Newsbazar24.com / দেশ

  • মালদা শহর কি হতে পারে যানজট মুক্ত শহর ?

    14-May-18 04:45 pm


                শংকর চক্রবর্তী

    আজ ১৪ মে, মালদা শহরে ছিলোনা ট্রাফিক পুলিশ। বলতে গেলে চোখে পড়েনি ট্রাফিক পুলিশের নজরদারী। চলেছে টোটো। ব্যাংক অফিস শহরের খোলা ছিলো। তারপরেও শহর ছিলো যানজট মুক্ত। শহরের মানুষ অনেক দিন পর প্রাণ খুলে নিশ্বাস নিলো। প্রচুর বয়স্ক মানুষ শান্তিতে রাস্তায় হটালেন। এখন কথা হচ্ছে আজ শহর যানজট মুক্ত থাকলো কি করে? এটাই ভাবতে হবে প্রশাসন কে ! অনেক মানুষের অভিমত শহরে সিভিক পুলিশ না থাকার জন্য এই সুন্দর চিত্র। কারো কথায় প্রাক্তম পুরোপতির লাগাম ছাড়া টোটো র অনুমোদন দেওয়া টোটো চালক রা শহরে না আসার জন্যই শহর এতো পরিষ্কার। তবে যে যাই বলুক না কেন শহর যে আজ যানজট মুক্ত ছিলো, এবং এই দৃশ্য হরতালের দিনও চোখে পড়েনা তা আর বলার অপেক্ষা রাখে না। তবে কি কারণে রোজ শহর হয় যানজটে ভরাক্রান্ত? খালি টোটোর দোষ না সাথে আরো অন্য কারণ, আমার চিন্তাভাবনায় যা মনে হলো তাই তুলে ধরলাম।

     ১) ভারতের বেশির ভাগ শহরে দিনের বেলায় ট্রাক পণ্য খালি করার জন্য ঢুকতে দেওয়া হয়না। মালদা শহরে চিত্তরঞ্জন মার্কেট ও বোম্বে রোডে আটার দোকান গুলোতে সারাদিন ট্রাক ঢুকে ও বেরোয়। মালদার প্রশাসন চেম্বার অব কমার্স কে সাপোর্ট করে চোখ ফিরিয়ে থাকে।

    2) শহরে ডেকোরেটরএর বাঁশ , লোহা ও আয়রন সিট, কাঁচের সিট , কলের পাইপ, সাইকেল ভ্যানে ওভার লোড করে পথ চলতি মানুষের জন্য মরনফাঁদ হয়ে ধীর গতিতে চলতে থাকে।ফলে এই সাইকেল ভ্যান গুলির পেছনে আটকে পরে অসংখ্য গাড়ি। সৃষ্টি হয় যানজটের। ট্রাফিক পুলিশ ও চেম্বার চুপচাপ।

    3) পৌসভার এক শ্রেণীর কর্মীদের মদতে ফুটপাত আজ দোকানি দের দখলে। বেশিরভাগ দোকানের স্যান্ডি সাইনবোর্ড ফুটপাতে। কারো কারো আবার কাস্টমার বসার চেয়ার টুল ফুটপাতে।ফলে বাধ্য হয়েই মানুষ কে রাস্তায় নেমে হাটতে হয়, আর পথ চলতি মানুষ কে পাস কাটিয়ে গাড়ি চালকদের যেতে গিয়ে যানজটের সৃষ্টি হয়।প্রতিবাদের উপায় নেই, কিছু বলার উপায় নেই। ফোঁস করে উঠবে চেম্বার। কিছু বললেই মালদা বন্দ। তারপর পৌরসভার মদতও আছে।

    4) মোটর সাইকেল চালাতে গেলে ড্রাইভিং পরীক্ষায় পাশ করতে হয়। তারপর হাজার নিয়ম। টোটোর ক্ষেত্রে কোনো নিয়ম নেই। প্রশাসকের পোষ্য পুত্র এরা। স্কুলের শিশুদেরই হোক বা সাধারণ যাত্রীদের নিয়েই হোক এরা নিজেদের মর্জিমাফিক রাস্তায় চলে। যেখানে খুশি থামে। হাত না দেখিয়েই যে দিকে খুশি ঢুকে। যেখানে খুশি দাঁড়িয়ে প্যাসেঞ্জার তোলে। এদের বেশিরভাগ চালক শুকনো নেশা করা অবস্থায় গাড়ি চালায়। আর ট্রাফিক আইন না মেনে গাড়ি চালানোর জন্য যানজটের সৃষ্টি হয়।

    5) শহরে অনেক নেতার মদতে এখনো বিক্রি হয়ে চলেছে টোটো। রোজ রোজ টোটোর নতুন দোকান খুলছে। খালি পৌরসভা নয় গ্রাম পঞ্চায়েতের টোটো গুলিও সকাল হতেই শহরে চলে আসছে।

    6) অনেক টোটো মালিক একাধিক টোটো কিনে নিয়েছে। যা মাসিক চুক্তিতে ভাড়া দিয়ে থাকে। এই গাড়ি গুলি চালানোর জন্য খালি মালদার গ্রাম শহর নয়, পার্শ্ববতী জেলা এমন কি বিহার ঝাড়খণ্ডের প্রচুর মানুষ গাড়ি চালাতে চলে আসছে। ফলে মালদা শহর সবসময় যানজট যুক্ত থাকছে । গ্রীনিস বুকে মালদা, টোটো শহর হিসেবে জায়গা করতে চলেছে।

