্যু হয়েছে কেরলে। নিপা ভাইরাসের আতঙ্ক মেঘালয়েও। সন্দেহজনক অসুস্থতায় ইস্ট গারো হিলস জেলার বহু মানুষকে উইলিয়ম নগর সিভিল হাসপাতালে ভর্তি করানো হয়েছে। উইলিয়ম নগরের চিকিৎসক বাসন্তি আর সাংমা জানিয়েছেন, রোগীদের প্রায় সবাই লিচু খাওয়ার পর অসুস্থ হয়ে পড়েছেন বলে জানিয়েছেন। তিনি জানিয়েছেন, যদি পরিস্থিতি এরকম চলতে থাকে, তাহলে এক সপ্তাহের মধ্যেই বহু মানুষের মৃত্যু হবে।চিকিৎসকদের তরফে লিচু না খাওয়ার উপদেশ দেওয়া হয়েছে। শিশুদেরও এই ফল না খাওয়ানোর জন্য অনুরোধ করা হয়েছে। পড়শি রাজ্য অসমেও নিপা নিতে সতর্কতা জারি করা হয়েছে।কোঝিকোড়, মালাপ্পুরম, ওয়ানাড এবং কুন্নুর জেলায় বাড়তি সতর্কতা জারি করা হয়েছে।  

  • ২০১৯ লোকসভা ভোটে বিরোধী জোট জিতলেও টিডিপি রাহুল গান্ধীকে প্রধানমন্ত্রী হিসাবে মানবে না।

    Newsbazar ডেস্ক, ২৯ মেঃ রাহুল গান্ধী ভারতবর্ষের বিরোধী জোটের প্রধান মুখ হলেও,তেলুগু দেশম পার্টি তাকে আগামী প্রধানমন্ত্রী  হিসাবে কিছুতেই মানবে না বলে সাফ  জানিয়ে দিল । টিডিপি-র হয়ে  অন্ধ্রপ্রদেশের মন্ত্রী কালাভা শ্রীনিবাসুলু বলেছেন, ২০১৯ লোকসভা ভোটে বিরোধী জোট  জিতলেও টিডিপি রাহুল গান্ধীকে সংযুক্ত  ফ্রন্টের প্রধানমন্ত্রী হিসাবে মেনে নেবে না। টিডিপির তরফে শ্রীনিবাসুলু স্পষ্ট করে জানিয়েছেন, কংগ্রেসের সঙ্গে টিডিপির কোনও জোট হবে না। শ্রীলিবাসুলু  আরও বলেছেন,আগামী ২০১৯ লোকসভা নিরবাচনের পরে  প্রধানমন্ত্রী বিজেপি ও কংগ্রেসের তরফে কেউ হবে না। এব্যাপারে আমরা  একশো শতাংশ নিশ্চিত। যদি  সংযুক্ত ফ্রন্টকে কংগ্রেসের সাহায্য নিতেও হয় তাহলেও রাহুল গান্ধীকে  প্রধানমন্ত্রী করা হবে না।   অথচ দেখা গেছে কর্ণাটকে এইচডি কুমারস্বামীর শপথগ্রহণ অনুষ্ঠানে টিডিপি প্রধান  এন চন্দ্রবাবু নাইড়ু অন্যান্য  আঞ্চলিক নেতাদের সাথে  কংগ্রেসের সঙ্গে একই মঞ্চে দাঁড়িয়ে  বিজেপি  বিরোধিতার বার্তা দেন। সেই সূত্রেই টিডিপি নেতা এই মন্তব্য করেছেন।  আঞ্চলিক দলগুলিই ২০১৯ লোকসভা ভোটের পর সরকার ও প্রধানমন্ত্রী ঠিক করবে বলে টিডিপি দাবি করেছে। কংগ্রেস অন্ধ্রের মানুষের প্রতি অবিচার করেছে এবং সঠিকভাবে অন্ধ্রপ্রদেশ ভাগ করেনি তাই তাদের  সঙ্গ দেওয়ার প্রশ্নই নেই । কংগ্রেসের পর বিজেপি সরকারও অবিচার করেছে। প্রসঙ্গত, অন্ধ্রপ্রদেশ বিশেষ মর্যাদার রাজ্যের দাবিতে কেন্দ্রের জোট সরকার ছেড়ে বেরিয়ে এসেছে। এখন বিরোধী আঞ্চলিক দলগুলির সঙ্গে জোট বেঁধে কেন্দ্রের বিরুদ্ধে আন্দোলনে নামতে চলেছে। ২০১৯ লোকসভা ভোটের আগে তা আরও জোরদার হবে।  

