ডিজিটাল সাইন�স

  • উইন্ডোজ ১০ এ আপগ্রেড করার পর থেকেই আপনাকে সমস্যাই পড়তে হচ্ছে ? জেনে নিন কিভাবে সমস্যা থেকে মুক্তি পাবেন

    উইন্ডোজ ১০ এ আপগ্রেড করার পর থেকেই  আপনাকে সমস্যাই পড়তে হচ্ছে ?  জেনে নিন কিভাবে সমস্যা থেকে মুক্তি পাবেন-                                           শঙ্কর চক্রবর্তী উইন্ডোজ ১০ এ আপগ্রেড করার পর থেকেই এর ব্যবহারকারীকে পড়তে হচ্ছে নিত্যনতুন সমস্যায়।যদিও এগুলো কোন সমস্যা নয়,মাইক্রোসফট তার বিভিন্ন ফিচার পরিবর্তনের কারনে এই ধরনের সমস্যায় পড়তে হচ্ছে।এগুলোর রয়েছে সহজ কিছু সমাধান,তাই নিয়েই আজকের এ পোস্ট। আপনি যদি সরাসরি উইন্ডোজ একটিভ করতে না পারেন তাহলে কে এম এস এক্টিভেটরের সাহায্যে শজেই এক্টিভ করে নিতে পারেন আপনার উইন্ডোজটি। কে এম এস এক্টিভেটর ডাউনলোড করতে kms activator   ২.বন্ধ করুন অটো আপডেট প্রথমে কম্পিউটার এর icon এ right click করে  manage  এ যান এর পর  service এ ক্লিক করুন এখন নিচের দিক থেকে windows update খুজে বের করুন এবং ক্লিক করুন এখন start up type  এ গিয়ে disabled করে stop এ ক্লিক করুন এবং  prosessing হবার পর ok ক্লিক করুন বন্ধ হয়ে গেল আপনার অটো আপডেট। ৩.বাংলা ফন্ট সমস্যা Control panel এ যান Language a Click করুন Add Language click করুন তারপর বাংলা তে ক্লিক করুন বাংলাদেশের জন্য বাংলা নির্বাচন করুন Language preference a click করুন বাংলা (বাংলাদেশ) সিলেক্ট করুন Option এ ক্লিক করুন ৪. ডিলেট করুন windows.old ফোল্ডার সি ড্রাইভে গিয়ে রাইট বাটন ক্লিক করে প্রপার্টিজ এ ক্লিক করুন এবার ডিস্ক ক্লিন আপ এ ক্লিক করুন এবার অপেক্ষা করুন একটু পর দেখাবে আপনি কোন কোন ফোল্ডার ডিলেট করতে চান ঐখান থেকে windows.old ফোল্ডারটি সিলেক্ট করে ওকে করুন। আরো কিছু সমস্যা এবং সমাধান  নিয়ে আমরা হাজির হব পরবর্তী লেখায় । উইন্ডোজ নিয়ে আপনার কোন সমস্যা থাকলে লিখুন আমাকে। sankar.akantoapan@gmail.com

  • আসছে নতুন নিয়ম ঃ মোবাইল ফোনে সিমকার্ড না-থাকলেও কল করা যাবে যে কোনও মোবাইল ফোনে

    news bazar 24 : সিম কার্ডের জামানা শেষ হতে চলেছে ।  মোবাইল ফোনে সিমকার্ড না-থাকলেও কল করা যাবে যে কোনও মোবাইল ফোন বা ল্যান্ডলাইন ফোনে।  মোবাইল ফোনের সিগনাল নিয়ে নালিশ নতুন নয়। এখনো বহু জায়গায় মোবাইল সিগনাল না থাকায় সমস্যায় পড়েন গ্রাহকরা। আর কথা বলতে বলতে কল ড্রপ তো নৈমিত্তিক ঘটনা। এসবের সমাধানে কেন্দ্রীয় সরকারকে দূরসঞ্চারের বিকল্প মাধ্যম ব্যবহারের পরামর্শ দিয়েছিলে টেলিকম নিয়ামক সংস্থা TRAI. পরামর্শ ছিল ইন্টারনেট টেলিফোনিকে ছাড়পত্র দিক সরকার। সেই প্রস্তাব গ্রহণ করেছে কেন্দ্রীয় ইন্টার মিনিস্টিরিয়াল টেলিকম কমিশন। 