    7) অতুল মার্কেট থেকে বাস স্ট্যান্ড সরানো হয়েছিল যানমুক্ত শহর করার জন্য । আদৌ কি তা সম্ভব হয়েছে ? রথবাড়ি টুরিস্ট লজের সামনে পাকাপোক্ত ভাবে বাসস্ট্যান্ড হয়ে গেছে। ওখানেই বিক্রি হয় বাসের টিকিট। আর এই বাস গুলো 5-7 মিনিটের ব্যবধানেই রথবাড়ি মোহদীপুর ম্যাক্সি স্ট্যান্ডের সামনে জাতীয় সড়ক বন্ধ করে গাড়ি ঘোরানোর কাজ করে। বাস চালকদের রবীন্দ্রভবনএর কাছে বাস স্ট্যান্ডে যেতে নাকি খুব কষ্ট হয়। আবার অনেকে বলে নেতা, প্রশাসনের সাথে সেটিং। আর এই সেটিংস ই হোক বা অন্য কিছু এটাও যে যানজটের কারণ সেটাও বলার অপেক্ষা রাখেনা।

    8) কালিচকে বাইপাসের কাজ শুরু করতে কয়েক বছর লেগেছিল একমাত্র রাস্তা দখলকারী দোকানদার দের সময় মত সরাতে না পারার জন্য। প্রশাসনের অবস্থা সেইসময় লেজেগোবরে হয়ে গেলেও প্রশাসন সেখান থেকে শিক্ষা নেয়নি বলেই আমার মনে হয়। রথবাড়ি মোড় এখন ( জানকি বস্ত্রলায়) এর সামনে একটা লেন রীতিমত কালিয়াচক স্ট্যান্ড। এখানেই আবার টোটো গুলো ঘন্টার পর ঘন্টা দাঁড়িয়ে থাকে ।সব মিলিয়ে এখান থেকেই প্রতিদিন যানজটের সূচনা হয়।

          আমি একটা কথা জোরের সাথে বলতে পারি বেকারদের কর্মসংস্থান করা হয়েছে এই অজুহাত দিতে গিয়ে সাধারণ পথচারী দের পথ চলার ক্ষেত্রে বাধা সৃষ্টি করে কি লাভ? মালদা জেলার বর্তমান জেলাশাস ককৌশিক ভট্টাচার্য মালদার খুব নিকট আত্মীয়। আশাকরি মালদার উপর তাঁরও ভালোবাসা আছে। পুলিশ সুপার অর্নব ঘোষ পারেন না এমন কিছু নেই। মালদার অনেক জায়গার ক্রাইম তিনি বন্ধ করে দিয়েছেন। যানজট মুক্ত শহর গড়া এই অফিসারদের পক্ষে খুব সোজা কাজ। মালদার মানুষ আশা করেন যানজট মুক্ত শহর গড়ার। যাতে সাধারণ বয়স্ক মানুষরাও নিরাপদে নিজের হার্ট, প্রেসারের ওষুধটা কিনতে দোকান যেতে পারেন।

    বড়কথা যান নিয়ন্ত্রিত শহর ই সুন্দর শহরের পরিচয়। ভোটের জন্য সব কিছু করতে পারা, ৫-১০ বছরের জন্য নেতা মন্ত্রীরা এটা আর কি করে বুঝবেন! বুঝলে মালদা কে টোটো শহর বলার কেও সাহস পেতনা। টোটো নিয়ে কেউ রাজনীতি করতো না। এখন দেখার বিষয় আবার কবে…….

    Read : 1471

Related Posts

চতুর্থ আন্তর্জাতিক যোগা দিবসে দেরাদুনে হাজার হাজার মানুষের সাথে যোগাভ্যাসে প্রধানমন্ত্রী
বিজেপি জম্মু ও কাশ্মীর সরকারের ওপর সমর্থন তুলে নেওয়ায় কাশ্মীর উপত্যকায় রাজনৈতিক সংকট ঘনীভূত
সাংবাদিক গৌরী লঙ্কেশ হত্যাকাণ্ড ঘিরে অভিযুক্ত পরশুরাম ওয়াঘমোরের বিস্ফোরক বয়ান
সমস্ত দেশজুড়ে পালিত হল খুশির ইদ
সদ্য প্রয়াত বিশিষ্ট সাংবাদিক সুজাত বুখারির মুল্যায়ন “কাশ্মীরে টিকে থাকাই সাংবাদিকতার সবচেয়ে বড় চ্যালেঞ্জ”
কাশ্মীরের তরুন সেনা জওয়ান আওরেঙ্গজেবের ইদের ছুটিতে বাড়ী ফেরা হল না।
"CareerLift Ed-Tech" – Providing Technology Solutions for Educational Institutes
ভারতীয় সেনাবাহিনীর এক জওয়ান জম্মু কাশ্মীরের শোপিয়ান জেলা থেকে অপহৃত
প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী অটলবিহারী বাজপেয়ী খুব শীঘ্রই সুস্থ হয়ে উঠবেন-ডিরেক্টর এইমস