  • ফের জম্মু কাশ্মীরে জঙ্গীর অনুপ্রবেশ আটকাল ভারতীয় সেনাবাহিনী

    news bazar24:  ফের জম্মু কাশ্মীরে জঙ্গীর অনুপ্রবেশ আটকাল ভারতীয় সেনাবাহিনী,ভারত-পাকিস্তান সীমান্তের তাঙধারে সেনার সঙ্গে গুলির লড়াইয়ে এখনও পর্যন্ত ৫ জঙ্গির মৃত্যুর হয়েছে। গোটা এলাকা ঘিরে শুরু হয়েছে তল্লাশি। সীমান্তে গত কয়েকদিন ধরে পাকিস্তানের পক্ষ থেকে অস্ত্র বিরতি চুক্তি লঙ্ঘণ করা হয়েছে। বারবার ভারতীয় সেনা ছাউনি লক্ষ্য করে পাক রেঞ্জার্সরা গুলিবর্ষণ করেই চলেছে।সূত্রে খবর, শনিবার ভোরে সীমান্ত পেরিয়ে ভারতে ঢোকার চেষ্টা করে জঙ্গিরা। তাদেরকে দেখেই রুখে দাঁড়ায় সেনা জওয়ানরা। এরপরই শুরু হয় গুলির লড়াই। শেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত ৫ জঙ্গিকে নিকেশ করেছেন জওয়ানরা। এই পরিস্থিতিতে এখন সীমান্তে বিশেষ নজরদারী চালাচ্ছে সেনাবাহিনী। তবে ঠিক কতজন জঙ্গি অনুপ্রবেশের চেষ্টা করেছিল তা এখনও স্পষ্ট নয় বলে সেনার তরফে জানানো হয়েছে।

  • সব পেট্রোপণ্য জিএসটির আওতায় আনা উচিত বললেন ইন্ডিয়ান অয়েলের চেয়ারম্যান

    news bazar24: পেট্রল-ডিজেলের দাম আকাশ ছুঁয়েছে।এর একটা কারণ কেন্দ্রের শুল্ক ও রাজ্যের ভ্যাট। দুপক্ষের কেউই তাদের শুল্ক কম করতে চাইছে না  মঙ্গলবার কলকাতায় পেট্রলের দাম ছিল ৭৯.৫৩ টাকা প্রতি লিটার। গত ৯ দিনে দেশে পেট্রলের দাম বেড়েছে ২ টাকারও বেশি। এরকম এক অবস্থায় পেট্রোপণ্যের ওপর থেকে কেন্দ্রের শুল্ক কম করার দাবি উঠছে। পাশাপাশি পেট্রল ও ডিজেলে জিএসটি বসানোর দাবি বহু পুরনো। এবার সেই দাবিই তুললেন ইন্ডিয়ান অয়েল করপোরেশনের চেয়ারম্যান।আইওসির চেয়ারম্যান সংবাদ সংস্থা এএনআইকে বলেন, ‘তেলের দাম নিয়ন্ত্রণ করার কোনও নির্দেশ আমাদের দেওয়া হয়নি। কিন্তু তেলের দাম এতটাই বাড়ছিল ‌যে টানা ১৯ দিন তেলের দাম রোজ নির্ধারণ করা থামিয়ে রাখা হয়। কিন্তু সব পেট্রোপণ্য জিএসটির আওতায় আনা উচিত।’ বর্তমানে ভারতে পেট্রল ও ডিজেলের ‌যে দাম তা পাকিস্তান, বাংলাদেশ ও শ্রীলঙ্কার থেকেও বেশি। তেলের দাম তো কমছেই না বরং বাড়ছে হুহু করে। জিএসটি চালু করলে দেশজুড়ে তেলের দাম একই হবে। ফলে সরকার শুল্ক ছাড়তে না ছাড়লে জিএসটি লাগুই একটি রাস্তা বলে মনে করছে বিশেষজ্ঞ মহল।বর্তমানে দেশের অধিকাংশ পণের ওপরে জিএসটি লাগু হলেও পেট্রল, ডিজেল, অপরিশোধিত তেল, বিমানের জ্বালানী ও প্রাকৃতিক গ্যাসের ওপরে এখনও জিএসটি লাগু হয়নি।

  • বৃহস্পতিবার কর্ণাটকে একই মঞ্চে কংগ্রেস, তৃণমূল, সিপিএম, কিসের ইঙ্গিত?