  • কম্পিউটারে অ্যান্ড্রয়েড অ্যাপলিকেশন চালাতে পারে bluestacks

    প্রকাশ চন্দ্র মন্দল ঃ উইন্ডোজ ব্যবহারকারীরা যেন তাঁদের কম্পিউটারে অ্যান্ড্রয়েড অ্যাপলিকেশন চালাতে পারেন, কয়েক বছর ধরেই তার ব্যবস্থা করে আসছে ব্লুস্ট্যাক। ব্যাপারটাকে আরও একধাপ এগিয়ে নিতে ব্লুস্ট্যাককে সমর্থন জোগালো চিপ নির্মাতা অ্যাডভান্সড মাইক্রো ডিভাইস (এএমডি)। ব্লুস্ট্যাকের নতুন এই সংস্করণ মাইক্রোসফটের উইন্ডোজ-চালিত অপারেটিং সিস্টেমের ডেস্কটপ, ট্যাবলেট বা নোটবুক কম্পিউটারে সম্পূর্ণ অ্যান্ড্রয়েড চালানো যাবে বলে ঘোষণা দিয়েছে এএমডি। বর্তমানে ব্যবহূত ভার্চুয়ালাইজেশন পদ্ধতির ওপর ভিত্তি করে ব্লুস্ট্যাক অ্যাপ প্লেয়ারের মাধ্যমে অ্যান্ড্রয়েড অ্যাপলিকেশন চালানোর বদলে নতুন এই সফটওয়্যারটি পুরো অপারেটিং সিস্টেম ব্যবহার করবে। এতে অ্যান্ড্রয়েড ইন্টারফেস, সেটিংস, কনফিগারেশন এবং আরও অনেক কিছুর সুবিধা পাওয়া যাবে। এর ওপর গুগল অপারেটিং সিস্টেমে চালিত অ্যাপসগুলো হোস্ট কম্পিউটারের ফাইলে প্রবেশ করতে পারবে। যদিও ব্লুস্ট্যাক এখনো উইন্ডোজের পুরো পর্দায় অ্যাপ চালাতে পারে। প্রতিষ্ঠানটি বলেছে, চতুর্থ প্রজন্মের এক্সেলারেটেড প্রসেসিং ইউনিটের (এপিইউ) বদৌলতে এ ধরনের উন্নয়ন সম্ভব হয়েছে। সফটওয়্যারটি শুধু তাদের সিলিকন দিয়ে তৈরি যন্ত্রে চলবে কি না, এ ব্যাপারে প্রতিষ্ঠানটি পরিষ্কার করে কিছু বলেনি। 

  • অনলাইন নজরদারিতে আপনার কি করা উচিত ?