    Newsbazar,ডেস্ক, ২২শে মে  বৃহস্পতিবার কর্ণাটকে শপথ নিতে চলা এইচডি কুমারস্বামীর শপথ গ্রহণ অনুষ্ঠানে উপস্থিত থাকছেন কংগ্রেস, তৃণমূল, সিপিএম ও  সমাজবাদী পার্টী থেকে শুরু করে অনেক আঞ্চলিক দল। এই মঞ্চ থেকে বিজেপি বিরোধী জোট গঠন করার  সুচনা করা হবে বলেই কংগ্রেস জানিয়েছে। ২০১৯ লোকসভা ভোটে কেন্দ্রের প্রধান শাসক দল বিজেপিকে ঠেকাতে দেশের ছোট-বড় বেশ কয়েকটি বিরোধী দল একজোট হতে একে অপরকে আহ্বান জানিয়েছে। কুমারস্বামীর শপথগ্রহণ অনুষ্ঠানে বিজেপি বিরোধী বিভিন্ন রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী ও বিরোধী দলের নেতারা আমন্ত্রিত হয়েছেন। রাহুল গান্ধী ও সনিয়া গা্ন্ধীকে নিজে গিয়ে আমন্ত্রণ জানিয়ে এসেছেন এইচডি কুমারস্বামী। কংগ্রেস জোট সরকার গড়ছে। ফলে এঁরা দুজনে আসছেন বলে জানা গেছে। এর পাশাপাশি দিল্লির মুখ্যমন্ত্রী ও আম আদমি পার্টি সুপ্রিমো অরবিন্দ কেজরিওয়াল শপথগ্রহণ অনুষ্ঠানে আসছেন। কেরলের মুখ্যমন্ত্রী পিনারাই বিজয়ন, সিপিএম সাধারণ সম্পাদক সীতারাম ইয়েচুরি, উত্তরপ্রদেশের বিরোধী নেতা সমাজবাদী পার্টির অখিলেশ যাদব, জেডিএসের সঙ্গী বিএসপির নেত্রী মায়াবতী ও আরজেডি সুপ্রিমো লালুপ্রসাদ যাদবের পুত্র তেজস্বী যাদব ও  উপস্থিত থাকছেন । দক্ষিনের  অন্ধ্রপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী এন চন্দ্রবাবু নাইড়ু, তেলঙ্গানার মুখ্যমন্ত্রী কে চন্দ্রশেখর রাও ও তাঁর পুত্র কেটি রামা রাও, ডিএমকে কার্যকরী সভাপতি এমকে স্তালিন ও অভিনেতা-রাজনীতিবিদ কমল হাসান কুমারস্বামীর শপথগ্রহণ অনুষ্ঠানে আসছেন। এইচডি কুমারস্বামী বাংলার মুখ্যমন্ত্রী ও কেন্দ্রে বিজেপি বিরোধী জোটের মুখ্য প্রবক্তা তৃণমূলনেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে বিশেষ আমন্ত্রণ জানিয়েছেন । তিনি জেতার পরই মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ফোন করে অভিনন্দন জানান ও বিজেপি বিরোধিতা চালিয়ে যেতে বলেন। বাংলার নেত্রীও বৃহস্পতিবার কংগ্রেস-সিপিএমের সঙ্গে একইমঞ্চ-এ থাকবেন।  

  • বিষাক্ত মদপানে মৃত্যু ১১জনের গুরুতর অসুস্থ বহু মানুষ।

    Newsbazar,ডেস্ক, ২০ শে মেঃ উত্তরপ্রদেশের কানপুরে বিষমদ পানে  মৃত্যু হল এখন পর্যন্ত  ১১ জনের। জেলার বিভিন্ন  হাসপাতালে বহু মানুষ এখনও  গুরুতর অসুস্থ অবস্থায়  মৃত্যুর সঙ্গে লড়াই করছেন বলে জানা গিয়েছে। ঘটনায় যুক্ত থাকার অভিযোগে পুলিশ ১১ জনকে গ্রেফতার করেছে। ধৃতদের মধ্যে সমাজবাদী পার্টির প্রাক্তন বিধায়কের এক আত্মীয়ও রয়েছেন। গত শনিবার পাঁচজনের মৃত্যু পর কানপুরের বিষমদের ঘটনা সামনে আসে। রবিবার কানপুরের রুরা গ্রামে আরও ছয়জনের মৃত্যু হয়। মদ বিক্রেতা সতীশ মিশ্রের খোঁজে তল্লাশি চালাচ্ছে পুলিশ। পুলিশের তল্লাশিতে জানা গিয়েছে, কানপুরের রুরা গ্রামে বিষ মদে মৃত্যুর খবর ছড়িয়ে পড়তেই পালিয়ে যাওয়ার আগে দোকান মালিক ও কর্মীরা সেখানে থাকা মদের প্যাকেটে আগুন লাগিয়ে দেন। মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথ মৃতের পরিবারগুলিকে দুলক্ষ টাকা করে সাহায্যের কথা ঘোষণা করেছেন। একইসঙ্গে গোটা ঘটনার পিছনে যারা জড়িতে তাদের তাড়াতাড়ি গ্রেফতারের নির্দেশ দিয়েছেন। আফগারি বিভাগের আধিকারিকদের সাসপেন্ড করার নির্দেশও দিয়েছেন তিনি।      

  • কাশ্মীরে এশিয়ার সবচেয়ে দীর্ঘতম(১৪ কিঃমিঃ) জোজিলা টানেল-র কাজের শুভ সূচনা করলেন প্রধানমন্ত্রী।

    Newsbazar ডেস্ক, ২০শে মেঃ গতকাল এশিয়ার সবচেয়ে দীর্ঘতম টানেল জোজিলা টানেল-র কাজের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপনে করলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। এদিন এই টানেলের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপনের পাশাপাশি আরও বেশকিছু  উন্নয়নমূলক প্রকল্প নিয়ে জম্মু-কাশ্মীরে এসেছেন তিনি। সব মিলিয়ে এদিন প্রায় ২৫ হাজার কোটি টাকার প্রকল্পের ঘোষণা করেন তিনি।  এখানে তিনি তার  বক্তব্য-এ বললেন  জম্মু-কাশ্মীরের সার্বিক উন্নয়নের জন্য কেন্দ্রীয়  সরকার খুবই সচেষ্ট। এই টানেলটি হবে জোজিলা গিরিখাতে। কাশ্মীর ও লাদাখ দুই উপত্যকার মাঝের এই গিরিখাতটির উচ্চতা সমুদ্র পৃষ্ঠ থেকে ১১ হাজার ৫৭৮ ফুট। শ্রীনগর-লেহ ন্যাশনাল হাইওয়ের ওপরে ১৪ কিলেমিটার দীর্ঘ টানেলটির কাজ শুরু হল আজ। নির্মাণ কাজ শেষ হলে এটিই হবে এশিয়ার দীর্ঘতম টানেল।  শীতকালের  তিন-চারমাস তুষাড়রপাতে বন্ধ থাকত এই হাইওয়ে। ফলে কাশ্মীরের বাকি অংশের সঙ্গে যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে যেত লাদাখ উপত্যকার। এই টানেলটির কাজ সম্পূর্ণ হলে আর সেই অসুবিধা থাকবে না। মোদী বলেন 'এই জোজিলা টানেল কোনও সাধারণ টানেল নয়, এটি আধুনিক যুগের একটি বিস্ময় হতে চলেছে।' কারণ ওই উচ্চতায় এত দীর্ঘ টানেল গড়াটা এমনিতেই স্থাপত্যের  দিক থেকে চ্যালেঞ্জের। পাশাপাশি প্রযুক্তির দিক থেকেও অত্যাধুনিক ব্যবস্থাকে কাজে লাগানো হচ্ছে। তিনি জানান এই দীর্ঘ টানেলের ভেতর অক্সিজেন সরবরাহের পরিমাণ ঠিক রাখতে একটি সুউচ্চ টাওয়ার গড়া হবে। কুতুব মিনারের চেয়ে সাত গুন উঁচু হবে সেই টাওয়ারটি। তার মাধ্যমে টানেলে জমা হওয়া কার্বন ডাই অক্সাইড বের করে দেওয়ার ব্যবস্থা করা হবে। এদিন লাদাখ ময়দানে উপত্যকার জনপ্রিয়তম ব্যক্তিত্ব বৌদ্ধ ধর্মগুরু উনিশতম কুশক বকুল রিনপোচে-এর শতবর্ষ উদযাপনের সমাপ্তি অনুষ্ঠান ছিল। সেখানে ভাষণ দেন মোদী। সেখানে তিনি বলেন, 'এই টানেল উপত্যকাকে বাকি দেশের সঙ্গে জুড়ে দেবে। শুধু তাই নয় এর ফলে উপত্যকার যুবদের কর্মসংস্থানের সুযোগও বাড়বে। যা এই বৌদ্ধ ধর্মগুরুরও স্বপ্ন ছিল।' একেবারে নিজস্ব স্টাইলে স্থানীয় ভাষায় এদিন বলা শুরু করেছিলেন মোদী। প্রধানমন্ত্রীকে দেখতে ময়দানে যথেষ্ট ভিড় ছিল। তারা এতে উদ্বেলিত হয়ে যায়। এরপর স্থানীয় আবেগকে আরও উস্কে মোদী বলেন উনিশতম কুশক বকুল রিনপোচে-এর কথা। বলেন, 'তাঁর অবদানের কথা কে ভুলতে পারে? অন্যের সেবায় তিনি তাঁর জীবন উৎসর্গ করেন।'  