    ডেস্ক ঃ অনলাইন নজরদারিতে যুক্তরাষ্ট্রের এনএসএ (ন্যাশনাল সিকিউরিটি এজেন্সি) এখন আলোচিত একটি নাম। অনলাইনের এই গোপন নজরদারি বা হ্যাকারদের সাইবার আক্রমণ থেকে নিজেদের কীভাবে রক্ষা করা যায়, এ নিয়ে চিন্তিত অনেকেই। তবে এ ব্যাপারে ব্যবহারকারীর নিজেরও কিছু করার আছে। একটু সতর্কতা আর ছোট ছোট কিছু পদক্ষেপ নিলে অনলাইনে নিজের নিরাপত্তা অনেকটাই সুরক্ষিত থাকে। ওয়েব এনক্রিপশনঃ ইন্টারনেট যোগাযোগে যতটুকু সম্ভব নিরাপদ ওয়েব পথ (ট্রাফিক) ব্যবহার করা উচিত। এ জন্য এইচটিটিপিএস এভরিহোয়্যার নামের একটি ছোট প্রোগ্রাম (অ্যাড-অন) ফায়ারফক্স বা ক্রোম ব্রাউজারে ব্যবহার করতে হবে। যেসব ওয়েবসাইটে এইচটিটিপি সিকিউর (https) সুবিধা রয়েছে, সেখানেই এটি স্বয়ংক্রিয়ভাবে চালু হয়ে এসএসএল এনক্রিপশনের মাধ্যমে ইন্টারনেট ট্রাফিক নিরাপদ করে ফেলে। অ্যাড-অন নামানোর ঠিকানা https://www.eff.org/https-everywhere।   টর ব্রাউজারঃ ওয়েবসাইট দেখার মুক্ত এই প্রোগ্রামটি স্বেচ্ছাসেবীদের গ্লোবাল নেটওয়ার্ক এবং সার্ভার ব্যবহার করে অন্যের নজরদারি থেকে ব্যবহারকারীকে বাঁচায়। পাশাপাশি তার প্রকৃত অবস্থান গোপন রাখে। আর ঠিক এ কারণেই টর বিভিন্ন গোয়েন্দা সংস্থার মাথাব্যথার কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে। www.torproject.org ঠিকানা থেকে নামানো যাবে। প্রাইভেট ব্রাউজিংঃ সাইবার ক্যাফে বা পাবলিক ওয়াই-ফাই এলাকা থেকে ইন্টারনেট ব্যবহার করলে ব্রাউজারের প্রাইভেট মোড চালু (অন) করে ওয়েবসাইট দেখার সময় বিভিন্ন তথ্য (ক্যাশ, কুকি, পাসওয়ার্ড) নিরাপদ রাখা যায়। ফায়ারফক্স হলে Firefox>New Private Window -এ ক্লিক করে; গুগল ক্রোমের ক্ষেত্রে Customize and control Google Chrome>New incognito window-এ ক্লিক করে এবং ইন্টারনেট এক্সপ্লোরারে Safety>InPrivate Browsing-এ ক্লিক করে প্রাইভেট মোড চালু করতে হবে। শক্তিশালী পাসওয়ার্ডঃ ই-মেইল অ্যাকাউন্ট, বিভিন্ন মুঠোফোন ও ওয়েব-সেবায় একই পাসওয়ার্ড ব্যবহার করা ঠিক নয়। আবার সহজ, সংক্ষিপ্ত বা পুরাতন কোনো পাসওয়ার্ড ব্যবহার করা ঝুঁকিপূর্ণ। ছোট হাতের বড় হাতের অক্ষর (স্মল ও ক্যাপিটাল লেটার), সঙ্গে সংখ্যা এবং বিশেষ চিহ্ন-সংবলিত একটু লম্বা পাসওয়ার্ড ব্যবহার করা উচিত। অনেক বেশি পাসওয়ার্ড ব্যবহার করলে পাসওয়ার্ড ম্যানেজার ব্যবহার করা যেতে পারে। যেকোনো ব্রাউজারে ব্যবহার উপযোগী তেমনি একটি নিরাপদ এবং বিনা মূল্যের প্রোগ্রাম হলো লাস্টপাস। এটি ডাউনলোড করতে হবে https://lastpass.com ঠিকানার ওয়েবসাইট থেকে। ইনস্টল করার পর ই-মেইল ঠিকানা এবং প্রধান (মাস্টার) পাসওয়ার্ড দিয়ে লাস্টপাসে একটি অ্যাকাউন্ট খুলতে হবে। এরপর যেকোনো ওয়েবসাইটের লগইন তথ্য সেভ করলে পরবর্তী সময়ে প্রোগ্রামটি স্বয়ংক্রিয়ভাবে নিজেই পূরণ করে দেবে। দুই ধাপের নিরাপত্তাঃ গুগল, টুইটার, ফেসবুক কিংবা ড্রপবক্সসহ বিভিন্ন ওয়েবসাইটে এই সুবিধা আছে। দুই ধাপের ব্যাপারটি হলো, কোনো ওয়েব কিংবা ক্লাউড-সেবায় পাসওয়ার্ড লেখার পাশাপাশি নিয়মিত পরিবর্তন ঘটে এমন কোনো নিশ্চিতকরণ নম্বরও বসাতে হয়। যখনই কোনো ওয়েব-সেবায় এই ধরনের সুবিধা থাকবে, তখনই সেটি চালু করতে হবে। যেমন, ফেসবুকে লগইন অ্যাপ্রুভাল কোড চালু থাকলে, পাসওয়ার্ড দিয়ে লগইন করার পর মুঠোফোনে একটি নিশ্চিতকরণ সংকেত আসবে, সেটি নির্দিষ্ট জায়গায় বসানোর পরই কেবল ফেসবুকে প্রবেশ করা যাবে। সংযুক্ত ফাইলে ক্লিক না করাঃ ই-মেইল অথবা ওয়েবসাইটের মাধ্যমে ক্ষতিকর ম্যালওয়্যার সহজেই কম্পিউটারে ছড়িয়ে পড়তে পারে। এতে কম্পিউটারের নিয়ন্ত্রণ অন্যের হাতে চলে যেতে পারে। তাই সন্দেহজনক কোনো ওয়েব ঠিকানা, ই-মেইলে পাঠানো অপরিচিত কারও সংযুক্ত (অ্যাটাচমেন্ট) ফাইলে হুট করে ক্লিক করবেন না। এ ছাড়া নামানো কোনো ফাইল অ্যান্টি-ভাইরাস সফটওয়্যার দিয়ে স্ক্যান করে তবেই ব্যবহার করুন। নিরাপত্তা সফটওয়্যারঃ কম্পিউটারের নিরাপত্তায় একটি ইন্টারনেট নিরাপত্তা বা অ্যান্টি-ভাইরাস সফটওয়্যার ব্যবহার করতে হবে। প্রোগ্রামটি শুধু ইনস্টল করলেই হবে না বরং এর কার্যকারিতা পেতে হলে সর্বশেষ সংস্করণ অবশ্যই ইন্টারনেট থেকে হালনাগাদ করে নিতে হবে। 