  • আবার ছত্তিসগড়ে মাওবাদী হামলায় নিহত নিরাপত্তাবাহিনীর ছয় জওয়ান

     Newsbazar ডেস্ক, ২০শে মেঃ আবার ছত্তিসগড়ে  মাওবাদী হামলা। আইইডি বিস্ফোরণ ঘটিয়ে  নিরাপত্তাবাহিনীর ছয় জওয়ানকে  হত্যা করল মাওবাদীরা। ঘটনাটি ঘটেছে  দান্তেওয়াড়ার চোলনার গ্রামের মধ্যে।  সূত্রে জানা যায় নিরাপত্তা বাহিনী টহল দেওয়ার সময় দান্তেওয়াড়ার চোলনার গ্রামের জঙ্গলে  আইইডি বিস্ফোরণ ঘটায় মাওবাদীরা। মৃত ছয় জওয়ানের মধ্যে  রয়েছেন ছত্তিসগড় সশস্ত্র বাহিনীর তিনজন এবং জেলার সশস্ত্র বাহিনীর তিনজন। একজনকে  আশঙ্কাজনক অবস্থায় ভর্তি রায়পুরের হাসপাতালে। তাঁকে হেলিকপ্টারে করে রায়পুরে নিয়ে যাওয়া হয়।নিরাপত্তা বাহিনীর সদস্যদের থেকে অস্ত্রও লুঠ করে মাওবাদীরা। এর মধ্যে রয়েছে দুটি একে ৪৭ রাইফেল, দুটি ইনসাস। অ্যান্টি নকশাল ডিআইজি সুন্দর রাজ জানিয়েছেন, নিরাপত্তা বাহিনীর টহলের সময় মাওবাদীরা  আইইডি বিস্ফোরণ ঘটান ।এবং সেখানে  ছয় জওয়ানের মৃত্যুর খবর পাওয়া গিয়েছে। একজন গুরুতর আহত হয়েছেন। ঘটনার পরেই সেখানে সিআরপিএফ-এর বাহিনী পাঠানো হয়। মাওবাদীদের সন্ধানে ব্যাপক তল্লাশি অভিযান শুরু করেছে নিরাপত্তা বাহিনী। আইজি বিবেকানন্দ সিনহা জানিয়েছেন, প্রত্যন্ত অঞ্চলে ছয় জওয়ানকে নিয়ে টহল দিতে গিয়েছিল একটি জিপ। সেটাকেই টার্গেট করে মাওবাদীরা।