  • মালদার বাঙালি ছেলের হাত ধরে ভারতের সর্বপ্রথম সোশ্যাল নেটওয়ার্ক: jiodost

    ডেস্ক ঃ বর্তমানে বিদেশি সোশ্যাল নেটওয়ার্ক যেমন-ফেসবুক, টুইটার, হোয়াটস এয়াপ ইত্যাদি সারা ভারতে দারুন ভাবে বাজিমাত করছে। এতে প্রচুর ফেক আইডিও ভাইরাল হয়ে উঠেছে। এতে ইউজারের নিরাপত্তা নষ্ট হয়ে পড়ে। মানুষ বর্তমানে নিরাপত্তার খোঁজে ব্যস্ত হয়ে পড়েছে।এই দুর্বলতাকে ভিত্তি করে মালদহের এক পল্লীগ্রামে মোথাবাড়ির মানস কুমার, সামীম আব্বাস, আনওয়ার হোসেন, বাপন এন্ড গ্ৰপ, ওয়াসিম, আরও কিছু লোকের সহযোগিতায় ভারতের সর্ব প্রথম সোশ্যাল নেটওয়ার্ক jiodost.com এর উদ্ভব হয়েছে । এতে ইউজারের নিরপত্তা রয়েছে। তাছাড়াও এর মাধ্যমে chatting, audio-video call, file transfer, online shopping, points earning ইত্যাদি করা যাবে।

  • 'জনবহুল দেশগুলির' মধ্যে ইন্টারনেট স্পিডে এক নম্বরে পাকিস্তান

    ডেস্ক ঃ 'জনবহুল দেশগুলির' মধ্যে ইন্টারনেট স্পিডে এক নম্বরে পাকিস্তান! হ্যাঁ এমনটাই দাবি পাক সংবাদমাধ্যমের। গ্লোবাল স্পিডটেস্টের রিপোর্ট উল্লেখ করে জানানো হয়েছে, ২০১৭-তে সবচেয়ে দ্রুততম ইন্টারনেট স্পিড উপভোগ করেছে পাকিস্তান। গত এক বছরে দেশে ইন্টারনেট স্পিড ৫৬ শতাংশ পর্যন্ত  বেড়েছে বলে দাবি পাকিস্তানের। ভারত সেই তুলনায় অনেক নীচে রয়েছে। স্পিডটেস্ট গ্লোবাল ইনডেক্সের সমীক্ষা অনুযায়ী, নভেম্বরে প্রথম স্থানে রয়েছে নরওয়ে। ডাউনলোড স্পিড ৬২.৬৬ মেগাবাইট প্রতি সেকেন্ড। চিন রয়েছে ৩১ নম্বরে। ২৬.৩২ এমবিএস ডাউনলোড স্পিডে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র রয়েছে ৪৪ নম্বর স্থানে। পাকিস্তান সেই নিরিখে আছে ৮৯ নম্বরে। ইন্টারনেট স্পিড ১৩.০৮ এমবিএস। পাকিস্তান থেকে আরও ১৯ নম্বর পিছিয়ে ভারত। মাত্র ৮.৮০ এমবিএস ডাউনলোড স্পিড ভারতের।

  • ২০১৮ থেকে বেশকিছু ফোনে আর কাজ করবে না হোয়াটসঅ্যাপ

    ডেস্ক ঃ নতুন বছর থেকে বেশকিছু ফোনে আর কাজ করবে না হোয়াটসঅ্যাপ। ফেসবুকের তরফে একটি ব্লগে এমনই কথা জানানো হচ্ছে। আপনার ফোনে অ্যান্ড্রয়েড সিস্টেমটিটে লেটেস্ট আপডেটেড ইনস্টলড না থাকলে হোয়াটসঅ্যাপ আর চলবে না বলে আগেই জানিয়েছিল ফেসবুক। কোম্পানির তরফে জানিয়ে দেওয়া হয়েছে, বছর শেষ হওয়ার আগে অ্যান্ড্রয়েড আপডেট করে নেওয়া প্রয়োজন। তা না হলে হোয়াটসঅ্যাপ আর কাজ করবে না নতুন বছরে। নিরাপত্তার জন্যই এই পদক্ষেপ নিতে হচ্ছে বলে জানিয়েছে সংস্থাটি। জানা ‌যাচ্ছে BlackBerry OS, BlackBerry 10 ও Windows Phone 8.0 ফোনে নতুন বছর থেকে আর কাজ করবে না হোয়াটসঅ্যাপ। অন্যদিকে-নোকিয়া এস ৪০ ফোনে হোয়াটসঅ্যাপ চলবে না ২০১৮ সালের ৩১ ডিসেম্বরের পর থেকে। অ্যান্ড্রয়েড ভার্সন ২.৩.৭-এ হোয়াটসঅ্যাপ আর চলবে না ২০২০ সালের ১ ফেব্রুয়ারির পর।

  • ২০১৮ থেকে বেশকিছু ফোনে আর কাজ করবে না হোয়াটসঅ্যাপ

    ডেস্ক ঃ নতুন বছর থেকে বেশকিছু ফোনে আর কাজ করবে না হোয়াটসঅ্যাপ। ফেসবুকের তরফে একটি ব্লগে এমনই কথা জানানো হচ্ছে। আপনার ফোনে অ্যান্ড্রয়েড সিস্টেমটিটে লেটেস্ট আপডেটেড ইনস্টলড না থাকলে হোয়াটসঅ্যাপ আর চলবে না বলে আগেই জানিয়েছিল ফেসবুক। কোম্পানির তরফে জানিয়ে দেওয়া হয়েছে, বছর শেষ হওয়ার আগে অ্যান্ড্রয়েড আপডেট করে নেওয়া প্রয়োজন। তা না হলে হোয়াটসঅ্যাপ আর কাজ করবে না নতুন বছরে। নিরাপত্তার জন্যই এই পদক্ষেপ নিতে হচ্ছে বলে জানিয়েছে সংস্থাটি। জানা ‌যাচ্ছে BlackBerry OS, BlackBerry 10 ও Windows Phone 8.0 ফোনে নতুন বছর থেকে আর কাজ করবে না হোয়াটসঅ্যাপ। অন্যদিকে-নোকিয়া এস ৪০ ফোনে হোয়াটসঅ্যাপ চলবে না ২০১৮ সালের ৩১ ডিসেম্বরের পর থেকে। অ্যান্ড্রয়েড ভার্সন ২.৩.৭-এ হোয়াটসঅ্যাপ আর চলবে না ২০২০ সালের ১ ফেব্রুয়ারির পর।

  • ভুয়ো অ্যাকাউন্ট বন্ধ করতে এবার আধার-এর দ্বারস্থ ফেসবুক।

    ডেস্ক ঃ এবার আধার-এর দ্বারস্থ ফেসবুক। ফেসবুকে নতুন অ্যাকাউন্ট খুলতে গেলে আধার কার্ডে থাকা নাম জানাতে হবে ফেসবুককে। তবে মিলবে ফেসবুক ব্যবহারের অনুমতি। এর ফলে আত্মগোপন করে ফেসবুকে প্রোফাইল খোলা মুশকিল হবে বলে মনে করছেন বিশেষজ্ঞরা। নাম গোপন করে ফেসবুকে একাধিক প্রোফাইল অনেকেরই রয়েছে। এছাড়া ফেসবুকে ভুয়ো পরিচয় দিয়ে প্রোফাইল খুলে প্রতারণা চক্রও বিরল নয়। তবে এবার এই প্রবণতায় রাশ টানতে চলেছে ফেসবুক। ব্যবহারকারীদের পরিচয় নিশ্চিত করতে এবার আধার কার্ডে থাকা নাম উল্লেখের আবেদন জানাল ফেসবুক। বিষয়টা কী, একটু খোলসা করে বলা যাক। এখন থেকে ফেসবুকে কেউ অ্যাকাউন্ট খুলতে গেলে বা সাইন আপ করতে গেলে তাকে আধার কার্ডে থাকা নাম হুবহু উল্লেখ করতে হবে। ফেসবুকের তরফে বলা হয়েছে, আসল পরিচয়ে অ্যাকাউন্ট খোলাতে উত্সাহ দিতেই সংস্থার তরফে এই উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে।পাশাপাশি সংস্থার তরফে আরও বলা হয়েছে, বিভিন্ন দেশে পরিচয়পত্রের ভিত্তিতে অ্যাকাউন্ট খোলার নিয়ম আগে থেকেই চালু রয়েছে। ভারতে এই ব্যবস্থা নতুন হলেও আপাতত তা পরীক্ষামূলক স্তরেই রয়েছে। একইসঙ্গে সুস্পষ্ট করে জানানো হয়েছে, এর সঙ্গে আধার নম্বরের কোনও সম্পর্ক নেই।